Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা
বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী দাবি বাস্তবায়ন ঐক্য ফোরাম

সরকারি কর্মচারীদের অন্তর্বর্তীকালীন ৫০ শতাংশ মহার্ঘ্য ভাতা দাবি

প্রকাশিত:Sunday ২২ May 20২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৮১জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

২০ গ্রেডের পরিবর্তে ১০ গ্রেড (ধাপ) চালু ও অন্তর্বর্তীকালীন ৫০ শতাংশ মহার্ঘ্য ভাতাসহ ৭ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী দাবি বাস্তবায়ন ঐক্য ফোরাম।  


রোববার (২২ মে) জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি জানানো হয়।


 সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আহ্বায়ক হেদায়েত হোসেন। তিনি বলেন, পে-স্কেল বাস্তবায়নের আগে অন্তর্বর্তীকালীন কর্মচারীদের জন্য ৫০ শতাংশ মহার্ঘ্য ভাতা দিতে হবে। ১৯৭৩ সালে বঙ্গবন্ধুর ঘোষণা অনুযায়ী ১০ ধাপে বেতন স্কেল নির্ধারণসহ পে-কমিশনে কর্মচারী প্রতিনিধি রাখতে হবে। সচিবালয়ের মতো সব দফতর, অধিদফতরের পদ-পদবি পরিবর্তনসহ এক ও অভিন্ন নিয়োগবিধি প্রণয়ন করতে হবে।  


লিখিত বক্তব্য আরও বলা হয়, আনুতোষিকের হার এক টাকার সমান ৩০০ টাকা নির্ধারণ করতে হবে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকদের আপিল বিভাগের রায় বাস্তবায়নসহ সহকারী শিক্ষকদের বেতন নিয়োগ বিধি-২০১৯ এর ভিত্তিতে ১০ম গ্রেডে উন্নীত করতে হবে। চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা ৩৫ বছর ও অবসরের বয়সসীমা ৬২ বছর নির্ধারণ করতে হবে। ৩০ লাখ টাকা গৃহঋণ, ৩০ শতাংশ পোষ্যকোটা চালু ও কর্মচারী কমপ্লেক্স নির্মাণ করতে হবে।


সংগঠনের মূখ্য সমন্বয়ক ওয়ারেছ আলী বলেন, বাজারমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে সব ভাতা পুনর্নির্ধারণ করতে হবে।  


সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সমন্বয়ক লুৎফর রহমান বলেন, বৈষম্য নিরসন না করে পুনরায় বৈষম্যের বেড়াজাল তৈরি করা হচ্ছে। যা কোনোভাবে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে প্রত্যাশিত নয়।  


তিনি আরও বলেন, সচিবালয়ের বাইরে সকল দফতর ও অধিদফতরের কর্মচারীদের পদনাম পরিবর্তন ও ১০ম গ্রেডে উন্নীত করা না হলে চরম বৈষম্য সৃষ্টি করা হবে। যা সাধারণ কর্মচারীরা কখনো মেনে নেবেন না। ১১ থেকে ২০ গ্রেডের এই বঞ্চিত লাখ লাখ কর্মচারীদের বাদ দিয়ে দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করা সম্ভব নয়। বিষয়টির বিভিন্নভাবে সরকারের উচ্চ মহলের জানানো হয়েছে।  


সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি (তোতা-গাজী), বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি (কাশেম-শাহীন), ১১-২০ সরকারি চাকরিজীবীদের সম্মিলিত অধিকার আদায় ফোরাম, বাংলাদেশ ১৬-২০ গ্রেড সরকারি কর্মচারী সমিতি, বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী উন্নয়ন পরিষদ, বাংলাদেশ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক সমাজ, বাংলাদেশ তৃতীয় শ্রেণি সরকারি কর্মচারী সমিতি, বাংলাদেশ বিচার বিভাগীয় কর্মচারী অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী কল্যাণ পরিষদ, বাংলাদেশ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর কর্মচারী কল্যাণ সমিতি, বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী কল্যাণ ফেডারেশনসহ বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



প্রাথমিকে নিয়োগ: দ্বিতীয় ধাপে কাগজ জমার সময় বাড়তে পারে

প্রকাশিত:Sunday ১২ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
Image

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে লিখিত পরীক্ষার দ্বিতীয় ধাপের ফল প্রকাশ হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (৯ জুন) রাতে এ ফল প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই)। এ ধাপে উত্তীর্ণ প্রার্থীদের আগামী ১৮ জুনের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এ সময় আরও বাড়ানোর চিন্তা করছে ডিপিই।

সম্প্রতি ডিপিই’র এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, দ্বিতীয় ধাপে মনোনীত প্রাার্থীদের অনলাইনে আবেদনের আপলোড করা ছবি, আবেদনের কপি, লিখিত পরীক্ষার প্রবেশপত্র, নাগরিকত্ব ও স্থায়ী ঠিকানার স্বপক্ষে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান/পৌরসভা/সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড কাউন্সিলরের সনদপত্র, জাতীয় পরিচয়পত্র এবং শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদসহ পোষ্য সনদ (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে) ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্র কমপক্ষে ৯ম গ্রেডের গেজেটেড কর্মকর্তার মাধ্যমে সত্যায়িত করে জমা দিতে হবে।

আরও বলা হয়েছে, এসব প্রয়োজনীয় কাগজপত্র আগামী ১৮ জুনের মধ্যে স্ব স্ব জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসে আবশ্যিকভাবে জমা দিয়ে প্রাপ্তি স্বীকারপত্র সংগ্রহ করতে হবে।মৌখিক পরীক্ষার তারিখ ডিপিই’র ওয়েবসাইটে www.dpe.gov.bd প্রকাশ করা হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিপিই মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম রোববার জাগো নিউজকে বলেন, নিয়োগ সংক্রান্ত কাজের জন্য মাঠ পর্যায়ের সব অফিস শুক্র-শনিবার খোলা রাখা হচ্ছে। দ্বিতীয় ধাপে লিখিত পাস করা প্রার্থীদের কাছে আগামী ১৮ জুনের মধ্যে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চাওয়া হয়েছে। এদিন ছুটির দিন হলেও সংশ্লিষ্ট সব অফিস খোলা রাখতে বলা হয়েছে। বন্ধের দিনেও প্রার্থীরা কাগজপত্র জমা দিতে পারবেন।

তিনি বলেন, বর্তমানে শিক্ষক নিয়োগের প্রথম ধাপের মৌখিক পরীক্ষা শুরু হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপের এ পরীক্ষা শুরু করতে আরও কিছুটা দেরি হতে পারে। দেশের বিভিন্ন স্থানে নির্বাচন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এসব নির্বাচনে শিক্ষক-কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালন করতে হয়। সে কারণে দ্বিতীয় ধাপের মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দেওয়ার সময় আরও বাড়ানো হতে পারে। এ বিষয়ে দেশের জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হবে।

দ্বিতীয় দফায় লিখিত পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে ২৯ জেলার মোট ৫৩ হাজার ৫৯৫ জন প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করা হয়। এ ফলাফলের ভিত্তিতে নির্বাচিত প্রার্থীরা কেবল মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে পারবেন।

প্রাথমিকের দ্বিতীয় ধাপের লিখিত পরীক্ষা গত ২০ মে ২৯ জেলায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে মোট পরীক্ষার্থী ছিলেন চার লাখ ৬৬ হাজার ১০০ জন। আর তৃতীয় ও শেষ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয় গত ৩ জুন। এ ধাপে মোট পরীক্ষার্থী ছিলেন চার লাখ ৪৬ হাজার ৫৯৮ জন।

এদিকে প্রাথমিকের প্রথম ধাপের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন ৪০ হাজার ৮৬২ জন। প্রথম ধাপের পরীক্ষার ২০ দিনের মাথায় এ ফল প্রকাশ করা হয়েছিল। প্রথম ধাপের লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা ১২ জুন থেকে শুরু হয়েছে।


আরও খবর



‘ডিউটি শেষ করে ঘুমাতে যাচ্ছিলাম’

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
Image

ডিউটি শেষ করে রাতের খাবার খেয়ে ঘুমাতে যাবেন সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে কর্মরত করণ কারণ। তবে ডিপোতে আগুন লাগার খবর এখনো পৌঁছায়নি তার কাছে। এমন সময় তার কক্ষের অন্য একজনের বাড়ি থেকে ফোন করে জানায়, দেখা যাচ্ছে অগ্নিকাণ্ডের খবর।

করণ কারণ জাগো নিউজকে বলেন, আমার ডিউটি শেষ হয়েছিল রাত ৮টায়। ডিপোতে আগুন লাগার খবর শুনে দেখতে বের হয়েছিলাম। এমন সময় বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণের স্থান থেকে প্রায় ১০০ গজ দূরে ছিলাম। বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গেই পাশের পুকুরে লাফ দেই। ফলে বিস্ফোরণের প্রভাব থেকে অনেকটাই বেঁচে যাই।

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের বেডে শুয়ে এভাবেই বিস্ফোরণের সময়কার ঘটনা জানাচ্ছিলেন করণ কারণ। বিভীষিকাময় সময়টাকে বোঝাতে কখনওবা উঠে বসছিলেন তিনি। তবে চোখ মেলে রাখতে পারছিলেন না বেশিক্ষণ। বিস্ফোরণের রাসায়নিকের প্রভাবে এখনও চোখ থেকে পানি ঝরছে তার।

করণ কারণের ছেলে প্রান্ত কারণ বলেন, অ্যাম্বুলেন্স থেকেই বাবা অন্য একজনের ফোন থেকে আমাকে কল করে। তখনকার পরিস্থিতি ছিল ভয়াবহ। এতো দূর থেকেও কেমিক্যালের প্রভাবে বাবার চোখে সমস্যা হয়েছে। অন্যদের তুলনায় আমার বাবা কমই আহত হয়েছেন।

সারি সারি বেডিগুলোতে শুয়ে এরকম অনেকেই এখন চিকিৎসা নিচ্ছেন চমেক হাসপাতালে। কারো পুড়ে গেছে শরীরের অর্ধেকটা, কারো বেশি, কারো বা একটু কম।

এর আগে শনিবার রাত ৯টার দিকে সীতাকুণ্ডের সোনাইছড়ি ইউনিয়নে বিএম কনটেইনার ডিপোর লোডিং পয়েন্টের ভেতরে আগুন লাগে। কুমিরা ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন। রাত পৌনে ১১টার দিকে এক কনটেইনার থেকে অন্য কনটেইনারে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। একটি কনটেইনারে রাসায়নিক থাকায় বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে।

বিস্ফোরণে ঘটনাস্থল থেকে অন্তত চার কিলোমিটার এলাকা কেঁপে ওঠে। আশপাশের বাড়িঘরের জানালার কাচ ভেঙে পড়ে।


আরও খবর



হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে যা খাবেন

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন, অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, মানসিক চাপ হৃদরোগের কারণ। আগে থেকে সচেতন না হলে একটা বয়সের পর শরীরে থাবা বসাতে পারে হৃদরোগের। বিশেষ করে উচ্চ রক্তচাপ, কোলেস্টেরল, ডায়াবেটিস থাকলে এই বিষয়ে আরও সতর্ক হওয়া জরুরি।

তবে অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, সময়ের অভাবে অনিয়মিত খাওয়াদাওয়া, অত্যধিক ব্যস্ততা, মানসিক চাপ বাড়িয়ে দিচ্ছে হৃদরোগের ঝুঁকি। তাই এই অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনে নিজেকে সুস্থ রাখতে সঙ্গী করতে পারেন স্বাস্থ্যসম্মত ডায়েট। প্রক্রিয়াজাত খাবার, ভাজাভুজি, বাইরের তেল-মশলাদার খাবার একেবারেই পরিহার করুন।

হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে খেতে পারেন বাদাম। স্বাস্থ্যকর ফ্যাট, খনিজ, অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ বাদাম হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি কমায়। হৃদ্রোগ বিশেষজ্ঞদের মতে, নিয়মিত যারা বাদাম খান হৃদ্রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা তাদের কম থাকে।

চলুন জেনে নেওয়া যাক হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে যে কারণে বাদাম খাবেন-

>> বাদামে আছে প্রচুর পরিমাণে আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট। যা খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। একইসঙ্গে হৃদ্রোগের ঝুঁকিও হ্রাস পায় অনেকাংশে।

>> ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ বাদাম হৃদ্যন্ত্র এবং রক্তনালীর জন্য ভাল। রক্তে থাকা ‘ট্রাইগ্লিসারাইড’ নামক এক ধরনের ফ্যাট হৃদ্স্পন্দনে ব্যাঘাত ঘটায়। ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড এই রক্ত থেকে এই ফ্যাটের মাত্রা কমায়।

