Logo
আজঃ Monday ২৭ June ২০২২
শিরোনাম

তানোরে বিএনপির ত্রিবার্ষিক সম্মেলন! হান্নাম সভাপতি মিজান সম্পাদক

প্রকাশিত:Monday ১৩ December ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৩৮৪জন দেখেছেন
Image

রাজশাহীর তানোর উপজেলা ও পৌরসভা  বিএনপির ত্রিবার্ষিক  সম্মেলনে ভোটের মাধ্যমে সাবেক চেয়ারম্যান আখেরুজ্জামান হান্নান সভাপতি ও সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিজান  সাধারন সম্পাদক এবং ১,২ নম্বর সাংগঠনিক সম্পাদক নির্বাচিত    হয়েছেন হযরত আলী, সাইফুল ইসলাম। এর পরেই তানোর পৌরসভার ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে  সভাপতি  হিসেবে একরাম আলী  মোল্লা,সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সালাম,১ নম্বর সাংগঠনিক সম্পাদক তোফাজ্জুল হক ২নম্বর ইয়াছিন আলী নির্বাচিত হন  ।রবিবার সন্ধ্যার পরে পৌর সদর গোল্লাপাড়া বাজারস্হ বরেন্দ্র ভবন সংলগ্ন দলীয় কার্যালয়ে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। নব নির্বাচিত সভাপতি ও সম্পাদক এবং সাংগঠনিক সম্পাদকদের নাম ঘোষণা করেন সম্মেলনের প্রধান অতিথি সাবেক মেজর জেনারেল শরিফ খান । এর আগে ডাকবাংলো মাঠে কমিটি নিয়ে আলোচনা করেন মেজর জেনারেল শরিফ খান। উপস্থিত ছিলেন সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব  মোজাম্মেল হক খান, সাবেক আহবায়ক আখেরুজ্জামান হান্নান, সাবেক সাধারন সম্পাদক সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিজান,সিনিয়র নেতা নুরুল ইসলাম, আলহাজ্ব মোজাম্মেল হক, আফসার প্রামানিক, উপজেলা যুবদলের সভাপতি গোলাম মুর্তজা, সাধারণ সম্পাদক মুন্সী শরিফ উদ্দিন,উপজেলা সেচ্ছাসেবক দলের সাধারন সম্পাদক শরিয়তুল্লা, পৌর সাধারন সম্পাদক মাহবুর মোল্লা, ওবাইদুর মোল্লা, পৌর যবদলের আহ্বায়ক এমদাদ মোল্লা,যুবদল নেতা আবুল কাশেম,ছাত্রদলের সাবেক আহবায়ক মাসুদ করিম, সাত ইউপি ও ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং পৌরসভার ওয়ার্ডের কাউন্সিলরসহ অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। 

নব নির্বাচিত সভাপতি এক প্রতিক্রিয়ায় জানান আমি আন্তরিকতার সাথে চেষ্টা করব বিভেদ দূর করে একসাথে কাজ করা,সাধারণ সম্পাদক মিজান প্রতিক্রিয়ায় জানান সবাইকে নিয়ে এক মাসের মধ্যে পুরো কমিটি করা হবে বলেও নিশ্চিত করেন। 

আরও খবর



‘ডেইরি আইকন-২০২১’ নির্বাচিত এমজিআইয়ের ইউনাইটেড ফিডস

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

 

মেঘনা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ (এমজিআই)-এর অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ইউনাইটেড ফিডস্ লিমিটেড, ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশের অভ্যন্তরীণ ফিডসের চাহিদার একটি বড় অংশ পূরণ করে পোলট্রি ও ফিশারিজ শিল্পের বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। আধুনিক প্রযুক্তিতে প্রস্তুতকৃত, ইউনাইটেড ফিডস্ লিমিটেডের উন্নত মানের ‘ফ্রেশ ফিড’, খামারিদের কাছে বর্তমানে বেশ সমাদৃত একটি নাম।

