Logo
আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম
কক্সবাজারে পাহাড় ধসে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু বন্ধ শিল্প প্রতিষ্ঠান চালুর পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে: শিল্পমন্ত্রী বাংলাদেশের হার দিয়ে সুপার এইট শুরু গোদাগাড়ীতে রাসেল ভাইপারের চিকিৎসার দাবিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর কাছে চিঠি দিয়েছে নাগরিক স্বার্থ-সংরক্ষণ কমিটি রূপগঞ্জে জমে উঠেছে কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচন যাত্রাবাড়ীতে পুলিশ কর্মকর্তার বাবা মাকে কুপিয়ে হত্যা যানজট নিরসনে সংসদ সদস্যগণের সাথে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের সমন্বয়সভা ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপার, জনমনে আতঙ্ক বাজেট পাস হয়নি,অনেক কিছু পুনর্বিবেচনা করা সম্ভব: অর্থমন্ত্রী দেশের সব মহৎ অর্জন আ. লীগের মাধ্যমেই হয়েছে: ওবায়দুল কাদের

বিশ্বে নিত্যপণ্যের দাম বাড়লেও বাংলাদেশ এখনো ভালো আছে: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ২৭০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক: নিত্যপণ্যের দাম বাড়লেও বিশ্বের বহু দেশের তুলনায় বাংলাদেশ এখনো ভালো আছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। আজ বুধবার সচিবালয়ে মতবিনিময়কালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‌‘ভোগ্যপণ্যের দাম কমছে, ধীরে ধীরে আরও কমবে। শুধু দেশে না, সারা দুনিয়াতে পণ্যের দাম বাড়ছে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়ন হচ্ছে বলেই বিশ্বের বহু দেশ এ দেশের প্রশংসা করছে। নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে সত্যি, তারপরও বিশ্বের বহু দেশের তুলনায় বাংলাদেশ এখনো ভালো আছে।

সম্প্রতি সাভারে এক স্কুলছাত্রকে দিনমজুর বানিয়ে সংবাদ পরিবেশন নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে পক্ষপাতমূলক সংবাদ করা হচ্ছে। এগুলো হলুদ সাংবাদিকতা।

তিনি বলেন, ‘সাভারে একটা বাচ্চার হাতে ১০ টাকা দিয়ে ছবি ছেপে ভাইরাল করা হলো, এটা হলুদ সাংবাদিকতা, এখন হলুদ সাংবাদিকতা বেশি হচ্ছে।’ এ সময় হলুদ সাংবাদিকতা পরিহারের আহ্বান জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

মন্ত্রিসভায় গণপ্রতিনিধিত্ব সংশোধিত আইন প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মন্ত্রিসভায় এটার নীতিগত অনিমোদন হয়েছে। চূড়ান্ত হয়নি। আইন মন্ত্রণালয়ে এখন এটি ভোটিং হবে। চূড়ান্ত অনুমোদনের আগে ফলাও করে বলার সুযোগ নেই।

এ সময় সংবিধানের বাইরে তত্ত্বাবধায়ক সরকারে ফেরা সম্ভব নয় বলেও মন্তব্য আওয়ামী লীগের সাধারণ। তিনি বলেন, ‘বিএনপি যতই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দিবাস্বপ্ন দেখুক তা কখনো পূরণ হবে না। তত্ত্বাবধায়ক সরকারে আর ফিরতে পারব না আমরা। ইইউসহ সবাই চায় দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন হোক, অবশ্যই সংবিধান মেনে নির্বাচন কমিশনের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।

‘বিএনপি নির্বাচনে আসুক বা না আসুক তা নিয়ে তো আমাদের উদ্বেগের কিছু নেই। কারণ, আমরা সংবিধান মেনেই নির্বাচন করব। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে নষ্ট করেছে বিএনপি, এখন আর কেয়ার টেকারের প্রয়োজন নেই’, যোগ করেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি ২০০১ এর মতো কেয়ার টেকার সরকার চায়, দলীয় কেয়ার টেকার, ঢাকঢোল পিটিয়ে আন্দোলন হয় না। তাদের কয়েক মাসের আন্দোলন নেতাকর্মীদের মধ্যে সীমাবদ্ধ। জনগণের অংশগ্রহণ ছিল না। গণঅভ্যুত্থান নয়, গণআন্দোলনও করতে পারেনি বিএনপি।

