Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা

পিরোজপুরে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজি;গ্রেফতার -১

প্রকাশিত:Saturday ০৭ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৫৯জন দেখেছেন
Image

বজলুর রহমান ঃঃ

পিরোজপুরের কাউখালীতে ডিবি পুলিশ পরিচয়ে চাঁদাবাজি করায় মো. জুয়েল রানা (২৮) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।


 শনিবার (০৭ মে) তাকে কাউখালীর বেকুটিয়া ফেরীঘাট এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।


গ্রেফতারকৃত যুবক জেলার সদর উপজেলার কুমিরমারা গ্রামের সিদ্দিক ফকিরের ছেলে।



 তার বিরুদ্ধে এলাকায় বিভিন্ন সময় সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজি করার অভিযোগ রয়েছে। 




কাউখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  (ওসি) মো. বনি আমিন জানায়, জুয়েল কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া ফেরিঘাট এলাকায় গাড়ির সিরিয়াল ব্রেক করে গাড়ি প্রতি ৮০০ থেকে ২৫০০ টাকা চাঁদা নিয়ে গাড়ি ফেরীতে ওঠার সুযোগ করে দেন। 



বিষয়টি স্থানীয় ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট রফিকুল ইসলামের দৃষ্টিগত হলে তাকে চ্যালেঞ্জ করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। এ সময় সে নিজেকে প্রথমে ডিবি পুলিশ পরিচয় দেয় এবং পরে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে একটি কার্ড দেখান। 



এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে কাউখালী থানায় গ্রেফতারকৃত জুয়েল রানাকে আসামী করে একটি প্রতারনা মামলা দায়ের করেন।


প্রসঙ্গত পিরোজপুরে একটি চক্র দীর্ঘদিন ধরে কখনও সাংবাদিক,কখনও ডিবি পুলিশ পরিচয়ে প্রতারনা ও চাঁদাবাজি করে আসছে।



 বিষয়টি স্হানীয় প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ ও পেশাদার সাংবাদিকরা জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইদুর রহমানকে অবহিত করেন। পুলিশ সুপার এ বিষয় ব্যবস্থা গ্রহনের আশ্বাস দেন।


আরও খবর



‘বাজেট বিনিয়োগবান্ধব, ব্যক্তিগত করমুক্তির আয়সীমা বাড়ানো প্রয়োজন’

প্রকাশিত:Thursday ০৯ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে বিনিয়োগবান্ধব বলে উল্লেখ করেছেন চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি মাহবুবুল আলম। তবে তিনি মনে করেন ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমা বাড়ানো প্রয়োজন।

বৃহস্পতিবার (৯ জুন) বাজেট ঘোষণার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (সিসিসিআই) পক্ষ থেকে এই মন্তব্য করেন তিনি।

মাহবুবুল আলম বলেন, বাজেটে করপোরেট কর হার হ্রাস করায় বিনিয়োগ উৎসাহিত হবে। কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, প্রবৃদ্ধি অর্জন এবং রপ্তানি বহুমুখীকরণ সম্প্রসারিত হবে। তবে ৫ দশমিক ৬ শতাংশ মূল্যস্ফীতির সাথে সামঞ্জস্য রেখে সেই অনুপাতে ব্যক্তিগত করমুক্ত আয়সীমাও বাড়ানো প্রয়োজন।

তিনি এ বাজেটকে মহামারি পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়া এবং যুদ্ধকালীন পরিস্থিতির কারণে বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট বিবেচনায় সময়োপযোগী বলে মন্তব্য করেন। ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে এ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন চট্টগ্রাম চেম্বারের সভাপতি।

