Logo
আজঃ বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

সরিষাবাড়ীতে টিউবওয়েলের পানি খেয়ে ২৩ শিক্ষার্থী অসুস্থ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ২০০জন দেখেছেন

Image
মাসুদুর রহমান:জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে টিউবওয়েলের পানি খেয়ে প্রায় ২৩ শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।  রবিবার রাত ৮ টা থেকে উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের বগারপাড়  এলাকার চাইল্ড কেয়ার একাডেমি থেকে  ১৬ জন ও  বগারপাড় উচ্চ বিদ‌্যালয় থেকে সোমবার সকালে ৫ জন  এবং মঙ্গলবার দুপুরে ২ জন শিক্ষার্থীকে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে  । অসুস্থ শিক্ষার্থীরা সবাই বগারপাড় উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ, সপ্তম ও নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী। এদের মধ‌্যে ৬ জনকে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে , ২ জনকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং ১ জনকে ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন‌্য প্রেরণ করা হয়েছে ।  তবে বিষয়টি নিয়ে সরিষাবাড়ী উপজেলায় নানা আলোচনা ও সমালোচনা চালু রয়েছে ।  তবে বিষয়টি রহস্যজনক এবং টিউবওয়েলের পানিতে নেশাজাতীয় দ্রব্য মিশিয়েছে কিনা তদন্তের মাধ‌্যমে খোজ নেওয়ার দাবী জনান  স্থানীয় এলাকাবাসী ও সচেতন মহল ।

খোজ নিয়ে জানা যায় , বগারপাড় উচ্চ বিদ্যালয়ের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা পার্শবর্তী চাইল্ড কেয়ার একাডেমি কোচিং সেন্টারে লেখাপড়া করে আসছে।  রবিবার (১৭ সেপ্টেম্বর ) রাতে  উপজেলার পোগলদিঘা ইউনিয়নের বগারপাড়  এলাকার চাইল্ড কেয়ার একাডেমিতে কোচিং চলাকালীন সময়ে হঠাৎ বিদু‌্যৎ চলে যাওয়ায় অন্তত ১৫/২০  শিক্ষার্থী কোচিং সেন্টারের টিউবওয়েলের পানি পান করে । তারপর থেকেই সবাই অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রায় ১০ জন শিক্ষার্থীকে সরিষাবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি ও বাকীদের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয় । এ কোচিং সেন্টারে ছেলে-মেয়ে উভয়ই লেখাপড়া করলেও শুধু মেয়ে শিক্ষার্থীরা ওই রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ায় এলাকায় চলছে নানা জল্পনা কল্পনা । এই শিক্ষার্থীদের উপসর্গ বুকে ব্যথা ও শ্বাসকষ্টের পাশাপাশি শরীর দুর্বল হয়ে পড়ছে ।  তারা হলেন , বগারপাড় এলাকার শফিকুল ইসলাম এর মেয়ে চৈতি , ফেরদৌস এর মেয়ে রাখি , লিমন তরফদারের মেয়ে তিথি ,আল আমিনের মেয়ে আশা , ফজলুল হকের মেয়ে অন্তরা , আঃ খালেকের মেয়ে নাদিয়া , লাভলু মিয়ার মেয়ে লাবণ‌্য ,আলমাছ এর মেয়ে তর্জনী , টুকন মিয়ার মেয়ে তমা ,তোজাম্মেল হক এর মেয়ে মেঘলা  , এছাড়াও জান্নাতুন ফেরদৌস, তানিয়া। শিক্ষার্থীদের এমন অবস্থা দেখে ওই কোচিং সেন্টারের শিক্ষকরা স্কুলে তালা ঝুলিয়ে গা-ঢাকা দিয়েছে এবং পরিচালক কামরুজ্জামান লিটন নিজেও অসুস্থ হয়ে সোমবার দুপুর থেকে  সরিষাবাড়ী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে । এদিকে সোমবার বগারপাড় উচ্চ বিদ‌্যালয়ের পাঠদান চলাকালীন সময়ে আজিজল এর মেয়ে  ৬ ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী আখি ,নুরুল ইসলাম মেয়ে নিরা ,আমিনুর এর মেয়ে আরফিন , ইমরানের মেয়ে নুসরাত এবং মঙ্গলবার দুপুরে বগার পাড় এলাকার হারুন অর রশিদের মেয়ে মিতু , মোনারপাড় এলাকার বাদাহর মেয়ে বিথিও অসুস্ত হয়ে পড়লে তাদের  সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ‌্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক  চিকিৎসা দিয়ে পরবর্তী চিকিৎসার জন‌্য হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।  