>> বাদামে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। রক্তে লিপিড প্রোফাইলের মাত্রা বাড়াতে ফাইবার সমৃদ্ধ বাদাম বেশ কার্যকর। এ ছাড়াও ফাইবার হৃদ্রোগের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করে।

>> ভিটামিন ই সমৃদ্ধ বাদাম শুধু হৃদ্যন্ত্র ভালো রাখতে নয়, শরীরের সার্বিক সুস্থতার ভিত্তি হিসেবেও কাজ করে। ত্বক ও চুলের যত্নে বাদামের জুড়ি মেলা ভার।

সূত্র: এনডিটিভি


আরও খবর



নাব্য সংকট: মাঝিকান্দি-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২০জন দেখেছেন
Image

নাব্য সংকটের কারণে মাঝিকান্দি-শিমুলিয়া নৌরুটে অনির্দিষ্টকালের জন্য ফেরি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন করপোরেশন (বিআইডব্লিউটিসি) কর্তৃপক্ষ।

সোমবার (২৭ জুন) রাতে বিআইডব্লিউটিসির মহাব্যবস্থাপক (মেরিন) আহমদ আলী জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মাঝিকান্দি-শিমুলিয়া ঘাটে মোটরসাইকেল পারাপারে ফেরি চালু রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছিল। শরীয়তপুরের জাজিরার পাইনপাড়া অংশের চ্যানেল মুখে নাব্য সংকট দেখায় দেওয়ায় এ নৌপথ ফেরি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নাব্য সংকট দূর করা হবে। যতদিন নাব্য সংকট দূর না হচ্ছে ততদিন এ নৌপথে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকবে।

বিআইডব্লিউটিসি সূত্র জানায়, সোমবার সকাল সোয়া ১০টায় ফেরি কুঞ্জলতা শিমুলিয়া ছেড়ে দুপুর আড়াইটার দিকে মাঝিকান্দি ঘাটে পৌঁছায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ফেরি কুঞ্জলতা সকাল সোয়া ১০টার দিকে মোটরসাইকেল নিয়ে শিমুলিয়া ঘাট থেকে রওনা দেয়। ফেরি চলার আধা ঘণ্টা পর মাঝ নদীর ডুবোচরে ফেরি আটকে যায়। প্রায় ৩ ঘণ্টা চেষ্টায় ডুবোচর থেকে ফেরি বের করতে সক্ষম হয়।


আরও খবর



কলম চুরির অপবাদে ১১ শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে জখম, শিক্ষক বরখাস্ত

প্রকাশিত:Thursday ০২ June 2০২2 | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
Image

গাইবান্ধার ফুলছড়িতে কলম চুরির অপবাদে ১১ শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ উঠেছে আনিছুর রহমান (৫০) নামের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (২ মে) সকালে গলাকাটি দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে অভিভাবকরা বিদ্যালয় ঘেরাও করে প্রতিবাদ করলে ওই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের বাড়ি ফুলছড়ি উপজেলার উদাখালী ইউনিয়নের হরিপুর গ্রামে।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শহিদুল ইসলাম জানান, সকালে আনিছুর রহমান অষ্টম শ্রেণির বাংলা ব্যাকরণ ক্লাস নিচ্ছিলেন। এসময় তিনি একটি কলম চুরির অপবাদ দিয়ে শিক্ষার্থীদের বেধড়ক মারধর করেন। ঘটনাটি তাৎক্ষণিক জানাজানি হলে এলাকাবাসী ও অভিভাবকদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। তারা বিক্ষুব্ধ হয়ে বিদ্যালয় ঘেরাও করেন। একপর্যায়ে বিদ্যালয়ের পাশের গাইবান্ধা-ফুলছড়ি রাস্তা অবরোধ করে অভিযুক্ত ওই শিক্ষকের বিচার দাবি করেন। খবর পেয়ে ফুলছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম সেলিম পারভেজ ঘটনাস্থলে এসে বিচারের আশ্বাস দিয়ে জনতাকে শান্ত করেন। পরে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আনিছুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ঘটনাটি দুঃখজনক। শিক্ষক আনিছুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।


আরও খবর