Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

সিআইডি পরিচয়ে প্রথম আলোর সাংবাদিককে তুলে নেওয়ার অভিযোগ

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ২৫৭জন দেখেছেন

Image

শামসুজ্জামান জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশে আমবাগান এলাকায় থাকতেন। ঘটনার সময় সিআইডি পরিচয় দেওয়া ব্যক্তিরা সাধারণ পোশাকে ছিলেন বলে জানা গেছে।

দুজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, বুধবার ভোর ৪টার দিকে তিনটি গাড়িতে প্রায় ১৪–১৫ জন শামসুজ্জামানের বাসার সামনে যান। তাদের সাত থেকে আটজন বাসায় ঢোকেন। একজন শামসুজ্জামানের থাকার কক্ষ তল্লাশি করে তার ব্যবহৃত একটি ল্যাপটপ, দুটি মুঠোফোন ও একটি পোর্টেবল হার্ডডিস্ক নিয়ে যান। ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর ওই ব্যক্তিরা শামসুজ্জামানকে নিয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় যান।

ঘটনার সময় শামসুজ্জামানের বাসায় ছিলেন স্থানীয় সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘ভোর পৌনে ৫টার দিকে শামসুজ্জামানকে সঙ্গে নিয়ে আবার তার বাসায় যান সিআইডি পরিচয় দেওয়া ব্যক্তিরা। দ্বিতীয়বার বাসায় যাওয়ার সময় আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) রাজু মণ্ডলকে দেখা গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘দ্বিতীয়বার বাসায় এসে তারা জব্দ করা মালামালের তালিকা করেন। শামসুজ্জামানকে জামাকাপড় নিতে বলেন। কক্ষের মধ্যে দাঁড় করিয়ে তার ছবি তোলা হয়। পাঁচ থেকে সাত মিনিটের মধ্যে আবার তারা বের হয়ে যান। বাসা তল্লাশির সময় দুবারই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন উপস্থিত ছিলেন।’

তুলে নেওয়ার সময় ওই বাড়ির মালিককে ডাকেন সিআইডি পরিচয়ধারী ব্যক্তিরা। তারা বাড়ির মালিককে বলেন, শামসুজ্জামানের করা একটি প্রতিবেদনের বিষয়ে রাষ্ট্রের আপত্তি আছে। তাই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে নেওয়া হচ্ছে।

এ ব্যাপারে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন বলেন, ‘আমি আগে বিষয়টি জানতাম না। রাত দেড়টার সময় পুলিশের পক্ষ থেকে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। শামসুজ্জামানের ভাবি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা, সেই পরিচয় দিয়ে তারা আমাকে শামসুজ্জামানের বাসায় নিয়ে যান।’

তবে এ বিষয়ে এখনো কিছু জানেন না বলেই জানিয়েছেন আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান।

জানতে চাইলে ঢাকা জেলা (সাভার সার্কেল) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘সাংবাদিক শামসুজ্জামানকে তুলে নেওয়ার বিষয়ে আমাদের কাছে কোনো তথ্য নেই।’

উল্লেখ্য, শামসুজ্জামান ২০১৬ সালের ১ জুলাই ঢাকার হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গিদের হামলায় নিহত ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তৎকালীন সহকারী কমিশনার (এসি) রবিউল করিমের ছোট ভাই।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস-২০২৪ উপলক্ষ্যে "প্রত্যাশা" র ধূমপানবিরোধী স্কেটিং রেলি