৬ ষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী আখি জানান ,পানি আর ঝালমুড়ি খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলাম । পায়ে বল পায়না মাথা ব‌্যাথা করতেছে । শিক্ষার্থী আরফিন জাহান জানায়, কোচিং সেন্টারে এসে পানি খাওয়ার আধা ঘন্টা পর বুকে ব্যথা ও শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। এরপর শরীর জিমিয়ে দুর্বল হয়ে যায়। সরিষাবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার রবিউল ইসলাম জানান, গত রবিবার থেকে প্রায় ২০ জনের মতো রোগী হাসপাতালে এসেছিল। আমাদের খাতায় ভর্তি আছে প্রায় ১৭ জন । এ ছাড়াও কয়েকজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে । এদের মধ‌্যে প্রায় ৯জনকে আমরা উন্নত চিকিৎসার জন‌্য বিভিন্ন হাসপাতালে প্রেরণ করেছি । বাকী সবাই মোটামোটি সুস্থ আছে ।   তিনি আরো বলেন ,  আমরা সবাইকে উদ্বিগ্ন না হয়ে শান্ত থাকার জন‌্য বলব । সবার মনে সাহস রাখার জন‌্য বলি । এদিকে শিক্ষার্থী মিতুর বাবা জানান,  আমার মেয়ে আজ বিদ্যালয়ে যায়নি৷  ওরও একই সমস্যা হল।চাইল্ড কেয়ার একাডেমি কোচিং সেন্টারের পরিচালক কামরুজ্জামান লিটনের সঙ্গে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি নিজেও অসুস্থ।  টিউবওয়েলের পানি খেয়ে কেনো অসুস্থ হয়ে পড়ছে আমি কিছুই বুঝে ওঠতে পারছি না। আর তা ছাড়া সবাই আমার কোচিং এর শিক্ষার্থী না । 

এদিকে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ‌্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বদরুল ইসলাম জানান ,  হাসপাতালে সর্বোচ্চ চিকিৎসা প্রদান করা হচ্ছে ।  স্বাভাবিক হয়ে কয়েকজন বাড়ী চলে গেছে ।  বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকার ।

আরও খবর



৩ নম্বর সংকেত জারি সমুদ্র বন্দরে

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৫২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আবহাওয়া অধিদপ্তর দেশের চারটি সমুদ্র বন্দরে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলেছে।বুধবার (১৯ জুন) আবহাওয়ার এক সতর্কবার্তায় সংস্থাটি এ সতর্কবার্তা জারি করে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের সতর্কবার্তায় জানানো হয়, সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালা সৃষ্টি হচ্ছে। উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরগুলোর ওপর দিয়ে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এছাড়া উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এদিকে সক্রিয় মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে দেশের চারটি বিভাগে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেইসঙ্গে দুই বিভাগে ভারী বৃষ্টির কারণে ভূমিধসের শঙ্কার কথাও জানানো হয়েছে।


আরও খবর



তরুণরাই বদলে যাওয়া বাংলাদেশকে এগিয়ে নেবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ২৪ জুন 20২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৩৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:এই বাংলাদেশ এগিয়ে যাওয়ার বাংলাদেশ, এই বাংলাদেশ বদলে যাওয়ার বাংলাদেশ। আগামী দিনগুলোয় তরুণরাই বদলে যাওয়া বাংলাদেশকে এগিয়ে নেবে। ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে শিক্ষার্থীদের প্রস্তুত করাই সরকারের লক্ষ্য,বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।

সোমবার (২৪ জুন) সকালে রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে শিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত মাধ্যমিক থেকে স্নাতক (পাস) ও সমমান পর্যায়ের মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে ২০২৩-২৪ অর্থবছরের উপবৃত্তি ও টিউশন ফি বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপির আমলে স্বাক্ষরতার হার ৪৫ ভাগ। আমরা সেটিকে বর্তমানে ৭৬.৮ ভাগে উন্নীত করেছি। এ সময় ২০২৪-২৫ অর্থবছরের বাজেটে শিক্ষা খাতে বাজেট বাড়ানোয় তা সমাজে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। বিনামূল্যে বই বিতরণের বিষয়টি অনেকে অসম্ভব মনে করলেও আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে তা করে দিয়েছে। ২০১০ সাল থেকে আমরা বিনামূল্যে বই বিতরণ করছি। এখন পর্যন্ত ৪৬৪ কোটির বেশি বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, বিজ্ঞান, গবেষণা ও প্রযুক্তিজ্ঞান ছাড়া কোনও দেশ বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না। আমরা সমস্ত টেলিফোন সিস্টেমকে ডিজিটালাইজ করি। কম্পিউটার শিক্ষার জন্য সুযোগ সৃষ্টি করে দেই। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হয় দুই তিনটা কম্পিউটার দিয়ে। ছেলেমেয়েরা যাতে শিক্ষা নিতে পারে তার ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি। তাছাড়া আইন পাশ করে ১২টা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় নির্মাণ কাজ শুরু করি। ৭৫ পরবর্তী যারা ক্ষমতায় ছিল তারা গবেষণায় কোনও বরাদ্দ দেয়নি। গবেষণা আমাদের কোনও বরাদ্দ ছিল না। আমাদের প্রথম বাজেট অল্প ছিল। সেখান থেকেও গবেষণার জন্য টাকা দিয়ে দেই। পরে যখন বাজেট দেই তখন ১০০ কোটি টাকা থোক বরাদ্দ দিয়েছিলাম। সেটা ছিল কম্পিউটার শিক্ষা এবং গবেষণায়।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের শুধু একটা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছিল। আমি আরও কয়েকটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় করে দেই। সেইসঙ্গে ১৬টি বেসরকারের বিশ্ববিদ্যালয়, নভোথিয়েটার প্রতিষ্ঠা, সমুদ্র গবেষণা ইনস্টিটিউট, বায়ু টেকনোলজি ইনস্টিটিউট, এই সবগুলো আওয়ামী লীগ সরকার আমলে শুরু করেছিলাম।

শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী, শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী বেগম শামসুন্নাহার, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোলেমান খান।


আরও খবর



তরুন সমাজকে মাদকমুক্ত করতে গোদাগাড়ীতে ৩ দিন ব্যাপী নাইট মিনি ফুটবল ফাইনাল খেলা

প্রকাশিত:শনিবার ২২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ জুলাই ২০২৪ | ১১৯জন দেখেছেন

Image

মুক্তার হোসেন,গোদাগাড়ী(রাজশাহী)প্রতিনিধিঃরাজশাহীর গোদাগাড়ী পৌরসভার তরুন সমাজকে মাদকমুক্ত করতে প্রকৌশলী এরশাদ আলী আকাশের উদ্যোগে তরুনদের নিয়ে ৩ দিন ব্যাপী নাইট মিনি ফুটবল ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হয়।বৃহস্পতিবার রাত ৯ টা থেকে ১২ টা পর্যন্ত জাহানাবাদ ঈদগাহ মাঠে জাহানাবাদ সমাজ কল্যান ০২-০১ রাব্বানী একাদশকে হারিয়ে চাম্পিয়ন হয়।গোদাগাড়ী পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড যুবলীগ সাধারন সম্পাদক জুয়েল রানার সভাপতিত্বে খেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন,৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মুহাম্মদ ওবাইদুল্লাহ।বিশেষ অতিথি ছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লেদার ইনস্টিটিউট ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক,ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক ও লেস ফুটওয়্যার বিডির চেয়ারম্যান গোদাগাড়ীর কৃতিসন্তান প্রকৌশলী এরশাদ আলী আকাশ,গোদাগাড়ী পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত সচিব সারওয়ার জাহান মুকুল,ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি এমদাদুল হক টুটুল,সাধারন সম্পাদক মোমিনুল ইসলাম মোমিন প্রমূখ।

খেলা শেষে চাম্পিয়ন ও রানার্সআপ দলকে ট্রফি তুলে দেন অতিথিরা। খেলাটি সার্বিকভাবে পরিচালনা করেন পৌর ছাত্রলীগ সাধারন সম্পাদক আব্দুল মালেক নয়ন।ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রনেতা ও লেস ফুটওয়্যার বিডির চেয়ারম্যান গোদাগাড়ীর কৃতিসন্তান প্রকৌশলী এরশাদ আলী আকাশ বলেন, মাদক একটি সামাজিক ব্যাধিতে পরিণত হয়েছে। যুবসমাজকে মাদক থেকে দূরে রাখতে খেলাধুলার কোনো বিকল্প নেই। যুবক ও তরুণদের খেলাধুলার মধ্যে রাখতে হবে। খেলাধুলা করলে যেমন শরীর ভালো থাকে তেমনি মনও ভাল থাকবে। তিনি আরো বলেন, আমার সাথে কারও রক্তের সম্পর্ক নেই। এ অঞ্চলের মানুষের সাথে আত্নার সম্পর্ক  আছে থাকবে। আর খেলার মাঠের বিষয়ে এখানকার জনপ্রতিনিধিদের সাথে থেকে একটি খেলার মাঠের ব্যবস্থা করা হবে।শিক্ষক নেতৃবৃন্দ, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার ১২-১৫হাজার মানুষ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



শাহবাগে ঢাবি শিক্ষার্থীদের অবস্থান কোটা বাতিলের দাবিতে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ১৪০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আবারও রাজধানীর শাহবাগ মোড়ে সরকারি চাকরিতে কোটা বাতিলের দাবিতে অবস্থান নিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এর আগে ৫ জুন কোটা বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। এই রায় প্রত্যাখ্যান করে সেদিন বিকেলে আন্দোলন করেন শিক্ষার্থীরা। ছুটি শেষে আজ বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা শাহবাগে অবস্থান নিয়েছেন।

মঙ্গলবার (২ জুলাই) বিকেল ৪টায় সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস থেকে নীলক্ষেত সায়েন্সল্যাব হয়ে শাহবাগে এসে তারা অবস্থান নেন।

তাদের দাবি, হাইকোর্ট কর্তৃক প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটাসহ ৫৬ শতাংশ কোটা পুনর্বহালের আদেশ বাতিল করে ২০১৮ সালের পরিপত্র পুনর্বহাল করতে হবে। অন্যথায় শিক্ষার্থীরা লাগাতার আন্দোলন করে যাবে।

প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির সরকারি চাকরিতে মুক্তিযোদ্ধা কোটাসহ এই কোটা পদ্ধতি সাধারণ মেধাবী শিক্ষার্থীদের প্রতি একটি অবিচার,বলেনগণতান্ত্রিক ছাত্রশক্তির কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক ও ডাকসুর সাবেক সমাজ সেবা সম্পাদক আখতার হোসেন । ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে বাতিল হওয়ার পর গত ৫ জুন সেই কোটা পদ্ধতি বাতিলের সিদ্ধান্ত অবৈধ ঘোষণা করেছেন হাইকোর্ট। এর মাধ্যমে মেধাবী শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতকে অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। আমরা চাই অবিলম্বে এই সিদ্ধান্ত বাতিল করা হোক।

তিনি বলেন, আমাদের এই আন্দোলন একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক আন্দোলন। আমরা চাই সরকার আমাদের যৌক্তিক দাবি মেনে নিক। শিক্ষার্থী পড়ার টেবিলে ফিরে যাবে। আর যদি দাবি মেনে নাও না হয়, তাহলে আমরা ঘরে ফিরব না।


আরও খবর



মধুপুর বিদ্যুৎ অফিসের সংযোগ বিচ্ছিন্নকারী টিমের উপর গ্রাহকদের হামলা

প্রকাশিত:শনিবার ২৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ | ২৮৯জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা বিশেষ প্রতিনিধি মধুপুর টাঙ্গাইল:টাঙ্গাইলের মধুপুরে ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর জোনাল অফিসের বকেয়া বিদ্যুৎ বিল আদায়ের লক্ষ্যে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গিয়ে বিচ্ছিন্নকারী টিমের উপর গ্রাহকদের অতর্কিত হামলার ঘটনা ঘটেছে। 

এঘটনায় হারুন অর রশিদ নামের একজন লাইন ক্রু লেভেল-১ গুরুতর ভাবে আহত হয়ে মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে। গত বৃহস্পতিবার (২৭জুন) দুপুর ১২টার দিকে সরকারি রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যে মধুপুর জোনাল অফিসের মিটার টেস্টিং সুপারভাইজার শাহীনুর রহমানের নেতৃত্বে একটি সংযোগ বিচ্ছিন্নকারী টিম অরণখোলা ও বেরিবাইদ এলাকায় সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে উত্তেজিত গ্রাহক এই হামলার ঘটনাটি ঘটায় বলে জানা যায়। 

এঘটনায় আহত লাইন ক্রু হারুন অর রশিদ জানান, বকেয়া বিদ্যুৎ বিল আদায়ের লক্ষ্যে আমরা বেরিবাইদ এলাকায় সংযোগ বিচ্ছিন্ন করতে গেলে বেরিবাইদ গ্রামের আবাসিক গ্রাহক শ্রী গিরিশ চন্দ্র বৈষ্ণবের ছেলে শ্রী গনেশ চন্দ্র বৈষ্ণব এবং অরণখোলা এলাকার বানবের ছেলে পবিত্র ও প্রান কুমার সহ আরও ১০/১২ জন লোক একত্রিত হয়ে আমাদের সাথে কুরুচিপূর্ণ আচরণ করতে থাকে এবং সারাদিন বিদ্যুৎ না থাকার কারণ এবং বিদ্যুৎ ছাড়াই বেশি বিল কিভাবে আসে এসব বিষয় নিয়ে  আমাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। 

কথা কাটাকাটির এক পর্ষায়ে তারা আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ি ভাবে কিল-ঘুষি মারতে থাকে। 

একপর্যায়ে আমাকে লাথি মেরে মাটিতে ফেলে বাঁশের লাঠি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর ভাবে আহত করে। এমন ভয়াবহ পরিস্থিতিতে টিমের অন্যান্য সদস্যগন ভয়ে দৌড়ে ঘটনা স্থল ত্যাগ করেন। পরবর্তীতে স্থানীয় লোকজন এসে আমাকে উদ্ধার করে মধুপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে ভর্তি করে।

ঘটনাস্থলে গিয়ে জানা যায়, এই প্রচন্ড গরমে ঘন্টার পর ঘন্টা বিদ্যুৎ বিহীন থেকে এলাকার সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছে। 

তারা আরও জানান, এ প্রচন্ড তাপদাহে জনজীবনে স্বস্তির একমাত্র মাধ্যম হলো বিদ্যুৎ যা আমরা দিনরাত মিলিয়ে ৩/৪ ঘন্টাও পাইনা। 

উক্ত এলাকার মোদি দোকানদার কাজিম শেখ জানান, আগে দিনরাত ২০ ঘন্টা বিদ্যুৎ ব্যবহার করে যে বিল আসতো বর্তমানে ৪/৫ ঘন্টা বিদ্যুৎ চালিয়ে তার থেকে বেশি বিল আসে। এছাড়া যতটুকু পাওয়া যায় সেখানে ভোল্টেজ থাকে খুবই কম যে কারণে দুই দিনেও একটি মোবাইলের ব্যাটারী ফুল চার্জ করা সম্ভব হয়না। 

এসব বিষয় নিয়ে অনেক দিন ধরেই মানুষের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এদিকে জুন মাস ব্যাপি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা অনুযায়ী বকেয়া বিদ্যুৎ বিল আদায়, অনাদায়ে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার অভিযান চলমান। 

এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৭জুন বৃহস্পতিবার অরণখোলা ও বেরিবাইদ এলাকায় সংযোগ বিচ্ছিন্ন করাকে কেন্দ্র করে এ হামলার ঘটনাটি ঘটে বলে এলাকাবাসি জানান। 

অত্র এলাকার বাসিন্দা শচীন চন্দ্র বৈষ্ণব জানান, কোরবানি ঈদের আগে থেকে শুরু করে টানা এক সপ্তাহ ১০মিনিটের জন্যও বিদ্যুৎ যায়নি তাহলে এখন সেই বিদ্যুৎ কোথায় গেলো। বিদ্যুতের জন্য ছেলে মেয়েরা পড়াশোনা করতে পারে না, ফ্রীজে রাখা মাছ মাংস এবং অন্যান্য খাবার নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ঘন্টার পর ঘন্টা লোডশেডিং করার কারনে বয়স্ক লোকজন অসুস্থ হয়ে পড়ছে। ভুক্তভোগী এলাকাবাসী, বিদ্যুতের উর্ধতন কর্তৃপক্ষে নিকট অন্যান্য জেলা উপজেলার মতো নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের দাবি জানান।

ময়মনসিংহ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর আওতাধীন মধুপুর জোনাল অফিসের ডিপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) মোঃ নুরুল আমিন এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

     -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর