Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

রূপগঞ্জের কাঞ্চন পৌরসভায় বইছে উন্নয়নের ছোঁয়া

প্রকাশিত:Monday ২০ June ২০22 | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১২৬জন দেখেছেন
Image


রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি: মোঃ আবু কাওছার মিঠু 


বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বপ্ন পূরণে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী (বীরপ্রতীক) এম.পি’র উন্নয়নের অগ্রযাত্রার অংশ হিসেবে অবহেলিত কাঞ্চন পৌরএলাকা এখন উন্নয়নশীল এলাকা হিসেবে গড়ে উঠছে। 


মেয়র রফিক জনগণের ধারে ধারে ঘুরে, জনগণের প্রাপ্য অধিকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে জনগণের মনে জায়গা করে নিয়েছেন। পৌর এলাকার পাড়া মহল্লার রাস্তাঘাট, বিশুদ্ধ পানি, মসজিদ মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজ, মন্দিরের উন্নয়ন, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, প্রতিবন্ধিদের ভাতাসহ পৌরসভার সকল কার্যক্রমগুলো নিজ দায়িত্বে করে থাকেন। ইতিমধ্যে পৌরএলাকার জলাবদ্ধতার পানি নিষ্কাশনের জন্য স্থায়ী ড্রেনেজ ব্যবস্থা চালু করেছেন। অসহায় ও গরিব মানুষদের সব সময় সাহায্য সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। কাঞ্চনবাসীর জীবন-যাত্রার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে রাত দিন কাজ করে যাচ্ছেন এবং মাদক নির্মূলের জন্য বিভিন্ন পদক্ষেপসহ আইনি কঠোর ব্যবস্থা জোরদার করেছেন।


কাঞ্চন পৌর এলাকাকে সবুজ-শ্যামল গড়ার লক্ষ্যে বৃক্ষরোপণে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছেন। ভেজালযুক্ত খাবার যেনো জনগণের কাছে বিক্রি না হয়, সে জন্য তিনি প্রায় প্রায়ই স্থানীয় এলাকার হাট-বাজারগুলো পরিদর্শন করেন। শিক্ষার মান বৃদ্ধির জন্য শিক্ষার্থীদের সুন্দর ভবিষ্যত গড়ে তোলার লক্ষ্যে শিক্ষার প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছেন। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিজে উপস্থিত হয়ে শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনের কথা শুনে থাকেন এবং প্রয়োজন পূরণে বিভিন্ন রকমের ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকেন। 


বর্তমানে পৌর এলাকার তারাইল, বিরাব, রাণীপুরা, মায়ারবাড়ী, কেন্দুয়া, কেরাব, কেন্দুয়াটেকসহ পৌরসভার প্রত্যেকটি এলাকার রাস্তাগুলো আরসিসি, কার্পেটিং, সলিং রাস্তা ও  ড্রেন করা হয়েছে।


এদিকে  রাণীপুরা মাদ্রাসার ২য় তলার ছাদ, মায়ারবাড়ী টেক জামে মসজিদের ছাদ, কেন্দুয়া বেপারীপাড়া জামে মসজিদের টয়লেট ও অযুখানা নির্মাণ। কেন্দুয়াপাড়া জামে মসজিদের সীমানা প্রাচীর নির্মাণ।


কলাতলী দক্ষিণ বায়তুল জান্নাত জামে মসজিদের টিনের সেড নির্মাণ। খা পাড়া কবরস্থানে মাটি ভরাট করন। পূর্ব কালাদি এলাকায় কালভাট। খা-পাড়া এলাকার প্যালাসাইডিংসহ মাটি ভরাট করন। পশ্চিম কালাদি এলাকায়  ড্রেন নির্মাণ। নাথপাড়া এলাকায় আরসিসি পাইপ লাইন স্থাপন করন। কলাতলী থেকে মাটিয়াহাড়ি এলকায় রাস্তার পুকুর পাড়ে প্যালাসাইডিং সহ মাটি ভরাট করণ। কাঞ্চন বাজার কিচেন মার্কেটের দোকান সংখ্যা বৃদ্ধিসহ উন্নয়ণ। পৌরসভার বিভিন্ন ওয়ার্ডে সাব-মারসিবল পাম্প স্থাপন করা হয়েছে।  


মেয়র রফিক বলেন, আমাদের কাঞ্চন পৌরসভায় বর্তমানে ২৫ কোটি টাকার কাজ চলমান। কাঞ্চন রোডস এন্ড হাইওয়ে চরপাড়া হইতে কাঞ্চন বাজার চৌরাস্তার ড্রেন এবং চৌদ্দ ফিট রাস্তা হচ্ছে। আর সিসি এবং বিশাল আকারে ড্রেন হচ্ছে। পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডে ১৬ ফিট আরসিসি রাস্তা এবং  ড্রেনের কাজ চলমান।  আমাদের পৌরএলাকায় কালভার্ট, কার্পেটিং রোড ও আর সিসি রোড, ড্রেন সহ ২৫ কোটি টাকার কাজ চলমান আছে। 


তিনি আরো বলেন এই জুনে আবার নতুন বাজেট আসতেছে । এ বাজেটে আমরা কাঞ্চন পৌরসবাসীকে ভালো কিছু দিতে পারবো। কাঞ্চন পৌরসভাকে একটি আধুনিক মডেল  পৌরসভা হিসেবে গড়ে তোলবো ইন্শাল্লাহ। 


এদিকে রোডস এন্ড হাইওয়ের কাজের জন্য পৌরএলাকায় যে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। পৌরসভার ৬, ৭ ও ৯ নং ওয়ার্ড মিলিয়ে যে ড্রেনটি হচ্ছে ।  ড্রেনের কাজ শেষ হলে এ জলাবদ্ধতা  নিরসন হবে। 


আরও খবর



বরাদ্দ পাওয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর ৮০ টাকায় বিক্রি!

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৭৭জন দেখেছেন
Image

যশোরের অভয়নগরে উপকারভোগী এক পরিবারের বিরুদ্ধে ৮০ হাজার টাকায় আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘর বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। বিক্রি করা ঘরের দলিল ক্রেতার কাছে হস্তান্তরও করা হয়েছে।

উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়নের শ্রীধরপুর গ্রামে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে এ ঘটনা ঘটেছে।

উপকারভোগী তরিকুল ইসলাম ও তার স্ত্রী খাদিজা বেগমের নামে বরাদ্দ ঘরের দলিল ওই প্রকল্পের পাশে বসবাসকারী মৃত এহিয়া মোল্যার ছেলে হাসানুর মোল্যার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কার্যালয় সূত্র জানায়, উপজেলার শ্রীধরপুর ইউনিয়নের শ্রীধরপুর গ্রামে আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় পাশাপাশি পাঁচটি ঘর নির্মাণ করা হয়। দুই শতক জমির ওপর একটি ঘর নির্মাণে ব্যয় করা হয় এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। ২০২০-২০২১ অর্থবছরে উপকারভোগী পরিবারের মাঝে ঘর ও জমির মালিকানা বুঝিয়ে দেওয়া হয়।

সরেজমিন আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পে গিয়ে উপকারভোগী তরিকুল ইসলামকে না পেলেও তার স্ত্রী খাদিজা বেগমকে পাওয়া যায়। এ সময় তিনি ঘর বিক্রি ও দলিল হস্তান্তরের বিষয়ে বলেন, ‘কিছুদিন আগে প্রতিবেশী হাসানুর মোল্যার কাছ থেকে ৮০ হাজার টাকা ঋণ নিয়েছিলাম। নির্ধারিত সময়ে ওই টাকা পরিশোধ করতে পারিনি। আগামী দুই মাসের মধ্যে ঋণের টাকা পরিশোধ করতে না পারলে ঘর হাসানুরের হয়ে যাবে মর্মে স্ট্যাম্পে লেখা ও সই করা হয়েছে। স্ট্যাম্প ও ঘরের দলিল হাসানুরের কাছে রয়েছে।’

পরে হাসানুর মোল্যাকে বাড়িতে না পেলেও তার স্ত্রী রেকসোনা বেগমকে পাওয়া যায়। তিনি বলেন, ‘তরিকুলের স্ত্রী খাদিজার বিপদের সময় আমার স্বামী দুই কিস্তিতে ৯০ হাজার টাকা ধার দিয়েছিলেন। তারা দুই মাসের মধ্যে ওই টাকা পরিশোধ করার অঙ্গীকার করেছিলেন। টাকা পরিশোধ করতে না পেরে ঘরের দলিল ও স্ট্যাম্পে লিখিত দিয়েছেন।’

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মেজবাহ উদ্দিন বলেন, আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর বরাদ্দ নিয়ে না থাকা, ক্রয়, বিক্রয় ও ভাড়া দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। যদি কেউ করে থাকেন তাহলে তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, শ্রীধরপুরের ঘটনাটি তদন্ত করা হবে। প্রমাণিত হলে ওই উপকারভোগীর বরাদ্দ বাতিল করে অন্য ভূমি ও গৃহহীনকে ঘরটি দেওয়া হবে।

মিলন রহমান/এসআর


আরও খবর



করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের

প্রকাশিত:Sunday ২৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image

দেশে করোনা সংক্রমণের উর্ধ্বমুখী প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। আজ রোববার সকাল আটটা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে এক হাজার ৬৮০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ সময় করোনায় মৃত্যু হয়েছে দুইজনের।

আগের দিন করোনা শনাক্ত হয়েছিল ১ হাজার ২৮০ জনের। আর করোনায় মৃত্যু হয়েছিল তিনজনের।

টানা ২০ দিন দেশে করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। গত ২০ জুন করোনায় একজনের মৃত্যুর কথা জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এরপর টানা চার দিন করোনায় একজন করে মৃত্যু হয়। মাঝে এক দিন কারও মৃত্যু হয়নি। সর্বশেষ দুই দিনে তিনজন ও দুইজনের প্রাণ গেল এই ভাইরাসে।


আরও খবর



পঁচাত্তর আর ফিরে আসবে না: কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ২৫ June ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

এ দেশে আর ১৯৭৫ ফিরে আসবে না বলে মন্তব্য করেছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক। তিনি বলেছেন, স্বাধীনতাবিরোধী ও একাত্তরের পরাজিত শক্তি ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করেছিল। সেই শক্তিই ‘পঁচাত্তরের হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার’ বলে স্লোগান দিচ্ছে। তারাই ধরিত্রীর নেত্রী, মানবতার নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যা করতে চায়। বাংলাদেশকে আবার পাকিস্তান বানাতে চায়। কিন্তু এ দেশের জনগণ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এদের কঠোরভাবে মোকাবিলা করবে।

রোববার (৫ জুন) ঢাকায় জাতীয় জাদুঘর মিলনায়তনে পরিবেশ দিবসের আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটি ‘এক পৃথিবী: বাংলাদেশ প্রেক্ষিত এবং বিশ্ব পরিবেশ দিবস’ শীর্ষক এক আলোচনা সভার আয়োজন করে।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বড় ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে দেশের খাদ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়তে পারে। এ বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে সরকার অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে জলবায়ু পরিবর্তনের অভিঘাত মোকাবিলায় কাজ করে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার জলবায়ু মোকাবিলায় সঠিক পথে রয়েছে। এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনেও সঠিক পথে রয়েছে।

তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন হোক বা না হোক, কৃষিতে আমাদের চ্যালেঞ্জ একটিই, সেটি হলো খাদ্য নিরাপত্তা। সেজন্য আমরা জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ও প্রতিকূলতাকে মোকাবিলা করে কৃষি উৎপাদন বাড়ানোর ওপর জোর দিচ্ছি। জলবায়ু পরিবর্তন সহনশীল বা প্রতিকূল পরিবেশে চাষের উপযোগী ধানসহ বিভিন্ন ফসলের জাত উদ্ভাবন ও সম্প্রসারণে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে লবণ, জলমগ্নতা, খরা সহনশীল অনেক জাত উদ্ভাবিত হয়েছে ও তা সম্প্রসারণ করা হচ্ছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রিয়াজুল কবীর কাওছার। বন ও পরিবেশ বিষয়ক উপ-কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক খন্দকার বজলুল হকের সভাপতিত্বে ও বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের অধ্যাপক সাদেকা হালিম, বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান আফতাব আলী শেখ ও দৈনিক জনকণ্ঠের সিনিয়র সাংবাদিক কাওছার রহমান।


আরও খবর



অন্তত ৬ মাস জ্বালানির মূল্য না বাড়ানোর প্রস্তাব সিপিডির

প্রকাশিত:Friday ১০ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

প্রস্তাবিত বাজেটে নেওয়া কৌশল ও বাস্তবায়নের পদক্ষেপের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব আছে বলে মনে করে গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়লগ (সিপিডি)। মূল্যস্ফীতি কমানো, ডলার মার্কেটে ভারসাম্য আনা ও ভর্তুকি বিষয়ে বাজেটে অর্থমন্ত্রীর প্রস্তাবকে যথাযথ নয় জানিয়ে সংগঠনটি বলছে অর্থমন্ত্রী অসুখের লক্ষণ ধরতে পারলেও এর ওষুধ সম্পর্কে ধারণা নেই তার। এছাড়াও অন্তত ৬ মাস জ্বালানির মূল্য না বাড়ানোর প্রস্তাব করেছে সিপিডি।

বাজেট ঘোষণার পরদিন শুক্রবার (১০ জুন) রাজধানীর একটি হোটেলে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জাতীয় বাজেট পর্যালোচনা করেন সিপিডির গবেষকরা। এসময় তারা এই প্রস্তাব করেন।

সিপিডির গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, অর্থমন্ত্রী অসুখের লক্ষণ ধরতে পেরেছেন, কিন্তু যে ওষুধ দরকার- তা তার কাছে পর্যাপ্ত নেই বা ওষুধ জানা নেই অথবা যে মাত্রায় ওষুধের ডোজ দেওয়া দরাকার সে মাত্রায় প্রয়োগ হয়নি। যেসব চ্যালেঞ্জের কথা বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেছেন সেটির সাপেক্ষে যে ধরনের উদ্যোগ নেওয়া দরকার, আমরা অধিকাংশ ক্ষেত্রে সেটা অপ্রতুল বা অপর্যাপ্ত দেখতে পেয়েছি।

তার মতে, এখন এমন একটি সময় যাচ্ছে, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের চেয়ে মূল্যস্ফীতি জনিত অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। কেননা আমরা জানি এটি বাহির থেকে আগত। মূল্যস্ফীতি জনিত অভিঘাতগুলো আসছে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের ওপর, সে বিষয়ে দৃষ্টি দেওয়া উচিত ছিল।

খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে যেসব প্রস্তাব করা হয়েছিল তার মধ্যে ছিল করমুক্ত আয় সীমা বাড়ানো। দরিদ্র নয় কিন্তু সীমিত আয়ের মানুষদের কিছুটা আয়ের সাশ্রয় দেওয়ার প্রস্তাব করা হয়েছিল। দ্বিতীয় একটা দিক ছিল সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাড়ানো। দুর্ভাগ্যবশত বাড়ানোতো হয়নি, অনেকক্ষেত্রে বাজেটে বরাদ্দ কমানোর ঘোষণা রয়েছে। এটা মোটেই গ্রহণযোগ্য নয়। সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে ওষুধের ডোজের ক্ষেত্রে এখানে বড় সমস্যা রয়েছে।

এই গবেষক আরও বলেন, সাবসিডির (ভর্তুকি) ক্ষেত্রে যেসব ব্যবস্থাপনা করা হবে অর্থমন্ত্রী সেখানে ঠিক ডোজই নিয়েছেন, সেখানে সাবসিডি বাড়িয়েছেন। সঙ্গে এটাও বলছেন পুরো সাবসিডি দিয়েওে তিনি বিদ্যুৎ বা জ্বালানি খাতের মূল্য সমন্বয় না করে থাকতে পারবেন না। তার মানে হচ্ছে ভোক্তা পর্যায়ে জ্বালানি ও তেলের মূল্য বৃদ্ধির ঘোষণা আসতে পারে।

তিনি বলেন, আমরা জোরালোভাবে বলতে চাই, এখন যে পরিস্থিতি তাতে জ্বালানির মূল্য বাড়লে ভোক্তার প্রকৃত আয়কে আরও কমিয়ে দেওয়ার প্রকৃত সময় নয়। যদি জ্বালানি সাশ্রয় গুরুত্বপূর্ণ হয় তাহলে আরও কিছুদিন অপেক্ষা করে, বৈশ্বিক অর্থনৈতিক প্রেক্ষাপট দেখে, জ্বালানি তেলের উঠানামার বাজেট দেখে অন্তত ছয় মাস পরে এই ধরনের মূল্য সংক্রান্ত বিষয়টি যেন অর্থমন্ত্রী বিবেচনা করেন। তার আগে যেন বিষয়টি (দাম বৃদ্ধি) না হয়।

কোভিডের কারণে স্বাস্থ্য ও শিক্ষাখাতে ক্ষতি হলেও বাজেটে এর বরাদ্দ কমেছে। বলা হয়েছে, ডলারের মার্কেটে ভারসাম্য আনা হবে কিন্তু সেটা করতে গিয়ে যে ওষুধ সাজেস্ট করা হয়েছে এটা একটি ভুল ওষুধ। বাইরে পাচার হওয়া টাকা করের মাধ্যমে দেশে আনার সুযোগ দেওয়া হলে তা ইতিবাচক হবে না। এটা যারা সৎ করদাতা ও কর ব্যবস্থায় যারা বিশ্বাস করেন তাদের প্রতি স্রেফ চপেটাঘাত বলেও মন্তব্য করেন গোলাম মোয়াজ্জেম।

অনুষ্ঠানে সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন বলেন, বর্তমান চড়া মূল্যের বাজরে অর্থমন্ত্রী মূল্যস্ফীতি পাঁচ দশমিক ৬ শতাংশে রাখার যে প্রাক্কলন করেছেন তা বাস্তবতার সঙ্গে কোনো মিল নেই। সরকারি হিসাবেই এপ্রিল মাসে মূল্যস্ফীতির হার ছয় দশমিক ২৯ শতাংশ। আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেল খাদ্যপণ্যসহ সব ধরনের জিনিসের দাম বাড়ছে। কোভিড পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে শুরু করার পর থেকেই বিশ্ববাজারে পণ্যমূল্য বাড়ছে।

আগামী অর্থবছরে মূল্যস্ফীতি কীভাবে কমে যাবে সে বিষয় নিয়ে বাজেটে সুস্পষ্ট নির্দেশনা নেই উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাজেটে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ মূল্যস্ফীতির হিসাব কীভাবে এলো, এটা কীভাবে কমবে তা বলা হয়নি।

বাজেটে বিত্তশালীদের জয় হয়েছে জানিয়ে সিপিডি সিনিয়র রিসার্চ ফেলো তৌফিকুল ইসলাম খান বলেন, আসলে সম্পদশালী, বড় উদ্যোক্তা, টাকা পয়সা বাইরে পাচার করেছেন তাদের জয়টাই বেশি দেখা যাচ্ছে। সেই অর্থে গরীব মানুষের জন্য বর্ধিত হারে সুযোগ সুবিধা আসেনি। সবচেয়ে বড় উপেক্ষিত জনগোষ্ঠী হলো মধ্যবিত্ত। কর ছাড়ের বিষয়টা সেখানে আসেনি। তিনি কোভিড সুরক্ষাসামগ্রী ও প্রযুক্তি পণ্যের ওপর বাড়তি কর প্রয়োগের সমালোচনা করেন।

তৌফিকুল ইসলাম খান বলেন, সরকার ধরে নিয়েছে কোভিড চলে গেছে। কোভিড চিকিৎসা সামগ্রীর ওপর তাড়াহুড়ো করে কর আরোপের দরকার ছিল না। আরেকটা ওয়েভ আসলে সেখান থেকে ব্যবসায়ীরা সুযোগ নেবে।


আরও খবর



বাবা অসুস্থ, ইংল্যান্ড থেকে ফিরে গেলেন পাকিস্তানি পেসার

প্রকাশিত:Tuesday ০৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

ইংল্যান্ডের ভাইটালিটি টি-টোয়েন্টি ব্লাস্টের মাঝপথেই দেশে ফিরে গেলেন পাকিস্তানের তরুণ ডানহাতি পেসার নাসিম শাহ। বাবার অসুস্থতার কারণে জরুরি ভিত্তিতে দেশে ফিরতে হয়েছে ১৯ বছর বয়সী এ পেসার।

কাউন্টি চ্যাম্পিয়নশিপে খেলার জন্য গ্লুস্টারশায়ারের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়েছিলেন নাসিম। কিন্তু কাঁধের ইনজুরিতে সেটি পুরো খেলতে পারেননি তিনি। এবার পারিবারিক কারণে ভাইটিলিটি ব্লাস্টের মাঝেও ছেঁদ পড়লো নাসিমের।

দেশে ফেরার আগে ভাইটালিটি ব্লাস্টে তিনটি ম্যাচ খেলেছেন নাসিম। যেখানে ১১ ওভার বোলিং করে ১০০ রান খরচায় নিয়েছেন পাঁচটি উইকেট। গ্লুস্টারশায়ার কর্তৃপক্ষের আশা পারিবারিক সংকট কাটিয়ে শিগগির দলের সঙ্গে যোগ দেবেন নাসিম।

আপাতত ভাইটালিটি ব্লাস্টের দক্ষিণ গ্রুপে মাঝামাঝি অবস্থায় রয়েছে গ্লুস্টারশায়ার। পাঁচ ম্যাচ খেলে দুইটি করে জয়-পরাজয় পেয়েছে তারা, পরিত্যক্ত হয়েছে এক ম্যাচ। আজ (মঙ্গলবার) কার্ডিফে গ্ল্যামারগনের মুখোমুখি হবে তারা।


আরও খবর