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image
প্রেস বিজ্ঞপ্তি:৩১মে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস-২০২৪ উপলক্ষ্যে “প্রত্যাশা” মাদক বিরোধী সংগঠন-এর উদ্যোগে এবছরের বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কর্তৃক প্রতিপাদ্য বা ¯স্লোগান “তামাক কোম্পানীর হস্তক্ষেপ প্রতিহত করি, শিশুদের সুরক্ষা নিশ্চিত করি”-কে সামনে রেখে শিশু-কিশোর তথা যুব সমাজকে তামাকের ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে সচেতন করে তুলতে ৩১/০১/২০২৪, রোজ শুক্রবার, সকাল ১৩.৩০মিনিটে রাজধানীর জাতীয় যাদুঘরের সামনে থেকে জাতীয় প্রেসক্লাব পর্যন্ত এক বর্ণাঢ্য “ধূমপান বিরোধী স্কেটিং রেলি আয়োজন করা হয়। "প্রত্যাশা" মাদক বিরোধী সংগঠন এর সাধারণ সম্পাদক হেলাল আহমেদ এর সভাপতিত্বে উক্ত  “ধূমপান বিরোধী স্কেটিং রেলি”তে আরো বক্তব্য রাখেন সংগঠনের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণি মুকুল,আব্দুল রাজ্জাক, বশিরউদ্দিন,স্কেটিং ফেডারেশনের পক্ষ থেকে মোঃ সাগর,সোহাগসহ বিভিন্ন তামাক বিরোধী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। "ধূমপান বিরোধী স্কেটিং রেলি সভাপতির বক্তব্যে জনাব হেলাল আহমেদ বলেন, দেশী-বিদেশী তামাক কোম্পানির হস্তক্ষেপ রুখতে সরকারকে আরো কঠোর ভূমিকা পালনের আহবান জানান। পাশাপাশি ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো কোম্পানি থেকে বাংলাদেশ সরকারের শেয়রা প্রত্যাহার দাবী এবং বিএটি'র বোর্ড সরকারের প্রতিনিধিদের অবিলম্বে প্রত্যাহার করে নেওয়ার জোর দাবী জানান। রেলিটি রাজধানীর জাতীয় যাদুঘরের সামনে থেকে শুরু হয়ে টিএসসি-দোয়েল চত্বর-হাই কোর্ট ঘুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। রেলিতে শেখ রাসেল স্কেটিং ক্লাব,ধূপখোলা স্কেটিং ক্লাবসহ বিভিন্ন সংগঠনের শতাধিক শিশু-কিশোর-যুব স্কেটার গণ অংশগ্রহণ করেন। 

আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




পেঁয়াজ আমদানি করেও বিপাকে আমদানিকারক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৩৩জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:প্রায় ৫ মাস ৬ দিন বন্ধ থাকার পর দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ৩০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। সেই পেঁয়াজ নিয়ে এখন বিপাকে পড়েছেন আমদানিকারক। এদিকে হিলি বাজারে দেশীয় পেঁয়াজ পাইকারী ৬৪ থেকে ৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। 

আজ বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দুপুরে হিলি বাজারের ঘুরে দেখা গেছে, দেশীয় পেঁয়াজ ৬৪ থেকে ৬৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর তা খুচরা বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা কেজি দরে। 

হিলি বাজারের পেঁয়াজ বিক্রেতা ময়নুল ইসলাম বলেন,আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৬৪ পাইকারী কিনে ৭০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতে হবে। কিন্তু ক্রেতারা একই দামে ভারতীয় পেঁয়াজ কিনবেন না। তাই আমরা দেশি পেঁয়াজ বিক্রি করছি।

পেঁয়াজ আমদানিকারক মেসার্স আরএসবি এন্টার প্রাইজের প্রতিনিধি আহম্মেদ সরকার জানান, সম্প্রতি বাজারে দেশি পেঁয়াজের দাম বেড়ে যাওয়ায় আমরা গেলো মঙ্গলবার (১৪ মে) ৩০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করি। কিন্তু ভারত সরকার পেঁয়াজ রপ্তানিতে ৪০ শতাংশ শুল্ক আরোপ করায় প্রতিকেজি পেঁয়াজের দাম পড়েছে ৫৫ থেকে ৫৬ টাকা। এর সঙ্গে আছে বাংলাদেশ সরকারের শুল্ক,পরিবহন খরচ,লেবার খরচসহ অন্যান্য খরচ। সবমিলিয়ে ৬০ টাকা কেজি পড়ে গেছে। প্রতিকেজি পেঁয়াজ ৬৪ থেকে ৬৫ টাকা কেজি বিক্রি না করলে আমাদের লোকসান গুনতে হবে। তাই আমদানির ৩০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ বন্দর থেকে খালাস করে গুদামজাত করে রেখেছি। পচনশীল পণ্য হওয়ায় নিয়মিত ফ্যানের বাতাস দিতে হচ্ছে। ভারতীয় পেঁয়াজ আর দেশি পেঁয়াজের দাম সমান। এ কারণে গত দুই দিনেও ভারতীয় পেঁয়াজ বিক্রি হয়নি।

