Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

বাংলাদেশ কখনো দেউলিয়া হবে না: অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাংলাদেশ দেউলিয়া হয়ে যায়নি, অর্থনীতিতে কিছু সঙ্কট ছিল, তা কাটিয়ে আবারও ট্র্যাকে ফিরতে শুরু করেছে। রিজার্ভও বাড়ছে, বলেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী ।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) স‌চিবাল‌য়ে আন্তর্জাতিক কৃ‌ষি উন্নয়ন তহ‌বিলের (ইফাদ) কা‌ন্ট্রি ডিরেক্টর আর্নউড হ্যা‌মিলার্সের সঙ্গে সাক্ষাত শেষে সাংবা‌দিকদের এ মন্তব্য করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থনৈ‌তিক সংকট থাকলেও সেগুলো সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে। আমাদের অবস্থার উন্ন‌তি হচ্ছে এবং আমরা স‌ঠিক প‌থেই আছি। নতুন মন্ত্রীসভা গঠন হওয়ার পরে রাতারা‌তি সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে তা না। এজন্য কিছুটা সময় লাগ‌বে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন খাতে আরও বিনিয়োগ বাড়াতে চায় জাপান। দুই দেশের মধ্যে অর্থনৈতিক যে সম্পর্ক ছিল তা আরও বাড়বে বলে আশা করছি। তারা অবকাঠামো উন্নয়ন নিয়ে তাদের আগ্রহের কথা আবারও জানিয়েছেন।


আরও খবর



বায়ুদূষণের তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে ঢাকা

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৪৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সম্প্রতি প্রায় প্রতিদিনই বিশ্বে দূষিত শহরের তালিকায় শীর্ষ তিনের মধ্যে থাকছে ঢাকার নাম। আজও বায়ুদূষণের তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে আছে ঢাকা।

সোমবার (২৯ জানুয়ারি) সকাল ১০টায় বায়ুমানের সূচক (একিউআই) অনুযায়ী ঢাকায় বাতাসের মান ছিল ২৬৮ স্কোর। বায়ুর মান বিচারে এ মাত্রাকে ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ বলা হয়।

এছাড়া একই স্কোর নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ঘানার আক্রা। ২৫৫ স্কোর নিয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারতের দিল্লি। ২৪২ স্কোর নিয়ে চতুর্থ স্থানে রয়েছে ভারতের কলকাতা এবং ১৮৬ স্কোর নিয়ে পঞ্চম স্থানে পাকিস্তানের করাচি।

তথ্যমতে, একিউআই স্কোর ১০১ থেকে ২০০ এর মধ্যে থাকলে ‘অস্বাস্থ্যকর’, ২০১ থেকে ৩০০ এর মধ্যে থাকলে ‘খুব অস্বাস্থ্যকর’ এবং স্কোর ৩০১ থেকে ৪০০ এর মধ্যে থাকলে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ বলে বিবেচিত হয়।


আরও খবর



মির্জাপুর কুমুদিনী হাসপাতাল পরিদর্শনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা: সামন্ত লাল সেন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩১জন দেখেছেন

Image

মির্জাপুর (টাংগাইল) প্রতিনিধি:স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেছেন, চিকিৎসা ব্যবস্থা প্রান্তিক পর্যায়ে পৌঁছে দিতে কাজ করছি, যেন মানুষ গ্রামে বসেই উন্নত চিকিৎসা সেবা পায়।

সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কুমুদিনী হাসপাতাল পরিদর্শনে এসে কুমুদিনী ওয়েল ফেয়ার ট্রাস্ট কর্তৃক আয়োজিত Palliative  Care Service অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, গরীব মানুষ ঢাকায় এসে কেমন বিড়ম্বনার শিকার হয় তা আমি জানি। গ্রামে কেন চিকিৎসক থাকতে চায়না তা খুঁজে বের করা হবে। রোগীর সুচিকিৎসার পাশাপাশি আমাকে চিকিৎসকদের নিরাপত্তার কথাও ভাবতে হবে। এছাড়াও চিকিৎসা সেবায় গাফিলতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সের ঘোষণা দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

পরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী কুমুদিনী হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড পরিদর্শন করে রোগীদের সঙ্গে কথা বলেন। চিকিৎসা ঠিকমতো মতো হচ্ছে কিনা এসময় তার খোঁজখবর নেন। পরিদর্শনকালে কুমুদিনীর ব্যবস্থাপনা ও ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) এর ভূয়সী প্রশংসা করেন।

এরআগে সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী কুমুদিনী হাসপাতালে পৌঁছালে তাকে অভিবাদন জানান, কুমুদিনী ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট্রের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজীব প্রসাদ সাহা, ভারতেশ্বরী হোমসের পরিচালক সস্পা সাহা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাকিলা বিনতে মতিন, কুমুদিনী হাসপাতালের পরিচালক প্রদীপ কুমার রায়, সহকারি পরিচালক ডা. আলী আহসান, জিএম অনিমেষ ভৌমিক, কুমুদিনী উইমেন্স মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আব্দুল হালিম।

এসময়, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ফরিদুল ইসলাম, থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিমসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



জনপ্রতিনিধিকে জনগণের আস্থা অর্জন করতে হয়: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,জনপ্রতিনিধিদের জনগণের আস্থা অর্জন করার ওপর গুরুত্বারোপ করে, জনপ্রতিনিধিদের দায়বদ্ধতা আছে। জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন।

রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ‘জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস-২০২৪’ উদযাপন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যাদের পুনর্বাসন করে দিয়েছি। তাদের খোঁজখবর নিয়েন। তাতে আপনাদের লাভ আছে। তাদের আস্থা অর্জন করলে নির্বাচনে ভোটটা পাবেন। জনপ্রতিনিধিকে জনগণের আস্থা অর্জন করতে হয়। কমিউনিটি ক্লিনিকের দিকেও খেয়াল রাখবেন। কাজগুলো যাতে যথাযথভাবে হয়। ওষুধ যাতে যথাযথভাবে বণ্টন হয়। সেদিকে খেয়াল রাখলে মানুষ উপকৃত হবে।

তিনি বলেন, করোনা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে আমদানি ব্যয় বেড়ে গেল। দাম বেড়ে গেল। সবাইকে বলেছিলাম উৎপাদন করতে। এক ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদি না থাকে। এ সময় সমবায়ের মধ্যদিয়ে সমন্বিত চাষের গুরুত্বও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে হবে। বিদ্যুতে অনেক উৎপাদন খরচ। আমরা কিন্তু ভর্তুকি দিচ্ছি। তবে এখন থেকে যে বেশি ব্যবহার করবে, তার মূল্য বেশি দিতে হবে। সেভাবেই করতে চাই।

তিনি বলেন, খাল-বিল নদী-নালাগুলোকে রক্ষা করতে হবে। একটা পুকুর দেখলেই সেখানে ভবন করতে হবে, এই চিন্তা বাদ দিতে হবে। জলাধার আমাদের দরকার। বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করতে হবে।

তিনি আরও বলেন, কোনো প্রকল্প নেওয়ার জন্য দেবেন না। সেটা যথাযথ কাজে লাগবে কিনা, সেটা দেখে দেবেন। প্রকল্প ব্যক্তির উপকার চিন্তা করে নয়, মানুষের কল্যাণের দিকে চিন্তা করে নিতে হবে।


আরও খবর



একদিকে সন্তান হারানোর বেদনা অন্যদিকে দেনাদারদের চাপ

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৫জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃএকসাথে চার সন্তান ভুমিষ্ঠ হবার পর আনন্দে আত্মহারা ছিলেন মেহেরপুরের গাংনীর তেঁতুলবাড়িয়া গ্রামের হাসান। কিন্তু সেই আনন্দ মিলিন হয়ে গেছে নিমিষেই। মাত্র সাত দিনের ব্যবধানে তিনটি সন্তানের অকাল মৃত্যু হয়েছে। একদিকে তিন সন্তান হারানোর বেদনা অন্যদিকে অসুস্থ এক সন্তানের ব্যায় বহুল চিকিৎসা। সেই সাথে দেনার ভারে জর্জরিত হাসান এখন কিংকর্তব্য বিমূঢ়। কিভাবে সদ্যজাত সন্তানের চিকিৎসা করাবেন তা নিয়ে মানসিকভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন তিনি। এখনও কেউ এগিয়ে আসেনি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে। তবে সমাজ সেবা বলছে সহযোগিতা চাইলে তার সন্তানকে চিকিৎসা সহযোগিতা করা হবে।

হাসান জানান, পরপর দুবার অকাল গর্ভপাত ঘটেছিল হাসানের স্ত্রী রজনী খাতুনের। পরের বছর আবারো গর্ভধারণ করেন তিনি। নানা পরিক্ষা নিরিক্ষার পর জানা যায় রজনীর গর্ভে রয়েছে চারটি সন্তান। শুধু হাসানের পরিবারই নয়, প্রতিবেশিরাও বেশ আনন্দে উচ্ছাসিত। নিজের সহায় সম্বল বিক্রি করে স্ত্রীর চিকিৎসা করান হাসান। সন্তানের মুখ দেখার জন্যও পাগল প্রায় স্ত্রী রজনী। স্থানীয় চিকিৎসকদের পরামর্শে হাসান তার স্ত্রী রজনীকে ভর্তি করেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখান থেকে রজনীকে পাঠানো হয় ইউনিহেল্ধসঢ়;থ স্পেশালাইজ্ধসঢ়;ড হাসপাতালে।

গত পহেলা জানুয়ারি রজনীর কোল জুড়ে আসে তিন ছেলে ও এক মেয়ে। নাম রাখা হয় রেজয়ান, রাইয়ান, রাফসান ও সুমাইয়া। ওই রাতেই সুমাইয়া মারা যায়। ৭ জানুয়ারী মারা যায় রাইয়ান ও রাফসান। সন্তান প্রসবের আনন্দ বেদনা নিমিষেই বিষাদে পরিনত হয়।

মারাত্মক অসুস্থ অবস্থায় চিকিৎসা চলতে থাকে রেজওয়ানের। এক সন্তানকে বাঁচিয়ে রাখতে অনেক কিছুই বিক্রি করতে হয় হাসানকে। সেই সাথে অন্ততঃ আড়াই লাখ টাকা ধার দেনা করতে তাকে।

হাসানের স্ত্রী রজনী খাতুন বলেন, সন্তানের মুখ দেখে আনন্দ হয়েছিল কিন্তু সেই সন্তানকে বাঁচিয়ে রাখতে পারিনাই। অনেক ধার দেনা করে চিকিৎসা নেয়া হয়েছে। এখন একদিকে সন্তান হারানোর বেদনা অন্যদিকে দেনার ভার। এখনও কেউ কোন সহযোগিতা করেনি। কেউ একটু সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিলে সন্তানের চিকিৎসা করানো সম্ভব হতো।

প্রতিবেশি বেগম খাতুন ও জোহরা খাতুন জানান, হাসান অত্যন্ত গরীব ও অসহায়। রজনী চার মাস অন্তঃস্বত্তা থাকাকালীণ সমস্যা দেখা দেয়। এ জন্য তার স্ত্রীর চিকিৎসা করাতে গিয়ে দেনায় জর্জরিত। এর মধ্যে তিনটি সন্তান মারা গেছে। একটি ছেলে বেঁচে আছে। তার ভাল চিকিৎসা করা জরুরী। কোন আয় রোজগার নেই তার। সন্তান হারানোর শোকের পাশাপাশি এখন দেনাদাররা পাওনা পরিশোধে চাপ দিচ্ছে। এদের পাশে কেউ নেই।সরকারী সহযোগিতা পেলে পরিবারে একটু স্বস্তি আসতো।

তেঁতুলবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল হুদা জানান, হাসানের স্ত্রী রজনী গর্ভে সন্তান ধারণের পর থেকে নানা সমস্যায় জর্জরিত ছিল। স্থানীয়ভাবে অনেকেই তার স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য টাকা পয়সা দিয়েছেন। কেউবা দিয়েছেন ঋণ। তার স্ত্রীকে ঢাকাতে পাঠানোর পরও খোঁজ খবর রাখা হয়েছে। তার তিনটি সন্তান মারা গেছে। এখন একটির চিকিৎসা ও আর্থিক সহযোগিতার জন্য ইউএনও ডিসি সাহেব বরাবর আবেদনের জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে। স্থানীয়ভাবে ওই পরিবারটিকে সহযোতিার চেষ্টা করা হচ্ছে। গাংনী উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার আরশাদ আলী জানান, বিষয়টি তিনি অবগত।

প্রতিটি সরকারী হাসপাতালে সমাজ সেবা অধিদপ্তরের শাখা রয়েছে। সেখানে হাসান যোগাযোগ করলে সহযোগিতা পাবেন। তাছাড়া হাসান তার সন্তানের চিকিৎসার জন্য আবেদন করলে সহযোগিতা করা হবে বলেও আশ^স্ত করেন এই কর্মকর্তা।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করা নিয়ে যে বার্তা দিল যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাজ করার দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্রের আছে বলে মন্তব্য করেছেন মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথু মিলার। গতকাল বৃহস্পতিবার (০১ ফেব্রুয়ারি) দেশটির পররাষ্ট্র দপ্তরের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিকের করা প্রশ্নের জবাবে এসক কথা বলেন তিনি।

এক সাংবাদিক মিলারকে প্রশ্ন করেন, বাংলাদেশ প্রসঙ্গে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্রের সর্বশেষ প্রেসনোটে যেমনটা তিনি দেখেছেন যে যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে বিভিন্ন নিরাপত্তা ক্ষেত্রে কাজ করতে আগ্রহী। এই ক্ষেত্রগুলোর মধ্যে আছে সন্ত্রাস দমন, সীমান্ত নিরাপত্তা, সাইবার নিরাপত্তা, সামুদ্রিক নিরাপত্তা ও আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা। প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত না জানিয়ে বাংলাদেশের নতুন সরকারের সঙ্গে বৃহত্তর প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্রের কাজ করাটা কীভাবে সম্ভব?

জবাবে মিলার জানান, সারা বিশ্বেই যুক্তরাষ্ট্রের এ ধরনের সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন, তারা বাংলাদেশে দমন–পীড়ন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন; তার অর্থ এই নয় যে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাজ করার দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্রের নেই।

তিনি বলেন, যেসব ক্ষেত্র নিয়ে উদ্বেগ আছে, সেগুলোতে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাজ করার দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্রের আছে। আবার যুক্তরাষ্ট্র যেসব ক্ষেত্রে সহযোগিতা করতে পারে বলে মনে করে, অভিন্ন স্বার্থ আছে বলে মনে করে, সে ক্ষেত্রগুলোতেও কাজ করার দায়িত্ব আছে।

ব্রিফিংয়ে আরেক প্রশ্নে বলা হয়, মুখপাত্র জানেন, মিয়ানমার এখন একটি যুদ্ধক্ষেত্র। সেখানে জান্তার সঙ্গে অন্য পক্ষের যুদ্ধ চলছে। এ কারণে মিয়ানমার থেকে আরও রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করতে চলেছে। হেলিকপ্টারসহ মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর সদস্যেরাও অনুপ্রবেশ করছেন। সেখানকার পরিস্থিতি নিয়ে মুখপাত্রের কোনো মন্তব্য আছে কি, তবে মিলার জানান, এ প্রশ্নের বিষয়ে বিস্তারিত পরে বলবেন তিনি।


আরও খবর