Logo
আজঃ বুধবার ২২ মে ২০২৪
শিরোনাম

শিল্পী সমিতির নতুন সভাপতি মিশা, সম্পাদক ডিপজল

প্রকাশিত:শনিবার ২০ এপ্রিল ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ২৪১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সভাপতি পদে মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক পদে মনোয়ার হোসেন ডিপজল বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার পর আজ শনিবার ভোর ৬টা ৪৫ মিনিটে ফল প্রকাশ করা হয়েছে।

শিল্পী সমিতির ২০২৪-২০২৬ মেয়াদের নির্বাচনে সভাপতি পদে মিশা সওদাগর পেয়েছেন ২৬৫ ভোট। নিকটতম মাহমুদ কলি পেয়েছেন ১৭০ ভোট। সাধারণ সম্পাদক পদে মনোয়ার হোসেন ডিপজল পেয়েছেন ২২৫ ভোট। একই পদে ২০৯ ভোট পেয়েছেন নিপুণ আক্তার। মাত্র ১৭ ভোটে পরাজিত হয়েছেন গত বারের এই সাধারণ সম্পাদক।

তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় মনোয়ার হোসেন ডিপজল সবাই মিলে কাজ করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, ‘আমরা সবাই এক। সবাই একসঙ্গে কাজ করব। এখানে কোনো ভেদাভেদ নেই।

এছাড়া সহ-সভাপতি পদে ডি এ তায়েব (২৩৪) ও মাসুম পারভেজ রুবেল (২৩১, সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে আরমান (২৩৭), সাংগঠনিক সম্পাদক পদে জয় চৌধুরী (২৫৫), আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পদে আলেকজান্ডার বো (২৯৬), দফতর ও প্রচার সম্পাদক পদে জ্যাকি আলমগীর (২৪৫), সংস্কৃতি ও ক্রীড়া সম্পাদক পদে মামনুন হাসান ইমন (২৩৫) এবং কোষাধ্যক্ষ কমল (২৩১) জয়ী হয়েছেন। 

কার্যনির্বাহী সদস্য পদে মিশা-ডিপজল পরিষদ থেকে নির্বাচিত হয়েছেন ৯ জন। তারা হলেন সুচরিতা (২২৮), রোজিনা (২৪৩), আলীরাজ (২৩৯), সুব্রত, দিলারা ইয়াসমিন (২১৮), শাহনূর (২৪৫), নানা শাহ (২১০), রতœা কবির (২৬৩) ও চুন্নু (২৪৮)।

কলি-নিপুণ পরিষদ থেকে নির্বাচিত হয়েছেন রিয়ানা পারভিন পলি (২২০) ও সনি রহমান (২৩০)।


আরও খবর



খেটে খাওয়া মানুষের জীবনমান উন্নয়ন করাই আওয়ামী লীগের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ১০৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে, ততোবার শ্রমিকদের মজুরি বাড়িয়েছে,বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আওয়ামী লীগ খেটে খাওয়া মানুষের দল। খেটে খাওয়া মানুষের জীবনমান উন্নয়ন করাই আওয়ামী লীগের লক্ষ্য।

বুধবার (১ মে) মহান মে দিবস উপলক্ষে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, কেউ শ্রমিকদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করলে, তিনি যদি আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন হন, তাহলেও তাকে আমরা ছাড়ি না, ছাড়বও না। সরকার চায়, দক্ষ জনশক্তি গড়ে উঠুক। তাই আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে, ততোবার শ্রমিকদের মজুরি বাড়িয়েছে। কারখানা বা প্রতিষ্ঠান মালিকদের বিলাসিতা কমিয়ে শ্রমিকদের স্বার্থ দেখারও আহ্বান জানান।

আমি এক প্রতিষ্ঠানের মালিককে জিজ্ঞাস করলাম, ‘৮০০’ টাকা বেতনে একজন শ্রমিক চলে কীভাবে- এমন প্রশ্ন রেখে প্রধানমন্ত্রী, আবারও মালিকদের বিলাসিতা কমিয়ে শ্রমিকদের স্বার্থ দেখার কথা বলেন। মালিকদের মুনাফা বাড়াতে হলে, অবশ্যই শ্রমিকদের দিকে তাকাতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুদ্রাস্ফীতি বাড়ায় আমাদের শ্রমজীবী মানুষের মজুরি বাড়ানোর ব্যবস্থা নিয়েছি। বিলাসিতা একটু কমিয়ে মালিকরা শ্রমিকদের দিকে একটু নজর দেবেন সেটাই আমরা চাই। কিছু ভাড়াটে লোক কথায় কথায় শ্রমিকদের রাস্তায় নামায় আন্দোলন করানোর জন্য। কারখানা ভাঙচুর করায়। কারখানায় আগুন দিলে শ্রমিকদের নিজেদেরই ক্ষতি হচ্ছে, পরিবারের ক্ষতি হচ্ছে, দেশের মালিকদের ক্ষতি হচ্ছে। কোনো অসুবিধা হলে আলোচনা করে সমাধান করার জন্য আমার দুয়ার খোলা। আপনারা যোগাযোগ করবেন। কারও প্ররোচণা বা উসকানিতে নিজের রুটি-রুজি যেখান থেকে আসে, সেখানকার ক্ষতি করবেন না।

তিনি বলেন, বৈশ্বিক মূল্যস্ফীতি বিবেচনা করে আন্তর্জাতিক ক্রেতারা পণ্যের ক্রয় মূল্য বাড়ালে আমিও মালিকদের বলতে পারি, তারা যেন শ্রমিকদের সুবিধা বাড়ান। এ সময় বিএনপির সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, আন্দোলনের নামে বাসে ট্রাকে-আগুন দিয়ে শ্রমিকসহ সাধারণ মানুষ হত্যা করেছে তারা। প্রতিটি ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমিক-মালিককে আমরা সহায়তা দিয়েছি। শ্রমিকদের কল্যাণ দেখা আওয়ামী লীগের দায়িত্ব বলে মনে করি। মানুষের কল্যাণ করাই আমাদের প্রচেষ্টা। শ্রমিকদের সব ধরনের সুযোগ সুবিধার জন্য ব্যাপক কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ খেটে খাওয়া মানুষের দল। আমরা যতটা আইএলও কনভেশন বা প্রটোকল সই করেছি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও ততটা করেনি। আমি যদি এখন জিজ্ঞাস করি, তারা কতটা সই করেছে? তারা জবাব দিতে পারবে না। খুব বেশি হলে দুটা করেছে। আর সেখানে কেউ আন্দোলন করলে, সাথে সাথে চাকরি চলে যায়। আর আমাদের এখানে কেউ আন্দোলন করলে আমরা তার সাথে কথা বলি, আলোচনা করি, সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করি। অথচ আমাদের ওপর খবরদারি করা হয়।

তিনি আরও বলেন, সবাই এক হয়ে কাজ করতে হবে। কোনো সমস্যা হলে যা করণীয়, আমরা করব। সে জন্য কারও দুয়ারে গিয়ে ধরনা দিতে হবে না। দেশ আমাদের। আমরা চাই, শ্রমিকরা নিরাপদে কাজ করবেন। সব ধরনের সুবিধা পাবেন। এখানে কোনো বৈষম্য থাকবে না। বৈষম্যহীন সমাজ গড়ে তুলব। আর গরমে সাবধানে থাকবেন, নিজেদের স্বাস্থ্যের দিকে নজর রাখবেন।


আরও খবর



মাগুরায় দেশীয় ২টি পাইপগানসহ ২ জন অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:র‌্যাব ফোর্সেস আমাদের প্রিয় মাতৃভূমির অপ্রতিরোধ্য উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ত্বরান্বিত করতে এবং সন্মানিত নাগরিকদের জন্য টেকসই নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আইনের আলোকে কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছে। এছাড়াও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে দীর্ঘদিন যাবত পালিয়ে থাকা বিভিন্ন মেয়াদে সাজাপ্রাপ্ত ও ওয়ারেন্টভূক্ত আসামীদের গ্রেফতার এবং অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী, মাদক কারবারি ও বিবিধ প্রতারক চক্রের সাথে সংঘটিত চাঞ্চল্যকর অপরাধে জড়িত অপরাধীদের আইনের আওতায় এনে র‌্যাব জনগনের সুনাম, বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।

মঙ্গলবার ১৪ ফেব্রুয়ারি গভীর রাতে র‌্যাব-৬, সিপিসি-২,ঝিনাইদহ ক্যাম্পের একটি  আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মাগুরার  শ্রীপুর উপজেলার খামারপাড়া গোরস্থান মোড়  এলাকায় কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী অবস্থান করছে বলে খবর পায়। প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের লক্ষ্যে আভিযানিক দলটি একই তারিখ রাত আড়াইটার দিকে  খামারপাড়া বাজার এলাকার বায়তুন নুর মসজিদের পাশে পাকা রাস্তার উপর একটি বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে কুখ্যাত অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী- মোঃ মিন্টু বিশ্বাস(৩৯), পিতা- মোঃ গোকুল বিশ্বাস ও মোঃ ইব্রাহিম বিশ্বাস(২৫), পিতা-মোঃ অহিদুল বিশ্বাস, উভয়ে সাং-শ্রীপুর, থানা-শ্রীপুর, জেলা- মাগুরাকে গ্রেফতার করে। এ সময় উপস্থিত সাক্ষীদের সামনে গ্রেফতারকৃত আসামীর হেফাজত হতে ২ টি দেশীয় তৈরী পাইপগান উদ্ধার পূর্বক জব্দ করা হয়।    পরবর্তীতে জব্দকৃত আলামত ও গ্রেফতারকৃত আসামীদ্বয়কে শ্রীপুর থানায় হস্তান্তর করে তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা  করা হয়।


আরও খবর



ডিপিএস এসটিএস স্কুল ঢাকার আয়োজনে ‘দ্য ওয়ার্ল্ড স্কলার্স কাপ ২০২৪’

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | ১৩৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ডিপিএস এসটিএস স্কুল ঢাকার আয়োজনে মর্যাদাপূর্ণ ‘ওয়ার্ল্ড স্কলার্স কাপ ২০২৪’ শুরু হয়েছে। দুই দিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতার জমজমাট বুদ্ধির লড়াইয়ে অংশ নিয়ে শিক্ষার্থীরা ইয়েলে ‘টুর্নামেন্ট অব চ্যাম্পিয়ন্সে’ অংশ নেয়ার সুযোগ পাবে। গ্রেড ৫-১২ এর মেধাবীদের জন্য আয়োজন করা অনবদ্য এই প্রতিযোগিতায় থাকছে মেডেল, ট্রফি, সার্টিফিকেট সহ আরও অনেক কিছু জিতে নেয়ার সুযোগ।

প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের দুইটি দলে ভাগ করা হয়েছে। ১০-১৩ বছর বয়সীদের জন্য জুনিয়র গ্রুপ এবং ১৪ বা তার বেশি বয়সীদের জন্য সিনিয়র গ্রুপ। এতে সারা দেশের বিভিন্ন স্কুলের ২ শ’র বেশি শিক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

সমসাময়িক বিষয় ও ভাবনা নিয়ে আলোচনা করতে সাংস্কৃতিকভাবে বৈচিত্র্যময় শিক্ষার্থীদের একত্রিত করার উদ্দেশ্যে দলগত অ্যাকাডেমিক প্রতিযোগিতা হিসেবে আন্তর্জাতিক ও মর্যাদাপূর্ণ ‘দ্য ওয়ার্ল্ড স্কলার্স কাপ’-এর আয়োজন করা হয়, যেখানে ৬০ টিরও বেশি দেশের প্রতিযোগীরা অংশগ্রহণ করছে। প্রতিযোগিতাটি স্কলার্স বোল, কোলাবোরেটিভ রাইটিং, স্কলার্স চ্যালেঞ্জ ও টিম ডিবেটের মতো চ্যালেঞ্জিং ও আকর্ষণীয় অ্যাকাডেমিক আয়োজনের জন্য সুপরিচিত। এ বছরের বিভিন্ন মাসে বাকু, কুয়ালালামপুর, স্টকহোম, সিউল, ডালিয়ান ও ব্যাংককে প্রতিযোগিতার পরের ধাপ হিসেবে গ্লোবাল রাউন্ডের আয়োজন করা হবে। প্রতিযোগিতাটি বিভিন্ন বিষয়ের ওপর শিক্ষার্থীদের অসামান্য দক্ষতা প্রদর্শন এবং ব্যক্তিগত মেডেল ও দলগত ট্রফি জিতে নেয়ার সুবর্ণ সুযোগ হিসেবে এসেছে।

এ বিষয়ে ডিপিএস এসটিএস স্কুল ঢাকার প্রিন্সিপাল ড. শিবানন্দ সিএস বলেন, “ওয়ার্ল্ড স্কলার্স কাপের আয়োজন করতে পারা সত্যিই সম্মানের। তরুণদের নিজেদের মতো করে মঞ্চ জয় করে নেয়ার বিষয়টি আসলেই অভাবনীয়। এই দুই দিনের অসামান্য বুদ্ধিবৃত্তিক চ্যালেঞ্জ ও সাংস্কৃতিক আদানপ্রদান এই প্রতিযোগিতার বাইরেও তাদের বন্ধুত্ব হিসেবে রয়ে যাবে বলে আশাবাদী আমরা।”

ইতোমধ্যে প্রতিযোগিতার রিজিওনাল রাউন্ড, গ্লোবাল রাউন্ড ও ইয়েল ইউনিভার্সিটির ‘টুর্নামেন্ট অব চ্যাম্পিয়ন্সে’ ডিপিএস এসটিএস স্কুল ঢাকা অংশগ্রহণ করেছে। জ্ঞানের অনবদ্য প্রদর্শনের মাধ্যমে নিজেদের মেলে ধরার সুযোগ হিসেবে এ বছর আয়োজক হিসেবে সারা দেশের তরুণ ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানাচ্ছে তারা।


আরও খবর



পত্নীতলায় মহান মে দিবস পালিত

প্রকাশিত:বুধবার ০১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | ৯৯জন দেখেছেন

Image
দিলিপ চৌহান, পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:সারাদেশের ন্যায় পত্নীতলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান মে দিবস পালিত হয়েছে। বুধবার পত্নীতলা ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজিঃ ৩২৫০) সহ অন্যান্য শ্রমিক সংগঠনগুলি পৃথক পৃথক ভাবে র‍্যালি শেষে স্ব স্ব কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে।

'শ্রমিক-মালিক গড়বো দেশ, স্মার্ট হবে বাংলাদেশ' এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে  শ্রমিক সংগঠন গুলি স্ব স্ব কার্যালয়ে সকালে জাতীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন, কালো ব্যাচ ধারণ শেষে বর্ণাঢ্য র‍্যালি বের করে এবং স্ব স্ব কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে।

পত্নীতলা ইমারত নির্মাণ শ্রমিক সংগঠনের উদ্যোগে বেলা ১১টায় একটি র‍্যালি নজিপুর পুরাতন বাজার কার্যালয় হতে বের করে নজিপুর বাস স্ট্যান্ড গোল চত্বর হয়ে কার্যালয়ে ফিরে আলহাজ্ব মাওলানা খয়বর আলীর পরিচালনায় দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত শেষে ইমারত নির্মাণ শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি আলহাজ্ব বুলবুল চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জয়নাল আবেদিনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে  বক্তব্য রাখেন পত্নীতলা থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাফফর রহমান, বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইঞ্জিনিয়ার বাবু হীরেন কুমার, জাতীয় মহিলা সংস্থা পত্নীতলার দায়িত্ব প্রাপ্ত অফিসার আমিনুল হক। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন পত্নীতলা ইমারত নির্মাণ শ্রমিক সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বিপুল চন্দ্র, সহ-সভাপতি রেজাউল ইসলাম কালু, অভিলাষ চন্দ্র, আনোয়ার হোসেন, ইসমাইল হোসেন, নৌশাদ আলী, সাঃবাদিক আঃ মতিন, মিজানুর রহমান, পরেশ টুডু প্রমুখ। পরে সদস্যদের মাঝে খানা বিতরণ করা হয়।

আরও খবর



জয়পুরহাটে তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান হলেন যারা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

এস এম শফিকুল ইসলাম,জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃজয়পুরহাটের  তিন উপজেলায় প্রথম ধাপের নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। ভোট গণনা শেষে তিন উপজেলায় তিন জনকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। বুধবার (৮মে) রাতে জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ফজলুল করিম তাদের জয়ী ঘোষণা করেন।

জেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা ফজলুল করিম জানান,

জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মিনফুজুর রহমান মিলন (মোটরসাইকেল) মার্কায় ৪২ হাজার ৪৫৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি জেলা আওয়ামী লীগের কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক (আনারস) মার্কা তৌফিকুল ইসলাম তালুকদার বেলাল ভোট পেয়েছেন (আনারস) মার্কা ৩০৯৪৩।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে গোলাম মোস্তফা  (উড়োজাহাজ ) মার্কা ৩৪ হাজার ৩৯৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।  নিকটতম প্রতিদ্বন্দী ছানোয়ার হোসেন  ( টিউবয়েল) মার্কা পেয়েছেন ১৪ হাজার ১৯১ ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মেরিনা খাতুন ( হাঁস) মার্কা ৪৩ হাজার ৪১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন।নিকটতম প্রতিদ্বন্দী মরিয়ম নেছা (কলস) ৩১হাজার ৪১৩ ভোট পেয়েছেন।

জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল উপজেলায় ক্ষেতলাল পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব  দুলাল মিয়া সরদার (দোয়াত কলম) মার্কায় ৩০৪০০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দি আওয়ামী লীগ নেতা তাইফুল ইসলাম তালুকদার ( আনারস) মার্কায় ২২৯০০ ভোট পেয়েছেন । ভাইস চেয়ারম্যান পদে মতলুব হোসেন (টিওবয়েল) মার্কা ভোট পেয়েছেন ২৪ হাজার ৬১৭ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দী এস এম তুহিন ইসলাম তৌফিক  (তালা) মার্কা পেয়েছেন ২০ হাজার ৯৩৬ ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে নুরুন্নাহার গুন্নাহ ( সেলাই মেশিন)  মার্কা পেয়েছেন ৩৭ হাজার ৩৭০ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দী নুরবানু খাতুন  (হাঁস) ১৩ হাজার ৪৩৫ ভোট পেয়েছেন।

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলায় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মোকসেদ আলী মন্ডল (মোটরসাইকেল) মার্কা ১৯৫৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সরদার নুরুন্নবী আরিফ (আনারস) মার্কায় ভোট পেয়েছেন ৩১৮৮। ভাইস চেয়ারম্যান পদে টুটুল হোসেন (টিওবয়েল) মার্কা ভোট পেয়েছেন ৯ হাজার ৫৯৮ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দী তাইজুল ইসলাম ( টিয়া পাখি) মার্কা পেয়েছেন ৯ হাজার ৪৪২ ভোট।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আছিয়া খানম সম্পা ( প্রজাপতি)  মার্কা পেয়েছেন ১১ হাজার ২৫০ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দী আয়শা সিদ্দিকা ( হাঁস) ৬ হাজার ১৪৩ ভোট পেয়েছেন।

এর আগে সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়ে চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ শেষে শুরু হয় গণনা।

৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রথম ধাপে জয়পুরহাটের কালাই, ক্ষেতলাল ও আক্কেলপুর এই তিনটি উপজেলায় নির্বাচন হয়েছে। নির্বাচনে তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ১০ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। আর পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১৩ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।

তিনটি উপজেলায় মোট ভোটার রয়েছে ৩ লাখ ৪০ হাজার ৭৬৯ জন। এরমধ্যে কালাই উপজেলায় এক লাখ ২২ হাজার ৭৩৬ জন, ক্ষেতলালে ৯৫ হাজার ১৯১জন ও আক্কেলপুর উপজেলায় এক লাখ ২২ হাজার ৮৮২ জন ভোটার রয়েছে। কালাইয়ে ৩৭টি, ক্ষেতলালে ৩০টি, আক্কেলপুরে ৪২টি সহ মোট ১০৯ টি কেন্দ্রে ভোটাররা ভোট প্রদান করেছেন।


আরও খবর