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, প্রতিবেশি দেশ ভারতে প্রতি মিনিটে কত মানুষ মারা যায়? ২০ জন মারা গেছে সৌদিতে, এর মধ্যে ৯ জন বাংলাদেশি। সড়কের দুর্ঘটনার কারণে কোনো মন্ত্রণালয় ব্যর্থ এমন বলা ঠিক নয় বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।


আরও খবর



পুলিশের সাড়াশি অভিযানে সেই বলাৎকার কারি যুবলীগ নেতা আটক

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ১২৬জন দেখেছেন

Image

আব্দুস সবুর তানোর থেকে:রাজশাহীর তানোরে  ১৩ বছরের শিশু বলাৎকার কারি সেই  যুবলীগ নেতা রুস্তম আলীকে আটক করেছে থানা পুলিশ বলে নিশ্চিত করেন ওসি আব্দুর রহিম । শুক্রবার দিবাগত রাত ১২ টার দিকে  রাজশাহী রেল স্টেশনের পাশ থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এঘটনায় শিশুটির পিতা বাদি হয়ে গত শুক্রবার রাতে  থানায়  মামলা দায়ের  করেছেন । মামলার প্রেক্ষিতে তানোর থানা পুলিশের সাড়াশি অভিযানে গ্রেফতার হয় রুস্তম আলী। তার বাড়ি উপজেলার কামারগাঁ ইউনিয়ন ইউপির হরিপুর গ্রামে। সে মৃত ইয়ার আলীর পুত্র। রুস্তম ইউপির ৮ নম্বর ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক।  শনিবার  আদালতের মাধ্যমে যুবলীগ নেতাকে  কারাগারে পাঠানো হবে বলে জানান ওসি । তার গ্রেফতারের খবর ছড়িয়ে পড়লে তার শাস্তির দাবি করেছেন মামলার বাদিসহ গ্রামের লোকজন।

জানা গেছে, চলতি মাসের  ২০ তারিখে ৭ম শ্রেণী পড়ুয়া শিক্ষার্থীকে মোবাইল কিনে দেওয়ার নাম করে কাদিরপুর গ্রামস্থ  পুকুর পাড়ে নিয়ে গিয়ে রুস্তম আলী বলাৎকার করে। বলাৎকার করার সময় মোবাইলে ভিডিও ধারন করে। সেই ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।  

স্থানীয়রা জানান, রুস্তম এর আগেও কয়েকজন শিশুকে বলাৎকার করে ভিডিও ধারন করে নিয়োমিত বলাৎকার  করে থাকে। এর আগে গ্রামের ৪ থেকে ৫ জন শিশু কে বলাৎকার করেছে।

গ্রামের কয়েকজন ব্যক্তি জানান, রুস্তম আগে থেকেই এধরণের কাজ করে থাকে। দলের পদ দেওয়ার সময় আমরা নিষেধ করেছিলাম। কিন্তু এক শিক্ষকের কথায় টাকার বিনিময়ে ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক করা হয় তাকে। কোন কিছু না বুঝে যাকে তাকে টাকার বিনিময়ে পদ দিলে তো দলের ভাবমূর্তি এভাবেই  নষ্ট হয়। তার মত লম্পটের কঠোর শাস্তি হওয়া দরকার। যাতে কেউ এধরণের কাজ করতে না পারে।

বলাৎকার কারির ভাই মোস্তাফা গত শুক্রবার এই প্রতিবেদককে বলেছিলেন, আমার ভাই এধরণের কাজ করতেই পারে না। এখন মোবাইলে অনেক রকম ভাবে ভিডিও করা যায়। 

মোস্তফাকে পুনরায় শনিবার দুপুরের দিকে মোবাইল করে জানতে চাওয়া হয় আপনার ভাই নির্দোষ তাহলে গ্রেফতার হল কেন উত্তরে তিনি কোন কথা না বলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে। পুনরায় মোবাইল করা হলে আর রিসিভ করেন নি। 

শিশু বলাৎকারের ভিডিও টি গত বৃহস্পতিবার থেকে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। তারপর থেকে নড়েচড়ে বসে পুলিশ প্রশাসন। 

কামারগাঁ ইউনিয়ন ইউপির উত্তর শাখা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হায়দার আলীর কাছে বলাৎকার কারি ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রুস্তমের এঘটনায় কোন ব্যবস্থা নেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি জানান বিকেলের দিকে সভাপতির সাথে আলোচনা করে তাকে বহিষ্কার করা হবে। তার কোন দায় দায়িত্ব সংগঠন বহন করবে না, আর এমন ব্যক্তির সংগঠন করারও দরকার নেই।

তবে সভাপতি শাফিউল ইসলাম বলেন, উপজেলা সভাপতি দেশের বাহিরে আছেন, তিনি আসা মাত্রই আলোচনা সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আব্দুর রহিম  বলেন, প্রাথমিক ভাবে জিজ্ঞাসবাদ করে শনিবার  বিজ্ঞ আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হবে।

প্রসঙ্গত,, বলাৎকারের ঘটনাটি গত শুক্রবার ও শনিবারে দৈনিক  জাতীয় স্থানীয় পত্রিকাসহ বিভিন্ন অনলাইন পোর্টালে প্রতিবেদন প্রকাশ হয় এবং গত বৃহস্পতিবার থেকে সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম জনপ্রিয় মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।


আরও খবর



ভূমিকম্পে কাঁপলো জাপান

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১১৫জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে জাপানের মধ্যাঞ্চল ইশিকাওয়াতে। জাপানের আবহাওয়া সংস্থা (জেএমএ) এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

মার্কিন বার্তাসংস্থা এপি জানিয়েছে, স্থানীয় সময় সোমবার (৩ জুন) কয়েক মিনিটের ব্যবধানে ৫ দশমিক ৯ এবং ৪ দশমিক ৮ মাত্রার দুটি ভূমিকম্প আঘাত হানে।

জেএমএ জানায়, এতে এখন পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতি বা হতাহতের বিষয়ে কোনো তথ্য জানা যায়নি। ভূমিকম্পে দেশটিতে কোনো সুনামি সতর্কতাও জারি করা হয়নি। জাপানের আবহাওয়া কর্মকর্তা সাতেশি হারদা বলেন, সোমবারের ভূমিকম্পগুলোকে গত ১ জানুয়ারি ৭ দশমিক ৬ মাত্রার ভূমিকম্পের আফটারশক বলে মনে করা হচ্ছে।

ভূমিকম্পের কারণে স্থানীয় রেল পরিষেবা সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়। তবে কিছু সময়রে পর আবার বেশিরভাগ রেল পরিষেবা চালু হয়।

জাপানে ভূমিকম্প নিত্যদিনের ঘটনা। দেশটিতে প্রায়ই শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনে থাকে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের প্রথমদিনে ইশিকাওয়া অঞ্চলে ৭ দশমিক ৬ মাত্রার ভূমিকম্পে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। ওই ভূমিকম্পে ২৪১ জনের মৃত্যুর তথ্য জানা যায়।


আরও খবর



বাংলাদেশিদের চাকরি নিশ্চিত হয়ে ভিসা দেবে আমিরাত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে গণভবনে বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন ঢাকায় নিযুক্ত সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) রাষ্ট্রদূত আবদুল্লাহ আলি আবদুল্লাহ খাসাইফ আল হামুদি।

সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব নাঈমুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রতিশ্রুতি দিয়েছে যে তারা যেসব মানুষ (বাংলাদেশি) নেবে, তারা নিশ্চিত করে নেবে যে তাদের জন্য চাকরি অপেক্ষা করছে। মানে এমনভাবে নেবে না যে লোক নিয়েছে কিন্তু কাজ নেই বা চাকরি নেই।

প্রেস সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী এবং আমিরাতের রাষ্ট্রদূত উভয়ই জোর দিয়েছেন যে অবৈধ ইমিগ্রেশন যাতে না হয়। উভয় পক্ষই এ ব্যাপারে আরও সতর্ক হওয়ার বিষয়ে একমত।