সাফল্যের এই ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সরকারের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় আয়োজিত ‘বিশ্ব দুগ্ধ দিবস ২০২২ উদযাপন ও ডেইরি আইকন সেলিব্রেশন’ অনুষ্ঠানে, ‘পশু খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ’ ক্যাটাগরি-তে ‘ডেইরি আইকন-২০২১’ হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে ইউনাইটেড ফিডস্ লিমিটেড।

বুধবার, (১ জুন) রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে এই স্বীকৃতির ক্রেস্ট ও সম্মাননা দেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। এমজিআইয়ের চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর মোস্তফা কামালের পক্ষে এই ক্রেস্ট ও সম্মাননাপত্র গ্রহণ করেন ডিরেক্টর ব্যারিস্টার তাসনিম মোস্তফা।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব ড. মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরী। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডা. মনজুর মোহাম্মদ শাহজাদা-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘের ফুড ও এগ্রিকালচার অর্গানাইজেশন (এফএও)-এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট ডি. সিম্পসন, বিশ্বব্যাংক-এর সিনিয়র এগ্রিকালচার স্পেশালিস্ট ক্রিশ্চিয়ান বার্জার, প্রাণিসম্পদ ও ডেইরি উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক মো. আব্দুর রহিম এবং চিফ টেকনিক্যাল কো-অর্ডিনেটর ড. মো. গোলাম রব্বানী।

ইউনাইটেড ফিডস্ লিমিটেডের পক্ষে এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর মো. হারুন অর রশিদ ও এজিএম (নিউট্রিশান অ্যান্ড কিউসি) ড. মো. মিজানুর রহমান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

সর্বোচ্চ মানের পণ্য সরবরাহ অব্যাহত রেখে, দেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতিতে অবদান রাখতে এমজিআই নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এই স্বীকৃতি, এমজিআই-এর সেই নিরলস প্রচেষ্টারই ফল। ‘ডেইরি আইকন-২০২১’-এর এই স্বীকৃতিতে ইউনাইটেড ফিডস্ লিমিটেড সত্যিই গর্বিত। এই অর্জনে উদ্বুদ্ধ হয়ে ইউনাইটেড ফিডস্ লিমিটেড ভবিষ্যতে দেশের পোলট্রি ও ফিশারিজ শিল্পের সাফল্যে আরও অবদান রাখার ব্যাপারে অত্যন্ত আশাবাদী।


আরও খবর



‘তিনবছরেই তেলের আমদানি ৪০ শতাংশ কমিয়ে আনা সম্ভব’

প্রকাশিত:Thursday ২৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ১৮জন দেখেছেন
Image

তৈলজাতীয় ফসলের চাষ বাড়ানো গেলে মাত্র তিনবছরেই ভোজ্যতেলের আমদানি ৪০ শতাংশ কমিয়ে আনা সম্ভব বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) গাজীপুরে ব্রির প্রশিক্ষণ কমপ্লেক্সের সভাকক্ষে আয়োজিত শস্য বিন্যাস উন্নয়ন ও ফসলের জাত নির্বাচন পর্যালোচনা কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

ব্রি মহাপরিচালক বলেন, ধান আমাদের প্রধান খাদ্যশস্য। তাই ধাননির্ভর খাদ্যনিরাপত্তার কোনো ব্যতয় ঘটানো যাবে না। সেটি নিশ্চিত রেখে অন্যান্য ক্যাশ ফসল উৎপাদন করার জন্য আমরা ব্রি ও বারি যৌথ উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। আশা করি, এই পদক্ষেপের ফলে উফশী ধানের শস্য বিন্যাসে সরিষা, পেঁয়াজসহ অন্যান্য দামি ফসলের আবাদ অনেকাংশে বৃদ্ধি পাবে।

বর্তমানে দেশের ৮৮ শতাংশ তেলের চাহিদা আমদানিনির্ভর উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই যৌথ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা গেলে আগামী তিনবছরেই তেলের আমদানি ৪০ শতাংশ কমিয়ে আনা সম্ভব হবে।

