Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

অতি‌রিক্ত ছয় স‌চিবের দপ্তর বদল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ এপ্রিল 2০২4 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ১৩১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:দপ্তর বদল করা হয়েছে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধনের মহাপরিচালকসহ (ডিজি) অতিরিক্ত সচিব পদমর্যাদার ছয় কর্মকর্তার।

সোমবার (১ এপ্রিল) জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত পৃথক পৃথক প্রজ্ঞাপন আদেশ আকারে জারি করা হয়েছে।

এতে জহানানো হয়েছে, বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের জাতীয় পরিচয় নিবন্ধনের নতুন মহাপরিচালক হিসেবে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের সদস্য (অতিরিক্ত সচিব) মো. মাহবুব আলম তালুকদারকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

অতিরিক্ত স‌চিব পদ মর্যাদার যুক্তরাষ্ট্রে ইকোনোমিক মিনিস্টার মো. মাহমুদুল হাসানকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংযুক্ত করা হয়েছে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের মহাপরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) মো. রেজানুর রহমানকে বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব করা হয়েছে। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত অতিরিক্ত সচিব মো. মহিবুজ্জামানকে জীবন বীমা করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (অতিরিক্ত সচিব) নুজহাত ইয়াসমিনকে জাতীয় মহিলা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক এবং পরিকল্পনা বিভাগে সংযুক্ত অতিরিক্ত সচিব মো. ছায়েদুজ্জামানকে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপন অনুসারে, সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে সংযুক্ত অতিরিক্ত সচিব জোবায়দা বেগমকে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে পদায়ন করা হয়েছে।


আরও খবর



ঈদের আনন্দ সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে জয়পুরহাটে পথ শিশুদের নিয়ে মেহেদী উৎসব

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ এপ্রিল ২০২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃঈদের আনন্দ সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে জয়পুরহাটে পথ শিশুদের নিয়ে শুরু হয়েছে মেহেদী উৎসব।জয়পুরহাটের স্টেশন রোডে নারী উদ্যোক্তা শান্তনা পারভীনের উদ্যোগে পথ শিশুদের কে ঈদের আনন্দে শরীক করতে এই আয়োজনে বেশ সাড়া পড়েছে। ঈদ মানে আনন্দ ঈদ মানে খুশি। সেই খুশি পথ শিশুদের মাঝে ভাগাভাগি করতেই এমন উদ্যোগ বলছেন শান্তনা। তার এই  ক্ষুদ্র উদ্যোগ নিঃসন্দেহে মহৎ বলেই স্বীকার করছেন স্থানীয়রা। উৎসাহ পেলে আরো  বড় পরিসরে আয়োজন করতে চান শান্তনা। প্রতিদিন ৪০ থেকে ৫০ জন শিশু ও নারীরা মেহেদী রাঙাতে অংশ নিচ্ছেন।

আরও খবর



গাংনীতে কসাই সিন্ডিকেট ভাংতে এবার সমিতি গঠন

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ এপ্রিল ২০২৪ | ৬৭জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃএবার সোচ্ছার হয়েছে সাধারণ জনতা। কসাইদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে মেহেরপুরের মহল্লায় মহল্লায় গড়ে উঠেছে সমিতি। দৈনিক সাপ্তাহিক অথবা মাসিক কিস্তিতে চাঁদা উত্তোলন করে তা দিয়ে গরু কিনছেন সমিতির লোকজন। ঈদুল ফিতর উপলক্ষে গরু জবাই করে গোস্ত ভাগাভাগি করবেন তারা। এতে যেমন সাশ্রয়ী হবেন সাধারণ লোকজন তেমনি চাপ পড়বে কসাইদের উপর। সমিতির বিষয়টি ভালভাবে দেখছেন সচেতন মহল ও স্বয়ং হাটমালিক।

জানা গেছে, রমজান মাসের আগ থেকেই ছিল দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্বগতি। ক্রেতা সাধারণের সুবিধার্থে সরকার গোমাংসের দাম ৬৮০ টাকা নির্ধারণ করলেও কসাই সিন্ডিকেট তা প্রত্যাক্ষাণ করে। বাজারে গো মাংসের দাম সাড়ে সাতশ’ টাকা কেজি। তবে ঈদের আগে ও পরে দাম আটশ টাকা থেকে ১০০০ টাকা নির্ধারণ করতে পারেন কসাইরা। কসাই সিন্ডিকেট ভাংতে মহল্লায় মহল্লায় সমিতি গঠন করে নিজেরাই গরু কিনে জবাই করার সিদ্ধান্ত নেন লোকজন। এতে সাশ্রয়ী দামে মাংস পাবেন তারা। তাছাড়া কসাইদের উপর বেশ চাপ পড়বে বলে মনে করেন সচেতন মহল।

জেলার বৃহত্তম পশুহাট বামন্দীতে গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন মহল্লা থেকে সমিতি গঠন করে লোকজন আসছেন গরু কিনতে। গাংনী ভিটাপাড়ার মকলেছুর রহমান জানান, কসাইরা নানা ভাবে জিম্মি করে ফেলেছে সাধারণ মানুষকে। চড়া দামে গোস্ত কিনতে হয়। তাছাড়া কসাইরা ইচ্ছেমত মাংস বিক্রি করে। সাশ্রয়ী দামে মাংস পেতে সমিতি গঠন করা হয়েছে। এতে যেমন পছন্দ মতো গোস্ত পাওয়া যাবে তেমনি অনেকটা সাশ্রয়ী হবে। তবে কসাইদের উপর অনেকটা চাপ পড়বে বলেও জানান তারা। একই কথা জানালেন গাংনীর মালসাদহ গ্রামের আফজাল হোসেন। তিনি আরো জানান, তারা ৩২ জন সাপ্তাহিক কিস্তিতে টাকা উত্তোলন করেছেন। এক লাখ ৮২ হাজার টাকা দিয়ে একটি গরু কিনেছেন।

গরু কিনতে আসা কুষ্টিয়া সদরপুরের রাজ্জাক ও মাসুদ রানা জানান, কসাইদের কাছ থেকে তারা গোস্ত কেনেন না তিন বছর ধরে। প্রতিটি উৎসবে কসাইরা বেপরোয়াভাবে দাম হাঁকে গরুর গোস্তের। বাধ্য হয়ে ৩০ জনের একটি সমিতি গঠন করেছেন। সাপ্তাহিক চাঁদা তুলে গরু কিনতে আসেন। দেখে শুনে বুঝে পছন্দের পশুটি কিনেছেন। এতে অনেক সাশ্রয় বলে দাবী করেছেন তিনি। তবে সব ধরনের পশুর দাম একটু বেশি বলে জানালেন এই সমিতি প্রধান।

গরু বিক্রেতা গাড়াবাড়িয়ার আমিরুল ইসলাম জানান, তিনি তার নিজের বাড়ির গরু এনেছেন হাটে। কয়েকহাট আগে গরুর যা দাম ছিল এখন তার চেয়ে অনেক কম। আমদানী বেশি হওয়ায় দর পতন বলে জানালেন তিনি। তবে কসাই সিন্ডিকেট ভাংতে যে সমিতি গঠন করা হয়েছে এটাকে সাধুবাদ জানানে এই গরু বিক্রেতা। একই কথা জানালেন গরু ব্যবসায়ি কামারখালির আনোয়ার ও সহড়াবাড়িয়ার আশরাফুল।

জেলার ঐতিহ্যবাহী বামন্দী পশু হাটের ইজারদার সিরাজুল ইসলাম জানান, ঈদের আগেই জমে উঠেছে পশুহাট। বেচা বিক্রিও বেশ ভাল। এবার জনগন অনেকটা সচেতন। বিভিন্ন গ্রাম মহল্লা থেকে লোকজন আসছেন দলবদ্ধ ভাবে। এরা সমিতি করে গরু কিনছেন। পশু পালনকারীরাও ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন। বেচা বিক্রিও বেড়েছে। কসাইদের হাতে জিম্মী না হয়ে নিজেরাই গরু কিনে গোস্তের ব্যবস্থা করার বিষয়টি সাধুবাদ জানিয়েছেন এই হাট মালিক।


আরও খবর



মেহেরপুরে মধু সংগ্রহে ব্যস্ত মৌ চাষিরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ এপ্রিল 2০২4 | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ এপ্রিল ২০২৪ | ১০২জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, গাংনী(মেহেরপুর:মেহেরপুরে লিচু বাগানগুলোতে মুকুলের সমারোহ। চারদিকে মুকুলের মিষ্টি মৌ মৌ গন্ধ। গাছে গাছে দোল খাচ্ছে লিচুর মুকুল। গাছের প্রতিটি ডাল থেকে মুকুলের সুবাস ছড়িয়ে পড়ছে চারপাশে। মুকুলের সুগন্ধে পাখা মেলে গুণ গুনিয়ে এক ফুল থেকে অন্য ফুলে ছুটছে মৌমাছিরা। লিচু চাষিরা যেমন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে গাছের পরিচর্যায়। অন্যদিকে মৌচাষিরা মধু সংগ্রহে শ্রম ব্যয় করছে দিনরাত। মধু সংগ্রহে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে এসেছেন মৌচাষিরা। গাছের ফাঁকে ফাঁকে বাক্স বসিয়ে সংগ্রহ করছেন সুস্বাদু মধু।

মেহেরপুর মুজিবনগর উপজেলার রশিকপুরে লিচুবাগানগুলোতে গিয়ে দেখা গেছে, চলতি মৌসুমে গাছের মুকুল ভালো হওয়ার মধু সংগ্রহে খুশি মৌচাষিরাও। মার্চ মাসের শুরু থেকে মধু সংগ্রহ করার ধুম পড়ে। দূর থেকে আসা মৌচাষিরা বিভিন্ন স্থানীয় বাগান মালিকদের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে মৌ চাষ শুরু করে। একটি বাগানে মধু সংগ্রহ করার কাজে ২-৩ জন শ্রমিক কাজ করে। দেখা যায়, লিচুর উৎপাদন বাড়াতে বাগানে বাগানে চাষিরা মৌমাছির ’মৌ বাক্স’ বসিয়েছে। পাশেই নিজেদের তৈরি ছোট কুঁড়েঘর থাকে বাক্সের তদারকি করছে মৌ চাষিরা।

লিচু গাছের নিচে সারি সারি করে সাজিয়ে রেখেছেন কাঠের তৈরি বাক্সগুলো। সেখান থেকে দলে দলে মৌমাছির ঝাঁক বসছে লিচুর মুকুলে। মুকুল থেকে মধু সংগ্রহ করে মৌমাছির দল নিজ নিজ বক্সে মৌচাকে মধু এনে জমা করছে। ৭-৮ দিন পর পর প্রতিটি বাক্স থেকে চাষিরা মধু সংগ্রহ করছেন। লিচুর বাগান থেকে সংগ্রহ করা মধু যেমন খাঁটি তেমনই সুস্বাদু। মানের দিক থেকে ভাল হওয়ায় এর চাহিদা অনেক বেশি। প্রতি বছর দেশের নানান প্রান্ত থেকে মৌচাষিরা মধু সংগ্রহ করতে মেহেরপুরের বিভিন্ন বাগানে আসে। এদিকে বাগান থেকেই সুস্বাদু মধু ক্রয় করছেন স্থানীয় ও দূর-দূরান্তের ব্যবসায়ীরা।

মধু কিনতে আসা ক্রেতারা বলেন, মধু চাষিরা এখানে মধু সংগ্রহের পাশাপাশি বিক্রিও করছেন। আমরা বাজারে যে মধু কিনি, সেগুলোয় কেমিক্যাল বা ভেজাল থাকে। তবে এখানকার মধু খাঁটি। এক মাস সময় নিয়ে দিনাজপুর থেকে এখানে এসেছেন মৌ চাষি রনি হাসান ও তার দল। রনি হাসান দীর্ঘ ১৪ বছর এই পেশায় যুক্ত রয়েছেন। তিনি বলেন, বছরে ৬ মাস আমাদের কাজ হয়। আমরা মাসে ৩-৪ বার মধু সংগ্রহ করতে পারি।

মৌ চাষি রনি হাসান আরো বলেন, আবহাওয়ার উপর নির্ভর করে আরো বেশিও সংগ্রহ করা যায়। এখানে ১৫০টি বক্স রয়েছে। প্রতিটি বক্সে ৪টি-১৬টি ফ্রেম আছে। প্রতিটি ফ্রেম থেকে ২৫০ গ্রাম থেকে ২ কেজি পর্যন্ত মধু আমরা সংগ্রহ করে থাকি। ইতোমধ্যে আমরা ২’শ ৯০ কেজি মধু সংগ্রহ করেছি। আরও ২শ কেজি মধু সংগ্রহের সম্ভবনা রয়েছে। এখানে সংগ্রহের কাজ শেষ হলে আবার অন্যত্র মধু সংগ্রহের কাজ শুরু হবে।

স্থানীয় পর্যায়ে প্রতি কেজি মধু ৬শ টাকা কেজি ধরে বিক্রি করা হচ্ছে। মধু সংগ্রহ করা শেষ হয়ে গেলে তারা সাথে করে মৌমাছিদের নিয়ে যায় বলে জানান মৌ চাষিরা। প্রতিটি বাক্সে একটি রানী মৌমাছি, একটি পুরুষ মৌমাছিসহ অসংখ্য এপিচ জাতের কর্মী মৌমাছি রয়েছে। কর্মী মৌমাছিরা ঝাঁকে ঝাঁকে লিচুর মুকুলে ছুটে গিয়ে মধু সংগ্রহ করে।কৃষিবিদ শফিউল ইসলাম বলেন, মৌমাছির মাধ্যমে মুকুলের পরাগায়ণ ঘটানোর মাধ্যমে লিচুর ফলন ভাল হয়।

ফলে যে গাছে মৌমাছির বেশি আগমন ঘটে সে গাছে লিচুর যেমন বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা থাকে, তেমনই মৌ চাষিরা বেশি মধু সংগ্রহ করে বাণিজ্যিকভাবে বিপুল পরিমান অর্থ উপার্জন করতে সক্ষম হয়।


আরও খবর



বগুড়ায় ন্যায্যমূল্যে গাভীর দুধ বিক্রয় উদ্বোধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ এপ্রিল 2০২4 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image

(বগুড়া) প্রতিনিধিঃপবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে ৩১মে মার্চ২৪ রবিবার বগুড়া জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের উদ্যোগে জেলা স্কুল গেটে ন্যায্য মূল্যে গাভীর খাঁটি দুধ বিক্রয় উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ড. মোঃ আনিছুর রহমান।এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডাঃ মোছাঃ নাছরীন পারভীন, বগুড়া সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডাঃ এ কে এম ফরহাদ নোমান সহ জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগন। (রবিবার) প্রতি লিটার গাভীর খাঁটি দুধ ৬০টাকা মূল্যে ৬০জন ক্রেতার মধ্যে ন্যায্য মূল্যে বিক্রয় করা হয়। এছাড়াও গত ১৫ মার্চ২৪ হতে জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ বগুড়ার উদ্যোগে ন্যায্য মূল্যে গরুর মাংস ও ভ্রাম্যমান ডিম বিক্রয় করা হয়েছে।


আরও খবর



নবীনগরের কাইতলায় অবৈধভাবে ড্রেজার চালিয়ে ফসলি জমি নষ্ট করায় ৪ জনের জেল

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | ২৫৪জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধিঃ-

নবীনগর উপজেলার কাইতলা উত্তর ইউনিয়নের কোনাউর গ্রামের দুটি স্থানে অবৈধভাবে ড্রেজার চালিয়ে ফসলি জমি নষ্ট করায় মোহাম্মদ আলাউদ্দিনকে ১ বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।  এছাড়া গুড়িগ্রামের বিলে ৪টি ড্রেজিং মেশিন দিয়ে ফসলি জমি নষ্ট করায় শফিকুল ইসলামকে ১ বছর এবং মো: তোফাজ্জল ও মো: শামিমকে ৬ মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে।


রবিবার বিকেল ৩টার দিকে ঘটনাস্থলে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে আটককৃত ২জনকে ১ বছর করে ও ২ জনকে ৬ মাস করে কারাদণ্ড প্রদান করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট তানভীর ফরহাদ শামীম।সাজাপ্রাপ্ত মোহাম্মদ আলাউদ্দিন ফসলি জমি নষ্ট করার অপরাধে পূর্বেও মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে কারাদণ্ড ভোগ করেছেন। এছাড়া অন্যান্যদের একাধিকবার নিষেধ করার পরও দিনরাত ড্রেজার চালিয়ে কয়েক বিঘা ফসলি জমি নষ্ট করেছে।


এর মধ্যে সরকারি খাস জমিও রয়েছে।অবশেষে কাইতলা এলাকায় মাটি কাটার সাথে জড়িত মূলব্যক্তিদের হাতে নাতে ধরে 'বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০' মোতাবেক শাস্তি প্রদান করা হলো।  এসময় মাটি কাটার কাজে ব্যবহৃত ড্রেজার জব্দ করা হয়েছে এবং ব্যবহৃত পাইপ নষ্ট করা হয়েছে।ফসলি জমি রক্ষায় এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে এবং অপরাধীদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর