Logo
আজঃ Sunday ২৪ October ২০২১
শিরোনাম
প্রথমবারের মতো থাকছে রিভিউ, টি-২০ বিশ্বকাপে আছে আরও নতুনত্ব

টি-২০ বিশ্বকাপেপ্রথমবারের মতো থাকছে রিভিউ , আছে আরও নতুনত্ব

প্রকাশিত:Sunday ১০ October ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৪ October ২০২১ | ৬৩জন দেখেছেন
স্পোর্টস ডেস্ক

Image


স্পোর্টস ডেস্ক :

 

আইসিসি পুরুষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে প্রথমবারের মতো ব্যবহার করা হবে ডিসিশন রিভিউ সিস্টেম (ডিআরএস)। ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা গভর্নিং বডি এই ঘোষণা দিয়েছে। কুড়ি ওভারের বিশ্ব আসরের আগের ছয় টুর্নামেন্টে ছিলো না আম্পায়ারদের সিদ্ধান্ত রিভিউ করার সিস্টেম।

 

আগামী ১৭ অক্টোবর থেকে ওমান ও আরব আমিরাতে শুরু হতে যাওয়া টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের প্লেয়িং কন্ডিশনে বলাহয়েছে, প্রতি ইনিংসে প্রতিটি দল সর্বোচ্চ দুইটি করে রিভিউ নিতে পারবে।

 

গত বছরের জুলাইয়ে করোনাভাইরাসজনিত কারণে রিভিউ সিস্টেমে পরিবর্তন এনেছিলো আইসিসি। তখন থেকেই টি-টোয়েন্টি ম্যাচে প্রতি ইনিংসে দেয়া হয় দুইটি করে রিভিউ। এই সিদ্ধান্তের পেছনে মূলত কারণ ছিলো সব ম্যাচে নিরপেক্ষ ও অভিজ্ঞ আম্পায়ার পাওয়ার অনিশ্চয়তা।

 

তবে এবারের বিশ্বকাপের সবগুলো ম্যাচেই থাকবে আইসিসির প্যানেলভুক্ত বিশেষজ্ঞ ও নিরপেক্ষ আম্পায়াররা। তবু রিভিউয়ের সংখ্যা কমিয়ে আগের মতো একে নামানো হয়নি। বরং সব দলই পাবে ইনিংসপ্রতি দুইটি করে রিভিউ।

 

শুধু তাই নয় বৃষ্টিবিঘ্নিত কিংবা অন্যান্য কারণে খেলায় দেরি হলে, ন্যুনতম ওভারের সংখ্যাও বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে আইসিসি। আগের নিয়ম অনুযায়ী যেকোনো টি-টোয়েন্টি ম্যাচে ন্যুনতম পাঁচ ওভারই যথেষ্ঠ ছিলো ফলাফল আসার জন্য। আসন্ন বিশ্বকাপের গ্রুপপর্বেও বহাল থাকবে নিয়ম।

 

এই নিয়ম বদলে যাবে সেমিফাইনাল ও ফাইনালের তিন ম্যাচের জন্য। নকআউট পর্বের তিন ম্যাচে ফলাফল আসার জন্য ন্যুনতম ১০ ওভার করতে খেলতে হবে দুই দলকেই। অন্যথায় পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হবে ম্যাচটি।

পুরুষদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মতো আসরে আগে রিভিউ সিস্টেম না থাকার কারণ মূলত গত পাঁচ বছরের মধ্যে কোনো বিশ্বকাপ না হওয়া। ২০১৮ সালে নারীদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ছিলো রিভিউ সিস্টেম। একইভাবে ২০২০ সালের আসরেও ছিলো এটি।

 

কিন্তু পুরুষদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সবশেষ আসর বসেছিলো ২০১৬ সালে। তখন পর্যন্ত কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে রিভিউয়ের ব্যবহারই শুরু হয়নি।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



মাগুরা সদরে ‘আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে চারজন নিহত

মাগুরায় দু’গ্রুপের সংঘর্ষে নিহত ৪

প্রকাশিত:Friday ১৫ October ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৪ October ২০২১ | ৩২০জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


ডেস্ক এডিটর : 

