Logo
আজঃ Friday ১৯ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে আবাসিকের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ডেমরায় প্যাকেজিং কারখানায় ভয়বহ অগ্নিকান্ড রূপগঞ্জে পুলিশের ভুয়া সাব-ইন্সপেক্টর গ্রেফতার রূপগঞ্জে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ॥ সভা সরাইলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। নারায়ণগঞ্জে পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে পুতা দিয়ে আঘাত করে হত্যা,,স্বামী গ্রেপ্তার রূপগঞ্জ ইউএনও’র বিদায় সংবর্ধনা নাসিরনগরে স্বামীর পরকিয়ার,বলি ননদ ভাবীর বুলেটপানে আত্মহত্যা নাসিরনগরে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত ডেমরায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসুচি পালিত

সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী

প্রকাশিত:Friday ১০ December ২০২১ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৪৬৬জন দেখেছেন
Image

বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করে এবার সাময়িক বরখাস্ত হয়েছেন রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী। আজ শুক্রবার সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আব্দুল জলিল।

তিনি বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে মেয়র আব্বাস আলীর সাময়িক বরখাস্ত সম্পর্কিত একটি প্রজ্ঞাপন পেয়েছি। ৮ ডিসেম্বর স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব ফারজানা মান্নান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনটি জারি করা হয়েছে। সেখানে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে তাকে বহিষ্কারের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

ওই চিঠিতে বলা হয়েছে, কাটাখালী পৌরসভার মেয়র মো. আব্বাস আলীর বিরুদ্ধে বোয়ালিয়া মডেল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে এবং তিনি গ্রেপ্তার হওয়ায় কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকায় পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ সাধারণ মানুষ সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। যা পৌরসভার স্বার্থের পরিপন্থী ও প্রশাসনিক দৃষ্টিকোণ থেকে সমীচীন নয় বলে প্রতীয়মান হওয়ায় পৌর মেয়রের পদ থেকে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা যুক্তিযুক্ত। স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর ধারা ৩১ (১) এর ক্ষমতাবলে কাটাখালী পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।

এর আগে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের গেটে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল স্থাপন নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেন পৌর মেয়র আব্বাস আলী। এরপরই তার বিরুদ্ধে মাঠে নামেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার পাশাপাশি ১২ কাউন্সিলর তার প্রতি অনাস্থা জানিয়ে জেলা প্রশাসককে চিঠি দেন।


আরও খবর



শরীরে ক্যালশিয়ামের ঘাটতি আছে কি না বুঝে নিন ৭ লক্ষণে

প্রকাশিত:Friday ১৯ August ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ১৮জন দেখেছেন
Image

হাড় ও দাঁতের সুস্থতায় পর্যাপ্ত ক্যালশিয়াম গ্রহণের বিকল্প নেই। ঠিক একইভাবে সুস্থ থাকতে প্রতিদিনের ডায়েটে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফ্যাট থাকা যেমন জরুরি, তেমনই পর্যাপ্ত মাত্রায় ভিটামিন, মিনারেলও রাখতে হবে।আর এই মিনারেলের মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ক্যালশিয়াম।

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে শরীরে ক্যালশিয়ামের ঘাটতি দেখা যায়। এ কারণে সাপ্লিমেন্ট খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। শরীরে ক্যালশিয়ামের ঘাটতি হলে গুরুতর কিছু লক্ষণ দেখা দেয়। জেনে নিন কোন কোন লক্ষণ দেখে বুঝবেন ক্যালশিয়ামের ঘাটতি আছে-

>> শরীরে ক্যালশিয়ামের ঘাটতি হলে পেশি ব্যথা, ক্র্যাম্প ও খিঁচুনির সমস্যা হতে পারে। এক্ষেত্রে হাঁটাহাঁটি বা নড়াচড়া করার সময় উরু ও বাহুতে ব্যথা ছাড়াও হাত, বাহু, পা ও মুখের চারপাশে অসাড়তাও অনুভব হতে পারে। এ ধরনের সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

>> প্রচণ্ড ক্লান্তিও শরীরে ক্যালশিয়ামের ঘাটতির আরেকটি অন্যতম লক্ষণ। আলস্য বোধ হতে পারে সব কাজেই। এর প্রভাবে অনিদ্রার সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

এছাড়া হালকা মাথাব্যথা, মাথা ঘোরার পাশাপশি ব্রেইন ফগ হতে পারে। ব্রেইন ফগের কারণে মনোযোগের অভাব, ভুলে যাওয়া ও বিভ্রান্তির সৃষ্টি হতে পারে।

>> শরীরে ক্যালশিয়ামের ঘাটতি হলে ত্বকের শুষ্কতা বাড়ে। নখ ভঙ্গুর, চুল মোটা, অ্যাকজিমা, ত্বকের প্রদাহ, ত্বকের চুলকানি ও সোরিয়াসিসের মতো সমস্যা হতে পারে।

>> কারও শরীরে ক্যালশিয়ামের সামগ্রিক মাত্রা কমে গেলে, হাড় থেকে ক্যালশিয়াম শুষে নেয় শরীর। এ কারণে হাড় ভঙ্গুর হয়ে ওঠে। অস্টিয়োপোরেসিস রোগ বাসা বাঁধে শরীরে।

>> শরীরে ক্যালশিয়ামের মাত্রা কমে গেলে হৃৎপিণ্ডের পেশি সঠিকভাবে কাজ করে না। হৃৎপিণ্ডের পেশিগুলো এক্ষেত্রে সংকুচিত হয়ে যায় ও হৃদস্পন্দনের সঙ্গে তাল মেলাতে পারে না। ফলে অস্বাভাবিক হৃদযন্ত্রের ছন্দ সৃষ্টি করে। এটি আরও গুরুতর হয়ে ওঠে শরীরে ক্যালসিয়ামের মাত্রা অত্যধিক কমে গেলে।

>> দাঁতের সুস্থতাও নির্ভর করে ক্যালশিয়ামের উপর। শরীরে এই গুরুত্বপূর্ণ খনিজের অভাব হলে দাঁত ক্ষয় হয়ে যাওয়ার লক্ষণ দেখা দেয়। তাছাড়া এটি গোড়ায় জ্বালাপোড়া ও শিরশিরেভাবও দেখা দেয়।

এসব লক্ষণ দেখলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করতে হবে। এর পাশাপাশি খাদ্যতালিকাতেও রাখতে হবে ক্যালশয়ামজাতীয় খাবার।

সূত্র: হেলথশটস


আরও খবর



১৫ আগস্ট স্মরণে কলকাতায় ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সংঘের সভা

প্রকাশিত:Thursday ১৮ August ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৩৯জন দেখেছেন
Image

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভা করেছে ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী সংঘ।

বুধবার (১৮ আগস্ট) সন্ধ্যায় ঐতিহ্যবাহী কলকাতা বেঙ্গল ক্লাব মিলনায়তনে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড ও এর পূর্বাপর নানাবিষয় নিয়ে বক্তব্য দেন দু'দেশের বক্তারা।

মৈত্রী সংঘের কার্যকরি সভাপতি শিশির কুমার বাজোরিয়ার সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এছাড়া সভায় আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন ও কলকাতায় বাংলাদেশের উপহাইকমিশনার ইলিয়াস আন্দলিব সম্মানিত অতিথি হিসেবে আলোচনায় অংশ নেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক যত বেশি গভীর হবে, এ অঞ্চলের শান্তি ও নিরাপত্তা তত বেশি নিশ্চিত হবে। তাতে দু'দেশই সমানভাবে লাভবান হবে। তিনি দু'দেশের মধ্যেকার এ সম্পর্ক ব্যবসা-বাণিজ্য, যোগাযোগ ও অন্যান্য ক্ষেত্রে এগিয়ে নেওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

আমিনুল ইসলাম আমিন বলেন, আমাদের একজন শেখ হাসিনা ছিলেন বলেই বঙ্গবন্ধু হত্যার পরবর্তী ঘোর অমানিশা কাটিয়ে তার কালজয়ী নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা সম্ভব হয়েছে। একই সঙ্গে তার অনন্য গতিশীল নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে আত্মমর্যাদা নিয়ে অস্তিত্ব জানান দিচ্ছে।

আন্তর্জাতিক রাজনীতিতেও বঙ্গবন্ধুকন্যার অসামান্য দক্ষতার কারণে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক আজ নতুন এক মাত্রায় উপনীত উল্লেখ করেন আমিন।

উপহাইকমিশনার আন্দালিব আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান ও তার দায়িত্বপালনে সবার সহযোগিতা কামনা করেন। সভাপতি শিশির বাজোরিয়া বলেন, বঙ্গবন্ধুকে কলকাতার মানুষ পরম মমতায় স্মরণ করেন। বাংলাদেশের অতিথিদের এ সফরের জন্য ধন্যবাদ জানান তিনি।

সভায় স্থানীয় সুধীজন এবং কলকাতায় বাংলাদেশ উপহাইকমিশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



ডেপুটি স্পিকারের মৃত্যুতে স্পিকারের শোক

প্রকাশিত:Saturday ২৩ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১৭ August ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

শনিবার (২৩ জুলাই) সকালে এক শোকবার্তায় ফজলে রাব্বী মিয়ার রুহের মাগফেরাত কামনা করে তার শোকসন্তপ্ত পরিবার-পরিজন ও শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

এর আগে, শুক্রবার (২২ জুলাই) দিনগত রাত ২টায় (নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা) যুক্তরাষ্ট্রের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ফজলে রাব্বী মিয়া। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৬ বছর। গাইবান্ধা-৫ আসনের এই সংসদ সদস্য দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন।

তার মৃত্যুতে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গণে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। এরই মধ্যে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীসহ মন্ত্রীপরিষদের সদস্য ও বিভিন্ন রাজনৈতিক এবং সামাজিক নেতারা শোক প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, এই মৃত্যু দেশপ্রেমিক রাজনীতিবিদের শূন্যতা। এটি পূরণ হবার নয়।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে মো. ফজলে রাব্বী মিয়া ১১ নং সেক্টরে যুদ্ধ করেন। এছাড়াও সে সময় বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে বৈশ্বিক জনমত গড়ে তুলতেও তিনি কাজ করেন।

ফজলে রাব্বী মিয়া ১৯৮৬ সালের তৃতীয়, ১৯৮৮ সালের চতুর্থ, ১৯৯১ সালের পঞ্চম ও ১২ জুন ১৯৯৬ সালের সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-৫ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৮৯ সালে তিনি আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেন।

এছাড়া পঞ্চম ও সপ্তম সংসদে তিনি বিরোধীদলীয় হুইপ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সপ্তম জাতীয় সংসদে তিনি ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৮ সালের নবম, ২০১৪ সালের দশম ও ২০১৯ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গাইবান্ধা-৫ আসন থেকে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

নবম জাতীয় সংসদে তিনি সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি, কার্য উপদেষ্টা কমিটি, কার্যপ্রণালী বিধি সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এ সময় তিনি প্রথমে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে এবং পরে সভাপতি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

দশম সংসদ থেকে ফজলে রাব্বী মিয়া ডেপুটি স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও তিনি ওই সংসদে লাইব্রেরি কমিটির সভাপতি, কার্য উপদেষ্টা কমিটির সদস্য, কার্যপ্রণালী বিধি সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য ও পিটিশন কমিটির সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

তিনি একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়নে সপ্তমবারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে টানা দ্বিতীয় মেয়াদে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।


আরও খবর



মহররমের আইয়ামে বিজের রোজা ১২-১৪ আগস্ট

প্রকাশিত:Thursday ১১ August ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ১৩জন দেখেছেন
Image

১৪৪৪ হিজরির নতুন বছরের প্রথম মাস মহররম। প্রত্যেক আরবি মাসের ১৩-১৫ তারিখ রোজা রাখা সুন্নাত। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ তিনদিন রোজা রাখতেন। প্রিয় নবির সুন্নাতের অনুসরণে মুসলিম উম্মাহ এ তিনদিন রোজা পালন করে থাকেন।

১৪৪৪ হিজরির প্রথম মাস মহররমের ১৩-১৫ তারিখ হলো- ১২, ১৩ ও ১৪ আগস্ট মোতাবেক শুক্রবার, শনিবার ও রোববার। যারা আইয়ামে বিজের তিনদিন রোজা রাখবেন; তাদের জন্য ১১ আগস্ট (১২ মহররম) বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতেই সেহরি খেতে হবে।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রত্যেক আরবি মাসের মধ্যভাগে ৩ দিন রোজা রাখতেন। উম্মতে মোহাম্মাদির জন্য এ তিনদিন রোজা রাখা সুন্নাত। তিনি সাহাবায়ে কেরামকে এ তিনদিন রোজা রাখতে বলেছেন।

আইয়ামে বিজের রোজার ফজিলত

আইয়ামে বিজের রোজা রাখার ফজিলত ও গুরুত্বারোপ করে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হাদিসে পাকে ঘোষণা করেছেন-

> হজরত আবু যার রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি প্রতি মাসে তিনটি রোজা রাখল; সে যেন সারা বছরই রোজা রাখলঅতঃপর এর সমর্থনে আল্লাহ তাআলা তাঁর কিতাবে নাজিল করেন-

‘যে একটি নেকি নিয়ে আসে তার জন্য রয়েছে তার ১০গুণ’ অতএব একদিন ১০ দিনের সমান’ (তিরমিজি)

> হজরত আব্দুল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রত্যেক মাসে তিনদিন রোজা রাখতেন।’ (আবু দাউদ)

> হজরত ইবনু মিলহান আল-ক্বাইসি তাঁর পিতার সূত্রে বর্ণনা করেন, ‘রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের আইয়ামে বিজের রোজার ব্যাপারে নসিহত করেছেন; আমরা যেন তা (মাসের) ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখ পালন করি। তিনি আরও বলেছেন, এটা সারা বছর রোজা রাখার মতোই।’ (আবু দাউদ)

এছাড়াও আইয়ামে বিজের রোজা সম্পর্কে বর্ণিত আছে যে-

হজরত আদম ও হাওয়া আলাইহিস সালাম বেহেশতের নিষিদ্ধ গাছের ফল খাওয়ার পর তাদের শরীর থেকে জান্নাতি পোশাক চলে যায়। আর তাদের শরীরের রংও কুৎসিত হয়ে যায়। অতঃপর হজরত আদম ও হাওয়া আলাইহিস সালাম আল্লাহর হুকুমে চন্দ্র মাসের তের, চৌদ্দ ও পনের তারিখে রোজা রাখলে আবার তাদের শরীরের রং পূর্বের ন্যায় উজ্জ্বল হয়ে যায়। তাই এই তিন দিনকে আইয়্যামে বিজ বা উজ্জ্বলতার দিন বলা হয়।

আইয়ামে বিজের রোজা রাখার ফজিলত বর্ণনায় হাদিসের বিখ্যাত গ্রন্থ বুখারি ও মুসলিমে এসেছে- রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, প্রত্যেক মাসে তিনদিন রোজা পালন, সারা বছর রোজা পালনের সমান।’

উল্লেখ্য ৪টি সম্মানিত মাসের একটি এ মাস। আল্লাহর মাস হিসেবেও এ মাসটি সম্মানিত। সুতরাং এ মাসে আইয়ামে বিজের রোজা পালনের মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনই মুমিন মুসলমানের একমাত্র দায়িত্ব ও কর্তব্য।


আরও খবর



আশ্বাসে শেষ হলো চবি ছাত্রীদের আন্দোলন

প্রকাশিত:Thursday ২১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
Image

প্রায় পৌনে তিন ঘণ্টা অবস্থানের পর চার দফা দাবি মেনে নেওয়ার শর্তে আন্দোলন থেকে সরে এসেছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ছাত্রীরা।

বুধবার (২০ জুলাই) রাত পৌনে ১০টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনের প্রবেশপথ অবরোধ করে আন্দোলন করেন তারা। এ সময় তারা চার দফা দাবি জানান।

দাবিগুলো হলো

১. বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল ও মেডিকেল সেন্টারে প্রবেশের সময়সীমা তুলে নেওয়া ও ক্যাম্পাসে ২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

২. যৌন নিপীড়ন সেল ভেঙে নতুন কার্যকরী যৌন নিপীড়ন সেল গঠন করা এবং গঠিত সেলে বিচার নিশ্চিতের জন্য সর্বোচ্চ সময় থাকবে এক মাস। এক মাসে বিচার নিশ্চিতকরণে ব্যর্থ হলে যৌন নিপীড়ন সেল নিজে শাস্তির আওতাভুক্ত হবে।

jagonews24

৩. যৌন নিপীড়ন সেলে চলমান অভিযোগগুলো আগামী চার কার্যদিবসের মধ্যে সমাধান করে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

৪. যৌন নিপীড়নের ঘটনাগুলোর বিচার আগামী ৪ কার্যদিবসের মধ্যে করতে না পারলে প্রক্টরিয়াল বডির সবাইকে পদত্যাগ করতে হবে।

লিখিত আকারে পেশকৃত এসব দাবি মেনে নেওয়ার শর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এসএম মনিরুল হাসান স্বাক্ষর করলে ছাত্রীরা আন্দোলন থেকে সরে আসেন।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এসএম মনিরুল হাসান বলেন, আন্দোলনরত ছাত্রীরা আমাদের কাছে লিখিত আকারে ৪ দফা দাবি জানিয়েছে। আমরা দাবিগুলো মেনে নিয়েছি। ছাত্রীরা এখন হলে ফিরে গিয়েছে।


আরও খবর