Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

যাত্রাবাড়ী মাতুয়াইলে তিতাসের অবৈধ গ্যাস লাইন উচ্ছেদে অভিযান

প্রকাশিত:সোমবার ১৪ নভেম্বর ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৩২১জন দেখেছেন

Image

সোহরাওয়ার্দীঃ 

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানা এলাকার মাতুয়াইল কোনাপাড়ার মালিবাড়ি খলিল মাষ্টার রোড ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন ৬৪ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন আবাসিক বাড়িতে অবৈধ গ্যাস সংযোগ ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করেছে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি।


 সোমবার ১৩ অক্টোবর সকাল ১১ টা থেকে দিনভর মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে অভিযান পরিচালিত হয়। ঢাকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মেশকাত জান্নাত রাবেয়া তিতাসের এই অভিযানে নেতৃত্ব দেন। তিতাসের পক্ষে অভিযানে দলনেতা ছিলেন তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির টিকাটুলি জোনের উপমহা ব্যবস্থাপক( ডিজিএম) মনিরুল ইসলাম।

এ সময় বেশ কয়েকটি আবাসিক গ্রাহকদের বিরুদ্ধে বৈধ সংযোগ নিয়ে অবৈধভাবে বাড়তি সংযোগ দিয়ে চুলা ব্যাবহার করায় বিভিন্ন অংকের জরিমানা আদায় করা। এবং অবৈধভাবে আবাসিক সংযোগে বাড়তি চুলা ব্যবহারকারীদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে রাইজার তুলে নেওয়া হয়।


আব্দুল কাদের বাবু ১৪৩/১ কোনাপাড়া খলিল মাষ্টার রোড বাড়ির মালিক একটি ৬ তলা বিশিষ্ট বহুতল ভবনে ২ টা আবাসিক চুলার অনুমোদন এনে ১০ টি চুলা ব্যাবহার করছিলেন, দেলোয়ার হোসেন নামে এক গ্রাহক ৮ তলা বিশিষ্ট বহুতল ভবনে ২ টি চুলার অনুমোদন এনে ২৬ টি চুলা ব্যাবহার করার অপরাধ স্বীকার করায় ৬০ হাজার টাকা নগদ জড়িমানা আদায় করা হয়।অপর একটি আবাসিক বাড়িতে ১ লক্ষ টাকা জরিমানা আদায় সহ বেশ কিছু হোল্ডিং মালিক কে জরিমানা আদায় করা হয়।


গ্যাস ঘাটতি মোকাবেলায় ২০১০ সালের ১৩ জুলাই আবাসিকে সংযোগ দেওয়া বন্ধ করে দেয় সরকার। এ কারণে আবাসিক লাইনে অবৈধ সংযোগের প্রচলন শুরু হয়। অনেক বৈধ গ্রাহক নির্দিষ্ট চুলার স্থলে একাধিক অবৈধ চুলা ব্যবহার করেও তিতাসের সিস্টেম লস করছে।


 তিতাস গ্যাসের ১২ হাজার ২৫৩ কিলোমিটার পাইপলাইন রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় রয়েছে সাত হাজার কিলোমিটার।মুলত এই নেটওয়ার্কগুলোর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে লাখ লাখ অবৈধ সংযোগ। একটি সূত্রে জানাগেছে, তিতাসের বিতরণ ব্যবস্থায় প্রায় ২৫০ কিলোমিটার অবৈধ লাইন রয়েছে। এর মধ্যে শুধু নারায়ণগঞ্জেই রয়েছে ১৮০ কিলোমিটার অবৈধ পাইপলাইন। এরপর রয়েছে গাজীপুর, সাভার, নরসিংদী ও ঢাকায়। কুমিল্লা ও চট্টগ্রামেও অবৈধ সংযোগ ও পাইপলাইন ।এই পরিস্থিতি সামাল দিতে দিশেহারা হয়ে পড়েছে তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিষ্ট্রিবিউশন কোম্পানী এমনকি খোদ বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়। 


তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন এন্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের টিকাটুলি জোনাল অফিসের উপ- মহাব্যাবস্থাপক (ডিজিএম) মনিরুল ইসলাম বলেন,অবৈধ গ্যাস সংযোগ বন্ধ করতে অবৈধ সংযোগের উচ্ছেদ অভিযান নিয়মিত চলবে


আরও খবর



র‍্যাব একবছরে কিশোর গ্যাংয়ের ৬০০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:একবছরে বিভিন্ন অপরাধ যেমন- চাঁদাবাজি, মাদক, ছিনতাইসহ বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অপরাধে কিশোর গ্যাংয়ের প্রায় ৬০০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। রাজধানীর মোহাম্মদপুর, আদাবর ও হাজারীবাগ এলাকা থেকে এদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে মোহাম্মদপুরে র‍্যাব-২ এর কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার আনোয়ার হোসেন খান এ তথ্য দেন।

এর আগে, শুক্রবার রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৯ জন কিশোরকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য দেন তিনি।

গ্রেপ্তারদের ৩৯ জনের মধ্যে রয়েছে ‘পাটালি’ গ্রুপের ৫ জন, ‘লেভেল হাই’ গ্রুপের ৬ জন, ‘লও ঠেলা’ গ্রুপের ৫ জন। এছাড়া, এদের প্রত্যেকটি গ্রুপে ১৮ থেকে ২০ জন সদস্য থাকে বলেও নিশ্চিত করেছেন আনোয়ার হোসেন খান।


আরও খবর



ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুদক

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) শ্রমিক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিলের ২৫ কোটি ২২ লাখ টাকা আত্মসাতে ।

সোমবার (২৯ জানুয়ারি) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কমিশন বৈঠক থেকে চার্জশিট অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে বিষয়টি জানান সংস্থাটির সচিব মাহবুব হোসেন।

গত ৩০মে গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিলের ২৫ কোটি ২২ লাখ ৬ হাজার ৭৮০ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। সংস্থার উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নাজমুল ইসলাম, পরিচালক ও সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আশরাফুল হাসান, পরিচালক পারভীন মাহমুদ, নাজনীন সুলতানা, মো. শাহজাহান, নূরজাহান বেগম ও পরিচালক এস. এম হাজ্জাতুল ইসলাম লতিফী।

এ ছাড়া, অ্যাডভোকেট মো. ইউসুফ আলী, অ্যাডভোকেট জাফরুল হাসান শরীফ, গ্রামীণ টেলিকম শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. কামরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ হাসান ও প্রতিনিধি মো. মাইনুল ইসলামকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস, ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল ইসলামসহ বোর্ডের সদস্যদের উপস্থিতিতে ২০২২ সালের ৯ মে অনুষ্ঠিত ১০৮তম বোর্ডের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ঢাকা ব্যাংকের গুলশান শাখায় হিসাব খোলা হয়। গ্রামীণ টেলিকমের কর্মচারীদের পাওনা লভ্যাংশ বিতরণের জন্য গ্রামীণ টেলিকম শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন এবং গ্রামীণ টেলিকমের সঙ্গে সেটেলমেন্ট অ্যাগ্রিমেন্ট চুক্তি হয় ওই বছরের ২৭ এপ্রিল।


আরও খবর



পোরশায় দেড় শতাধীক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাত্র ৫টিতে রয়েছে শহীদ মিনার

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪৯জন দেখেছেন

Image

ডিএম রাশেদ পোরশা (নওগাঁ) : নওগাঁর পোরশা উপজেলায় প্রায় দেড় শতাধীক বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে মাত্র ৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রয়েছে শহীদ মিনার। ঐ সকল প্রতিষ্ঠানগুলো ভাষা ও শহীদ দিবস পালনে শহীদ মিনার ব্যবহার করে থাকেন।

আর বাকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে কিছু প্রতিষ্ঠানে কলা গাছ বা বাঁশ-কাঠ দিয়ে অস্থায়ী শহীদ মিনার তৈরি করে কোন রকমে দিবসটি পালন করে। তবে বেশির ভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই দিবসটি পালন করেই না। ফলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস পালনে অনেক শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হয়ে থাকে।

জানা গেছে, পোরশা উপজেলায় মোট ১৪০টি বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এর মধ্যে ৮৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২৩টি আলিয়া মাদ্রাসা ও ৬টি কলেজ। এতোগুলো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মধ্যে মাত্র ৫টি প্রতিষ্ঠানে রয়েছে শহীদ মিনার। ৬টি কলেজের মধ্যে মাত্র ২টিতে, ২৪টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে মাত্র ৩টিতে রয়েছে শহীদ মিনার। আর ৮৭টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ২৩টি আলিয়া মাদ্রাসার কোনটিতেই নেই শহীদ মিনার।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মনিরুজ্জামান জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মান করার জন্য সরকারি কোন অর্থ বরাদ্ধ দেওয়া হয় না। তাছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নির্মান করার ব্যাপারে সরকারি কোন বাধ্যবাধকতা নেই। 


আরও খবর



লাখো মুসল্লি তুরাগতীরে জুমার নামাজ আদায় করলেন

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ ফেব্রুয়ারী 2০২4 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:লাখো মুসল্লি একসঙ্গে জুমার নামাজ আদায় করেছেন,টঙ্গীর তুরাগতীরে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বে। তাবলিগ জামাতের ছাড়াও ঢাকা-গাজীপুরসহ আশপাশের কয়েক লাখ মুসল্লি জুমার নামাজে অংশ নিয়েছেন।শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরের দিকে নামাজ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

খুতবা পাঠ শুরু হয় দুপুর দেড়টায় ইজতেমা ময়দানে দেশের সর্ববৃহৎ জুমার নামাজে। খুতবা শেষে নামাজ শুরু হয়। রাজধানীর কাকরাইল মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ জুবায়ের ইমামতি করেন। এর আগে, শুক্রবার বাদ ফজর আমবয়ানের মধ্য দিয়ে প্রথম পর্বের ইজতেমার আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়।

ইজতেমায় যোগদানকারী মুসল্লি ছাড়াও জুমার নামাজে অংশ নিতে ঢাকা-গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকার লাখ লাখ মুসল্লি ইজতেমাস্থলে হাজির হন। দুপুর ১২টার মধ্যে ইজতেমার পুরো ময়দান পূর্ণ হয়ে যায়। মাঠে স্থান না পেয়ে মুসল্লিরা মহাসড়ক, অলিগলিসহ যে যেখানে পেরেছেন পাটি, চটের বস্তা ও খবরের কাগজ বিছিয়ে জুমার নামাজ আদায় করেছেন।


আরও খবর



গাংনীতে কৃষকের দুই বিঘা কলা ক্ষেত বিনষ্ট

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৫২জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ,মেহেরপুর প্রতিনিধিঃমেহেরপুরের গাংনী উপজেলার চরগোয়াল গ্রামে তিন কৃষকের দুই বিঘা জমির কলা ক্ষেত কেটে বিনষ্ট করেছে দুর্বৃত্তরা। কৃষক সোহাগ সরদার, ইমরুল ও আমজাদ নামের তিন কৃষক সমন্বিত উদ্যোগে কলা চাষ করছিলেন। শুক্রবার দিবাগত রাতে দৃর্বৃত্তরা এ কলাক্ষেত বিনষ্ট করে। পুলিশ বিষয়টির খোঁজ খবর নিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন গাংনী থানার ওসি তাজুল ইসলাম।কৃষক সোহাগ সরদার জানান, তারা তিনজন সমন্বিতভাবে ৪০ বিঘা জমি আবাদ করেন।

এর মধ্যে সাড়ে তিন বিঘা জমিতে কলাক্ষেত রয়েছে। সার, সেচ ও কীটনাশক দিয়ে কলা গাছ গুলো প্রস্তুত করা হয়েছিল । কলার কাঁদি গুলোও প্রায় পুষ্ট। রাতের অন্ধকারে কলা গাছ গুলো কেটে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। আজ শনিবার সকালে মাঠের কৃষকরা কলা ক্ষেত বিনষ্টের কথা জানায়। দুর্বৃত্তরা দুই বিঘা জমির কলাক্ষেত কেটে বিনষ্ট করেছে। এতে অন্ততঃ চার লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেছেন তিনি। এমন ঘটনা যেন এই গ্রামের মাঠগুলোতে আর না ঘটে তার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপও কামনা করেছেন কৃষক সোহাগ সর্দারসহ স্থানীয় এলাকাবাসী।

গাংনী থানার ওসি তাজুল ইসলাম জানান, পুলিশ বিষয়টির খোঁজ খবর নিচ্ছেন। যদি কেউ অভিযোগ করে তাহলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আরও খবর