Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

শ্বাসরুদ্ধ ম্যাচে ২ উইকেটে জয় পেল বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শনিবার ০৮ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৭৩জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:বাংলাদেশ অবশেষে জয়ের দেখা পেল। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে এর আগে দুইবার শ্রীলঙ্কার মুখোমুখি হয়ে টাইগাররা জয়ের দেখা পায়নি। আজও লঙ্কানদের বিপক্ষে ম্যাচটা কঠিন করে তুলেছিল টপ অর্ডাররা। শেষ মুহূর্তে মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ। ২ উইকেটে জয় পেল বাংলাদেশ।

মুস্তাফিজুর রহমান ও রিশাদ হোসেন ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি স্টেডিয়ামে আগে ব্যাট করা শ্রীলঙ্কাকে দারুণ আক্রমণের মুখে ফেলে দেন। নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের পাশাপাশি দুজনই তিনটি করে উইকেট নিয়েছেন। ফলে সর্বসাকুল্যে ৯ উইকেটে মাত্র ১২৪ রানের পুঁজি দাঁড় করায় ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গার দল। সেই রানের চাপও শুরুতে নিতে পারেননি টপ অর্ডারে নামা সৌম্য সরকার, তানজিদ হাসান তামিম ও অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত।

তিন উইকেট ৩০ রানে হারানো বাংলাদেশ পথ খুঁজে পায় তাওহীদ হৃদয়ের কল্যাণে। তিনি যখন ফিরছেন তখন জয় পেতে আর ৫০ বলে ৩৪ রান দরকার টাইগারদের। সেই ম্যাচটাই কিনা কঠিন বানিয়ে ফেলেন সাকিব আল হাসান ও রিশাদ হোসেনরা। মাহমাহমুদউল্লাহ মাঠে নেমে খেলাকে জেতার লড়াইকে সহজ করে তোলেন। প্রথম বলকে ছক্কা হাঁকিয়ে ম্যাচকে নিজেদের দিকে টেনে নেন মিস্টার সাইলেন্ট কিলার। পরের বলে এক রান নিয়ে সাকিবকে স্ট্রাইক দেন। এক বল ডট দিয়ে পরের বলে এক রান নিয়ে মাহমুদউল্লাহকে স্টাইক দেন। পঞ্চম বল থেকে ডট আদায় করে নেন দাশুন শানাকা। ষষ্ঠ বলে মাহমুদউল্লাহকে আউটের জন্য রিভিউ নেয় শ্রীলঙ্কা। উল্টো রিভিউ থেকে সেই বলকে ওয়াইড ঘোষণা করেন থার্ড আম্পায়ার। যার ফলে ৭ বলে বাংলাদেশের প্রয়োজন পড়ে ২ রান। ১৯তম ওভারের শেষ বলে ২ রান নিয়ে এক ওভার হাতে থাকতেই বাংলাদেশের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন মাহমুদউল্লাহ ও তানজিম সাকিব।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




তানোরে ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৫০জন দেখেছেন

Image

আব্দুস সবুর তানোর থেকে:স্মার্ট ভূমি সেবা,, স্মার্ট নাগরিক এই প্রতিপাদ্য কে সামনে রেখে    রাজশাহীর তানোরে ভূমি সেবা সপ্তাহের শুভ উদ্বোধন করা হয়েছে। এ-উপলক্ষ্যে  শনিবার দুপুরের দিকে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে  উদ্বোধন শেষে উপজেলা হলরুমে আলোচনা সভা  ও পরে র‍্যালি অনুষ্ঠিত হয়। র‍্যালিটি  পৌর শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন শেষে  ভূমি অফিসে শেষ হয়।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও  অতিরিক্ত সহকারী কমিশনার( ভূমি)দাযিত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে, স্বগত বক্তব্য রাখেন সদর তহসিল অফিসের নায়েব ঈমান আলী, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন  স্বাস্থ্য ও পঃপঃ কর্মকর্তা (টিএইচও)  বার্নাবাস হাসদা, পাঁচন্দর ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপির) চেয়ারম্যান আব্দুল মতিন,  সমাজ সেবা অফিসার মোহাম্মদ হোসেন খান,   কৃষি অফিসার  সাইফুল্লাহ , প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃমোঃ ওয়াজেদ আলী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সিদ্দিকুর রহমান,   উপজেলা মহিলা  ভাইস চেয়ারম্যান  চেয়ারম্যান সোনিয়া সরদার, ভাইস চেয়ারম্যান তানভীর রেজা, কলমা ইউপি চেয়ারম্যান খাদেমুন নবী বাবু চৌধুরী,  বাঁধাইড় ইউপি চেযারম্যান আতাউর রহমান,সরনজাই ইউপি চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক, তালন্দ ইউপি চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন বাবু,চান্দুড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান মজিবর রহমান, কামারগাঁ ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান আলাউদ্দিন প্রামানিক।
  আরো   উপস্থিত ছিলেন, ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার আমানত আলী, নাজির ফিরোজ কবির,অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর আরিফুর রহমান শিশির,ইউনিয়ন ভূমি অফিসের  সহকারী কর্মকর্তা রাবিউল ইসলাম,ইমান আলী, কাওসার আলী প্রমুখ। এসময়   উপজেলা ও ইউনিয়ন ভূমি অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন ।

আরও খবর



নওগাঁর পোরশায় একযুগ ধরে লুট হয়ে যাচ্ছে প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১১২জন দেখেছেন

Image

ডিএম রাশেদ পোরশা (নওগাঁ) :নওগাঁর পোরশায় সব প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ লুট হয়ে যাচ্ছে। প্রায় একযুগ ধরে এসব প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ লুট হয়ে যাচ্ছে। অথচ এগুলো রক্ষায় আজ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। 

জানা যায়, পোরশা উপজেলার নিতপুর ইউপির পশ্চিম রঘুনাথপুর গ্রামের টেকঠা নামক মাঠে বিগত ১৩-১৪ বছর পূর্বে স্থানীয়রা একটি গর্ত থেকে কিছু মূল্যবান জিনিষপত্র পায়। এর পর থেকে ঐ ঐলাকার যেখানেই মাটি গর্ত করে সেখানেই মূল্যবান জিনিষপত্র পায় স্থানীয়রা। এসব মূল্যবান জিনিষপত্র আর গুপ্তধন পাওয়ার আশায় প্রতিযোগিতার মতো এখানকার মানুষ প্রতিদিন সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত আবাদি জমি কেউ বা আবার রোপণকৃত ধানের জমি কেউ বা আবার আম বাগান খনন করেই চলেছেন। আর পাচ্ছেন দামি দামি সব জিনিষপত্র আর গুপ্তধন। টেকঠা এলাকা পুনর্ভবা নদীর পুর্বপাড়। নদীর পূর্বপাড়ের প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে চলছে গুপ্তধন পাওয়ার প্রতিযোগিতা। কেউ নিজের জমিতে আবার কেউ অন্যের জমি টাকার বিনিময়ে চুক্তিভিত্তিক কিনে নিয়ে খনন করেই চলেছেন। বিগত ১২-১৪বছর পূর্বে এখানে কোন ঘর বাড়ি ছিল না। ছিল ফাঁকা মাঠ। এখন এই গুপ্তধনকে কেন্দ্র করে গঠে উঠেছে জনবসতি।

