Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা
পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করবে

রুপপুরের পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র দেশের চাহিদা মিটিয়ে অর্থনৈতিক লাভ এনে দেবে

প্রকাশিত:Friday ২০ May ২০22 | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১১৬জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

রূপপুরে চলছে দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের কাজ। ২০২৩ থেকে এখানকার প্রথম ইউনিট উৎপাদনে যেতে পারে, সেই লক্ষ্যে চলছে কার্যক্রম। সংশ্লিষ্টদের আশা এটি একদিকে দেশের বিদ্যুৎ চাহিদা পূরণ করবে অন্যদিকে দ্বিগুণের বেশি অভ্যন্তরীণ রিটার্ন দেবে সরকারকে।২৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের ক্ষমতাসম্পন্ন এ প্রকল্পে ব্যয় হচ্ছে ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বা এক লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকা।

প্রকল্পটিতে ৯০ শতাংশ রাশিয়ার ঋণ, বাকি ১০ শতাংশ ব্যয় করবে বাংলাদেশ সরকার।

উৎপাদনে গেলে রাশিয়াকে প্রতি বছর ঋণ শোধ করতে হবে ৫৬৫ মিলিয়ন বা সাড়ে ৫৬ কোটি ডলার। এত বড় অংক দেখে কেউ কেউ এটিকে সাদা হাতির প্রকল্প বলছেন। কিন্তু এমন অভিযোগ নাকচ করে সরকারের সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এটা শ্বেত হস্তীর প্রকল্প নয়, বরং উন্নয়নের মাইলফলক।



বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা বলছেন, প্রকল্পের দুটি রিঅ্যাক্টর চালুর পর প্রতি বছর কিস্তি পরিশোধ করতে হবে (৫৬ কোটি ডলার)। প্রকল্পের রিটার্ন থেকে কিস্তির অর্থ উঠে এলে ভর্তুকির দরকার পড়বে না।

পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প প্রসঙ্গে পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলমম বলেন, প্রতি বছর অভ্যন্তরীণভাবে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে রিটার্ন আসবে সাড়ে ৯ শতাংশ। প্রকল্প ঋণের সুদ ১ থেকে ২ শতাংশের বেশি হবে না। তার মানে বাংলাদেশ এই প্রকল্পের মাধ্যমে অনেক লাভবান হবে।

তাছাড়া পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন বিদ্যুতের জন্য রূপপুরের কোনো বিকল্প নেই।


প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের তথ্য মতে, প্রকল্পের দুটি রিঅ্যাক্টর থেকে বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে দুই হাজার ৪০০ মেগাওয়াট, যার সমান ২৪ লাখ কিলোওয়াট বা ইউনিট।

এক ইউনিট বিদ্যুৎ যদি পাঁচ টাকায় বিক্রি করা হয়, তাহলে এক ঘণ্টায় আয় হবে এক কোটি ২০ লাখ টাকা। একদিনে ২৪ ঘণ্টা হিসেবে দৈনিক আয় আসবে ২৮ কোটি ৮০ লাখ। বছরে ১০ হাজার ৫১২ কোটি আয় হবে। যদি ডলার হিসাব করা হয়, তাহলে বার্ষিক আয় দাঁড়াবে এক হাজার ২৩৬ মিলিয়ন ডলার, যেখানে ঋণ শোধ করতে হবে ৫৬৫ মিলিয়ন ডলার।


অন্যদিকে প্রতি মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে জ্বালানি ব্যয় হবে সাড়ে ৪ থেকে ১১ দশমিক ২ মার্কিন ডলার এবং মেইনটেন্যান্স অ্যান্ড অপারেশন ব্যয় হবে প্রতি মেগাওয়াটে ৮ থেকে ১৪ ডলার। এই দুই ধরনের ব্যয় মিলিয়ে প্রতি মেগাওয়াটে গড় খরচ হবে ১৬ থেকে ১৮ ডলার।


দুই হাজার ৪০০ মেগাওয়াট উৎপাদনে না গিয়ে যদি ৯০ শতাংশও উৎপাদন হয়, তাহলে এর ব্যয় কমে দাঁড়াবে ৩৪০ মিলিয়ন ডলারে। পাশাপাশি আয়ও কমে দাঁড়াবে এক হাজার ১১২ মিলিয়ন ডলারে। এ হিসাবে বছরে প্রকল্প থেকে মোট আয় হবে এক হাজার ১১২ ডলার এবং ব্যয় হবে ৩৪০ মিলিয়ন ডলার। আয় থেকে ব্যয় বাদ দিয়ে বছরে ৭৭২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় থাকবে প্রকল্প থেকে।


কর্মকর্তারা বলছেন, প্রতি বছর কমপক্ষে ৭৭২ মিলিয়ন মার্কিন ডলার লাভ হলে



আরও খবর



ডান-বামের ব্যবহার সম্পর্কে নবিজীর (স.) নির্দেশনা

প্রকাশিত:Thursday ১৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৩৫জন দেখেছেন
Image

অধিকাংশ কাজ ডান থেকে শুরু করা বরকত ও কল্যাণের। আবার এমন কিছু কাজও রয়েছে যেগুলো বাম থেকে করায় রয়েছে কল্যাণ। কারণ নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ডান ও বাম থেকে কাজ করার ব্যাপারে দিয়েছেন সুস্পষ্ট দিক-নির্দেশনা। হাদিসে এসেছে-

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জুতা পরা, চিরুনি করা, ওজু করা এবং প্রত্যেক সম্মানজনক কাজ ডান থেকে করতে পছন্দ করতেন’ (বুখারি ও মুসলিম)

হাদিসে সুস্পষ্টভাবে ডান হাতে পান করার নির্দেশের পাশাপাশি বাম হাতে পান করতে নিষেধ করা হয়েছে।

১. হজরত ইবনে ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘যখন তোমাদের কেউ খায় সে যেন ডান হাতে খায় ও পান কর সে যেন ডান হাতে পান করে। কারণ শয়তান তার বাম‎‎ হাতে খায় ও পান করে।’ (মুসলিম)

২. হজরত জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‎আলাইহি‎‎ ওয়া সাল্লাম‎ বলেছেন, ‘তোমরা বাম‎‎ হাতে খেয়ো না, কারণ শয়তান বাম‎‎ হাতে খায়।’ (মুসলিম)

৩. হজরত হাফসা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেন, নবি সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি‎‎ ওয়াসাল্লাম খানা, পান করা ও পরিধানের জন্য তার ডান হাত ব্যবহার করতেন, এ ছাড়া অন্যান্য কাজের জন্য তিনি তার বাম‎‎ হাত ব্যবহার করতেন।’ (আবু দাউদ)

৪. হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা আরো বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু ‎আলাইহি‎‎ ওয়াসাল্লাম‎ বলেছেন, ‘যে তার বাম‎‎ হাতে খায়, শয়তান তার সঙ্গে খায়। আর যে তার বাম‎‎ হাতে পান করে, শয়তান তার সঙ্গে পান করে।’ (মুসনাদে আহমাদ)

নবিজীর দিক-নির্দেশনা অনুযায়ী মানুষের দুই ধরনের কাজ করেন-

এমন কাজ যা ডান-বাম উভয় দিক থেকে করা যায়। তবে যে কাজগুলো সম্মানের সেগুলো ডান থেকে করা উত্তম। যেমন-

১. অজু ডান থেকে শুরু করা

২. গোসলের সময় ডান পাশ আগে ধোয়া।

৩. মসজিদে প্রবেশে ডান পা আগে দেয়া।

৪. জুতা পরার সময় ডান থেকে শুরু করা।

৫. নিজ ঘরে প্রবেশেও ডান থেকে শুরু করা উত্তম।

৬. খাবার খাওয়া ও পরিবেশন ডান হাত ও ডান থেকে শুরু করা।

৭. টয়লেট থেকে বের হতে ডান পা আগে বের করা।

৮. মুসাফাহা ও মুআনাকা তথা কোলাকুলি ডান হাত ও ডান থেকে শুরু করা।

৯. কোনো কিছু আদান প্রদানে ডান হাত ব্যবহার করা উত্তম।

পক্ষান্তরে এমন অনেক কাজ আছে যেগুলো বাম থেকে শুরু করতে হয়; তাহলো-

১. কাপড়, জুতা খুলতে বাম থেকে শুরু করতে হয়।

২. মসজিদ থেকে বের হতে বাম পা আগে বের করতে হয়।

৩. টয়লেটে প্রবেশের সময় বাম দিয়ে প্রবেশ করতে হয়।

৪. বাম হাতে ঢিলা-কুলুখ, টিসু পেপার ব্যবহার করতে হয়।ৎ

৫. অজুতে উভয় পা ও নাক পরিস্কারে বাম হাত ব্যবহার করা উত্তম।

৬. থুথু বাম দিকে ফেলা।

৭. লজ্জাস্থান স্পর্শের প্রয়োজন হলে তাও বাম হাতে করা।

মনে রাখতে হবে

সম্মান ও কল্যাণের কাজ ডান থেকে করা এবং অপেক্ষাকৃত নিচু ও নেতিবাচক কাজগুলো বাম থেকে করাই উত্তম।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে হাদিসের নির্দেশনা অনুযায়ী দৈনন্দিন জীবনে কাজগুলো সম্পাদনে ডান ও বাম মেনে চলার তাওফিক দান করুন। আমিন।


আরও খবর



মারিউপোলে বিধ্বস্ত ভবন থেকে শতাধিক মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

ইউক্রেনের মারিউপোল শহরের বিধ্বস্ত ভবন থেকে শতাধিক মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ওই শহরের মেয়রের উপদেষ্টা জানিয়েছেন, কর্তৃপক্ষ একটি আবাসিক ভবনের ধ্বংসস্তূপ থেকে শতাধিক মরদেহ উদ্ধার করেছে। খবর বিবিসির।

মারিউপোলের মেয়র পেট্রো আন্দ্রিউশচেনকো টেলিগ্রামে এক পোস্টে বলেন, ওই আবাসিক ভবনে বিমান হামলার পর মৃতদেহ পুনরুদ্ধার ও সৎকারের কোনো পরিকল্পনা করেনি রুশ বাহিনী।

ওই শহরে রাশিয়ার ক্রমাগত হামলায় বহু ভবন বিধ্বস্ত হয়েছে। লাখ লাখ মানুষ বাড়ি-ঘর ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা চালায় রাশিয়া। তারপর থেকে সংঘাত এখনও চলছে। এর মধ্যেই বেশ কিছু অঞ্চল দখল করে নিয়েছে রুশ বাহিনী।

এদিকে ইউক্রেন আগ্রাসনের পর বিশ্বে খাদ্য ও জ্বালানি সংকটের কারণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন রাশিয়ার বিরুদ্ধে জি-৭ নেতাদের এক সঙ্গে থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

জার্মানির ব্যাভারিয়ান আল্পসে বৈঠকের শুরুতে, সাতটি ধনী দেশের মধ্যে চারটি দেশ রাশিয়ার সোনা আমদানি নিষিদ্ধ করার জন্য মস্কোর ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্তের কথা জানায়।

রোববার ব্রিটিশ সরকার জানায় যে, ব্রিটেন, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান এবং কানাডা রাশিয়ার স্বর্ণ আমদানিতে নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে একমত পোষণ করেছে।

জি-৭ এর বাকি তিন দেশ জার্মানি, ফ্রান্স ও ইতালি রাশিয়ার স্বর্ণ আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা আরোপের দলে যোগ দেবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

গতবছর রাশিয়া দেড় হাজার কোটি ডলারের বেশি আয় করেছে স্বর্ণ রপ্তানি করে। জি-৭ নেতারা চীনের ক্রমবর্ধমান প্রভাব মোকাবিলা করতে এবং খাদ্য ও জ্বালানির দাম বৃদ্ধির প্রভাবকে কমিয়ে আনতে উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য ছয়শ বিলিয়ন ডলার ব্যক্তিগত ও সরকারি তহবিল সংগ্রহের প্রতিশ্রুতিতে সম্মত হয়েছেন।


আরও খবর



‘হারানো যৌবন’ ফিরে পেতে শ্রমিককে হত্যা

প্রকাশিত:Thursday ০২ June 2০২2 | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৬১জন দেখেছেন
Image

যশোরের বাঘারপাড়ায় কৃষিশ্রমিক নকিম উদ্দিন হত্যার ঘটনায় দুজনকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। দুদিন অভিযান চালিয়ে চুয়াডাঙ্গা ও মানিকগঞ্জ থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতাররা হলেন চুয়াডাঙ্গা সদর থানার মোহাম্মদ জুমা গ্রামের হানিফ মালিতার ছেলে লিটন মালিতা (৪০) ও একই জেলার দামুড়হুদা উপজেলার মোজাম্মেল হকের ছেলে আব্দুল বারেক (৬২)।

পুলিশ জানিয়েছে, যৌনরোগে ভুগছিলেন লিটন মালিতা। হারানো যৌবন ফিরে পেতে কবিরাজ আব্দুল বারেকের কথামতো তিনি কৃষিশ্রমিক নকিম উদ্দিনকে হত্যা করেন।

বৃহস্পতিবার (২ জুন) সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম।

পুলিশ জানায়, লিটন মালিতা দীর্ঘদিন ধরে যৌনরোগে ভুগছিলেন। পরে স্থানীয় কবিরাজ আব্দুল বারেকের শরণাপন্ন হন লিটন। কবিরাজ তাকে জানান, তিনি যে কোনো একটি পুরুষাঙ্গ, অণ্ডকোষ ও একটি চোখ উপড়ে নিয়ে এলে হারানো যৌবন ফিরে পাবেন। তখন থেকে লিটন বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন সুযোগ খুঁজতে থাকেন। এরই ধারাবাহিকতায় ধান কাটার শ্রমিক সেজে যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার দরাজহাট ইউনিয়নের পাইকপাড়া গ্রামে কাজ নেন।

গত ২৬ মে ধান কাটার জন্য নকিম উদ্দিনসহ তিনজনকে বাড়িতে নিয়ে যান পাইকপাড়া গ্রামের মৃত ইবাদ মোল্যার ছেলে বেনজির আহম্মেদ (৪২)। এর মধ্যে রোববার (২৯ মে) বিকেলে পারিশ্রমিকের টাকা বুঝে নিয়ে একজন চলে যান। লিটন মালিতা ও নকিম উদ্দিন রাতে খাবার খেয়ে এক কক্ষে ঘুমিয়ে ছিলেন। বাড়ির মালিক বেনজির আহম্মেদ পরদিন ভোর ৬টায় তাদের ডাকতে গেলে বাইরে থেকে দরজা খোলা দেখতে পান। দরজা খোলা দেখে তিনি ভেতরে গিয়ে দেখেন জখম অবস্থায় শ্রমিক নকিম উদ্দিনের মরদেহ খাটের ওপর পড়ে আছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয়, শ্রমিক নকিম উদ্দিনকে হত্যার পর কবিরাজি ওষুধের উপকরণ হিসেবে পুরুষাঙ্গ, অণ্ডকোষ ও একটি চোখ নিয়ে যান। পরে মানিকগঞ্জে চলে যান তিনি। এ ঘটনায় মঙ্গলবার (৩১ মে) বাঘারপাড়া থানায় মামলা করা হয়।

হারানো যৌবন ফিরে পেতে শ্রমিককে হত্যা

জড়িতদের ধরতে অভিযানে নামে যশোর ডিবির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রুপন কুমার সরকার, ইন্সপেক্টর শহিদুল ইসলাম ও উপ-পরিদর্শক (এসআই) মফিজুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি চৌকস দল।

মঙ্গলবার মানিকগঞ্জ বাসস্ট্যান্ডে ধান কাটার শ্রমিক সেজে আসেন লিটন মালিতা। শ্রমিকের হাট থেকে ঘিওর উপজেলার পয়লা ইউনিয়নের চড় বাইলজুরী গ্রামের জনৈক কৃষক জিতু তাকে ধান কাটার কাজে বাড়িতে নিয়ে আসেন।

বুধবার (১ জুন) দুপুরে ঘিওর উপজেলার পয়লা ইউনিয়নের চড় বাইলজুরী এলাকা থেকে ডিবি পুলিশের একজন সদস্য ধান কাটার শ্রমিক সেজে ধান কাটতে যান। তিনি শ্রমিক বেশে তার অবস্থান শনাক্ত করেন। পরে ঘিওর থানা পুলিশের সহায়তায় তাকে আটক করা হয়।

এর আগে মঙ্গলবার অভিযান চালিয়ে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা থেকে কবিরাজ আব্দুল বারেককে গ্রেফতার করে পুলিশ।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম জানান, গ্রেফতার লিটন মালিতার কাছ থেকে কেটে নেওয়া পুরুষাঙ্গ, অণ্ডকোষ ও একটি চোখ উদ্ধার করা হয়েছে। আসামিদের আদালতে পাঠানো হয়েছে।


আরও খবর



দিনাজপুরে যুবলীগ নেতা হত্যায় যুবক গ্রেফতার

প্রকাশিত:Friday ২৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা মামলার আসামি মো. মাজেদুরকে (৩৫) গ্রেফতার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) মধ্যরাতে বগুড়ার কোতোয়ালি থানার জহরুলনগর আবাসিক এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। মাজেদুর দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার মৃত ফয়জুল হকের ছেলে।

রংপুর র‌্যাব-১৩ উপ-অধিনায়ক মেজর মহিদুল ইসলাম জানান, ১৩ জুন কাজের জন্য দিনাজপুর সদর উপজেলার রেলঘুণ্টি এলাকার মাজেদুর রহমান বাড়ি থেকে বের হন। পরে সময়মতো বাড়িতে ফিরে না আসায় স্বজনরা খোঁজাখুজি করেন। একপর্যায়ে রাত দেড়টার দিকে দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মাজেদুরের মরদেহ শনাক্ত করেন।

তিনি আরও জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে ১৩ জুন রাত সাড়ে ১২টার দিকে চিরিরবন্দরের আমবাড়ী বাজারে মো. মাজেদুর অন্যান্য সহযোগীদের নিয়ে ধারালো হাসুয়া ও চাইনিজ কুড়াল দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে মাজেদুর রহমানকে হত্যা করেন। ঘটনার পর থেকে সবাই পলাতক। হত্যাকাণ্ডের পর ভিকটিমের বাবা চিরিরবন্দর থানায় মামলা করেন। পরে বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে বগুড়া থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার মাজেদুর এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে নিজের সংশ্লিষ্টতার কথা স্বীকার করেছেন। তার নামে দুটি অস্ত্র এবং তিনটি মারামারির মামলা রয়েছে। আসামির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।


আরও খবর



হাসপাতালে আরও ২২ ডেঙ্গুরোগী

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
Image

এডিস মশাবাহিত ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে আরও ২২ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এ নিয়ে মোট ৬৯ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি আছেন।

বুধবার (১৫ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুমের ইনচার্জ ডা. মো. জাহিদুল ইসলামের সই করা ডেঙ্গু বিষয়ক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানা যায়।

এতে বলা হয়, মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার একই সময়ের মধ্যে সারাদেশে আরও ২২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে সবাই ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

এ নিয়ে বর্তমানে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে সর্বমোট ৬৯ জন ভর্তি রয়েছেন। তাদের মধ্যে ঢাকার ৪৭টি ডেঙ্গু ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৬৬ জন। ঢাকার বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তিনজন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, চলতি বছরে ১ জানুয়ারি থেকে ১৫ জুন পর্যন্ত ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন মোট ৬২৯ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল ছেড়েছেন ৫৬০ জন। তবে গত ২৪ ঘণ্টাসহ এ বছরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত কোনো রোগীর মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

২০২০ সালে করোনা মহামারিকালে ডেঙ্গুর সংক্রমণ তেমন একটা দেখা না গেলেও ২০২১ এ সারাদেশে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হন ২৮ হাজার ৪২৯ জন। একই বছর দেশব্যাপী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ১০৫ জনের মৃত্যু হয়।


আরও খবর