Logo
আজঃ বুধবার ০৭ জুন ২০২৩
শিরোনাম
১১ জেলায় ঝড়বৃষ্টির পূর্বাভাস আল ইত্তিহাদে আনুষ্ঠানিক চুক্তি করলেন বেনজেমা সিলেটে ট্রাক-পিকআপ ভ্যান সংঘর্ষে নিহত ১৩ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা জাতিসংঘ মধ্যস্থতা করবে এমন সংকট বাংলাদেশে হয়নি: ওবায়দুল কাদের তীব্র তাপপ্রবাহে এবার ইবতেদায়ি স্তরের ক্লাস বন্ধ ঘোষণা বাংলাদেশ-ভারত সেনাবাহিনীর মধ্যে সহযোগিতা জোরদারে প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ রূপগঞ্জের ইছাপুরা ব্রীজ-দুর্গামন্দির সড়ক নির্মাণ কাজের উদ্বোধন দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে ইউপি সদস্য সহ চারজনকে কুপিয়ে জখমের ঘটনায় সাবেক মেম্বার সেলিম গ্রেফতার বাংলাদেশ-আফগানিস্তান সিরিজের সূচি জানাল বিসিবি

রাশিফল ২০ মার্চ: মিলিয়ে নিন কী আছে ভাগ্যে আজ

প্রকাশিত:সোমবার ২০ মার্চ ২০23 | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ জুন ২০২৩ | ১৩৮জন দেখেছেন

Image

অনলাইন ডেস্ক ;সাধারণত রাশিফল গণনা করা হয় চন্দ্রের অবস্থানের উপরে ভিত্তি করে। কিন্তু ইংরেজি মতে এ ক্ষেত্রে প্রাধান্য দেওয়া হয় সূর্যকে। তাই ইংরেজিতে রাশিকে বলা হয় সান সাইন। এক্ষেত্রে জন্মদিন অনুসারে বোঝা যায় একজন ব্যক্তি কোন রাশির জাতক বা জাতিকা।

এ রাশি নিয়ে নানা ভাবনা, নানা মত রয়েছে। কেউ এটাকে বিশ্বাস করেন, আবার কেউ এসব মানতে চান না। কেউ আবার না মানলেও লুুকিয়ে দেখে নেন কি আছে ভাগ্যে। যা হোক; সেই তর্ক-বিতর্ক দূরে থাক, বিশ্বাস-অবিশ্বাসের প্রশ্ন না করে- দিনের শুরুতে চলুন মিলিয়ে নেয়া যাক- কেমন যাবে আজকের দিনটি?

জন্মদিন মিলিয়ে দেখে নিন আজকের দিনে কোন রাশি কী নির্দিষ্ট করে রেখেছে তার জাতক-জাতিকার জন্য।

আজ ২০ মার্চ ২০২৩ খ্রিষ্টাব্দ, সোমবার। আজকের দিনটি ​মীন রাশির। মীন রাশিরা শৃঙ্খলা বজায় রাখবে।

মেষ রাশি (২১ মার্চ-২০ এপ্রিল):
অনেক রকম কাজে ব্যস্ততা বাড়তে পারে। চেষ্টা করেও সময়মতো প্রতিশ্রুতিপূরণ করা সম্ভব নাও হতে পারে।

বৃষ রাশি (২১ এপ্রিল-২০ মে):
নিজের চিন্তায় ও কাজে অহংবোধের প্রভাব পড়তে পারে। ক্ষমতাবান মানুষের দিকে তাকিয়ে কথা বলতেও অসুবিধা হতে পারে এজন্য।

​মিথুন রাশি (২১ মে-২০ জুন):
সামাজিক যোগাযোগ আরও বাড়ানো প্রয়োজন। যাঁরা সম্মান নষ্টের চেষ্টা করছে তাঁদের সঙ্গে লড়তে হবে। নিজের যত্নও নিতে হবে।

