Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

স্বাস্থ্যমন্ত্রীর রাসেলস ভাইপার নিয়ে জরুরি নির্দেশনা

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৮৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন সারাদেশের হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত এন্টিভেনম মজুদ রাখার নির্দেশ দিয়েছেন ।

আজ শনিবার সকাল ১০টায় সারাদেশের সিভিল সার্জন, পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা, বিভাগীয় পরিচালক, মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালকদের সঙ্গে অনলাইন প্লাটফর্ম জুম মিটিংয়ে তিনি এ নির্দেশনা দেন।

সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেশের বিভিন্ন জেলার সিভিল সার্জন ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক, বিভাগীয় পরিচালকদের সঙ্গে সর্পদংশন ও রাসেলস ভাইপার নিয়ে কথা বলেন এবং সামগ্রিক পরিস্থিতি নিয়ে খোজ খবর নেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাসেল'স ভাইপার নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে আমি জনগণকে বলব আপনারা আতংকিত হবেন না। রাসেলস ভাইপারের যে এন্টিভেনম সেটা আমাদের হাসপাতালগুলোতে পর্যাপ্ত মজুদ আছে। আমি পরিষ্কার নির্দেশ দিয়েছি কোনো অবস্থাতেই এন্টিভেনমের ঘাটতি থাকা যাবে না।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, সর্পদংশনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে রোগীকে দ্রুত ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া। অনতিবিলম্বে ডাক্তারের কাছে নিয়ে গেলে যথাযথ চিকিৎসার মাধ্যমে রোগীকে সম্পূর্ণ সুস্থ করে তোলা সম্ভব।

তিনি বলেন, সর্পদংশনের বিষয়ে জনগণকে সচেতন করা খুবই জরুরি। রোগীকে হাসপাতালে আনতে যাতে দেরি না হয় সে বিষয়ে সবাইকে সচেতন ও উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

সভায় স্বাস্থ্যসেবা স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. জাহাঙ্গীর আলম, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক প্রফেসর ডা. রুবেদ আমিনসহ স্বাস্থ্য বিভাগের বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



বাজেট পাস হয়নি,অনেক কিছু পুনর্বিবেচনা করা সম্ভব: অর্থমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৪৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:জাতীয় সংসদের বাজেট পেশ করার পর নানা মহল থেকে নানা প্রতিক্রিয়া আসছে,বলেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী।আমরা সব প্রতিক্রিয়া আমলে নিচ্ছি। যেগুলো বাস্তবসম্মত এবং বাজেটে বাস্তবায়নযোগ্য সেগুলো অবশ্যই পুনর্বিবেচনা করা হবে। কারণ এখনো বাজেট পাস হয়নি।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) রাজধানীর ফার্মগেটে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল (বিএআরসি) মিলনায়তনে ‘বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের অর্থনীতি : প্রবৃদ্ধি, মুদ্রাস্ফীতি, খাদ্য ও পুষ্টি’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, বাজেট পেশ করার পর নানা মহল নানা বক্তব্য দিচ্ছে। আবার অনেকেই সমালোচনা করছেন। তাদের উদ্দেশে বলব আমাদের অর্থনীতি নিয়ে, বাজেট নিয়ে বিশ্বব্যাংক কি বলছে সেদিকেও নজর দিয়েন।

তিনি বলেন, বাজেট নিয়ে আরও বক্তব্য আছে, বিশ্বব্যাংক বলেছে ভালো হয়েছে। আমার টাকা লাগবে, বিশ্বব্যাংকের কথা শুনতে হবে। না হলে আপনারা (সমালোচকরা) টাকা দেন।

আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেন, শেখ হাসিনা সরকার জনবান্ধব সরকার। অনেকেই বলে, সরকার শিগগিরই পড়ে যাবে, কই সরকার তো পড়ে না। সরকার দেউলিয়া হয়ে গেছে, দেউলিয়া মানে কি? দেউলিয়া তো হলো না। বিশ্বব্যাংক কিছু বোঝে না, আপনি সব কিছু বোঝেন? বাজেট দিলাম, এটা দেখেন ও বোঝার চেষ্টা করেন। এই বাজেট জনবান্ধব বাজেট। কোনো কিছুতে সমস্যা থাকলে পুনর্বিবেচনা করার সম্ভাবনা আছে।

সংসদ সদস্য সাজ্জাদুল হাসানের সভাপতিত্ব সেমিনারে আরও বক্তব্য দেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু, বাংলাদেশে নিযুক্ত জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার প্রতিনিধি ড. জিয়াকুন শি, সাবেক পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম প্রমুখ।


আরও খবর



জুনে প্রবাসী আয় এলো ২৫৪ কোটি ডলার, তিন বছরের মধ্যে

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৩৮জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক:প্রবাসী আয় গেল জুন মাসে ২৫৪ কোটি ডলার এসছে। গত তিন বছরে এটি সর্বোচ্চ। এর আগে ২০২০ সালের জুলাইয়ে এসেছিল ২৫৯ কোটি ডলার প্রবাসী আয় । সোমবার (১ জুলাই) বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা যায়।

জুনের প্রথম ১২ দিনে প্রবাসী বাংলাদেশিরা ব্যাংকের মাধ্যমে ১৪৬ কোটি ডলারের আয় দেশে পাঠান। আর ২৩ জুন পর্যন্ত তারা পাঠিয়েছেন ২০৫ কোটি ২০ লাখ ডলার। ২৮ থেকে ৩০ জুন এই তিন দিনে দেশে প্রবাসী আয় আসে ১৬ কোটি ৭০ লাখ ডলার। সব মিলিয়ে পুরো মাসে দেশে প্রবাসী আয় এসেছে ২৫৪ কোটি ২০ লাখ ডলার। গত বছরের জুনে ২১৯ কোটি ৯০ লাখ ডলারের প্রবাসী আয় দেশে এসেছিল।

এর আগে মে মাসে এসেছে ২২৫ কোটি ৩৮ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয়। সে হিসাবে মে মাসের তুলনায় জুনে ২৮ কোটি ৮২ লাখ ডলার বেশি এসেছে। আর গত বছরের একই মাসের তুলনায় বেশি এসেছে ৩৪ কোটি ৩০ লাখ ডলার। গত বছরের জুন মাসে এসেছিল ২১৯ কোটি ৯০ লাখ ডলারের রেমিট্যান্স।

অন্যদিকে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের পুরো সময়ে এসেছে ২৩ দশমিক ৯২ বিলিয়ন ডলার বা ২ হাজার ৩৯১ কোটি ৫০ লাখ ডলার। এর আগের অর্থবছরে এসেছিল ২ হাজার ১৬১ কোটি ডলার। সে হিসাবে এক বছরের ব্যবধানে রেমিট্যান্স বেড়েছে ২৩১ কোটি ডলার।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, রেমিট্যান্সে ডলারের ক্ষেত্রে অনানুষ্ঠানিক চ্যানেলের সঙ্গে ব্যাংকের দরে পার্থক্য কমে এসেছে। আবার বর্তমান পরিস্থিতিতেও বাংলাদেশ ব্যাংক রেমিট্যান্স বাড়াতে অনেক চেষ্টা করছে। ব্যাংকগুলো প্রবাসীদের উৎসাহিত করছে, এতে রেমিট্যান্স বাড়ছে। আগামীতেও বাড়বে বলে জানান তারা।


আরও খবর

রিজার্ভ কমল ১৩২ কোটি ডলার

বৃহস্পতিবার ১১ জুলাই ২০২৪

বাড়ল স্বর্ণের দাম

রবিবার ০৭ জুলাই ২০২৪




মাগুরায় জনগনের প্রচেষ্টায় মৃতপ্রায় খালের প্রান ফিরে পেল

প্রকাশিত:সোমবার ০১ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১১৭জন দেখেছেন

Image
স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরার শালিখা উপজেলায় কানুদা খালের পানির প্রবাহ ফেরাতে কচুরিপানা পরিষ্কারের উদ্যোগ নেয় উপজেলা প্রশাসন। স্থানীয় জনগনকে সম্পৃক্ত করে  সম্প্রতি কয়েক শ স্বেচ্ছাসেবক ও নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের অংশগ্রহণে কার্যক্রমটি বাস্তবায়িত হয়েছে। কর্মকর্তারা বলেন, কচুরিপানা সরিয়ে পানি প্রবাহ ফিরে এলে খালের পানি স্থানীয় লোকজন নানা কাজে ব্যবহার করতে পারবেন এ কারনেই এ উদ্যোগ নেয়া হয়। আর এ উদ্যোগ বাস্তবায়নের ফলে মৃতপ্রায় খালটি প্রান ফিরে পেয়েছে। প্রশাসনের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে এলাকাবাসী।


স্বেচ্ছাসেবকদের পাশাপাশি শ্রমিকদের নিয়ে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে খালের দেড় কিলোমিটারের কচুরিপানা পরিষ্কার করা হয়েছে বলে জানায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হরে কৃঞ্চ অধিকারী।  সম্প্রতি উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আবু নাসের বেগ। এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আবদুল কাদের, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াসুর রহমান, জেলা পরিষদ সদস্য মুন্সী আবু হানিফসহ বিভিন্ন শ্রেণি–পেশার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। পরে খাল-সংলগ্ন ইকোপার্কে বৃক্ষ রোপণ করা হয়।  খালটি দীর্ঘদিন যাবত কচুরিপানায় পরিপূর্ণ হয়ে পানি প্রবাহ বন্ধ হয়েছিল। ফলে জনগনের কোন উপকারে আসছিল না।  কয়েক'শ স্বেচ্ছাসেবক ও স্থানীয় জনগন ঐক্যবদ্ধ হয়ে খালটির কচুরিপানা পরিস্কার করে খালের প্রান ফিরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে। বর্তমানে খালটির পানি প্রবাহ চালু হওয়ায় জনগন এর সুবিধা পাচ্ছে।


আরও খবর



ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনালে ভারত

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৮০জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে ফাইনালে উঠল ভারত। ১৭১ রানের জবাবে খেলতে নেমে ১৬.৪ ওভারে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ১০৩ রান তোলে ইংল্যান্ড। এতে ৬৮ রানের জয় পায় রোহিত শর্মার দল।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) গায়ানার প্রভিডেন্স স্টেডিয়ামে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি ভারতের। বিরাট কোহলি আরও একবার ব্যর্থ হন। তৃতীয় ওভারে ৯ বলে ৯ রানে ফেরেন তিনি। তিনে নামা ঋষভ পান্তও টিকতে পারেননি বেশিক্ষণ। মাত্র ৬ বলে ৪ রান করেন পান্ত।

তবে ওপেনার রোহিত শর্মার ব্যাট জ্বলে ওঠে। তাকে দারুণ সঙ্গ দিয়েছেন সূর্যকুমার যাদব। ৩৯ বলে ৫৭ রান করে বোল্ড হয়ে যান রোহিত। তার আউটের এক ওভার পর ফিরে যান সূর্যকুমারও। ৩৬ বলে ৪৭ রান করে জফরা আর্চারের বলে লং অনে দাঁড়ানো ক্রিস জর্ডানের হাতে ক্যাচ দেন তিনি।

পরে মাঠে নেমে ঝড় তোলার চেষ্টা করেন হার্দিক পান্ডিয়া। তবে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। তিনি ১৩ বলে ২৩ করে সাজঘরে ফেরেন। শেষদিকে নেমে ৬ বলে ১০ রান করেন অক্ষর প্যাটেল। ৯ বলে ১৭ রানে অপরাজিত ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। সবশেষ ৭ উইকেট হারিয়ে ১৭১ রান তোলে ভারত।

ইংল্যান্ডের হয়ে তিন ওভারে ৩৭ রানে তিন উইকেট নিয়েছেন ক্রিস জর্ডান।

রান তাড়ায় শুরুটা ভালোই করেছিল ইংল্যান্ড। তবে জস বাটলার ১৫ বলে ২৩ করে আউটের পর খেই হারিয়ে ফেলে ব্যাটাররা। ৩৫ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর সেখান থেকে আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি ইংলিশরা। দলটির হয়ে সর্বোচ্চ ২৫ রান করেন হ্যারি ব্রুক। এ ছাড়া আর্চার ১৫ বলে ২১ রান করেন। আর বাকি ব্যাটাররা ভারতীয় বোলারদের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি।

ভারতের হয়ে তিনটি করে উইকেট পান কুলদ্বীপ যাদব ও অক্ষর প্যাটেল। ফাইনালে ভারতের প্রতিপক্ষ দক্ষিণ আফ্রিকা।


আরও খবর



দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ৭০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাত্র ১৫ বছরে আমরা এই যে উন্নতি করতে পারলাম, পরিকল্পিতভাবে কাজ করেছি বলেই এটা সম্ভব হয়েছে।

রোববার (১৪ জুলাই) সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে জাতীয় রপ্তানি ট্রফি ২০২১-২২ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা প্রেক্ষিত পরিকল্পনা নিচ্ছি এবং পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা নিচ্ছি। ২০১০ সাল থেকে ২১ সাল পর্যন্ত যে প্রেক্ষিত পরিকল্পনা করেছিলাম, যে লক্ষ্য স্থির করেছিলাম, এটা আমরা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি।

তিনি বলেন, ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা স্বল্পোন্নত দেশ রেখে গিয়েছিলেন। এরপর ২৯ বছর এদেশের মানুষের জীবনে কোনো উন্নতি হয়নি, পরিবর্তন ছিল না।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর আমরা দেশকে এগিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী করতে পেরেছি।

-খবর প্রতিদিন/ সি.


আরও খবর