মাগুরা সদরে ‘আধিপত্য বিস্তার নিয়ে  দুই পক্ষের সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছে অন্তত ৫০ জন।  জগদল ইউনিয়নের দক্ষিণপাড়ায় শুক্রবার বেলা ৩টার দিকে সংঘর্ষ শুরু হয়। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

 

তিনি জানান, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত চারজনের মরদেহ মাগুরা সদর হাসপাতালে আনা হয়েছে। হাসপাতালের নিরাপত্তায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। কোনো রোগীর স্বজনকে এখন হাসপাতালে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না।

 

নিহতরা হলেন রহমান মোল্লা, মো. কবির, মো. অসিয়াত ও মো. ইমরান। তাদের সবার বাড়ি জগদলের দক্ষিণ পাড়ায়।

 

স্থানীয় লোকজন জানান, ১১ নভেম্বর জগদল ইউনিয়ন পরিষদকে কেন্দ্র করে রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তারের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে। এই ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. সবুর ও ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. নজরুলের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছে। তাদের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



ইভ্যালির ইভ্যালির এমডি‘র দায়িত্ব পাচ্ছেন মাহবুব কবীর মিলন

ইভ্যালির ইভ্যালির এমডি‘র দায়িত্ব পালন করবেন আলোচিত অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন

প্রকাশিত:Monday ১৮ October ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৪ October ২০২১ | ৯৯জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


আলোচিত অতিরিক্ত সচিব মাহবুব কবীর মিলন ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি পরিচালনার জন্য গঠিত কমিটির সদস্য হিসেবে স্থান পেয়েছেন। তিনি ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

বিস্তারিত আসছে..

 

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মেয়র আতিকুলের বিরুদ্ধে মামলা

মেয়র আতিকুলের বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:Tuesday ১৯ October ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৪ October ২০২১ | ১৫৭জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র মো. আতিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে।

 

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আস সামছ জগলুল হোসেনের আদালতে এ মামলা করা হয়। মামলাটি করেন রাজধানীর ভাষানটেক পুনর্বাসন প্রকল্পের রূপকার মো. আব্দুর রহিম।

 

এরপর আদালত বাদীর জবানবন্দি গ্রহণ করেন। মামলার বিষয়ে আদেশ পরে দেবেন বলে জানান আদালত।বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার বাদীর আইনজীবী ফারুক আহম্মেদ।

 

মামলার অভিযোগে বলা হয়, আসামিরা একে অপরের সহযোগিতায় বাদী ও তার প্রতিষ্ঠানের সম্পত্তি জোর করে দখল করেন। মেয়র আতিকুল ইসলামের হুকুম ও অন্য আসামিদের সহযোগিতায় বিভিন্ন মিডিয়া এবং ডিজিটাল ডিভাইসে ইচ্ছাকৃতভাবে বাদী ও তার পরিবার নিয়ে আক্রমণাত্মক, মিথ্যা, ভীতিপ্রদর্শন এবং মানহানিকর তথ্য প্রকাশ করে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫/২৯ ধারায় অপরাধ করেছেন।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



মনের স্বাস্থ্য ভালো না থাকলে শরীরও অসুস্থ হয়ে পড়ে

মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে এই ১০ টি কাজ করুন

প্রকাশিত:Sunday ১০ October ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৪ October ২০২১ | ১৪৪জন দেখেছেন
Image


লাইফস্টাইল ডেস্ক:

 

মনের স্বাস্থ্য ভালো না থাকলে শরীরও অসুস্থ হয়ে পড়ে। সাধারণত আমরা শরীরের অসুখ টের পেলেও নিজের কিংবা অন্যের মনের অসুখ টের পাই না। এ কারণে অনেকেই মানসিকভাবে বিকারগ্রস্ত, নেশাগ্রস্ত কিংবা আত্মহননকারী হয়ে ওঠেন। যা কারও কাম্য নয়।

 

এজন্য ফিট ও সুস্থ থাকতে অবশ্যই মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া জরুরি। তবে কর্মব্যস্ত জীবনে অনেকেরই দু’দণ্ড বসে কাটানোর ফুরসত নেই। এ কারণেই মানুষের মধ্যে চাপ ও উদ্বেগ বাড়ছে। দীর্ঘদিন এভাবে থাকতে থাকতে মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটছে।

