Logo
আজঃ Friday ১৯ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে আবাসিকের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ডেমরায় প্যাকেজিং কারখানায় ভয়বহ অগ্নিকান্ড রূপগঞ্জে পুলিশের ভুয়া সাব-ইন্সপেক্টর গ্রেফতার রূপগঞ্জে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ॥ সভা সরাইলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। নারায়ণগঞ্জে পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে পুতা দিয়ে আঘাত করে হত্যা,,স্বামী গ্রেপ্তার রূপগঞ্জ ইউএনও’র বিদায় সংবর্ধনা নাসিরনগরে স্বামীর পরকিয়ার,বলি ননদ ভাবীর বুলেটপানে আত্মহত্যা নাসিরনগরে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত ডেমরায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসুচি পালিত

সিলেট-সুনামগঞ্জে ত্রাণ সহায়তা পাঠালো এফবিসিসিআই

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ১০৩জন দেখেছেন
Image

সিলেট ও সুনামগঞ্জে সাম্প্রতিক বন্যায় দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের জন্য ত্রাণ সহায়তা পাঠিয়েছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই। দুই জেলায় পাঠানো ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চিড়া, গুড় ও অন্যান্য শুকনো খাবার, লবণ, বিশুদ্ধ পানি, স্যালাইন, মোমবাতি ও দিয়াশলাই।

রোববার (২৬ জুন) সুনামগঞ্জ চেম্বারের নেতারা এফবিসিসিআইয়ের ত্রাণ বিতরণ শুরু করেছে। অন্যদিকে সোমবার থেকে বিতরণ কার্যক্রম শুরু করবে সিলেট চেম্বার অব কমার্স।

বন্যাকবলিত মানুষের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করে এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে সিলেট ও সুনামগঞ্জের দুর্দশাগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

বন্যাকবলিত অন্যান্য জেলার পরিস্থিতির অবনতি হলে একইভাবে সহায়তা পাঠানো হবে বলে জানান সভাপতি।

এফবিসিসিআইয়ের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু জানান, করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণে এর আগে জেলা চেম্বারগুলোর মাধ্যমে দেশব্যাপী ফেসমাস্ক, অক্সিজেন সিলিন্ডার, হাই-ফ্লো অক্সিজেন ক্যানুলাসহ বিভিন্ন চিকিৎসা সামগ্রী বিতরণ করেছে এফিবিসিসিআই। ভবিষ্যতেও যে কোনো সংকটে সরকারের পাশাপাশি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আশ্বাস দেন তিনি।

বন্যাকবলিত মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে দেশের সব ব্যবসায়ীকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছে এফবিসিসিআই।


আরও খবর



কুমিরকে তীরে টেনে আনলো গরু, বনবিভাগের সহযোগিতায় উদ্ধার

প্রকাশিত:Sunday ২৪ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১৭ August ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

মোংলায় সুন্দরবনের শ্যালা নদীতে পানি খেতে নেমে কুমিরের আক্রমণের শিকার হয়েছে একটি গরু। কুমির গরুটির পেছনের রান ও দুই পা কামড়ে জখম করে। পরে বনবিভাগ গরুটি উদ্ধার করে মালিকের কাছে হস্তান্তর করেছে।

রোববার (২৪ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার চিলা ইউনিয়নের জয়মনি এলাকার চাঁদপাই ফরেস্ট লঞ্চঘাট সংলগ্ন শ্যালা নদীতে এ ঘটনা ঘটে।

jagonews24

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জ কার্যালয়ের বোটম্যান মো. মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বনবিভাগের কর্মকর্তা ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকেলে শ্যালা নদীর তীরে একটি গাভি পানি খেতে নামে। এ সময় ওই জায়গায় থাকা একটি বড় কুমির গরুটির ওপর আক্রমণ করে। কুমিরটি গরুর পেছনের ডান রান কামড়ে ধরে টানতে থাকে। গরুটিও ছাড়িয়ে নিতে ওপরের দিকে উঠতে থাকে। গরুর টানে কুমিরও তীরের অর্ধেক পর্যন্ত উঠে যায়।

jagonews24

কুমির ও গরুর ধস্তাধস্তি এবং গরুর ডাকে লঞ্চঘাটের লোকজন ছুটে আসেন। পরে লোকজনের তাড়া ও শব্দে কুমির গরুটিকে ছেড়ে নদীতে চলে যায়। পরে গরুটি সেখান থেকে উদ্ধার করে এনে মালিকের কাছে দেওয়া হয়।

