Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

রূপগঞ্জে মহাসড়কে উচ্ছেদ অভিযানে স্বজন প্রীতির অভিযোগ

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image

মোঃকাওছার মিঠু রূপগঞ্জ নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি:-

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রূপগঞ্জে ভুলতা-গাউছিয়া এলাকায় কাঁচাবাজার- ফুটপাত উচ্ছেদে এলাকাবাসীর মনে স্বস্তি  ফিরলেও কিছু স্থাপনা উচ্ছেদ না করায় জনমনে অভিযোগ উঠেছে স্বজনপ্রীতির।৩ ফেব্রুয়ারী শনিবার মহাসড়কের যানজট নিরসন ও এলাকার শৃঙ্খলা রক্ষায় উপজেলা প্রশাসনের এই উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছেন। এসময় সহস্রাধিক দোকানপাট উচ্ছেদ করেন প্রশাসন। অভিযান শেষে  সড়ক ও জনপথের উপর কিছু কিছু স্থাপনা দৃশ্যমান থাকায় এলাকাবাসীর মধ্যে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠে।


অভিযানের পর ফুটপাত নিয়ে মার্কেট ব্যবসায়ী ও সাধারন মানুষের মধ্যে আলোচনা ও সমালোচনা।  ফুটপাত ও মহাসড়কের কাঁচাবাজার উচ্ছেদের পর অনেকে বলেন এলাকার সৌন্দর্য ফিরে আসছে কিন্তু এ সৌন্দর্য কত দিন থাকবে এটাও দেখার ব্যাপার। চাঁদাবাজরা অনেক প্রভাবশালী, তারা আবারো প্রশাসনকে ম্যানেজ করে মহাসড়কে ফুটপাত বসাবে। মহাসড়েকে এবার আর ফুটপাত বসাতে পারবে না এমন মন্তব্য অনেকের।2এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় এবার সর্বমহল সাথে নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উদ্যোগে নিয়ে অভিযান চালিয়েছে।


জানা যায় উপজেলা পরিষদ, ভুলতা গাউছিয়া এলাকার ব্যবসায়ী মহল ও ফুটপাতের হকার নেতা ঐ এলাকার  জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে এক যৌথ আলোচনা করেন উপজেলা প্রশাসন।এর পরই মহাসড়কের ফুটপাত উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেছেন।উচ্ছেদের পর মহাসড়ক ও ফুটপাতের দৃশ্য দেখে পথচারী ও এলাকাবাসী সন্তোষ প্রকাশ করে এবং সব সময়ই মহাসড়কের এরকম দৃশ্য দেখতে চায়।আওয়ামী লীগ নেতা সাত্তার চৌধুরী বলেন ফুটপাত ভেঙেছে মহাসড়ক ক্লিয়ার করছে সুন্দর হইছে এটা সঠিক কাজ করছে কিন্তু যে সকল স্থাপনা ভাঙ্গা হয়নি এটা কি তাহলে বিশেষ কোন গোষ্ঠীর প্রভাবের কারণে।


আমার তো মনে হয় এটা স্বজনপ্রীতি করা হয়েছে অনতিবিলম্বে এ সকল স্থাপনা গুলো ভেঙ্গে দেয়া হোক।এলাকার সচেতন মহল মনে করেন ভুলতা ফ্লাইওভার এলাকায় সৌন্দর্য স্থায়ী রাখতে ফ্লাইওভারের নিচের ডিভাইডারগুলোর রেলিং দিয়ে আটকাতে হবে।ডিভাইডারে রেলিং না থাকায় ফ্লাইওভারের গোড়ায় যত্রতত্র মল-মূত্র ও প্রসাব করে আসছে পথচারীসহ ফুটপাত ব্যবসায়ীরা। ডিভাইডারে মধ্যে জমানো মল-মুত্রের দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে এলাকার পরিবেশ দূষণ হচ্ছে। এতে করে পথচারীরা অতিষ্ঠ। এই এলাকায় ডিভাইডার ও গোলাকান্দাইল গোল চত্বরে রেলিং হলে ফুটপাতের ভিতর কোন হকার বসতে পারবে না এতে করে এলাকার পরিবেশ ঠিক থাকবে। 

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




দ্বাদশ জাতীয় সংসদ: প্রথম দিনের অধিবেশনে যাননি সাকিব-মাশরাফী

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৯জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:সাকিব আল হাসান ও মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনের প্রথম দিনে যোগ দেননি দুই ক্রিকটার এমপি। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) তারা প্রথম অধিবেশনের প্রথম দিনে অংশ না নিয়ে সিলেটে বিপিএল খেলেছেন।

মাশরাফী দ্বিতীয়বার সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হলেও সাকিবের এমপি হিসেবে এটাই ছিল প্রথম। মাশরাফী আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে দ্বিতীয়বার নড়াইল-২ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে দ্বাদশ জাতীয় সংসদের পাঁচজন হুইপের একজন হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।

আর সাকিব আল হাসান আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে মাগুরা-১ থেকে প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সিলেট স্টেডিয়ামে দিনের প্রথম খেলায় অংশ নেয় সাকিব আল হাসানের রংপুর রাইডার্স। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বিপক্ষে নুরুল হাসানের নেতৃত্বে ম্যাচটি তারা ৮ রানে জিতেছে। দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে মা ফরচুন বরিশালের বিপক্ষে মাশরাফী খেলছেন সিলেট স্ট্রাইকার্সের হয়ে।


আরও খবর



মধুপুর রানী ভবানীয়ান ৯০ব্যাসের দুইদিন ব্যাপি মিলন মেলা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৯২জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা বিশেষ প্রতিনিধি মধুপুর টাঙ্গাইল:টাঙ্গাইলের মধুপুর রানী ভবানী উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৯৯০ সালে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের দীর্ঘ ৩৪ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে এক মিলন মেলার অনুষ্ঠিত হয়।শুক্র ও শনিবার যথাক্রমে ২৫ ও ২৬ জানুয়ারী এই দুইদিন ব্যাপি অনুষ্ঠিত মিলন মেলার ১ম দিনের আয়োজনে ছিলেন, সুদূর আমেরিকা প্রবাসী সহপাঠী স্বপ্না ইয়াসমিন।বহুদিন পর সহপাঠীদের কাছে পেয়ে আনন্দে উদ্ভাসিত হয়ে উঠে পুরো বন্ধু মহল।

দুপুরের পর থেকে জমিয়ে আড্ডা,একে অপরের কোশল বিনিময় এবং সাংসারিক জীবন যাপন সম্পর্কে আলোচনা। সর্বপরি আমেরিকা প্রবাসীর আয়োজনে দুপুরের খাবার খেয়ে ১ম দিনের মিলন মেলার পরিসমাপ্তি ঘটে।মিলন মেলার ২য় দিনে মধুপুর কলেজ মাঠে সহপাঠী মাহবুবের উদ্যোগে সকলের সকলের ইচ্ছে পুরণে ধনবাড়ি উপজেলার বিখ্যাত মেন্দার আয়োজন করা হয়। মাহবুবের নিজ বাসা থেকে তৈরি করা মেন্দা খেয়ে প্রশংসায় পঞ্চমুখ পুরো সহপাঠীগন।

সহপাঠী রতন হায়দার বলেন, দীর্ঘ ৩৪ বছরপর সবাইকে একসঙ্গে পেয়ে খুবই ভালো লাগছে বিশেষ করে সুদুর প্রবাসী স্বপ্নাকে আমাদের মাঝে পেয়ে আমরা খুবই আনন্দিত।প্রবাসী স্বপ্না বলেন, আমি প্রবাসে থেকেও সহপাঠীদের কথা খুব মিস করি। এরপর প্রতি বছর এসে সবার সাথে একসঙ্গে সারাদিন আড্ডা দিবো, সারাদিন ব্যাপি অনুষ্ঠানের আয়োজন করবো।

তিনি আরও জানান, আমি কখনও ভাবিনি আমার সহপাঠীরা এখন আমাকে স্কুলের মতোই ভালবাসে। এমন আয়োজন করার জন্য তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানান।সকল সহপাঠীদের ইচ্ছে অনুযায়ী আগামীতে মিলন মেলায় রানী ভবানীয়ান ৯০ ব্যাসের সবাইকে উপস্থিত করে একটি জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। সে অনুষ্ঠানের মুল আকর্ষন থাকবে স্বস্ত্রীক উপস্থিতি।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সরকারি টাকা আত্মসাৎ করেছেন দলনেত্রী, ৪৬ নারী সদস্যের বিরুদ্ধে নোটিশ

প্রকাশিত:বুধবার ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৫জন দেখেছেন

Image
জহুরুল ইসলাম খোকন সৈয়দপুর (নীলফামারী)প্রতিনিধি:সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে গ্রুপ ঋণ নিয়ে সব টাকা আত্মসাৎ করেছেন দলনেত্রী। অথচ সেই ঋণ পরিশোধের তাগিদে নোটিশ দেয়া হয়েছে ৪৬ জন নারী সদস্যদের । সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা কর্মচারীর যোগসাজশে এই ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। 

অভিযোগ রয়েছে,দরিদ্র অসহায় নারীদের জিম্মি করে মোটা অংকের টাকা আত্মসাত করতেই এই অভিনব কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে। কর্মকর্তা ও দলনেত্রী পরস্পরকে দোষারোপ করে দায়ী করলেও মূলত: হয়রানির শিকার হয়েছেন ওই নারীরা। আইনী ঘোরপ্যাঁচ না বুঝে পরিবার সহ জেল জরিমানার আতঙ্কে দিনাতিপাত করছেন তারা।

জানা যায়, নীলফামারীর সৈয়দপুরে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয় থেকে ২০২১ সালে উপজেলার কাশিরাম বেলপুকুর ইউনিয়নের সাতপাই কাগজীপাড়ার নীলপল্লী মহিলা উন্নয়ন সমিতির সদস্যদের নামে ৫ লাখ টাকা ঋণ দেয়া হয়েছে। এই ঋণের টাকা ৪৬ জন দরিদ্র নারীর নামে পৃথক পৃথক ভাবে চেক প্রদানের মাধ্যমে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে বলা হলেও চেকগুলো সব দলনেত্রী তথা ওই নীলপল্লীর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক (মালিক) উপজেলার বিশিষ্ট নারী নেত্রী হিসেবে পরিচিত কামরুন্নাহার ইরাকেই এককভাবে দিয়েছেন মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা। 

সেই টাকা উত্তোলন করে ব্যক্তিগতভাবে ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম চালাচ্ছেন ইরা। কিন্তু যাদের নামে ঋণ নেয়া হয়েছে সেই নারীরা কেউই জানেন না যে তাদের নামে ১৫ হাজার করে টাকা ঋণ নেয়া হয়েছে। দীর্ঘ দুই বছর পর মহিলা বিষয়ক অফিস থেকে ঋণ পরিশোধ না হওয়ায় আইনী পদক্ষেপ নেয়ার নোটিশ দেয়া হলে তারা জানতে পারেন বিষয়টি। 

এলাকার মিজানুর রহমানের স্ত্রী মুক্তা বানু বলেন, আমরা অনেক নারী কাজ শিখে নীলপল্লী মহিলা উন্নয়ন সমিতির অধীনে কারচুপি, নকশিকাঁথা, পাটের তৈরী বিভিন্ন শৌখিন পন্য, পোশাকে হাতের সেলাই কাজ করে উপার্জন করছি। পাশাপাশি হাঁস মুরগীও ছাগল পালন করি। কিন্তু কোন দিনও সরকারি সংস্থা বা এনজিও থেকে বড় অংকের কোন টাকা নেইনি বা পায়নি। 

প্রায় দুই বছর আগে নারী নেত্রী ইরা আমাদের অনেককে ডেকে সরকারি অফিস থেকে উন্নত সেলাই প্রশিক্ষণ ও  সেলাই মেশিন দেয়ার কথা বলে কিছু সাদা কাগজে স্বাক্ষর এবং ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি ও ছবি নেন তিনি । কোন চেকে কখনই স্বাক্ষর বা টিপ সহি দেইনি।  নীলপল্লী মহিলা উন্নয়ন সমিতির কর্মকর্তা সালাম ও উপজেলা মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের সুপারভাইজার হামিদুর রহমান একাজে ইরাকে সহযোগীতা করেন। 

কিন্তু আজ পর্যন্ত প্রশিক্ষণ বা সেলাই মেশিন দেয়া হয় নি। অথচ বলা হচ্ছে আমাদের ৪৬ নারীর প্রতি জনকে ১৫ হাজার টাকা করে ঋণ দিয়েছে মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা। যা দুই বছর মেয়াদ শেষেও পরিশোধ না হওয়ায় রিন খেলাপি  হিসেবে আইন আদালত করা হবে বলে নোটিশ দেয়া হয়েছে। পর পর দুই বার নোটিশ পেয়ে আমরা হতবাক।

একই এলাকার হাছেনুরের স্ত্রী বৃষ্টি বলেন, প্রথমবার নোটিশ পেয়ে আমরা ইরা কে ধরলে তিনি বলেন, তোমাদের কিছুই হবেনা। আমি দেখতেছি। কিন্তু দ্বিতীয় বার নোটিশ এলে তিনি বলেন, তোমাদের নামে আমি টাকা তুলে দৈনিক ভিত্তিক ঋণ কার্যক্রম চালাচ্ছি। যা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সবই জানেন।

নুর আলমের স্ত্রী রুনা লায়লা বলেন, আমিসহ ৫ জন মহিলা সদস্যকে দিয়ে সব চেকে সাইন নিয়ে সেই চেক সবগুলো ইরা নিয়েছেন। অফিসের লোকজনের সহায়তায় সেই টাকা তুলে আমাদের কয়েকজনকে কিছু কিছু করে ঋণ দিয়েছেন। যা অনেক আগেই আমরা সুদ সহ পরিশোধ করেছি। কিন্তু তারপরও কেন সবার নামে ঋণ খেলাপীর নোটিশ এসেছে বুঝতে পারছিনা। 

মিন্টুর স্ত্রী মিনা বলেন, আমি সমিতির সদস্য নই। কখনো কোথাও স্বাক্ষরও দেইনি। শুধু ঈদ উপলক্ষে কামরুননাহার ইরা আমাকে  সেমাই চিনি দেয়ার কথা বলে ভোটার আইডি কার্ড এর ফটোকপি নিয়েছেন। সেই আইডি দিয়েও তিনি মহিলা বিষয়ক অফিস থেকে ঋণ তুলেছেন। আর এখন নোটিশ এসেছে আমার নামে। এটা কিভাবে সম্ভব? ওই অফিসের লোকজন ও ইরা যোগসাজশ করেই এমন কান্ড ঘটিয়েছেন বলে জানান তিনি । এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। 

এব্যাপারে গতকাল নারী নেত্রী কামরুন্নাহার ইরার বাড়িতে গেলে নোটিশ প্রাপ্ত নারীরাও উপস্থিত হন সেখানে । তাদের সামনেই তিনি সদস্যদের নামের সব টাকা নেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, ওই টাকাতো অনুদান হিসেবে নিয়েছি। তাই পরিশোধ করিনি। সদস্যদের না জানিয়ে চেকে জাল স্বাক্ষর দিয়ে একাই সব টাকা তুললেন কেন এবং কেনই বা তাদের দিলেন না জানতে চাইলে তিনি কোন কথাই বলবেন না জানান।

তিনি বলেন, এর আগেও তো ঋণ নিয়ে পরিশোধ করেছি। কিন্তু করোনাকালে সমস্যা হওয়ায় অনুদান চেয়ে আবেদন করেছিলাম। ভেবেছিলাম তাই দেয়া হয়েছে। টাকার জন্য সদস্যদের অহেতুক যেন হয়রানি করা না হয়,সেজন্য ইতোমধ্যে ৪৫ হাজার টাকা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে দিয়েছি। বিষয়টি জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অবগত আছেন বলে জানান তিনি। 

স্হানীয়রা বলছেন, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সহ ওই অফিসের কর্মচারী হামিদুলের যোগসাজশে ৪৫ নারীর স্বাক্ষর জাল করে একাই মোটা অংকের টাকা আত্মসাত করেছে নারী নেত্রী কামরুন্নাহার ইরা। আর টাকা পরিশোধের নোটিশ দেয়া হচ্ছে অসহায় নারীদের। বিষয় টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্হা নেয়ার জোর দাবী সকলের।

তবে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা নুরুনন্নাহার শাহাজাদী বলেন, আমরা নীতিমালা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়েছি। গ্রুপ লোন নেয়ার ক্ষেত্রে সদস্যদের নামে চেক ইস্যু করে তা দলনেত্রীকে এককভাবে দেয়ার নিয়ম আছে। টাকা নিয়েছেন ইরা অথচ নোটিশ দিয়েছেন ৪৬ নারীকে কেন? প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, তাদের নামে আবেদন, রেজিষ্টার ও চেক ইস্যুর ডকুমেন্টস আছে। তাই তাদের টাকা পরিশোধের নোটিশ দেয়া হয় ।

বিষয় টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইসমাইল বলেন, অসহায় মানুষের স্বাক্ষর জাল করে সরকারি টাকা আত্মসাত কারি যেই হোক না কেন ছাড় দেয়া হবে না। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




গোদাগাড়ী পৌরসভা ও মোহনপুর ইউপির দুইটি ওয়ার্ডে উপ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩৩জন দেখেছেন

Image

মুক্তার হোসেন,গোদাগাড়ী(রাজশাহী)প্রতিনিধিঃরাজশাহীর গোদাগাড়ী পৌরসভা ও মোহনপুর ইউপির দুইটি ওয়ার্ডে উপ নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্দ। গোদাগাড়ী পৌরসভার ৪ নংওয়ার্ড কাউন্সিলর শূন্য পদে ও উপজেলার মোহনপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে সাধারণ সদস্য পদে উপ-নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রতীক বরাদ্দ।শুক্রবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১ টায় গোদাগাড়ী উপজেলা নির্বাচন অফিস কক্ষে প্রতীক বরাদ্দ দেন নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার জেবুন্নেছা শাম্মী প্রার্থীদের প্রতীক তুলে দেন ।গোদাগাড়ী পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডে ৩ জন প্রার্থী তারা হলেন,মুজিবুর রহমান(উট পাখী), মোয়াজ্জেম হোসেন(পানির বোতল), শহিদুল ইসলাম মিলন(ডালিম প্রতীক) পেয়েছেন। এদিকে উপজেলার ২নংমোহনপুর ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডে ৪ জন প্রার্থী তারা হলেন, আতাউর রহমান(ফুটবল), আব্দুল হাকিম(তালা), আব্দুস সালাম( মোরগ সারওয়ার জাহান পি›ুট( টিউবওয়েল) প্রতীক পেয়েছেন। আগামী (৯মার্চ) শনিবার উপ- নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।এই দুই ওয়ার্ডের মধ্যে গোদাগাড়ী মোহনপুর ইউনিয়নের ৪ নাম্বার ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৭৪ জন এবং গোদাগাড়ী পৌরসভার ৪ নাম্বার ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ৩ হাজার ৩০৪ জন। উল্লেখ্য, দুই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ইউপি সদস্য মারা যাওয়ায় এই ওযার্ড দুইটি শূন্য ঘোষনা করা হয়।


আরও খবর



সংরক্ষিত নারী আসন: ৫০ এমপির গেজেট প্রকাশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৩১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:দ্বাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত নারী আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ৫০ এমপির গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) নির্বাচন কমিশন সচিবালয় এমপিদের নাম-ঠিকানাসহ গেজেটটি প্রকাশ করেছে।

গেজেটে বলা হয়, জাতীয় সংসদ (সংরক্ষিত মহিলা আসন) নির্বাচন আইন, ২০০৪ এর ধারা ৪ অনুসারে রাজনৈতিক দল ও জোটের অনুকূলে বণ্টনকৃত সংরক্ষিত মহিলা আসনসমূহের ভিত্তিতে ধারা ২৬ (২) অনুসারে নির্বাচন কমিশন এতদ্বারা জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত মহিলা আসনে ‘সংসদ সদস্য’ হিসেবে নির্বাচিত প্রার্থীদের নাম, পিতা/স্বামীর নাম এবং ঠিকানা প্রকাশ করিতেছে।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন কমিশন জানায়, চলমান সংসদের ৫০ সংরক্ষিত আসনে কেউ প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করায় আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি মনোনীত সব প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে, ১৯ ফেব্রুয়ারি সংরক্ষিত ৫০টি নারী আসনে জমা দেয়া ৫০ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

গত ৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত স্বতন্ত্র ৬২ সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগকে সমর্থন দিলে সংরক্ষিত ৫০ আসনের মধ্যে ৪৮টি পায় আওয়ামী লীগ। বাকি দুটি আসন পায় জাতীয় পার্টি।


আরও খবর