প্রতিমাসে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ২০ হাজার মানুষ সংযুক্ত আরব আমিরাতে যাচ্ছে জানিয়ে দেশটির রাষ্ট্রদূত জানান, প্রতিদিন সংযুক্ত আরব আমিরাত প্রায় এক হাজার ভিসা ইস্যু করছে। যার মধ্যে সরাসরি ৫০০ এবং এজেন্টের মাধ্যমে ৫০০ ভিসা ইস্যু করা হচ্ছে।

শিগগির সংযুক্ত আরব আমিরাতের কয়েকজন মন্ত্রী বাংলাদেশ সফর করবেন জানিয়ে দেশটির রাষ্ট্রদূত বলেন, তারা (মন্ত্রীরা) বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক আরও গভীর ও বিস্তৃত করতে নতুন নতুন ক্ষেত্র অনুসন্ধান করবেন।

রাষ্ট্রদূত বলেন, এরই মধ্যে দুই দেশের মধ্যে খুবই বিস্তৃত এবং গভীর সম্পর্ক রয়েছে। কিন্তু আমরা এই সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নিতে চাই, নতুন উচ্চতায় নিতে চাই।

এসময় সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে তার দেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। তিনি জানান, সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ান এবং প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন রশিদ আল মাখতুম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংযুক্ত আরব আমিরাতের উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। এসময় সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত জানান, তার দেশের যেসব মন্ত্রী বাংলাদেশ সফরে আসবেন তারা এ বিষয়ে আলোচনা করবেন।

কনটেইনার টার্মিনালসহ বাংলাদেশে সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিনিয়োগ ত্বরান্বিত করতে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা চান আবদুল্লাহ আলি আবদুল্লাহ খাসাইফ আল হামুদি। এ প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, সরকার সব সেক্টরে সবকিছু বাস্তবায়নের গতি ত্বরান্বিত করছে। গতি ত্বরান্বিত করতে আমরা সবকিছু করছি।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূত জানান, তার দেশের একটি কোম্পানি বাংলাদেশের সিভিল এভিয়েশনকে ‘অ্যাডভান্স প্যাসেঞ্জার ইনফরমেশন সিস্টেম (এপিআইএস)’ সরবরাহের জন্য অপেক্ষা করছে।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব বলেন, এ বিষয়টি এগিয়ে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার কার্যালয়ের সচিব মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিনকে দায়িত্ব দেন।


আরও খবর



জয়পুরহাটে টাকা লেনদেনও পারিবারিক কলোহের জেরে পৃথক ঘটনায় ২ নারী সহ নিহত ৩

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ১০০জন দেখেছেন

Image

এস এম শফিকুল ইসলাম,জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃজয়পুরহাট সদর উপজেলায় টাকা পয়সা লেনদেনও আক্কেলপুর উপজেলায় পারিবারিক কলোহের জেরে  ২ জন নারীসহ তিনজন নিহত হয়েছেন।সোমবার দুপুরে আক্কেলপুর উপজেলার হলহলিয়া গ্রামে  স্ত্রী ও খালা শাশুড়িকে হত্যা করে পালিয়েছে  রুবেল হোসেন নামে এক পাষন্ড ঘর জামাই। নিহতরা হলেন - রুবেলের স্ত্রী মৌ আক্তার মিতু (২৫) ও তাঁর খালা আলেয়া বেগম (৬৫)। 

সৌদি প্রবাসী শ্বাশুরীর বিদেশ থেকে পাঠানো টাকা চেয়ে না পেয়ে স্ত্রী ও খালা শাশুড়িকে ছুরিকাঘাত করে  পালিয়েযান রুবেল। পরে এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করিয়ে দেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় আলেয়া বেগম সেখানেই মারা যান। আর মিতুকে বগুড়া নেওয়ার পথে পথিমধ্যেই মারা যান। 

এ ঘটনায় রুবেলের  শ্যালক নীরব বোন ও খালাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তারাও আহত হন।

আক্কেলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নয়ন হোসেন  বলেন,  স্ত্রী ও খালা শাশুড়ীকে ছুরিকাঘাত করে হত্যার পর ঘাতক জামাতা রুবেল হোসেন পালিয়েছে। পুলিশ তাঁকে ধরতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান শুরু করেছে।

