Logo
আজঃ শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪
শিরোনাম

শিশুদের করোনা টিকা দিতে স্থায়ী কেন্দ্র

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২২ নভেম্বর 20২২ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | ৩২৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক ;পাঁচ থেকে এগারো বয়সী শিশুদের করোনা ভাইরাসের টিকার প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ প্রদান কার্যক্রম পরিচালনায় রাজধানীর দুই হাসপাতালকে স্থায়ী কেন্দ্র নির্ধারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। সম্প্রতি স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনা টিকা ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক ডা. মো. শামসুল হক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, ঢাকা উত্তর সিটির (ডিএনসিসি) জন্য ডিএনসিসি করোনা হাসপাতাল ও দক্ষিণ সিটির (ডিএসসিসি) জন্য ঢাকা মহানগর জেনারেল

হাসপাতাল স্থায়ী কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে চলমান শিশুদের কোভিড টিকাদান কার্যক্রমের প্রথম ডোজ এরই মধ্যে প্রায় সম্পন্ন হয়েছে। তবে যেসব শিশু টিকা নিতে পারেনি তাদের প্রথম ও দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়ার সুবিধার্থে ডিএনসিসির জন্য ডিএনসিসি হাসপাতাল, মহাখালী ও ডিএসসিসির জন্য ঢাকা মহানগর জেনারেল হাসপাতাল স্থায়ী কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হবে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মহাপরিচালকের সম্মতিক্রমে আদেশের অনুলিপি অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে মহাখালী ডিএনসিসি কোভিড হাসপাতাল, দুই সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, ঢাকার সিভিল সার্জন, মহানগর জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে।

শিশুরা প্রথম ডোজ টিকা গ্রহণের ৫৬ দিন পর দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার কথা। কিন্তু বেশির ভাগ শিশুর টিকাগ্রহণের তিন মাস পেরিয়ে গেলেও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে দ্বিতীয় ডোজের বিষয়ে কিছু এখনো জানানো হয়নি। এতে এক ডোজ পাওয়া শিশু ও অভিভাবকরা শঙ্কায় আছেন।


আরও খবর



কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮১জন দেখেছেন

Image

বাগেরহাট প্রতিনিধি:বাগেরহাটের কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও গোপালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান  এস এম আবু বক্কর সিদ্দিক (৬৭ ) আর নেই। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বুধবার( ৩১ জানুয়ারি) দুপুরে ঢাকাস্থ ইব্রাহীম কার্ডিয়াক হাসপাতলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ মোঃ সাইফুল ইসলাম  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ।

প্রায় ১৫ দিন আগে হৃদরোগে আক্রান্ত হলে তাকে প্রথমে খুলনা সিটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ঢাকার ইব্রাহীম কার্ডিয়াক হাসপাতলে নেওয়া হয় প্রবীন এই রাজনীতিবিদকে। মৃত্যুকালে তিনি  স্ত্রী, এক মেয়ে ও  ছেলেসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।

দলীয় সূত্রে জানাগেছে, বৃহস্পতিবার সকাল ৯ থেকে সাড়ে নয়টা  পর্যন্ত  মরহুমের মরদেহ  উপজেলা  আওয়ামী লীগের কার্যলের সামনে রাখা হবে। সেখানে  নেতা কর্মীরা তাকে শ্রদ্ধা জানাবেন। পরে  বেলা  ১১ টায় গোপালপুরের শহীদ  আসাদ স্মৃতি মাধ্যমিক বিদ্যালয় মরহুমের  প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপরে গ্রামের বাড়ি টেংরাখালীতে তার শেষ নামাজে জানাজা এবং দাফন সম্পন্ন হবে।

বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবনে তিনি ৩০ বছরের উপরে কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া ২০১৬ সাল থেকে বর্তমান পর্যন্ত তিনি গোপালপুর ইউনিয়নের দুই বারের চেয়ারম্যান ছিলেন।

এদিকে মরহুমের মৃত্যুতে বাগেরহাট-২ আসনের সাংসদ সদস্য শেখ তন্ময় শোক ও শোকশন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। একইভাবে শোক জানিয়েছেন কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অধ্যক্ষ মোঃ সাইফুল ইসলাম, কচুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নাজমা  সরোয়ার, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান তাসলিমা বেগম, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মীর জায়েসী আশরাফি জেমস, যুবলীগ নেতা মেহেদী হাসান বাবু, কচুয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি খোন্দকার নিয়াজ ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইদুজ্জামানসহ সদস্য সকল সদস্যবৃন্দ। এছাড়া কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগসহ  আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ  থেকে মরহুমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করা হয়েছে।


আরও খবর

গাংনীতে বালাইনাশক ব্যবহারে উদাসিন কৃষকরা

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্তদের সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২১জন দেখেছেন

Image

ফুলবাড়ী, দিনাজপুর প্রতিনিধি:দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির ভূগর্ভ থেকে কয়লা উত্তোলনের কারণে পার্শ্ববর্তী বৈগ্রাম-কাশিয়াডাঙ্গা গ্রামের ঘরবাড়ী ফাটলে এলাকাবাসী ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ক্ষতিপূরণের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি ক্ষতিগ্রস্তদের দাবি আদায় বাস্তবায়ন কমিটি।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় বৈগ্রাম-কাশিয়াডাঙ্গা ক্ষতিগ্রস্থদের দাবি আদায় বাস্তবায়ন কমিটির কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সহ-সভাপতি গোলাম মোস্তফা লিখিত বক্তব্যে জানান, কয়লা খনির কারণে ঘরবাড়ীতে ফাটল সৃষ্টি হলে গত ২২/০১/২০২৪ তারিখে আমরা সংগঠনের পক্ষথেকে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কর্তৃপক্ষের নিকট লিখিত অভিযোগ জানাই, আমাদের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলো সার্ভারের মাধ্যমে পদক্ষেপ না নিলে এবং ক্ষতিপূরণের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন বিক্ষোভ মিছিল সহ বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। কিন্তু খনি কর্তৃপক্ষ এখনো কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেননি। আমরা ছয় দফা চুক্তির কথা বলেছিলাম সেই ছয় দফা চুক্তি এখনো বাস্তবায়ন হয়নি। ছয় দফা চুক্তির মধ্যে রয়েছে কর্তৃপক্ষের সমঝোতা চুক্তি মোতাবেক ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার হতে চাকরি দেওয়ার কথা, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার দুইটি গ্রামের বাড়ী ঘর ফাটল কাঁপুনি ঝুঁকিপূর্ণভাবে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করছে তাদের দ্রুত পুনর্বাসন করতে হবে, ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার ভূমিহীন প্রতিটি পরিবারকে মাইনিং সিটি অথবা উন্নত মানের বাসস্থান তৈরি করে দিতে হবে, ক্ষতিগ্রস্তদের অবশিষ্ট ক্ষতিপূরণের টাকা দিতে হবে ক্ষতিগ্রস্তদের সুপ্রিয় প্রাণীর ব্যবস্থা করতে হবে এবং মসজিদ মন্দির স্কুল কলেজ ও হাসপাতাল তৈরি করে দিতে হবে ক্ষতিগ্রস্তদের যাদের জমি থেকে কয়লা উত্তোলন করা হচ্ছে তাদেরকে কয়লা উৎপাদনের বোনাস পাসেন্ট দিতে হবে।

কিন্তু গত ৩০ বছরে কয়লাখনি কর্তৃপক্ষ বৈগ্রাম সহ অন্যন্যা গ্রামগুলির অফুরন্ত যে ক্ষতি হয়েছে তার কিছুই পায় নি। খনি কর্তৃপক্ষ এই এলাকার মানুষকে বোকা বানিয়েছে। তাই আজকের এই সংবাদ সম্মেলনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ও জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রীর কাছে ন্যায় দাবী জানাচ্ছি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের বৈগ্রাম-কাশিয়াডাঙ্গা ক্ষতিগ্রস্থদের দাবি আদায় বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য মোঃ দেলোয়ার হোসেন, মোঃ সাদেকুল ইসলাম,কোষাধ্যক্ষ সফিকুল ইসলাম, সদস্য মোঃ মেনাজুল হক সহ সংগঠনের শতাধিক সদস্য।সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা বলেন যদি আমাদের দাবিসমূহ বাস্তবায়ন না হয় তাহলে আমরা কঠোর আন্দোলন করতে বাধ্য হব ।


আরও খবর



নওগাঁয় আলুর ক্ষেত থেকে তিনটি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

এম এম হারুন আল রশীদ হীরা; নওগাঁ প্রতিনিধি:নওগাঁয় পরিত্যাক্ত অবস্থায় ৩টি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে র‌্যাব। বুধবার দিবাগত রাত সোয়া ১১ টার দিকে সদর থানার বক্তারপুর এলাকার একটি আলুর ক্ষেত থেকে ওয়ান শুটারগান গুলো উদ্ধার করে থানায় হস্তান্তর করে র‍্যাব।

র‍্যাব জানান, নওগাঁর সদর থানার বক্তারপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনার সময়ে গোপনে মাদক ও অস্ত্র সরবরাহ সংক্রান্ত তথ্যের ভিত্তিতে বক্তারপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা করার সময়ে অজ্ঞাত মাদক ও অস্ত্র ব্যবসায়ী র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে চাকলা হতে শ্যামপুর রাস্তার মধ্যস্থলে রাস্তার পাশে আলুর ক্ষেতে ৩টি ওয়ান শুটারগান ফেলে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে সাক্ষীদের উপস্থিতিতে পরিত্যাক্ত অবস্থায় আগ্নেয়াস্ত্র গুলো উদ্ধার করা হয়। 

পরবর্তীতে উদ্ধারকৃত আগ্নেয়াস্ত্র গুলো নওগাঁ সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান র‍্যাব।


আরও খবর

জয়পুরহাটে হুমকি পাওয়া সেই বিচারক প্রত্যাহার

বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সোনার খনি ধসে ভেনেজুয়েলায় নিহত ২৩

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩১জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:সোনার খনি ধসে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ ভেনেজুয়েলায় অন্তত ২৩ জন নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনার সময় সেখানে ২০০ জন শ্রমিক কাজ করছিল।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভেনেজুয়েলার মধ্যাঞ্চলে বেআইনিভাবে পরিচালিত একটি সোনার খনিতে মাটির দেয়াল ধসে পড়ার পর অন্তত ২৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। দুর্ঘটনার সময় সেখানে বহু মানুষ কাজ করছিলেন।

স্থানীয় কর্মকর্তা ইওরগি আর্কিনিগা বুধবার বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেছেন, দেশের বলিভার প্রদেশের জঙ্গলে বুল্লা লোকা নামে পরিচিত খোলা গর্ত থেকে প্রায় ২৩টি মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। গত মঙ্গলবার এই দুর্ঘটনা ঘটে।

বেসামরিক নিরাপত্তা উপমন্ত্রী কার্লোস পেরেজ অ্যাম্পুয়েদা সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্সে এই ঘটনার একটি ভিডিও প্রকাশ করেছেন এবং ধসের ঘটনায় নিহতের সংখ্যাকে ‘বিশাল’ বলে উল্লেখ করেছেন। যদিও তিনি নিহতের কোনও সংখ্যা উল্লেখ করেননি।

ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, একটি উন্মুক্ত খনির অগভীর পানিতে কর্মরত লোকদের ওপর ধীরে ধীরে মাটির একটি প্রাচীর ভেঙে পড়ছে। কেউ কেউ ঘটনার সময় সেথান থেকে পালাতে সক্ষম হলেও অনেকে আবার তাতে চাপা পড়েন।

কর্মকর্তাদের মতে, প্রায় ২০০ জন লোক সেসময় খনিতে কাজ করছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে। যেখানে এই খনিটি অবস্থিত সেখানে পৌঁছাতে হলে নিকটতম শহর লা প্যারাগুয়া থেকে সাত ঘণ্টার নৌকায় ভ্রমণ করতে হয়।

বলিভার প্রদেশের নাগরিক নিরাপত্তা বিষয়ক সেক্রেটারি এডগার কোলিনা রেয়েস বলেছেন, আহতদের আঞ্চলিক রাজধানী সিউদাদ বলিভারের একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এই অঞ্চলটি লা প্যারাগুয়া থেকে চার ঘণ্টা দূরত্বে এবং রাজধানী কারাকাসের ৭৫০ কিলোমিটার (৪৬০ মাইল) দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত।

রেয়েস বলেছেন, পরিস্থিতি বিবেচনা করে সামরিক, দমকল বাহিনী এবং অন্যান্য সংস্থাগুলো ‘আকাশপথে ওই এলাকায় চলে যাচ্ছে’। তিনি বলেন, অনুসন্ধানে সহায়তার জন্য কারাকাস থেকে উদ্ধারকারী দলও পাঠানো হচ্ছে।

আল জাজিরা বলছে, বলিভার অঞ্চল সোনা, হীরা, লোহা, বক্সাইট, কোয়ার্টজ এবং কোল্টান সমৃদ্ধ। রাষ্ট্রীয় খনি ছাড়াও এই অঞ্চলে অবৈধভাবে এসব মূল্যবান ধাতু উত্তোলনের বিকাশমান শিল্পও রয়েছে।

এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে একই অঞ্চলের ইকাবারুর আদিবাসী সম্প্রদায়ের একটি খনি ধসে কমপক্ষে ১২ জন নিহত হয়েছিল।


আরও খবর

পুতিন ‘বন্ধু’ কিমকে গাড়ি উপহার দিলেন

মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24




"রাজধানী ঢাকায় প্রয়োজন ২৫ শতাংশ রাস্তা, আছে ৯ শতাংশ"

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, রাজধানী ঢাকায় ২৫ শতাংশ রাস্তার প্রয়োজন হলেও সেখানে ৯ শতাংশ রাস্তা আছে বলে।

রোববার (১১ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদ অধিবেশনে এমপি শফিকুল ইসলাম শিমুলের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান তিনি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ঢাকায় ২ কোটি মানুষের বাস। একটা শহরে যানবাহন উপযোগী রাখার জন্য ও ট্রাফিক ব্যবস্থা সুষ্ঠু রাখার জন্য অন্ততপক্ষে ২৫ শতাংশ রাস্তার প্রয়োজন হয়। সেখানে আমাদের আছে ৯ শতাংশ। এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে যুক্ত হলে সেটি সাড়ে ৯ শতাংশ হতে পারে। আমাদের রাস্তার সংকট রয়েছে।

আসাদুজ্জামান খান বলেন, আমরা ট্রায়ালভাবে একবার দিয়েছিলাম। তাতে আমরা মহাজটের একটা দৃশ্য দেখেছি। সেজন্য আমরা সরে গিয়ে আরেকটি পরিকল্পনা নিয়েছি। দুই সিটির মেয়র আমাদের সঙ্গে যুক্ত হয়ে আমরা কীভাবে আরও লাইটিং সিস্টেমের মধ্যে নিয়ে আসতে পারি সেটি আমরা শুরু করেছি। আমরা খুব শিগগিরই হয়তো পর্যায়ক্রমে কিছু কিছু জায়গায় আমরা শুরু করব।


আরও খবর