Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

সুন্দরগঞ্জে রেইন্সপ্রকল্পে কৃষক প্রশিক্ষন অনুষ্টিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৫০জন দেখেছেন

Image

একেএম শামছুল হক,সুন্দরগঞ্জ প্রতিনিধিঃগাইবান্ধর সুন্দরগঞ্জ উপজেলার  ইউনিয়নের মাটপর্যায়ে সব্জিচাষিদের নিয়ে কৃষক প্রশিক্ষণ অনুষ্টিত হয়েছে।

সোমবার উপজেলার ধোপাডাঙ্গা ইউনিয়নের দক্ষিণ ধোপাডাঙ্গা কুঠিপাড়া গ্রামে কৃষাণি মরিয়মের বাড়িতে   Sacp Rains প্রকল্পে অর্থায়নে অনুষ্টিত প্রশিক্ষণে ৩০ জন কৃষক/কৃষাণী অংশগ্রহণ করেন।

এতে প্রধান প্রশিক্ষক হিসেবে প্রশিক্ষন প্রদান করেন রেইন্স প্রকল্পের প্রশিক্ষক উপ-সহকারি কৃর্ষি অফিসার,  মোঃশাকিল আহমে্মদ, , উপ-সহকারি কৃষি অফিসার মোঃ শামছুল হক,আলী আজম,সুন্দরগঞ্জ প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি সাংবাদিক একেএম শামছুল হক প্রমুখ।

আরও খবর



বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের নিমিত্তে গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে নেসকোর উদ্যোগে গ্রাহক সমাবেশ

প্রকাশিত:সোমবার ২০ মে ২০24 | হালনাগাদ:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | ১০১জন দেখেছেন

Image
রাকিব সিরাজগঞ্জ থেকে:সিরাজগঞ্জে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের নিমিত্তে বিদ্যুৎ বিভাগ কতৃক কর্মপরিকল্পনার বিষয়ে গণসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে নেসকোর উদ্যোগে গ্রাহক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার সকালে সিরাজগঞ্জ পাওয়ার হাউজ কলোনী রেস্টহাউজ হলরুমে অনুষ্ঠিত এই গ্রাহক সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নেসকো পিএলসি পাবনার তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো: রবিউল ইসলাম। 

এ সময় উপস্থিত নেসকোর আওতাধীন বিভিন্ন পর্যায়ের গ্রাহকগণের মাঝে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করা হয়। সেই সাথে উপস্থিত গ্রাহকগণ আরও উন্নত বিদ্যুৎ সেবা নিশ্চিতে নেসকো কতৃপক্ষের নিকট বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন এবং বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে আরও সচেতন হওয়ার অঙ্গীকার করেন।

এ সময় নেসকো সিরাজগঞ্জের বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল ফারুক, বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী অশীথ পোদ্দার এবং নেসকো সিরাজগঞ্জ এর বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা ও গ্রাহকগণ উপস্থিত ছিলেন।

আরও খবর



হিলিতে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৬৩জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:দিনাজপুরের হাকিমপুর হিলিতে উপজেলা পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু (বালক) বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সোমবার (১০ জুন) সকাল ১০ টায় উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের আয়োজনে বাংলাহিলি পাইলট স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল খেলার উদ্বোধন করেন পৌর মেয়র জামিল হোসেন চলন্ত।

এরপর বিকেলে বঙ্গবন্ধু (বালক) বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টর ফাইনাল খেলার উদ্বোধন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল হোসেন রাজ। 

এরপর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলায় মনশাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল দলকে ৮-০ গোলে হারিয়ে নয়ানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চ্যাম্পিয়ন হন। এদিকে খেলায় বিশাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল দলকে ৩-০ গোলে হারিয়ে গোহাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল দল চাম্পিয়ন হন। এ খেলায় উপজেলা পর্যায়ে ৩ টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভা মিলিয়ে মোট ৪ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল দল অংশ গ্রহন করেন। 

খেলা শেষে সেরা খেলোয়াড়, সর্বোচ্চ গোলদাতা, চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলের খেলোয়াড় হাতে ট্রপি হাতে তুলে দেন উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল হোসেন রাজ। এসময় সেখানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত রায়,ভাইস চেয়ারম্যান শাহীনুর রেজা শাহীন,উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) হারুন অর রশিদ,সহকারী শিক্ষা অফিসার মাহমুদুন্নবী, ইন্সট্রাক্টর বদরুল মিল্লাত,প্রধান শিক্ষক আতিয়ার রহমান,আনোয়ার হোসেন, আনারুল হক টুকু,মামুনুর রশীদ, লিপি আরা, সুলতানা আক্তার, সহকারী শিক্ষক মুনসুর রহমান, মিলন হোসেন, মামুনুর রশীদ,মহিদুল ইসলাম,ক্রীড়া সংস্থার সাধারন সম্পাদক কাহের আলী মন্ডলসহ অনেকে উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



৩ দিন টানা ঝড়-বৃষ্টি-বজ্রপাতের পূর্বাভাস

প্রকাশিত:রবিবার ১৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৫৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সুখবর জানাল আবহাওয়া অফিস সারা দেশে গরমে প্রাণ যখন ওষ্ঠাগত ঠিক তখনই । আগামী তিনদিন অর্থাৎ ৭২ ঘণ্টা দেশেজুড়ে টানা ঝড়-বৃষ্টি-বজ্রপাত হতে পারে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

এছাড়া, রাজশাহী, পাবনা, দিনাজপুর ও নীলফামারীসহ খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে।

রোববার (১৯ মে) সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার পূর্বাভাসে এ তথ্য জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

আবহাওয়াবিদ মো. হাফিজুর রহমানের সই করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আগামী ২৪ ঘণ্টায় রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং বাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দু’এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলা বৃষ্টি হতে পারে।

এছাড়া, রাজশাহী, পাবনা, দিনাজপুর ও নীলফামারীসহ খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ওপর দিয়ে যে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে, তা অব্যাহত থাকতে পারে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।



আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




মেহেরপুর মুজিবনগর পদ্মবিলের মাছ লুটের প্রতিবাদ ও প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ, মেহেরপুরঃমেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার তারানগর গ্রামের পদ্ম বিলের মাছ লুটের প্রতিবাদ ও প্রতিকার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছেন ওই গ্রামের উলফাত শেখ ও তার শরীকগন। আজ বুধবার দুপুরে বিলের পাশে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে জমির দখল দারিত্ব ও মাছ লুটের ফিরিস্তি তুলে ধরা হয়েছে।

মৎস্য চাষি উলফাত শেখের পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন খাইরুল ইসলাম ওরফে ইতা। বক্তব্যে জানানো হয়, পদ্ম বিলের সরকারের খাস খতিয়ানের ১৬.৭০ একর জমি উলফাত শেখসহ কয়েকজন সরকারের কাছ থেকে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত নেন। আর এস রেকর্ডের সময় ওই জমি ভুল করে সরকারের খতিয়ানভুক্ত হয়। বিষয়টি জানতে পেরে ও তা সংশোধনের জন্য বিভিন্ন সময় সংশ্লিষ্ট দপ্তরের শরণাপন্ন হলে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ বিষয়টি সমাধানের আশ^াস দেন। সরকারের কাছ থেকে চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত নেয়া ওই জমিসহ উলফাত শেখসহ অন্ততঃ ১৫জন তাদের মোট ১০৫ বিঘা জমির জলকরের অংশে মাছ চাষ শুরু করেন।

২০২০ সালে হঠাৎ করেই মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের দপ্তর থেকে পদ্ম বিল লীজ দেয়ার বিষয়ে স্থানীয় একটি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়া হলে হতভম্ব হয়ে পড়েন মৎস্যচাষিরা। বাধ্য হয়ে আদালতের শরণাপন্ন হন। দীর্ঘদিন মামলা চলার একপর্যায়ে মহামান্য হাইকোর্ট লীজ প্রদানের বিষয়টি স্থগিত করেন। তার পর থেকে সকলেই ওই বিলে মাছ চাষ করছেন। এবং যে যতটুকু অংশের মালিক তার ততোটুকু অর্থ দেয়া হয়। কিন্তু বিপত্তি দেখা দেয় গেল সংসদ নির্বাচনের সময় থেকে। 

তারানগর গ্রামের আরিফ গং চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি থেকে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে ৩০ লাখ টাকার মাছ লুট করে। বিষয়টি মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করণ ছাড়াও মুজিবনগর থানায় দুটি অভিযোগ দেয়া হলেও কোন সমাধান হয়নি। বাধ্য হয়ে মেহেরপুর জজ আদালতে একটি মামলা করা হয়। যার নং- ৪৭/২০২৪ ইং। এ ছাড়াও গত ৩১ মে ও পহেলা জুন তারিখে ওই আরিফ গং রাজনীতিকে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে আবারো ৪/৫ লাখ টাকার মাছ লুট করে। ক্ষতাসীন দলের একজন প্রভাবশালী ব্যাক্তির নাম ভাঙ্গিয়ে এ মাছ লুট অব্যাহত রেখেছেন বলেও দাবী করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। তারা মাছ লুটের প্রতিকার চেয়ে ও মাননীয় জনপ্রশাসন মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে উলফাত শেখ ও তার শরীকসহ বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রীক মিডিয়ার সাংবাদিকগন উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



সৈয়দপুরে অপরিপক্ব লিচু ও আম বিক্রি, স্বাস্থ্যঝুকির শঙ্কা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৫৯জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:সৈয়দপুর শহরে অপরিপক্ব লিচু ও মিসরি ভোগ আম উঠতে শুরু করেছে। দেখতে আধপাকা মনে হলেও  জম্মের টক। একশ লিচু বিক্রি হচ্ছে ২৫০ টাকা আর এক কেজি মিসরি ভোগ আম বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা কেজি দরে। স্বাস্হ্য  ঝুকি জানার পরেও অপরিপক্ক ওইসব লিচু আর আম কিনছেন  অসচেতন ক্রেতারা। যা খেয়ে পেটের পিরায় আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকেই।প্রচন্ড গরমে অপরিপক্ক এসব ফল কেন বিক্রি করছেন জানতে চাইলে ব্যাবসায়িরা বলছেন, মৌসুমের নতুন ফল খাওয়ার সবারই আগ্রহ থাকে,এরফলে দামও পাওয়া যায় ভালো। একারনে,গ্রামের যেসব বাগানে লিচু হলকা লাল হয়েছে,সেগুলো বাগান মালিকদের বেশি দাম দিয়ে সংগ্রহ করে বিক্রি করছেন। 

সৈয়দপুর উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর বলছে দিনাজপুর ও রাজশাহীর লিচু হলো উত্তরবঙ্গের সুস্বাদু লিচু। এই লিচু পরিপক্ব হতে এখনো ২০/২৫ দিন বাকি। আর মিসরি ভোগ আম সুস্বাদু হয় বদরগন্জের খাগরাবন ও রাজশাহীর। তেমনি হাড়ি ভাংগা আমের জন্য বিখ্যাত রংপুর। এসব আম পরিপক্ব হয়ে পাকতে এখনো ২০/২৫ দিন সময় লাগবে।বাজারে যেসব লিচু ও আম বিক্রি করা হচ্ছে সেগুলির কোনটাই পরিপক্ব নয়। আইন প্রয়োগ কারি সংস্হার উচিত অভিযান চালায়ে মোটা অংকের জরিমানা করা। 
সৈয়দপুর ১০০ বিশিষ্ট হাসপাতালের শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তার ওয়াসিম বারি জয় বলেন, অপরিপক্ক যে কোন ফল খেলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি সহ মারাত্মক ভাবে শারীরিক সমস্যা হতে পারে। তিনি অপরিপক্ক কোন ফলই বিক্রি না করার জন্য ব্যবসায়িদের অনুরোধ জানান। 

দুলাল নামের এক আড়তদার বলেন, সৈয়দপুর শহরের সব আড়তদারদের বদনাম করে ছেড়েছেন গিয়াস নামের এক ফল আড়তদার। তিনি বলেন, যেখানে কৃষি অধিদপ্তর, ও ডাক্তার বলছেন অপরিপক্ক ফল খেলে স্বাস্থ্য ঝুঁকি বাড়ে, সেখানে তিনি তাদের কথার তোয়াক্কা না করে, অতিরিক্ত লাভের আশায় অপরিপক্ক লিচু ও মিসরি ভোগ আম বিক্রি করে চলেছেন। এসব ব্যবসায়ির মোটা অংকের জরিমানা সহ জেল দেয়া উচিত বলে মন্তব্য করেন তিনি। সাদেক পাগলা নামের এক ক্রেতা বলেন,বছরের প্রথম ফল তো তাই কিনলাম। বিক্রেতা বললেন ফল গুলো মিষ্টি হবে, এখন দেখছি জম্মের টক।

ফল বিক্রেতা গিয়াস জানান, লাভের আশায় আম ও লিচু সংগ্রহ করে বিক্রি করছি। তিনি বলেন সব মাছই ময়লা খায় শুধু নাম হয় নাড়িয়া মাছের। অনেকের আড়তেই অপরিপক্ক ফল আছে এবং তারা দাপটের সাথেই তা বিক্রি করছেন। কিন্তু তাদের প্রশাসন সহ কেউই কিছু বলেন না। অভিযান যদি চালাতেই হয়, তাহলে সকল অবৈধ ব্যবসায়ির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্হা নেয়ার দাবী করেন তিনি। 

আরও খবর