Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

শ্রীলঙ্কাকে ১০ উইকেটে হারিয়ে শিরোপা জিতল ভারত

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ২৮৮জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:এশিয়া কাপের ফাইনালে শ্রীলঙ্কাকে ১০ উইকেটে হারিয়ে শিরোপা জিতল ভারত। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কার দেওয়া মাত্র ৫০ রান তাড়া করার লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৫.২ ওভারে ম্যাচ শেষ করেছেন ভারতের দুই ওপেনার শুভমান গিল ও রোহিত শর্মা। এ নিয়ে অষ্টমবার এশিয়া কাপ জিতল ভারত।

শ্রীলঙ্কার প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে দীর্ঘ ১১ বছর পর ফাইনালের লড়াইয়ে নামে শ্রীলঙ্কা। এমন একটা ম্যাচ নিয়ে দেশটির সমর্থকদের আগ্রহ ছিল তুঙ্গে। জায়ান্ট স্ক্রিনে ভেসে ওঠে ২৫ হাজার ধারণ ক্ষমতার গ্যালারিতে আর একটি সিটও ফাঁকা নেই।

এশিয়ার সেরা হওয়ার ফাইনালে দুপুরে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকা। এরপর বৃষ্টিতে ৪৫ মিনিট পর শুরু হয় খেলা। ব্যাট করতে নেমে জসপ্রিত বুমরার প্রথম ওভারেই কুশল মেন্ডিসের (০) উইকেট হারায় শ্রীলঙ্কা।

বুমরাহ যেন ফিতা কেটে উদ্বোধন করে দিয়েছিলেন। এরপর বাকি কাজটা করেন মোহাম্মদ সিরাজ-হার্দিক পান্ডিয়ারা। 

দ্বিতীয় ওভারে বোলিং করতে এসেই সিরাজের তোপ। প্রথম বলেই পাথুম নিশাঙ্কাকে ২ রানে ফেরান। তৃতীয় বলে সাদিরা সামারাবিক্রমাকে, চতুর্থ বলে চারিথ আসালাঙ্কা। দুজনকেই খুলতে দেননি রানের খাতা। পঞ্চম বলে বাউন্ডারি হজম করলেও ওভারের শেষ বলেই তুলে নেন ধনঞ্জয়া ডি সিলভাকে (৪)।

দলের এমন বিপর্যয়ে হাল ধরতে পারেননি কেউ। অধিনায়ক দাসুন শানাকাকে রানের খাতা খোলার আগেই বোল্ড করে ফিরিয়ে সিরাজ মেতে ওঠেন ওয়ানডেতে প্রথমবার পাঁচ উইকেট পাওয়ার উল্লাসে।

এরপর ১৭ রান করা কুশল মেন্ডিসকেও ফেরান বোল্ড করে। দলীয় ৩৩ রানের মাথায় ৭ উইকেট নেই সিরাজের ঝলকে। বাকি তিন উইকেট নিতে খুব একটা দেরি করেননি হার্দিক পান্ডিয়া। দুনিথ ওয়েল্লালাগেকে ৮, প্রামোদ মাধুশানকে ১ ও মাথেশা পাথিরানাকে ০ রানে আউট করে শ্রীলঙ্কাকে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন রানে অল-আউটের লজ্জা দেন পান্ডিয়া। 

অল্প কয়টা রানের লক্ষ্য তাড়া করতে এদিন শুভমান গিলের সঙ্গে নামেননি নিয়মিত ওপেনার রোহিত শর্মা। দুজনে মিলে মাত্র ৬.১ ওভারে শেষ করে দিয়েছেন ম্যাচ। ইশান কিষান ১৮ বলে ২৩ আর গিল ১৯ বলে করেন ২৭ রান।


আরও খবর



সরকারি ব্যয়ে কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ ও গাড়ি কেনা বন্ধ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | ১৩০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সরকারি কর্মকর্তাদের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে বিদেশ ভ্রমণ ও গাড়ি কেনাসহ আরও কিছু ক্ষেত্রে নতুন দিক নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। ব্যয় সংকোচনে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৩ জুলাই) এ বিষয়ে একটি পরিপত্র জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়।

