Logo
আজঃ Monday ২৭ June ২০২২
শিরোনাম

তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ, চলছে গণনা

প্রকাশিত:Sunday ২৮ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৩৬জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

দেশের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে এবং ১০ পৌরসভায় ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। এখন চলছে ভোট গণনা।

তৃতীয় ধাপের এ ভোটগ্রহণ রোববার সকাল ৮টায় শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এবার ৩৩টি ইউপিতে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম), বাকিগুলোতে ব্যালট পেপারের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ করা হয়েছে।

সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ উপলক্ষে সতর্ক অবস্থায় ছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এছাড়া প্রতিটি ইউপিতে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন।

সারাদেশে তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচনে ১০১ জন চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। চেয়ারম্যান ছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ৩৩৭ জন ও সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৩২ প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

ইসি সূত্রে জানা যায়, তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ২ কোটি ১ লাখ ৪৯ হাজার ২৭৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ কোটি ২ লাখ ১৫ হাজার ৪২৩ জন, মহিলা ভোটার ৯৯ লাখ ৩২ হাজার ৫৩৮ জন এবং হিজড়া ভোটার ১৯ জন। এই ধাপের নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১০ হাজার ১৫৯টি এবং ভোটকক্ষের সংখ্যা ৬১টি হাজার ৮৩০টি।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



‘সামনে বিশ্বকাপ, সুস্থ থাকাটা গুরুত্বপূর্ণ’

প্রকাশিত:Sunday ১২ June ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৪ June ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ দলে একজন জেনুইন পেস বোলিং অলরাউন্ডারের খুব অভাব। দীর্ঘদিন পর যাও মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনকে পাওয়া গেলো, তাতেও খুব একটা লাভ হচ্ছে না। কারণ, একের পর এক ইনজুরিতে পড়ে সাইফউদ্দিনের ঠিকমতো খেলাই হচ্ছে না।

গত অক্টোবরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সময় ইনজুরিতে পড়েছিলেন তিনি। দীর্ঘদিন রিহ্যাবে থাকার পর অবশেষে গত প্রিমিয়ার লিগে মাঠে ফিরেছেন। এখন প্রস্তুতি নিচ্ছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সীমিত ওভারের ম্যাচের জন্য।

আজ মিরপুরে মিডিয়ার সামনে মুখোমুখি হয়ে নানা প্রশ্নের জবাব দিলেন সাইফউদ্দিন। দীর্ঘ ইনজুরির পর আত্মবিশ্বাসের লেভেলটা কোথায় আছে এখন? জানতে চাইলে সাইফউদ্দিন বলেন, ‘এতোদিন কিছুটা কনফিউজড ছিলাম যে আমার ভেতর কিছু আছে কিনা। বাট যেহেতু ইংল্যান্ডে গেলাম বিসিবির অধীনে, স্ক্যান করানোর জন্য। তো স্ক্যান দেখে দেখা যায় আমার কিছু হয়নি। তাই কিছুটা আত্মবিশ্বাস নিয়ে বোলিং করছি এখন। তবে জানি না কতদিন সুস্থ থাকতে পারব। চেষ্টা করছি, যতদিন খেলতে পারি বা সামনে বিশ্বকাপ আছে। ২০২৩ বিশ্বকাপ আছে, তো পারফরম্যান্সের পাশাপাশি সুস্থ থাকাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ আমার জন্য।’

Saifuddin

নতুন পেস বোলিং কোচ এসেছেন অ্যালান ডোনাল্ড। তার সঙ্গে কাজ করা হয়েছে সাইফের? জবাবে তিনি বলেন, ‘না আসলে এখনো ওভাবে কাজ করা হয়নি। যেহেতু শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম টেস্টে যখন জহুর আহমেদে খেলা হয়েছিল চট্টগ্রামে, ওখানে আমি অনুশীলনে গিয়েছিলাম। ওখানে কিছুটা হাই-হ্যালো আলাপ হয়েছিল, কথা হয়েছিল। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজে যদি থাকি ওনার সঙ্গে কাজ করার জন্য মুখিয়ে আছি।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের উইকেট কেমন? সেখানকার উইকেট সম্পর্কে কোনো ধারণা আছে? সাইফউদ্দিন জানালেন, ধারণা নেই। কারণ এবারই প্রথম ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘আমার জন্য প্রথম। ক্রিকেট নেশন সবগুলো দেশে আমি গিয়েছি, বাট ওয়েস্ট ইন্ডিজে এবারই আমার প্রথম। হয়তোবা ওই কন্ডিশন বা উইকেট আমার জানা নেই। তারপরও যেহেতু ইউটিউবে যুগ, বিভিন্ন ম্যাচগুলোর হাইলাইটস দেখছি আসলে কত স্কোরিং হতে পারে। যেসব টি-টোয়েন্টি ম্যাচগুলা ওরা খেলেছে, যেহেতু আমার আগে টি-টোয়েন্টি তো এটা আমি দেখছি। যতটা আইডিয়া নেওয়া যায় ম্যাচগুলো দেখে।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ব্যক্তিগত লক্ষ্য কী সাইফউদ্দিনের? জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আপাতত কোনো লক্ষ্য সেট করিনি। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে ওদের সাথে খেলেছি। দেশের মাটিতে অনেকগুলো ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি খেলেছি। তাই ওদের সাথে খেলার কিছু অভিজ্ঞতা আছে। যদিও ওদের কন্ডিশনে খেলা, এবার প্রথম খেলব যদি সুযোগ পাই। ভালো জায়গায় বল করলে ব্যাটাররা সবসময় সমীহ করে। খারাপ বলে সবাই বাউন্ডারি মারবে। আবার আমি ব্যাটিংয়ের সময় লুজ বলের অপেক্ষা করি। সব জায়গায় ভালো লাইন-লেন্থ রেখে বল করলে ভালো করা সম্ভব। কন্ডিশন বড় বিষয় নয়।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে খেলা কোনো চ্যালেঞ্জ কি না? জানতে চাইলে সাইফউদ্দিন বলেন, ‘তেমন কোনো চ্যালেঞ্জ নেই। সুযোগ পেলে ভালো করার চেষ্টা করব। কোনো গোল সেট করিনি। দলের জয়ে ১০ রানও গুরুত্বপূর্ণ হলে সেটা আমার জন্যও গুরুত্বপূর্ণ। দলের জন্য উইকেট কাজে লাগলে এটাই আমার জন্য গুরুত্বপূর্ণ।’

Saifuddin

নিজের বোলিং নিয়ে আত্মবিশ্বাস কতটুকু? সাইফউদ্দিনের জবাব, ‘প্রিমিয়ার লিগের পর লম্বা গ্যাপ ছিল। বিশ্বকাপের পর টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলিনি। প্রস্তুতির জন্য রাজশাহী গিয়ে একটা ম্যাচ খেলেছি। এটা টি-টোয়েন্টির সাথে মানিয়ে নেওয়ার জন্য। বিগত কয়েক সিরিজে পেস বোলাররা ভালো ছন্দে আছে। এটা দেশের জন্য ইতিবাচক। ইনশাআল্লাহ আমিও চেষ্টা করব সেরাটা দিয়ে দলে জায়গা করে নেওয়ার।’

ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে ওয়ানডেতে কে ফেবারিট? সাইফউদ্দিনের জবাব, ‘আমরা টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির চেয়ে ওয়ানডে বরাবরই ভালো খেলে আসছি। সবাই আত্মবিশ্বাসী থাকে এই ফরম্যাটে। আসলে ফেবারিট বলে কিছু নেই। যার দিন ভালো যাবে সেই জিতবে। যেহেতু ওদের কন্ডিশনে খেলা কিছু সুবিধা তো পাবে। ওদের মাটিতে আগেও ওয়ানডে সিরিজ হারিয়েছি। সেদিক থেকে আমরা ফেবারিট।’


আরও খবর



যশোরে শত্রুতার জেরে ছুরিকাঘাত, বিএনপি নেতাসহ আটক ৩

প্রকাশিত:Saturday ১১ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৬৫জন দেখেছেন
Image

যশোরের শার্শা উপজেলার নাভারনে মাদক ব্যবসায়ীদের ছুরিকাঘাতে মফিজুর রহমান (৪৮) নামে এক ব্যক্তি গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় শার্শা থানা বিএনপির আহ্বায়কসহ ৩ জনকে আটক করছে পুলিশ। আহত মফিজুর রহমান শার্শার দক্ষিণ বুরুজ বাগান গ্রামের মৃত গোলাম নবীর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার রাত ৯টার দিকে শার্শার নাভারনের স্বর্ণপট্টিতে মফিজুর রহমান ব্যক্তিগত কাজে যান। এ সময় একই গ্রামের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী ও বিএনপির তৃপ্তি গ্রুপের কর্মী মন্টু, রবি ও মাছুমসহ ৪-৫ জন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হাসান জহির গ্রুপের মফিজুর রহমানের ওপর রামদা ও ধারালো ছুরি নিয়ে হামলা চালিয়ে গুরুতর জখম করেন।

স্থানীয়রা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে শার্শা উপজেলা (বুরুজবাগান) স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যান। সেখানে আহত মফিজুর রহমানের অবস্থার অবনতি হলে স্বজনরা যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।

এ ঘটনার জেরে সঙ্গে সঙ্গে এলাকা উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। রাতে গ্রামের বিভিন্ন স্থানসহ হাসপাতালের সামনে ১০/১২টি বোমা বিস্ফোরণ হয়। ওই গ্রামে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

এদিকে এ ঘটনায় শার্শা থানা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুজ্জামান মধু, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আশরাফুল ইসলাম বাবু ও রবিউল ইসলামকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ।

শার্শা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান জানান, বোমাবাজির খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। আহত ব্যক্তিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোরে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিএনপির তিন নেতাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। বর্তমানে এলাকা পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আছে।


আরও খবর



মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিবারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:Saturday ২৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ১৬জন দেখেছেন
Image

মাদকের অপব্যবহার রোধে ছাত্র-শিক্ষক ও অভিভাবকসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি বলেন, মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিবারের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

শনিবার (২৫ জুন) ‘মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস-২০২২’ (২৬ জুন) উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে এ আহ্বান জানান তিনি।

আবদুল হামিদ বলেন, বাংলাদেশসহ সমগ্র বিশ্বেই কম-বেশি মাদকের অপব্যবহার পরিলক্ষিত হয়। কোনো দেশে মাদকাসক্তদের সংখ্যা ও মাদকের অপব্যবহার বেড়ে গেলে, সে দেশের নিরাপত্তা, সুশাসন, অর্থনীতি ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যায়। মাদকের অপব্যবহার ও পাচাররোধে সম্মিলিত উদ্যোগ খুবই জরুরি।

চতুর্থ শিল্প বিপ্লব নিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, বৈশ্বিকীকরণের প্রভাব ও তথ্যপ্রযুক্তির অভাবনীয় উৎকর্ষ তথা ৪র্থ শিল্প বিপ্লবের মাধ্যমে মানুষের জীবনযাত্রায় ব্যাপক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। অন্যদিকে, প্রযুক্তির সহজলভ্যতার কারণে আন্তর্জাতিক মাদক চোরাকারবারীরা এর উৎপাদন, বিপণন ও পাচারে তথ্যপ্রযুক্তিকে অন্যায়ভাবে কাজে লাগিয়ে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে মাদক পৌঁছে দিচ্ছে। ফলে মাদকসহ অনেক জীবননাশকারী দ্রব্য সহজেই মাদকসেবীদের হাতের নাগালে চলে আসছে।

‘বর্তমানে যুবসমাজ গতানুগতিক ড্রাগসের পরিবর্তে সিনথেটিক ড্রাগসের দিকে ঝুঁকে পড়ছে, যা শরীরের জন্য আরও বেশি ক্ষতিকর। এ বিষয়ে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরসহ আইন প্রয়োগকারী সব সংস্থাকে তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে মাদক পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

আবদুল হামিদ আশা করেন নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে দেশে মাদকদ্রব্যের বিস্তার রোধের পাশাপাশি ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা পাবে দেশের যুবসমাজ।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার মাদকের বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি ঘোষণা করেছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধকল্পে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ও তা বাস্তবায়ন করছে।

‘মাদকাসক্তদের যথাযথভাবে চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের লক্ষ্যে ন্যাশনাল গাইডলাইন ফর ম্যানেজমেন্ট অব সাবস্ট্যান্স ইউজ ডিজওর্ডার্স, বাংলাদেশ প্রণয়ন করা হচ্ছে।’

শক্ত পারিবারিক বন্ধন সন্তানকে মাদক ও জঙ্গিবাদের কুপ্রভাব থেকে দূরে রাখে মন্তব্য করে রাষ্ট্রপতি বলেন, দেশের যুবসমাজকে মাদকের নীল দংশন থেকে রক্ষা করতে সমাজের সব স্তরে মাদকের কুফল সম্পর্কে ব্যাপক জনসচেতনতা গড়ে তোলা প্রয়োজন।

‘শক্ত পারিবারিক বন্ধন সন্তানকে মাদক ও জঙ্গিবাদের কুপ্রভাব থেকে দূরে রাখে, তাকে সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষ হিসেবে গড়ে উঠতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।’

এ সময় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর কর্তৃক দিবসটি পালনের উদ্যোগকে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি। একই সঙ্গে দিবসটি উপলক্ষে গৃহীত সব কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন তিনি।


আরও খবর



দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার রুখতে হবে, প্রবাসীদের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশের বিরুদ্ধে যারা মিথ্যা তথ্য দিয়ে অপপ্রচার চালায় ও দেশের সঙ্গে শত্রুতা করে, তাদের প্রতিহত করতে প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

শনিবার (৪ জুন) সুইডেনের স্টকহোমে সুইডেন স্টকহোমে সুইডেন আওয়ামী লীগের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমরা বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোতে বাংলাদেশ সম্পর্কিত তথ্যভান্ডার সমৃদ্ধ করেছি এবং আমরা জনকূটনীতির মাধ্যমে এগুলো প্রচার করছি। তবে মিশনগুলোর পাশাপাশি প্রবাসী বাংলাদেশিদেরও এসব তথ্য তুলে ধরা প্রয়োজন।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার দৃঢ়তায় বর্তমান বাংলাদেশ একটি সম্ভাবনার দেশে পরিণত হয়েছে। সেটা বিদেশিদের কাছে তুলে ধরতে হবে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত ১২ বছর বাংলাদেশের জন্য একটি স্বর্ণযুগ উল্লেখ করে আব্দুল মোমেন বলেন, জিডিপির গড় প্রবৃদ্ধির হারে বাংলাদেশ বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় দেশগুলোর অন্যতম স্থান অর্জন করেছে এবং মাথাপিছু আয় প্রতিবেশী দেশগুলোর চেয়ে বেড়েছে।

দেশের উন্নয়নে অবদান রাখায় প্রবাসীদের অভিনন্দন জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, প্রবাসী বাংলাদেশিরা আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়নের যোদ্ধা, প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স ও রপ্তানি আয় থেকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ অনেক সমৃদ্ধ হয়েছে।

বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোর মাধ্যমে সেবার মান বাড়াতে গৃহীত পদক্ষেপের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, মিশনগুলোতে সেবা দেওয়ার জন্য ‘দূতাবাস’ এবং ‘মাই গভর্নমেন্ট’ নামে দুটি মোবাইল অ্যাপ চালু করা হয়েছে। ‘দূতাবাস’ প্যাকেজের মাধ্যমে ৩৪টি সেবা এবং ‘মাই গভর্নমেন্ট’ প্যাকেজের মাধ্যমে ৬৮টি সেবা দেওয়া যাবে এবং পর্যায়ক্রমে সব মিশনে এই সেবা চালু হবে।

সুইডেন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর কবিরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ফরহাদ আলী খানের সঞ্চালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সুইডেনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. নাজমুল ইসলাম, সুইডেনপ্রবাসী বীর মুক্তিযোদ্ধা, সুইডেন আওয়ামী লীগের নেতারা ও বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যরা।


আরও খবর



২ বছরের শিশুর সঙ্গে এ কেমন আচরণ?

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
Image

বাবা-মায়ের অনুপস্থিতিতে দুই বছরের শিশুর দেখাশোনার দায়িত্ব ছিল তার ওপর। কিন্তু তিনি এর উল্টোটা করেছেন। শিশুটিকে যত্ন করা তো দূরে থাক তার সঙ্গে যেমন আচরণ করেছেন তা হতবাক হওয়া মতো।

শিশুটির বাবা-মা বাসায় না থাকার সুযোগে এক বেবিসিটার দুই বছরের শিশুটিকে মারধর এবং নির্যাতন করেন। এই ঘটনা ঘটেছে ভারতের মধ্য প্রদেশের জাবালপুরে। ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, সিসি ক্যামেরার ভিডিও দেখে মঙ্গলবার ওই বেবিসিটারকে গ্রেফতার করা হয়।

ওই শিশুর বাবা-মা জানিয়েছেন, তারা সিসিটিভির ভিডিওতে তাদের সন্তানকে নির্যাতনের ঘটনা দেখতে পান। তারা পুলিশের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। এরপরেই ৩০ বছর বয়সী ওই বেবিসিটারকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, ওই নারী শিশুটিকে চুল ধরে টেনে নিয়ে যাচ্ছে, তাকে মারধর করছে। অনেক দিন ধরেই শিশুটিকে নির্যাতন করছিলেন ওই নারী।

শিশুটির বাবা-মা জানিয়েছেন, কয়েক মাস ধরেই তাদের সন্তান কেমন চুপচাপ হয়ে গিয়েছিল। শারীরিক ভাবেও তাকে বেশ দুর্বল লাগছিল। এসব দেখে তাদের সন্দেহ হচ্ছিল। এরপর শিশুটিকে তারা চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলে তার কিছু সমস্যা ধরা পড়ে।

তখনই তারা সিদ্ধান্ত নেন যে, বাড়িতে সিসি ক্যামেরা লাগাবেন। ওই বেবিসিটারের অগোচরে তারা বাড়িতে সিসি ক্যামেরা লাগান। আর এরপরেই তারা যেন নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারছিলেন না।

তারা দেখেন যে, যাকে তারা নিজেদের বাচ্চার দেখাশোনার জন্য রেখেছেন সেই তাদের বাচ্চাকে নির্যাতন করছে। তাকে যখন তখন মারধর করছে। এই ঘটনায় তদন্ত চলছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।


আরও খবর