তিনি আরও বলেন, বাজেটে মোট ব্যয় ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা, মোট আয় ৪ লাখ ৩৬ হাজার দুইশ’ ৭১ কোটি টাকা এবং ঘাটতি ২ লাখ ৪১ হাজার সাতশ ৯৩ কোটি টাকা। পরিচালন ব্যয় ৪ লাখ ১১ হাজার চারশ ৬ কোটি টাকা এবং বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি ২ লাখ ৪৬ হাজার ৬৬ কোটি টাকা। বাজেট ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক উৎস থেকে ঋণ নেওয়া হবে। অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ বাবদ ৭৩ হাজার একশ ৭৫ কোটি টাকা ব্যয় হবে, যা সরকারের বাজেট বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে চাপ সৃষ্টি করতে পারে। ঘাটতি মোকাবিলায় ক্রমবর্ধমান ঋণের ক্ষেত্রে সরকারের সচেতন হওয়া উচিত বলে মনে করি।

এসময় তিনি প্রস্তাবিত বাজেটে উল্লেখ করা বিভিন্ন কর হারের তথ্য তুলে ধরেন। বলেন, আমরা আশা করি, এই বাজেট বাস্তবায়ন সম্ভব হলে বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে কাঙ্ক্ষিত উন্নয়ন এবং অভ্যন্তরীণ সক্ষমতা বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে।


আরও খবর



প্রাথমিকে ঈদ-গ্রীষ্মকালীন ছুটি ১৯ দিন

প্রকাশিত:Saturday ২৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৮০জন দেখেছেন
Image

গ্রীষ্মকালীন, ঈদুল আজহা ও আষাঢ়ি পূর্ণিমা উপলক্ষে ২৮ জুন থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত মোট ১৯ দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

শনিবার (২৫ জুন) প্রকাশিত প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানা গেছে।

আদেশে বলা হয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২০২২ সালের ছুটি তালিকায় গ্রীষ্মকালীন ছুটি ১৬ থেকে ২৩ মে নির্ধারিত ছিল। শিক্ষকদের শ্রান্তি (পরিশ্রমজনিত অবসাদ) বিনোদন ছুটির সুবিধার্থে আগে নির্ধারিত গ্রীষ্মকালীন ছুটি ১৬ থেকে ২৩ মের পরিবর্তে ২৮ জুন থেকে ৫ জুলাই পর্যন্ত সমন্বয় করে নির্ধারণ করা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, আগামী ২৮ জুন থেকে ৫ জুলাই গ্রীষ্মকালীন ছুটি এবং ৬ থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত ঈদুল আজহা ও আষাঢ়ি পূর্ণিমা উপলক্ষে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সরাসরি পাঠদান বন্ধ থাকবে।

এদিকে, চলতি বছরের এসএসসি-সমমান পরীক্ষার জন্য দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। দেশে চলমান বন্যা পরিস্থিতির কারণে এ পরীক্ষা স্থগিত হলেও স্কুল-কলেজ আর খোলা হয়নি। তবে যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পরীক্ষা কেন্দ্র নেই, সেগুলো খোলা রাখতে দেখা গেছে।


আরও খবর



চাঁদে পানির খোঁজ চীনের

প্রকাশিত:Thursday ১৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৬জন দেখেছেন
Image

চীনের চ্যাঙই-৫ চন্দ্রযান চাঁদ থেকে নমুনা অর্থাৎ শিলা সংগ্রহ করেছে। সেখানে পানির উপস্থিতির ইঙ্গিত আগেই মিলেছিল। এখন পরীক্ষার মাধ্যমে তা নিশ্চিত হওয়া গেলো। চীনের বিজ্ঞানীরা এ তথ্য জানিয়েছে। চলতি সপ্তাহে একটি ম্যাগাজিনে এ বিষয়ে তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে। রুশ সংবাদমাধ্যম আরটির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে চন্দ্রযানটি চাঁদে পৌঁছায়। এরপর এটি এক দশমিক সাত কিলোগ্রাম শিলা, চন্দ্র মাটি সংগ্রহ করে। সংগ্রহ করা নমুনাগুলোর রাসায়নিক গঠন পরিমাপ করতে অন-বোর্ড যন্ত্রগুলো ব্যবহার করা হয়।

