Logo
আজঃ Friday ১৯ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে আবাসিকের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ডেমরায় প্যাকেজিং কারখানায় ভয়বহ অগ্নিকান্ড রূপগঞ্জে পুলিশের ভুয়া সাব-ইন্সপেক্টর গ্রেফতার রূপগঞ্জে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ॥ সভা সরাইলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। নারায়ণগঞ্জে পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে পুতা দিয়ে আঘাত করে হত্যা,,স্বামী গ্রেপ্তার রূপগঞ্জ ইউএনও’র বিদায় সংবর্ধনা নাসিরনগরে স্বামীর পরকিয়ার,বলি ননদ ভাবীর বুলেটপানে আত্মহত্যা নাসিরনগরে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত ডেমরায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসুচি পালিত

‘সিক্সটি’ খেলতে সিপিএলকে ‘না’ গেইলের

প্রকাশিত:Tuesday ২৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

এবারের ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) শুরুর ঠিক আগে দশ ওভারের নতুন এক টুর্নামেন্ট আয়োজনের ঘোষণা দিয়ে সিপিএল কর্তৃপক্ষ। অভিনব সব নিয়মের এই টুর্নামেন্টের নাম দেওয়া হয়েছে সিক্সটি (6ixty); ছয় উইকেট ও ৬০ বলের খেলা হওয়ায় দেওয়া হয়েছে এমন নাম।

এই সিক্সটিতে খেলার জন্য সিপিএল থেকে নিজের নাম সরিয়ে নিয়েছেন দ্য ইউনিভার্স বস ক্রিস গেইল। আসন্ন সিপিএলের বদলে সিক্সটি টুর্নামেন্টে খেলার কথা জানিয়েছেন গেইল নিজেই। আগামী ২৪ থেকে ২৮ আগস্ট সেইন্ট কিটসে হবে এই টুর্নামেন্ট।

খেলোয়াড় হিসেবে সরাসরি অংশগ্রহণ ছাড়াও সিক্সটিতে শুভেচ্ছাদূত হিসেবেও দায়িত্ব পালন করবেন গেইল। এছাড়া নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ শেষ করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের তারকা খেলোয়াড়দের সবাই-ই খেলবেন অভিনব সব নিয়মের এই সিক্সটিতে।

এক সংবাদ বিবৃতিতে গেইল বলেছেন, ‘এই বছর আমি সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে খেলবো। আমি মূলত সিক্সটির নতুন সব নিয়মে খেলতে রোমাঞ্চিত। প্রথম ১২ বলের মধ্যে দুইটি ছক্কা মেরে তৃতীয় পাওয়ার প্লে আনলক করতে মুখিয়ে রয়েছি।’

উল্লেখ্য, টি-টেনের মতো মনে হলেও, এই সিক্সটি’তে থাকছে অনেক নতুন নিয়ম:

- প্রতি ইনিংসে ব্যাটিং দল দশ উইকেটের বদলে পাবে ছয়টি উইকেট

- প্রথম দুই ওভারের পাওয়ার প্লে’র মধ্যে দুইটি ছক্কা হাঁকালে একটি তৃতীয় ফ্লোটিং পাওয়ার প্লে ওভার পাবে ব্যাটিং দল

- প্রতি ওভার পরপর প্রান্ত বদল না করে টানা পাঁচ ওভার করা হবে একই প্রান্ত থেকে। পরের পাঁচ ওভারে বোলিং করতে হবে আরেক প্রান্ত থেকে

- কোনো দল যদি ৪৫ মিনিটের মধ্যে দশ ওভার করতে ব্যর্থ হয়, তাহলে শেষ ওভারে একজন ফিল্ডার কম নিয়ে বোলিং করতে হবে

- অ্যাপ অথবা ওয়েবসাইটের মধ্যে ‘মিস্ট্রি ফ্রি হিট’ ভোট দিতে পারবে দর্শকরা। সেই সময়টায় ব্যাটাররা আউট হবেন না


আরও খবর



চলন্ত বাসে ছাত্রীর শ্লীলতাহানি, বিকাশ পরিবহনের চালক গ্রেফতার

প্রকাশিত:Thursday ২৮ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৯১জন দেখেছেন
Image

রাজধানীতে বিকাশ পরিবহনের একটি চলন্ত বাসে এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে চালক মো. মাহবুবুর রহমানকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) লালবাগ থানা পুলিশ। এ সময় ওই বাসটিও (ঢাকা-মেট্রো-ব-১২-০৬০৫) জব্দ করা হয়।

বুধবার (২৭ জুলাই) রাতে অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (চকবাজার জোন ও প্রশাসন লালবাগ বিভাগ) মো. কুদরত-ই-খুদা জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, গত ২৪ জুলাই ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী রাত ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে ধানমন্ডি থেকে আজিমপুর যাওয়ার উদ্দেশ্যে বিকাশ পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন। বাসে উঠে কানে হেডফোন দিয়ে গান শুনতে শুনতে এক পর্যায়ে তিনি তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে পড়েন।

‘পরে রাত আনুমানিক ৯টা ১০ মিনিটের দিকে ভুক্তভোগী অনুভব করেন, তার শরীরে কেউ যেন হাত দিয়েছে। তাৎক্ষণিক তিনি তাকিয়ে দেখেন বাসে কোনো যাত্রী নেই এবং তার পাশের সিটে বাসটির হেলপার বসা।’

‘তখন ওই ছাত্রী বিপদ আঁচ করতে পেরে বাসের হেলপারকে তার পাশ থেকে ধাক্কা দিয়ে সরানোর চেষ্টা করেন। তখন ভুক্তভোগী সিট থেকে দাঁড়িয়ে নামার চেষ্টা করলে হেলপার তাকে পেছন থেকে এক হাতে মুখ চেপে ধরেন। ওই ছাত্রী নিজেকে বাঁচানোর জন্য সর্বশক্তি দিয়ে হেলপারের কাছ থেকে ছুটে চালককে চিৎকার করে বাস থামাতে বলেন।’

‘কিন্তু চালক তখন বাস না থামিয়ে দ্রুতগতিতে ইডেন কলেজের সামনে দিয়ে আজিমপুরের দিকে যেতে থাকেন। এক পর্যায়ে আজিমপুর গার্লস স্কুলের কাছে বাসটি কিছুটা গতি কমালে ওই ছাত্রী লাফ দিয়ে বাস থেকে নেমে আত্মরক্ষা করেন।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ভুক্তভোগী ছাত্রী ঘটনাটি ফেসবুকে শেয়ার করে একটি পোস্ট দেন। এরপর লালবাগ থানা পুলিশ প্রাথমিক অনুসন্ধান করে ভুক্তভোগীকে চিহ্নিত করে তথ্য সংগ্ৰহ করে। তাৎক্ষণিক সিসি ফুটেজ পর্যালোচনা ও আধুনিক তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে বিকাশ পরিবহনের বাসটি শনাক্ত করা হয়।

‘এরপর এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বিকাশ পরিবহনের বাসচালক মো. মাহবুবুর রহমানের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। পরবর্তীতে বুধবার ঢাকার আশুলিয়া থানায় লালবাগ জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার কে এন রায় নিয়তির নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বাসের হেলপারকে গ্রেফতারেও অভিযান অব্যাহত আছে।’

এ ঘটনায় লালবাগ থানায় একটি মামলা হয়েছে বলেও জানান কুদরত-ই-খুদা।


আরও খবর



রাশিয়া-ইউক্রেন চুক্তি সই, ফের চালু হচ্ছে শস্য রপ্তানি

প্রকাশিত:Friday ২২ July 20২২ | হালনাগাদ:Sunday ১৪ August ২০২২ | ৬৭জন দেখেছেন
Image

কৃষ্ণসাগরের বন্দরগুলো দিয়ে শস্য রপ্তানি ফের চালু করতে চুক্তি করেছে রাশিয়া ও ইউক্রেন। শুক্রবার (২২ জুলাই) ইস্তাম্বুলে তুরস্ক ও জাতিসংঘের মধ্যস্থতায় সই হয়েছে বহুল প্রত্যাশিত এই চুক্তি। এর ফলে আন্তর্জাতিক বাজারে শস্য সরবরাহে সাম্প্রতিক সংকট কাটবে বলে আশা করা হচ্ছে।

এদিন চুক্তি করলেও যুদ্ধরত দুই দেশের প্রতিনিধিরা কেউ কারও সামনাসামনি হননি। বরং পৃথকভাবে চুক্তিপত্রে সই করেছেন তারা। খুব সতর্কতার সঙ্গে এক টেবিলে বসা কিংবা হাত মেলানোর মতো সৌজন্যগুলো এড়িয়ে গেছেন রাশিয়া-ইউক্রেনের প্রতিনিধিরা।

ইউক্রেন বলেছে, তারা শস্য রপ্তানির বিষয়ে রাশিয়ার সঙ্গে কোনো চুক্তি করেনি, করেছে জাতিসংঘের সঙ্গে। তারা আরও জানিয়েছে, চুক্তির অন্যতম শর্ত হলো, জাহাজগুলোতে যখন তল্লাশি চালানো হবে, সেটি যেন তুরস্কের জলসীমায় হয়।

jagonews24]

এদিন চুক্তির অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান এবং জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস। এরদোয়ান বলেছেন, এই চুক্তি বিশ্বের কোটি কোটি মানুষকে দুর্ভিক্ষের মুখে পড়া থেকে বাঁচাবে।

জাতিসংঘ প্রধানের মতে, এটি একটি আশার আলো। বলেছেন, রাশিয়া-ইউক্রেনের সম্মতিতে এই চুক্তি বিশ্বকে স্বস্তি দেবে।

যুদ্ধরত দুই দেশকে চুক্তিতে রাজি করাতে সহযোগিতায় করায় তুরস্কের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান গুতেরেস। তিনি বলেন, এই প্রক্রিয়ার প্রতিটি পদক্ষেপে আঙ্কারার ভূমিকা ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

জাতিসংঘ প্রধান জানান, এই চুক্তি ইউক্রেনের তিনটি প্রধান বন্দর- ওডেসা, চেরনোমর্স্ক এবং ইউঝনি দিয়ে বিপুল পরিমাণ খাদ্যশস্য রপ্তানির দুয়ার খুলে দিয়েছে। চুক্তি ঠিকভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে কি না তা পর্যবেক্ষণে জাতিসংঘ একটি সমন্বয় কেন্দ্র খুলবে বলেও জানান তিনি।

সূত্র: ব্লুমবার্গ, আল জাজিরা


আরও খবর



তেলের মজুত নিয়ে যা জানালো জ্বালানি মন্ত্রণালয়

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ১৫ August ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

দেশে তেল সংকট চলছে এমন খবর ছড়িয়ে পড়েছে চারদিক। তেল সাশ্রয়ে মোটরসাইকেলে সর্বোচ্চ ৪০০ ও গাড়িতে সর্বোচ্চ তিন হাজার টাকার তেল দেওয়া হবে- পাম্পে এমন বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছে বলেও ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন। এমন পরিস্থিতিতে কী পরিমাণ তেল দেশে মজুত আছে, তা ব্যাখ্যা দিয়েছে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়।

বুধবার (২৭ জুলাই) মন্ত্রণালয়ের পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ ব্যাখ্যা দেওয়া হয়।

এতে বলা হয়, একটি স্বার্থান্বেষী মহল, জ্বালানি তেলের মজুত নিয়ে অসত্য ও মনগড়া তথ্য প্রচার করছে, যা সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। আমরা দৃঢ়ভাবে বলছি যে, বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের আওতাধীন কোম্পানিসমূহের ডিপোতে পর্যাপ্ত পরিমাণ জ্বালানি তেল মজুত রয়েছে। বর্তমানে দেশে জ্বালানি তেলের কোনো ঘাটতি বা সংকট নেই। সংকটের কোনো আশঙ্কাও নেই।

মন্ত্রণালয় বলছে, এরই মধ্যে আগামী ছয়মাসের জন্য প্রয়োজনীয় তেল আমদানির প্রক্রিয়া পাইপ লাইনে আছে। বর্তমানে ডিজেল মজুত রয়েছে চার লাখ ৩১ হাজার ৮৩৫ মেট্রিকটন। দৈনিক গড়ে বিক্রি হচ্ছে ১৩ হাজার ৬০৭ মেট্রিকটন। সেই হিসেবে ৩২ দিনের ডিজেল মজুত রয়েছে। জেট-এ-১ মজুত রয়েছে ৪৪ দিনের ও ফার্নেস ওয়েল মজুত রয়েছে ৩২ দিনের। অর্থাৎ আমাদের মজুত সক্ষমতা অনুসারে যথেষ্ট পরিমাণ জ্বালানি তেল মজুত রয়েছে।

ব্যাখ্যায় মন্ত্রণালয় আরও বলছে, পেট্রল পুরোটাই বাংলাদেশ উৎপাদন করে। অকটেনের প্রায় ৪০ ভাগ বাংলাদেশ উৎপাদন করে। জুলাই ২০২২ মাসে ৯টি জাহাজ হতে এরই মধ্যে দুই লাখ ৫৫ হাজার মেট্রিকটন ডিজেল, দুটি জাহাজে প্রায় ৪৩ হাজার মেট্রিকটন জেট-এ-১, একটি জাহাজ থেকে ২৪ হাজার ৬৭৭ মেট্রিকটন অকটেন ও দুটি জাহাজ থেকে ৫৩ হাজার ৩৫৮ মেট্রিকটন ফার্নেস ওয়েল গ্রহণ করা হয়েছে।

‘আগামী আগস্ট মাসে আটটি জাহাজে দুই লাখ ১৮ হাজার মেট্রিকটন ডিজেল, একটি জাহাজে ২৫ হাজার মেট্রিকটন জেট-এ-১, একটি জাহাজে ২৫ হাজার মেট্রিকটন অকটেন আসবে। আগামী ছয়মাসের আমদানি পরিকল্পনা অনুসারে যে জ্বালানি তেল বাংলাদেশে আসবে, এর ৫০ ভাগ জি-টু-জি চুক্তির মাধ্যমে এবং বাকি ৫০ ভাগ উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে ক্রয়াদেশ দেওয়া হয়েছে। ফলে ঘাটতি হওয়ার কোনো আশঙ্কা নেই।’

এমতাবস্থায় ভর্তুকিমূল্যে সরবরাহ করা জ্বালানি তেল ব্যবহারে মিতব্যয়ী ও সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে সবাইকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।


আরও খবর



আরও ৫৩ ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে

প্রকাশিত:Tuesday ০৯ August ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন আরও ৫৩ জন। এ নিয়ে সারাদেশে হাসপাতালে ভর্তি মোট ডেঙ্গুরোগীর সংখ্যা বেড়ে ৩৫৬ জনে দাঁড়িয়েছে। তবে এসময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম সই করা ডেঙ্গুবিষয়ক নিয়মিত প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার একই সময়ের মধ্যে সারাদেশে ৫৩ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ৫০ জন ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে আর ঢাকার বাইরে চিকিৎসা নিচ্ছেন তিনজন।

বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৩৫৬ জন ডেঙ্গুরোগীর মধ্যে ঢাকার ৪৭টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ২৮০ জন এবং ঢাকার বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৭৬ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ৯ আগস্ট পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন মোট ৩ হাজার ৩১৬ জন। এরমধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ২ হাজার ৯৪৫ জন।

এসময়ে ঢাকায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ২ হাজার ৭৮৬ জন ও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২ হাজার ৫০১ জন। ঢাকার বাইরে ভর্তি হয়েছেন ৫৩০ জন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৪৪ জন।

গত ১ জানুয়ারি থেকে ৯ আগস্ট দেশে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ১৫ জন মারা গেছেন। ডেঙ্গুতে বছরের প্রথম মৃত্যুর খবর আসে গত ২১ জুন।

এর আগে ২০২০ সালে করোনা মহামারিকালে ডেঙ্গুর সংক্রমণ তেমন একটা দেখা না গেলেও ২০২১ এ সারাদেশে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন ২৮ হাজার ৪২৯ জন। ওই বছর দেশে ১০৫ জন ডেঙ্গুরোগীর মৃত্যু হয়েছিল।


আরও খবর



‘দেশ রক্ষায় লক্ষ-কোটি ছাত্র যুবককে জীবন দিতে প্রস্তুত থাকতে হবে’

প্রকাশিত:Monday ২৫ July ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

১৯৭১ সালে জাতির পিতার আহ্বানে এদেশের লক্ষ-কোটি ছাত্র যুবক স্বাধীনতার জন্য জীবন দিতে প্রস্তুত ছিল। আজ সময় এসেছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নির্দেশে দেশের লক্ষ-কোটি ছাত্র যুবককে দেশ রক্ষায় জীবন দিতে প্রস্তুত থাকতে হবে। বাংলাদেশের অর্থনীতিকে ধ্বংসের জন্য একটি অপশক্তি দেশে-বিদেশে ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে।

সোমবার (২৫ জুলাই) চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে পালাখাল রোস্তম আলী ডিগ্রি কলেজ মাঠে ছাত্র সমাবেশে প্রধান আলোচক হিসেবে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, এই অপশক্তিটি বেশ কয়েক বছর ধরে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে একের একের এক ষড়যন্ত্র করে পরাস্ত হয়েছে। শেখ হাসিনার সরকার উৎখাতের তাদের সব ষড়যন্ত্র নস্যাৎ হয়েছে। ষড়যন্ত্রে ব্যর্থ হয়ে এই চক্র দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করতে মেতে উঠেছে। এই অপশক্তিটি বেশ কিছুদিন ধরে বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কা বানানোর ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।

‘এই লক্ষ্যে তারা প্রতিদিন নানা গুজব ছড়াচ্ছে। তাদের একটাই উদ্দেশ্য- বাংলাদেশের অর্থনীতি ধ্বংস করা। কারণ তাদের ধারণা, দেশের অর্থনীতি ধ্বংস করতে পারলে শেখ হাসিনার সরকার উৎখাত হবে। তাই আমাদের সবাইকে মুক্তিযুদ্ধের মতো দেশ রক্ষার জন্য অতন্দ্র প্রহরীর মতো কাজ করতে হবে। দেশবিরোধী এই ষড়যন্ত্র সম্পর্কে সজাগ থাকতে হবে। আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারকে রক্ষা করা আর দেশ রক্ষা করা সমার্থক হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

সেলিম বলেন, সাধারণ সরকার প্রধান বা রাষ্ট্রনায়করা সমকালীন কিংবা দুই একটি প্রজন্মের কথা চিন্তা করে কর্ম-পরিকল্পনা করে। কিন্তু যারা মহানায়ক বা কালজয়ী রাষ্ট্রনায়ক তারা বহু প্রজন্ম কিংবা শতবর্ষ বা তারও বেশি সময়ের প্রজন্মের কল্যাণের কথা চিন্তা করে মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেন। বাঙালির ইতিহাসে শেখ হাসিনা সেই মহানায়ক, কালজয়ী রাষ্ট্রনায়ক। তিনি বাংলাদেশের শত বছরের উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন করে সেটি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন। চার দশকের বেশি সময় ধরে মৃত্যুর ঝুঁকিকে পরোয়া না করে এদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য দিনরাত কাজ করে যাচ্ছেন।

কচুয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক সালাউদ্দিন সরকারের সভাপতিত্বে ছাত্র সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা।

এ সময় আরও বক্তব্য দেন কচুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইয়ুব আলী পাটোয়ারী, সাধারণ সম্পাদক সোহরাব উদ্দিন চৌধুরী সোহাগ, কচুয়া উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও পৌর যুবলীগের সভাপতি মাহবুব আলম, কচুয়া উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মানিক ভৌমিক, পালাখাল রোস্তম আলী ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম, মনির হোসেন ও হাবিব মজুমদার জয়সহ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়কসহ উপজেলার বিভিন্ন ইউনিটের নেতারা।


আরও খবর