Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

আর্জেন্টিনা রাতে মাঠে নামছে

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৪২৫জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক; কাতারে আগামী সপ্তাহ থেকে শুরু বিশ্বকাপ ফুটবলের মূল আসর। তাই শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত দলগুলো। টুর্নামেন্টের অন্যতম টপ ফেবারিট আর্জেন্টিনা আজ বুধবার আমিরাতের বিপক্ষে একটি প্রীতি ম্যাচ খেলতে মাঠে নামবে। স্বাগতিকদের বিপক্ষে আলবিসেলেস্তেদের ফিফা প্রীতি ম্যাচটি হবে মোহাম্মদ বিন জায়েদ স্টেডিয়ামে। ম্যাচ শুরু বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে নয়টায়।

দুরন্ত ফর্মে থেকে এবার কাতার বিশ্বকাপে যাচ্ছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। টানা ৩৫ ম্যাচ অপরাজিত আছে তারা। যদিও মেসি তার দলকে ফেবারিটদের কাতারে রাখতে রাজি নন। তবে সেটাকে অনেকেই চাপ সরানোর কৌশল মনে করছেন। অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, পাওলো দিবালার ইনজুরি নিয়ে কিছুটা দুশ্চিন্তা থাকলেও সেটা বড় কিছু নয়। অধিনায়ক মেসিও গোড়ালির ইনজুরি থেকে পুরোপুরি সুস্থ। তাই আজ সেরা দলটা বাছাই করে নিতে পারবেন কোচ লিওনেল স্কালোনি।

আগামী ২২ নভেম্বর সৌদি আরবের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে এবারের বিশ্বকাপ মিশন শুরু হবে আর্জেন্টিনার। গ্রুপ ‌‌‌‘সি’তে তাদের বাকি দুই প্রতিপক্ষ পোল্যান্ড ও মেক্সিকো।


আরও খবর



মাতৃভাষা দিবসে ইবি সিআরসির উদ্যোগে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৩১জন দেখেছেন

Image
সাব্বির খান,ইবি প্রতিনিধি:ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কাম ফর রোড চাইল্ড (সি আর সি) বিশ্ববিদ্যালয় শাখা স্কুলের উদ্যোগে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার বেদিতে এ অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানটি সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের ইমদাদুল হকের সঞ্চালনায় প্রথমে জাতীয় সংগীত তারপর চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা শুরু হয়। 

এই সময় উপস্থিত ছিলেন সিআরসি স্কুলের সিনিয়র শিক্ষক আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, সাব্বির খান, নবীন শিক্ষক সাঈফুদ্দিনসহ সংগঠনটির  সদস্য আখি আলমগীর, লাময়া, কেয়া প্রমুখ।

নবীন সদস্য আখি আলমগীর তার বক্তব্যে  শিশুদের সাসনে ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব ও তাৎপর্য তুলে ধরেন। নবীন শিক্ষক সাঈফুদ্দিন ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব বুঝাতে গিয়ে বলেন পৃথিবীর বুকে একমাত্র দেশ! যে দেশটি ভাষার জন্য রক্ত দিয়েছে সেটা হচ্ছে আমাদের বাংলাদেশ, তাই আমাদের উচিত ভাষাকে রক্ষা করা।

সংগঠনটির সভাপতি শাহীদ কাওসার তার বক্তব্য বলেন, 'একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের অনুপ্রেরণা। এই অনুপ্রেরণা আগামী প্রজন্মের মাঝে বাঁচিয়ে রাখার জন্য সি আর সি সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের মাঝে এই দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরার জন্যই চিত্রাঙ্গন প্রতিযোগিতার আয়োজন। এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে শিশুরা ভাষা আন্দোলনের গুরুত্ব হাতে কলমে শিখতে পারবে। তিনি আশাবাদী বাংলাদেশের  সুন্দর ভবিষ্যতের জন্য সি আর সি ইবি শাখা  অগ্রণী ভূমিকা পালন করবে।

আরও খবর



সরকারি চাকরিতে ৫ লাখের বেশি শূন্যপদ

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:৫ লাখ ৩ হাজার ৩৩৩টি সরকারের সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তর ও দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শূন্যপদ রয়েছে।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দ্বাদশ জাতীয় সংসদ অধিবেশনে নোয়াখালী-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. মামুনুর রশীদ কিরণের এক প্রশ্নের লিখিত উত্তরে জনপ্রশাসনমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন এ তথ্য জানান। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী সংসদ অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রী বলেন, জনপ্রশাসন থেকে সর্বশেষ প্রকাশিত স্ট্যাটিসটিকস অব গভর্নমেন্ট সার্ভেন্ট-২০২২ মোতাবেক সব মন্ত্রণালয়, বিভাগ, অধিদপ্তর ও দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পদের বিপরীতে ৫ লাখ ৩ হাজার ৩৩৩টি শূন্যপদ রয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারের শূন্যপদ পূরণ একটি চলমান প্রক্রিয়া। শূন্যপদসমূহ পূরণে সুনির্দিষ্ট বিধি মোতাবেক পদ পূরণের নিয়মিত কার্যক্রম চলমান রয়েছে। বিভিন্ন মন্ত্রণালয়-বিভাগ এবং এর অধীন দপ্তর-সংস্থাসমূহের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে সরকারি কর্মকমিশনের মাধ্যমে নবম (পূর্বতন প্রথম শ্রেণি) ও ১০ থেকে ১২ গ্রেডের (পূর্বতন দ্বিতীয় শ্রেণি) শূন্যপদে জনবল নিয়োগ করা হয়ে থাকে।

মন্ত্রী জানান, রুলস অব বিজনেস, ১৯৯৬ এর রুল ২৫ (১) অনুযায়ী প্রণীত মন্ত্রণালয়-বিভাগগুলোর ২০২৩ সালের নভেম্বর মাসের কার্যাবলী সম্পর্কিত মাসিক প্রতিবেদনে প্রধানমন্ত্রী সরকারের শূন্যপদ পূরণে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে সুপারিশ অনুমোদন করেছেন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রী বলেন, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগে এটি পাঠানো হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক মন্ত্রণালয়-বিভাগসমূহে নিয়োগ কার্যক্রম চলমান রয়েছে।


আরও খবর



উলিপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image
কুড়িগ্রাম ব্যুরো চিফ:কুড়িগ্রামের উলিপুরে দুই দিনব্যাপী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠান উপজেলা পরিষদ চত্বরে  অনুষ্ঠিত হয়েছে l সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উলিপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম হোসেন মন্টু l

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আতাউর রহমান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মুহাম্মদ মাহতাব হোসেন, উলিপুর এমএস স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সরদার ও গুনাইগাছ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আলম l

এবারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য ১৫ টি স্টল বরাদ্দ দেয়া হয় l
৮ম বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতায় সিনিয়র গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকার করে উলিপুর এমএস স্কুল এন্ড কলেজ এর শিক্ষার্থীরা এবং জুনিয়র গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকার করে এনএস আমিন রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এর শিক্ষার্থীরা l

কলেজ পর্যায়ে উলিপুর আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ১ম স্থান অধিকার করে l 
এছাড়াও একক কুইজ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করায় বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়েছে l 

আরও খবর



রৌমারী-রাজিবপুরে ফসল উৎপাদন করে স্বাবলম্বী চরাঞ্চলের কৃষকরা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

রৌমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামের রৌমারী- চর রাজিবপুরের চরাঞ্চলে ১২ মিশালী ফসল উৎপাদনে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। রৌমারী সাধারণত নদ-নদী খাল বিল হাওর বাওরে পরিপুর্ণ। উপজেলার পশ্চিম অংশে বন্দবেড় ইউনিয়ন ও যাদুরচর ইউনিয়নের ব্র্ধসঢ়;ক্ষপুত্র নদের ভাঙ্গনের তান্ডবে একূল ভেঙ্গে ওকুল গড়া চরে কৃষক মেতেছে নানা জাতের ফসল চাষে। প্রতি বছর বন্যায় নদীর বুকে জেগে উঠা চর কোথাও বালির স্তুপ, আবার কোথাও জেগে উঠা চরে পলি মাটির স্থর কৃষককে হাত ছানি দেয় ফসল ফলাতে।

চরের বুকে বসবাসরত কৃষক বেচেঁ থাকার তাগিদে রবিশস্য উৎপাদনে মনোনিবেশ করেন। সরেজমিনে দেখা গেছে, চরের বুক জুড়ে স্থরে স্থরে সরিষা, ভূট্রা, গম, বাদাম, তিষি, মিষ্টি আলু, মশুর ডাল, মুগডাল, মাসকলাই, খেসারী কলাই, পিয়াজ, রসুন, মরিচ, ধনিয়া, বেগুনসহ নানা ধরনের ফসল চাষ করছে। এঅঞ্চলের মানুষের তরকারীর চাহিদা অনেকটা চরের মানুষের উৎপাদিত ফসল থেকে চাহিদা পূরণ হয়ে থাকে। সময়ের সাথে সাথে ফসল উৎপাদনে অনেকটা পরিবর্তণ দেখা দিয়েছে।

একসময় রৌমারীর গোটা এলাকা জুড়ে একই ধরনের ফসল উৎপাদন হতো। কিন্ত আধুনিকতার ছোওয়ায় বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে উন্নত জাতের স্বল্প সময়ে উচ্চ ফলনশীল জাতের নানা জাতের নানা নামীয় ইড়ি-বোর ধানের চাষ শুরু হয়েছে। যারফলে মাটির প্রকার ভেদে কাদা ও দোআশঁ মাটিতে ইড়ি-বোর ও চরাঞ্চলীয় বালি মাটিতে রবিশশ্য চাষ হচ্ছে।

এবিষয়ে রৌমারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আব্দুল কায়ুম চৌধুরী বলেন, রৌমারী’র চরাঞ্চলের জমি এখন আর পতিত নেই। জেগে উঠা চরে কৃষক সময় উপযোগী ফসল চাষ করে স্বচ্ছতা ফিরিয়ে আনছে।

তবে এঅঞ্চলের মানুষের প্রধান সমস্যা ব্রক্ষপুত্র নদীর ভাঙ্গন। চরের কৃষককে বাচাতে নদী ভাঙ্গন রোধ অত্যান্ত জরুরী। এনিয়ে ওই অঞ্চলের কৃষকের সাথে কথা বললে তারা আক্ষেপ করে বলেন , আমরাতো সরকারের আওতাভূক্ত নই , কারণ যুগযুগ ধরে আমরা নদী ভাঙ্গনের শিকার জমিজিরাত বসত ভিটা হারিয়ে নিঃষ হয়ে পড়েছি কেই আমাদের খোজ রাখেনি। মরা চরের বুক জুড়ে যুদ্ধ করে বেচে আছি নানা জাতের ফসল উৎপাদন করে।

এবিষয় রৌমারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কাইয়ুম চৌধরী জানায় চরাঞ্চলের কৃষকদের সবসময়ই সহযোগিতা করা হচ্ছে। এবংকি চরাঞ্চলে এখন আর চর নেই সবধরনের ফসল ফলিয়ে স্বাবলম্বী চরের কৃষকরা।


আরও খবর



বই পড়ার বিকল্প নেই জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনে: রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন, জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনে বই পড়ার বিকল্প নেই। অমর একুশে বইমেলা বাঙালি সংস্কৃতির অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। বইমেলা আমাদের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ইতিহাস-ঐতিহ্যের বিকাশে একটি অন্যতম অনুষঙ্গ।

বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) অমর একুশে বইমেলা উপলক্ষে দেওয়া বুধবার (৩১ জানুয়ারি) দেওয়া এক বাণীতে তিনি এসব কথা বলেন।

রাষ্ট্রপতি বলেন, অমর একুশে বইমেলা বাঙালির প্রাণের মেলা। প্রতিবছর ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে বাংলা একাডেমি আয়োজিত এ বইমেলা লেখক-পাঠক-সংস্কৃতিকর্মীসহ সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের অংশগ্রহণে হয়ে ওঠে এক অনন্য মিলনমেলা। তথ্যপ্রযুক্তির বর্তমান যুগে নতুন প্রজন্মকে বইপড়া ও সাহিত্য চর্চায় উদ্বুদ্ধ করতে মাসব্যাপী বইমেলা ও ভাষাচর্চার এই আয়োজন কার্যকর অবদান রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।

তিনি বলেন, বাংলা একাডেমি বাঙালির সাহিত্য-সংস্কৃতির পাদপীঠ হিসেবে মহান ভাষা আন্দোলনের স্মৃতিকে নানানভাবে ধারণ করে আছে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে বাংলা একাডেমি বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতির উৎকর্ষ সাধনে নিরবচ্ছিন্ন ভূমিকা পালন করছে। আশা করি ভাষা শহীদদের রক্তস্নাত পথ ধরে গড়ে ওঠা বাংলা একাডেমি বাংলা ভাষাভাষী মানুষের প্রাণের প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে। বাঙালির প্রাণের এই মেলা বই কেনার পাশাপাশি আলোচনা সভা, সংগীতানুষ্ঠান, প্রদর্শনী, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সবার মাঝে ছড়িয়ে দেবে সংস্কৃতির অমিয় সুধা।

মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে সৃজনশীল ও মননশীল লেখকদের বিকাশ ও অধিকার সুরক্ষার ক্ষেত্র হিসেবে অমর একুশে বইমেলা এক অবিকল্প আয়োজন। ‘অমর একুশে বইমেলা’ মহান ভাষা আন্দোলনের চেতনাকে সমুজ্জ্বল রেখে বাংলা ভাষা, সংস্কৃতি, ইতিহাস ও ঐতিহ্যের ধারক-বাহক হয়ে উঠবে- এ আমার দৃঢ় বিশ্বাস।


আরও খবর