পরিপত্রে বলা হয়েছে, সরকারের নিজস্ব অর্থে সব ধরনের বৈদেশিক ভ্রমণ, ওয়ার্কশপ ও সেমিনারে অংশগ্রহণ বন্ধ থাকবে। তবে এ ধরনের ভ্রমণ অত্যাবশ্যকীয় হলে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিয়ে কিছু ক্ষেত্রে বিদেশে ভ্রমণ করা যাবে।

যেসব ক্ষেত্রে বিদেশভ্রমণ করা যাবে সেগুলো হলো- পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটের আওতায় সরকারি অর্থায়নে বিভিন্ন উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা, বিশ্ববিদ্যালয় ও দেশের দেওয়া স্কলারশিপ বা ফেলোশিপের আওতায় বৈদেশিক অর্থায়নে মাস্টার্স ও পিএইচডি কোর্সে অংশ নেওয়া।

এ ছাড়া বিদেশি সরকার বা প্রতিষ্ঠান কিংবা উন্নয়ন সহযোগীর আমন্ত্রণে এবং সম্পূর্ণ অর্থায়নে আয়োজিত বৈদেশিক প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণ করা যাবে। সেই সঙ্গে প্রিশিপমেন্ট ইন্সপেকশন (পিএসআই) বা ফ্যাক্টরি অ্যাকসেপট্যান্স টেস্টের (এফএটি) আওতায় বিদেশভ্রমণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ পাবলিক প্রকিউরমেন্ট অথরিটির ২ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখে জারি করা পরিপত্র কঠোরভাবে অনুসরণ করতে বলা হয়েছে। একান্ত অপরিহার্য হলে পিএসআই বা এফএটির আওতায় বিদেশভ্রমণের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পূর্বানুমোদন নিতে হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রে কৃচ্ছ্রসাধনে আরও কিছু নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। চলতি ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে পরিচালন বাজেটের আওতায় বিভিন্ন অর্থনৈতিক কোড থেকে কত অর্থ ব্যয় করা যাবে, তার দিকনির্দেশনাও দেওয়া হয়েছে পরিপত্রে।

বলা হয়েছে, সব ধরনের থোক বরাদ্দ থেকে ব্যয় বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া বিদ্যুৎ, পেট্রল, অয়েল ও লুব্রিকেন্ট এবং গ্যাস ও জ্বালানি খাতে বরাদ্দকৃত অর্থের সর্বোচ্চ ৮০ শতাংশ ব্যয় করা যাবে।

পরিচালন বাজেটের আওতায় শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও কৃষি মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট স্থাপনা ছাড়া নতুন আবাসিক, অনাবাসিক বা অন্যান্য ভবন স্থাপনা নির্মাণ বন্ধ থাকবে। চলমান নির্মাণকাজ ন্যুনতম ৭০ শতাংশ সম্পন্ন হয়ে থাকলে অর্থবিভাগের অনুমোদন নিয়ে ব্যয় করা যাবে। পরিপত্রে বলা হয়, সব ধরনের যানবাহন ক্রয় (মোটরযান, জলযান, আকাশযান) খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় বন্ধ থাকবে। তবে ১০ বছরের অধিক পুরোনো টিওঅ্যান্ডইভুক্ত যানবাহন প্রতিস্থাপনের ক্ষেত্রে অর্থবিভাগের অনুমোদন নিয়ে ব্যয় করা যাবে। ভূমি অধিগ্রহণ খাতে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

পাশাপাশি চলতি ২০২৪-২৫ অর্থবছরের উন্নয়ন বাজেটে যেভাবে ব্যয় করা যাবে, পরিপত্রে সে বিষয়েও দিকনির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ভূমি অধিগ্রহণের ক্ষেত্রে সব আনুষ্ঠানিকতা অনুসরণ করে অর্থ বিভাগের পূর্বানুমোদন নিয়ে ব্যয় করা যাবে। এ ছাড়া পরিকল্পনা কমিশনের অনুকূলে ‘বিশেষ প্রয়োজনে উন্নয়ন সহায়তা’ খাতে ‘জিওবি বাবদ’ সংরক্ষিত এবং মন্ত্রণালয় বা বিভাগের অনুকূলে ‘থোক বরাদ্দ’ হিসেবে সংরক্ষিত জিওবি’র সম্পূর্ণ অংশ অর্থ বিভাগের পূর্বানুমোদন নিয়ে ব্যয় করা যাবে।

পরিপত্রে আরও বলা হয়েছে, সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছসাধনে ২০২৪-২৫ অর্থবছরে সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ বা অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং আওতাধীন অধিদপ্তর, পরিদপ্তর, দপ্তর, স্বায়ত্তশাসিত সংস্থা, পাবলিক সেক্টর করপোরেশন ও রাষ্ট্রমালিকানাধীন কোম্পানির পরিচালন ও উন্নয়ন বাজেটে বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ে সরকার এসব সিদ্ধান্ত নিয়েছে।


আরও খবর



দেশে ফিরেছে বাংলেদেশ দল

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৭৮জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:বাংলাদেশ জাতায় ক্রিকেট দল বিশ্বকাপ মিশন শেষে দেশে ফিরেছে। শুক্রবার (২৮ জুন) সকাল ৯টায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে পা রাখেন ক্রিকেটাররা।

বাংলাদেশ এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে শুরুটা ভালোই করেছিল। গ্রুপ পর্বে শ্রীলঙ্কাকে রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে হারিয়ে যাত্রা শুরু করে তারা। এরপর দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ৪ রানে হেরে যায় শান্তর দল। এছাড়া গ্রুপ পর্বের শেষ দুই ম্যাচে নেদারল্যান্ডস ও নেপালকে হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো শেষ আটে জায়গা করে নেয় টাইগার বাহিনী।

বাংলাদেশ শেষ আটে একটি ম্যাচও জিততে পারেনি। প্রথম ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার কাছে বড় ব্যবধানে হেরে যায় শান্ত বাহিনীরা। এরপর ভারতের কাছেও হারে বাংলাদেশ। তবে দুই ম্যাচ হেরেও সেমিতে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ ছিল বাংলাদেশের সামনে। শেষ আটে নিজেদের শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হয়েছিল টাইগাররা। তবে নাটকীয় সেই ম্যাচ হেরে শেষ আট থেকেই বিদায় নেয় শান্তর দল।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের ব্যাটিং নিয়ে সমালোচনা করেছেন সকলে। ব্যাট হাতে কেউ এবারের বিশ্বকাপে জ্বলে উঠতে পারেনি। সবাইকে হতাশ করেছেন সাকিব, শান্ত ও মাহমুদউল্লাহরা। বল হাতে তো সবার সুনাম কুড়িয়েছেন তানজিম সাকিব ও রিশাদ হোসেন। মুস্তাফিজ, তাসকিনরাও নিজেদের ছন্দেই ছিলেন।


আরও খবর



মেহেরপুরের মুজিবনগর সীমান্ত দিয়ে ভারত থে‌কে ১০-১২ জন পুশ ইন

প্রকাশিত:শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৬৮জন দেখেছেন

Image

মে‌হেরপুর প্রতিনিধি:মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার নাজিরাকোনা সীমান্ত দিয়ে ভারত থে‌কে ১০ জন পুশ ইন  হ‌য়ে‌ছে।ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ তা‌দের‌কে বৃস্পতিবার ভোরের দিকে পা‌ঠি‌য়ে দেয়।  পুশ ইন হ‌য়ে আসা লোকজন তাদের নিজ বাড়ির উদ্দেশ্যে ফিরে গেছে। তা‌দের বা‌ড়ি য‌শোর, সাতক্ষীরাসহ বি‌ভিন্ন জেলায়। 

স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, ভোর চারটার দিকে নাজিরাকোনা সীমান্তের কাটাতারের গেট খুলে দেয় বিএসএফ। এসময় ১০ জন ভারত থেকে বাংলাদেশ সীমান্তে প্রবেশ করে। পায়ে হেঁটে তারা নাজিরাকোনা গ্রামের ভেতরে গিয়ে ভ্যানযোগে মুজিবনগর উপজেলা শহর কেদারগঞ্জে পৌঁছায় ভোরের দিকে। সেখানে স্থানীয় সাংবাদিকরা তাদের গন্তব্যে ফেরার ভিডিও ধারণ করেন। 

পুশ ইন হয়ে আসা কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, তারা সকলেই দরিদ্র। কাজের খোঁজে অনেক আগে তারা ভারতে গিয়েছিলেন। সেখানে শ্রমিকের কাজ করার এক পর্যায়ে তারা ভারতীয় পুলিশের হাতে আটক হয়। বেশ কিছুদিন হাজতবাসের পর গেল রাতে তাদেরকে আনা হয় নাজিরাকোনা সীমান্তে। সেখানে তাদের আঙ্গুলের ছাপ নেয় বিএসএফ সদস্যরা। এক পর্যায়ে কাটাতারের গেট খুলে তাদেরকে বাংলাদেশের ভেতরে পাঠিয়ে দেয়। 

মুজিবনগর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উজ্জল দত্ত জানান, পুশব্যাকের বিষয়টি পুলিশের কাছে কোন তথ্য নেই। বিজিবির কাছে কোন তথ্য আছে কি না তাও জানা নেই। 

তবে পুশব্যাকের বিষয়ে জানতে চেয়ে বিজিবি মুজিবনগর নাজিরাকোনা বিও‌পি কমান্ডার  বলেন, পুশব্যাকের কোন তথ্য আমাদের কাছে নেই।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর



কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ৩ দিনে ৩ খুন, আইনশৃংখলার অবনতি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৫৭জন দেখেছেন

Image
হাবিবুর রহমান,কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধিঃকুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলায় তিন দিনে তিনজন খুন হয়েছে। জমিজমা ও পারিবারিক দ্বন্দে পৃথক ভাবে আক্কাস আলী, আনারুল ইসলাম ও রিয়াজ উদ্দিন নামে তিনজন খুন হয়। গত সোমবার সাবেক স্ত্রীর স্বামীর চাচার ঘুসির আঘাতে নিহত হয়েছে উপজেলার বানিয়াপাড়া গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য আনারুল ইসলাম। সাবেক ইউপি সদস্য আনারুল ইসলামকে রোববার রাতে বানিয়াপাড়া সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে মুক্তার হোসেন, শাহিন, মারুফ, তজিমউদ্দিন ও আবু বক্কার হামলা করে। আহত আনারুলকে কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। আনারুলের স্ত্রী পাপিয়া খাতুন প্রেমের সম্পর্কে শাহিনের সাথে পালিয়ে বিয়ে করেন, সেই থেকে ইউপি সদস্যর সাথে শাহিনের পরিবারের দ্বন্দ চলছিলো বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী। এদিকে গত শনিবার (১৩ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে উপজেলার চাপড়া ইউনিয়নের ৭নম্বর ওয়ার্ডের শানপুকুরিয়া গ্রামে জমিজমা বিরোধের জেরে চাচাতো ভাই রিয়াজ উদ্দিন (৪৭) নামের এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা করে চাচাতো ভাই। জানা যায়, নিহত রিয়াজের সাথে তার চাচাতো ভাই হারুনের জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলছিলো। এনিয়ে শনিবার সকালে কাঁঠাল পাড়াকে কেন্দ্র করে রিয়াজের সাথে হারুনের বাকবিতন্ডা হয়। এক পর্যায়ে হারুন ও তার লোকজন রিয়াজের বাড়িতে গিয়ে হামলা চালায়। এসময় কুপিয়ে আহত করে তারা। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে সাড়ে ১২টার দিকে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন। অন্যদিকে দরবেশপুর গ্রামের বাসিন্দা আক্কাস তার বড় ভাই আজাদ প্রামানিকের ধানের বীজতলা থেকে বৃষ্টির অতিরিক্ত পানি সরকারি কালভার্ট দিয়ে বের করতে যান। এসময় জমির আইল কাটা নিয়ে ওই এলাকার বাসিন্দা আলাই ও তার চার ভাইসহ কয়েকজনের সাথে কথা কাটাকাটিতে লিপ্ত হওয়ার এক পর্যায়ে আক্কাসকে ধাক্কা মারপিট করে এবং জমির ভিতরে পানিতে ফেলে দিয়ে কাদার মধ্যে ধরে রাখে তারা। পরে অন্যরা উদ্ধার করে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে নিয়ে গেলে সাড়ে ৫টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক আক্কাস আলীকে(৫০) মৃত ঘোষণা করেন। বিষয়গুলি নিয়ে কুষ্টিয়া কুমারখালীতে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে এবং সবাই উদ্বিগ্ন। কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আকিবুল ইসলাম জানান, হাসপাতালে চিকিৎসারত অবস্থায় কয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক ওয়ার্ড সদস্য মারা গেছেন। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। তিন খুনের ঘটনায় তিনটি পৃথক পৃথক মামলা হয়েছে। তদন্ত করে আসামীদের গ্রেফতারসহ আইনের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত  দ্রুত কাজ করছে আইনশৃংখলা বাহিনী ।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



যানজট নিরসনে সংসদ সদস্যগণের সাথে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের সমন্বয়সভা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৭৮জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হাসানঃ 

ঈদুল আজহার ছুটি শেষে গ্রামের বাড়ি থেকে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করেছে মানুষ। রাজধানীতে ফিরতে শুরু করা এসব মানুষের রাস্তায় ভোগান্তি লাঘবে নানা উদ্যোগ নিয়েছে ওয়ারী ট্রাফিক বিভাগ।

বুধবার ১৯ জুন ১৯:০০-২১:০০ ঘটিকা পর্যন্ত ঈদ উপলক্ষে ঘরমুখী মানুষ যাতে মাওয়া ইনকামিং ও আউটগোয়িং রাস্তা দিয়ে স্বস্তিতে ঢাকা মহানগরীতে ফিরতে পারে, সে লক্ষ্যে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের উদ্যোগে ঢাকা-৪ ও ঢাকা-৫ আসনের এমপি ড. মোহাম্মদ আওলাদ হোসেন এবং মশিউর রহমান মোল্লা  সজলকে নিয়ে এক সমন্বয় সভার আয়োজন করা হয়। ডিসি ট্রাফিক ওয়ারী মোহাম্মদ আশরাফ ইমাম সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করেন এবং এডিসি (ট্রাফিক -ওয়ারী) সঞ্চালনা করেন। এছাড়া, যাত্রাবাড়ীর টিআই পবিত্র বিশ্বাস এবং ধোলাইপাড়ের টিআই মাহমুদ সভায় উপস্থিত ছিলেন। সমন্বয় সভায় উল্লেখিত সংসদ সদস্যদ্বয় তাদের রাজনৈতিক মাঠ পর্যায়ের নেতা/কর্মীকে  ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগকে সহযোগিতা প্রদানের নির্দেশনার পাশাপাশি অন্যান্য যে নির্দেশনা দেন: 

১) যাত্রাবাড়ী হতে ধোলাইপাড় পর্যন্ত (মাওয়া আউটগোয়িং ) ও ধোলাইপার হতে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত  (মাওয়া ইনকামিং) রাস্তা দুটিতে সকল প্রকার ব্যানারের বাস এক সাড়িতে দাঁড়াবে। 

২) একটি কোম্পানির একটি বেশির বাস রাস্তায় বাম লেন ঘেঁষে দাঁড়াবে না।

৩) প্রতিটি ব্যানারের বাস সর্বোচ্চ ১৫ মিনিট দাঁড়াবে। 

৪) এমপিগন আগামী কয়েকদিনের মধ্যে মাঠ পর্যায়ে উপস্থিত থেকে সকল বাস মালিক, কাউন্টার মালিক, পেট্রোল পাম্প মালিক, জ্বালানি পাম্প মালিক  এবং রাজনৈতিক কর্মীদেরকে যানজট নিরসনে অধিকতর কঠোর নির্দেশনা প্রদান করবেন।




আরও খবর