অন্যদিকে :

চাকুরীর জন্য তদবিরের  টাকা ফেরত না দেওয়ায় বেধড়ক মারপিটে আহত তদবিরকারী  মারা গেছেন। নিহত আব্দুল মজিদ বুলু ( ৪৫)  জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বৃদ্দীগ্রামের   আব্দুর রহমানের ছেলে । আজ সোমবার দুপুরে জেলা  হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।  

অভিযোগের সুত্র ধরে জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  (ওসি) হুমায়ুন  কবির জানান, আব্দুল মজিদ বুলু  চাকুরি দেওয়ার নাম করে বেশ কিছুদিন আগে তার ভাতিজী জামাই  সদর উপজেলার চক বরকত গ্রামের খাইরুল ইসলামের কাছ থেকে দেড় লাখ  টাকা নেন।  পরে চাকুরি  দিতে না পারায়  চাচা শশুর বুলুর কাছ থেকে টাকা ফেরত চান খাইরুল । 

এ নিয়ে  রোববার  বিকেলে বুলুকে  জয়পুরহাট শহরের কাশিয়াবাড়ী স্কুল এলাকায় ধরে নিয়ে  গিয়ে মারপিট করে খাইরুল সহ তার সহযোগীরা।  পরে আহত বুলুকে উদ্ধার করে জয়পুরহাট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে দেন স্থানীয়রা।   সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ সোমবার দুপুরে তিনি মারা যান। 

এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি সহ আসামিদের গ্রেফতারে  পুলিশী অভিযান চলছে বলেও জানান ওসি।


আরও খবর



পুলিশ হেফাজতে যশোরে নারীর মৃত্যুর অভিযোগ

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ৮২জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:যশোরের অভয়নগরে পুলিশ হেফাজতে আফরোজা বেগম (৪০) নামে এক নারীর মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। রোববার (২ জুন) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

নিহত আফরোজা বেগম অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া গ্রামের জলিল মোল্লার স্ত্রী। তার স্বজনদের দাবি, মিথ্যা অভিযোগে আটকের পর নির্যাতনে তাকে হত্যা করা হয়েছে। তবে পুলিশ বলছে, মাদকসহ আটক ওই নারী হৃদরোগে অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন। পুলিশ তার চিকিৎসার ব্যবস্থাও করেছিল।

মৃত আফরোজা বেগমের ছেলে মুন্না মোল্লা জানান, স্থানীয় একটি মহলের ইন্ধনে এসআই শিলন ও শামছু শনিবার রাত ১২টার দিকে তাদের বাড়িতে আসে। পরে নিজেদের কাছে থাকা ইয়াবা দিয়ে তার মাকে গ্রেফতার দেখায়। এ সময় দুই পুলিশ কর্মকর্তাসহ আরও কয়েকজন পুলিশ তার মাকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে মারধর করে। পরে রাত ১টার দিকে থানায় নিয়ে যায়। সকালে থানায় গিয়ে দেখেন তার মা খুব অসুস্থ। পুলিশকে অনুরোধ করে তার মাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। চিকিৎসকরা কয়েকটি টেস্ট দিলেও পুলিশ সদস্যরা সেগুলো করতে না দিয়ে ফের থানায় নিয়ে যায়। আবারও অসুস্থ হয়ে পড়লে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মায়ের মৃত্যু হয়।

মুন্না অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ ঘরে থাকা ইজিবাইক বিক্রির এক লাখ ৮০ হাজার টাকা লুট করেছে। আরও দুই লাখ টাকা ঘুষের দাবিতে তার মাকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছে।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আব্দুস সামাদ জানান,ওই নারীকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে। ময়নাতদন্ত ছাড়া তার মৃত্যুর কারণ বলা যাবে না।

এদিকে হাসপাতালে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তারা এই বিষয়ে বক্তব্য দিতে রাজি হননি। তবে মোবাইল ফোনে অভয়নগর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জাহিদুল ইসলাম দাবি করেন, মাদকসহ আটক ওই নারী হৃদরোগে অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন।


আরও খবর