ব্রির পরিচালক (গবষেণা) ড. মো. খালেকুজ্জামানের সভাপতিত্বে কর্মশালায় সম্মানিত অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কৃষি গবষেণা ইনস্টিটিউটের (বারি) মহাপরিচালক ড. দেবাশীষ সরকার। কর্মশালায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ব্রির রাইস ফার্মিং সিস্টেম বিভাগের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. ইব্রাহিম এবং সরেজমিন গবেষণা বিভাগ, বারির মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মাজহারুল আনোয়ার।

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন শেষে উভয় গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞানীদের সমন্বয়ে দেশের ১৪টি অঞ্চলের শস্য বিন্যাসে আরও কী কী ফসল অন্তর্ভুক্ত করা যায় সে বিষয়ে সাতটি দলগত কর্মপরিকল্পনা উপস্থাপন করা হয়।

কর্মশালায় বারির মহাপরিচালক ড. দেবাশীষ সরকার বলেন, কৃষি মন্ত্রণালয় ও সরকারের নির্দেশনা হচ্ছে- ধান যেহেতু আমাদের প্রধান খাদ্যশস্য সেহেতু ধানের উৎপাদন অক্ষুণ্ণ রেখে অন্যান্য দামি ফসল যেমন- তৈলবীজ, ফলমূল ও শাকসবজি চাষ বাড়াতে হবে যাতে চালের পাশাপাশি অন্য ফসলেও আমরা স্বনির্ভর হতে পারি। কেননা করোনাকালে আমরা দেখেছি অনেক দেশ খাদ্য আমদানিতে হিমশিম খেয়েছে। টাকা থাকা সত্ত্বেও অনেকসময় আমদানি করা যায় না। তাই আমদানি নির্ভরতা কমিয়ে প্রয়োজনীয় সব ফসলে আমাদের স্বনির্ভর হতে হবে। আমরা সে লক্ষ্যে ব্রি-বারি এই যৌথ উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।

কর্মশালায় বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, আঞ্চলিক কার্যালয়ের বিজ্ঞানী এবং বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সরেজমিন গবেষণা বিভাগ ও সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানীরা অংশ নেন।


আরও খবর



‘কোর্টে প্রতারণার আশ্রয় নিতে গেলেও তিনবার চিন্তা করবে’

প্রকাশিত:Wednesday ০৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

আদালতের সঙ্গে প্রতারণা করায় এক কোম্পানির কাছ থেকে এক কোটি টাকা জরিমানা আদায়ের বিষয়টি নজিরবিহীন উল্লেখ করে অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন বলেছেন, কেউ প্রতারণার আশ্রয় নিতে গেলেও তিনবার চিন্তা করবে।

মঙ্গলবার (৭ জুন) ‘এফএমসি ও-২ লিমিটেড’ কোম্পানির কাছ থেকে জরিমানা আদায়ের পর রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা এ কথা বলেন।

এদিন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে কোম্পানিটির প্রতিনিধিরা এই টাকা জমা দেন।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘এফএমসি ও-টু লিমিটেড’ ২০১৭ সালে হাইকোর্টে একটি মামলা করে। তখন ছিল ডিসেম্বর মাস। তখন নিম্ন আদালতে ছুটি ছিল। এ কারণে হাইকোর্টে মামলা করে তারা জানালো তাদের প্রতিষ্ঠানের নাম সিআইবি তালিকায় আসছে। এ কারণে এটি চ্যালেঞ্জ করে নিম্ন আদালতে মামলা দায়ের করবে জানিয়ে আদালত বন্ধ থাকাকালীন নিষেধাজ্ঞা চায়।

তিনি বলেন, তখন আদালত নিষেধাজ্ঞা জারি করে তাদের মামলা করতে বলেন। এরপর ২০১৭ থেকে ২০২১ পর্যন্ত তারা কোনো মামলা করেনি, বরং নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়িয়ে এভাবেই চালিয়ে আসছিল। এরপর যখন তারা আবারও মেয়াদ বাড়াতে আবেদন করলো তখন বিচারপতি আবু তাহের মো. সাইফুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ এটা দেখে বলেন, আপনারা তো মামলাই করেননি। আপনারা এতদিন কী করেছেন?

এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, এ প্রশ্নের কোনো জবাব দিতে না পারায় তাদের আবেদন খারিজ করে এক কোটি টাকা জরিমানা করেন আদালত। এরপর হাইকোর্টের জরিমানার আদেশের বিরুদ্ধে তারা স্থগিত চেয়ে আপিলে আবেদন করেন। কিন্তু সেখানেও তারা সেটি শুনানি না করে ফেরত নিতে চাইলেন। এরই মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে আমাদের তথ্য জানানো হয়। তখন আমরা আদালতকে বললাম, আপনারা যদি এটা ডিসমিস করে দেন তাহলে তারা আর জরিমানার টাকাটা দেবে না। পরে আদালত প্রতিষ্ঠানটিকে টাকা জমা দিয়ে তারপর মামলা প্রত্যাহারের আবেদন করতে বলেন। পরে আজকে তারা টাকা জমা দিলে আদালত তাদের আবেনটি নিষ্পত্তি করে দেন।

এ আদেশ দেশে যুগান্তকারী উল্লেখ করে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, দেশে প্রথমবারের মতো কোর্টের সঙ্গে প্রতারণা করে আদেশ নেওয়ায় তাদের এক কোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ আদেশ বিচারব্যবস্থায় নতুন একটি মাইলফলক। এভাবে কেউ প্রতারণার আশ্রয় নিতে গেলে কম করে হলেও তিনবার চিন্তা করবে।


আরও খবর



নারায়ণগঞ্জ ফতুল্লায় মাদ্রাসা ছাত্রী উদ্ধার অপহরণকারী গ্রেফতার

প্রকাশিত:Sunday ১২ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৯৯জন দেখেছেন
Image

স্টাফ রিপোর্টারঃ মোঃআবু কাওছার মিঠু 

ফতুল্লায় অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রী (১৫) কে উদ্ধারসহ অপহরনকারী সাজ্জাদ হোসেন (২০) কে গ্রেফতার করেছে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ।


গ্রেফতারকৃত সাজ্জাদ হোসেন শরিয়তপুর জেলার পালং মডেল থানার বালাখানা মাদ্রাসার শারজাহান মীরের পুত্র। 


শনিবার (১১ জুন) বিকালে ফতুল্লা মডেল থানার শিয়াচর তক্কার মাঠ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।


এ ঘটনায় অপহৃত মাদ্রাসার ছাত্রীর বাবা খোকন শিকারী বাদী হয়ে অপহরনের অভিযোগ এনে গ্রেফতারকৃত সাজ্জাদ ও তার বাবা শাহজাহান মীরের বিরুদ্ধে  ফতুল্লা মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।


মামলায় উল্লেখ্য করা হয়ে, বাদীর মেয়ে ফতুল্লা থানার দেলপাড়া পেয়ারা বাগানস্থ উম্মোলকোবড়া মহিলা মাদ্রাসায় ৭ম শ্রেনীতে পড়াশুনা করেন।


গ্রেফতারকৃত সাজ্জাদ হোসেন বাদীর বোনের বাসায় যাতায়াত করতো, সেই থেকে বাদীর স্ত্রীর  মোবাইল ফোন নাম্বার নিয়ে প্রায় সময় ফোন দিতো। বাদীর স্ত্রী বাসার কাজে ব্যস্ত থাকায় প্রায় সময় বাদীর মেয়ে ফোনে কথা বলতো। বাদীর মেয়ে মাদ্রাসায় যাতায়াতের পথে প্রায় সময়  সাজ্জাদ প্রেমের প্রস্তাব সহ উত্যক্ত করতো। 


এ নিয়ে পরিবারের সদস্যদের জানালে তারা গ্রেফতারকৃত সাজ্জাদসহ তার অভিভাবকদের অবগত করেন। এতে সাজ্জাদ ক্ষিপ্ত হয়ে আরো বেশী বেপরোয়া হইয়ে উঠে এবং মেয়েকে জোর পূর্বক  তুলে নেওয়ার জন্য হুমকি দিতে থাকে। ১৫ মে রাত সাতটার দিকে  শিয়াচর তক্কারমাঠস্থ লোকমান মিয়ার ফার্মেসীর সামনে রাস্তার উপর পৌছাইলে সাজ্জাদ বাদীর  মেয়েকে জোর পূর্বক একটি সিএনজিতে উঠিয়ে অপহরণ করে একটি অজ্ঞাত স্থানে  নিয়ে যায়। তবে এলাকার একাধিক সূত্র জানিয়েছে বিষয়টি প্রেমঘটিত।


এ বিষয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ফতুল্লা মডেল থানার উপ-পরিদর্শক সাইফুল ইসলাম জানায়, শনিবার দুপুর তিনটার দিকে তক্কার মাঠ স্টেডিয়াম সংলগ্ন রাস্তা থেকে সাজ্জাদকে গ্রেফতারসহ মেয়েটিকে উদ্ধার করা হয়।

 

মাদ্রাসা ছাত্রীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয় এবং গ্রেফতারকৃত সাজ্জাদকে আদালতে পাঠানো হয়।


আরও খবর



‘অর্ডার অব রিও ব্র্যাঙ্কো’ পদক পেলেন আবিদা ইসলাম

প্রকাশিত:Thursday ০৯ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৬৫জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ ও ব্রাজিলের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক উন্নয়নে ‘অর্ডার অব রিও ব্র্যাঙ্কো’ পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন মেক্সিকোতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আবিদা ইসলাম। ব্রাজিল সরকারের দেওয়া এ পুরস্কার আবিদা ইসলামের কাছে হস্তান্তর করেন ঢাকায় নিযুক্ত দেশটির রাষ্ট্রদূত জোয়াও তাবাজারা ডি অলিভেইরা।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, চার বছর পর আমাদের দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ককে আরও শক্তিশালী করার জন্য মহাপরিচালক (আমেরিকা) হিসাবে আমার অবদানের জন্য ব্রাজিল সরকারের কাছ থেকে ‘অর্ডার অব রিও ব্র্যাঙ্কো’ নামে মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার পেয়ে আমি সম্মানিত বোধ করছি।

মঙ্গলবার ঢাকায় নিযুক্ত ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত অলিভেইরা এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে পুরস্কারটি হস্তান্তর করেন। পুরস্কারটি আগে ঘোষণা হলেও কোভিড-১৯ মহামারির কারণে এটি পেতে বিলম্বিত হয়।

মঙ্গলবার (৭ জুন) বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত জোয়াও তাবাজরা ডি অলিভেরা জুনিয়রের হাত থেকে তিনি এ পদক গ্রহণ করেন।

jagonews24

জানা গেছে, ‘দুই বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করতে মহাপরিচালক (আমেরিকা) হিসাবে অবদান রাখায় ব্রাজিল সরকারের কাছ থেকে ‘অর্ডার অফ রিও ব্র্যাঙ্কো’ পদক পেয়েছেন এই কূটনীতিক।

বর্তমানে আবিদা ইসলাম মেক্সিকো সমদূরবর্তী দায়িত্ব হিসেবে কোস্টারিকা, ইকুয়েডর, গুয়াতেমালা ও হন্ডুরাসেও বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করছেন।

বিসিএস পররাষ্ট্র ক্যাডারের ১৫তম ব্যাচের কর্মকর্তা আবিদা ইসলাম। এর আগে সফলভাবে দক্ষিণ কোরিয়ায় বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

এর আগে আবিদা ইসলাম লন্ডন, ব্রাসেলস, কলকাতা ও কলম্বোর বাংলাদেশ মিশনে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। ঢাকায় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগেও কাজ করেছেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের পর আবিদা ইসলাম অস্ট্রেলিয়ার মনাশ ইউনিভার্সিটি থেকে পররাষ্ট্র ও বাণিজ্য বিষয়ে স্নাতকোত্তর করেন।


আরও খবর