সম্প্রতি ব্রিটিশ জার্নাল অব সাইকেয়েট্রিতে প্রকাশিত ‘কান্ট্রি পেপার অন মেন্টাল হেলথ-বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক প্রতিবেদন অনুসারে, দেশের মোট জনসংখ্যার প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ১৮.৭ শতাংশ মানুষ বিভিন্ন ধরনের মানসিক রোগে আক্রান্ত।

প্রতিবেদন অনুসারে, মহামারি করোনার কারণে মানসিক রোগের ব্যাপকতা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। এমন এক পরিস্থিতির মধ্য দিয়েই রোববার (১০ অক্টোবর) বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালিত হচ্ছে। এ বছর দিবসের প্রতিপাদ্য ‘অসম বিশ্বে মানসিক স্বাস্থ্য’।

নিজেকে মানসিকভাবে সুস্থ রাখার দায়িত্ব কিন্তু আপনারই। তাই মানসিক রোগ যেন বাসা না বাঁধে সেদিকে সময় থাকতে সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখার ১০ উপায় মেনে চলুন-

পর্যাপ্ত ঘুমাতে হবে

ঘুম শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ঘুম মস্তিষ্কের রাসায়নিক পদার্থগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। এই রাসায়নিকগুলো আমাদের মেজাজ ও আবেগ পরিচালনা করে।

যদি আমরা পর্যাপ্ত না ঘুমায়, তাহলে মস্তিষ্কে বিভিন্ন অংশ ঠিকমতো কাজ করতে পারে না। ফলে হতাশ ও উদ্বিগ্ন হয়ে পড়া স্বাভাবিক। তাই পর্যাপ্ত ঘুমের বিকল্প নেই।

পুষ্টিকর খাবার

পুষ্টিকর খাবার শুধু শরীরের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়, বরং মনের জন্যও উপকারী। কিছু খনিজ যেমন- আয়রন ও ভিটামিন বি ১২ এর ঘাটতি মেজাজ পরিবর্তনের জন্য দায়ী। তাই সুষম খাবার খাওয়া জরুরি। আপনি যদি খিটখিটে মেজাজ, হতাশা বা উদ্বিগ্নতায় ভোগেন তাহলে কফি খাওয়া কমিয়ে আনুন।

অ্যালকোহল, ধূমপান ও মাদক পরিহার

অনেকেই হতাশ হয়ে ধূমপান ও মাদকের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন। তবে জানেন কি, এগুলো হতাশা কাটায় না বরং শরীর ও মনে বিরূপ প্রভাব ফেলে। দীর্ঘ সময় ধরে অতিরিক্ত মদ্যপানে শরীরে থায়ামিনের ঘাটতি হতে পারে। থায়ামিন মস্তিষ্কের কার্যকারিতার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

এর ঘাটতি দেখা দিলে স্মৃতি বিভ্রাট, মনোযোগের অভাব, বিভ্রান্তি ও চোখের সমস্যা হতে পারে। আবার যদি আপনি ধূমপান করেন, এতে থাকা নিকোটিন শরীর ও মস্তিষ্ক উভয়েরই ক্ষতি করে। পরবর্তীতে ধূমপান বন্ধ করলে আপনি আরও বিরক্ত ও উদ্বিগ্ন হয়ে উঠতে পারেন। তাই মাদকমুক্ত জীবন গড়ুন।

সূর্যের আলো গায়ে মাখুন

সূর্যালোক ভিটামিন ডি এর একটি বড় উৎস। ভিটামিন ডি শরীর ও মস্তিষ্কের খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি মস্তিষ্কের ক্ষতিকর পদার্থ দূর করে। ফলে মেজাজ আরও উন্নত হয়। কারণ অ্যান্ডোরফিন ও সেরোটোনিন এর উৎপাদন বেড়ে যায়। তবে রোদে গেলে ত্বক ও চোখকে নিরাপদ রাখুন।

প্রতিদিন অন্তত আধা ঘণ্টা থেকে ২ ঘণ্টা গায়ে সূর্যের আলো মাখুন। শীতের সময় অনেকেই হতাশ হয়ে পড়েন। কারণ তখন সূর্যের দেখা কম পাওয়া যায়। এটি সিজনাল অ্যাফেকটিভ ডিসঅর্ডার (এসএডি) নামে পরিচিত। তাই পর্যাপ্ত সূর্যের আলো গায়ে মাখুন, এতে মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটবে।

