Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

"নোবেলের ম্যাজিক শুধু প্রতারণা"

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৫৯২জন দেখেছেন

Image

রমজান আলীঃ

দুনিয়ার প্রাচুর্যশালী ব্যক্তিবর্গ, সংস্থা, খ্যাতিমান,এর কীর্তি,তথ্য, উপাত্ত দিয়ে তৈরি করে বিশেষ বিবেচনার জন্য। মহৎ মানুষের গভীর ক্রন্দন থেকে সারা জীবনের সঞ্চয়ী সকল অর্থ দান করে গেলেন মানব কল্যাণার্থে। যিনি রেখে গেলেন তিনি আজ বিতর্কিত। য আলফ্রেন্ড নোবেল পৃথিবীর তাবৎ মানুষের মনের মনি কোঠায় স্থান করে রয়ে গেল এবং তার পূর্ববর্তী বা পরবর্তী প্রজন্মের চিলি কোঠায়। ভারত উপমহাদেশে প্রথম ১৯১৩ সালে সাহিত্যের এক অঙ্গে গীতাঞ্জলির জন্য রবীন্দ্রনাথ প্রথম নোবেল প্রাইজ এ নির্বাচিত হন। আমরা ভারতবাসী গভীর আপ্লুত, গর্বিত। নন্দিত নায়ক রবি ঠাকুর বাংলা ভাষাকে বিশ্ব দরবারে স্থান করে নেওয়ায় কোটি প্রণাম। বিশ্বকবি রবি ঠাকুর কবি,নাট্যকার, ছড়াকার, গীতিকার ছিলেন। উপরন্ত তাকে স্বভাব কবি ও বলা হয়। ভারত উপমহাদেশে তিনজন স্বভাব জন্মেছিলেন। তারা হলেন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, কাজী নজরুল ইসলাম ও কবি গোবিন্দ্র নাথ। তারা কাগজ কলম হাতে নিলেই কলম যোদ্ধা হয়ে যান। এইজন্য এই তিনজনই স্বভাব কবি হয়েছেন। কবি কাজী নজরুল ইসলাম ২০০ কোটি মুসলিমের প্রতিনিধিত্ব করে কবিতা লিখে জেল খেটেছেন, এমন নজির পৃথিবীর ইতিহাসে আর নেই।

"রমজানের ওই রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ"এই গান টি তো শিক্ষা সংস্কৃতিতে পড়ে। ভাষার জন্য শহীদ হয়েছেন তার দৃষ্টান্ত তো পৃথিবীর ইতিহাসে আর কারো নাই। কিন্তু উনারা মুসলিম হওয়ায় তার নজর করেনি পৃথিবীর কোন সংস্থায়। নজর কারেণি বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য। যিনি প্রায় ৪৪ বছর পর্যন্ত দলনেত্রী, পঞ্চম বারের মত একটি দেশের প্রধানমন্ত্রী যা ইন্দিরা গান্ধীর থেকেও প্রায় ১০ বছর বেশি ক্ষমতা আরোহণ করে আসছেন। কিন্তু এই বাঙালি নেত্রী নাকি বিশ্বের ২২ তম ক্ষমতাধর নারী। যদি উনি ইউরোপ বা আমেরিকার কোন অখ্যাত দেশের নেত্রী ও হতেন তাহলে একাধিকবার নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হতেন। তবে ডক্টর ইউনুস এর জন্য তাদের দরদের কমতি নেই। যদিও আরেকবার নোবেল উপাধি দেওয়া যায় কিনা সেই ব্যাপারে তদবির করা উচিত। আমাদের সন্ত্রাসী প্রতিবেশী মিয়ানমার তারা যে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছিল তার প্রতিবাদ না করে আমাদের ধনাঢ্য প্রতিবেশীরাও কৌশলে চুপ করেছিলেন। রোহিঙ্গা মুসলিমরা দুনিয়ার কেয়ামত দেখে দিগ্বিদিক হারিয়ে এই বাংলায় আশ্রয় নিয়েছিল। ১৫ লক্ষ মুসলিমকে জীবিত অবস্থায় আশ্রয় দিয়ে যে নজির বাংলার প্রধানমন্ত্রী স্থাপন করলেন তাকে শতবার নোবেল পুরস্কারে ভূষিত করা উচিত। ৭২ টি বাংলাদেশের সমান কানাডা সেখানেও কি এই রোহিঙ্গাদের স্থান দিতে পারতো না? অথবা ৩৮ টি বাংলাদেশের সমান দেশ নিয়ে আমাজান বন সৃষ্টি সেখানে কি এই অসহায় রোহিঙ্গাদের স্থান হতো না? কারণ আশ্রয় প্রার্থীরা সবাই মুসলিম, সেজন্যই এত অবহেলা। ভাই আমরা এই বিবেকহীন বিচারকদের ঘৃণা করি। তামাশার বিচার ব্যবস্থা মানি না, ভুয়া জাতিসংঘ মানি না।


আরও খবর

ভালোবাসার দিন আজ

বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




কামরাঙ্গীরচরে তিতাস গ্যাসের বকেয়াধারী এবং অবৈধজনিত গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন অভিযান

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ২২০জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃ 

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি'র বকেয়াধারী এবং অবৈধজনিত গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করণের জন্য কামরাঙ্গীর চর এলাকার ৫৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেনসহ তিতাস গ্যাসের বিচ্ছিন্ন টিম নিয়ে এক অভিযান কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। বুধবার ৩ জুন  এই অভিযান চালিয়েছে তিতাস গ্যাস মেট্রো ঢাকা রাজস্ব বিভাগ,জোন৫-ধানমন্ডি অফিস কর্তৃপক্ষ।এ সময় তিতাস গ্যাসের জোন ৫-ধানমন্ডি অফিসের উপ-মহাব্যাবস্থাপক এমদাদুল হক সহ কর্মকর্তা- কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।


 উল্লেখ্য যে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসি'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হারুনুর রশীদ মোল্লাহ কোম্পানীকে লোকসানের হাত থেকে রক্ষা করতে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন,বকেয়া আদায় এবং রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।এ কারনে  মাঠ পর্যায়ে তিতাস গ্যাসের কর্মকর্তা কর্মচারীদের নানা দিক নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। সেই দিকনির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে নিয়মিত এই ধরনের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। 

তিতাস গ্যাসের মেঢারাবি জোন ৫-ধানমন্ডি অফিসের উপমহাব্যবস্থাপক মোঃ এমদাদুল হক জানান, আজকে আমরা বকেয়াধারী এবং অবৈধজনিত গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করণের জন্য কামরাঙ্গীর চর এলাকার ৫৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেন কে সাথে নিয়ে অভিযানে নেমেছি, এই ধরনের অভিযান নিয়মিত অব্যাহত থাকবে।


আরও খবর



মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল থাকছে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৪৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:মুক্তিযোদ্ধা কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের রায় আপাতত বহাল থাকছে সরকারি চাকরির প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণিতে । বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে ছয় বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে পাঁচ বছর আগে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরির নিয়োগে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে গত ৫ জুন রায় দেন হাইকোর্ট। এ রায়ের ফলে প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা ফিরে আসে।

পরে এ রায় স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালতে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ। কিন্তু গত ৯ জুন প্রাথমিক শুনানির পর আবেদনটি আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠানো হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে কোটা পদ্ধতি বাতিল করার আগ পর্যন্ত সরকারি চাকরিতে নিয়োগে ৫৬ শতাংশ পদ বিভিন্ন কোটার জন্য সংরক্ষণ করা হতো। এর মধ্যে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য ছিল ৩০ শতাংশ, নারী ১০ শতাংশ, জেলা ১০ শতাংশ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী ৫ শতাংশ, প্রতিবন্ধী ১ শতাংশ কোটা।


আরও খবর



তিতাস গ্যাসের ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১০৯জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃতিতাস গ্যাস ট্রান্সমিসন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন পিএলসির ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জাতীয় শুদ্ধাচার কৌশল কর্ম-পরিকল্পনার আওতায় শুদ্ধাচার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হয়েছে।রোববার কোম্পানির প্রধান কার্যালয় কারওয়ান বাজারে এই কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। ২০২৩-২৪ অর্থবছরের জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কারপ্রাপ্তদের সঙ্গে উপস্থিত কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌ. মো. হারুনুর রশীদ মোল্লাহ। এ সময় কোম্পানির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি পিএলসি'র বিস্ময়কর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমডি হারুনুর রশিদ মোল্লাহ তার যাদুস্পর্শী প্রতিভার ঝলকে কোম্পানিকে লোকসান কমিয়ে আনতে নানামুখী সহায়ক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। তার এই যুগোপযোগী পদক্ষেপের কারণে তিতাস গ্যাস পূর্বের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে বর্তমানে একটি শক্ত ভিতের উপর দাঁড়িয়েছে। তিতাস গ্যাসের গ্রাহক সেবার মান বৃদ্ধি পেয়েছে বহুগুণ। তিতাস গ্যাসের অবৈধ গ্রাহকদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হচ্ছে, বকেয়া আদায়ে নিয়মিত অভিযান পরিচালিত হচ্ছে, রাজস্ব আদায় ও মাত্রা অর্জনে নিরলস পরিশ্রম করেছে কর্মকর্তা কর্মচারীরা। 

গেজেট অনুযায়ী শুদ্ধাচার পুরস্কার পাওয়ার ক্ষেত্রে সরকারি কর্মচারীকে উল্লিখিত সূচকের ১০০ নম্বরের মধ্যে অবশ্যই ৮০ নম্বর পেতে হবে। এটি না পেলে ওই কর্মচারী এ পুরস্কার পাওয়ার জন্য প্রাথমিকভাবে বিবেচিত হবেন না। আর বিবেচিত কর্মচারীদের মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া কর্মচারী শুদ্ধাচার পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হবেন। 

প্রতি বছর সরকারের শুদ্ধাচার পুরস্কারপ্রাপ্ত কর্মচারীরা পুরস্কার হিসেবে একটি সার্টিফিকেট এবং এক মাসের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ পাবেন।

উল্লেখ্য, কোম্পানি হতে গ্রেড-২ হতে গ্রেড-৯ ভুক্ত কর্মকর্তা, গ্রেড-১০ হতে গ্রেড-১৬ ভুক্ত কর্মকর্তা ও কর্মচারী এবং গ্রেড-১৭ হতে গ্রেড-২০ ভুক্ত কর্মচারী ক্যাটাগরিতে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রদান করা হয়।

এই শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রাপ্তির মধ্য দিয়ে তিতাস গ্যাসের কর্মকর্তা কর্মচারীরা নতুন উদ্যমে উৎসাহ নিয়ে কাজ করবেন বলে আশা করা যায়।


আরও খবর

রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল শুরু

বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪




ভারতীয় ৪ নাগরিক জেল খেটে নিজ স্বদেশে প্রত্যাবর্তন

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:স্বদেশ প্রত্যাবাসন আইনে অবৈধ অনুপ্রবেশকারি ৪ ভারতীয়কে বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে ভারতে হস্তান্তর করেছে বাংলাদেশ পুলিশ। ভারতের দিঘা সমুদ্র পথ দিয়ে বাংলাদেশে সীমানায় মাছ ধরা দুই জেলে ও কুড়িগ্রাম ও কুমিল্লা সীমান্ত দিয়ে আরো দুইজন বাংলাদেশে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশ করেছিল বিগত ৩ থেকে ৮ বছর আগে। অনুপ্রবেশকারিদের মধ্যে ২ জন মৎসজিবী ও দুই জন সাধারন ভারতীয় নাগরীক রয়েছে।

যশোর কেন্দ্রিয় কারাগার পুলিশ শনিবার বিকেলে বেনাপোল চেকপোষ্ট দিয়ে তাদেরকে ভারতের পেট্রাপোল থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে। এসময় সেখানে বিজিবি, পুলিশ ও ভারতীয় সীমান্তরক্ষি বিএসএফ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ফেরত যাওয়া ভারতীয় নাগরীকরা হলেন, বিহার রাজ্যের জেলে বিষ্ণুপদ দিলদার, সুধির বাবু, এবং মেদিনিপুরের শেখ জাহাঙ্গীর ও হুগলির ভানু চরন জানা। এদের মধ্যে বিষ্ণুপদ দিলদারও ভানুচরন ৮ বছর এবং সুধির বাবু ও শেখ জাহাঙ্গীর ৩ বছর কারাভোগ করেন।

এদিকে দির্ঘদিন পর স্বজনদের কাছে ফিরতে পারায় খুশি এসব ভারতীয়রা। আইনী জটিলতায় তাদের দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে স্বজনদের ছেড়ে জেলে দিন পার করতে হয়েছে।

ফেরত যাওয়া ভারতীয় নাগরীকেরা জানান, অবৈধ ভাবে সীমান্ত অতিক্রমের অভিযোগে তারা আটক হয়। এখন বাড়িতে ফিরছে ভাল লাগছে।

যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারের ডেপুটি জেলার মনির হক আল মামুন জানান, ৪ ভারতীয়কে স্বদেশ প্রত্যাবাসন আইনে ভারতে ফেরত পাঠানো হয়েছে। তারা অবৈধ ভাবে বাংলাদেশে ঢুকে পড়েছিল। এর আগে জাহাঙ্গীর ও সুধির বাবু ময়মনসিংহ কেন্দ্রীয় কারাগারে ছিল। সেখান থেকে তাদের যশোর জেলে পাঠায় প্রায় দুই বছর। তিনি আরো জানান, ভারতীয় নাগরিকদের জেল থেকে মুক্তির ব্যাপারে বেসরকারী এনজিও সংস্থা যশোর রাইটস সহযোগিতা করেছেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.



আরও খবর



নাইজেরিয়ায় দফায় দফায় বিস্ফোরণে নিহত ১৮

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৫৭জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:প্রাণঘাতী বিস্ফোরণে পশ্চিম আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়ায় কমপক্ষে ১৮ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও ৩০ জন। দেশটির উত্তরাঞ্চলে দফায় দফায় বিস্ফোরণে এ ঘটনা ঘটে।

রোববার (৩০ জুন) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্ব বোর্নো প্রদেশে ধারাবাহিক বিস্ফোরণে অন্তত ১৮ জন নিহত ও আরও ৩০ জন আহত হয়েছেন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। এর মধ্যে শনিবার একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে সন্দেহভাজন বোমা হামলায় ছয়জন নিহত এবং অন্যদের আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

বোর্নো প্রদেশের জরুরি ব্যবস্থাপনা সংস্থা জানিয়েছে, সন্দেহভাজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীরা গোওজা শহরে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান, অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার অনুষ্ঠান এবং হাসপাতালে হামলা চালায়। মূলত এই প্রদেশটি গত ১৫ বছর ধরে জঙ্গি গোষ্ঠী বোকো হারামের বিদ্রোহের কেন্দ্রে রয়েছে।

এই সংঘাত ও সহিংসতায় ২০ লাখেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছেন এবং ৪০ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছেন। ২০১৪ সালে বোর্নো প্রদেশের চিবোক শহর থেকে ২৭০ জনেরও বেশি স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করে বোকো হারাম আন্তর্জাতিক কুখ্যাতি অর্জন করেছিল।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, শনিবার একের পর এক বিস্ফোরণে ১৮ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে, যার মধ্যে শিশু, প্রাপ্তবয়স্ক এবং গর্ভবতী নারীও অন্তর্ভুক্ত রয়েছেন। কিছু স্থানীয় মিডিয়া প্রাণহানির সংখ্যা আরও অনেক বেশি বলে রিপোর্ট করেছে। যার মধ্যে নাইজেরিয়ার ভ্যানগার্ড এবং দিস ডে সংবাদপত্র জানিয়েছে, বিস্ফোরণে কমপক্ষে ৩০ জন নিহত হয়েছেন।

সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে কারফিউ জারি করা হয়েছে। তবে এখনও কেউ হামলার দায় স্বীকার করেনি।

বিবিসি বলছে, ২০১৪ সালে গোওজা শহরটি দখল করে নিয়েছিল বোকো হারাম। তবে ২০১৫ সালে নাইজেরিয়ান বাহিনী এটি আবারও পুনর্দখল করে। কিন্তু তারপর থেকে সন্ত্রাসী এই গোষ্ঠীটি শহরের কাছে আক্রমণ এবং লোকজনকে অপহরণের মতো কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছে।

গত বছরের নভেম্বরে প্রতিবেশী ইয়োবে প্রদেশে একটি অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার অনুষ্ঠান থেকে ফেরার সময় বোকো হারাম বিদ্রোহীদের হাতে ২০ জন নিহত হয়।

গ্রামবাসীরা তথাকথিত ফসলের ট্যাক্স দিতে অস্বীকার করার পরে জঙ্গিরা গুরোকায়েয়া গ্রামে হামলা চালিয়ে ১৭ জনকে হত্যা করার একদিন পর এই হামলাটি ঘটে বলে পুলিশ জানিয়েছে।


আরও খবর