Logo
আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম
কক্সবাজারে পাহাড় ধসে স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু বন্ধ শিল্প প্রতিষ্ঠান চালুর পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে: শিল্পমন্ত্রী বাংলাদেশের হার দিয়ে সুপার এইট শুরু গোদাগাড়ীতে রাসেল ভাইপারের চিকিৎসার দাবিতে স্বাস্থ্য মন্ত্রীর কাছে চিঠি দিয়েছে নাগরিক স্বার্থ-সংরক্ষণ কমিটি রূপগঞ্জে জমে উঠেছে কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচন যাত্রাবাড়ীতে পুলিশ কর্মকর্তার বাবা মাকে কুপিয়ে হত্যা যানজট নিরসনে সংসদ সদস্যগণের সাথে ট্রাফিক ওয়ারী বিভাগের সমন্বয়সভা ভোলায় ফের দেখা মিলল রাসেল ভাইপার, জনমনে আতঙ্ক বাজেট পাস হয়নি,অনেক কিছু পুনর্বিবেচনা করা সম্ভব: অর্থমন্ত্রী দেশের সব মহৎ অর্জন আ. লীগের মাধ্যমেই হয়েছে: ওবায়দুল কাদের

প্রচন্ড তাপদহে থেমে নেই কৃষকরা চলছে বীজ বহন ধান কাটা মাড়ায়

প্রকাশিত:শুক্রবার ০২ জুন 2০২3 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৩৫৫জন দেখেছেন

Image
আব্দুস সবুর তানোর:বেশ কয়েক দিন ধরে চলছে তীব্র তাপমাত্রা, ঘরে বাহিরে কোন স্বস্তি নেই, মাঠে বেশি সময় দাড়াতেই পরছেননা কৃষক শ্রমিকরা। কিন্ত খরতাপে ঘরে থাকলে তো আর চাষা বাদ হবে না। কোনকিছু আটকাতে পারে না রাজশাহীর তানোর উপজেলার কৃষক শ্রমিকদের। ভরদমে আলু পরবর্তী ধান কাটা মাড়ায় ও রোপা আমন চাষের জন্য চলছে বীজ বপনের কাজ।  বিশেষ করে সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ পর্যন্ত রাস্তায় তেমন ভাবে দেখা মিলছেনা জনসাধারনের। পিচঢালা রাস্তায় যেন শরীর পুড়ে যাচ্ছে। গত বুধবার বাড়ি টিন দিয়ে ছাওয়ার জন্য উল্টিয়ে ফেলেন পৌর সদর গুবিরপাড়া গ্রামের হান্নান। মিস্ত্রী র কাজ করছেন সুবারন। কিন্তু প্রখর রোদে দাড়াতেই পারছেন না। শুক্রবারে কাজে এসে সকালেই শুয়ে পড়েন। আর কাজে হাত দিতে পারেন নি। তিনি জানান, বিগত ২০০৩ সাল থেকে মিস্ত্রির কাজ করছি। জৌষ্ঠ মাসে এমন প্রচন্ত রোদের প্রখরতা দেখিনি। টিন ছাওয়ার জন্য উপরে উঠলে মনে হচ্ছে মাথার কয়েক হাত উপরে সূর্য। অথচ কোটিকোটি মাইন উপরে সূর্য, সেই তাপ সহ্য হচ্ছে না। শরীর হাত পা মুখমন্ডল মনে হচ্ছে পুড়ে যাচ্ছে। আমার জীবনে চলতি বছরে রমজান মাসে ও মে জুনে দেখছি ভয়াবহ তাপ প্রবাহ। গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে বোমন ও পেশার লো হয়ে গেছে। আমার সাথে আরেকজন কাজ করছিল তার একই অবস্থা। কাজ করতে না পারলে সংসার ও কিস্তি মিটবে না।