দুশ্চিন্তা দূরে রাখুন

 

সবার জীবনেই কাজের চাপ আছে। তাই বলে এ নিয়ে বেশি দুশ্চিন্তা করা উচিত নয়। এ সমস্যা সমাধানে আপনাকে জানতে হবে কীভাবে আপনি চাপ সামলাবেন। যদি না পারেন তাহলে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়বেন।

এজন্য দৈনন্দিন জীবনের কোনো না কোনো সমস্যার তালিকা তৈরি করুন। এরপর তা সমাধানের উপায় খুঁজুন। অযথা অলীক কল্পনায় ডুবে থাকবেন না। যখন দেখবেন আপনার ঘুমাতে সমস্যা হচ্ছে, তার অর্থ হলো আপনি বেশি দুশ্চিন্তা করছেন!

 

শরীরচর্চা আবশ্যক

 

মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে অবশ্যই আপনাকে নিয়মিত শরীরচর্চা করতে হবে। কারণ যত বেশি সক্রিয় থাকবেন, মস্তিষ্কের রাসায়নিক পদার্থগুলোও বেড়ে যায়। যা মেজাজ ভালো রাখতে সহায়তা করে। অন্যদিকে শরীরচর্চার অভাবে মেজাজ খারাপ হতে পারে।

পাশাপাশি উদ্বেগ, চাপ, ক্লান্তি ও অলসতা বোধ করতে পারেন। তাই শরীর ও মন দু’টোই ভালো রাখতে নিয়মিত শরীরচর্চা করুন। ম্যারাথন দৌড় বা ফুটবল খেলার প্রয়োজন নেই, আপনি নিয়মিত হাঁটাহাঁটি ও কায়িক পরিশ্রম করেও সুস্থ থাকতে পারবেন।

যা ভালো লাগে, তা-ই করুন

আপনার যা ভালো লাগবে বা করতে ইচ্ছে করবে তা-ই করুন। আপনার যদি ঘুরতে যেতে, শপিং করতে কিংবা ছবি আঁকতে ভালো লাগে তাহলে তা-ই করুন। আপনি যা উপভোগ করেন সেই কাজগুলো যখন করবেন তখন মনও ভালো থাকবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, যারা অন্যের বাধ্যগত হয়ে নিজের খুশিকে দমিয়ে রাখেন, তাদের মধ্যে খিটখিটে মেজাজ ও অসুখী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি দেখা যায়। তাই নিজের ভালো লাগাকে প্রাধান্য দিন।

মিশুক হওয়ার চেষ্টা করুন

অন্যদের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখার চেষ্টা করুন। যখনই সুযোগ পাবেন মানুষের সঙ্গে কথা বলুন। গবেষণায় দেখা গেছে, অন্যদের সঙ্গে মাত্র ১০ মিনিট কথা বলা স্মৃতিশক্তি ও পরীক্ষার স্কোর উন্নত করতে পারে! তাই মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ান ও মিশুক হওয়ার চেষ্টা করুন।

অন্যের জন্য কিছু করুন

কাউকে সাহায্য করলে নিজের মধ্যেও অন্যরকম ভালো লাগার অনুভূতি কাজ করে। তাই অন্যের জন্য কিছু করার চেষ্টা করুন। কোনো দরিদ্রকে খাবার বা পোশাক কিনে দিন কিংবা সামান্য অর্থ দিয়ে সাহায্য করুন। দেখবেন আপনার মন ভালো হয়ে যাবে।

তখন নির্দিষ্ট কোনো বিষয় নিয়ে হতাশ না হয়ে বরং বিশ্ব সম্পর্কে ধারণা তৈরি হবে। নিজেকে অসহায় ভাবার আগে না খেয়ে থাকা মুখগুলোর ছবি ভাসবে মনে। ফলে অন্যের জন্য কিছু করার স্পৃহা জন্মাবে। এর মাধ্যমে জীবনে এগিয়ে যাওয়ার উৎসাহ পাবেন।

সাহায্য নিন

আপনি যদি মানসিকভাবে অসুস্থ বোধ করেন তাহলে অন্যের সাহায্য নিন। মুখ বুজে থাকবেন না। নিজের অসুবিধার কথা সবার সঙ্গে শেয়ার করুন। কারণ অত্যাধিক মানসিক চাপে আপনি বিকারগ্রস্তও হয়ে পড়তে পারেন। অনেকেই মনে করেন, মন ভালো নেই এ বিষয়ে কাউকে জানালে সে পাগল বলবে!

এ ধারণা থেকে সরে আসুন। মানুষের শরীর যেমন সবদিন ভালো যায় না, ঠিক তেমনই মনও সব সময় ভালো থাকে না। তাই মানসিকভাবে চাপ অনুভব করলে কাউন্সিলিং করুন বা মনোবিদের সাহায্য নিন। তার আগে পরিবারের সঙ্গে শেয়ার করুন।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



ছেলের বাবা যশের জন্মদিনে নুসরাতের বিশেষ ভালোবাসা

যশের জন্মদিনে নুসরাতের বিশেষ ভালোবাসা

প্রকাশিত:Sunday ১০ October ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৪ October ২০২১ | ৭২জন দেখেছেন
বিনোদন ডেস্ক

Image


বিনোদন ডেস্ক :


টালিউডের অভিনেতা যশ দাশগুপ্ত। ৩৬ বছর পূর্ণ করলেন তিনি। শুভেচ্ছায় ভাসছেন সোশ্যাল মিডিয়া। ভক্তরা তাকে ভালোবাসায় ভরিয়ে দিচ্ছেন নানা মিষ্টি বারতায়।তবে নায়কের বিশেষ দিনে প্রেমিকা বলে খ্যাত নায়িকা নুসরাত জাহানের কি আয়োজন? সেদিকে নজর ছিল প্রায় সকলের। রাত ১২টা বাজামাত্রই অপেক্ষার অবসান হলো। প্রকাশ হলো, যশের জন্মদিনে নুসরাতের ভালবাসা।

 

যশের জন্মদিন পালনের ক্ষেত্রে যদিও কোনো আড়ম্বরের বন্দোবস্ত করেননি নুসরাত। অন্তত সোশ্যাল মিডিয়ায় তেমন কোনো আভাস পাওয়া যায়নি। যশের জন্মদিনের কথা যে তিনি ভুলেননি শুধু সেটাই জানিয়ে দিলেন ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে।ইনস্টা স্টোরিতে যশের ছবি পোস্ট করে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তার পাশেই লাল হৃদয়ের ইমোজি। যার পোশাকি নাম হার্ট ইমোজি।

 

প্রসঙ্গত, গেল বছর থেকেই টালিগঞ্জে আলোচিত জুটি যশ-নুসরাত। পর্দায় তেমন সাফল্য না পেলেও বাস্তব জীবনে সেই রসায়ন জমে ক্ষীর। তবে প্রকাশ্যে সম্পর্কের কথা স্বীকার করেননি তাদের দু’জনের কেউই। সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের শেয়ার করা ছবি দেখে নুসরাত এবং যশের ঘনিষ্ঠতার প্রমাণ পেয়েছেন নেটিজেনরা। একসঙ্গে লাঞ্চ ডেটেও দেখা গিয়েছে তাদের।

 

এই পরিস্থিতিতে জানা যায় নুসরাত সন্তানসম্ভবা। নানা বাঁকা কথার মাঝেও অবিচল থেকেছেন বসিরহাটের তৃণমূল সাংসদ।

 

এরপর গত ২৬ আগস্ট পুত্রসন্তানের জন্ম দেন। পার্ক স্ট্রিটের বেসরকারি হাসপাতালে সেই সময় প্রায় সারাক্ষণই নুসরতের সঙ্গী ছিলেন যশ। সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়ে কাটাছেঁড়া হয়েছে যথেষ্ট। যদিও কলকাতা পুরসভার জন্ম শংসাপত্রের নথি অনুযায়ী নুসরাতের ছেলের বাবার নাম দেবাশিস দাশগুপ্ত। যা অভিনেতা যশ দাশগুপ্তেরই আরেক নাম।

খবর প্রতিদিন / সি.বা


আরও খবর