Logo
আজঃ Monday ২৭ June ২০২২
শিরোনাম

শারীরিক সম্পর্কের সময় পুরুষের কাছে যে কথাটি শুনতে চান নারীরা

প্রকাশিত:Wednesday ০৮ December ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৮৬০জন দেখেছেন
Image

অনলাইন ডেস্ক: শারীরিক সম্পর্ক দু'টি মানুষের রসায়নকে নিবিড় করে। পরস্পরকে আরও কাছাকাছি আসতে সাহায্য করে। তবে সবসময় মিলনের উদ্দেশ্যে শুধুমাত্র পরস্পরের শারীরিক চাহিদা পূরণ নয়, যৌনতৃপ্তিও গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

অনেক সময় দেখা যায়, দুজন মানুষ শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হচ্ছেন ঠিকই, অথচ অধরা থাকছে যৌনতৃপ্তি। বেশ কিছু দিন এ রকম চলতে থাকলে সম্পর্কে একঘেয়েমি আসতে পারে। মধুর সম্পর্ক ধীরে ধীরে পরিণত হতে পারে তিক্ততায়। এমনকি একপর্যায়ে সম্পর্কে ফাটলও ধরতে পারে। তাই সম্পর্কের যত্নে শারীরিক ঘনিষ্ঠতা যেমন প্রয়োজন, তেমনি প্রয়োজন যৌনতৃপ্তিও।

মিলনের সময় নারীরা পুরুষ সঙ্গীর কাছ থেকে কী শুনতে চান এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের চাপম্যান ইউনিভার্সিটি এক সমীক্ষা চালিয়েছিল। সমীক্ষায় উঠে এসেছে, মিলনের সময় নারীরা তাদের পুরুষ সঙ্গীর কাছ থেকে ‘আই লাভ ইউ’ বাক্যটি শুনতে চান। শারীরিক ঘনিষ্ঠতম মুহূর্তে প্রিয়জনের মুখ থেকে ভালোবাসার কথা শুধু শরীর নয়, মনকেও তৃপ্ত করে। সূত্র : আনন্দবাজার।


আরও খবর



ওয়ান ব্যাংকে ৬৪ জনের চাকরির সুযোগ

প্রকাশিত:Friday ২৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
Image

ওয়ান ব্যাংক লিমিটেডে ‘ট্রেইনি সেলস অফিসার/সেলস অফিসার’ পদে ৬৪ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ১৪ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড
বিভাগের নাম: রিটেইল লায়াবিলিটি টিম

পদের নাম: ট্রেইনি সেলস অফিসার/সেলস অফিসার
পদসংখ্যা: ৬৪ জন
শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক
অভিজ্ঞতা: ০১-০২ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: চুক্তিভিত্তিক
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: ২৪-৩৫ বছর
কর্মস্থল: যে কোনো স্থান

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা www.jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ১৪ জুলাই ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



বায়ুদূষণ রোধের ৭ উপায়

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

আজ ১৫ জন বিশ্ব বায়ু দিবস। প্রতিবছরের মতো এবারও বিশ্বজুড়ে পালন করা হয় বিশ্ব পরিবেশ দিবস। বিশ্বব্যাপী প্রতি ১০ জনের মধ্যে ৯ জন শ্বাসের মাধ্যমে দূষিত বায়ু গ্রহণ করছে। বায়ু দূষণের কারণে সৃষ্ট বিভিন্ন রোগে বছরে ৭০ লাখ মানুষ মারা যায় বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। যাদের বেশিরভাগই নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশের।

আমাদের দেশও পিছিয়ে নেই। সুইজারল্যান্ডভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ‘আইকিউএয়ার’-এর ২০২১ সালের প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশে বাতাসের প্রতি ঘনমিটারে পিএম ২.৫-এর মাত্রা ৭৬.৯। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত মান অনুযায়ী, প্রতি ঘনমিটারে যা থাকার কথা ১০-এর কম।

বায়ুদূষণের দিক থেকে বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের পরে রয়েছে চাদ, পাকিস্তান, তাজিকিস্তান, ভারত, ওমান, কিরগিজস্তান, বাহরাইন, ইরাক ও নেপালের নাম। প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাজধানী শহরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে দূষিত বায়ুর শহর নয়াদিল্লি (ভারত)। দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গত কয়েক বছরের সমীক্ষা অনুযায়ী বায়ুদূষণের ফলে কমছে মানুষের আয়ু। হাঁপানি, ক্যানসার, হৃদরোগ, ফুসফুসের অসুখসহ অনেক রোগের কারণ বায়ুদূষণ। এ রোগ বৃদ্ধির জন্যও বায়ুদূষণ দায়ী। বায়ুদূষণের দৈনিক অর্থনৈতিক ক্ষতি প্রায় ৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা মোট বিশ্ব উৎপাদনের ৩ থেকে ৪ শতাংশ।

বায়ুদূষণ তাদেরই বেশি প্রভাবিত করে, যারা সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। ২০২১ সালে পাঁচ বছরের কম বয়সী প্রায় ৪০ হাজার শিশুর মৃত্যু সরাসরি পিএম ২.৫-জনিত বায়ুদূষণের সঙ্গে জড়িত। এছাড়াও বায়ুতে থাকা দূষণের মাত্রা বাড়ার ফলে ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন প্রতি ঘন্টায় ৮০০ জন।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার মতে,পারিপার্শ্বিক বায়ুতে কিছু কিছু বস্তু যথেষ্ট পরিমাণে মিশ্রিত হওয়ায় উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য মানুষ ও তার পরিবেশ ভীষণ ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলে তাকে বায়ুদূষণ বলে।

পরিবেশবিদ পার্কিন্স তার রচিত ‘এয়ার পলিউশন’ বইতে বলেছেন যেন ঘরের বাইরের আবহমণ্ডলে এক বা একাধিক সংক্রামক বস্তু যেমন- বিষাক্ত ধোঁয়া, ধূলিকনা, গ্যাস, কুয়াশা, কাঁকর, ধোঁয়াশা অথবা বাস্পের যে পরিমান উপস্থিতি ও যতক্ষন স্থায়ী হলে মানুষ, জীবজন্তু অথবা উদ্ভিদ জগতের পক্ষে ক্ষতিকারক, তাকেই বায়ুদূষক বলা হয়।

উইন্ডইউরোপ সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বের যে অঞ্চলগুলো উপকূলীয় স্থানে আছে সেই স্থানের বায়ুশক্তি এখন সারা বিশ্বের সস্তা শক্তি। যদিও ইতিমধ্যেই বহু জায়গায় টারবাইন ব্যবহার করে বায়ু শক্তি থেকে বিদ্যুৎ শক্তি তৈরি করা হয়। বায়ু শক্তিকে কাজে লাগানোর উদ্দেশ্যে সাধারণ মানুষকে সচেতন করার জন্য সর্বপ্রথম ২০০৭ সালের ১৫ জুন বিশ্ব বায়ু দিবস পালন করা হয়েছিল। এর ঠিক দুই বছর পর অর্থাৎ ২০০৯ সাল থেকে বিশ্বজুড়ে এই দিবস পালন করা হয়ে আসছে। এই দিবসের মাধ্যমে বার্তা দেওয়া হয় , অপ্রচলিত শক্তিকে ভবিষ্যত করে গড়ে তোলার জন্য। কারণ প্রচলিত শক্তির ভাণ্ডার একদিন না একদিন শেষ হবে , উপরন্তু দিনের পর দিন বোঝা বাড়ছে পরিবেশ দূষণের।

রাস্তা নির্মাণের কাজ, করকারখানার ধোঁয়া, গাড়ির কালো ধোঁয়া, ধূমপান, যেখানে সেখানে কাগজ, নোংড়া পুড়িয়ে ফেলার ফলে বায়ু দূষণ হচ্ছে। বায়ুদূষণ রোধে যা করণীয়-

>> শিল্পাঞ্চলের কারখানা থেকে নির্গত কার্বন ডাই অক্সাইড, কার্বন মনোঅক্সাইড, নাইট্রোজেন অক্সাইড, হাইড্রোকার্বন, ধাতব কনা, ধোঁয়া প্রভৃতি প্রচুর পরিমানে বাতাসে মিশ্রিত হয়ে বাতাসকে দূষিত করে।

>> বিভিন্ন যানবাহনে জীবাশ্ম জ্বালানীর (পেট্রোল ও ডিজেল) দহনের ফলে বিভিন্ন ক্ষতিকার গ্যাস নির্গত হয়। এগুলির মধ্যে অন্যতম প্রধান বায়ুদূষক কার্বন মনোক্সাইডের প্রায় ৭০ শতাংশ এই যানবাহন থেকে নির্গত হয়। এছাড়া যানবাহনের ধোয়ায় প্রচুর নাইট্রোজেনের অক্সাইড থাকে যা বায়ুকে দূষিত করে তোলে। যানবাহনের আধিক্যের জন্য শহরাঞ্চলের বাতাস বেশি দূষিত হয়।

>> কয়লা নির্ভর তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে নাইট্রাস অক্সাইড, সালফারের অক্সাইড, কার্বন ডাই অক্সাইড, কার্বন মনোঅক্সাইড প্রভৃতি গ্যাস ছাড়াও প্রচুর পরিমাণে ছাই বাতাসে মিশে বায়ুদূষণ ঘটায়। পৃথিবীর মোট সালফার দূষণের প্রায় ৩০ শতাংশ তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে ব্যবহৃত কয়লার দহনের ফলে বাতাসে মিশ্রিত হয়।

>> মৃত জীবদেহের পচনের ফলে অনেক ধরণের দূর্গন্ধ যুক্ত গ্যাস যেমন মিথেন, হাইড্রোজেন সালফাইড ইত্যাদি বাতাসের সাথে মিশ্রিত হয়ে বায়ুদূষণ ঘটায়। এজন্য আশেপাশে জীবজন্তু মারা গেলে তা মাটিচাপা দিয়ে রাখুন।

> > শুষ্ক ঋতুতে অনেকেই আবর্জনা সংগ্রহ করে তা পুড়িয়ে নষ্ট করেন। বিশেষ করে বনের শুকনো পাতা এভাবে নষ্ট করা হয়। এ থেকে তৈরি ধোঁয়া পরিবেশের জন্য খুবই ক্ষতিকর।

>> এছাড়া ধূমপান বায়ুদূষণের অন্যতম কারণ। যতদূর সম্ভব ধূমপান এড়িয়ে চলুন। এতে যেমন ধূমপায়ী নিজে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তেমনি আশেপাশের মানুষও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সমানভাবে।

>> রাস্তা নির্মাণের কাজ শেষ করতে হবে যত দ্রুত সম্ভব শেষ করতে হবে।


আরও খবর



শেখ হাসিনা বার্নে ভর্তি ১৫ জন, আশঙ্কাজনক ৪

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫৮জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণে দগ্ধ ১৬ জনকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে আনা হয়েছে। তাদের মধ্যে চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। এছাড়া একজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

সোমবার (৬ জুন) পর্যন্ত শেখ হাসিনা বার্নে যাদের আনা হয়েছে তারা হলেন- ফায়ার ফাইটার মো. গাউসুল আজম (২২) ও মো. রবিন মিয়া (২২), মো. মাসুম মিয়া (৩৪), মো. ফরমানুল ইসলাম (৩০), মো. রুবেল মিয়া (৩৪), মো. ফারুক হোসেন (১৬), মো. হোসেন মহিবুল্লাহ (২৭), মো. আমিন (৩২), মো. মইনুল হক (৪০), মো. রাসেল (৩৯), মো. ফারুক হোসেন (৪৫), মো. খালেদুর রহমান (৫৮), এ. কে. এম. মাকফারুল ইসলাম (৬৫), এস আই কামরুল ইসলাম (৩৭), মো. নজরুল মন্ডল (৩৮), মো. সজীব মিয়া (৩৫)।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন ডা. আইউব হোসেন বলেন, আমাদের এখানে ১৬ জনকে আনা হয়েছে। তাদের চারজন নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন। তারা হলেন- ফায়ার ফাইটার মো. রবিন। তার শরীরের ৬০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। ফায়ার ফাইটার গাউসুল আজম। তার শরীরের ৮০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। বাকি দুজনের মধ্যে ফরমানুল ইসলামের শরীরের ৩০ শতাংশ ও এ. কে. এম. মাকফারুল ইসলামের শরীরের ১২ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।

বাকি ১১ জনকে পোস্ট অপারেটিভ ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের শরীরের ৪ শতাংশ থেকে শুরু করে ২০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তাদের শ্বাসনালী পুড়ে যাওয়ায় তারাও শঙ্কামুক্ত নন বলে জানান তিনি। আর মো. রাসেল নামের একজনকে ঢামেক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মো. বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শনিবার (৪ জুন) রাত সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। আগুন লাগার পর রাসায়নিকের কনটেইনারে একের পর এক বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটতে থাকলে বহু দূর পর্যন্ত কেঁপে ওঠে।

অগ্নিকাণ্ড ও ভয়াবহ এ বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৯ জনে দাঁড়িয়েছে। তবে জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, মৃতের সংখ্যা ৪৬ জন। দগ্ধ ও আহত ১৬৩ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। রাতেই শনাক্ত হওয়া নিহতদের জেলা প্রশাসনের সহায়তায় পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. মো. ইলিয়াস হোসেন চৌধুরী জানান, নিহতদের মধ্যে ডিপোর শ্রমিকদের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিসের ৯ সদস্যও রয়েছেন। হাসপাতালে ভর্তি অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে।


আরও খবর



আবারও হাঙ্গেরির কাছে হার ইংল্যান্ডের, এবার খেলো ৪ গোল

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ২৪ June ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

সামনে বিশ্বকাপ। এমন সময়ে এ কী চেহারা ইংল্যান্ডের! উয়েফা নেশনস লিগে এবারের আসরে ইংলিশদের দুর্দশা যেন কাটছেই না। ১০ দিনের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো তারা হেরে গেছে হাঙ্গেরির কাছে।

হেরে গেছে বললে অবশ্য ভুল হবে। হাঙ্গেরি যে রীতিমত বিধ্বস্ত করেছে গ্যারেথ সাউথগেটের দলকে। উলভারহ্যাম্পটন ওয়ানডারার্সের ঘরের মাঠ মলিনিউ স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার রাতে ইংল্যান্ডকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে হাঙ্গেরি।

এতে করে নেশনস লিগে চার ম্যাচ খেলে জয়শূন্যই রইলো ইংল্যান্ড। ২০১৪ সালের পর এই প্রথম টানা চার ম্যাচে জয়ের মুখ দেখলো না ১৯৬৬ সালের বিশ্বকাপজয়ীরা।

গত ৪ জুন হাঙ্গেরির কাছে ১-০ গোলে হারে ইংল্যান্ড। যেটাকে ধরা হচ্ছিল আপসেট হিসেবে। এর আগে গত ৬০ বছরে এই প্রতিপক্ষের বিপক্ষে জিততে পারেনি হাঙ্গেরি।

eng1

সেই হাঙ্গেরিই ইংল্যান্ডকে নিয়ে এবার ছেলেখেলা খেললো। ম্যাচের ষোড়শ মিনিটে দলকে এগিয়ে নেন রোলান্দ সালাই। ৭০ মিনিটে তিনিই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন।

শেষ ১০ মিনিটে স্বাগতিকদের জালে আরও দুবার বল পাঠায় হাঙ্গেরি। ৮০ মিনিটে সল্ট নাগি এবং ৮৯ মিনিটে গোল করেন ড্যানিয়েল গাজডেক। শেষ পর্যন্ত ৪-০ ব্যবধানের বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে হাঙ্গেরি।

এই জয়ে ৪ ম্যাচে ৭ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের শীর্ষে আছে হাঙ্গেরি। একই দিন আরেক ম্যাচে ইতালিকে ৫-২ গোলে হারানো জার্মানি ৬ পয়েন্ট নিয়ে আছে দুই নম্বরে।


আরও খবর



সীতাকুণ্ডে যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, নৌ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:Monday ০৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৬৬জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে দুর্ঘটনাকবলিত কনটেইনার ডিপো পরিদর্শনে যাচ্ছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান।

মন্ত্রীদের দপ্তর থেকে এ তথ্য জানা গেছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা শরীফ মাহমুদ অপু বলেন, মন্ত্রী (স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী) সীতাকুণ্ডে দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাচ্ছেন। আজ (সোমবার) দুপুরে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ঢাকা থেকে রওনা দেবেন।

নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. জাহাঙ্গীর আলম খান বলেন, মন্ত্রী আজ দুপুর ১টায় বিমানে ঢাকা ত্যাগ করবেন। বেলা আড়াইটায় চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন, বিকেল সাড়ে ৫টায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে আহতদের দেখতে যাবেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চট্টগ্রাম বন্দরে কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. সেলিম হোসেন বলেন, প্রতিমন্ত্রী (দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী) আজ দুপুরে সীতাকুণ্ডের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেন। তিনি বিমানে চট্টগ্রাম যাচ্ছেন।

শনিবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার সোনাইছড়ি ইউনিয়নের বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। পরে সেখানে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ দুর্ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪৯ জনের বেশি মানুষ মারা গেছে। এর মধ্যে নয়জনই ফায়ার সার্ভিসের সদস্য।


আরও খবর