জানা গেছে,  উপজেলা জুড়ে প্রতিটি মাঠে আলু পরবর্তী ধান কাটার ধুৃম পড়েছে। কিন্তু রোদের তাপে শ্রমিকরা এক ঘন্টা কাজ করলে দু ঘন্টা মাথায় বুকে পানি দিতে হচ্ছে। শরীরে থাকা সার্ট পরনের লুঙ্গি ঘামে ভিজে একাকার হয়ে পড়ছে।শ্রমিক মুস্তফা জানান, রোদের তাপের কারনে ফজরের আযানের আগে ধান কাটা শুরু করছি। তখন আবার কোয়াশা পড়ছে। আরেক শ্রমিক মফিজ জানান, গরীবের কাজ না করলে ভাত জুটবেনা। তাপে পুড়ে হলেও কাজ করে সংসার পরিচালনা করতে হবে।এদিকে উপজেলা জুড়ে আলুর জমিতে রোপন করা ধান পেকেছে, ইতিপূর্বেই কাটা শুরু হয়েছে। রয়েছে শ্রমিক সংকটের কারনে বেকায়দায় কৃষকরা। ধান মাড়ায় হপার হারভেস্টাকর মেশিন এসেছে অর্ধশতাধিকের মত। একবিঘায় মেশিনে নিম্মে১৫০০ থেকে উর্ধ্বে ২ হাজার টাকা খরচ হচ্ছে। আর শ্রমিক দিয়ে ৬-৭ হাজার টাকা খরচ। কিন্তু মেশিনে খড় পাচ্ছেনা, আর শ্রমিক কাটা মাড়ায় করলে খড় পাচ্ছেন।এছাড়াও রোপা আমন রোপনের জন্য বীজ বহন শুরু হয়ে গেছে।গত বৃহস্পতিবার বীজ বপনের সময় বিহারইল মাঠে কথা হয় মাদারিপুর গ্রামের কৃষক সুফিয়ানের সাথে। তিনি জানান ১০ শতাংশের কিছু বেশি জমিতে স্বর্না জাতের ৪৫ কেজি বীজ বহন করছি। ৪৫ কেজি বীজ ভালো হলে ১০ বিঘা জমি রোপন করা যাবে। আমরা একটু আগাম বীজ বপন ও চাষ করে থাকি। তিনি আরো জানান বিঘায় ৪ কেজি বীজ লাগে। এক বিঘা জমিতে বীজ তৈরি থেকে উত্তোলন পর্যন্ত ৬-৭ হাজার টাকা খরচ হয়।ওহিদুল নামের আরেক কৃষক সাড়ে তিন মন বীজ বপন করেছেন।

সুফিয়ান, আব্দুল সহ একাধিক কৃষকরা জানান, এক মন বীজের ধান কিনতে হচ্ছে ১৭০০-১৮০০ টাকা দিয়ে। অথচ একমন ধান বিক্রি হচ্ছে ১হাজার টাকায়।  কৃষক যাবে কোথায়, কেজি প্রতি সারের দাম ৫ টাকা বাড়িয়েছে সরকার। আবার পটাশ সার ১২০০-১৩০০ টাকা ছাড়া মিলছে না। সব দিক থেকে মরছে কৃষক। কিভাবে একজন প্রান্তিক কৃষক পথে বসবে সেটাই করা হচ্ছে।উপজেলা কৃষি অফিসার সাইফুল্লাহ আহম্মেদ জানান, আরো এক সপ্তাহ বোরো ধান কাটা চলবে। তারপর থেকে যেটা কাটা হবে সেটা আউশ হিসেবে ধরা হবে। রোপা আমনের লক্ষমাত্রা ২২ হাজার ৪০০ হেক্টর। সে মোতাবেক ১১২০ হেক্টর জমিতে বীজের লক্ষমাত্রা, সে অনুপাতে ৮০০ মে:টন বীজের প্রয়োজন। তবে খরতাপের কারনে অবশ্য শ্রমিকদের মারাত্মক কষ্ট হলেও কৃষকরা শুকনো ঝরঝরে ধান ঘরে তুলতে পারছেন। এবার বোরোতে বাম্পার ফলন হয়েছে, তবে ফড়িয়া সিন্ডিকেট দাম কমছে, সে বিষয়ে বিপনন বিভাগকে অবহিত করা হয়েছে। অল্প সময়ের মধ্যে হাট বাজার, আড়ত ও চাতালে অভিযান পরিচালনা করবে।


আরও খবর



সিরাজগঞ্জে প্রকৃতি ও জীবন ক্লাবের আয়োজনে চিত্রাঙ্গন,বৃক্ষরোপণ ও গাছের চারা বিতরণ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ৭৪জন দেখেছেন

Image
রাকিব সিরাজগঞ্জ থেকে:সুন্দর প্রকৃতিতে গড়ি সুস্থ জীবন এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে প্রকৃতি ও জীবন ক্লাবের জন্মদিন উপলক্ষে সারা দেশের ন্যায় সিরাজগঞ্জেও নানা অনুষ্ঠান মালার আয়োজন করা হয়েছে।  কর্মসূচির মধ্যে ছিল শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা গান,নৃত্য,শোভাযাত্রা,বৃক্ষ রোপণ ও ছাত্র ছাত্রীদের মাঝে গাছের চারা বিতরণ। 

বৃহস্পতিবার (৬ জুন) সকালে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলাধীন বহুলী ইউনিয়নের চাঁদপাল গ্রামে আয়েশা রশিদ বিদ্যানিকেতনের বিভিন্ন আয়োজন করে থাকে প্রকৃতি ও জীবন ক্লাব। 

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মো:আনোয়ার সাদাত। 
 
এসময় উপস্থিত ছিলেন,আয়েশা রশিদ বিদ্যানিকেতনের স্কুল প্রধান শিক্ষক গোলাম মওলা,প্রকৃতি ও জীবন ক্লাবের উপদেষ্টা মো:জাকির হোসেন,মো: আশিক আহমেদ,  

বক্তাগণ বলেন,সুন্দর প্রকৃতি গড়তে প্রকৃতি ও জীবন ক্লাবের এমন উদ্যোগ কে আমরা সাধুবাদ জানায়। সদর উপজেলার চাঁদপাল গ্রামে অবস্থিত আয়েশা রশিদ বিদ্যানিকেতনের ক্ষুদে ছাত্র-ছাত্রীরা খুবই আনন্দিত। আমরা দেখেছি প্রকৃতি ও জীবন ক্লাবের জন্মদিন উপলক্ষে ছাত্র-ছাত্রীরা কেউ ছবি আঁকছে,কেউবা গান গাইছে,কেউ নৃত্য করছে। চিত্রকর্মে ফুটিয়ে তুলছে প্রকৃতির ফুল পাখি লতা পাতা সহ নানা ছবি। সুন্দর ও সবুজ পৃথিবী গড়তে হলে নতুন প্রজন্মদের কে নিয়ে আমাদের কে আরও এগিয়ে যেতে হবে।  

উল্লেখ্য,এই কর্মসূচির মধ্য দিয়ে প্রকৃতি ও জীবন ক্লাবের বৃক্ষ রোপণ কার্যক্রম শুরু করা হলো। আগামী ৩০ শে জুন পর্যন্ত বৃক্ষরোপণ ও গাছের চারা বিতরণ কার্যক্রম পরিচালিত হবে। এবার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও আঞ্চলিক সড়কগুলোতে বৃক্ষ রোপণ কার্যক্রম অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

আরও খবর



"সাংবাদিককে চিঠি" রিটার্নিং কর্মকর্তা অভিযুক্ত প্রার্থীর বেলায় নীরব আচরণ

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image

রাসেল হোসেন নিরব(পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃপটুয়াখালীর দুমকিতে এমপির দেয়া প্যারাডো গাড়ীতে চড়ে মোটর  সাইকেল মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী ড. হারুণ অর রশীদ হাওলাদারের নির্বাচনী প্রচারণায় আচরণ বিধি লঙ্ঘণে পদক্ষেপ গ্রহণের পরিবর্তে প্রকাশিত সংবাদের প্রমাণক চেয়েছে প্রশাসন।

পটুয়াখালীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং অফিসার যাদব সরকার গত বৃহস্পতিবার দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন পত্রিকার দুমকি উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ দেলোয়ার হোসেনকে এক চিঠিতে প্রকাশিত সংবাদের প্রমাণক দাখিলের নির্দেন দেন।

উল্লেখ্য, পটুয়াখালী-১ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদারের ভাগ্নে দুমকি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মোটর সাইকেল প্রতীকের চেয়ারপ্রার্থী ড. হারুন অর রশীদ হাওলাদারের পক্ষে বিভিন্ন সভা-সমাবেশে প্রকাশ্যে তিনি (এমপি) ভোট চান। এমনকি তার ব্যবহৃত (ঢাকা মেট্রো-ঘ ১৩-৪৩১২) নম্বরের প্যারাডো গাড়ীটিও তাকে নির্বাচনী প্রচারের জন্য দিয়ে দেন। বিআরটিএ তথ্যমতে গাড়ীটি নীলফামারী-৪ আসনের প্রায়াত এমপি লেঃকর্ণেল মারুফ সাকলাইনের নামে নিবন্ধিত। একজন প্রায়াত সংসদ সদস্যের নামে নিবন্ধিত গাড়ীটি কিভাবে পটুয়াখালী-১ আসনের সাংসদ এবিএম রুহুল আমীন হাওলাদার ও তার পরিবারবর্গ গত ৬ মাস ধরে ব্যবহার করছেন এবং একই গাড়ীটি মোটর সাইকেল মার্কার চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশীদ হাওলাদারের নির্বাচনী প্রচারণায় কেন ব্যবহার করছেন এ তথ্য অনুসন্ধানের পরিবর্তে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রমাণক চেয়ে উল্টো সংশ্লিষ্ট সাংবাদিককে চিঠি দেয়া হয়। 

