Logo
আজঃ Monday ২৯ November ২০২১
শিরোনাম
নৌকা পরাজিত স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান হলো তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু! তৃতীয় ধাপে ইউনিয়ন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ, চলছে গণনা কুমিল্লায় নৌকা পেয়েও সরে দাড়ালেন বাহালুল, প্রাথমিক সদস্য না হয়েও মনোনীত নূরুল! মাতুয়াইলে সড়ক উন্নয়ন কাজের উদ্ধোধন করলেন সংসদ সদস্য কাজী মনু পলো উৎসবে মাছ ধরায় মেতেছে মানুষ, চির চেনা বাংলা গাজীপুরে ৩০ সেকেন্ডেই মা-মেয়ের জীবন শেষ করল দুই খুনি হয়নি হাফ পাসের সিদ্ধান্ত,টাস্কফোর্স গঠনের প্রস্তাব আলেম-ওলামাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা-ভক্তি রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রংপুরের তারাগঞ্জে ট্রাকচাপায় তিন নারী শ্রমিক নিহত কুমিল্লার তিতাস ও মেঘনা উপজেলায় ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী যারা !
বিয়ের পর দিন ধর্ষণ মামলায় বর গ্রেপ্তার

পরোকিয়া প্রেমিকের ধর্ষণ মামলায় বিয়ের পর দিন বর গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ৩১৬জন দেখেছেন
Image



আমিরুল হক, নীলফামারী :

 

নীলফামারীর সৈয়দপুরে বিয়ের পরের দিনেই ধর্ষণ মামলায় বরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সোমবার (১ নভেম্বর) দুপুরে নিজ বাসা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার বর শাহীন বাবু (৪০) শহরের গোলাহাট এলাকার মৃত আসগার আলীর ছেলে। মামলার বাদী দিনাজপুরের খানসামার খলিপা পাড়ার কাশেম আলীর মেয়ে গার্মেন্টস কর্মী মিনু আক্তার (৩৫)।

পুলিশ জানায়, মিনু আক্তারের সাথে শাহীন বাবুরর দীর্ঘদিনের পরকীয়া সম্পর্ক ছিল। বিয়ের প্রলোভনে তাঁকে একাধিবার ধর্ষণ করে বাবু। গত রবিবার রাতে মিনু থানায় এসে তাঁর বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা করেন। পরের দিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তারেক মাহমুদ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করে।

মামলার বাদী মিনু আক্তার বলেন, শাহীন বাবুর সাথে আমার দশ বছর ধরে সম্পর্ক চলে আসছে। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দেয়ায় আমি স্বামী সংসার ছেড়েছি। স্বামী- স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ঢাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে দীর্ঘদিন একসাথে থেকেছি। কিন্তু সে আমার সাথে প্রতারণা করে অন্য একজনকে বিয়ে করেছে।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসনাত খান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আদালতের মাধ্যমে তাঁকে ওইদিনেই জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

 

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



জাতীয যুব দিবস পালিত

সৈয়দপুরে জাতীয় যুব দিবস পালন

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Sunday ২৮ November ২০২১ | ১১৭জন দেখেছেন
Image


আমিরুল হক, সৈয়দপুর, নীলফামারী :

“দক্ষ যুব সমৃদ্ধ দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ” এ প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে নীলফামারীর সৈয়দপুরে  পালিত হয়েছে জাতীয যুব দিবস। সোমবার (১ নভেম্বর) দুপুরে এ উপলক্ষ্যে যুবকদের মাঝে শতাধিক গাছের চারা বিতরণ করা হয়। যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর ও সেতুবন্ধন যুব উন্নয়ন সংস্থার আয়োজনে এ চারা বিতরণ করা হয়েছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শামীম হুসাইন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোখছেদুল মোমিন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সানজিদা বেগম লাকী, উপজেলা যুব উন্নয়ন অফিসার  হাসান আলী, উপজেলা সমাজসেবা অফিসার নূর মোহাম্মদ, আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ্ব মজিবর রহমান ও সেতুবন্ধন যুব উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি আলমগীর হোসেন।


খবর প্রতিদিন/ সি.বা

নিউজ ট্যাগ: যুব দিবস

আরও খবর



রিকশাচালক বাবার ঘরের টিন খুলে নিল ছেলের পাওনাদাররা

ছেলে কাছে টাকা পায় তাই রিকশাচালক বাবার ঘরের টিন খুলে নিল পাওনাদাররা

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ২০৭জন দেখেছেন
Image


 

আমারা বড় ছেলে আবুল কাশেম বৌ নিয়ে আলাদা থাকে। তার কাছে স্থানীয় ইউনুস, আবুল কালাম ও রবিন নামে তিন যুবক টাকা পাবে বলে দাবি করে আসছে। কিন্তু কিসের টাকা বা কত টাকা পাবে তা আমি জানি না। আর এ টাকার জন্য প্রায়ই গালমন্দ ও মারধরের হুমকি শুনতে হয়েছে আমাকে। গত শুক্রবার আমার ঘরের টিনের চাল খুলে নিয়ে যায় ওই তিন যুবক।

 

রোববার দুপুরে কান্নাজড়িত কণ্ঠে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন আবদুর রহিম নামে এক বৃদ্ধ রিকশাচালক। তিনি লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের দক্ষিণ মজুপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার দুই ছেলে, এক মেয়ে। অন্যদিকে, অভিযুক্তরা হলেন- একই এলাকার সিরাজের ছেলে ইউনুস, আলীর ছেলে আবুল কালাম ও খোকনের ছেলে রবিন।

 

আবদুর রহিম বলেন, ছেলের অপরাধের জন্য বাবাকে শাস্তি ভোগ করতে হবে, এটা কেমন বিচার। আমি রিকশা চালিয়ে কোনোরকমে স্ত্রী, স্কুল পড়ুয়া দুই নাতনী ও প্রতিবন্ধী ছোট ছেলেকে নিয়ে থাকি। কার সঙ্গে আমার ছেলের ব্যবসা আছে তাও জানা নেই। তাকে না পেয়ে টাকা পাওয়ার দাবি করে তারা বাড়িতে হামলা করে আমার ঘরের টিনের চাল খুলে নিয়ে যায়। এখন চালবিহীন (ছাউনি ছাড়া) ঘরে গত তিনদিন মানবেতর জীবনযাপন করছি। রাতে কুয়াশায় ভিজতে হচ্ছে আবার উপরে ছাউনি না থাকায় দিনে রৌদে কষ্ট পেতে হচ্ছে।

 

এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত থানায় কোনো অভিযোগ করেননি ওই রিকশাচালক। কারণ হিসেবে তিনি জানিয়েছেন, মামলা করতে টাকা লাগে, সে টাকা তো আমার নাই। ঘটনার পর থেকেই আমি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছি। গত তিনদিন রিকশা নিয়ে বের হতে পারিনি। এছাড়া অভিযুক্তরাও প্রভাবশালী।

 

স্থানীয় ও প্রতিবেশীরা জানান, রিকশাচালক আবদুর রহিমের ছেলে কাশেম চট্টগ্রামে মাছের ব্যবসা করতেন। ব্যবসার জন্য ইউনুস, কালা ও রবিনের কাছ থেকে টাকা ধার নেন কাশেম। ব্যবসায় লোকসান হওয়ায় কাশেম গা ঢাকা দেয়। কিন্তু পাওনা টাকা উদ্ধারের জন্য আইনের আশ্রয় না নিয়ে নিজেরাই কাশেমের বাড়িঘরে হামলা চালায়। এক পর্যায়ে বৃদ্ধ রহিমের বসতঘরের টিন খুলে ফেলে তারা। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চান তারা।

   

খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর



আজকের ইউপি নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রে কেউ মারা যায়নি: ইসি সচিব

প্রকাশিত:Thursday ১১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ১৭৯জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে সহিংসতায় নিহতদের মধ্যে ভোটকেন্দ্রে কেউ মারা যায়নি বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার।বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নির্বাচন ভবনে দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

 

ইসি সচিব বলেন, আপনারা বলেছেন ছয়জন মারা গেছেন, এটি ঠিক। এটির জন্য কমিশন ব্যথিত। এটি আমরা কখনো চাইবো না রাষ্ট্রের একজন নাগরিকও যেকোনো কারণেই নিহত হোক। আজ যে ছয়জন মারা গেছে তারা কেউ আমাদের ভোটকেন্দ্রে মারা যায়নি। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী যারা তাদের মধ্যেই ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, তাদের মধ্যেই সহিংসতা হয়েছে এবং তারা মারা গেছে।

 

তিনি বলেন, মোট যে ৮৩৪টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোট হয়েছে আমরা সব জেলা-উপজেলায় খোঁজ নিয়েছি, প্রার্থীরাও কেউ কেউ আমাদের কাছে অভিমত ব্যক্ত করেছেন, আমরা জানতে পেরেছি ভোটটি খুব সুন্দর হয়েছে, উৎসবমুখর হয়েছে।

 

হুমায়ুন কবীর খোন্দকার বলেন, এই ধাপের ৮৩৪টি ইউপি নির্বাচনে ৮ হাজার ৪০০ ভোটকেন্দ্র। আমরা গণমাধ্যম ও ল’ মনিটরিং সেন্টারের মাধ্যমে রিপোর্ট পেয়েছি ১০টি কেন্দ্রে ব্যালট ছিনতাইয়ের চেষ্টা করেছে। আমাদের প্রিসাইডিং অফিসাররা ওই ১০ কেন্দ্রের ভোট বন্ধ করে দিয়েছেন। এগুলোতে পরে ভোটগ্রহণ করা হবে। অন্য কেন্দ্রগুলোর রেজাল্ট নিয়েও যদি ডিসিশন না হয় তখন পরবর্তীতে ভোট নেওয়া হবে। আমরা মনে করি পুরো দেশে ভালো ভোট হয়েছে।

 

গতকাল চতুর্থ ধাপের ভোটের তফসিল হয়েছে, পরবর্তী ধাপের ভোট নিয়ে আবার কমিশনের বৈঠক হবে বলেও জানান ইসি সচিব।

 

এর আগে আজ দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দেশের বিভিন্ন স্থানে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। নির্বাচনী সহিংসতায় অন্তত ছয়জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন শতাধিক।

 

নিহতদের মধ্যে নরসিংদীতে তিনজন, কক্সবাজারে একজন, চট্টগ্রামে একজন ও কুমিল্লায় একজন রয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় শুরু হয়ে বিকেল ৪টায় ভোটগ্রহণ শেষ হয়।

 

খবর প্রতিদিন/ সি.বা 

নিউজ ট্যাগ: ইউপি নির্বাচন

আরও খবর



একসঙ্গে পাঁচ ছেলে-মেয়ের জন্ম

৬ মাসেই একসঙ্গে পাঁচ ছেলে-মেয়ের জন্ম দিলেন সাদিয়া

প্রকাশিত:Tuesday ০২ November 2০২1 | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ৪১৩জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image

 


কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে একসঙ্গে পাঁচ সন্তানের জন্ম দিয়েছেন সাদিয়া খাতুন নামে এক প্রসূতি। তাদের মধ্যে চারজন মেয়ে ও একজন ছেলে। গর্ভধারণের মাত্র ছয় মাসের মাথায় শিশুগুলোর জন্ম হয়েছে।

 

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, নির্দিষ্ট সময়ের আগে প্রসব হওয়ায় বাচ্চাগুলোর ওজন কম হয়েছে। মা সুস্থ থাকলেও বাচ্চাগুলো ঝুঁকিতে রয়েছে।মঙ্গলবার সকাল ১০টার দিকে একসঙ্গে পাঁচ শিশুর জন্ম হয়। প্রসূতি সাদিয়া কুমারখালী উপজেলার পান্টি ইউনিয়নের পান্টি গ্রামের কলেজপাড়া এলাকার সোহেল রানার স্ত্রী।

 

হাসপাতাল সূত্র জানায়, ৬ মাসের মাথায় সাদিয়া বাচ্চা প্রসব করেছেন। একসঙ্গে পাঁচ বাচ্চা প্রসবে অনেক ঝুঁকি ছিল। তবে মা সুস্থ থাকলেও ওজন কম হওয়ায় ঝুঁকিতে রয়েছে বাচ্চাগুলো।সাদিয়ার ননদ রাবেয়া বলেন, সোমবার রাত ১০টায় হাসপাতালে আসি। ৬ মাস ১০ দিনের মাথায় নরমাল ডেলিভারিতে বাচ্চাগুলোর জন্ম হয়েছে। আমার ভাবি সুস্থ আছেন। আমরা খুবই খুশি।

 

শিশুদের বাবা সোহেল রানা বলেন, ২০১৬ সালের ৩০ জুলাই সাদিয়া খাতুনকে বিয়ে করি। পাঁচ বছর পর আমাদের একসঙ্গে পাঁচ সন্তান হলো। আমরা খুবই খুশি। আমার স্ত্রী সুস্থ আছে, বাচ্চারা শিশু ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন।

 

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক শাহীন আক্তার সুমন বলেন, বাচ্চাদের সুস্থ করে তোলার চেষ্টা চলছে। তবে ঝুঁকি থেকেই যাচ্ছে। তাদের ওজন কম হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত ঢাকা মেডিকেল কলেজের শিশু বিভাগে অথবা শিশু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। বাচ্চাগুলোর ওজন ৫০০ থেকে ৬০০ গ্রাম। তবে মা সুস্থ রয়েছেন।

 

-খবর প্রতিদিন / সি.বা 


আরও খবর



শাহরুখের বাংলোর নাম ‘মান্নত

শাহরুখের বাংলোর নাম ‘মান্নত’ রাখতে গিয়ে কালঘাম ছুটেছিল, জানুন সেই গল্প

প্রকাশিত:Monday ০১ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৯ November ২০২১ | ১৪৬জন দেখেছেন
বিনোদন ডেস্ক

Image


মুম্বাইয়ের প্রধান দ্রষ্টব্য স্থানগুলির মধ্যে যে অন্যতম মান্নত তা নিয়ে কারো মধ্যে কোনো দ্বিধা নেই। আর মতান্তর থাকবেই বা কেন? মান্নতের বাসিন্দা যে বলিউডের ‘বাদশা’। উঁচু পাঁচিল ঘেরা ছোটখাটো এই প্রাসাদের বাইরে থেকে শাহরুখ খান কিংবা তার পরিবারের সদস্যকে দেখা না গেলেও মান্নত দর্শনটুকুই কম কিছু নয় ‘কিং খান’ এর অনুরাগীদের কাছে।

 

তবে জানেন কি, প্রথম থেকেই শাহরুখের এই বাংলোর নাম কিন্তু মোটেই মান্নত ছিল না! পুরনো সেই নাম হঠিয়ে নিজের স্বপ্নের বাংলোর এই নাম রাখেন ‘বাদশা’।

সেটা ১৯৯৭ সাল। ‘ইয়েস বস’ এর শুটিং করছেন শাহরুখ। সেই শুটিং চলাকালীন প্রথমবার ‘মান্নত’ দর্শন হয় তার। আর প্রথম দেখাতেই প্রেম। সেইদিনই মনে মনে তিনি ঠিক করে ফেলেন যে একদিন এই বাংলোটি তিনি নিজের জন্য কিনবেন। সেইসময় ওই বাংলোর মালিক ছিলেন একজন গুজরাতি। নাম ছিল নারিমান দুবাস। আর ‘মান্নত’ এর পরিচয় ছিল ‘ভিলা ভিয়েনা’ হিসেবে।

 

২০০১ সাল। শাহরুখ তখন খ্যাতির মধ্যগগনে। ততদিনে পেয়ে গেছেন বলিউডের ‘বাদশা’-র খেতাব। অবশেষে একদিন তিনি নিজে গিয়ে দেখা করলেন নারিমান সাহেবের সঙ্গে। দিলেন বাংলো কিনে নেওয়ার প্রস্তাব। প্রথমে একেবারেই সেই প্রস্তাবে রাজি হননি অপর পক্ষ। অবশেষে বহু চেষ্টার পর মন গিলেছিল গুজরাতি ব্যবসায়ীর। রাজি হয়েছিলেন শাহরুখকে তার সাধের বাংলোটি বিক্রি করতে।

 

শোনা যায়, ‘বাই খুরশেদ ভানু সঞ্জনা ট্রাস্ট’ এর তরফে এই বাংলোটি কিনেছিলেন শাহরুখ। তখনকার দিনে ১৩.৩২ কোটি টাকার বিনিময়ে  ‘ভিলা ভিয়েনা’-র অধিকর্তা হয়েছিলেন ‘কিং খান’। বর্তমানে যার মূল্য প্রায় ২০০ কোটি টাকার কাছাকাছি। ওই বাংলোটি কেনার পরের ৪ বছর সম্ভবত আইনি জটিলতার কারণে নাম পাল্টাতে পারেননি শাহরুখ।

শেষ পর্যন্ত ২০০৫ সালে কাগজপত্রে সইসাবুদ করে পাকাপাকিভাবে ‘ভিলা ভিয়েনা’-র নাম বদলে হয় ‘মান্নত’।

-খবর প্রতিদিন /সি.বা 


আরও খবর