বোটম্যান মিজানুর রহমান বলেন, কুমিরে গরু ধরার খবর পেয়ে স্টেশনের বোটম্যান সুলতান মাহমুদ ও বনপ্রহরী অসিম কুমার গিয়ে গরুটি উদ্ধার করেন। পরে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে মালিকের কাছে হস্তান্তর করা হয়। চিকিৎসার জন্য গরুটিকে পশু হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

jagonews24

গরুটির মালিক জয়মনি এলাকার নাগেরপুকুর পাড়ের শ্যামল মজুমদার। তিনি বলেন, কুমিরের আক্রমণে গরুর পেছনের রান ও দুই পাসহ শিরা মারাত্মক জখম হয়েছে। রান ও পায়ের কয়েক জায়গার মাংস কামড়ে থেঁতলে গেছে।

গাভিটি পাঁচ মাসের অন্তঃসত্ত্বা বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



আসর থেকে যুবলীগ সভাপতিসহ ১৫ জুয়াড়ি আটক

প্রকাশিত:Thursday ২৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৩২জন দেখেছেন
Image

পাবনার আটঘরিয়ায় জুয়ার আসর থেকে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি আজিজুল গাফ্ফারসহ ১৫ জুয়াড়িকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার (২৭ জুলাই) দিনগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে দেবোত্তর বাজারের একটি মার্কেটের পেছন থেকে তাদের আটক করা হয়।

পাবনা পুলিশ সুপার (এসপি) মহিবুল ইসলাম খাঁন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আসর থেকে যুবলীগ সভাপতিসহ ১৫ জুয়াড়ি আটক

আটক ব্যক্তিরা হলেন উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও বরুলিয়া গ্রামের মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে আজিজুল গাফ্ফার (৪৭), দেবোত্তর গ্রামের আব্দুস সামাদের ছেলে মিজান আলী (২৭), মৃত ইয়াছিন আলীর ছেলে আবু সাঈদ (৩৭), নাগদহ গ্রামের হারুনুর রশিদ মন্ডলের ছেলে বাবুল আক্তার (৪০), মৃত ধলু সেখের ছেলে রফিক উদ্দিন (৪০), চক ধলেশ্বর গ্রামের আনসার আলীর ছেলে ফারক হোসেন (৩৪), মৃত শুকুর আলীর ছেলে আব্দুল মালেক (৩০), বিশ্রামপুর গ্রামের মৃত জাকির হোসেনের ছেলে আব্দুল হালিম (৫২), সদর উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের মৃত আবুল হোসেনের ছেলে হিরা হোসেন (৩৫) ও শাহাপুর জাশাদল গ্রামের মৃত মজুর আলীর ছেলে রাজা হোসেন (৩৫), মৃত মজির উদ্দিনের ছেলে সেলিম হোসেন (৩৮), রোস্তম প্রামাণিকের ছেলে লিটন হোসেন (৩৫), কন্দপপুর গ্রামের আবুল হাশেমের ছেলে সজল হোসেন (২৮), মৃত খালেকের ছেলে উকিল আলী (৪০) ও পলাশ প্রামাণিকের ছেলে সাগর প্রামাণিক (২০)।

আসর থেকে যুবলীগ সভাপতিসহ ১৫ জুয়াড়ি আটক

আটঘরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দেবোত্তর বাজারে একটি মার্কেটের পেছনে অভিযান চালান হয়। এ সময় জুয়া খেলা অবস্থায় হাতেনাতে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আজিজুল গাফ্ফারসহ ১৫ জন জুয়াড়িকে আটক করা হয়। তাদের কাছ থেকে নগদ ৩৪ হাজার ৭৬০ টাকা এবং পাঁচ সেট তাস জব্দ করা হয়েছে।

ওসি আরও জানান, এ ঘটনায় আটঘরিয়া থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। আটক ব্যক্তিদের গ্রেফতার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



আজও আদালতে তোলা হবে পার্থ-অর্পিতাকে

প্রকাশিত:Friday ০৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ১৬ August ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

পশ্চিমবঙ্গে নিয়োগ কেলেঙ্কারির ঘটনায় সাবেক মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ইডি হেফাজতের মেয়াদ শেষ হচ্ছে আজ। তাই কোনও সময় নষ্ট না করে আজ সকাল থেকেই তাকে জেরা করা শুরু করেছে ইডি।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) আড়াই ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে জেরা করা হয় পার্থ-অর্পিতাকে। কিন্তু মুখে কুলুপ এঁটে আছেন প্রাক্তন মন্ত্রী, তদন্তে কোন সহযোগিতা করছেন না।

ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার আড়াই ঘণ্টারও বেশি সময় ধরে জেরা করা হয় পার্থ-অর্পিতাকে। মুখোমুখি জেরা করার পরে তাদের পৃথকভাবেও জেরা করা হয়েছে। এ দিনের জেরায় উঠে এসেছে অপা ইউটিলিটিজ সার্ভিসেস কোম্পানির কথাও। তবে জেরাতে কোন রকম সহযোগিতা করছে না পার্থ। তবে জেরায় সহযোগিতা করেছেন অর্পিতা মুখোপাধ্যায়।

সূত্রের খবর, আজ কিছু সিডি আদালতে জমা দেবেন ইডি কর্মকর্তারা। আর সেখানে থাকা নতুন তথ্যের ভিত্তিতে আবারও তাদের হেফাজতে চাইতে পারে ইডি।

আজ আদালতে পেশের আগে আবারও মেডিকেল টেস্ট হবে পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ের। ফলে কিছুক্ষণের মধ্যেই তাদের সিজিও কমপ্লেক্স থেকে বের করে জোকা ইএসআই হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হবে মেডিকেল টেস্টের জন্য। তারপর সেখান থেকে তাদের কলকাতা নগর দায়রা আদালতে পেশ করা হবে।

সূত্র: আনন্দবাজার, নিউজ ১৮ বাংলা।


আরও খবর



বিএনপির লাফালাফি হচ্ছে পুঁটি মাছের মতো: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:Saturday ১৩ August ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ১৮জন দেখেছেন
Image

বিএনপির লাফালাফি হচ্ছে পুঁটি আর মলা মাছের লাফানির মতো বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, বর্ষাকালে যখন বৃষ্টি হয়, পুকুরে পুঁটি মাছ খুব লাফায়, পুঁটি মাছের সঙ্গে মলা মাছও খুব লাফায়। এখন তেলের দাম বাড়াতে ওরা একটু লাফাচ্ছে।

শনিবার (১৩ আগস্ট) দুপুরে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর সমগ্র পৃথিবীতে তেলের দাম দ্বিগুণ হয়েছে। ৬০ ডলারের তেল ১৭০ ডলার হয়েছিল। এখন সেটি ১৩৮/৪০ ডলার। দ্বিগুণের চেয়ে বেশি। দেশে আমরা তেলের দাম দ্বিগুণ করিনি। সবমিলিয়ে ৩৮/৪০ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। আমরা বাড়িয়ে পশ্চিমবঙ্গের সমান করেছি। বিশ্ববাজারে যদি তেলের দাম কমে, তাহলে আবার সমন্বয় করা হবে। তাই বিএনপির পুঁটি ও মলা মাছের মতো এত লাফালাফির কোনো প্রয়োজন নেই।

হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপির পেট্রলবোমা হামলাকারীরা আবার মাঠে নেমেছে। তাদের তাড়িয়ে দিতে হবে এবং প্রতিরোধ করতে হবে। বিএনপির সমাবেশে আমরা কখনো বাধা দেইনি, দেবওনা। কিন্তু নিজেরা যখন মারামারি করে তখনতো অন্য কারও বাধা দিতে হয় না। যদি পেট্রলবামা বাহিনীদের দেখি, তখন কিন্তু আমরা বসে থাকবো না, আমরা প্রতিরোধ গড়ে তুলবো।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা শুধুমাত্র একজন রাষ্ট্রপতি বা রাষ্ট্রনায়ককে হত্যা নয়, এ দেশের স্বাধীনতাকে হত্যা করার উদ্দেশ্যেই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল। আর সেই হত্যাকাণ্ডের অন্যতম প্রধান কুশীলব ছিল বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ফজরের আলো ফোটার আগে যখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সংবাদ জিয়াউর রহমানের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়, তখন সেই ভোরবেলা সুটেট-বুটেট অবস্থায় থাকা জিয়ার স্বাভাবিক জবাব ছিল, কী হয়েছে তাতে, উপ-রাষ্ট্রপতি তো আছে! তখন তিনি পোশাক পরে তৈরি ছিল বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের খবরের অপেক্ষায়।

তিনি বলেন, কর্নেল ফারুক ও রশিদ ১৯৭৬ সালে লন্ডনে একটি টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড নিয়ে তারা বিভিন্ন সময়ে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে আলোচনা করেছেন। জিয়াউর রহমান যখন ক্ষমতা দখল করে তখন বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যে তার সংশ্লিষ্টতা, সে যে অন্যতম কুশীলব ছিল, তার কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সমস্ত প্রমাণ করেছে। সে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দিয়েছিল, তাদের বিদেশে চলে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিল।

বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের সবচেয়ে বড় সুবিধাভোগী হচ্ছে জিয়াউর রহমান এবং তার পরিবার উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার প্রসিডিং সংরক্ষিত আছে, সেই মামলার প্রসিডিংয়ে আসামি এবং সাক্ষীরা তাদের জবানবন্দিতে সবিস্তারে বলেছে কখন কোথায় কীভাবে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে দেখা করেছিল, সে কীভাবে ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত ছিল। এবং বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর মেজর জেনারেল সফি উল্লাহকে সরিয়ে দিয়ে জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান করে খন্দকার মোস্তাক। খন্দকার মোস্তাকের অন্যতম ঘনিষ্ঠ সহচর না হলে, বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের অন্যতম কুশীলব না হলে জিয়াউর রহমানকে কেন সেনাবাহিনী প্রধান করা হয়?।

আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, বন্দুকের নল থেকে নির্গত দল হচ্ছে জিয়াউর রহমানের প্রতিষ্ঠিত বিএনপি। সে বন্দুকের নল উঁচিয়ে ক্ষমতা দখল করেছিল, ক্ষমতা দখল করে ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট বিলিয়ে বিএনপি গঠন করেছিল। সেই ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট গ্রহণ করার জন্য মির্জা ফখরুল, খন্দকার মোশাররফ, গয়েশ্বর বাবুসহ যারা যোগদান করেছিল, তারাই হচ্ছে বিএনপির বড় বড় নেতা। তারা সবাই রাজনীতির কাক।

তিনি বলেন, কয়দিন আগে বিএনপির নেতৃত্বে সমাবেশ হয়েছিল নয়াপল্টনে। সেখানে এই রাজনীতির কাকেরা যেভাবে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী ও আমাদের দলের সাধারণ সম্পাদক সম্পর্কে কথা বললেন, সে ধরনের কথা আমাদের রুচিতে বাধে। কিন্তু আমি যদি বলি তাদের নেতানেত্রীরা লজ্জায় মুখ দেখাতে পারবে না।

মন্ত্রী বলেন, কাগজে দেখলাম বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার নাকি বিদেশিদের চাপে কোনো সমাবেশে বাধা দিচ্ছে না। আমাদের নেত্রী কদিন আগে বলেছেন আমরা বিএনপির কোনো সমাবেশে বাধা দেবো না, আমরা কোনো বাধা দেইনি। কিন্তু আমরা দেখতে পেলাম তারা নিজেরাই মারামারি করে নিজেদের সমাবেশ পণ্ড করে দিয়েছে। সমাবেশ ডাকলে যারা নিজেরাই চেয়ার ছোড়াছুড়ি করে, নিজেরা মারামারি করে সমাবেশ পণ্ড করে, সেখানে বাধা তো আমাদের দেওয়ার দরকার নেই। ভবিষ্যতেও দেখবেন, যখনই বিএনপি সমাবেশ ডাকবে, নিজেরাই তা পণ্ড করে দেবে।

তিনি বলেন, আমরা রাজপথে এখনো নামিনি, আগামী মাসে পরিপূর্ণভাবে নামবো। রাজপথে নামলে বিএনপি পালানোর জায়গা খুঁজে পাবে না। বিএনপিকে অবশ্য সারাদেশে খুঁজে পাওয়া যায় না, বিএনপিকে খুঁজে পাওয়া যায় নয়াপল্টনের অফিস এবং প্রেস ক্লাবের সামনে। বিএনপির সেসব সমাবেশে এখন অনেক নেতাকর্মী দেখতে পাচ্ছি। তাদের কীভাবে গর্তে ঢোকাতে হয় সেই ওষুধ আমাদের জানা আছে। প্রয়োজনে প্রয়োগ করা হবে।

২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট বিএনপির সময়ে দেশের ৫০০ জায়গায় বোমা ফাটিয়েছিল। আগামী ১৭ আগস্ট সেই বোমা হামলা দিবসের দিন সমগ্র বাংলাদেশে ইউনিয়ন পর্যায়ে বিএনপির নৈরাজ্য এবং দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে সমাবেশ হবে। রাঙ্গুনিয়ায়ও সারাদেশের ন্যায় ইউনিয়ন পর্যায়ে সমাবেশ করে নেতাকর্মীদের প্রতিবাদ জানানোর আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী।

রাঙ্গুনিয়া পৌরসভার অ্যাডভোকেট নুরুচ্ছফা তালুকদার অডিটোরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবদুল মোনাফ সিকদার।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার শামসুল আলম তালুকদার ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেনের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা স্বজন কুমার তালুকদার, আবুল কাশেম চিশতি, জহির আহমদ চৌধুরী, মো. শাহজাহান সিকদার, নজরুল ইসলাম তালুকদার, ইদ্রিচ আজগর, বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার, আকতার হোসেন খান, জাহাঙ্গীর আলম তালুকদার, আবু তাহের, এমরুল করিম রাশেদ, শেখ ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী প্রমুখ।


আরও খবর



শার্শা সীমান্তে দেড় কোটির টাকার স্বর্ণের বারসহ আটক পাচারকারী

প্রকাশিত:Wednesday ১৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

যশোরের শার্শা উপজেলায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের ১৬ পিস স্বর্ণের বারসহ জনি (৪০) নামে এক পাচারকারীকে আটক করেছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যরা।

বুধবার (১৭ আগস্ট) সকালে উপজেলার গোগা সীমান্ত থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক জনি বেনাপোল পোর্ট থানার ছোট আঁচড়া গ্রামের মিজানুর রহমানের ছেলে।

খুলনা ২১ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ তানভীর রহমান বলেন, গোপন সংবাদে বুধবার সকাল ৯টার দিকে গোগা সীমান্ত অভিযান চালিয়ে এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়। তার দেহ তল্লাশি করে এক কেজি ৮৪৬ গ্রাম ওজনের ১৬ পিস স্বর্ণের বার উদ্ধার করা হয়। যার বাজার মূল্য প্রায় এক কোটি ৫৩ লাখ টাকা। স্বর্ণসহ আটক জনিকে শার্শা থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।


আরও খবর