স্থানীয়রা জানান, ঘটনাস্থল থেকে সে সময়ে সর্বপ্রথম পশ্চিম রঘুনাথপুর জেলেপাড়ার বৃদ্ধ আব্দুল কাদের বেশ কয়েকটি ক্ষুদ্র পাথর পান। পাথরের মাঝখানে ছোট ছিদ্র ছিল। পাথরগুলো দেখতে তসবির মতো। যেগুলো মুসল্লিরা ইবাদতে কাজে লাগান। তিনি তখন তার গ্রামের মসজিদে আজান দিতেন। তিনি পাথরগুলো পাওয়ার পর কখনই চিন্তা করেননি যে সেগুলো মূল্যবান কোন গুপ্তধন। তাই তিনি তাদের মসজিদে ইবাদতের কাজে লাগানোর জন্য ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পাথরগুলো দিয়ে তসবি তৈরি করেন এবং ইবাদত করেন। কয়েক মাস পর কোনো এক লোক ওই মসজিদে নামাজ পড়ে তসবিটি দেখে তার পছন্দ হয়েছে বলে বৃদ্ধ আব্দুল কাদেরকে জানান। দিতে না চাইলে সেটি তিনি কিনে নেওয়ার প্রস্তাব দিলে তা ৫০০ টাকার বিনিময়ে ওই লোকের কাছে বিক্রি করেন আব্দুল কাদের। এরপর বৃদ্ধ কাদেরের মনে সন্দেহ হয় সেটি নিশ্চয়ই মূল্যবান পাথর। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার লোকজন শুরু করেন মাটি খনন। সেই থেকে প্রতিদিন সকাল হলেই স্থানীয়রা যে যার মতো কোদাল ও খুনতি দিয়ে মাটি খনন করেই চলেছেন। আর পাচ্ছেন মূল্যবান সব জিনিসপত্র। প্রায় ৪ থেকে ৫ ফুট নিচে মাটি খনন করলেই পাওয়া যায় পয়সা, তাবিজ, তসবিহ, কলম, মার্বেল, চাকি, ঢোল, জালি পোটল, বোতামসহ মূল্যবান জিনিসপত্র। এসব জিনিস লাল, কালো, সাদা, সবুজসহ একেকটির রং একেক রকম। এসব মূল্যবান পাথরের জিনিস পাওয়া মাত্র বিক্রি করে দেন স্থানীয়রা। সর্বনি¤œ যে পাথরটি তার দাম বর্তমানে দশ হাজার টাকা। আর সর্বোচ্চটির দাম দেড় থেকে দুই লক্ষ টাকা। বর্তমানে এ রকম দামেই বিক্রি হচ্ছে বলে জানান স্থানীয়রা।

স্থানীয় যুবক রবিউল ইসলাম জানান, তার বাড়ির পশ্চিম মাঠে পোরশা সদরের মৃত ওহাব শাহের জমি রয়েছে। তার কাছ থেকে তিন বছরের জন্য ২লক্ষ টাকার বিনিময়ে ৩বিঘা জমি কিনে নেন তিনি। উদ্দেশ্য জমির মাটি খুঁড়ে মূল্যবান সব জিনিসপত্র উদ্ধার করা। এর পূর্বেও তিনি পোরশা সদরের এক জমির মালিকের নিকট থেকে জমি কিনে নিয়ে অনেক মূল্যবান সব জিনিষপত্র পেয়েছিলেন বলে জানান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক যুবক জানান, তিনি এক বছরের জন্য ৩বিঘা জমি কিনে নিয়ে মাটি খনন করছেন। অল্প দিনে তিনি ঐ জমিতে মাটি গর্ত করে মূল্যবান ২টি চিরুনি পেয়েছেন যা ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। ২টি জালি পেয়েছেন যা ১৮হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। ৩টি ফুটবল পেয়েছিলেন যা বিক্রি করেছেন ২৫হাজার টাকায় এবং কয়েকটি মার্বেল বোতামসহ অন্যান্য জিনিস বিক্রি করেছেন ১২হাজার টাকায়। তবে ৩ বিঘার মধ্যে এগুলো পেয়েছেন মাত্র ৫শতক জমির মধ্যে। 

একই এলাকার ফইমুদ্দিনের স্ত্রী আনোয়ারা বেগম জানান, তার বাড়ির দক্ষিণ পাশে তাদের নিজের ৫ কাঠা জমি খনন করে ১টি চাকি পেয়েছেন। সেটি বিক্রি করেছেন ৫হাজার টাকায়। ঠোল পেয়েছিলেন ২টি যা বিক্রি করেছেন ৫০ হাজার টাকায়। আর জালি পোটল ২টি পেয়ে বিক্রি করেছেন ১লক্ষ টাকায়। কয়েকটি মার্বেল ও বোতাম পেয়ে সেগুলো বিক্রি করেছেন ২০হাজার টাকায়। এসব মূল্যবান জিনিষপত্র নওগাঁ, বগুড়া, নাটোর ও পাবনা এলাকার কিছু ব্যবসায়ীদের নিকট তারা বিক্রি করে থাকেন।

স্থানীয়দের ধারণা, এ এলাকায় এক সময়ে হিন্দুদের বসবাস ছিল। এখান থেকে তারা চলে যাওয়ার সময় তাদের মূল্যবান জিনিসপত্রগুলো তারা নিয়ে যেতে পারেননি। পরে তাদের ঘরবাড়ি ও মন্দিরগুলো ভেঙে মাটির নিচে চাপা পড়ে। আর সেই মূল্যবান জিনিসগুলো এখন বের হচ্ছে।

প্রায় ১৫বছর ধরে মাটির নিচের এসব মূল্যবান সম্পদ সবগুলো লুট হয়ে যাচ্ছে। অথচ আজ পর্যন্ত কোন পদক্ষেপ গ্রহন করা হয়নি।

তবে ২০২২সালের ২৭অক্টোবর সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক একটি চিঠি দিয়েছিলেন পোরশা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর। তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ঐ টেকঠা নামক স্থানের প্রত্নস্থানের ক্ষতিসাধন রোধ করে অবৈধ প্রত্নসম্পদ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অনুরোধ করেছিলেন। কিন্তু আজ পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোন পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে দেওয়া ঐ চিঠিতে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এর প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের রাজশাহী ও রংপুর অঞ্চলের আঞ্চলিক পরিচালক আরো উল্লেখ করেছিলেন যে, পোরশা উপজেলার এই টেকঠা নামক এলাকাটি একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নস্থান। এ প্রত্নস্থানকে সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসাবে গেজেট প্রকাশের জন্য প্রাথমিক জরিপ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। খুব শীঘ্রই এটিকে সংরক্ষিত পুরাকীর্তি হিসাবে ঘোষনা করা হবে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ আদনান জানান, তিনি বিষয়টি অবগত আছেন। এ ব্যাপারে তিনি অতিসত্তর প্রযোজনীয় ব্যবস্থা নিবেন বলে জানান।


আরও খবর



মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় ১ নারী নিহত আহত হয়েছে ৭ জন

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৩২জন দেখেছেন

Image

স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:পা ভাঙা স্বামীকে অ্যাম্বুলেন্সে  ঢাকায় নেয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন স্ত্রী। এছাড়া আহত হয়েছেন পরিবারের ৫ সদস্যসহ আরো ৭ জন। 

রবিবার ৯ জুন সকালে মাগুরার মঘির ঢাল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, দুর্ঘটনায় পা ভাঙা রবিউলকে নিয়ে সকালে মহেশপুর থেকে পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে যাচ্ছিলেন স্ত্রী মিনু আরাসহ পরিবারের সদস্যরা। মাগুরার মঘির ঢাল এলাকায় এলে অ্যাম্বুলেন্সটির চালক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। অ্যাম্বুলেন্সটির গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ঘটনাস্থলেই মিনু আরা মারা যান। অ্যাম্বুলেন্সে থাকা পরিবারের আরও ৫ সদস্যসহ ৭ জন আহত হন। তাদের মধ্যে রবিউলের অবস্থা গুরুতর। তাকে ঢাকায় নেয়া হয়েছে। 

আহতদের মধ্যে মিজান শিকদার (৪৫) পিতা মনু শিকদার ,রবিউল শিকদার (৫৫) পিতা মনু শিকদার , রিনা খাতুন( ৪০) পিতা মনু শিকদার ,আলামিন (২৭ ) পিতাঃ‌ রবিউল শিকদার,মিথিলা আক্তার মিতু( ২০) স্বামী সাজ্জাদ ইসলাম জালাল  তারা সকলেই   ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার গৌরিনাথপুর গ্রামের বাসিন্দা। এছাড়াও অ্যাম্বুলেন্সের ড্রাইভার ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের মোঃ পারভেজ ও হেল্পার বরিশালের মুলাদী উপজেলার গ্রাম চরগাছা গ্রামের সজীব (২০) আহত হন।

মাগুরা রামনগর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গৌতম চন্দ্র মন্ডল জানান, পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মাগুরা হাসপাতালের মর্গে পাঠায় এবং আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


আরও খবর



মির্জাপুরে বিয়ের দাবিতে এক মেয়ের বাড়িতে আরেক মেয়ে হাজির!

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৫৫জন দেখেছেন

Image

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি:টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বাঁশতৈল ইউনিয়নের  ইন্নত খা চালা গ্রামের দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া মেয়ের সাথে রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া আরেক মেয়ের সাথে ফেসবুকে পরিচয় হয়। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। উভয়ই মেয়ে জেনেও তারা প্রেমে জড়িয়ে পড়ে। ১৮ মে শনিবার রাজশাহীর মেয়ে মির্জাপুর বাঁশতৈল গ্রামে চলে আসে এবং বিয়ের দাবি করে। খবর পেয়ে বাঁশতৈল গ্রামবাসী  এবং মেয়ের পরিবার মিলে মেয়েকে নারী পাচারকারী সন্দেহে আটক করে রাখে। বাঁশতৈল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হেলাল দেওয়ান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমরা রাজশাহীর মেয়ের পরিবারের কাছে খবর পাঠিয়েছিলাম। মেয়ের পরিবারের লোকজন আসলে তাদের জিম্মায় মেয়েকে ফেরত দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। 


আরও খবর



চিলাহাটি প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন, ওহাবুল সভাপতি কাজল সাধারণ সম্পাদক

প্রকাশিত:সোমবার ২০ মে ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | ৭০জন দেখেছেন

Image

ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি:নীলফামারীর ডোমার উপজেলার চিলাহাটি প্রেসক্লাবের দ্বি-বার্ষিক (২০২৪-২০২৬) মেয়াদের কমিটি গঠন করা হয়েছে।  

শনিবার (১৮ মে) চিলাহাটি ডাক-বাংলো হলরুমে সকাল ১০টা থেকে দুপুর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত নির্বাচনের মাধ্যমে দৈনিক আলোকিত সকাল প্রতিনিধি মাহবুবুল আলম ওহাবুলকে সভাপতি এবং দৈনিক খবরপত্র প্রতিনিধি আশরাফুল হক কাজলকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। 

অপরদিকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে আবু সাঈদ প্রামাণিক, সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে ইফতেখাইরুল হক টিটুকে ব্যালট ভোটের মাধ্যমে ভোট কার্যক্রম সম্পন্ন করে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন কর্মকর্তাগণ। এতে প্রিজাইডিং অফিসার চিলাহাটি সরকারি কলেজের প্রভাষক রাজিউর রহমান রাজু, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার চিলাহাটি মার্চেন্ট উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কাদিমুল ইসলাম প্রিন্স দ্বায়িত্ব পালন করেন। অতিথি হিসাবে চিলাহাটি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মশিউর রহমান, চিলাহাটি নাগরিক কমিটির সভাপতি মোহাব্বত হোসেন বাবু, চিলাহাটি প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি তোজাম্মেল হোসেন মঞ্জু, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক আহসানুল কবির জুয়েল বসুনিয়া, সমাজ সেবক লতিফুল খাবীর প্রধান লাবু, মোস্তাফিজুর রহমান সুজন, মোঃ মামুন প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। ফলাফল পরবর্তীতে নব-নির্বাচিত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সকলের উপস্থিতিতে মত বিনিময় করেন, বষ্ঠুনিষ্ট সংবাদ পরিবেশনের জন্য সকল সাংবাদিকদের আহবান জানান। শেষে নব-গঠিত কমিটিকে ফুলের শুভেচ্ছা দিয়ে বরণ করে নেয় অতিথিগণ।


আরও খবর