এ বিষয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা যাদব সরকারের বক্তব্য জানতে চাইলে উল্টো তিনি প্রমাণক চান। দ্রুত প্রমাণক চাইতে গিয়ে নাম বাদ দিয়ে শুধু ফোন নাম্বার দিয়ে চিঠি দেয়া হয়। যদিও পরে আবার সংশোধন করা হয়।

রিটার্নিং কর্মকর্তা বরাবর লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিক দেলোয়ার জানান, গণমাধ্যম কর্মী হিসেবে ঘটনার পূর্বাপর বিশ্লেষণ করে জনগণ ও প্রশাসনকে সর্তক করাই তার কাজ এবং একই সঙ্গে ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে তিনি জেলা রিটার্নিং অফিসারকে অনুরোধ করেন।

তা না করলে জনমনে যে প্রশ্নের জন্ম হয়েছে তা নিরসন হবে না, একই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুষ্ঠু উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের যে অঙ্গীকার তাও ব্যাহত হবে।

সংসদ সদস্যের গাড়ি ব্যবহার প্রসঙ্গে হারুন হাওলাদারের কাছে কোনো চিঠি দিয়েছেন কীনা এমন তথ্য জানতে ফোন দেয়া হলেও সাংবাদিক পরিচয় শুনলেই তিনি ফোন কেটে দিচ্ছেন। 

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও পটুয়াখালীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) যাদব সরকারের এমন কর্মকাণ্ডে হতবাক গণমাধ্যম কর্মীসহ দুমকীর সচেতন মহল। এম


আরও খবর



অসামাজিক কার্যকলাপে দায়ে ৩৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে কাফরুল থানা পুলিশ

প্রকাশিত:শনিবার ০১ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ১৭৮জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার , স্টাফ রিপোর্টার:২২ জন মহিলা ও ১১ জন পুরুষসহ মোট ৩৩ জনকে অসামাজিক কার্যকলাপের দায় গ্রেফতার  করেছে কাফরুল  থানা পুলিশ ।১ শুক্রবার সন্ধ্যায়  এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। কাফরুল  থানার  ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি ফারুকুল আলম তথ্য জানান। 

আটকৃতরা হলেন, মোছা:  স্বপ্না (২৭),সুরাইয়া (২০),কুলসুম বেগম (৩১),জান্নাতুল ফেরদৌস (২০),মোছা: ফারজানা (২৭),লাকি আক্তার (২০),মোছা: রাজিয়া (২৫),মোছা রিয়া(২১),মো: মোশারফ (৪৫),মো: আলী (৪৫),মো: আরিফ(৩৫),মো: হোসেন (২৩),বকুল(৩৫),মো: সজীব (১৯),মো: রিপন হোসেন(১৮),শাহাদাত হোসেন (২৪)সহ আরো অনেকে। 

মিরপুর জোনের এডিসি মাসুক মিয়া পিপিএম জানান,  বিভিন্ন আবাসিক হোটেল গুলি ব্যবসার নামে অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত। এছাড়াও বিভিন্ন অপরাধী বিশেষ করে মাদক সেবনকাররি রা হোটেল কক্ষকে নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে ব্যবহার করতো। স্থানীয় গণ্যমান্য লোকজনের কাছ থেকে এ ধরনের অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা অভিযান পরিচালনা করে বেশ কিছু মহিলা এবং পুরুষকে আটক করি। যে সকল হোটেল এ ধরনের কার্যকলাপ পরিচালিত হচ্ছে স্থানীয় জন প্রতিনিধির উপস্থিতিতে তা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন আছে ভবিষ্যতেও মিরপুর এবং কাফরুল এলাকার আবাসিক হোটেল গুলিতে এ ধরনের অভিযান পরিচালনা করা হবে।

ওসি ফারুকুল আলম বলেন,  আমাদের থানার নিয়মিত অভিযানে তাদের গ্রেফতার  করা হয়েছে। এই অভিযানের নেতৃত্ব দেন ওসি অপরেশন মো: আব্দুল বাতেন।

ওসি অপরেশন মো: আব্দুল বাতেন বলেন, কাফরুল থানার ওসি স্যারের  নির্দেশনায় ও এডিসি  স্যারের তত্ত্বাবধানে আমরা এতজনকে একসাথে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছি এবং হোটেল তালাবদ্ধ করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কাফরুল থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নাম্বার হলো ০১।

আরও খবর



ফকিরহাটে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী ওয়াহিদুজ্জামান বাবু

প্রকাশিত:বুধবার ২২ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ১৩৮জন দেখেছেন

Image

ফকিরহাট(বাগেরহাট)সংবাদদাতা:বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলায় বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনার মধ্য দিয়ে দিন ব্যাপি শান্তিপুর্ন ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বেসরকারি ফলাফলে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে মটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে যুবলীগ নেতা সাংবাদিক ওয়াহিদুজ্জামান বাবু ৪৬ হাজার ৬৫৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান স্বপন দাশ আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ২৯ হাজার ৭৭৭ ভোট।

বিষয়টি নিশ্বিত করেছেন সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া সিদ্দিকা সেতু।

অন্যদিকে মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার মানসা-বাহিরদিয়া ইউনিয়নের হোচলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের কর্মকর্তা রতন কৃষ্ণ দাসকে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া সিদ্দিকা সেতু জানান, ফকিরহাট সদর ইউনিয়নের বুড়ির বটতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের গোপন কক্ষে একসঙ্গে একাধিক ব্যক্তি প্রবেশ করায় তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। তাঁদের ওই কেন্দ্রের একটি কক্ষে প্রাথমিক ভাবে আটক রেখে ভোট গ্রহণের কার্যক্রম চালিয়ে নেওয়া হয়। বিক্ষিপ্ত কিছু অভিযোগ পাওয়া গেলেও সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট গ্রহণ হয়েছে।

বিঃ দ্রঃ ভাইস চেয়ারম্যানদের ফলাফল এখনও ঘোষণা দেয়নি সহকারী রিটানির্ং কর্মকর্তা।



আরও খবর



কুমিল্লায় স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স ২০২৪ অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বুধবার ১২ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০24 | ৪৪জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনায় স্কুল শিক্ষার্থীদের আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে উৎসাহিতকরণ এবং তাদের মধ্যে সঞ্চয়ের মনোভাব গড়ে তোলার লক্ষে কুমিল্লায় অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে স্কুল ব্যাংকিং কনফারেন্স। কুমিল্লার ঢুলীপাড়া ফানটাউন মিলনায়তনে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক পিএলসি (ইউসিবি) এর সার্বিক তত্বাবধানে কুমিল্লার ৪৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং ৪৪টি ব্যাংকের কর্মকর্তাদের নিয়ে দিনব্যাপী ওই কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংক এর পরিচালক (চট্টগ্রাম অফিস) মোহাম্মদ বদিউজ্জামান দিদার, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ব্যাংক (প্রধান কার্যালয়) এর অতিরিক্ত পরিচালক প্রজ্ঞা পারমিতা সাহা। বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন কুমিল্লার সহকারি জেলা শিক্ষা অফিসার রিক্তা বড়ুয়া, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক পিএলসি কর্পোরেট হেড অফিসের হেড অব ট্রান্সজেকশান ব্যাংকিং মো: সেকান্দার ই আজম, এসইভিপি।

বক্তারা বলেন, সারা বাংলাদেশে প্রায় ৪৩ লাখ শিক্ষার্থী স্কুল ব্যাংকিং করেন। তাদের সঞ্চিত আমানত প্রায় দুই হাজার দুইশ কোটি টাকা। যেহেতু দেশের বড় একটি অংশ শিক্ষার্থী সুতরাং তাদেরকে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করতে পারলে দেশের আর্থিক অগ্রগতি বাড়বে, দেশের উন্নয়ন হবে। পাশাপাশি শিক্ষার্থীরা সঞ্চয়ী মনোভাব নিয়ে বেড়ে উঠতে পারবে। অনুষ্ঠান শেষে আমন্ত্রিত শিক্ষার্থীদের স্কুল ব্যাগ ও উপহার সামগ্রী দেয়া হয়।


আরও খবর