Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ: নিরপেক্ষ তদন্ত কমিশন চান ফখরুল

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৬৬জন দেখেছেন
Image

সীতাকুণ্ডে বিএম ডিপোর বিস্ফোরণের ঘটনা তদন্তে ‘নিরপেক্ষ কমিশন’ চান বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এই ঘটনার পর জাতীয় শোক দিবস ঘোষণা করা উচিত ছিল বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সোমবার (৬ জুন) দুপুরে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ মন্তব্য করেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমি মনে করি, এই ঘটনার জন্য অবিলম্বে একটা নিরপেক্ষ তদন্ত কমিশন গঠন করা উচিত। এর জন্য যারা দায়ী, তাদের খুঁজে বের করা দরকার।

ঘটনার ভয়াবহ বর্ণনা করে তিনি বলেন, কী ভয়াবহ? মানুষের বডি খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। বডি একেবারে অগ্নিদগ্ধ হয়ে গেছে, চেনা যাচ্ছে না। হঠাৎ করে যে বিস্ফোরণ হবে- এটাও তারা বুঝতে পারেনি। যার ফলে এই ঘটনাগুলো ঘটেছে।

এ সময় এই ঘটনায় নিহতদের পরিবারগুলোকে ক্ষতিপূরণ দেওয়া এবং আহতদের সঠিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করার দাবি জানান তিনি। একই সঙ্গে দেশের সকল কন্টেইনার ডিপোতে তদারিক ব্যবস্থা চালু করার দাবিও জানান তিনি।

কেমন তদন্ত কমিশন চান জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, আমি কিন্তু এখন পর্যন্ত অতীতের কোনো ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন দেখিনি। আমরা যখন নিরপেক্ষ কথাটা বলি, এটা মিন করি (বুঝাই) যে, দল নিরপেক্ষ ও সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক নেই, যারা বিশেষজ্ঞ আছেন ও সত্যিকার অর্থে বিষয়গুলো যারা বুঝেন, তাদের দিয়ে তদন্ত করা। অর্থাৎ নিরপেক্ষদের দিয়ে তদন্ত করতে হবে। আমরা চাই সুষ্ঠু নিরপেক্ষ তদন্ত।

ঘটনার প্রসঙ্গে টেনে মির্জা ফখরুল বলেন, গতকাল আর্মির একজন দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসারের কথা টেলিভিশনে শুনছিলাম। তিনি বলছিলেন যে, তাদের কাছে প্রয়োজনীয় উপকরণ নেই। আজকে আমি এই জায়গায় প্রশ্ন করতে চাই- এই সরকার তাহলে কী করেছে? এই ধরনের অগ্নিকাণ্ডগুলো নিয়ন্ত্রণ করার মতো আমাদের প্রয়োজনীয় লোকবল ও উপকরণ নেই কেন?

‘তথাকথিত অবকাঠামো নির্মাণের নামে নিজেদের পকেট ভারি ও দুর্নীতি করা- এটাই তাদের (সরকার) মূল লক্ষ্য। জনগণের কল্যাণ, নিরাপত্তা ও মানুষকে ভালো রাখার জন্য এই সরকারের কোনো দায়বদ্ধতা নেই। এই সরকার যেহেতু নির্বাচিত সরকার না, সেই কারণে তাদের জবাবদিহিতা নেই।’

‘এই যে ভয়াবহ ও মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটলো সম্পূর্ণভাবে তাদের ব্যর্থতার জন্য। আমি পত্রিকায় দেখলাম যে, প্রধানমন্ত্রী একটু সাহস দেওয়ার চেষ্টা করেছেন যে, পদ্মা ব্রিজে নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। তাতে তো এই সমস্যার (সীতাকুণ্ড বিস্ফোরণ) সমাধান হয় না।’

‘এই ঘটনার পর জাতীয় শোক ঘোষণা করা উচিত ছিলো। অন্যান্য যেকোনো সভ্য দেশ হলে তাই করতো। আমেরিকাতে যে বাচ্চাগুলো মেরে ফেললো, তখনই আমেরিকা জাতীয় শোক ঘোষণা করেছে।’

সীতাকুণ্ডের বিস্ফোরণে দেশের পোশাকশিল্প বা অর্থনীতিতে কোনো প্রভাব পড়বে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, অবশ্যই নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। অলরেডি এই নিয়ে কথা-বার্তা শুরু হয়েছে।

শনিবার রাত ৯টার দিকে সীতাকুন্ড উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের কেশবপুর গ্রামে বেসরকারি ওই কন্টেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। এই ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৯ জনের মৃত্যু এবং দুই শতাধিক মানুষ আহত হওয়ার খবর জানিয়েছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।


আরও খবর



হাজীগঞ্জে পুকুরে গোসলে নেমে ২ শিশুর মৃত্যু

প্রকাশিত:Tuesday ০৯ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে পুকুরে গোসলে নেমে সাইদুল হাসান (৬) ও আতিয়া (৩) নামে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) সকালে উপজেলার পৃথক স্থানে ঘটনা দুটি ঘটে।

মৃত সাইদুল হাসান হাজীগঞ্জ পৌরসভাধীন টোরাগড় সরকার বাড়ির মো. রানার ছেলে ও আতিয়া উপজেলার গন্ধব্যপুর ইউনিয়নের হোটনি পূর্ব সর্দার বাড়ির মো. দিদার হোসেনের মেয়ে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শিশু সাইদুল হাসান পরিবার ও বাড়ির লোকজনের অগোচরে সমবয়সীদের সঙ্গে গোসলে নেমে পুকুরে ডুবে যায়। পরে তার সঙ্গীরা বিষয়টি পরিবারের লোকজনকে জানালে তারা সাইদুলকে উদ্ধার করে হাজীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

একইদিন সকালে উপজেলার গন্ধব্যপুর ইউনিয়নের হোটনি পূর্ব সর্দার বাড়ির পুকুরে গোসলে নেমে পানিতে ডুবে যায় শিশু আতিয়া। পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকেও মৃত ঘোষণা করেন।

হাজীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জুবায়ের সৈয়দ দুই শিশুর মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জাগো নিউজকে বলেন, ‘নিহতদের পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ নেই। তারা এ বিষয়ে বিনা ময়নাতদন্তে মরদেহ হস্তান্তরের জন্য আবেদন করেছেন। তাই মরদেহ পরিবারের কাছে দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



স্ত্রীর সামনেই হোটেল কক্ষে গলায় ফাঁস দিলেন স্বামী

প্রকাশিত:Tuesday ০২ August 2০২2 | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

কক্সবাজারের কলাতলীর ওয়ার্ল্ড বিচ হোটেলের কক্ষে সৌরভ সিকদার নামে এক যুবক স্ত্রীর সামনে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে মারা যান। সোমবার (১ আগস্ট) রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টাকালে রশি ছিঁড়ে পড়ে গিয়ে আহত হন ওই যুবক। ৯৯৯-এ কল পেয়ে পুলিশ তাকে দ্রুত উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তিনি মারা যান। ওসি জানান, আসল ঘটনা উদঘাটনে কাজ করছে পুলিশ।

সৌরভ সিকদার কক্সবাজারের কুতুবদিয়ার দক্ষিণ ধুরুং সিকদার বাড়ির মাস্টার হাসান সিকদারের ছেলে। প্রথম স্ত্রীর সঙ্গে ছাড়াছাড়ির পর ঢাকার আনিকা তাসনিম নামের এক নারীকে বিয়ে করে সৌরভ ঢাকার পান্থপথ এলাকায় বাস করতেন বলে জানিয়েছেন স্বজনরা।

হোটেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সৌরভ সিকদার ও তার স্ত্রী আনিকা তাসনিম গত ১৬ জুলাই থেকে এই হোটেলে অবস্থান করছিলেন।

৯৯৯-এ কল দিলে ঘটনাস্থলে আসা পুলিশকে আনিকা জানিয়েছেন তাকে ঘরে তোলা নিয়ে পরিবারের সঙ্গে মনোমালিন্য চলছিল সৌরভের। এ নিয়ে বাড়ির কারও সঙ্গে ফোনে কথা-কাটাকাটির জেরে গলায় ফাঁস লাগান সৌরভ।

ওসি শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, দ্বিতীয় স্ত্রীকে হয়তো সৌরভের পরিবার মেনে নিচ্ছিল না। এসব নিয়ে পারিবারিক দ্বন্দ্ব চলছিল কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।


আরও খবর



কথা কম বলে কাজে প্রমাণ দিন

প্রকাশিত:Thursday ২১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল সম্প্রতি নির্বাচনকালীন সহিংসতা প্রসঙ্গে যে বক্তব্য দিয়েছেন তা আত্মঘাতী ও অপরিণামদর্শী। এমন বক্তব্য অবিলম্বে প্রত্যাহার করা উচিত। জাতি সিইসির কাছে এমন কাণ্ডজ্ঞানহীন বক্তব্য কোনোভাবেই প্রত্যাশা করে না। সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়ালের ‘তলোয়ারের বিপরীতে রাইফেল নিয়ে দাঁড়ানো’ বক্তব্যে গোটা জাতি হতাশ হয়েছে। তার এই বক্তব্য নিয়ে ইতোমধ্যে সর্বমহলে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) মতো একটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান হয়ে সহিংসতাকে উসকে দেওয়ার মতো এমন বক্তব্য কোনোভাবেই দিতে পারেন না। জাতি তা প্রত্যাশাও করে না। গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ সূত্রে জানা যায়, রোববার রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ শুরুর দিনে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) সঙ্গে সংলাপে সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, সব দল সহযোগিতা না করলে আমরা সেখানে ব্যর্থ হবো। আপনাদের সমন্বিত প্রয়াস থাকবে, কেউ যদি তলোয়ার নিয়ে দাঁড়ায়, আপনাকে রাইফেল বা আরেকটি তলোয়ার নিয়ে দাঁড়াতে হবে। আপনি যদি দৌড় দেন, তাহলে আমি কী করবো?

গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এমন সংবাদে দেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষ গভীর বিস্ময় ও হতাশা প্রকাশ করেছে। নির্বাচন কমিশন একটি দায়িত্বশীল সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। সেই প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে রাষ্ট্রের নির্বাচনসমূহ স্বচ্ছ, অংশগ্রহণমূলক ও সবার জন্য সমান ক্ষেত্র নিশ্চিত করার দায়িত্ব তার ওপর ন্যস্ত। কিন্তু নির্বাচনে সবার সহযোগিতা চাইতে গিয়ে সম্ভাব্য সহিংসতা প্রসঙ্গে সিইসি যে তলোয়ারের বিপরীতে তলোয়ার বা রাইফেল ব্যবহারের কথা উল্লেখ করেছেন- প্রকান্তরে তা সহিংসতাকেই উসকে দেবে। এধরনের বক্তব্য যেকোনো নাগরিকের জন্য যেখানে অপরাধ প্রবণতার শামিল, সেখানে সিইসির মতো একটি গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক পদে অধিষ্ঠিত থেকে এমন বক্তব্য আত্মঘাতী, অপরিণামদর্শী ও অগ্রহণযোগ্য।

সিইসির এমন বক্তব্য নির্বাচনকেন্দ্রিক পেশিশক্তির ব্যবহার, বুথ দখল কিংবা ভোটারদের ভোট দিতে বাধা প্রদান, ভোটারদের ভোটকেন্দ্রে আসতে বাধাদান, জোরপূর্বক বাক্স ভরার মতো ঘটনা, অরাজকতা বিগত কয়েকটি নির্বাচনকে যেখানে শুধু আনুষ্ঠানিকতায় পরিণত করেছে, সেখানে এমন বক্তব্য এই প্রবণতাকে আরও উৎসাহিত করবে।

জাতি আশা করে সিইসি তার এমন বক্তব্যের ব্যাখ্যা দেবেন ও তলোয়ারের বিপরীতে রাইফেল বা তলোয়ার নিয়ে দাঁড়ানোর পরামর্শটি জাতির কাছে ক্ষমা চেয়ে প্রত্যাহার করে নেবেন। মূলত কথা কম বলে স্বচ্ছ ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের পাশাপাশি শান্তিপূর্ণ নির্বাচন অনুষ্ঠান আয়োজন করাটা ইসির অঙ্গীকার হওয়া উচিত। কিন্তু নির্বাচনকালীন সহিংসতাকে রোধের নামে পাল্টা সহিংস আচরণের এই পরামর্শ সহিংসতা ঠেকানোর জন্য কোনোভাবেই যথোপযুক্ত কৌশল হতে পারে না।

এধরনের বক্তব্য সহিংসতারোধে কার্যকরী কৌশল প্রণয়নে কমিশনের ব্যর্থতাকে স্পষ্ট করে দেয়। একই সঙ্গে তা নির্বাচনের বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার বা রাজনৈতিক দলগুলোকে বা তাদের ছত্রচ্ছায়ায় স্বার্থান্বেষী মহলকে সহিংসতা বেছে নিতেই উৎসাহিত করবে। জাতি আশা করে, কমিশন এ ধরনের সহিংসতা সহায়ক প্রস্তাবের পথ পরিহার করে নির্বাচনকালীন সম্ভাব্য সহিংসতা রোধে কার্যকর কর্মকৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়নে উদ্যোগী হবে।

পাশাপাশি কোনো ধরনের সহিংসতা বিশেষত নির্বাচনকালীন সহিংসতাকে উসকে দেয় এমন কোনো বক্তব্য দেওয়া থেকে কমিশন নিজেকে বিরত রাখবে বলেও সচেতন নাগরিকরা আশা প্রকাশ করে। আমার একটা বিষয় কোনোভাবেই মাথায় ঢুকছে না যে, যারাই নির্বাচন কমিশনে যান তাদের বিবেক বুদ্ধি ও স্বাভাবিক বিচার বিবেচনা কি লোপ পেয়ে যায়? নাকি যাদের বিচার বিবেচনাবোধ খুবই কম তারাই কমিশনে নিয়োগ পান। নির্বাচন কমিশন কাজের চেয়ে কথা বলাটাকে যে কেন বেশি পছন্দ করেন তা মোটেই বোধগম্য নয়। কমিশন কি জনগণের মনের ভাষা বুঝতে ব্যর্থ? নাকি তারা বুঝতেই চান না।

ভোটাররা কথা নয় নির্বাচন সহায়ক দৃশ্যমান কাজ দেখতে চায়। যেখানে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে দেশে এই মুহূর্তে সরকারি ও বিরোধী দলের মধ্যে ব্যাপক বাক্যযুদ্ধ চলমান। কোন পদ্ধতিতে নির্বাচন হবে তা এখনও অমীমাংসিত, ইভিএমের ব্যবহার নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলো বিভক্ত। নির্বাচনকালীন সরকারের রূপরেখা কেমন হবে তা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। তখন ইসির এমন দায়িত্বনহীন বক্তব্য কতটা সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সহায়ক হবে তা আজ সচেতন মহলকে ভাবিয়ে তুলেছে।

যেখানে মানুষ নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষ দায়িত্বশীল ভূমিকা আশা করে সেখানে এমন বিতর্কিত বক্তব্য রাজনৈতিক সংকটকে আরও সংকটাপন্ন করে তুলবে। জনগণ আশা করে নির্বাচন কমিশন যতদূর সম্ভব কম কথা বলবে। বিতর্ক সৃষ্টি হয় এমন কাজ বা কথা বলা থেকে বিরত থাকবে। জাতি কোনোভাবেই প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন পুনরায় দেখতে চায় না। আশা করতে চাই কমিশন সরকারি দলের নয় বরং প্রকৃত ভোটারদের মনোভাবটা জানার বা বোঝার চেষ্টা করবে। তাহলেই তারা সফল হবেন।

লেখক: আইবিএ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়।
[email protected]


আরও খবর



প্রথম ঘণ্টায় ঊর্ধ্বমুখী শেয়ারবাজার

প্রকাশিত:Thursday ২১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

ঈদের পর টানা সাত কার্যদিবস দরপতনের পর সপ্তাহের শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার লেনদেনের শুরুতে শেয়ারবাজারে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা দিয়েছে। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বাড়ার পাশাপাশি বেড়েছে মূল্যসূচক। একইসঙ্গে লেনদেনেও ভালো গতি দেখা যাচ্ছে।

প্রথম ঘণ্টার লেনদেনে প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) ৬০ শতাংশ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়েছে। এতে প্রধান মূল্যসূচক বেড়েছে ৩০ পয়েন্টের ওপরে। আর লেনদেন হয়েছে প্রায় ২০০ কোটি টাকা।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পাশাপাশি অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) লেনদেনে অংশ নেওয়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বেড়েছে। একইসঙ্গে মূল্যসূচকও বেড়েছে।

জ্বালানি তেল ও গ্যাসের দাম বাড়ার প্রেক্ষাপটে জ্বালানি সাশ্রয়ের লক্ষ্যে সরকার সারাদেশে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং করা বা বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখার ঘোষণা দিলে শেয়ারবাজারে বড় ধরনের দরপতন ঘটে। সরকারের ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গে গত সোমবার বড় পতনের মুখে পড়ে শেয়ারবাজার। পরের দুই কার্যদিবস মঙ্গলবার ও বুধবারও শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হয়।

অবশ্য সরকার এলাকাভিত্তিক লোডশেডিংয়ের ঘোষণা দেওয়ার আগে থেকেই শেয়ারবাজারে দরপতন হচ্ছিলো। ঈদুল আজহার পর এখনো পর্যন্ত শেয়ারবাজারে লেনদেন হওয়া সাত কার্যদিবসেই দরপতন হয়েছে। তবে লোডশেডিংয়ের ঘোষণা আসার পর শেয়ারবাজারে বড় ধরনের ক্রেতা সংকট দেখা দেয়। ফলে বড় পতনের মধ্যে পড়ে শেয়ারবাজার।

এ পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার দিনের লেনদেনের শুরুতেই শেয়ারবাজারে ক্রেতা বাড়তে দেখা যায়। ফলে লেনদেন শুরু হতেই ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ২৫ পয়েন্ট বেড়ে যায়। পরের ১৫ মিনিট অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের দাম বাড়ার ধারা অব্যাহত থাকায় ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক বাড়ে ৫১ পয়েন্ট।

তবে এরপর দাম বাড়ার তালিকা থেকে কিছু প্রতিষ্ঠান পতনের তালিকায় ফিরে আসে। ফলে সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা কমে। অবশ্য প্রথম ঘণ্টার লেনদেন শেষে সবকটি মূল্যসূচক ঊর্ধ্বমুখীই থেকেছে।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বেলা ১১টা ১০ মিনিটে ডিএসইতে ২৩০টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৯৪টির। আর ৫৬টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।

এতে ডিএসইর প্রধান সূচক বেড়েছে ২৭ পয়েন্ট। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ সূচক ১১ পয়েন্ট বেড়েছে। আর ডিএসই শরিয়াহ্ সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়েছে। এ সময় পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২০৫ কোটি ৮৩ লাখ টাকা।

অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৫১ পয়েন্ট বেড়ছে। লেনদেন হয়েছে ২ কোটি ৭ লাখ টাকা। লেনদেন অংশ নেওয়া ৮৪ প্রতিষ্ঠানের মধ্যে দাম বেড়েছে ৪৮টির, কমেছে ২৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৮টির।


আরও খবর



আজকের জোকস: যেমন মালিক তেমনি তার ভৃত্য

প্রকাশিত:Saturday ০৬ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ১২জন দেখেছেন
Image

যেমন মালিক তেমনি তার ভৃত্য
খুব ভোরে সাহেব চাকরকে ডেকে তুললেন।
মালিক: এই দেখ তো সূর্য উঠেছে কি না?
ভৃত্য: একটু সবুর করুন, স্যার। হারিকেনটা জ্বেলে নিয়ে আসি।

****

গাধার পিঠে চড়ার শখ
স্বামী: দেখ, তোমার ছেলে কী ভাবে কাঁদছে। সকাল থেকে বায়না ধরেছে গাধার পিঠে চড়ে ঘুরবে। গাধা আমি কোথায় পাব?
স্ত্রী: গাধার দরকার নেই। তোমার পিঠে চড়িয়ে ঘোরাও, দেখবে কান্না থেমে গেছে।

****

জুতার বাড়ি
১ম বন্ধু: জানিস, বাড়ি থেকে পালিয়ে যেদিন নিশিকে বিয়ে করলাম, ঠিক সেদিনই জুতোর বাড়ি খেতে হলো!
২য় বন্ধু: আমার ধারণা, এর পেছনে নিশ্চয়ই নিশির বাবার হাত ছিল!
১ম বন্ধু: না না, হাত নয়! ওটার মধ্যে নিশির বাবার ‘পা’ ছিল!


আরও খবর