Logo
আজঃ বুধবার ২২ মে ২০২৪
শিরোনাম

শুক্রবার মার্কেট ও দোকানপাট ঢাকার যেসব এলাকায় বন্ধ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ জুন ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ৯৫৫জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক :রাজধানী ঢাকায় সপ্তাহের একেক দিন একেক এলাকার মার্কেট, দোকানপাট বন্ধ থাকে। আপনি হয়তো প্রস্তুতি নিচ্ছেন আপনার পছন্দের কোন মার্কেটে যাবেন আজ। কিন্তু সেই মার্কেট খোলা আছে কিনা তা হয়তো জানেন না। তাই আগে জেনে নিন ঢাকার কোন মার্কেট আজ বন্ধ এবং খোলা রয়েছে। না হলে কষ্ট করে গিয়ে ফিরে আসতে হতে পারে।

মনে রাখাতে হবে সপ্তাহের ভিন্ন ভিন্ন দিনে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার মার্কেট, দোকানপাট বন্ধ থাকে।

আসুন জেনে নেওয়া যাক শুক্রবার রাজধানীর কোন কোন এলাকার দোকানপাট, মার্কেট বন্ধ থাকে।

যেসব এলাকার দোকানপাট বন্ধ থাকবে:
বাংলাবাজার, পাটুয়াটুলী, ফরাশগঞ্জ, শ্যামবাজার, জুরাইন, করিমউল্লাহবাগ, পোস্তগোলা, শ্যামপুর, মীরহাজীরবাগ, দোলাইপাড়, টিপু সুলতান রোড, ধূপখোলা, গেণ্ডারিয়া, দয়াগঞ্জ, স্বামীবাগ, ধোলাইখাল, জয়কালী মন্দির, যাত্রাবাড়ীর দক্ষিণ-পশ্চিম অংশ, ওয়ারী, আহসান মঞ্জিল, লালবাগ, কোতোয়ালি থানা, বংশাল, নবাবপুর, সদরঘাট, তাঁতীবাজার, লক্ষ্মীবাজার, শাঁখারী বাজার, চাঁনখারপুল, গুলিস্তানের দক্ষিণ অংশ।

যেসব এলাকার মার্কেট বন্ধ থাকবে:

আজিমপুর সুপার মার্কেট, গুলিস্তান হকার্স মার্কেট, ফরাশগঞ্জ টিম্বার মার্কেট, শ্যামবাজার পাইকারি দোকান, সামাদ সুপার মার্কেট, রহমানিয়া সুপার মার্কেট, ইদ্রিস সুপার মার্কেট, দয়াগঞ্জ বাজার, ধূপখোলা মাঠ বাজার, চকবাজার, বাবুবাজার, নয়াবাজার, কাপ্তানবাজার, রাজধানী সুপার মার্কেট, দয়াগঞ্জ সিটি করপোরেশন মার্কেট, ইসলামপুর কাপড়ের দোকান, ছোট কাঁটারা, বড় কাঁটারা হোলসেল মার্কেট, শারিফ ম্যানসন, ফুলবাড়িয়া মার্কেট, সান্দ্রা সুপার মার্কেট।


আরও খবর

"নোবেলের ম্যাজিক শুধু প্রতারণা"

মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24




মধুপুরে কৃষকের মাঝে কম্বাইন্ড হারভেস্টার মে‌শিন বিতরণ

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ১৭১জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ-

টাঙ্গাইলের মধুপুরে  কৃষি মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন কৃষিসম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সমন্বিত ব্যবস্হাপনার মাধ্যমে কৃষি যান্ত্রিকরণ প্রকল্পের আওতায় ৫০ শতাংশ ভর্তুকি মুল্যে তালিকা ভুক্ত কৃষকদের নিকট  কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন (আধুনিক ধান কাটার যন্ত্র) বিতরণ করা হয়েছে।রবিবার(৫এপ্রিল) দুপুরে মধুপুর উপজেলা কৃষি পূনর্বাসন কমিটির বাস্তবায়নে উপজেলা পরিষদ চত্বরে উপজেলার শিবরামবাড়ী গ্রামের কৃষক আরিফ হোসেনের নিকট চাবি হস্তান্তরের মাধ্যমে  এ  কম্বাইন্ড হারভেস্টার বিতরন অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করা হয়। 


উপজেলা কৃষি অফিসার শাকুরা নাম্নী'র সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠা‌নে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  উপজেলা নির্বাহী অফিসার  জুবায়ের হোসেন।ভর্তুকি মূল্যে উপজেলার শিবরামবাড়ী এলাকার কৃষক আরিফ হোসেনের নিকট এ কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন (আধুনিক ধান কাটার যন্ত্র) হস্তান্তর করা হয়। বিতরণ অনুষ্ঠানে  উপজেলা কৃষি অফিসের উপসহকারী কৃষিকর্মকর্তা, সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন। 


এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জোবায়ের  হোসেন বলেন, সরকারী ৫০ শতাংশ ভর্তুকিতে কৃষকদের মাঝে কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন দেওয়া হয়েছে । এ কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিনের মাধ্যমে অল্প সময়ে অল্প খরচে জমির ধান কাটা ও মাড়াই করতে পারবে এতে শ্রমিক সংকট দূর হবে।মধুপুর  উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শাকুরা নাম্নী  বলেন, কম্বাইন্ড হারভেস্টার মেশিন সরকারের পরিচালনার বাজেটে কৃষি যন্ত্রপাতি সহায়তা কর্মসূচির আওতায় মেশিনটি  ৫০ শতাংশ ভর্তুকিতে কৃষকের  মাঝে বিতরণ করা হয়েছে।কৃষক  আরিফ হোসেন জানান এ যন্ত্র পেয়ে সে  খুশি। এ মেশিনের কারনে  বর্তমানে খরচ কমে অর্ধেকে নেমে আসবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগ কর্তৃক ব্যাটারি চালিত রিক্সা চালকদের ব্রিফিং

প্রকাশিত:শনিবার ১১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | ১৮৬জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার হাবিবুর রহমান বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) এর নেতৃত্বে ঢাকা মহানগরীর সড়কে চলাচলকারী যানবাহনের  শৃঙ্খলা আনয়নের পাশাপাশি  যানজটকে সহনীয় পর্যায়ে রাখতে কাজ করে যাচ্ছে টিম ট্রাফিক ডিএমপি। ঢাকা শহরের প্রবেশদ্বার হিসেবে পরিচিত ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগ সড়কে চলাচলকারী যানবাহনের শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে নিরলস প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। সড়কে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি এবং দুর্ঘটনার অন্যতম একটি কারণ মূল সড়কের ব্যাটারি রিকশা। সীমিত সংখ্যক ট্রাফিক সদস্য দিয়ে বিশাল সংখ্যক ব্যাটারি রিকশাকে মূল সড়কে আসতে প্রতিহত করা কষ্টসাধ্য বিষয়। তাছাড়া ব্যাটারি রিক্সা মোটরযান না হওয়ায় এবং সড়ক পরিবহন  আইন প্রয়োগের আওতাভুক্ত না হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থা গ্রহণ সম্ভবপর নয়। তাই ব্যাটারী রিকশাকে মূল সড়কে এসে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি তাদের চালকদের মধ্যে জনসচেতনতা সৃষ্টিসহ প্রচারণা ও ব্রিফিং করে যাচ্ছে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগ। 

এই কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ আশরাফ ইমামের নেতৃত্বে ও এডিসি (ট্রাফিক ওয়ারী) সুলতানা ইশরাত জাহানের তদারকিতে কাজ করছেন এসি (ট্রাফিক যাত্রাবাড়ী জোন) তানজিল আহমেদ। 

শুক্রবার ১০ মে তানজিল আহমেদ সঙ্গীয় টিআই মাহমুদসহ  বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ট্রাফিক সচেতনতা/নির্দেশনামূলক ব্যানার প্রদর্শনের ব্যবস্থা করেন। যাত্রাবাড়ী মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের গুরুত্বপূর্ণ ধোলাইপার গোল চত্তরে মহাসড়কে রিক্সা/ব্যাটারী চালিত রিক্সা চলাচল ও পারাপার নিরুৎসাহিত করতে চালক ও জনগণের মধ্যে সচেতনামূলকমূলক ব্রিফিং করা হয়। পর্যায়ক্রমে এটা আরো বৃদ্ধি করা হবে বলে ডিসি (ট্রাফিক ওয়ারী) জানান।


আরও খবর



রাণীশংকৈলে ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তার ১ কাপ চায়ের দাম ৫শত টাকা- লেনদেনের ভিডিও ভাইরাল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | ১০৬জন দেখেছেন

Image
রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার ধর্মগড়-কাশিপুর ইউনিয়ন ভুমি সহকারী কর্মকর্তা (তহসিলদার) রেজাউল করিমের ২২ সেপ্টেম্বরের পর আবারও উৎকোচ গ্রহনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। 

জানা গেছে, গত রবিবার ঐ ভুমি অফিসে এক ব্যাক্তি ১০টাকা খাজনা দিতে যায়। এতে ১০ টাকার পরিবর্তে ৫০০ টাকা নেন সংশ্লিষ্ঠ্য ভূমি কর্মকর্তা। টাকা লেনদেনের ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। অথচ ভূমি অফিসের দেওয়ালে লেখা রয়েছে আমি এবং আমার অফিস দুর্নীতি মুক্ত। যেখানে ঘুষ ছাড়া কোন কাজ হয় না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক ব্যাক্তি বলেন, টাকা না হলে খারিজ হবে না,বাধ্য হয়ে আমি সোমবার খারিজ বাবদ ৮হাজার টাকা দিয়েছি সংশ্লিষ্ঠ্য তহসিলদারকে। 

এছাড়াও ২০২২ সালের ২২ সেপ্টেম্বর ঐ কর্মকর্তার নামে টাকা লেনদেনের আরএকটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। রবিবার (২১ এপ্রিল) ১০ টাকার পরিবর্তে ৫০০ শত টাকা নিয়ে খাজনা রশিদ দিয়েছে সহকারী ভুমি কর্মকর্তা রেজাউল করিম। অথচ দেশের সকল ইউনিয়ন ভুমি অফিস কে ক্যাশলেস অফিস ঘোষণা করা হয়েছে। ভূমি অফিস সূত্রে জানাগেছে, ঐ ভ‚মি কর্মকর্তা ভদেশ্বরী মৌজার ১৩৪ নম্বর হোল্ডিং এর ৫২৫/১ খতিয়ান ভুক্ত ২০.০০ (বিশ) একর পরিত্যক্ত সম্পত্তির ভুমি উন্নয়ন কর আদায় করে সরকারি স্বার্থের ক্ষতি সাধন করেছেন। বিষয়টি তৎকালীন সহকারী কমিশনার (ভুমি) ইন্দ্রজিৎ সাহা ১৪-০৮-২২ সালে ৪৯৫ নম্বর স্বারকে ভুমি কর্মকর্তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করেন। নোটিশের জবাব এখনো আলোর মুখ দেখেনি।

স্থানীয় সুত্রে আরো জানাযায়,তাঁর কর্মকালীন সময়ে তিনি কমপক্ষে ১০০.০০ (একশত) একর এর অধিক সরকারি সম্পত্তিকে ব্যক্তিমালিকানা সম্পত্তি দেখিয়ে সেগুলির নামজারির প্রস্তাব প্রদান, ভুমি উন্নয়ন কর গ্রহন, অথবা হোল্ডিং অনুমোদন এর মাধ্যমে সরকারি স্বার্থের ক্ষতি সাধন করেছেন। অনুমোদিত খারিজ কেসসমুহ এবং তাঁর মাধ্যমে ইস্যুকৃত খাজনার দাখিলা ও অনুমোদিত হোল্ডিংগুলি যাচাই করলে এর সঠিক পরিমান জানা যাবে।

এলাকার কিছু ভুমি জালিয়াত চক্র উক্ত খাজনা-খারিজের কাগজ দেখিয়ে চলমান আর এস জরিপে সে সকল সরকারি সম্পত্তি নিজ নামে রেকর্ড করিয়ে নিচ্ছেন। তিনি ২৭-০৩-২০১৯ সাল হতে দীর্ঘ ৫বছর একই অফিসে কর্মরত থাকার দাপটে তিনি কাউকে কোন কিছুই তোয়াক্কা করছেন না। ধর্মগড় ইউনিয়নের বেংপোখর গ্রামের দবির উদ্দিনের ছেলে মোফাজ্জল বলেন,আমি একটা খারিজ বাবদ অনেক দিন ধরে ঘুরতেছি, আজ নয় কাল এই ভাবে দিন ক্ষেপন করতেছে। এইটা কাগজ লাগবে ঐটা লাগবে,বলে আমাকে হয়রানি করা হচ্ছে শেষে মোটা অংকের টাকা চেয়েছে আমার কাছে টাকা না দিলে খারিজ হবে না মর্মে জানিয়েছে। 

এ প্রসঙ্গে ইউনিয়ন ভুমি সহকারী কর্মকর্তা রেজাউল করিম গত সোমবার এ প্রতিনিধিকে বলেন, ১০ টাকা খাজনা বড় বিষয় নয় তিনি আমাকে ৫শ টাকা চা খেতে দিয়েছেন। ক্যাশল্যান্ড অফিসে টাকা লেনদেন বিষয়ে তিনি বলেন, জমি মালিকদের বিকাশ নাম্বার থাকেনা তাই তারা আমাকে টাকা দেয় আমি ক্যাশ প্রেমেন্ট করে থাকি। ২২ সালে টাকা লেনদেনের ভিডিও ভাইরাল হওয়ার বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি বলেন,তখন অফিসে হাতে হাতে টাকা লেনদেন হতো তাই সে ভিডিওটি কেবা কাহারা করেছে। ভদেশ্বরী মৌজার ১৩৪ নম্বর হোল্ডিং এর ৫২৫/১ খতিয়ান ভুক্ত ২০.০০ (বিশ) একর পরিত্যক্ত সম্পত্তির ভ‚মি উন্নয়ন কর আদায় করে সরকারি স্বার্থের ক্ষতি সাধন করেছেন। এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এর আগেও তহসিলদারা নিয়েছে আমিও নিয়েছিলাম এবং এসিল্যান্ড স্যার আমাকে শাস্তি সোরুপ শোকজ নোটিশ প্রদান করেছিলেন।

এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা সহকারি কমিশনার ভূমি রাকিবুল হাসান বলেন, ভিডিও ভাইরালের বিষয়ে উদ্ধর্তন কতৃপক্ষের সাথে কথা বলেছি। সংশ্লিষ্ঠ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও খবর



টেকনো স্পার্ক ২০সি এখন পাওয়া যাচ্ছে অভাবনীয় নতুন দামে

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ১৪৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:২৫এপ্রিল, ঢাকাঃ বাংলাদেশের স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের জন্য দুর্দান্ত নতুন অফার নিয়ে এসেছে তরুণদের প্রিয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড, টেকনো। জনপ্রিয় টেকনো স্পার্ক ২০সি স্মার্টফোনটি এখন পাওয়া যাচ্ছে মাত্র ১১,৯৯৯ টাকায়।

টেকনো স্পার্ক ২০সি স্মার্টফোনটি এর স্লীক ডিজাইন এবং নতুন ফিচারের জন্য জনপ্রিয়। মিনিমালিস্ট স্কয়ার আকৃতির ডিজাইনে তিনটি ভিন্ন কালারে টেকনোর এই স্মার্টফোনটি পাওয়া যাচ্ছে। গ্রাভিটি ব্ল্যাক, মিস্টারী হোয়াইট এবং ম্যাজিক স্কিন এই তিন কালারের ফোনটি ব্যবহারকারীদের দিবে আভিজাত্য এবং সৌন্দর্যের নিশ্চয়তা।

এই ফোনটির অন্যতম ফিচার হলো এর ৬.৬ ইঞ্চি এবং ৯০ হার্জের হোল স্ক্রিন। ফোনের স্ক্রিন ও বডির অনুপাত ঠিক রেখে এটি ব্যবহারকারীকে প্রদান করবে ফুল স্ক্রিন অভিজ্ঞতা। স্ক্রিন ডিসপ্লের সাথে সংযুক্ত ডাইনামিক পোর্ট ব্যবহারকারীকে দিচ্ছে ফোন আনলক না করেই নোটিফিকেশন চেক করার সুবিধা যা ফোনের ব্যবহারকে করবে সহজতর ও অধিক কর্মক্ষম।

ফটোগ্রাফির সৌখিন ব্যবহারকারীদের জন্য এই স্মার্টফোনে রয়েছে ৫০ মেগা পিক্সেল আল্ট্রা সেনসিটিভ ক্যামেরা যা ভিন্ন ভিন্ন আলোক ব্যবস্থায় সুনিপুন ছবি ধারণ করতে পারে। এআর শটের মতো ফিচারের সাহায্যে ফোনটির ব্যবহারকারীরা অতি সহজেই তৈরী করতে পারবেন মজাদার কার্টুন অবতার এবং ব্যাকগ্রাউন্ড।

এছাড়াও, এই ফোনটিতে রয়েছে ডিটিএস সাউন্ড টেকনোলজি চালিত স্টেরিও ডুয়েল স্পিকার যা ব্যবহারকারীর অডিও শোনার অভিজ্ঞতাকে করবে আরো প্রানবন্ত এবং শ্রুতিমধুর। এছাড়াও এর ১৮ ওয়াট ফাস্ট চার্জ ৫০০০ এম এ এইচ ব্যাটারি দীর্ঘস্থায়ীত্ব নিশ্চিত করে, যা ব্যবহারকারীদের সারাদিন সংযুক্ত থাকতে এবং বিনোদনের সুযোগ দেয়।

অক্টা-কোর প্রসেসর চালিত টেকনো স্পার্ক ২০সি স্মার্টফোনটিতে রয়েছে ১২৮ জিবি স্টোরেজ এবং ৮ জিবি র‍্যাম (৪ জিবি+ ৪ জিবি) । এই ফিচার গুলো ব্যবহারকারীদের জন্য নিশ্চিত করে বাধাহীন মাল্টিটাস্কিং এবং গেমিংয়ের অভিজ্ঞতা৷

মাত্র ১১,৯৯৯ টাকা মূল্যের টেকনো স্পার্ক ২০সি স্মার্টফোনটি বর্তমানে আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে বেশি সহজলভ্য। যা ব্যবহারকারীদের অর্থের বিনিময়ে নিশ্চিত করে সেরা পণ্যের। টেকনো মোবাইলের সাথে আপনার স্মার্টফোনের অভিজ্ঞতা আপগ্রেড করার এই সুযোগটি হাতছাড়া করবেন না।


আরও খবর



পাহাড়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারে আমলে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে-পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | ১২০জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,পার্বত্যাঞ্চল প্রতিনিধি:পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চেয়েছিলেন পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের মধ্যে সমপ্রীতির বন্ধন গড়ে তুলতে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সকল সংস্কৃতির মাঝে ঐক্যের বন্ধন সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করে চলেছেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, পাহাড়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারে আমলে অভূতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হয়েছে।

শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) রাঙ্গামাটি কাপ্তাই উপজেলার সাপছড়ি এলাকার ওয়াগ্গা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠ প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ তঞ্চঙ্গ্যা কল্যাণ সংস্থা কর্তৃক আয়োজিত ৭ম মহাসম্মেলন ও ৬ষ্ঠ কেন্দ্রীয় কাউন্সিল-২০২৪ অনুষ্ঠানে  প্রধান অতিথির বক্তব্যে  প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি এসব কথা বলেন। 

তঞ্চঙ্গা সম্প্রদায় আয়োজিত অনুষ্ঠানের প্রশংসা করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, পাহাড়ের বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মধ্যে তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায় সবদিকেই অনেক দূর এগিয়েছে। আধুনিক সমাজেও তঞ্চঙ্গ্যা সম্প্রদায় তাদের কৃষ্টি, কালচার এবং ঐতিহ্য ধরে রেখেছে। এটি প্রশংসার দাবীদার।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি আরও বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পার্বত্য চট্টগ্রামের সংরক্ষিত আসন হতে রাঙ্গামাটির তঞ্চঙ্গা সম্প্রদায়ের জ্বরতী তঞ্চঙ্গাকে  সংসদ সদস্য হিসেবে পার্বত্যবাসীকে  উপহার দিয়েছেন। প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এই উপহার পার্বত্য অঞ্চলে  বিভিন্ন সম্প্রদায়ের সহাবস্থানকে আরো গতিশীল করবে। প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর  স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে নব নিযুক্ত সংসদ সদস্যের নেতৃত্বে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।
 
এর আগে জাতীয় পতাকা উড্ডয়ন ও রঙীন বেলুন উড়িয়ে অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি। 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ তঞ্চঙ্গ্যা কল্যাণ সংস্থার আহ্বায়ক ও রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য দীপ্তিময় তালুকদার। সঞ্চালনা করেন বাংলাদেশ তঞ্চঙ্গ্যা কল্যাণ সংস্থার আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নাজিব কুমার তঞ্চঙ্গ্যা। 

সম্মেলনের ১ম পর্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি জ্বরতী তঞ্চঙ্গ্যা, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী, খাগড়াছড়ি জেলা পরিষদের সদস্য খোকনেশ্বর ত্রিপুরা, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য অংসুই ছাইন চৌধুরী, কাপ্তাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: মফিজুল হক প্রমুখ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ তঞ্চঙ্গ্যা কল্যাণ সংস্থার সদস্য সচিব উজ্জ্বল তঞ্চঙ্গ্যা।

সম্মেলন এর দ্বিতীয় পর্বে বাংলাদেশ তঞ্চঙ্গ্যা কল্যান সংস্থার শিল্পিদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া কেন্দ্রীয় কাউনসিলের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন করা হয়।

আরও খবর