Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের সকল গাছ অপসারণের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত:শনিবার ০১ এপ্রিল ২০২৩ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৭৫জন দেখেছেন

Image

ইয়ানূর রহমান স্টাফ রিপোর্টার : যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের দুপাশে অবস্হিত মানুষের জান ও
মালের জন্য হুমকিস্বরূপ সকল ধরনের গাছ অপসারণের দাবিতে নাগরিক অধিকার আন্দোলন যশোর-এর ব্যানারে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

যশোর প্রেসক্লাবের সামনে শনিবার (১ এপ্রিল) বেলা এগারটায় ঘন্টা ব্যাপী অনুষ্ঠিত এই মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ ভারত যৌথ বানিজ্য কমিটির পরিচালক, সারথি এন্টারপ্রাইজের সিইও মতিয়ার রহমান।

মানববন্ধনে বক্তারা বাংলাদেশের সর্ব বৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলের সাথে সংযোগকারী, প্রস্তাবিত এশিয়ান হাইওয়ে অংশ যশোর বেনাপোল মহাসড়কের দুপাশে অবস্হিত ২০০ বছরের পুরনো, জরাজীর্ণ সকল গাছ অপসারণ করে সড়কটি ৬লেনে উন্নীত করতে হবে। পদ্মা সেতুর পুর্নাঙ্গ সুফল পেতে হলে ভাঙ্গা থেকে বেনাপোল পর্যন্ত রাস্তা ৬ লেন করার কোনো বিকল্প b।

নাগরিক অধিকার আন্দোলনের কার্যকরী কমিটির সদস্য আহসানউল্লাহ ময়নার সঞ্চালনায় উক্ত মানববন্ধন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন দৈনিক কল্যাণ পত্রিকার সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা একরাম উদ দৌলা, যশোর সড়ক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি বিশ্বনাথ ঘোষ, সেবা সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি এবং ঝিকরগাছা রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি মাস্টার আশরাফুজ্জামান বাবু, যশোর হ্যাচারী মালিক সমিতির সেক্রেটারি জাহিদ গোলদার, নাগরিক অধিকার আন্দোলন
যশোর এর সমন্বয়ক মাসুদুজ্জামান মিঠু, কার্যকরী সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মোবাশ্বের হোসেন বাবু ডাক্তার আব্দুল্লাহ, রাঙা প্রভাত সংগঠনের উপদেষ্টা শরিফ মাসুদ হিমেল প্রমুখ।

এছাড়াও উক্ত মানববন্ধন অনুষ্ঠানে সাবেক অধ্যক্ষ বোরহানুস সুলতান, সাবেক ব্যাংকার বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজী সেলিম, মেরিন ইঞ্জিনিয়ার নাজমুল আরেফিন, মহিলা কাউন্সিলর তসলিমা ইসলাম লিপা, যশোর শহর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হক শাহিন আলম, সেবা সংগঠন এর সাংগঠনিক সম্পাদক এবং ঝিকরগাছা রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন চাঁদ, নারী নেত্রী শিমু চৌধুরী, সেবার সদস্য শাহাবুদ্দিন, মাসুম, সোহেল, রায়হান, আব্দুল জব্বার, সাদ্দাম হোসেন, আসাদুলসহ যশোরের সর্বস্তরের জনগণ উপস্থিত
ছিলেন।


আরও খবর



রাজধানীর ১৮টি ওয়ার্ড ডেঙ্গুর উচ্চ ঝুঁকিতে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৩৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাজধানীর দুই সিটির ১৮টি ওয়ার্ডে ডেঙ্গুর উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালক অধ্যাপক ডা. শেখ দাউদ আদনান।

মঙ্গলবার (২৮ মে) সকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আয়োজিত মৌসুম পূর্ব এডিস সার্ভে-২০২৪ এর ফলাফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে জরিপের তথ্য উপস্থাপন করা হয়।

কর্মশালায় জরিপের ফলাফল ঘোষণায় শেখ দাউদ আদনান বলেন, রাজধানীর দুই সিটির ১৮টি ওয়ার্ডে ডেঙ্গুর উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। ঢাকার দুই সিটির ৯৯টি ওয়ার্ডের ৩ হাজার ১৪৯টি বাসায় জরিপ চালিয়ে দেখা যায়, শতকরা ১৫ শতাংশ বাড়িতে এডিসের লার্ভা ও পিউপার উপস্থিতি পাওয়া গেছে। মিরপুর, বনানী, নিকেতন, হাতিরঝিল, মোহাম্মদপুর, খিলক্ষেত, মালিবাগসহ গতবারের ঝুঁকিপূর্ণ ওয়ার্ডগুলোই সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। এডিসের ঘনত্ব সর্বোচ্চ ৪২ দশমিক ৩৩ শতাংশ পাওয়া গেছে বহুতল ভবনে। এরপরই স্বতন্ত্র বাড়ি ও নির্মাণাধীন ভবনে লার্ভার হার ২১ দশমিক ৬ শতাংশ। এছাড়াও ঢাকা দক্ষিণের ১৬ দশমিক ৩৯ শতাংশ এবং ঢাকা দক্ষিণের ১৪ দশমিক ৩০ শতাংশ পরিত্যক্ত পাত্রে মশার লার্ভা পাওয়া গেছে।

ঝুঁকিপূর্ণ ওয়ার্ডগুলোর মধ্যে রয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ১২, ১৩, ২০, ৩৬, ৩১, ৩২, ১৭ ও ৩৩ নম্বর এবং দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৩, ০৪, ৫২,৫৪, ১৬, ৩০, ০৫, ১৫, ১৭ ও ২৩ নম্বর ওয়ার্ড। ২০১৯ সাল থেকে ২০২৪ পর্যন্ত মৌসুম পূর্ব জরিপে উভয় সিটি করপোরেশনেই এডিসের লার্ভার উপস্থিতি বেড়েছে। তাই লক্ষণ প্রকাশপেলেই সময় নষ্ট না করে হাসপাতালে আসার আহ্বান জানান তিনি।

কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইমেরিটাস অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল্লাহ বলেন, সারা দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে ডেঙ্গু ছড়িয়ে পড়েছে। এই রোগের সুনির্দিষ্ট কোনো চিকিৎসা নেই। রোগীর লক্ষণের ওপর ভিত্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তাই সবাইকে সচেতন হতে হবে রোগটি যেন না হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত সারা দেশে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে প্রায় পৌনে ৩ হাজার মানুষ। এই সময়ে রোগটিতে মৃত্যু হয়েছে ৩৪ জনের। যেখানে গত বছরের ২৭ মে পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছিল ১৭০৪ জন এবং মৃত্যু হয়েছিল ১৩ জনের। এই পরিসংখ্যানই বলছে এবারের ডেঙ্গু কতটা ভয়াবহ রূপ নিতে পারে।

এবিএম খুরশীদ আলম বলেন, পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, অনেকেই মনে করেন ঢাকায় ভালো চিকিৎসা পাওয়া সম্ভব। তাই জেলা বা উপজেলা হাসপাতাল থেকে তারা ঢাকার উদ্দেশে রওনা করেন। দীর্ঘ যাত্রা পথে শরীরে জটিলতা সৃষ্টি হয় এবং পথেই মৃত্যু বরণ করেন।

মহাপরিচালক বলেন, ডেঙ্গুতে যেন মৃত্যু না হয় সে জন্য আমরা দেশের সব হাসপাতাল প্রস্তুত রাখতে নির্দেশ দিয়েছি। প্রয়োজনীয় স্যালাইন ও আনুষঙ্গিকের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি প্রাণহানি এড়াতে বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসকদের সমন্বিত চিকিৎসার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

উপস্থিত ছিলেন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীর, রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার কর্মসূচি ব্যবস্থাপক ডা. এম এম আক্তুরুজ্জামান প্রমুখ।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




আত্রাইয়ে অনুষ্ঠিত ভোট নিয়ে অভিযোগ; সংবাদ সন্মেলনে চাইলেন প্রতিকার

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৬৫জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি:নওগাঁর আত্রাইয়ে অনুষ্ঠিত ৬ষ্ঠ উপজেলা পরিষদ ৩য় ধাপের অনুষ্ঠিত নির্বাচন নিয়ে একধিক অভিযোগ তুলেছেন আফছার আলী প্রামানিক নামে এক ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী। তিনি ওই নির্বাচনে তালা প্রতিকে নির্বাচন করেছেন। তার অভিযোগ ভোট গণনায় অনিয়ম করা হয়েছে। এমন অভিযোগে শুক্রবার (৩১ মে) সকালে আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ভূক্তভোগী আফছার আলী প্রামানিক তার নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অফিসে সংবাদ সম্মেলন করেন। এছাড়া এর আগে প্রতিকার চেয়ে তিনি গত বৃহস্পতিবার (৩০ মে) আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও নির্বাহী অফিসার বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন। 

সংবাদ সম্মেলনে প্রার্থী আফছার আলী দাবি করে বলেন, গত ২৯মে আত্রাই উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ওই নির্বাচনে উপজেলার জনগণ স্বত:স্ফূর্ত ভাবে আমাকে ভোট প্রদান করেছেন। কিন্তু ৬৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ছয়টি কেন্দ্রে ভোট গণনায় তার প্রতি চরম অন্যায় এবং অবিচার করা হয়েছে। তিনি বলেন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় তিন হাজার ৮১০ভোট বাতিল করা হয়েছে। এছাড়া চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যায় এবং শতকরা হারে গড়মিল রয়েছে। তিনি বলেন, একজন ভোটার যখন ভোট দিতে যায় তখন তাকে তিনটি পদে তিনটি ব্যালট পেপার দেয়া হয়। এতে তিনটি পদেই প্রদেয় ভোটের সংখ্যা একই রকম হওয়ার কথা। অথচ উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার ঘোষিত প্রাথমিক বেসরকারী ফলাফল সিটে চেয়ারম্যান পদে প্রদেয় ভোটের সংখ্যা ৭৩হাজার ২৪৮, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৩১এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭৩হাজার ২৬৮প্রদেয় ভোট দেখানো হয়েছে। এতে কোনো পদের সাথে কোনো পদের প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যার মিল নেই। যা অনিয়মের নজির। তিনি বলেন, ঘোষিত বেসরকারী ফলাফলে নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজুল শেখ এর ভোট দেখানো হয়েছে ৩৩হাজার ৫১৮এবং নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আমাকে তালা প্রতিকে দেখানো হয়েছে ৩২হাজার ২৭৪ভোট। এতে ভোটের ব্যবধান দেখানো হয়েছে এক হাজার ২৪৪ভোট।অথচ বাতিল ভোটের সংখ্যা দেখানো  হয়েছে তিন হাজার ৮১০ভোট। তিনি দাবি করে বলেন,আমাকে সুকৌশলে অনিয়ম করে হারানো হয়েছে। মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ৬টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনা করলে আমিই জয়লাভ করব। এঘটনায় মোট বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ছয়টি কেন্দ্রের ভোট পুনরায় গণনার দাবিতে বৃহস্পতিবার বিকেলে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত আবেদন করেছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে আত্রাই উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য স্বপন কুমার সাহা, আত্রাই উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক রাফিউল ইসলাম, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম, সাবেক ছাত্র নেতা আমানুল্লাহ ফারুক বাচ্চু, পাঁচুপুর ইউনিয়ন সেচ্ছা সেবকলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শাকিল হোসেন, সমাজ সেবক রতন প্রামানিকসহ দলীয় নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।

এব্যাপারে আত্রাই উপজেলা সহকারী রিটার্নিং ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সঞ্চিতা বিশ্বাস বলেন, ভোটে বা ভোট গণনায় কোন অনিয়ম হয়নি। প্রদেয় ভোটের যে ব্যবধান রয়েছে তা অনেক কারনে এমনটি হতে পারে। এছাড়া বাতিলকৃত ভোট বাছাইপূর্বক এবং ভোট পুনরায় গণনার দাবি জানিয়ে আফছার আলী প্রামানিক যে লিখিত আবেদন করেছিলেন তা আমাদের এখতিয়ার ভুক্ত না হওয়ায় তাকে নির্বাচন কমিশন বরাবর আফিল বা আবেদন দিতে বলেছি।


আরও খবর



উপজেলা নির্বাচনে জামানত হারান ৪ চেয়ারম্যান প্রার্থী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ মে 20২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৮৫জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাচনে জামানত হারালেন চার চেয়ারম্যান প্রার্থী। ২১ মে ভোটগ্রহণ শেষে ফলাফল পর্যালোচনায় জামানত হারানোর বিষয়টি বেরিয়ে আসে।

ফলাফলে দেখা গেছে, সৈয়দপুর উপজেলায় মোট ভোটার ছিলেন দুই লাখ ১৭ হাজার ৯৯৬ জন। এদের মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৬৯ হাজার ২২ জন। শতকরা হিসেবে ভোট প্রদানের হার ৩১.৬৬ ভাগ। 

নির্বাচন কমিশনের বিধি অনুযায়ী জামানত রক্ষা করতে হলে শতকরা ১৫ ভাগ ভোট পেতে হবে প্রার্থীকে। সে হিসেবে সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীদের কমপক্ষে ১০ হাজার ৩৫৩ ভোট পেতে হবে। কিন্তু ওই চার প্রার্থী জামানত রক্ষা করার ভোট ও পাননি।

যারা জামানত হারিয়েছেন তারা হলেন-।জাতীয় পার্টি নেতা আলহাজ্ব জয়নাল আবেদীন (প্রাপ্ত ভোট ৫০৩২)। বিআরবি চেয়ারম্যান মহসিন আলী রুবেল পেয়েছেন( ৭০৭) ভোট জাতীয় পার্টি নেতা ফয়সাল দিদার দিপু (প্রাপ্ত ভোট ১৮৬৮) এবং সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মোস্তফা ফিরোজ পেয়েছেন ৯৩৮২ ভোট। তবে ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা তাদের জামানত রক্ষা করতে পেরেছেন।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো.  আব্দুল কুদ্দুস সরকার নির্বাচন কমিশনের বিধি অনুযায়ী ভোট না পাওয়ায় ওইসব প্রার্থীদের জামানত বাজেয়াপ্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

আরও খবর



"সাংবাদিককে চিঠি" রিটার্নিং কর্মকর্তা অভিযুক্ত প্রার্থীর বেলায় নীরব আচরণ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image

রাসেল হোসেন নিরব(পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃপটুয়াখালীর দুমকিতে এমপির দেয়া প্যারাডো গাড়ীতে চড়ে মোটর  সাইকেল মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী ড. হারুণ অর রশীদ হাওলাদারের নির্বাচনী প্রচারণায় আচরণ বিধি লঙ্ঘণে পদক্ষেপ গ্রহণের পরিবর্তে প্রকাশিত সংবাদের প্রমাণক চেয়েছে প্রশাসন।

পটুয়াখালীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং অফিসার যাদব সরকার গত বৃহস্পতিবার দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার দুমকি উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ দেলোয়ার হোসেনকে এক চিঠিতে প্রকাশিত সংবাদের প্রমাণক দাখিলের নির্দেন দেন।

উল্লেখ্য, পটুয়াখালী-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদারের ভাগ্নে দুমকি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মোটর সাইকেল প্রতীকের চেয়ারপ্রার্থী ড. হারুন অর রশীদ হাওলাদারের পক্ষে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে প্রকাশ্যে তিনি (এমপি) ভোট চান। এমনকি তার ব্যবহৃত (ঢাকা মেট্রো-ঘ ১৩-৪৩১২) নম্বরের প্যারাডো গাড়ীটিও তাকে নির্বাচনী প্রচারের জন্য দিয়ে দেন। বিআরটিএ তথ্যমতে গাড়ীটি নীলফামারী-৪ আসনের প্রায়াত এমপি লেঃকর্ণেল মারুফ সাকলাইনের নামে নিবন্ধিত। একজন প্রায়াত সংসদ সদস্যের নামে নিবন্ধিত গাড়ীটি কিভাবে পটুয়াখালী-১ আসনের সাংসদ এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার ও তার পরিবারবর্গ গত ৬ মাস ধরে ব্যবহার করছেন এবং একই গাড়ীটি মোটর সাইকেল মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশীদ হাওলাদারের নির্বাচনী প্রচারণায় কেন ব্যবহার করছেন এ তথ্য অনুসন্ধানের পরিবর্তে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রমাণক চেয়ে উল্টো সংশ্লিষ্ট সাংবাদিককে চিঠি দেয়া হয়। 

এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা যাদব সরকারের বক্তব্য জানতে চাইলে উল্টো তিনি প্রমাণক চান। দ্রুত প্রমাণক চাইতে গিয়ে নাম বাদ দিয়ে শুধু ফোন নাম্বার দিয়ে চিঠি দেয়া হয়। যদিও পরে আবার সংশোধন করা হয়।

রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিক দেলোয়ার জানান, গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে ঘটনার পূর্বাপর বিশ্লেষণ করে জনগণ ও প্রশাসনকে সর্তক করাই তার কাজ এবং একই সঙ্গে ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে তিনি জেলা রিটার্নিং অফিসারকে অনুরোধ করেন।

তা না করলে জনমনে যে প্রশ্নের জন্ম হয়েছে তা নিরসন হবে না, একই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুষ্ঠু উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের যে অঙ্গীকার তাও ব্যাহত হবে।

সংসদ সদস্যের গাড়ি ব্যবহার প্রসঙ্গে হারুন হাওলাদারের কাছে কোনো চিঠি দিয়েছেন কীনা এমন তথ্য জানতে ফোন দেয়া হলেও সাংবাদিক পরিচয় শুনলেই তিনি ফোন কেটে দিচ্ছেন। 

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও পটুয়াখালীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) যাদব সরকারের এমন কর্মকাণ্ডে হতবাক গণমাধ্যম কর্মীসহ দুমকীর সচেতন মহল। এম


আরও খবর



নীলফামারীর ডিমলায় শিশু ধর্ষন মামলার আসামী গ্রেফতার

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৫১জন দেখেছেন

Image

আবু মোতালেব হোসেন (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃনীলফামারীর ডিমলায় আলোতিচ (০৮) শিশু ধর্ষন মামলার আসামী ২৩ দিন পর রোববার সকালে জেলার সৈয়দপুর উপজেলার বিমানবন্দর এলাকা হতে র‌্যাব-১৩ এর একটি চৌকস টিম আসামী মমিনুর রহমান (২৮) কে গ্রেফতার করে। পরবর্তিতে আইনি পদক্ষেপ গ্রহনের জন্য ডিমলা থানার (ওসি) দেবাশিষ রায় এর নিকট আসামীকে হস্তান্তর করা হয়। 

ঘটনার বিবরনে জানাযায়, গত (১৭ই মে) ২০২৪ইং উপজেলার টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের দক্ষিন খড়িবাড়ী (মাষ্টারপাড়া) গ্রামের সোহেল রানা ওরফে মিলনের (০৮) বছরের নাবালিকা শিশুকন্যা ও পন্ডিতপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেনীর ছাত্রীকে একই এলাকার আতোয়ার রহমানের বিবাহিত ছেলে এক সন্তানের জনক মোঃ মমিনুর রহমান (২৮) জোর পূর্বক ধর্ষন করে। 

পরবর্তিতে উপস্থিত লোকজন ধর্ষিতা শিশু কন্যাটিকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ডিমলা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে। গুরুত্বর জখমী অবস্থায় উন্নত চিকিৎসার জন্য নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

এ ব্যাপারে ধর্ষিতার চিকিৎসা কাজে ব্যস্ত থাকায় দুইদিন পর শিশুকন্যাটির পিতা সোহেল রানা ওরফে মিলন মোঃ মমিনুর রহমানকে আসামী করে ডিমলা থানার মামলা নং-২০, তারিখঃ১৯/০৫/২০২৪ইং দায়ের করেন। পরবর্তিতে আসামী মমিনুর গ্রেফতার এড়াতে গা ঢাকা দেয়।

ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) দেবাশীষ রায় বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে এজাহারের নামীয় আসামী মমিনুর রহমানকে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে র‌্যাব ১৩ এর একটি চৌকস টিম জেলার সৈয়দপুর উপজেলার বিমানবন্দর এলাকা হতে তাকে গ্রেফতার করে।


আরও খবর