কর্কট রাশি (২১ জুন-২০ জুলাই):
যে কোনও কঠিন বা জটিল কাজের সমাধান সহজে হবে। নিজের ইচ্ছাশক্তির দ্বারা যে কোনও বাধা জয় করা যাবে।

সিংহ রাশি (২১ জুলাই-২১ আগস্ট):
জুলাই ২৩ থেকে অগাস্ট ২২। সততার সঙ্গে সব কাজ করা দরকার। কাজের যেকোনও খুঁটিনাটির দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

​কন্যা রাশি (২২ আগস্ট-২২ সেপ্টেম্বর):
অগাস্ট ২৩ থেকে সেপ্টেম্বর ২২। কোনও বিতর্ক না জড়িয়ে খোলাখুলি নিজের মত প্রকাশ করা যেতে পারে।

​তুলা রাশি (২৩ সেপ্টেম্বর-২২ অক্টোবর):
সেপ্টেম্বর ২৩ থেকে অক্টোবর ২২। সব কাজ ঠিকঠাক হবে। যে কোনও দিকেই সাফল্য মিলবে। ঝুঁকির প্রবণতা সামলে চলতে হবে।

​বৃশ্চিক রাশি (২৩ অক্টোবর-২১ নভেম্বর):
অক্টোবর ২৩ থেকে নভেম্বর ২১ ৷ কোনও প্রিয়বন্ধু বা ঘনিষ্ঠজনের কাছে মন খুলে কথা বলা যেতে পারে। রাগ হতাশা থেকে মুক্তি পেতে আলোচনা করা যেতে পারে।

ধনু রাশি (২২ নভেম্বর-২০ ডিসেম্বর):
একটু সাহস দেখানো যেতেই পারে যে কোনও কাজে। বিনিয়োগ করার ভাল সময়, কারণ ভাগ্য সুপ্রসন্ন থাকবে। স্বাস্থ্য সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে।

মকর রাশি (২১ ডিসেম্বর-১৯ জানুয়ারি):
নিজের নীতি আদর্শের বিষয়গুলি আরও একবার মূল্যয়ন করে দেখতে হবে। অতীতের সিদ্ধান্তের জন্য প্রশ্নের সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কুম্ভ রাশি (২০ জানুয়ারি-১৮ ফেব্রুয়ারি):
প্রতিদ্বন্দ্বীদের থেকে সতর্ক থাকতে হবে। স্বাস্থ্যের যত্ন প্রয়োজন।

​মীন রাশি (১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ):
কাছের কোনও মানুষকে খুশি করা সম্ভব হবে। এতে সৌভাগ্যের পথ খুলে যেতে পারে। এসময় কাউকে টাকা ধার দেওয়া যাবে না।


আরও খবর



মধুপুরে জমিসংক্রান্ত জেরে মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী সন্তানকে পিটিয়ে আহত

প্রকাশিত:বুধবার ১০ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ জুন ২০২৩ | ৬৯জন দেখেছেন

Image

বাবুল রানা (বিশেষ প্রতিনিধি) মধুপুর টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলের মধুপুরের গোলাবাড়ী ইউনিয়নের শ্রীরামবাড়ী গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে বিবাদীদের মারপিটে মা ছেলে আহত হয়েছেন বলে জানা যায়।এ ব্যাপারে মধুপুর থানায় মামলা হয়েছে। মামলা সূত্রে জানা যায়, শ্রীরামবাড়ী গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা শামছুল হকের স্ত্রী অজুফা বেগম ও তার ছেলে সুমন আকন্দকে একই এলাকার বিবাদীগন মারপিট করে গুরুতর ভাবে আহত করে।

বিবাদীদের সহিত দীর্ঘদিন যাবত জমি সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে শত্রুতা চলে আসছিল এরই জের ধরে রবিবার সন্ধায় বিবাদী মজিবর আকন্দের ছেলে বাহাজ উদ্দিন আকন্দ, বাহাজ  উদ্দিন আকন্দের ছেলে সিয়াম আকন্দ,  আব্বাস উদ্দিন আকন্দের ছেলে নাজমুল আকন্দ সহ আরও চার পাঁচ জন মিলে সুমন আকন্দকে লোহার রড ও হাতুরী দিয়ে এলোপাথারী ভাবে বাইরাইয়া  মারাত্মক ভাবে জখম করে। ছেলেকে মারপিটের সংবাদ পেয়ে মা অজুফা বেগম এসে উদ্ধারের চেষ্ঠা করলে তাকেও মারপিট করে আহত করে।

এসময় তার গলায় থাকা ষাট হাজার টাকা মুল্যের গলার চেইন বিবাদী সিয়াম আকন্দ নিয়ে যায় বলে জানান। তাদের ডাকচিৎকার শুনে এলাকার লোকজন আগাইয়া আসলে বিবাদীগন ঘটনাস্থল থেকে দ্রুত চলে যায়। স্হানীয়রা আহত মা ছেলেকে উদ্ধার করে মধুপুর হাসপাতালে পাঠান। সুমন আকন্দের অবস্হা  আশংকাজনক থাকায় তাকে জামালপুর সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

এ ঘটনায় মধুপুর থানা পুলিশ গত ৪মে বৃহস্পতিবার রাতে প্রধান আসামি বাহাজ উদ্দিন আকন্দকে গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করেন। এলাকাবাসী সূত্রে আরও জানা যায়, আসামি বাহাজ উদ্দিন আকন্দ ও আব্বাস উদ্দিন আকন্দ গত ২০০৮ সালে কালিহাতি ও মধুপুর থানায় ডলার প্রতারণার পৃথক দুটি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত আসামি ছিলেন।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



মার্কিন ভিসা নীতির ফলে বিদেশে অর্থপাচার কমবে

প্রকাশিত:শনিবার ২৭ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ জুন ২০২৩ | ১৩৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্বপ্রতিবেদক:বিদেশি কূটনীতিকদের বাড়তি নিরাপত্তা ফিরিয়ে দেওয়ার বিষয়ে কিছু জানেন না বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে রাষ্ট্রদূতদের নিরাপত্তায় কোনো ঘাটতি নেই, কখনো ছিল না। দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অনেক ভালো আছে।

কোনো দেশেই বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতকে বাড়তি নিরাপত্তা দেওয়া হয় না জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘বিদেশি কূটনীতিকরা তাদের খরচে এসকর্ট হায়ার (ভাড়া) করতে পারবেন। সে ক্ষেত্রে টাকা দিয়ে আনসার ব্যাটালিয়নের এসকর্ট নিতে পারবেন।

মার্কিন নতুন ভিসা নীতি প্রসঙ্গে আব্দুল মোমেন বলেন, মার্কিন ভিসা নীতির ফলে বিদেশে অর্থপাচার কমবে। যারা দেশে জ্বালাও পোড়াও করে, তারা সাবধান হবেন বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

মন্ত্রী আরও বলেন, নতুন ভিসা নীতি নিয়ে সাধারণ মানুষের চিহ্নিত হওয়ার কিছু নেই। বরং কতিপয় সরকারি কর্মচারি, ব্যবসায়ী, আমলা যাদের যুক্তরাষ্ট্রে সম্পদ আছে, তারা চিন্তিত হবেন।

এ সময় দুটি দেশের রাষ্ট্রদূতের বাড়তি নিরাপত্তা আবারও ফেরত দেওয়া হয়েছে কি না এমন প্রশ্নে আব্দুল মোমেন জানান, এ বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না।


আরও খবর



সমুদ্রবন্দর থেকে সব সংকেত নামল

প্রকাশিত:সোমবার ১৫ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ০৪ জুন ২০২৩ | ৮১জন দেখেছেন

Image

অনলাইন ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’র প্রভাব কেটে যাওয়ায় দেশের সমুদ্রবন্দরসমূহ, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে সংকেত নামিয়ে ফেলতে বলা হয়েছে।

আজ সোমবার সকালে আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক স্বাক্ষরিত আবহাওয়ার সর্বশেষ বার্তায় এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

তবে বার্তায় আজ সন্ধ্যা পর্যন্ত সব ধরনের মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

এর আগে গতকাল রোববার সন্ধ্যা ৬টার ২২ নম্বর বিশেষ বুলেটিনে অধিদপ্তর জানায়, অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ‘মোখা’ উপকূল অতিক্রম করার পর ক্রমশ শক্তি হারাতে শুরু করেছে। এ অবস্থায় কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত নামিয়ে তার পরিবর্তে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।


আরও খবর



গাইবান্ধায় চরাঞ্চলে পানির দরে বিক্রি হচ্ছে দুধ

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ জুন ২০২৩ | ৭৭জন দেখেছেন

Image
গাইবান্ধা সংবাদদাতা: সমতলে ৬০ আর বালুচরে ৩০ টাকা লিটার দুধ বিক্রি হচ্ছে। এই দাম কমের কারণে গাইবান্ধার বিস্তীর্ণ চরাঞ্চলের গবাদিপশু পালনকারীরা অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। বারো মাস দুঃখ কষ্টে থাকা মানুষগুলো যা-ই উৎপাদন করেন তাই বিক্রি করতে হয় পানির দামে।চরে বাজার ব্যবস্থাপনা না থাকায় এক প্রকার বাধ্য হয়েই ব্যাপারী আর মহাজনদের হাতে তুলে দিতে হয় পানির দামে। এই কষ্টের কথা জানান, বাটিকামারী চরের বাসিন্দা এরশাদুল ইসলাম।

তিস্তা, যমুনা ও ব্রহ্মপুত্র নদী ঘেরা গাইবান্ধা সদর উপজেলার মোল্লারচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাইদুজামান বলেন, চরের মানুষ বন্যা, খরা, নদী ভাঙ্গনসহ ভয়াবহ তিন দুর্যোগের সঙ্গে যুদ্ধ করে বাস করে বালুচরে। তাদের মূল্যবান সম্পদ বলতে গবাদি পশু পালন ও দুধ বিক্রি। বিভিন্ন দুর্যোগ, মেয়ের বিয়ে এবং বিপদে আপদে চরাঞ্চলের বাসিন্দারা নির্ভর করে গবাদি পশুর ওপর। এ কারণে তারা মানুষের মতো অতি যত্নে রাখেন গবাদি পশুকে। কিন্তু বর্তমানে চরাঞ্চলে চারণ ভূমি করে এসেছে। গো খাদ্য কিনতে হয় চড়া দামে। কিন্তু দুধ বিক্রি করতে হয় পানির দামে।

গো-খাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় গাইবান্ধায় সাত উপজেলায় রেজিস্টার্ড ও রেজিস্ট্রি ছাড়াও সাড়ে ১৫ হাজার গো খামারিরা বিপাকে পড়েছেন।দুধ বিক্রি করে লাভের অংশ ঘরে তুলতে পারছেন না তারা। দিনের পর দিন বাড়ছে দুধের দাম বাড়ালেও- তিস্তা যমুনা ও ব্রহ্মপুত্র নদীর ১৬৫টি চরের খামারিরা হতাশ। কেউ কেউ তাদের গো খামার গুটিয়ে নিয়েছেন। সে কারণে দেশি গুরুর দুধ আর পাওয়া যায় না বললেই চলে।গাইবান্ধা জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগের খাতাপত্র মতে, গাইবান্ধায় দুই হাজার ৫২, পলাশবাড়িতে এক হাজার ৬৭২, গোবিন্দগঞ্জে পাঁচ হাজার ২১৮, সাদুল্লাপুর দুই হাজার ৩৫, সুন্দরগঞ্জ দুই হাজার ৬৩৯, সাঘাটায় এক হাজার ২৩৫ ও ফুলছড়ি উপজেলায় ৩২৯টিসহ ১৫ হাজার ১৬৬টি গো খামার রয়েছে।

গাইবান্ধা জেলা খামার মালিক সমিতির সভাপতি প্রতাপ ঘোষ জানান, আমি কোটি টাকা খরচ করে খামার করেছি। অনেক ইনভেস্ট করেছি। ভালোই চলছিল খামার; কিন্তু গো খাদ্যের দাম বৃদ্ধি হওয়ায় মহাবিপাকে পড়েছি। গরু থেকে যে পরিমাণ দুধ আসে তা বিক্রি করে টাকা ওঠে না। লেবার খরচ দিলে লাভের অংশ ঘরে তোলা কষ্টকর।গাইবান্ধার নানান সমস্যা মোকাবেলা করতে গিয়ে দোকানি, খামারি ও গবাদি পশুপালনকারীদের মধ্যে অনেকেই পেশা ছেড়ে যাচ্ছেন।পূর্বপাড়ার খামারি নুরুল ইসলাম জানান, গো-খাদ্যের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। খামারিদেরও কয়েক দফা দুধের দাম বৃদ্ধি করতে হয়েছে কয়েকবার। যত দাম বাড়ছে তাতে দিনে দিনে বিরক্ত হচ্ছে খদ্দেররা।

গাইবান্ধার প্রাণিসম্পদ বিভাগের মতে, চরের এসব খামারের পরিমাণ দুধ অনেক মানুষের চাহিদা মেটায় কিন্তু বছর বছর বন্যা, খরাসহ নানা দুর্যোগে চরাঞ্চলের চারণ ভূমি নষ্ট হয়ে যায়। সে কারণে গবাদি পশু নিয়ে বিপাকে পড়তে হয়। আর এসব এলাকায় হাট বাজার না থাকায় ক্রেতার সংখ্যা অনেক কম। তাই তাদের উৎপাদিত দুধ বিক্রি করতে হয় স্থানীয় দালাল, ফড়িয়া, ব্যাপারী ও পাইকারদের কাছে।কুন্দেরপাড়া চরের বাসিন্দা মঞ্জু সরদার বলেন, পাইকাররা সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ৩০ থেকে ৩২ টাকা লিটার দুধ কিনে নেন। আর এই ৩২ টাকার দুধ নদী পার হয়ে সমতলে এলেই বিক্রি হয় ৬০ টাকা লিটারে। খামারিরা ভালো দাম না পেলেও পাইকাররা তাদের খুশি মতো দুধ ক্রয়-বিক্রয় করতে পারছে।

মোল্লার চরের চেয়ারম্যান সাইদুজ্জামান বলেন, সরকারি হিসাবে গাইবান্ধার চরের প্রতিটি বাড়ি বাড়ি গবাদি পশু পালন করা হয়। প্রচুর পরিমাণে দুধ উৎপাদনও হয়; কিন্তু ভালো দাম পায় না খামারিরা। চরাঞ্চলে যদি দুধ কেনা-বেচার আলাদা ব্যবস্থা থাকতো তাহলে তারা দুধের ন্যায্য মূল্য পেত।এ ব্যাপারে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মাসুদুর রহমান জানান, গো খাদ্যের দামের প্রভাব পড়েছে দুধের ওপর। ক্রেতাদের চাহিদা থাকলে খামারিরা তাদের ন্যায্য দাম পাবে। তাহলে আর তাদের লোকসান গুনতে হবে না।


আরও খবর



৪৫তম বিসিএস প্রিলিমিনারির আসনবিন্যাস প্রকাশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ জুন ২০২৩ | ৯৯জন দেখেছেন

Image

অনলাইন ডেস্ক: ৪৫তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষার আসনবিন্যাস প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)।

আজ মঙ্গলবার পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) আব্দুল্লাহ আল মামুনের (যুগ্মসচিব) সই করা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আসনবিন্যাস প্রকাশ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আগামী শুক্রবার (১৯ মে) ঢাকা, রাজশাহী, চট্টগ্রাম, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ কেন্দ্রে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে এ পরীক্ষা।

১. প্রার্থীদের রেজিস্ট্রেশন নম্বর আট ডিজিট সংবলিত হতে হবে। রেজিস্ট্রেশন নম্বরের ডিজিটগুলো উত্তরপত্রের প্রযোজ্য ঘরে কালো কালির বল পয়েন্ট কলম দিয়ে লিখে প্রযোজ্য বৃত্ত ভরাট করতে হবে।

২. প্রতিটি উত্তরপত্রে সেট নম্বরের নির্ধারিত স্থানে সেট নম্বর এবং সেট নম্বরের জন্য নিচের সংশ্লিষ্ট বৃত্তটি মুদ্রিত থাকবে। প্রার্থীদের উত্তরপত্রে সেট নম্বর লেখা এবং সেট নম্বরের বৃত্ত ভরাট করার প্রয়োজন হবে না। সকাল ১০টায় প্রশ্নপত্র পাওয়ার পর প্রার্থী তার প্রশ্নপত্রের সেট নম্বর এবং উত্তরপত্রের সেট নম্বর অভিন্ন কি না, তা চেক করে নিশ্চিত হবে। প্রশ্নপত্র ও উত্তরপত্রের সেট নম্বর অভিন্ন না হলে সঙ্গে সঙ্গে পরিদর্শককে জানাবেন।

৩. প্রশ্নপত্র দেয়ার পর কোনো প্রার্থীকে পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে দেয়া হবে না। প্রশ্নপত্র নেয়ার পর পরীক্ষা শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোনো প্রার্থী পরীক্ষাকক্ষ ত্যাগ করতে পারবেন না।

৪. কোনো প্রার্থীর ছবি, স্বাক্ষর, প্রবেশপত্র এবং উত্তরপত্রের নাম ও রেজিস্ট্রেশন নম্বরের গরমিলসহ কোনো ধরনের অনিয়ম ধরা পড়লে ওই প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিলসহ তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

৫. পরীক্ষা কেন্দ্রে বই-পুস্তক, সব ধরনের ঘড়ি, মোবাইল ফোন, ক্যালকুলেটর, সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যাংক কার্ড/ক্রেডিট কার্ড সদৃশ কোনো ডিভাইস, গহনা ও ব্যাগ আনা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

৬. পরীক্ষা হলের গেটে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পুলিশের উপস্থিতিতে প্রবেশপত্র এবং মেটাল ডিটেক্টরের সাহায্যে মোবাইল ফোন, ঘড়ি, ইলেকট্রনিক ডিভাইসসহ নিষিদ্ধ সামগ্রী তল্লাশির মধ্য দিয়ে প্রার্থীদের পরীক্ষা হলে প্রবেশ করতে হবে।

৭. পরীক্ষার সময় প্রার্থীরা কানের ওপর কোনো আবরণ রাখতে পারবেন না। কানে কোনো ধরনের হিয়ারিং এইড ব্যবহারের প্রয়োজন হলে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শপত্রসহ কমিশনের অনুমোদন নিতে হবে।

৮. কোনো প্রার্থী পরীক্ষায় নকল করলে বা ইলেক্ট্রনিক ডিভাইসের মাধ্যমে অসদুপায় অবলম্বন করলে কিংবা কোনো অসদাচরণের জন্য দোষী সাব্যস্ত হলে সংশ্লিষ্ট পরীক্ষার্থীর বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা নেয়া হবে।

৯. প্রার্থীদের কেন্দ্র পরিবর্তনের কোনো আবেদন বিবেচনা করা হবে না।

১০. প্রার্থীর আবেদনপত্রে গুরুতর ত্রুটি ধরা পড়লে পরীক্ষার আগে বা পরে যে কোনো পর্যায়ে ওই প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল হবে।

আসনবিন্যাস দেখতে ক্লিক করুন


আরও খবর