Logo
আজঃ Monday ২৯ November ২০২১
শিরোনাম
নৌকা পরাজিত স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান হলো তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু! তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ, চলছে গণনা কুমিল্লায় নৌকা পেয়েও সরে দাড়ালেন বাহালুল, প্রাথমিক সদস্য না হয়েও মনোনীত নূরুল! মাতুয়াইলে সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্ধোধন করলেন সংসদ সদস্য কাজী মনু পলো উৎসবে মাছ ধরায় মেতেছে মানুষ, চির চেনা বাংলা গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি হয়নি হাফ পাসের সিদ্ধান্ত,টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রংপুরের তারাগঞ্জে ট্রাকচাপায় তিন নারী শ্রমিক নিহত কুমিল্লার তিতাস ও মেঘনা উপজেলায় ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী যারা !
২৪ বছর পর ফুটলো ফুল, বের হয় পচা মাংসের গন্ধ

পুরুষের পেনিসের মতো যে ফুল, বের হয় পচা মাংসের গন্ধ

প্রকাশিত:Tuesday ০২ November 2০২1 | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ২১৯জন দেখেছেন
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image



দেখতে পুরুষের পেনিসের মতো । সুবাস নয়, এ ফুলের পরিচিতি তার দুর্গন্ধের জন্য ৷ এর পোশাকি নাম কর্পস ফ্লাওয়ার বা শবফুল। এই ফুলের গন্ধ পচা মানবদেহের মতো। তবে তার পরও হাজার হাজার মানুষ এক বার তার কাছে যেতে চায়। আকার ও আকৃতির জন্য এই ফুলের আর এক নাম পেনিস প্ল্যান্ট। প্রস্ফুটিত এই ফুলের দিকে তাকালে এক ঝলকে মনে হয় পুরুষাঙ্গের কথা। এই ফুল খুবই বিরল।

   

নেদারল্যান্ডসে প্রায় ২৪ বছরের মধ্যে এই প্রথম ফুটেছে বিরল প্রজাতির পেনিস প্ল্যান্ট। ইউনিভার্সিটি অব লেইডেনের বোটানিক্যাল গার্ডেনে সাড়ে ছয় ফুট লম্বা একটি পেনিস প্ল্যান্ট গাছে ফুলটি ফুটেছে। এর আগে সর্বশেষ ১৯৯৭ সালে লেনডেন হটার্স বোটানিক্যাল গার্ডেনে পেনিস প্ল্যান্টে ফুল ফোটার ঘটনা ঘটেছিল।

   

পেনিস প্ল্যান্ট বিরল প্রজাতির একটি গাছ এবং এতে একবার ফুল ফুটতে ২০ বছর বা তারও বেশি সময় লাগতে পারে। চুরুটের মতো গাছের আকার এবং অস্বাভাবিক গঠনের ফুলের কারণে এটি পেনিস প্ল্যান্ট হিসেবে পরিচিত। তবে এর বৈজ্ঞানিক নাম আমোরফোফ্যালাস ডেকাস-সিলভি। লেইডেনের বোটানিক্যাল গার্ডেনের ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ইউরোপের ইতিহাসে এ নিয়ে মাত্র তৃতীয়বারের মতো পেনিস প্ল্যান্ট গাছে ফুল ফোটার ঘটনা ঘটল।

২৪ বছর পর ফুটলো ফুল, বের হয় পচা মাংসের গন্ধ

   

ইন্দোনেশিয়া ও জাভা অঞ্চল এই গাছের আদি উৎপত্তিস্থল। নির্দিষ্ট পরিবেশ দরকার হয় বলে গাছটির পরিচর্যা করা অত্যন্ত কঠিন। আর কোনোভাবে গাছের পরিচর্যা করা গেলেও ফুল ফোটার ঘটনা খুবই বিরল। এই গাছ দর্শনীয় হলেও এর ফুলের গন্ধ পচা মাংসের মতো।

 

-খবর প্রতিদিন / সি.বা 

নিউজ ট্যাগ: পেনিসের মতো ফুল

আরও খবর



চট্টগ্রামবাসী না চাইলে সিআরবিতে হাসপাতাল নয়: রেলমন্ত্রী

সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্প চাপিয়ে দেওয়া হবে না : রেলমন্ত্রী

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৮ November ২০২১ | ১৩২জন দেখেছেন
Image


 

চট্টগ্রামের মানুষ না চাইলে সিআরবিতে হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্প চাপিয়ে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। সোমবার দুপুরে রেল ভবনে নাগরিক সমাজ-চট্টগ্রাম এর নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় এ কথা বলেন তিনি।

 

রেলমন্ত্রী বলেন, হাসপাতাল করতে হলে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) থেকে নকশা অনুমোদন দিতে হবে। সিডিএ যদি নকশা না দেয় সেখানে হাসপাতাল হবে কী করে? আর অন্যান্য সংস্থার অনুমোদনে আইনি বাধ্যবাধকতা থাকলেও সেখানে কোনো কিছু করা সম্ভব না। সবচেয়ে বড় কথা, চট্টগ্রামবাসী না চাইলে সেখানে হাসপাতাল প্রকল্প হবে না।

 

সিআরবিতে হাসপাতাল প্রকল্প রেল মন্ত্রণালয় গ্রহণ করেনি উল্লেখ করে তিনি বলেন, এটি প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের পিপিপি অথরিটির প্রকল্প। বিনিয়োগও বেসরকারি। সুতরাং রেল মন্ত্রণালয়ের এখানে করার কিছুই নেই। নাগরিক সমাজের দেওয়া যাবতীয় তথ্য উপাত্ত আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে তুলে ধরবো, তিনিই এ ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেবেন। তবে আমার অভিমত হচ্ছে, আইন ও চট্টগ্রামবাসীর সেন্টিমেন্টের বাইরে যাওয়া ঠিক হবে না। আমরা যা কিছু করছি জনগণের কল্যাণে।

 

মতবিনিময়ের সময় মন্ত্রীর কাছে প্রকল্পের বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত উপস্থাপন করেন নাগরিক সমাজ- চট্টগ্রাম’র সদস্য সচিব বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল।

 

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 


আরও খবর



ভালোবেসে বিয়ে, জাত-পাতের রেষারেষিতে শেষ দুই জীবন

ভালোবেসে বিয়ে: উচু জাত নিচু জাত দ্বন্ধে বউকে কুপিয়ে মেরে, নিজের বুকে ছুড়ি চালিয়ে আত্তহত্যা

প্রকাশিত:Wednesday ০৩ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ৩২৮জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

অভি-যুথির দীর্ঘদিনের প্রেম। করেছেন বিয়েও। তবে মেনে নেয়নি অভির পরিবার। ভালোবেসে বিয়ে করলেও স্ত্রীকে ঘরে তুলতে পারেননি স্বামী। শুধু একটাই আপত্তি; যুথির পরিবার নিম্ন বংশের। আর এ জাত-পাত নিয়েই বাড়তে থাকে মতানৈক্য। শেষমেশ ভালোবাসার মানুষটিকেই কুপিয়ে হত্যা করেন অভি। নিজেও বেঁচে থাকেননি। ছুরি মেরে নিজেকেও শেষ করে দেন।

 

ঘটনাটি চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের। মঙ্গলবার রাত প্রায় ১২টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান অভি। এ ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

 

নিহত ২৩ বছর বয়সী যুথি সূত্রধর সীতাকুণ্ড পৌর শহরের প্রেমতলা এলাকার বাসিন্দা রামচন্দ্র সূত্রধরের কলেজপড়ুয়া মেয়ে। আর ২৭ বছরের অভি চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলা কালীপুর বণিক পাড়ার শুধাংশ ধরের ছেলে।

 

জানা গেছে, যুথির সঙ্গে অভির প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দুই বছর আগে তারা পালিয়ে বিয়ে করেন। বিয়ের কিছুদিনের মধ্যেই যুথিকে বউ করে নিজ ঘরে তুলবেন বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন অভি। কিন্তু এতে আপত্তি জানায় পরিবার। অভি উচ্চ বংশের ছেলে। যুথির পরিবার তাদের তুলনায় নিম্ন বংশের। এটিই ছিল অভির পরিবারের আপত্তি। এ কারণে আর শেষ পর্যন্ত শ্বশুরবাড়িতে স্থান হয়নি যুথির। যদিও তারা ভাড়া বাসায় থাকতেন।

 

শ্বশুরবাড়িতে না নেয়ায় দিন দিন স্বামীর সঙ্গে যুথির মতানৈক্য বাড়তে থাকে। এর জেরে দেড় মাস আগে স্বামীকে ছেড়ে বাবার বাড়িতে চলে যান যুথি। এতে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয় অভির মনে। ভালোবাসার মানুষটিকে হারিয়ে তিনি মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন। একপর্যায়ে ২৭ অক্টোবর শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে স্ত্রী যুথিকে ফিরিয়ে নিতে চান তিনি। কিন্তু স্বামীর সঙ্গে আর যাবেন না বলে স্পষ্ট জানিয়ে দেন যুথি। এতেই চরম ক্ষোভে নিজের সঙ্গে আনা ধারালো ছুরি দিয়ে যুথিকে এলোপাতাড়ি কোপান। শরীরের বিভিন্ন অংশে ১৯টি ছুরিকাঘাতে যুথি ঘটনাস্থলেই নিহত হন। শেষে নিজেই নিজের পেটে ছুরিকাঘাত করতে থাকেন অভি। এতে রক্তাক্ত ও গুরুতর আহত হন নিজেও। পরে তাকে চমেক হাসপাতালে নেয়া হয়।

চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থাতেই ওই রাতেই অভির বিরুদ্ধে স্ত্রীকে হত্যা ও আত্মহত্যাচেষ্টার দুটি অপরাধে মামলা করেন শ্বশুর রামচন্দ্র সূত্রধর। সেই থেকে পুলিশি পাহারায় অভির চিকিৎসা চলতে থাকে। এমনি অবস্থায় মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অভিও মারা যান।

 

সীতাকুণ্ড থানার ওসি (তদন্ত) সুমন বণিক বলেন, ছেলে অভি ছিলেন উচ্চবংশীয়। আর তার বিয়ে করা বউ যুথির বংশ পরিচয় তাদের পছন্দনীয় নয়। জাতিগত এ কুসংস্কারের কারণে অভির পরিবার তার বউকে মেনে নেয়নি। যার শেষ পরিণতিতে সম্ভাবনাময় দুটি জীবন চিরতরে ধ্বংস হয়ে গেছে।

 

তিনি আরো বলেন, ২৭ অক্টোবর স্ত্রী হত্যার পর নিজেও আত্মহত্যার চেষ্টাকারী অভিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চমেকে ভর্তি করানো হয়েছিল। কিন্তু তার অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে তারও মৃত্যু হয়।

 

-খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



বাগদাদ থেকে আনা শতবর্ষী’ ডেগ

শতবর্ষী’সেই ডেগ উদ্ধার হয়নি আজও

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ১৬৫জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

মাদারীপুরের শিবচর চুরি হওয়ার ১১ দিন পরও ‘বাগদাদ থেকে আনা শতবর্ষী সেই ডেগ উদ্ধার হয়নি। এমনকি চুরির সঙ্গে জড়িত কেউ এখন পর্যন্ত ধরা পড়েনি। এ পরিস্থিতিতে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে স্থানীয়দের মাঝে।

 

গত ২১ অক্টোবর রাত ৩টার দিকে ৩-৪ জন চোর একটি ভ্যানে করে নিয়ে যায় ডেগটি। স্থানীয় একটি বাড়ির সিসি ক্যামেরার ফুটেজে এমন দৃশ্য দেখে গেছে। ফুটেজ সংগ্রহ করে পর্বেক্ষণ করছে পুলিশ। এছাড়া ঘটনার পরদিন শিবচর থানার ওসি মিরাজ হোসেনসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

 

স্থানীয়রা জানায়, শুক্রবার (২২ অক্টোবর) ফজরের নামাজের সময় মৌলভী বাড়ির খবির উদ্দিন মৌলভীর নাতি হাবিব মুন্সী মসজিদে গিয়ে দেখেন ডেগটি নেই। ডেগটি যে ঘরে রাখা ছিল সেই ঘরের একটি খুঁটি ভেঙে কে বা কারা চুরি করে নিয়ে গেছে। পরে বাড়ির সবাইকে বিষয়টি জানিয়ে পুলিশে খবর দেন তিনি। দত্তপাড়া পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের একটি দল খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।

 

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় একটি বাড়ির সিসি ক্যামেরার অস্পষ্ট ফুটেজে দেখা গেছে- রাত ৩টার দিকে একটি ব্যাটারিচালিত ভ্যানে করে কাপড়ে ঢাকা ডেগ সদৃশ কিছু একটা নিয়ে যাচ্ছে ৩-৪ জন লোক। ঐ ঘটনায় হাবিব মুন্সী অজ্ঞাত ৫-৬ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

শিবচর থানার ওসি মিরাজ হোসাইন জানান, সিসিটিভি ফুটেজ দেখে চোর শনাক্তের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। ঘটনাটি রাতের হওয়ায় এবং ফুটেজ অস্পষ্ট হওয়ায় শনাক্ত করতে কষ্ট হচ্ছে।

 

উল্লেখ্য, মাদারীপুরের শিবচরের মৌলভী বাড়ির মাওলানা খবির উদ্দিন আহমেদ আল কাদেরী প্রায় ১০০ বছর আগে ইরাকের বাগদাদ থেকে এই ডেগটি এনেছিলেন। তার মাজারের পাশের একটি খোলা ঘরে দর্শনার্থীদের জন্য ডেগটি রাখা হয়েছিল।

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 

নিউজ ট্যাগ: শতবর্ষী’ ডেগ

আরও খবর



ইউপি নির্বাচনে শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে কঠোর ব্যবস্থা: সেতুমন্ত্রী

ইউপি নির্বাচনে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে কঠোর ব্যবস্থা: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ১৩৮জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে মনোনয়নকে কেন্দ্র করে যারা সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গ করছেন, নিজেদের মধ্যে সংঘাত- সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছেন তাদেরকে সাংগঠনিক শৃঙ্খলা বিরোধী তৎপরতা থেকে বিরত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

 

তিনি বলেন, সাংগঠনিক শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী এবং তাদের মদদদাতা, উস্কানিদাতা নেতা ও জনপ্রতিনিধিরাও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থার সম্মুখীন হবেন।সোমবার সকালে সংসদ ভবন এলাকায় নিজ বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

 

শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী এবং তাদের মদদদাতাদের বিরুদ্ধে দলীয় প্রধানের নির্দেশে তালিকা তৈরি করা হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, অপকর্ম করলে কেউ রেহাই পাবে না; শাস্তি তাদের  পেতেই হবে। কৌশলে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কেউ নির্বাচিত হলে শৃঙ্খলা বিরোধী অপকর্ম বলে গণ্য করা হবে।

 

তিনি বলেন, ক্ষমতায় যেতে আওয়ামী লীগের কোন ষড়যন্ত্রের প্রয়োজন হয় না, আওয়ামী লীগ এদেশের মাটি ও মানুষের দল। বঙ্গবন্ধু এ দেশের মানুষের জন্য আজীবন সংগ্রাম করেছেন, আর এখন তার কন্যা শেখ হাসিনা পিতার স্বপ্ন পূরণে অবিরাম লড়ে যাচ্ছেন।

 

ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের রাজনীতি করে বলেই জনগণ আওয়ামী লীগের প্রাণ শক্তি। অপরদিকে যারা ক্ষমতাকে নিজের ভাগ্য বদলের চাবি মনে করে এবং দেশে বিদেশে সম্পদের পাহাড় গড়ে,ষড়যন্ত্র, হত্যা ও সন্ত্রাস নির্ভর রাজনীতি করে তাদের জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে।

 

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:Saturday ২৭ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ৭৭জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যথেষ্ট শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।শনিবার হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ আয়োজিত ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রী হেফাজতে ইসলাম নিয়ে ভাবেন। একজন ধার্মিক মুসলিম হিসেবে শেখ হাসিনা রাষ্ট্র পরিচালনা করছেন। তিনি সকালে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত করে কাজ শুরু করেন। আলেম-ওলামাদের প্রতি তার যথেষ্ট শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে। আপনাদের মতো প্রধানমন্ত্রী শফী সাহেবকে (শাহ আহমদ শফী) অত্যন্ত ভালোবাসতেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপনারা বলেছেন হেফাজত অরাজনৈতিক দল, হেফাজত রাজনীতি করে না, নির্বাচনে যায় না। কিন্তু বাইরে থেকে দুষ্কৃতিকারীরা এসে আপনাদের অপবাদ অথবা কুমন্ত্রণা দিচ্ছে। সেখানে আপনারা ভুল করছেন অথবা ভুল করে ফেলেছেন।

মন্ত্রী আরো বলেন, আমরা বারবার বলতে চাই আপনারা আধ্যাত্মিক লাইনের চর্চা করেন, কোরআন-সুন্নাহ অনুযায়ী চলেন। আপনারা যেহেতু অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান, সেহেতু কেন আপনাদের মাঝে বহিরাগতদের অনুপ্রবেশ ঘটে? আপনাদের আরো সাবধান হওয়া উচিত।

সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন- হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর শাহ মুহিববুল্লাহ বাবুনগরী, মহাসচিব নুরুল ইসলাম।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- আতাউল্লাহ হাফেজ্জি, অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান, সাজিদুর রহমান, ইয়াহইয়া, তাজুল ইসলাম, আব্দুল আওয়াল প্রমুখ।

 

-খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর