Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় অবৈধ ক্লিনিক বন্ধ না হলে অ্যাকশনে যাবে

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৫২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন জানিয়েছেন অবৈধ ক্লিনিকের কার্যক্রম বন্ধ না করলে, তাদের বিরুদ্ধে অ্যাকশন নেওয়া হবে।

রোববার (২৮ জানুয়ারি) সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, অবৈধ এবং লাইসেন্স ছাড়া যে হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার আছে, আমি এ ব্যাপারে কথা বলেছি। হঠাৎ করে বন্ধ করলে তো হবে না। আমাকে তো পরীক্ষা করতে হবে। আমার কাছে তালিকা এসেছে, আমরা সেই তালিকা ধরে কাজ করব। কোনো হাসপাতাল অবৈধ কিংবা ইলিগ্যালভাবে কাজ করবে, সেটা অন্তত আমি হতে দেব না। এ ব্যাপারে আমার কঠোর নির্দেশ।

তিনি আরও বলেন, আমি আগেও বলেছি এখনও বলছি, যারা এ ধরনের ক্লিনিক চালাচ্ছেন তারা তাদের কার্যক্রম বন্ধ করুন। না হলে আমরা কিন্তু তার বিরুদ্ধে অ্যাকশন নেব এবং তাদেরকে একটা সময় দেব। হঠাৎ করে আমরা একটা ক্লিনিক বন্ধ করতে পারি না। একটা নিয়ম আছে, প্রসিডিউর আছে। আমি সেভাবে এগোব।

সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে সামন্ত লাল সেন বলেন, রাতারাতি কোনো কিছু পরিবর্তন করা সম্ভব না। মানুষের আস্থা নেই বললেই মানুষ চলে যাচ্ছে। আমাদের দেশের মানুষ ভারত যাচ্ছে, ব্যাংকক যাচ্ছে। রংপুর থেকে মানুষ ঢাকায় আসছে, তার মানে আস্থাহীনতার অভাব। আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে।

ফিরিয়ে আনতে হলে গ্রাস রুট লেভেলে কাজ করা, যেটি আমি শুরু করেছি মাত্র। আমাকে আরও সুযোগ দিতে হবে। আমি চেষ্টা করছি। আমি পারব না শতভাগ, তবে আমি চেষ্টা করব, বলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।


আরও খবর



ছিনতাইয়ের নাটক সাজিয়ে ব্যবসায়ীর টাকা আত্মসাৎ, গ্রেপ্তার ২

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৬জন দেখেছেন

Image

বাগেরহাট প্রতিনিধি:বাগেরহাটের মোল্লাহাটে ছিনতাইয়ের নাটক সাজিয়ে মাছ ব্যবসায়ীর ৬ লাখ ৩৫ হাজার টাকা আত্মসাতের ঘটনায় পিকআপ চালকসহ দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে গ্রেফতারদের আদালতের সোপর্দ করেছে পুলিশ। তাদের কাছ থেকে নগদ পাঁচ লাখ ৮০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- মোল্লাহাট উপজেলার বড়গাওলা এলাকার মৃত সৈয়দ বিশ্বাসের ছেলে সুজন বিশ্বাস (৩০) এবং গাওলা এলাকার রুবেল ইসলাম বরকতের ছেলে মোহাম্মাদুল্লাহ শেখ ওরফে বাঁধন (১৮)।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ২৮ জানুয়ারি মোল্লাহাট উপজেলার নাশুখালী বাজারের মাছ ব্যবসায়ী আশিষ কুমার মণ্ডল যশোরের এমএমসি মাছের কোম্পানিতে পিকআপে করে মাছ সরবরাহ করেন। মাছ সরবরাহ শেষে ফিরে আসার সময় পিকআপ চালক সুজন বিশ্বাস পূবালী ব্যাংকের ফকিরহাট থেকে এমএমসি কোম্পানির পাঠানো আট লাখ ৩৫ হাজার টাকা চেকের মাধ্যমে উত্তোলন করেন। পরে ফকিরহাটের ফলতিতা বাজারে পৌঁছালে আশিষ কুমার মণ্ডলের ম্যানেজার রমেনকে নগদ দুই লাখ টাকা প্রদান করেন সুজন। অবশিষ্ট ছয় লাখ ৩৫ হাজার টাকা নিয়ে পিকআপ চালিয়ে নাশুখালি বাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হয় সুজন বিশ্বাস। পরে একটি অপরিচিত মোবাইল নাম্বার ০১৭৮২-১৪৪০৯০ থেকে ব্যবসায়ী আশিষ কুমার মণ্ডলকে জানানো হয়, পিকআপ চালক সুজন কেন্দুয়া জোড়া ব্রিজের কাছে অসুস্থ অবস্থায় পড়ে আছে। তার নিকট থেকে টাকা ছিনতাই হয়ে গেছে। আশিষ ঘটনাস্থলে পৌঁছে সুজনকে উদ্ধার করেন। টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় সুজনকেই সন্দেহ হয় ব্যবসায়ী আশিষ মণ্ডলের। পরে থানায় মামলা দায়ের করেন তিনি।  

মোল্লাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আশরাফুল আলম বলেন, ব্যবসায়ী আশিষ কুমার মণ্ডলের অভিযোগ পাওয়ার পর থেকেই পুলিশ খুবই গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত শুরু করে। তদন্তে জানতে পারি ছিনতাইয়ের নাটক সাজিয়ে সুজন টাকাগুলো আত্মসাতের চেষ্টা করেছেন। এর অংশ হিসেবে মোহাম্মাদুল্লাহ শেখ ওরফে বাঁধন ঢাকা থেকে মোল্লাহাট এসে টাকা নিয়ে আবার ঢাকায় চলে যায়। সুজনকে গ্রেপ্তার করা হলে বিষয়টি স্বীকার করেন।  

তিনি আরও বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির সহযোগিতায় বৃহস্পতিবার মোহাম্মাদুল্লাহ শেখ ওরফে বাঁধনকে ঢাকায় তার ভাড়াবাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বাসা থেকে পাঁচ লাখ ৮০  হাজার টাকা জব্দ করা হয়। অবশিষ্ট টাকা উদ্ধারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। গ্রেপ্তার দুজনকে আদালতে সোপর্দ করা হলে তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।


আরও খবর

ঢাকায় মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ২৬

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মিয়ানমারের ৯৫ সীমান্তরক্ষী অস্ত্রসহ বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:এখন পর্যন্ত  মায়ানমারের অভ্যন্তরে চলমান সংঘর্ষের জেরে সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশ (বিজিপি) এর ৯৫ জন সদস্য অস্ত্রসহ বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) তাদেরকে নিরস্ত্রীকরণ করে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়েছে। এ ব্যাপারে পরবর্তী কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

রোববার (৪ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফুল ইসলাম গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে চলমান সংঘর্ষের জেরে এখন পর্যন্ত দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) ৯৫ জন সদস্য অস্ত্রসহ বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তুমব্রু সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। বিজিবি তাদের নিরস্ত্রীকরণ করে নিরাপদ আশ্রয়ে নিয়েছে। এর মধ্যে আহত ১৫ জন সদস্যের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে পরবর্তী কার্যক্রম চলমান রয়েছে বলেও জানান তিনি।

তিনি জানিয়েছিলেন এর আগে, রোববার ভোর থেকে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির সদস্যরা প্রাণ বাঁচাতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া শুরু করেন। বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির তুমব্রু সীমান্ত এলাকা দিয়ে তারা বাংলাদেশে প্রবেশ করেন।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে সম্প্রতি জোরোলো অভিযান শুরু করেছে আরকান আর্মিসহ দেশটির বিদ্রোহী গ্রুপগুলো। ফলে দেশটির বিভিন্ন স্থানে বিশেষ করে সীমান্ত এলাকাগুলোতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বা যুদ্ধ চলছে। গত কয়েক সপ্তাহে দেশটির বহু সেনা উত্তরপশ্চিম সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে আশ্রয় নিয়েছেন। গত সপ্তাহ থেকে বাংলাদেশ সীমান্তেও সংঘর্ষ ভয়ংকর রূপ নিয়েছে। দুপক্ষের ছোড়া গুলি ও মর্টার শেল এসে পড়ছে বাংলাদেশের ভেতরে।


আরও খবর



কালিয়াকৈরে সেই শিক্ষক হত্যার আসামিদের গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৯জন দেখেছেন

Image
সাগর আহম্মেদ,কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:গাজীপুরের কালিয়াকৈরে সরকারি কলেজের সেই শিক্ষক হত্যার মূল পরিকল্পনাকারীসহ তিন আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-১। মঙ্গলবার দুপুরে র‌্যাব-১ সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

গ্ৰেপ্তারকৃতরা হলেন- উপজেলার সাজনধারা এলাকার মৃত আফাজ উদ্দিনের ছেলে মজিবর (৫০), তার ছেলে সিজান (২০) এবং তার ভাই মোহাম্মদ আলী (৬৫)।

র‌্যাব-১ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ জানুয়ারি বিকেল ৪টার দিকে কালিয়াকৈর উপজেলার ঢালজোড়া ইউনিয়নের সাজনধারা এলাকায় অধ্যাপক রেজা সাইদ আল মামুনকে মজিবুর রহমান তার ছেলে সুমন ও সাজান এবং অপর ভাই মোহাম্মদ আলী কাঠের লাঠি, দেশীয় অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি পিটিয়ে হত্যা করে। পরে তার বাড়ী-ঘর ভাংচুর করাসহ হুমকি ধমকি দিয়ে আসামিরা পালিয়ে যায়। এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় রাতেই নিহতের স্ত্রী হাসিনা আক্তার বাদী হয়ে ওই চারজনের নাম উল্লেখ করে কালিয়াকৈর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরের দিন গত ২৯ জানুয়ারি অভিযান চালিয়ে হত্যাকান্ডের হুকুম দাতা মোহাম্মদ আলীকে গ্ৰেপ্তার করে র‌্যাব-১। গত ৩০ জানুয়ারি রাত ৩টার দিকে র‌্যাব-১ অভিযান চালিয়ে হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী মজিবুর ও তার ছেলে সিজানকে গ্ৰেপ্তার করে। এর আগে তারা গাজীপুর মেট্রোপলিটনের কোনাবাড়ী থানার জয়েরটেক এলাকায় আত্মগোপনে ছিলেন। র‌্যাবের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মূল পরিকল্পনাকারী মজিবুরের ভাষ্যমতে,  তার ও নিহতের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। উক্ত বিরোধ জের ধরে মোহাম্মদ আলীর হুকুমে পূর্ব পরিকল্পনা মতে ওইদিন তারা অর্তকিতভাবে ওই শিক্ষককে গুরুতর নীলাফুলা জখম করে। পরে তার মৃত্যু নিশ্চিত করে আসামাীগন পালিয়ে যায় মর্মে স্বীকার করে।

সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার ও সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া অফিসার) মোঃ পারভেজ রানা বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গ্রেপ্তারকৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কালিয়াকৈর থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, নিহত রেজা সাইদ আল মামুন উপজেলার সাজনধারা এলাকার মৃত আফাজ উদ্দিনের ছেলে। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু সরকারি কলেজের অর্থনীতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ছিলেন। 

আরও খবর



সুন্নতে খতনা করাতে গিয়ে আবারও শিশু মৃত্যু, ২ চিকিৎসক গ্রেপ্তার, ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সুন্নতে খতনা করাতে গিয়ে মালিবাগে আরেক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) মালিবাগের জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে আহনাফ তাহমিন আয়হাম (১০) নামে মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে।

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা হাতিরঝিল থানায় মামলা করেছেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ওই ডায়াগনস্টিক সেন্টারের দুই চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এছাড়া সেন্টারটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আওলাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সুন্নতে খতনা করাতে গিয়ে শিশু আয়হাম মৃত্যুর ঘটনায় মামলা করেছেন শিশুটির বাবা। ডা. এস এম মুক্তাদিরসহ তিনজনের নাম উল্লেখ করে আরও ৫ জন অজ্ঞাতনামার বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তিনি।

ওসি বলেন, এ ঘটনায় জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারটি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। আর দুজন চিকিৎসককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

স্বজনদের অভিযোগ, লোকাল অ্যানেস্থেসিয়া দেওয়ার কথা থাকলেও তারা ফুল অ্যানেস্থেসিয়া দিয়েছে। যে কারণে আহনাফের আর জ্ঞান ফেরেনি। মঙ্গলবার রাত ৮টায় আহনাফকে সুন্নতে খতনা করাতে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়। এর ঘণ্টাখানেক পর তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

জানা গেছে, মালিবাগের জে এস ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড মেডিকেল চেকআপ সেন্টারে অর্থোপেডিক ও ট্রমা সার্জন ডা. এস এম মুক্তাদিরের তত্ত্বাবধানে মঙ্গলবার রাতে সন্তানকে সুন্নতে খতনা করাতে আসেন শিশু আয়হামের বাবা ফখরুল আলম ও মা খায়কুন নাহার চুমকি। রাত আটটার দিকে খতনা করানোর জন্য অ্যানেস্থেসিয়া দেওয়ার পর আর ঘুম ভাঙেনি আহনাফের। এর ঘণ্টাখানেক পর হাসপাতালটির পক্ষ থেকে শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

আহনাফের বাবা ফখরুল আলম এ বিষয়ে বলেন, আমরা চিকিৎসককে বলেছিলাম যেন ফুল অ্যানেস্থেসিয়া না দেওয়া হয়। তারপরও আমার ছেলের শরীরে সেটি পুশ করেন ডা. মুক্তাদির। আমি বারবার তাদের পায়ে ধরেছি। আমার ছেলেকে যেন ফুল অ্যানেস্থেসিয়া না দেওয়া হয়। আমার সন্তানকে অ্যানেস্থেসিয়া দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এই মৃত্যুর দায় মুক্তাদিরসহ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সবারই। আমি তাদের কঠোর শাস্তি চাই।

এদিকে ঘটনার পরই ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে উধাও হয়ে যান অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. মুক্তাদির। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) অর্থোপেডিক বিভাগের জয়েন্ট ব্যথা, বাত ব্যথা, প্যারালাইসিস বিশেষজ্ঞ হিসেবে পরিচয় দিয়ে চিকিৎসা দিতেন।


আরও খবর



রমজানে খোলা প্রাথমিক বিদ্যালয়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৫জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক :প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নিয়েছে আসন্ন রমজান মাসের প্রথম ১০ দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহে নিয়মিত পাঠদান কার্যক্রম চালু রাখার। শিক্ষার্থীদের শিখন ঘাটতি পূরণকল্পে ২০২৪ শিক্ষাবর্ষের ছুটির তালিকা ও শিক্ষাপঞ্জি আংশিক সংশোধনপূর্বক এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার মাহবুবুর রহমান তুহিনের পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

এর আগে, দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়েরের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আসন্ন রমজান মাসে ১৫ দিন মাধ্যমিক ও নিম্নমাধ্যমিক স্কুল খোলা থাকবে।

এতে বলা হয়, ১১ মার্চ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত ১৫ দিন সরকারি ও বেসরকারি মাধ্যমিক ও নিম্নমাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শ্রেণি কার্যক্রম চালু রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে।


আরও খবর