Logo
আজঃ শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

যমুনা নদীতে নিখোঁজের ৩দিন পর বাঁধ নির্মাণ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার

প্রকাশিত:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪ | ২০৬জন দেখেছেন

Image

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি:সিরাজগঞ্জের চৌহালীতে যমুনা নদীর তীর রক্ষার বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পের কাজ করতে গিয়ে নৌকা থেকে পড়ে নিখোঁজের ৩ দিন পর শ্রমিক আকোব্বর আলী (৬০) লাশ উদ্ধার করেছে চৌহালী নৌ পুলিশ।

রবিবার (১৯ নভেম্বর) বিকেল ৩টার দিকে উপজেলার জনতা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন যমুনা নদীতে লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা। পরে স্বজন ও নৌ পুলিশকে খবর দিলে তারা লাশ উদ্ধার করে। 

শ্রমিক আকোব্বর আলী কুষ্টিয়া জেলার খোকশা উপজেলার কোমরভোগ গ্রামের মৃত কাছেদ আলীর ছেলে।

গত বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) উপজেলার জোতপাড়া এলাকায় বিকেলে যমুনায় নৌকা ঘোরানোর সময় হালের বাড়ি লেগে নদীতে পড়ে নিখোঁজ হয় তিনি। নিখোঁজের পর ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল উদ্ধার অভিযান চালায়। দুইদিনেও খুঁজে না পাওয়ায় উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত করেন। 

এ বিষয়ে চৌহালী নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সামছুল হক বলেন, জোতপাড়া এলাকায় বাঁধের কাজ করতে আসা এক শ্রমিক নৌকা থেকে পড়ে গত তিন দিন আগে নিখোঁজ হয়। আজ বিকেলে জনতা উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন যমুনা নদীতে লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা। পরে আমাদের খবর দিলে আমরা গিয়ে উদ্ধার করি।

আরও খবর



ফুলবাড়ীতে খ্রীষ্টিয়ান এসোসিয়েশনের মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত:রবিবার ৩০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১২৪জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে সংবাদ সম্মেলনের নামে খ্রীষ্টিয়ান ধর্মাবলম্বীর সাঁওতালদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত ও অপপ্রচারের প্রতিবাদে বাংলাদেশ খ্রীষ্টিয়ান এসোসিয়েশনের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচি পালনসহ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 

শনিবার সকাল ১০ টায় উপজেলা পরিষদ রোডস্থ ফুলবাড়ী প্রেসক্লাবের সম্মুখে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন খ্রীষ্টিয়ান ধর্মাবলম্বীর বিভিন্ন বয়সী সাঁওতাল নারী-পুরুষ। 

মানবন্ধন কর্মসূচি চলাকালে বক্তব্য রাখেন উপজেলা শাখা বাংলাদেশ খ্রীষ্টিয়ান এসোসিয়েশনের সভাপতি সভাপতি সলোমন মারন্ডী, সাধারণ সম্পাদক সোম কিস্কু, সহ-সাধারণ সম্পাদক যহন টুডুু, সদস্য জুসিপিনা মার্ডী, ফ্রান্সিলিয়া মুর্মু, উপদেষ্টা ফাদার জসিম মুর্মু, কমল কিস্কু, রিন্টু সরেন, কমল হেম্বম প্রমুখ।

মানববন্ধন শেষে বেলা ১১ টায় প্রেসক্লাব সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে খ্রীষ্টিয়ান ধর্মাবলম্বীর সাঁওতালদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত ও অপপ্রচারের প্রতিবাদে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কমল কিস্কু। এসময় অর্ধশত সাঁওতাল নারী পুরুষসহ গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

লিখিত বক্তব্যে কমল কিস্কু বলেন, গত ৭ জুন সারি ধর্ম সংগঠনের ফুলবাড়ী প্রেসক্লাব সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনের নামে খ্রীষ্টিয়ান সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে যে অপপ্রচার করা হয়েছে তার বিরুদ্ধে খ্রীষ্টিয়ান সম্প্রদায় ও খ্রীষ্টিয়ান এসোসিয়েশন প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছে। সে সংবাদ সম্মেলনে পাঠকৃত বক্তব্য সাঁওতালদের নিয়ে মিথ্যা, বানোয়াট ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মনগড়া কাল্পনিক ঘটনার কথা। শুধুমাত্র সাঁওতাদেরকে সামাজিকভাবে বিভ্রান্তি সৃষ্টি ও হেয়প্রতিপন্ন করার উদ্দ্যেশে করা হয়েছে সংবাদ সম্মেলনটি। সেখানে বলা হয়েছিল, ‘সাঁওতাল জাতি যদি খ্রীষ্টিয়ান ধর্ম পালন বা গ্রহণ করে তাহলে তাদের জাতীয়তা বিলুপ্ত হয়ে যায় এবং তারা সাঁওতালদের কোনপ্রকার সংস্কৃতি, কৃষ্টিসহ কিছু পালন করতে পারবে না। যারা সাঁওতাল থেকে খ্রীষ্টিয়ান হয়েছে তারা খ্রীষ্টিয়ান জাতিতে রুপান্তর হয়ে যায়।’ আমরা দৃঢ়ভাবে এই যুক্তির প্রতিবাদ জানাচ্ছি যে, সাঁওতাল জাতি খ্রীষ্টিয়ান হলেও; তারা কোনভাবে কোন জাতিতে রূপান্তির হয়না। কারণ খ্রীষ্টিয়ান কোন জাতি নয়, এটি একটি ধর্ম। তাদের বিশ্বাস বা ধর্মের কর্মকা- শুধু পরিবর্তন হয়। তারা বলেছেন, ‘সাঁওতালদের ধর্মের নাম হচ্ছে সারি ধর্ম।’ কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের সাথে বলতে হচ্ছে যে, বাংলাদেশ সরকারের ধর্ম মন্ত্রণালয়ের রেকর্ডে এমন ধর্মের কোন উল্লেখ নেই। প্রাচীনকালে সাঁওতালদের নিজস্ব কোন ধর্ম গ্রন্থ ছিলনা। সাঁওতাল জাতি খ্রীষ্টিয়ান হওয়ার পূর্বে যুগ যুগ ধরে সাঁওতাল সম্প্রদায় প্রকৃতি পূজারী, অন্যদের ধর্ম অনুসরণ করে মূর্তিপূজা, মারাংবুরু, চাঁন্দু বংঙ্গাতে বিশ্বাসী হিসাবে ধর্ম-কর্ম পালন করে আসছেন। কিন্তু সারি ধর্ম বলে কোন ধর্ম ছিলো না।

তিনি বলেন, স্বাধীনতার ৫৪ বছর পর এই ধর্মের আর্বিভাব কোথায় থেকে? পূর্বে যেকোন ধর্ম পালন করুক না কেন, খ্রীষ্টিয়ান হওয়ার পর শুধু সেই ধর্মের কর্মকা-ের পরিবর্তন হয়। যারা আজকে প্রতিবাদ করছে, তারা অবশ্যই কোন না কোন মূর্তি পূজা করছে। তাহলে তাদেরকে কেন হিন্দু জাতিতে রূপান্তরিত করা হচ্ছে না? তাদেরকে কেন হিন্দু সম্প্রদায় স্বীকৃতি দিচ্ছে না? যদি কোন সাঁওতাল সারি ধর্ম পালন করে তাদের যুক্তি অনুযায়ী তারা আর সাঁওতাল জাতি হিসাবে দাবি করতে পারে না। তারা সারি জাতিতে পরিণত হয়। যারা খ্রীষ্টিয়ান ধর্ম নিয়ে সংবাদ সংম্মেলন করছে, তারা পূর্বে কি ধর্ম পালন করতো আমরা জানতে চাই? খ্রীষ্টানদের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ নিয়ে আসা হয়েছে তাতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, খ্রীষ্টিয়ান মিশনারীরা বিভিন্নভাবে লোভ লালসা দিয়ে সাঁওতালদেরকে খ্রীষ্টিয়ান করছে। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ভিত্তিহীন, বানোয়াট ও সাম্প্রদায়িক ধর্ম অনুভূতিতে আঘাতও বটে।

তিনি আরো বলেন, খ্রীষ্টিয়ান মিশনারী ফাদার, পালক, পুরোহিত ও প্রচারকদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে যে, তাদের বিরুদ্ধে যেন রাষ্ট্র ব্যবস্থাগ্রহণ করে। স্বাধীনতার পর যখন দেশ ধ্বংশের দ্বারপ্রান্তে তখন অনেক মিশনারীরা বিভিন্নভাবে জাতিকে, সরকারকে এবং পিছিয়ে পড়া জাতিকে সাহায্য ও সহযোগীতা করছে। তাদের সে সংবাদ সম্মেলন পুরোপুরিভাবে সাঁওতাল জাতির মধ্যে দাঙ্গা লাগানোর প্রচেষ্টা। 

তথাকথিত সারি ধর্ম সংগঠনের কার্যক্রম পর্যালোচনা পূর্বক বিভেদ সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে প্রশাষনিক ব্যবস্থা নিয়ে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্টি (সাঁওতাল) সম্প্রদায়ের জীবনমান রক্ষার্থে প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেন তিনি। 


আরও খবর



স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মানে জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তাদের সম্মিলিত ভাবে কাজ করতে হবে: ধর্মমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ৮৪জন দেখেছেন

Image

লিয়াকত হোসাইন লায়ন,ইসলামপুর(জামালপুর)প্রতিনিধি:ধর্মমন্ত্রী আলহাজ্ব ফরিদুল হক খান দুলাল বলেছেন,জনপ্রতনিধি ও সরকারি কর্মকর্তারাই সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়নের মূল চালিকাশক্তি। জনপ্রতিনিধি ও সরকারি কর্মকর্তারা একসঙ্গে প্রচেষ্টা নিলে যে কোনো কাজ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়। সকলে মিলে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হয়ে কাজ করলে কোন বাঁধা সামনে দাঁড়াতে পারবেনা।  

জামালপুরের ইসলামপুরে শুক্রবার (১২ জুলাই)  উপজেলা প্রশাসন আয়োহনে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল বারী মন্ডল মিলনায়তনে নব নির্বাচিত উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানগন বীরমুক্তিযোদ্ধা,জনপ্রতিনিধি, সরকারি কর্মকর্তা,শিক্ষক, ব্যবসায়ী সংগঠনের প্রতিনিধি  সাংবাদিক, সুধীজন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সাথে মত বিনিময় সভায় এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী আরো বলেন-জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে হলে আমাদের সবাইকে যে যার জায়গা থেকে কাজ করতে হবে। বর্তমান সরকারের সব উন্নয়ন নীতির মূলে রয়েছে সকলের জন্য ন্যয়সংগত কাজের সুযোগ সৃষ্টির প্রয়াস। প্রতিটি সেক্টরে আমরা যাতে সফলভাবে এগিয়ে যেতে পারি সেজন্য প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিরাজুল ইসলামের সভাপতিত্বে এতে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এড. আঃ সালাম,ভাইস চেয়ারম্যান আঃ খালেক আকন্দ,আবিদা সুলতানা যুথীঁ,সহকারী পুলিশ সুপার অভিজিত দাস,সহকারী কমিশনার ভূমি সাঈদ মোহাম্মদ ইব্রাহীম, মুক্তিযোদ্ধা সাবেক কমান্ডার মানিকুল ইসলাম,শাহাদত হোসনে স্বাধীন,অধ্যক্ষ জামাল আবু নাছের চৌধুরী চার্লেছসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর



হিলিতে দেশীয় কাঁচা মরিচের ডাবলসেঞ্চুরি

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ১১৪জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে প্রচুর পরিমান কাঁচা মরিচ আসছে প্রতিদিনই। ভারত থেকে কাঁচা মরিচ আমদানি বাড়লেও দুই দিনের ব্যবধানে হিলিতে দেশীয় কাঁচা মরিচ ডাবলসেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন। 

আমদানিকারকরা বলছেন,বন্দর দিয়ে প্রচুর পরিমান কাঁচা মরিচ আমদানি হওয়ার পরেও কেন দাম বাড়ছে তা আমাদের জানা নেই। এদিকে খুচরা বিক্রেতারা বলছেন,কয়েক দিনের টানা বৃষ্টির কারণে ক্ষেত থেকে কাঁচা মরিচ তুলতে পারছে না কৃষকেরা। একারণে মোকামগুলোতে সরবরাহ কমে যাওয়া দেশীয় কাঁচা মরিচের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। পণ্যটির দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় বিপাকে পড়েছেন ক্রেতা সাধারণ।

আজ বুধবার সকাল ১১ টায় হিলি বাজার ঘুরে দেখা যায়,গেলো সোমবার মানভেদে দেশীয় কাঁচা মরিচ ১৩০ থেকে ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হলেও আজ বুধবার সেই কাঁচা মরিচ কেজিতে ৪০ থেকে ৭০ টাকা বেড়ে ২০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। আর বন্দরে আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ মানভেদে ১৪৫ থেকে ১৬০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

হিলি বাজারে কাঁচা মরিচ কিনতে ফরহাদ হোসেন বলেন, কোরবানী ঈদের পর দেশীয় কাঁচা মরিচ ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি দরে কিনেছি। সেই কাঁচা মরিচ ২০০ টাকা কেজিতে উঠেছে। দাম বেশি হওয়ায় আমি ৫০ টাকা দিয়ে ২৫০ গ্রাম কাঁচা মরিচ নিলাম। 

হিলি বাজারের কাঁচা মরিচ বিক্রেতা শেখ বিপ্লব জানান, টানা কয়েক দিনের বৃষ্টির কারণে ক্ষেত থেকে কাঁচা মরিচ তুলতে পারছেনা কৃষকেরা। ফলে সরববাহ কমে যাওয়ায় মোকামগুলোতে দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। বিগত দিনে তীব্র গরম আর টানা কয়েক দিনের বৃষ্টিতে কাঁচা মরিচের ফুল নষ্ট হয়ে গেছে। তাতে উৎপাদনও অনেক কম হচ্ছে। ফলে বাজারে সরবরাহ কমেছে। এ কারণে মোকামগুলোতে পাইকাররা বেশি দামে কাঁচা মরিচ বিক্রি করছে। আমরা খুচরা ব্যবসায়ীররা পাইকারের কাছ থেকে বেশি দামে কিনে এনেছি। পরিবহন খরচ বাদ দিলে ৪/৫ টাকা লাভ থাকে। এসব কাঁচা মরিচ আমরা বিরামপুর,পাঁচবিবি থেকে কিনে থাকি। তবে এভাবে বৃষ্টি বাড়ে তাহলে কাঁচা মরিচের দাম আরও বৃদ্ধি পাবে। 

তবে ভারত থেকে আমদানিকৃত কাঁচা মরিচ হিলি বাজারে পাওয়া যায়না। আমদানিকারকরা নিজ চালানে দেশের বিভিন্নস্থানে পাঠাচ্ছেন। 

হিলি কাষ্টমস সূত্রে জানা গেছে,২৩ মে থেকে ৪ জুলাই পর্যন্ত  ভারতীয় ১৬৭ টি ট্রাকে ১ হাজার ৬২৫ মেট্রিক টন ২৬ কেজি কাঁচা মরিচ আমদানি হয়েছে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে।


আরও খবর



ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ সমঝোতা স্মারক সই

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ১৪৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের পর ১০টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। যার মধ্যে ৩টি সমঝোতা নবায়ন করা হয়েছে।

শনিবার (২২ জুন) স্থানীয় সময় দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বৈঠকে বসেন শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি। দিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে অনুষ্ঠিত দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে এসব সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়।

‘ডিজিটাল অংশীদারত্ব’ এবং ‘টেকসই ভবিষ্যতের জন্য সবুজ অংশীদারত্ব’ বিষয়ক দুটি সমন্বিত রূপকল্পকে সামনে রেখে কাজ করবে ভারত এবং বাংলাদেশ। এ লক্ষ্যে দুই যৌথ কার্যক্রমের নথি সই করে বাংলাদেশ।

এ দুটি হলো-বাংলাদেশ-ভারত ডিজিটাল অংশীদারত্বের বিষয়ে অভিন্ন লক্ষ্যমাত্রা এবং টেকসই ভবিষ্যতের জন্য বাংলাদেশ-ভারত সবুজ অংশীদারত্বের বিষয়ে অভিন্ন লক্ষ্যমাত্রা বিষয়ক নথি সই।

নতুন পাঁচটি সমঝোতা স্মারক হলো-বঙ্গোপসাগর ও ভারত মহাসাগরের সুনীল অর্থনীতি এবং সমুদ্র সহযোগিতার বিষয়ে দুদেশের মধ্যে সমঝোতা স্মারক; ভারত মহাসাগরের ওশানোগ্রাফির ওপর যৌথ গবেষণা ও দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ে বাংলাদেশের বিওআরআই ও ভারতের সিএসআইআরের মধ্যে সমঝোতা স্মারক; বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে রেল যোগাযোগের ওপর সমঝোতা স্মারক; যৌথ ছোট স্যাটেলাইট প্রকল্পে সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশ সরকারের ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ভারতের ন্যাশনাল স্পেস প্রোমোশন অ্যান্ড অথোরাইজেশন সেন্টারের মধ্যে সমঝোতা স্মারক এবং ডিফেন্স স্টাফ কলেজের মধ্যে একাডেমিক সহযোগিতা বিষয়ে সমঝোতা স্মারক।

নবায়নকৃত তিন সমঝোতা স্মারক হলো-মৎস্যসম্পদ সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতা স্মারক; দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক সমঝোতা স্মারক এবং স্বাস্থ্য ও ওষুধ খাতে সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতা স্মারক।

এর আগে সকাল ৯টায় রাষ্ট্রপতি ভবনে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানে তাকে স্বাগত জানান ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সুসজ্জিত অশ্বারোহী দল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মোটর বহরকে পাহারা দিয়ে রাষ্ট্রপতি ভবনের গেট থেকে ফোরকোর্টে নিয়ে যায়।

এরপর এখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে লাল গালিচা সংবর্ধনা ও গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। এ সময় বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। সশস্ত্র সালাম গ্রহণের পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গার্ড অব অনার পরিদর্শন করেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লাইন অব প্রেজেন্টেশনে দুদেশের মন্ত্রিপরিষদের সদস্য, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিশিষ্ট ব্যক্তিদের পরিচয় করিয়ে দেন।

রাষ্ট্রপতি ভবনের এ কর্মসূচি শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধীর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে রাজঘাট যান। সেখানে তিনি মহাত্মা গান্ধীর সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

পরে শেখ হাসিনা হায়দ্রাবাদ হাউসে যান। সেখানে তিনি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে সৌজন্য স্বাক্ষাৎ ও দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন।


আরও খবর



আজাদের শাস্তির দাবিতে তাহিরপুরের ৬টি স্পষ্টে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪ | ৩৯জন দেখেছেন

Image
জাহাঙ্গীর আলম ভূঁইয়া,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:দীর্ঘদিন ধরে সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে সাধারণ মানুষকে হয়রানি,ভয়ভীতি ও ব্ল্যাকমেইল করে চাদাঁবাজি করার অভিযোগে উপজেলার ৬টি স্পটে মানববন্ধন,প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ মিছিল করা হয়েছে। 

সোমবার(১৫ জুলাই)বিকেলে উপজেলার বাদাঘাট বাজার,তাহিরপুর বাজার, আনোয়ারপুর বাজার, বালিজুরী বাজার,কলাগাও, বড়ছড়া বাজারে পৃথক পৃথক ভাবে তাহিরপুর উপজেলাবাসীর ব্যানারে ঘন্টাব্যাপী এ প্রতিবাদ সমাবেশ বিক্ষুদ্ধ জনতা ঝাড়ু হাতে নিয়ে নানা কুকর্ম তুলে ধরে স্লোগানে স্লোগানে প্রতিটি বাজারের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করা হয়।

অভিযুক্ত ব্যক্তি উপজেলার বাদাঘাট ইউনিয়নের কামড়াবন্দ গ্রামের মৃত বৈদ মিয়ার ছেলে হাবিব সারোয়ার আজাদ। 

বিক্ষোভ মিছিল শেষে বিক্ষুদ্ধ জনতা প্রতিবাদ সমাবেশে বাবলু দাস,আজহারুল ইসলাম,রিয়াদ হাসান,সাকিল মিয়া,জসিম উদ্দিনসহ
বক্তারা জানান,তাহিরপুর সীমান্তের ভারতীয় বুঙ্গার কয়লা,চিনি,মাদক,যাদুকাটা নদীর পাড়কাটা,গাঁজা ইয়াবার ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন ভারতীয় পণ্য চোরাচালানের গডফাদার এই হাবিব সারোয়ার আজাদ। সে সীমান্তের কালো ব্যাবসায়ীদের দ্বারা একটি সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজ বাহিনী গড়ে সীমান্ত এলাকার কালো ব্যবসার বিভিন্ন পয়েন্টসহ এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে চোরাচালান ও মাদক ব্যবসার নিয়ন্ত্রন করতে শুরু করে গত ১৫ বছর ধরে। সাধারন মানুষ তার এসব কালোবাজারি ব্যবসা ও অপকর্ম জানা স্বত্তেও ভয়ে মুখ খুলতে চাইনা। তার ছেলে কিশোর গ্যাংয়ের লিডার,ইয়াবা ও মাদক ব্যবসায়ী। এসব মাদক ব্যবসা ও ভারতীয় কয়লা ও চিনির চোরাচালান করে গত কয়েক বছরে আজাদ কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছে। আজাদের আন্ডারগ্রাউন্ডের এসব অপকর্ম নিয়ে কেউ মুখ খুলতে চাইলে তার বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট তথ্য দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করে মামলা দিয়ে হয়রানি করে।

এছাড়াও হাবিব সারোয়ার আজাদ নিজেকে সাংবাদিক ও র‌্যাব,পুলিশ,বিজিবির সোর্স পরিচয় দিয়ে তার একান্ত সহযোগীদের নিয়ে সীমান্ত এলাকা দিয়ে মাদকদ্রব্য পাচাঁর করাসহ চাঁদাবাজি করতে গিয়ে দফায় দফায় গণধৌলাইয়ের শিকার হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আদালতে ও থানায় চাঁদাবাজি ও চোরাচালান ও শিশু বলৎকারসহ একাধিক মামলা হয়েছে। শুধু তাই নয় "হাবিব সারোয়ার আজাদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর পোষ্টার পুরানো ও মূর্তি ভাংচুর মামলাও রয়েছে। 

মাদ,গাজাঁ,ইয়াবা ব্যবসায়ীসহ সীমান্তের চোরাচালানের গডফাদার হাবিব সারোয়ার আজাদের অত্যাচারে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ অতিষ্ট হয়ে পড়েছে,তার এইসব অপকর্মের সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক বিচারের আওতায় আনার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে জোর দাবি করছি।

ব্যবসায়ী আব্দুল হক(৪৮)বলেন,হাবিব সারোয়ার আজাদ প্রশাসনের নাম ভাংগিয়ে ওপেন চাঁদাবাজি ও মাদকের ব্যবসা করছে,তার কারণে এলাকার ছোট বড় সকলেই অতিষ্ট,আমরা তার দৃষ্ঠান্ত মূলক শাস্তি দাবী করছি।

উল্লেখ,গতকাল ২০১৮সালে ইয়াবা বিক্রি শেষে চরগাঁও লতারকিত্তা নামকস্থানে যাওয়ার পর খবর পেয়ে এলাকাবাসী ৩৪৫পিছ ইয়াবাসহ হাবিব সারোয়ার আজাদকে হাতেনাতে আটক করে। এসময় আজাদ মাতাল অবস্থায় এলাকার লোকজনের সাথে খারাপ আচরণ করলে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে উঠলে তাকে গণধৌলাই দেয়। খবর পেয়ে বাদাঘাট পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন এসআই সাইদুর ও এএসআই পীযুষ ঘটনাস্থলে গিয়ে ইয়াবাসহ মাতাল অবস্থা তাকে গ্রেফতার করে। একই সালে পার্শ্ববর্তী বিন্নাকুলি বাজারে ইয়াবা বিক্রি করার সময় হাবিব সারোয়ার আজাদের ভাতিজা জুবায়ের শাহকে ৫০০পিছ ইয়াবাসহ র‌্যাব গ্রেফতার জেলহাজতে পাঠায় পুলিশ।

-খবর প্রতিদিন/ সি.

আরও খবর