৫ মাস ৬ দিন বন্ধ থাকার পর গেলো মঙ্গলবার (১৪ মে) ভারতীয় একটি ট্রাকে ৩০ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করেন মেসার্স আরএসবি এন্টার প্রাইজ।

হিলি স্থলবন্দরের ২০ জন আমদানিকারক ২৭ হাজার টন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি পেয়েছেন। যারা আইপি (আমদানির অনুমতি) পেয়েছেন তারা এলসি খুলে পেঁয়াজ আমদানি করতে পারবেন।


আরও খবর



নন্দীগ্রামে ছিনতাই হওয়া ধানবোঝাই ট্রাকসহ তিনজন গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৬১জন দেখেছেন

Image

নন্দীগ্রাম (বগুড়া) প্রতিনিধি:বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার রণবাঘা বাজার এলাকা থেকে ছিনতাই হওয়া ধানবোঝাই ট্রাক উদ্ধারসহ তিন ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (১৭ মে) বেলা ১২টায় প্রেস ব্রিফিং করে নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রেস ব্রিফিংয়ে বগুড়া জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুর রশিদ সরকার জানান, গত ২৯ এপ্রিল রণবাঘা বাজারের ধান ব্যবসায়ী ওয়াজেদ আলী ২৬৫ বস্তা ৫০১ মণ ৭ লাখ টাকার ধান চট্রো-মেট্রো-১১-৪৩৩৭ ট্রাক লোড দিয়ে দিনাজপুরের সোনালী অটো রাইস মিলে পাঠান। পরে ওই ধানবোঝাই ট্রাকটি ছিনতাই হয়ে যায়্। এরপর নন্দীগ্রাম থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়।

নন্দীগ্রাম থানা পুলিশ ধান উদ্ধারের জন্য জোর তৎপরতা চালিয়ে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় সুনিদিষ্ট গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে গত ১৬মে ধারাবাহিক এবং সিরিজ অভিযান পরিচালনা করে ঢাকা জেলার আশুলিয়া উপজেলার জিরাবো ফুলতলা হতে ট্রাক চালক মোঃ সামিউল হক (৪২) ও ঘটনার সাথে জড়িত মোঃ মামুন (২৬) এবং মোঃ মাসুদ (২৯) কে গ্রেপ্তার করে। এছাড়া তাদের দেওয়া তথ্যমতে জামালপুর সদর উপজেলা এলাকা হতে তাদের ব্যবহৃত ট্রাকটি উদ্ধার করা হয়। এরপর পাবনা জেলার চাটমোহর উপজেলা এলাকা থেকে ২৬৫ বস্তা ধান উদ্ধার করা হয়েছে।
 
নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আজমগীর হোসেইন বলেন, গ্রেপ্তারকৃতদের আজ শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



জয়পুরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডলের রোগমুক্তি কামনা

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | ৪৬জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম,জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃজয়পুরহাট প্রেসক্লাব এর সভাপতি, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য, জয়পুরহাট জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি, জয়পুরহাট জেলা থেকে প্রকাশিত দৈনিক মায়ের আঁচল পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক, জয়পুরহাট কোর্টের পাবলিক প্রসিকিউটর এ্যাডভোকেট নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল বর্তমানে গুরুতর অসুস্থ হয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন আছেন। তিনি ও তার পরিবার আশু রোগমুক্তি কামনায় সকলের আশীর্বাদ ও দোয়া কামনা করেছেন।

আরও খবর



ভালায় ভাইয়ের হাতে ভাই ‘খুন’ আটক-২

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ মে 20২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

শরীফ হোসাইন, ভোলা বিশেষ প্রতিনিধি:ভোলায় জমি-জমা বিরোধকে কেন্দ্র করে দুই ভাইয়ের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাইকে খুনের অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার সকাল (১১টার) দিকে ভোলা সদর উপজেলার রতনপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ রতনপুর ৯নং ওয়ার্ডের নজির মেম্বার বাড়ীতে এ ঘটনা ঘটেছে। ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এছাড়া নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

স্থানীয়রা জানান, ভোলা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ রতনপুর গ্রামের ৯নং ওয়ার্ডের আবদুল মালেক ও তার ছোট ভাই তাজল ইসলামের মধ্যে জমি-জমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার সকালে দুই ভাইয়ের পরিবারের মধ্যে বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় তাজলের পরিবারের লোকজনের হামলায় ৭০ বছর বয়সী বড় ভাই আবদুল মালেক (মানিক) কে এলোপাথারিভাবে বেধরক মারধর এবং মাটিতে ফেলে গলা টিপে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। এসময় তার আরেক ভাই মজনু এগিয়ে এসে আবদুল মালেককে উদ্ধার করতে গেলে তাকেও মারধর করা হয়। তিনি মাথায় আঘাত পেয়ে গুরুতর আহতাবস্থায় ভোলার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটানায় তাজল ইসলাম গ্রুপের মমতাজ নামের এক নারীসহ দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করা হয়েছে। 

নিহতের স্ত্রী জানান, আমাদের সাথে তাজল ইসলামদের জমিজমা নিয়ে দীর্ঘ দিনের বিরোধ চলছে। হামলার ঘটনার সাথে সোহাগ, তাজল ইসলাম, বজলু এবং অলিউল্লাহসহ একাধিক লোক জড়িত রয়েছে। এছাড়া সদ্য অনুষ্ঠিত হওয়া উপজেলা নির্বাচনে আমার স্বামী ইউনুছ মিয়ার দল করেছে। আর ওরা মোশারেফ মিয়ার দল করেছে। উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে হামলা চালিয়ে তারা পুরনো প্রতিশোধ উদ্ধার করার জন্য এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে। 

নিহতের ভাতিজি জানান, চাচা তাজল ইসলাম এর স্ত্রী মমতাজের কারণে আমাদের বাপ-চাচারা এক সাথে থাকতে পারেনাই। ৬ চাচা সবাই আলাদা। আমাদের ফ্যামেলির ধ্বংসের মূল কারণ হচ্ছে এই মহিলা, তার জন্যই আজকে এ ঘটনা ঘটেছে, আমরা তার বিচার চাই।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক যুবক জানান, আগ থেকেই জমি নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল। আগে এমন ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু কালকে (নির্বাচনের পর) থেকেই তারা মারধরের হুমকি দিয়ে আসছিলো। যার কারণে আজকে (বৃহস্পতিবার) এ ঘটানা ঘটেছে। তিনি আরো বলেন, এক ভাই অপর ভাইয়ের ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে পিটিয়ে এবং গলায় পাড়া দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনা ঘটিয়েছে।

স্থানীয়রা আরো জানান, তাজল গ্রুপরা এর আগেও একাধিক খুনের মামলার সাথে জড়িত রয়েছে। সেই হত্যাকান্ডের সুষ্ঠ বিচার না হওয়াতে তারা দিন দিন আরো খিপ্র হয়ে উঠেছে। মানুষকে তারা মানুষ বলে মনে করছে না। যে কোন তুচ্ছ ঘটনায় তারা হত্যাকান্ড ঘটাতেও পিছ-পা হচ্ছে না। এ হত্যাকান্ডের সাথে যারাই জড়িত তাদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানাচ্ছি। 

এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রিপন চন্দ্র সরকার জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে থানা পুলিশ এবং ডিবি পুলিশ কাজ করছে। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। তাদের মধ্যে জমি-জমা নিয়ে বিরোধসহ একাধিক মামলা রয়েছে। এটা পারিবারিক বিরোধের জেরে হত্যা নাকি নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় হত্যা তা নিশ্চিতভাবে বালা যাচ্ছে না। ঘটনাস্থল থেকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দুজনকে আটক করা হয়েছে। সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে নিহত আবদুল মালেক এর লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ভোলার ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতেল আনা হলে সন্তানদের আহাজারিতে হাসপাতালের পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। বাবার নানা কথার স্মৃতিচারণ করে দুই মেয়েকে বিলাপ করতে দেখা গেছে। এসময় তাদেরকে সান্তনা দেয়ার চেষ্টা করছেন পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা। 


আরও খবর