তথ্য অনুযায়ী, চাঁদের কিছু শিলায় পানির অণুগুলো পার্টস প্রতি মিলিয়নে ১২০ থাকতে পারে। অন্যান্য শিলায় এর পরিমাণ হতে পারে ১৮০।

এখন চাইনিজ একাডেমি অব সায়েন্সের একটি দল চ্যাঙই-৫ এর মাধ্যমে পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনা নমুনায় পানির উপস্থিতি নিশ্চিত করেছে।

তবে বিজ্ঞানীদের দ্বারা বিশ্লেষণ করা মাটি তুলনামূলকভাবে শুষ্ক বলে প্রমাণিত হয়েছে। পার্টস প্রতি মিলিয়নে পানির মাত্রা রয়েছে ২৮ দশমিক পাঁচ শতাংশ।

চীন যে প্রযুক্তির ক্ষেত্রে এক বড় শক্তি হয়ে উঠছে, মহাকাশ অভিযান দিয়ে তারা সেটা দেখাতে চাইছে। তারা বলতে চাইছে, বিশ্বমঞ্চে তাদের এখন এক বড় শক্তি হিসেবে সমীহ করে চলার সময় এসেছে।


আরও খবর



হজ-ওমরার প্রস্তুতি

প্রকাশিত:Thursday ০২ June 2০২2 | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

হজ-ওমরাহ কষ্টসাধ্য ইবাদত। হজের জন্য আর্থিক প্রস্তুতির সঙ্গে সঙ্গে শারীরিক প্রস্তুতিও জরুরি। কারণ শারীরিক সক্ষমতা না থাকলে হজের বিধানগুলো যথাযথভাবে পালন করা সম্ভব নয়। হজ-ওমরার জন্য বিশেষ কিছু বিষয়ের প্রস্তুতি আবশ্যক। তাহলো-

১. আকিদা-বিশ্বাসের সংশোধন
সঠিক আকিদা-বিশ্বাসের উপর প্রতিষ্ঠিত মুসলিম জীবন। যার আকিদা ঠিক নেই তার জীবন ব্যর্থ। মুসলিম ব্যক্তির প্রথম ও প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে, নিজেদের আকিদা-বিশ্বাস বিশুদ্ধ করা। মহান আল্লাহ বলেন, ‘যে ব্যক্তি বিশ্বাসের সঙ্গে কুফরি করবে, তার আমল নষ্ট হয়ে যাবে। সে পরকালে ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভূক্ত হয়ে যাবে।’ (সুরা মায়েদা : আয়াত ৫)
হজের মতো ফরজ ইবাদত পালনের আগে প্রত্যেক মুমিন মুসলমানের আকিদা-বিশ্বাস বিশুদ্ধ করা জরুরি। কুফরি, শিরকি, বিদাতি ও ভ্রান্ত আকিদা-বিশ্বাস থেকে বেরিয়ে আসা একান্ত আবশ্যক।

মুসলিম হওয়া সত্ত্বেও অনেক মুসলিম যেমন মসজিদে যায়, তেমনি তারা মাজারে গিয়ে সেজদা করে আবার মক্কায় যেমন যায়, তেমনি তারা মন্দিরেও যায়। সমাজে এদের সংখ্যা কম নয়। মহান আল্লাহ বলেন, ‘তাদের অধিকাংশ; যারা আল্লাহকে বিশ্বাস করে, তারা মুশরিক।’ (সুরা ইউসুফ : আয়াত ১০৬)

তাই হজ-ওমরাসহ ইসলামে বিশ্বাসী ব্যক্তির জন্য শিরকমুক্ত ঈমানি চেতনা জরুরি। তবেই বান্দার ছোট-বড় সব আমল আল্লাহর কাছে কবুল হবে। কারণ আকিদার-বিশ্বাসের উপর সব আমল কবুল হওয়া নির্ভরশীল। নবিজী বলেছেন, ‘সব আমল নিয়তের উপর নির্ভরশীল।’

নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরো বলেছেন, ‘নিশ্চয়ই আল্লাহ কোনো আমল কবুল করেন না, যদি তার জন্য খালেছ হৃদয়ে ও তার সন্তুষ্টির জন্য করা না হয়।’ বুখারি, মুসলিম, মিশকাত)

এজন্য বলা হয়, বিশুদ্ধ আকিদা দ্বীন ইসলামের শিকড় এবং মুসলিম মিল্লাতের সুদৃঢ় ভিত্তি।’

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, বরকতময় আল্লাহ তাআলা বলেন, আমি শিরককারীদের শিরক থেকে মুক্ত। যে ব্যক্তি কোনো আমল করে আর তাতে আমাকে ছাড়া অন্য কাউকে শরিক করে; আমি তাকে এবং তার শরিককে বর্জন করি।’ (মুসলিম)

২. বৈধ সম্পদ সংগ্রহ
ইবাদত কবুলের পূর্ব শর্ত হচ্ছে, হালাল রুজি তথা অর্থ সংগ্রহ। হজ-ওমরার জন্য এর বিকল্প নেই। নবিজী বলেছেন, ‘নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পবিত্র, তিনি পবিত্র বস্তু ছাড়া কবুল করেন না।’ (মুসলিম)
কারো খাদ্য, পানীয় ও পোশাক হারাম হলে তার কোনো ইবাদত গ্রহণযোগ্য হবে না। তাই প্রত্যেকের সতর্ক থাকতে হবে, খাদ্য, পানীয়, পোশাক ও আসবাব-পত্র হালাল নাকি হারাম। কোনো ধরনের দুর্নীতি ও অপরাধের মাধ্যমে অর্জিত অর্থে হজ-ওমরা করা হলে তা কবুল হবে না।

৩. হজ প্রশিক্ষণ
হজে যাওয়ার আগে হজ-ওমরাহ সম্পর্কিত প্রশিক্ষণ নেওয়া জরুরি। প্রশিক্ষণ ছাড়া হজে গেলে এর রোকন ও বিধানগুলো যথাযথভাবে পালন করা কঠিন হয়ে পড়ে। অনেকে ভুল করে ফেলেন। যে কারণে অনেকের কাফফারা গুনতে হয়। এ জ্ঞান না থাকার ফলে অনেকের হজ সম্পাদনও হয় না। এ জন্য যোগ্য সঙ্গী তথা আলেম-ওলামার সঙ্গে হজে যাওয়ার বিকল্প নেই।


আরও খবর



নির্মাণসামগ্রীর কাঁচামালের আমদানি শুল্ক সাময়িক স্থগিতের দাবি

প্রকাশিত:Sunday ২৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

নির্মাণসামগ্রীর অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধির কারণে দেশের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে স্থবিরতা দেখা দিয়েছে উল্লেখ করে এই পণ্যটির কাঁচামালের আমদানি শুল্ক সাময়িকভাবে স্থগিত, চলমান কাজসমূহের মূল্য সমন্বয় এবং নতুন রেট সিডিউল করাসহ ৭ দফা দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ঠিকাদার ঐক্য পরিষদ।

দাবিগুলো প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানকে জানাতে রোববার (২৬ জুন) দুপুরে আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) কার্যালয়ে যান সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ।

সেখানে সালমান এফ রহমানের সঙ্গে মতবিনিময় করেন তারা।

সভায় ঠিকাদার ঐক্য পরিষদের নেতারা বলেন, এক বছরের বেশি সময় ধরে নির্মাণ প্রকল্পের মূল উপকরণসমূহ যেমন- লোহা ও লোহাজাতীয় দ্রব্য, সিমেন্ট, পাথর, ইট, বিটুমিন, ডিজেল, অ্যালুমিনিয়াম, বিল্ডিং ফিনিশিং আইটেমসহ এ খাতের প্রায় সব ধরনের সামগ্রীর মূল্য অস্বাভাবিক ও লাগামহীনভাবে বৃদ্ধি পেয়ে অসহনীয় পর্যায়ে পৌঁছেছে।

তারা বলেন, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আমদানিকৃত সব নির্মাণসামগ্রী ও যন্ত্রপাতির মূল্যও ক্রমান্বয়ে আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। এছাড়া নির্মাণ প্রকল্পে ব্যবহৃত পানি ও বিদ্যুৎ বিল চুক্তিকৃত রেটের সঙ্গে সন্নিবেশিত না থাকায় ঠিকাদারকে তা পরিশোধ করতে হয়। গত অর্থবছরে দরপত্র দাখিলের সময় পাঁচ শতাংশ হারে আগাম আয়কর ধার্য ছিল, এখন তা সাত শতাংশ করা হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে প্রকল্পের অগ্রগতিতে অতি মন্থরতা দেখা দিয়েছে, বাস্তব অগ্রগতি খুবই হাতাশাব্যঞ্জক। কাজের স্বাভাবিক অগ্রগতি অর্জিত না হওয়ার ফলে ঠিকাদাররা বিল পাচ্ছেন না। ফলে ব্যাংকঋণ পরিশোধ করাও তাদের পক্ষে সম্ভব হচ্ছে না বিধায় ব্যাংক হতে আর্থিক সহায়তা প্রাপ্যতা অনিশ্চিত হয়ে যাচ্ছে এবং তাদের আর্থিক সক্ষমতা ব্যাপকভাবে হ্রাস পাচ্ছে।

তাদের অন্যান্য দাবির মধ্যে রয়েছে- চলমান কাজগুলো যেহেতু ফিক্সড রেট কন্ট্রাক্টে সম্পাদিত হচ্ছে তাই বিশেষ ব্যবস্থায় প্রজ্ঞাপন জারি করে পিপিআরএ সন্নিবেশিত ফর্মূলা অনুযায়ী প্রাইস অ্যাডজাস্টমেন্ট ধারা প্রয়োগ করে কাজের দর সমন্বয় করা, প্রতিটি দরপত্রে কাজ বাস্তবায়নের সময় বিবেচনা ব্যতিরেকে পিপিআর অনুযায়ী অত্যাবশ্যকীয় মূল্য সমন্বয় ধার্য করা, প্রকল্পের কাজে ব্যবহৃত পানি ও বিদ্যুৎ সংক্রান্ত খরচ রেড শিডিউলে সন্নিবেশিত করা, পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের সুপারিশে অর্থ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে প্রতিটি নির্মাণ কাজের প্রাক্কলনে প্রাইস কন্টিংজেন্সির আওতায় প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ করা, সরকারের পরিপত্র ও বিধিনিষেধ আরোপের কারণে নির্মাণসামগ্রীর দরের পরিবর্তনের প্রভাব এবং নির্মাণ ব্যয় সমন্বয় সংক্রান্ত পিপিআরে এ বর্ণিত ধারা ‘অ্যাডজাস্টমেন্ট ফর চেঞ্জেস ইন লেজিসলেশন’ কার্যকর করার পদক্ষেপ নেওয়া ও চলমান নির্মাণ চুক্তিগুলোর ক্ষেত্রে বিভিন্ন উন্নয়ন নির্বাহী প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে সমন্বয়ের জন্য একটি মূল্য সংশোধন সেল গঠন পূর্বক চুক্তিবদ্ধ নির্মাণ প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষতি পুষিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে একটি সুনির্দিষ্ট সুপারিশ ও নীতিমালা প্রণয়ন করে তা বাস্তবায়ন করা।

বাংলাদেশ ঠিকাদার ঐক্য পরিষদের দাবিসমূহের একটি কপি প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানকে দেওয়া হয়। এসময় তিনি দাবিগুলো বিবেচনার আশ্বাস দেন।

সভায় বাংলাদেশ ঠিকাদার ঐক্য পরিষদের সভাপতি রফিক আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ম. আব্দুর রাজ্জাক, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অফ কনস্ট্রাকশন ইন্ডাস্ট্রির (বাসি) ডিরেক্টর হাসান মাহমুদ বাবু, ওয়েস্টার্ন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. বশির আহমেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর