Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

বেনাপোলে লিটন বাহিনীর সন্ত্রাসীরা এখনো স্বমূর্তিতে

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৩জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান শার্শা,যশোর প্রতিনিধি:দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বেনাপোলে হট্টগোল করার হোতা লিটন বাহিনীর সন্ত্রাসীরা এখনো এলাকায় স্বমূর্তিতে বিচরণ করায় জনমনে আতঙ্ক বিরাজ করছে।

ভোট কেন্দ্রে সেদিনের সেই অস্ত্রের ঝনঝনানি, মুহুর্মূহু বোমা বিস্ফোরণ আর চাকু মারার দৃশ্য মনে উঠতেই জীবন হারানোর শঙ্কায় আঁতকে ওঠে এলাকাবাসী। সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পোর্ট থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয় সে সময়। অভিযোগের সাথে বারবার ফোনালাপ ও সিসি ফুটেজের বিষয় যুক্ত করা হয়। কিন্তু অনেকে এখনো গ্রেফতার হয়নি।

বিচারের আশায় বিভিন্ন মহলে ঘুরে বেড়াচ্ছেন বেনাপোল ওয়ার্ডের ছুরিকাঘাতপ্রাপ্ত, শারীরিক ও মানসিকভাবে লাঞ্ছিতসহ অসংখ্য আঘাতপ্রাপ্ত পরিবারের সদস্যরা।

বেনাপোল কলেজ পাড়ার আবু সাঈদ অনিকের দেখা একটি হৃদয় বিদারক ঘটনার বর্ণনা ও বেনাপোল পোর্ট থানায় এজাহার থেকে জানা যায়, গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে সেসহ বেনাপোল ওয়ার্ডের বাসিন্দা ‘আওয়ামী লীগ নেতা’ মহাতাব উদ্দিনের ছেলে শাওন হোসেন (২৬), জয়নালের ছেলে উজ্জল হোসেন (২৬) ও আব্দুল সামাদের ছেলে জুয়েল (২৩) সহ কয়েকজন নৌকা প্রতীকের কর্মী হিসেবে ভোটারদের মাঝে ভোটার স্লিপ প্রদানে সহযোগিতা করছিলো। যা মেনে নিতে পারেনি ট্রাক প্রতীক নিয়ে সংসদ সদস্য প্রার্থী আশরাফুল আলম লিটন। ক্ষমতার দাপটে তিনি তার পোষ্য সন্ত্রাসী বাহিনী লেলিয়ে দেন শার্শা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ন্যায় নিজ জন্মস্থান বেনাপোল ওয়ার্ডের প্রতিবেশী নিরস্ত্র নৌকা প্রতীকের কর্মীদের উপর।

বেনাপোলে এ বর্বরোচিত হামলায় লিটনের পোষ্য সন্ত্রাসীরা অস্ত্র-সস্ত্রে সজ্জিত হয়ে দলবদ্ধভাবে এসে তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ তাদের উপর তাণ্ডবলীলা চালায়।

এজাহারের বিবরণে জানা যায়, জীম নামের ৪ নম্বর আসামি নৌকা প্রতীকের কর্মী অনিককে খুন করার উদ্দেশ্যে তার হাতে থাকা হাতুড়ি দিয়ে মাথায় আঘাত করে জখম করে এবং সে মাটিতে পড়ে গেলে ইমরান নামের ৩ নম্বর আসামি তার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারপিট করে।

একই কাজে লিপ্ত হাসান নামের ৭ নম্বর আসামি তার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে শাওনকে এবং ফয়সাল নামের ৫ নং আসামি তার হাতে থাকা লাঠি দিয়ে উজ্জলকে এলোপাতাড়ি মারপিট করে। মামুন নামের ৬ নম্বর আসামি তার হাতে থাকা দা দিয়ে শাওনের মাথার মাঝে আঘাত করে। ইকবল নামের ১ নম্বর আসামি তার হাতে থাকা বারমিজ চাকু দিয়ে জুয়েলের পেটের বাম পাশে আঘাত করে। একই খেলায় নাসির নামের ২ নম্বর আসামি ও ইমরান নামের ৩নম্বর আসামি তাদের হাতে থাকা দেশীয় অস্ত্র দা’য়ের উল্টো পিঠ দিয়ে তাদেরকে আঘাত করে। তবে, এজাহার নামীয় ৯ নম্বর আসামি আব্দুল ওয়াহিদ দুদুর হুকুমে এজাহারের অন্যান্য আসামিরাসহ অজ্ঞাতনামা ৫/৬ জন তাদেরকে এলোপাতাড়ি মারপিট করে। এ সময় আহতরা বাঁচাও বাঁচাও বলে চিৎকার করলে স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে প্রেরণ করে।

পরে, এলাকাবাসীর কাছে সংবাদ আসে’ জুয়েলের পেটে ছুরি মারায় তার নাড়ি-ভুড়ি বেরিয়ে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে। রাখে আল্লাহ’ মারে কে! এ যাত্রায় নৌকার প্রতীক নিয়ে নির্বাচিত ও টানা ৪ বারের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শেখ আফিল উদ্দিনের সার্বিক দেখভাল, চেষ্টা ও নিজ অর্থায়নে আহতদের সুচিকিৎসায় মায়ের ছেলেরা ঘরে ফিরে এসেছে বলে জানিয়েছেন ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা।

এজাহারের ১নম্বর আসামি ইকবল হোসেন ও ২ নম্বর আসামি নাসির উদ্দিন জামিন বাদেই কোন ক্ষমতার উৎসে এলাকায় স্বদর্পে চলাফেরা করছে তা নিয়ে হতাশ এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে শার্শা উপজেলা পরিষদের মাসিকসভা ও আইনশৃঙ্খলা মিটিংয়ে সমন্বয়ক “উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও শার্শা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সিরাজুল হক মঞ্জু নিরপেক্ষতা বজায় রাখাসহ সন্ত্রাসী আটক ও অস্ত্র উদ্ধারে বেনাপোল পোর্ট থানার পুলিশকে তাগিদ দিলেও অদ্যবধি তা আমলে আসেনি।

তবে বেনাপোল পোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সুমন ভক্ত জানান,  এ ঘটনায় অজ্ঞাত এক আসামিকে আটক করা হয়েছে। এজাহারের ২ জন পলাতক রয়েছে। বাকিরা আদালত থেকে জামিনে আছে। পলাতকদের আটকের বিষয়ে পুলিশ সচেষ্ট রয়েছে।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, এ ঘটনায় ১৩ জনকে উল্লেখসহ ৫ থেকে ৬ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়।

তারা হলো বেনাপোল ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত আব্দুল মান্নানের ছেলে ইকবাল হোসেন (২৫), বাবলুর ছেলে নাসির (৩২) ও মোঃ ইমরান (২৭), মুকুলের ছেলে জীম (২২), ও ফয়সাল (৩০), মুজিবরের ছেলে মামুন (৫৮), মৃত আব্দুল মতিন টেনার ছেলে হাসান (৩৩), নারায়নপুরের কালামের ছেলে সোহেল (৩০), বেনাপোল ওয়ার্ডের মৃত মোহাম্মাদ উল্লাহর ছেলে আব্দুল ওহিদ দুদু (৬৫), মৃত আব্দুল মতিন টেনার ছেলে মিজানুর রহমান (৪৫), নায়ায়নপুর কলেজপাড়া মৃত বাবুর ছেলে লিটন (২৮), নারায়নপুর কেলেরকান্দার কলমের ছেলে বাদশা (২০) ও মোরশেদের ছেলে জিল্লুর রহমান (২৬) সহ অজ্ঞাতনামা ৫/৬ জন।

বেনাপোল পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুলফিকার আলী মন্টু জানান, বেনাপোল পৌরসভার সাবেক মেয়র ও দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ট্রাক প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণকারি আশরাফুল আলম লিটন জয়লাভ করতে মরিয়া হয়ে এ বর্বরোচিত হামলার নির্দেশ দেন। যা বিভিন্ন প্রচার মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।

তিনি জানান, লিটন একজন খলনায়ক। বেনাপোল পৌরসভার মেয়র থাকাকালীন সময় থেকে
সীমান্তের ত্রাস, মাদক, অস্ত্র ও স্বর্ণ চোরাচালানসহ বহু অপকর্ম সিন্ডিকেটের সক্রিয় প্রধান হয়ে বিচরণ করেছে। এ বারের জাতীয় নির্বাচনে তার স্বমূর্তির বিষ্ফোরণ ঘটেছে। তার মামাতো ভাই তনিসহ পরিবারের সদস্যরা বিভিন্ন অপকর্ম পরিচালনা করে থাকে।


আরও খবর

ঢাকায় মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৬

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্সের বীমা দাবীর ৪ কোটি ২৫ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৯জন দেখেছেন

Image
এস এম শফিকুল ইসলাম, জয়পুরহাট ঃপপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের ঢাকা অঞ্চলের বীমা গ্রাহকের মধ্যে  ৪ কোটি ২৫ লাখ টাকার বিমা দাবীর চেক হস্তান্তর ও নতুন বীমা কর্মীদের প্রশিক্ষন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারী) সকালে ঢাকায়  ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইডিইবি) মিলনায়তনে এ বীমা দাবীর চেক হস্তান্তর ও নতুন বীমা কর্মীদের প্রশিক্ষন কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।

পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক বি এম শওকত আলীর সভাপতিত্বে মেয়াদ উত্তীর্ণ বীমাদাবীর চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও, বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স ফোরামের প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স অ্যাসোসিয়েশনের কার্যনির্বাহী সদস্য  বি এম ইউসুফ আলী। 


বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন  সাবেক সচিব ও পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের কোম্পানীর সিনিয়র কনসালট্যান্ট মোঃ আনিস উদ্দিন মিঞা, সাবেক অতিরিক্ত সচিব ও কোম্পানীর সিনিয়র কনসালট্যান্ট মোঃ সিরাজুল হায়দার এনডিসি, সাবেক প্রধান বীমা নিয়ন্ত্রক (ইনচার্জ) ও কোম্পানীর সিনিয়র কনসালট্যান্ট রায় দেবদাস, পপুলার লাইফ ইনস্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেডের একক বীমা প্রকল্পের  উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ব্রাঞ্চ কন্ট্রোল) সৈয়দ মোতাহার হোসেন, উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নওশের আলী নাঈম, উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক হাবিবুর রহমান, আল আমিন বীমা প্রকল্পের উর্দ্ধতন  উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবু তাহের, জনপ্রিয় বীমা প্রকল্পের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামাল হোসেন মহসিন,  ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক খলিলুর রহমান সিকদার। 

এ সময়ে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, আল বারাকাহ ইসলামী ডিপিএস প্রকল্পের উর্দ্ধতন নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প  পরিচালক সেলিম মিয়া, পপুলার ডিপিএস  প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক আবু মঈদ শাহীন, আল আমিন বীমা প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক মোখলেছুর রহমান, আল বারাকা ইসলামী একক বীমা প্রকল্পের নির্বাহী পরিচালক ও প্রকল্প পরিচালক মাহাবুবুর রহমান সহ প্রকল্প পরিচালক ও প্রকল্প ইনচার্জবৃন্দ এবং কোম্পানীর অন্যান্য উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ।

সভা শেষে  বীমা গ্রাহকের হাতে  ৪ কোটি ২৫ লাখ টাকার বিমা দাবীর চেক তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বি এম ইউসুফ আলী।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




নির্বাচন নিয়ে যা বললেন পাকিস্তানের সেনাপ্রধান

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২০জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:পাকিস্তানে অনেক অনিশ্চয়তা কাটিয়ে শেষ হয়েছে জাতীয় নির্বাচন। ভোট শেষ হওয়ার ৪০ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও এখনও সম্পূর্ণ ফলাফল ঘোষণা করতে পারেনি দেশটির নির্বাচন কমিশন (ইসিপি)। কোনো দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় জোট সরকারের দিকে এগোচ্ছে দেশটি। এরই মধ্যে দেশটির শক্তিশালী সেনাবাহিনী নির্বাচন নিয়ে নিজেদের মুখ খুলেছে। খবর আল-জাজিরার।

গত বৃহস্পতিবারের ভোট নিয়ে এক বিবৃতিতে পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল সায়েদ আসিম মুনির বলেন, ‘আমাদের দেশকে একটি স্থিতিশীল হাতে থাকতে হবে। নৈরাজ্য ও মেরুকরণের রাজনীতি থেকে সরে এগিয়ে যেতে হবে।

পাকিস্তানের সেনাবাহিনী থেকে প্রকাশিত ওই বিবৃতিতে সেনাপ্রধান বলেন, ‘জয়-পরাজয়ের একটি মহড়া যা কি না জনগণ ঠিক করে। রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও তাদের কর্মীদের স্বার্থের ঊর্ধ্বে ওঠে জনগণের সেবা করার প্রচেষ্টা করতে হবে।

ইসিপির ওয়েবসাইট থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত ২৫১টি আসনের ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এর মধ্যে স্বতন্ত্ররা পেয়েছে ৯৯টি। লন্ডন থেকে ফেরা দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএলএন) পেয়েছে ৭১টি আসন। বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) পেয়েছে ৫৪টি আসন।

১৭টি আসন পেয়েছে মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্টের (এমকিউএম)। পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল) পেয়েছে তিনটি আসন। দুটি করে আসন পেয়েছে জমিয়ত উলেমা-ই-ইসলাম ফজল (জিইউআই-এফ) ও ইস্তেহকাম-ই-পাকিস্তান পার্টি (আইপিপি)। একটি করে আসন পেয়েছে এমডাব্লিউএমপি, বিএনপি ও পিএমএল।

পাকিস্তানের কোনো দলকে সরকার গঠন করতে হলে এককভাবে তাদের ১৩৪টি আসনে জিততে হবে। সবশেষ ফলাফল অনুযায়ী, কোনো দলই সরকার গঠনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায়নি। এমনকি, স্বতন্ত্ররা এগিয়ে থাকলেও তারা মোর্চা করে সরকার গঠনের মতো পর্যাপ্ত আসন পায়নি। সে জন্য সরকার গঠনে জোটই হবে শেষ ভরসা। এবার পাকিস্তানের ২৬৫ আসনে জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। একটি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি। ভোটগ্রহণের কয়েকদিন আগে সেখানে দুর্বৃত্তদের গুলিতে একজন প্রার্থী নিহত হওয়ায় সেখানকার ভোট স্থগিত করা হয়।

পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের মোট আসনসংখ্যা ৩৩৬টি। এর মধ্যে ২৬৬ আসনে সরাসরি ভোট হয়। এ ছাড়া বাকি ৭০টি আসন সংরক্ষিত। এসব আসনের মধ্যে ৬০টি নারীদের ও ১০টি সংখ্যালঘুদের।


আরও খবর



কালিয়াকৈরে এবার সাংবাদিকের গাড়িতে তালা ঝুলালেন ইউএনও

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৮জন দেখেছেন

Image

সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরের ভিতরে পাকিং করায় এক সাংবাদিকের গাড়িতে তালা ঝুলিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিরুদ্ধে। তার বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের সংবাদ প্রকাশের জেরেই ওই কর্মকর্তা এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে ধারণা করছেন অনেকে। সোমবার পর্যন্ত গাড়িটি তালাবন্ধ থাকায় নিন্দা জানিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সাংবাদিক ও সচেতন মহলের লোকজন।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগী সাংবাদিক সূত্রে জানা গেছে, গত দ্বাদশ নির্বাচন সুষ্ঠ, সুন্দর নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ করার লক্ষে ঢাকার ধামরাই উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা (ইউএনও) হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকীকে গাজীপুরের কালিয়াকৈরে বদলি করা হয়। তিনি কালিয়াকৈরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদানের পর নৌকার বিপক্ষে কাজ করে সমালোচিত হন। এরপর তিনি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে মাটি খেকোদের চারটি ভেকু জব্দ করে। এতে আলোচিত হলেও কয়েকদিন পরই জব্দকৃত ভেকু ছেড়ে দিয়ে আবারো সমালোচিত হন ওই কর্মকর্তা। পরে তার অলিখিত অনুমোদনে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মাটি খেঁকোরা বেপরোয়া হয়ে উঠে। প্রায় অর্ধশত পয়েন্টে অবৈধ ভাবে ফসলি জমির মাটি, উচু জমি, খালের পাড়, টিলা, নদীর তীরসহ মাটি কাটার উৎসবে পরিণত হয়েছে। এসব বিষয়ে সংবাদ প্রচারের লক্ষ্যে ওই কর্মকর্তা বক্তব্য নিতে গেলে দুজন টেলিভিশন সাংবাদিকের ওপর চটে যান।

এক পর্যায় তার আনসার সদস্য দিয়ে ওই সাংবাদিকদের ক্যামেরা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নেওয়া হয়। ওই তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের মাধ্যমে তার অফিস থেকে বের করে দেন ওই কর্মকর্তা। শুধু তাই নয়, গত ৪ ফেব্রুয়ারী অবৈধ ইটভাটায় লোক দেখানো অভিযান করে তিনি। ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে বৈষম্যের জরিমানায় ক্ষুব্দ হন ইটভাটার মালিক ও স্থানীয়রা। মনগড়া উপজেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটি করে আরো বিতর্কিত হন ওই ইউএনও। এসব বিষয়ে বিভিন্ন মিডিয়ায় সংবাদ প্রকাশিত হলে সাংবাদিকদের ওপর ক্ষিপ্ত হন। এর আক্রোশে কালিয়াকৈর প্রেসক্লাবের সদস্য ও দৈনিক স্বদেশ প্রতিদিন পত্রিকার প্রতিনিধি দেলোয়ার হোসেনকে তার গাড়ি উপজেলা চত্ত্বরে পাকিং করতে নিষেধ করেন ওই কর্মকর্তা। এরপর থেকে ওই সাংবাদিক কয়েকদিন ধরে উপজেলা চত্ত্বরে তার গাড়ি রাখেন না। কিন্তু গত রোববার সকালে ওই সাংবাদিক তার গাড়িটি উপজেলা চত্ত্বরে রেখে অন্যত্র চলে যান। দুপুরের পরও তার নির্দেশে ওই সাংবাদিকের গাড়িতে তালা ঝুলিয়ে দেন তার দেহ রক্ষী আনসার সদস্য। পরে তালা সম্বলিত গাড়ির ছবি ওই সাংবাদিকের মোবাইল ফোনে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। মুলত ইউএনও’র বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের সংবাদ প্রকাশের জেরেই তিনি এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে ধারণা করছেন অনেকে। সোমবার পর্যন্ত গাড়িটি তালাবন্ধ থাকায় তীব্র নিন্দা জানিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় সাংবাদিক ও সচেতন মহলের লোকজন। তারা বলছেন, আসলে দেশে সাংবাদিকরা এখন নিরাপদ না, সেখানে সাধারণ জনগন কতটুকু নিরাপদ আছে? তিনি এখানে যোগদানের পর থেকেই একের পর এক সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। তবে এসব একজন ইউএনওর কারনে দেশের সকল ইউএনও, প্রশাসন ও সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে বলেও জানান তারা। ওই গাড়ির মালিক সাংবাদিক দেলোয়ার হোসেন বলেন, গত কয়েক দিন আগে উপজেলা চত্বরে গাড়ি রাখায় ওই ইউএনর দেহ রক্ষী (আনসার) আমাকে গাড়ি রাখতে নিষেধ করেন। এর পরে আমি সেখানে আর গাড়ি রাখি না। কিন্তু রোববার অফিস সময়ে ওই চত্বরে গাড়ি রেখে বাহিরে গেলে গাড়িতে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়।

মাটি খেঁকোদের পক্ষে সাফাই গেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হোসাইন মোহাম্মদ হাই জকী জানান, যদি মাটি কাটা বন্ধ হলে বাড়িঘর হবে কিভাবে? আইনে নিয়ম না থাকলেও বাস্তবে বন্ধ করা সম্ভব নয়। এছাড়া সাংবাদিকের গাড়িতে তালা ঝুলানোর বিষয়ে তিনি মুঠোফোনে বলেন, উপজেলা পরিষদ পাকিংয়ের জায়গা না।

এখানে কেউ অবৈধ ভাবে পাকিং করলে আমরা তালা বদ্ধ করতেই পারি। এখানে বক্তব্য নেওয়ার দরকার নাই। তবে ওনার আসার দরকার বলে তিনি উত্তেজিত কন্ঠে বলেন, এটা কি নিউজ করার বিষয়?


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করে দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে বেতার : তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭৫জন দেখেছেন

Image

মারুফ সরকার,স্টাফ রিপোর্টার:সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করে দেশের উন্নয়নে বাংলাদেশ বেতার প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।

মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ বেতার সদর দপ্তর চত্বরে বিশ্ব বেতার দিবস ২০২৪ উপলক্ষ্যে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক রবীন্দ্রশ্রী বড়ুয়ার সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এবং ইউনেস্কোর ঢাকা অফিস প্রধান ও বাংলাদেশ প্রতিনিধি ড. সুজান মারি ভাইজ। স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ বেতারের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অনুষ্ঠান) মো. ছালাহ্ উদ্দিন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন,  সুশাসন প্রতিষ্ঠা, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ চর্চা এবং সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করে দেশের উন্নয়নে বাংলাদেশ বেতার প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছে। উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ বেতারের পাশাপাশি অন্যান্য বাণিজ্যিক এফ এম রেডিও ও কমিউনিটি রেডিওকে নিরলস কাজ করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী এ সময় আরও বলেন, তথ্য প্রযুক্তির উৎকর্ষের এ সময়ে বেতার বড় একটি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সাথে প্রতিযোগিতা করে বেতারকে এগিয়ে যেতে হচ্ছে। এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চটকদার ও সস্তা বিনোদনের পাশাপাশি মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্ভট সংবাদ প্রচার এবং অসত্য ও গুজব ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এসব প্রতিকূলতা ও প্রতিযোগিতাপূর্ণ পরিস্থিতিতেও বেতার একটি নিজস্ব মানদণ্ড অনুসরণ করে বস্তুনিষ্ঠ ও নির্ভরযোগ্য অনুষ্ঠান ও সংবাদ প্রচার করছে।

তিনি আরও বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধসহ দেশের মানুষের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বাংলাদেশ বেতার অবিস্মরণীয় ভূমিকা পালন করেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধে রণাঙ্গনের যোদ্ধাদের সহযোগী শক্তি  হিসেবে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ভূমিকা সর্বজনবিদিত। তৎকালীন পাকিস্তানি স্বৈরশাসকের বাধা সত্ত্বেও সে সময় বাংলাদেশ বেতারের কর্মকর্তাদের দুঃসাহসী ভূমিকায় বেতারে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার হয়। মুক্তিকামী বাঙালির পাশে থেকে দায়িত্ব পালনের জন্য জাতি বাংলাদেশ বেতারকে কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করে। 

 প্রতিমন্ত্রী আরও যোগ করেন, বর্তমান সরকার দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও জাতীয় উন্নয়ন ত্বরাম্বিত করতে তথ্যের অবাধ প্রবাহে বিশ্বাস করে। দেশের গণমাধ্যমসমূহ এখন স্বাধীনভাবে কাজ করছে। 

এ বছরের বিশ্ব বেতার দিবসের প্রতিপাদ্য 'শতাব্দী জুড়ে তথ্য, বিনোদন ও শিক্ষা বিস্তারে বেতার'-এর গুরুত্ব অনুধাবন করে বেতারে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিল্পী-কলাকুশলীদের কাজ করে যাওয়ার জন্য এ সময় আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রী।

২০১১ সালের ০৩ নভেম্বর জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও  সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা (ইউনেস্কো)-এর ৩৬তম সম্মেলনে ১৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব বেতার দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। ২০১২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি প্রথমবারের মত বিশ্বব্যাপী পালিত হয় বিশ্ব বেতার দিবস। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছর ত্রয়োদশ বিশ্ব বেতার দিবস পালন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ বেতার বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, শ্রোতা সম্মেলন, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে।


আরও খবর



হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আলু আমদানি বন্ধ রেখেছে আমদানিকারকরা

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:দেশের বাজারে আলুর দাম কমে যাওয়ায় লোকসানের আশঙ্কায় হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আলু আমদানি বন্ধ রেখেছে আমদানিকারকরা।গত মঙ্গলবার (৯ ফেব্রুয়ারী) ভারতীয় ৫টি ট্রাকে ১২৫ মেট্রিক টন আলু আমদানি হওয়ার পর আর আলু আমদানি হয়নি এই বন্দর দিয়ে। গত বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারী) ও বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারী) এই দুই দিন বন্দর দিয়ে আলু আমদানি হয়নি। আজ শনিবার ও বন্দর দিয়ে আলু আমদানি হবে না বলেন জানিয়েছেন হিলি স্থলবন্দরের ব্যবসায়ী মাহবুব হোসেন।ব্যবসায়ীরা বলছেন দেশের বাজারে আলুর দাম কমে যাওয়ায় লোকসান গুনতে হচ্ছে তাই শুল্ক প্রত্যহারের দাবি জানিয়েছেন তারা।

দেশের বাজারে হঠাৎ করে আলুর দাম বেড়ে যাওয়ায় ভরা মৌসুমে আলু আমদানির অনুমতি দেয় সরকার। এরপর হিলি বন্দরের ৫২ জন আমদানিকারক ৩৫ হাজার মেট্রিক টন আলু আমদানির অনুমতি পায়। গত শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারী ) হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আলু আমদানি শুরু হয়। তবে বন্দরে ক্রেতা সংকট ও দেশীয় বাজারে আলুর দাম কমে যাওয়ায় লোকসানের আশঙ্কায় তিন দিনের মাথায় আলু আমদানি বন্ধ করে দেন আমদানিকারকরা।

হিলি স্থলবন্দরের ব্যবসায়ী মাহবুব হোসেন জানান,দেশের বাজারে আলুর দাম স্বাভাবিক রাখতে ভারত থেকে আলু আমদানির অনুমতি পাবার পর আমরা আলু আমদানি শুরু করি। তবে দেশের বাজারেই আলুর দাম কম থাকায় আমাদের লোকসান হচ্ছে। তাই যদি সরকার আলু আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার করে নিতো আমাদের জন্য ভালো হতো।

হিলি কাস্টমসের তথ্য মতে, প্রথম দিন শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারী) ভারতীয় ৪ টি ট্রাকে ১০০ মেট্রিকটন, গত রোববার (৪ ফেব্রুয়ারী) ভারতীয় ৮ টি ট্রাকে ২০০ মেট্রিকটন, গত সোমবার (৫ ফেব্রুয়ারী) ভারতীয় ৯ টি ট্রাকে ২৩১ মেট্রিকটন, গত মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারী) হিলি বন্দর দিয়ে ভারতীয় ৫ টি ট্রাকে ১২৫ মেট্রিকটন। মোট ৬৫৫ মেট্রিক টন আলু আমদানি হয়েছে এই বন্দর দিয়ে। যা বন্দরের পাইকারি বাজারে প্রতিকেজি বিক্রি হয়েছে ২০ টাকা কেজি দরে।


আরও খবর