Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

শ্বশুরবাড়িতে ঠাঁই না পেয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে গৃহবধূর আত্মহত্যা

প্রকাশিত:Tuesday ১৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২০৮জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে দীর্ঘদিন ধরে শ্বশুরবাড়িতে অধিকার না পেয়ে রুপনা দাস (৩৩) নামের এক গৃহবধূ গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সোমবার (১৮ জুলাই) বিকেলে উপজেলার ৪ নম্বর ধুম ইউনিয়নের দক্ষিণ ধুম গ্রামের রাখাল দের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

শরীরে আগুন দেওয়ার পর গুরুতর আহত হলে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান। মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) ভোর ৬টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় রূপনার বড় বোন বিউটি দাস বাদী হয়ে জোরারগঞ্জ থানায় একটি মামলা করেছেন। পুলিশ রুপনার স্বামী রুপম কুমার দে, শ্বশুর রাখাল কুমার দে, শাশুড়ি বেলা রানি দে, ভাসুর কাঞ্চন কুমার দে ও জা উর্মিকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠিয়েছে।

মামলার বাদী নিহত গৃহবধূর বড় বোন বিউটি দাস জানান, তিন বছর আগে তার বোন রুপনাকে বিয়ে করেন রুপম। বিয়ের এক বছর পর তাদের কোলজুড়ে আসে একটি কন্যা সন্তান। তার নাম রাখা হয় প্রমা দে। মেয়েটির বয়স এখন দুই বছর।

তিনি অভিযোগ করেন, রুপনা রুপমকে বিয়ে করার পর একাধিকবার শ্বশুরবাড়িতে একটু ঠাঁই চান। কিন্তু রুপমের বাবা শিক্ষক রাখাল কুমার দে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। ঘটনার দিন দুপুর আড়াইটার দিকে রুপনা তার কন্যা সন্তানকে নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে গেলে পুনরায় তাড়িয়ে দেয়। এরপর বিষয়টি স্থানীয় ধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর ভূঁইয়াকে জানান। তিনি সুরাহার আশ্বাস দেন। এর এক ঘণ্টা পর স্থানীয় শান্তিরহাট বাজার থেকে একটি ব্যাগে ভরে কেরোসিন কিনে আনেন রুপনা।

তিনি পুনরায় শ্বশুরবাড়ি গিয়ে আশ্রয় এবং তার কন্যা শিশুর অধিকার চান। এরপরও শ্বশুর-শাশুড়ি রুপনা ও তার কন্যাকে আশ্রয় দেননি। বিকেল ৪টার দিকে বাড়ির উঠানে দাঁড়িয়ে গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন রুপনা। এ সময় তার সঙ্গে কন্যা সন্তানও ছিল। তবে শিশুটি আগুনের ভয়ে মায়ের কাছ থেকে সরে যাওয়ায় অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পায়।

বিউটি দাস আরও জানান, নিহত রুপনা দাস মিরসরাই সদরে একটি বিউটি পার্লারের বিউটিশিয়ান। বিয়ের পর থেকে শ্বশুর বাড়িতে স্থান না পেলেও কিছুদিন মিরসরাই সদরে একটি বাসা ভাড়া নিয়ে রুপনা এবং তার স্বামী রুপম বসবাস করতেন। তবে বছরখানেক আগে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বনিবনা না হওয়ায় রুপম তাকে ছেড়ে এলাকা ছেড়ে চলে যান।

স্থানীয় ধূম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম জাহাঙ্গীর ভূঁইয়া বলেন, ‘একটি মেয়ে গৃহবধূর দাবি নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে অবস্থান নিলে বাড়ির লোকজন বিষয়টি আমাকে জানান। পরে আমি গ্রাম পুলিশ পাঠাই। তারা মেয়েটিকে পরিষদে আসতে বললে সে আসতে রাজি হয়নি। পরে শুনলাম নির্মমভাবে মেয়েটি আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় এবং হাসপাতালে মারা যায়।’

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূর হোসেন মামুন বলেন, রুপনা দাসের স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি, ভাসুর ও ভাসুরের স্ত্রীকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।


আরও খবর



হঠাৎ ট্রেনে বগি কমিয়ে দেওয়ায় দুর্ভোগ চরমে ঢালারচরের যাত্রীদের

প্রকাশিত:Wednesday ২০ July ২০22 | হালনাগাদ:Friday ২৯ July ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

পাবনার বেড়া থেকে রাজশাহীগামী ঢালারচর এক্সপ্রেস ট্রেনের বগি সংকটে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রীদের। সিট না পেয়ে যাত্রীরা দাঁড়িয়ে যাতায়াত করছেন। নারী ও শিশুরা বেশি দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। এ ট্রেনের একমাত্র শোভন চেয়ারের বগিটি মেরামতের জন্য মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) নীলফামারীর সৈয়দপুর কারখানায় পাঠানো হয়েছে। বিকল্প ব্যবস্থা না করে বগিটি মেরামতের জন্য পাঠানোর ফলে এ দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে।

হঠাৎ ট্রেনের একটি বগি কমে যাওয়ায় যাত্রীদের দুর্ভোগ বাড়ার পাশাপাশি ট্রেনের টিকেট পরিদর্শককে (টিটিই) বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে। প্রতিটি বগিতে ধারণক্ষমতার চেয়ে দ্বিগুণ যাত্রী যাতায়াত করছে। অতিরিক্ত ভীড়ের কারণে টিটিইরা প্রতিটি যাত্রীর টিকিট পরিদর্শন (চেক) করতে পারছেন না।

জানা যায়, ৬টি বগি নিয়ে রাজশাহী থেকে ঢালারচর রুটে ট্রেনটি চলাচল করে। এ ট্রেনে ৫৩০টি আসন রয়েছে। প্রতিদিন গড়ে এ ট্রেনে প্রায় ৮০০ যাত্রী যাতায়াত করেন। প্রতিটি বগিতে দাঁড়িয়ে যাত্রীরা চলাচল করে। এরমধ্যে ‘খ’ বগিতে ছিল ৯৮টি শোভন চেয়ার। বিকল্প ব্যবস্থা না করে শোভন চেয়ারের বগিটি মেরামতের জন্য কারখানায় পাঠানো হয়। এতে ট্রেনের যাত্রীদের দুর্ভোগ আরো বেড়ে যায়।

বুধবার (২০ জুলাই) ঢালারচর এক্সপ্রেস ট্রেনের যাত্রী আহম্মেদ আলী বলেন, পাবনা থেকে এ ট্রেনে পর্যাপ্ত যাত্রী ওঠে। সব বগিতেই যাত্রী ভরপুর। পাবনাবাসীর দাবি ছিল এই ট্রেনের বগি বাড়ানোর, উল্টো বগি কমিয়ে দুর্ভোগের সৃষ্টি করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন টিকিট পরিদর্শক (টিটিই) বলেন, প্রতিনিয়ত ট্রেনের যাত্রীদের মুখোমুখি হতে হয় টিটিইদের। যাত্রীদের নানা অভিযোগ ও সমস্যা টিটিইদের দেখতে হয়। টিকিট সংগ্রহকারী যাত্রীরা ট্রেনে বসে যেতে না পারলে তারা বিরক্ত হন। তারা এ নিয়ে নানা কটূ কথাও বলেন। ঢালারচর এক্সপ্রেসে বগি সংকটের কারণে চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। এ রুটের যাত্রীরা সবাই টিকিট কেটে যাতায়াত করেন। বিনা টিকিটের যাত্রী এ রুটে নেই বললেই চলে।

পাকশী বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ক্যারেজ ও ওয়াগন) মো. মুনতাজুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, বগিটি মেরামতের সময় হয়ে যাওয়ায় এটি সৈয়দপুর কারখানায় পাঠানো হয়েছে। বিকল্প আর কোনো শোভন চেয়ারের কোচ (বগি) না থাকায় নতুন বগি সংযুক্ত করা সম্ভব হয়নি।

তিনি বলেন, এটি পুরাতন বগি। স্বাভাবিকভাবে একটি বগি মেরামতে এক থেকে দেড় মাস সময় প্রয়োজন হয়। এ বগির ক্ষেত্রে সময় আরো বেশি লাগতে পারে। এই ট্রেনে বগি সংকটের বিষয়টি আমাদের জানা রয়েছে। তাই যতদ্রুত সম্ভব এটি মেরামত করে ট্রেনে সংযুক্ত করা হবে।

পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন বলেন, বগি (কোচ) মেরামত জরুরি হওয়ায় এটি সৈয়দপুর কারখানায় পাঠানো হয়েছে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় নতুন বগি সংযুক্ত করা সম্ভব হয়নি।


আরও খবর



গাইবান্ধায় বিএনপি-ছাত্রদলের ২০ নেতাকর্মী কারাগারে

প্রকাশিত:Tuesday ১৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

বিশেষ ক্ষমতা আইনের এক মামলায় গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বিএনপি ও ছাত্রদলের ২০ নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দুপুরে গাইবান্ধা জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক ফেরদৌস ওয়াহিদ জামিন নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। এর আগে ওই ২০ নেতাকর্মী আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন।

কারাগারে যাওয়া নেতাকর্মীদের মধ্যে রয়েছেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব মাহামুদুল প্রামাণিক মাহামুদ ও ছাত্রদল নেতা মারুফ প্রামাণিক। তবে তাৎক্ষণিক বাকিদের পরিচয় জানা যায়নি।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ফারুক আহম্মেদ প্রিন্স বলেন, ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের কয়েকদিন আগে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা শহরের একটি বাসায় বিএনপি, জামায়াত ও ছাত্রদলের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী জাতীয় নির্বাচনের দিন ভোটকেন্দ্রে নাশকতার পরিকল্পনায় গোপন বৈঠক করছিলেন। ওই সময় পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিএনপি-জামায়াতের ছয় নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে। তখন তাদের কাছ থেকে জিহাদি বই উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ঘটনায় পরদিন সুন্দরগঞ্জ থানার তৎকালীন পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) রাজেন্দ্র মোহন চাকি বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনে থানায় মামলা করেন। সেই মামলায় ৪৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৭০ থেকে ৮০ জন বিএনপি, জামায়াত ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়। মামলার পর থেকে আত্মগোপনে থাকেন তারা। মঙ্গলবার দুপুরে ২০ আসামি আদালতে সশরীরে আত্মসমর্পণ করে জামিন চাইলে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।


আরও খবর



লক্ষ্মীপুরে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীকে মারধর

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
Image

লক্ষ্মীপুরে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী আলতাফ হোসেনকে (ঘোড়া) মারধরের অভিযোগ উঠেছে নৌকার সমর্থকদের বিরুদ্ধে। বুধবার (২৭ জুলাই) সকাল ৮টার দিকে সদর উপজেলার দিঘলী ইউনিয়নের উত্তর দূর্গাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

হামলাকারীদের আঘাতে আলতাফ হোসেনের নাক-ঠোট ফেটে যায়। তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে রাজাপুর মুসলিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের কাছে সকাল ৯টার দিকে ৫-৬টি ককটেল বিস্ফোরণ করেছে দুর্বৃত্তরা। নৌকায় ভোট না দিলে কেন্দ্রে আসতে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ভোটারদের বাধা দিচ্ছে বহিরাগত আওয়ামী লীগ নেতারা।

স্বতন্ত্রপ্রার্থী আলতাফ হোসেন অভিযোগ করে জানান, কেন্দ্র পরিদর্শনে গেলে নৌকার প্রার্থী জাবেদের ভাই জসিম ও সজিবসহ তাদের লোকজন হামলা করে। তার নাখ মুখ ফাটিয়ে দিয়েছে। অকথ্য ভাষায় তাকে আওয়ামী লীগের লোকজন গালামন্দ করেছে। তার মোবাইল নিয়ে গেছে। প্রশাসনকে বললেও তারা কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না। আওয়ামী লীগের বহিরাগতরা কেন্দ্রে কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছে।

তবে নৌকার প্রার্থী সালাউদ্দিন চৌধুরী জাবেদ বিষয়টি অস্বীকার করে জানান, সুষ্ঠুভাবে ভোট গ্রহণ চলছে। পরস্থিতি ঘোলাটে করতে আলতাফ ভুয়া অভিযোগ করছে। তার ওপর কোনো হামলা করা হয়নি৷

সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জয়নাল আবেদীন বলেন, আলতাফের শরীরে জখমের চিহ্ন রয়েছে। তাকে হাসপাতালে ভর্তি দেওয়া হয়েছে।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোসলেহ উদ্দিন বলেন, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল মোবাইল টিম পাঠিয়েছি। কে বা কারা ঘটনা ঘটিয়েছে তা শনাক্ত করা যায়নি। হামলার ঘটনায় নির্দিষ্ট কোনো অভিযোগও নেই। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে আমরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছি।

দিঘলী উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ইভিএমে ভোটগ্রহণ চলছে। এছাড়া রামগতি উপজেলার বড়খেরি ও চর আবদুল্লাহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সদস্য পদে ভোটগ্রহণ চলছে। বড়খেরিতে দুজন ও চর আবদুল্লাহতে দুজন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ দুই ইউনিয়নে ৭৮ জন সদস্য প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বী রয়েছেন।


আরও খবর



বর্ষায় পাতে রাখুন সুস্বাদু লতি চিংড়ি

প্রকাশিত:Saturday ৩০ July ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

বর্ষাকালে কচুর লতি সব জায়গায়ই পাওয়া যায়। চিংড়ি মাছও খালে-বিলে প্রচুর। তাই এ সময়ে বাঙালির পাতে লতি চিংড়ির আবেদনই আলাদা। লতি চিংড়ি খেতে ভালোবাসেন না এমন লোক খুঁজে পাওয়া যাবে না। তবে সব কিছুর আগে কচুর লতি রান্নার রেসিপি জানতে হবে।

চলুন জেনে নিই লতি চিংড়ি কীভাবে রাঁধবেন-

উপকরণ
কচুর লতি ৫০০ গ্রাম
চিংড়ি ২৫০ গ্রাম
নারকেল দুধ ১ কাপ
আদাবাটা ১ চা-চামচ
মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ
রসুন বাটা ১ চা-চামচ
হলুদ সামান্য
লবণ স্বাদমতো
পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ
সরিষার তেল আধা কাপ
কাঁচামরিচ ৪-৫টি।

প্রণালি
লতি ছোট করে কেটে একটু ভাপ দিয়ে পানি ঝরিয়ে নিতে হবে। কড়াইয়ের তেল গরম হয়ে এলে পেঁয়াজ দিন, সোনালি রং হলে একে একে সব মসলা দিয়ে কষাতে হবে।

এবার চিংড়ি ও লতি দিয়ে কষিয়ে নারকেল দুধ দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। কাঁচামরিচ দিয়ে কিছুক্ষণ দমে রেখে তেল উঠে মাখা মাখা হলে নামিয়ে নিতে হবে।


আরও খবর



বাসে গৃহবধূকে ধর্ষণ: আদালতে পাঁচ আসামির স্বীকারোক্তি

প্রকাশিত:Sunday ০৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

গাজীপুরে তাকওয়া পরিবহনের একটি বাসে গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার পাঁচ আসামি আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। রোববার (৭ আগস্ট) বিকেলে পৃথক আদালতে তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

এছাড়া ধর্ষণের শিকার ওই গৃহবধূর ডাক্তারি পরীক্ষা দুপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সম্পন্ন হয়েছে।

হাসপাতালে চিকিৎসক এএনএম আল মামুন জানান, ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। তারপরও ধর্ষণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য ওই নারীর ডিএনএ পরীক্ষা জন্য আলামত পাঠানো হয়েছে।

গাজীপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক ইখলাস উদ্দিনের আদালতে আসামি সজিব ও শাহীন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। মো. রকিব মোল্লা ও সুমন হাসান জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ইসরাত জেনিফার জেরিনের আদালতে ও আসামি মো. সুমন খান জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জুবাইদা নাসরিন বর্নার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

এছাড়া ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট রিফাত আরা সুলতানার আদালতে জবানবন্দি দেন।

পুলিশ সুপার এসএম শফিউল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, আসামিরা ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত থাকার কথা প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছে। ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশের কয়েকটি টিম তথ্যপ্রযুক্তি ও বিভিন্ন সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে আসামিদের শনাক্ত করতে সক্ষম হয়। ঘটনার ১২ ঘণ্টার মধ্যে জড়িত সব আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শ্রীপুর থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল আজিজ বলেন, ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ প্রথমে শ্রীপুরের কদমতলী এলাকা থেকে তিনজনকে গ্রেফতার করে। পরে গাজীপুর মহানগরীর চান্দনা চৌরাস্তা এলাকা থেকে অপর দুজনকে গ্রেফতার বাসটি জব্দ করা হয়।

মো. রাকিব মোল্লা (২৩) নারায়নগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানার দরিপাড়া গ্রামের আলী আকবরের ছেলে, সুমন খান (২০) নেত্রকোনা জেলার সদর উপজেলার গুপিরঝুপা গ্রামের মৃত সানোয়ারের ছেলে। তিনি ওই বাসের চালক, মো. সজিব (২৩) ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশাল থানার কাঁঠালকাচারি গ্রামের মৃত কফিলের ছেলে, মো. শাহিন মিয়া (১৯) একই জেলার হালুয়াঘাট থানার বিলডোলা গ্রামের তুলা মিয়ার ছেলে ও মো. সুমন হাসান (২২) খুলনার রূপসা থানার খান মোহাম্মদপুর গ্রামের মৃত নুর আলমের ছেলে।

এর আগে শনিবার নওগাঁ থেকে ভোর ৩টার দিকে গাজীপুর মহানগরের ভোগড়া বাইপাসে স্বামীর সঙ্গে নামেন এক নারী। ময়মনসিংহের স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকায় ভাড়া বাড়িতে যেতে অপর একটি গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন। ভোর ৩টা ১০মিনিটে স্কয়ার মাস্টারবাড়ি যাওয়ার উদ্দেশে তাকওয়া পরিবহনে উঠে ওই বাসে ৬-৭ জন যাত্রীর দেখতে পান। রওনা দেওয়ার কিছু সময় পর বাসটি ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের হোতাপাড়ায় পৌঁছালে দুজন যাত্রী নেমে যান। রাত ৩টা ৪০ মিনিটে বাসটি মহাসড়কের মাওনা চৌরাস্তা ফ্লাইওভার পার হয়ে কিছু দূর সামনে গেলে চলন্ত বাসে থাকা অজ্ঞাতনামা ২-৩ জন লোক হঠাৎ ওই নারীর স্বামীকে মারধর শুরু করলে তাদের ঠেকানোর চেষ্টা করেন ওই নারী।

এ সময় অজ্ঞাত লোকজন ওই নারীর মুখ চেপে ধরে রাখেন এবং তার স্বামীকে মারধর করে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের এমসি বাজার এলাকায় চলন্ত বাস থেকে ফেলে দিয়ে ওই নারীকে ঢাকার দিকে চলে যায়। স্বামী বাস থেকে পড়ে আঘাত পেয়ে স্কয়ার মাস্টারবাড়ি এলাকার বোনের বাসায় চলে যান। সকালে অপরিচিত একটি মোবাইল থেকে ফোন করে ওই নারী বিস্তারিত ঘটনা জানান। তিনি জয়দেবপুর থানায় আছেন বলে স্বামীকে জানান।


আরও খবর