Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

পদ্মা সেতু বাংলার অহঙ্কারঃ গোলাম দস্তগীর।

প্রকাশিত:Friday ২৪ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১১৯জন দেখেছেন
Image

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি :মোঃ আবু কাওছার মিঠু 


বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী স্বপ্নের পদ্মা সেতুকে বাস্তবায়ন করে আমাদের শ্রেষ্ঠ উপহার দিয়েছেন। পদ্মা সেতু অনেক বড় একটি প্রকল্প। পদ্মা বহুমুখী দ্বিতল সেতু বাস্তবায়ন করে বাংলাদেশ তার সক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছে। 


পদ্মা সেতু হচ্ছে উন্নয়ন-অগ্রযাত্রার মূর্ত প্রতীক। বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে গতকাল ২৪ জুন বিকেলে উপজেলার ব্রাহ্মণখালী এলাকায় হাবিবুর রহমান হারেজ সিটি কলেজ মাঠে আয়োজিত সভায় এসব কথা বলেন। 


রূপগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে কর্মসূচির মধ্যে ছিল জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা, চিত্রাংকন, মিষ্টি বিতরণ, আলোচনা সভা ও শোভাযাত্রা। আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন রূপগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোঃ মশিউর রহমান তারেক।


সভায় বক্তব্য রাখেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীরপ্রতীক, রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ মোঃ শাহ্জাহান ভুঁইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান সৈয়দা ফেরদৌসী আলম নীলা, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মোঃ ছালাউদ্দিন ভুঁইয়া, রূপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল মান্নান মুন্সি, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের  সমন্বয়কারী ওবায়দুল মজিদ জুয়েল মাষ্টার, রূপগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ইমন হাসান খোকন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোন্তাজ উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান ভুঁইয়া, রূপগঞ্জ উপজেলা শ্রমিকলীগ নেতা মতিউর রহমান আকন্দ, রূপগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সহ সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার হাফেজ খালেদ হাসান, রূপগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি এম. এ মোমেন, রূপগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোতাহার হোসেন নাদিম, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন মহিলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক লাকি আক্তার, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন যুব মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক লাকি আক্তার, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাবেক সভাপতি আঃ আলিম সরকার, রূপগঞ্জ ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা রাসেল আহমেদ পিষ্টন, আওয়ামীলীগ নেতা দ্বীন মোহাম্মদ দিলু, এডভোকেট আজহারুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল-মামুন, অলিউল্লাহ, সামসুদ্দিন, আব্দুর রউফ, ওসমান গনি ভুঁইয়া খোকন, রূপগঞ্জ ইউপি সদস্য রিটন প্রধান, আলমগীর হোসেন, জাহানারা আক্তার, ছাত্রলীগ নেতা আজমীর হোসেন, কিরণ ভুঁইয়া, টিপু সুলতান,  আলীরাজ, সুমন খান ও ইশান আহমেদ রনি প্রমুখ।


পরে কেক কেটে  শোভাযাত্রা নিয়ে স্থানীয় সড়ক প্রদক্ষিণ করে। 



আরও খবর



‘ডিডিএলজে’তে শাহরুখের চরিত্রে ব্রিটিশ অভিনেতা, ভক্তদের ক্ষোভ

প্রকাশিত:Sunday ০৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ১০জন দেখেছেন
Image

বলিউডে সেরা একটি রোমান্টিক সিনেমা ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’। ভক্তরা ছবিটিকে ‘ডিডিএলজে’ বলে ডাকেন। শাহরুখ খান ও কাজল জুটির বক্স অফিস হিট সিনেমা এটি। ১৯৯৫ সালে মুক্তি পায় আদিত্য চোপড়া পরিচালিত প্রথম সিনেমা ‘ডিডিএলজে’।

মুক্তির দীর্ঘদিন পার হয়ে গেলেও আজও বলিউডে কান পাতলে শোনা যায় সিনেমাটি সম্পর্কে। বর্তমান সময়ের দর্শকদের কাছেও সমান জনপ্রিয় ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’। রাজ আর সিমরানের রোমান্স, ছবির গানগুলো আজও দর্শক হৃদয়ে নাড়া দিয়ে যায়।

এই ছবি দিয়েই শাহরুখ রোমান্টিক নায়কের তকমা পেয়েছিলেন। অনেকদিন ধরে অনেকেই সিনেমাটির রিমেক দেখতে চাইছেন। শেষ অবধি আদিত্য চোপড়ার হাত ধরেই ফিরছে ডিডিএলজি।

তবে রিমেক নয়, যুক্তরাষ্ট্রের ব্রডওয়ে থিয়েটারে। ‘কাম ফল ইন লাভ-ডিডিএলজে মিউজিক্যাল’ নামে নাটকের মাধ্যমে মঞ্চেই তুলে ধরা হবে রাজ আর সিমরানের প্রেমের গল্প। প্রযোজনা ও পরিচালনায় আদিত্য নিজেই।

তবে রাজের ভূমিকায় দেখা মিলবে ব্রিটিশ অভিনেতা অস্টিন কোলবির। অন্যদিকে সিমরানের চরিত্রে থাকছেন শোভা নারায়ণ। ‘কাম ফল ইন লাভ-ডিডিএলজে’ নামের মিউজিক্যাল নাটকটিতে চরিত্রগুলোর নাম পরিবর্তন হয়েছে। রাজের চরিত্রের নাম এখানে রগ। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অস্টিন নিজেই জানিয়েছেন বিষয়টি নিয়ে।

শাহরুখকে ট্যাগ করে অস্টিন কোলবি লিখেছেন, ‘কিছুদিন আগেই শুনেছিলাম ‘দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে জায়েঙ্গে’ সিনেমাটির গল্প নিয়ে কাজ হতে যাচ্ছে। আদিত্য চোপড়াকে অনেক ধন্যবাদ আমাকে সুযোগ করে দেয়ার জন্য। আমি আশা করি, আপনাকে আশাহত করব না।’

এর আগে এক বিবৃতিতে চলচ্চিত্র নির্মাতা আদিত্য চোপড়া জানিয়েছিলেন, ‘আমি ইন্দো আমেরিকান গল্প নিয়ে কাজ শুরু করেছি। ডিডিএলজে ২৬ বছর পর আমি গল্পটা ফিরিয়ে আনতে যাচ্ছি। এখানে একজন আমেরিকান ছেলে ও একজন ভারতীয় মেয়ের প্রেমের গল্প তুলে ধরা হবে।

এ দুটি সংস্কৃতির প্রেমের গল্প বিশ্বে তুলে ধরতে যাচ্ছি। তবে এবারে সিনেমা নয় বরং থিয়েটারে। ২৬ বছর পর আমি আবারো ডিডিএলজে পরিচালনা করব, তবে এবার বিশ্বব্যাপী দর্শকদের ইংরেজি ভাষার ব্রডওয়ে মিউজিক্যাল হিসেবে।’

তবে এ খবরে চটেছেন শাহরুখ ভক্তরা। কেননা ডিডিএলজে অনেকের কাছে আবেগ আর স্মৃতি জাগানিয়া একটি নাম। সেখানে একজন ব্রিটিশ অভিনেতাকে মেনে নিতে পারছেন না তারা। সেইসঙ্গে সিনেমার প্রধান দুটি চরিত্রের পরিবর্তনও মানতে পারছেন না।

সামাজিক মাধ্যমে নিজের মতামত জানিয়েছেন তারা। অনেক দর্শক বলছেন, ‘শাহরুখ আর কাজল ছাড়া মঞ্চে ডিডিএলজে দেখতে যাব কেন?’

কেউবা সরাসরি বলেছেন, ‘শাহরুখের জায়গায় একজন ব্রিটিশ শ্বেতাঙ্গ অভিনেতা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।’


আরও খবর



যে কারণে সিরিজ হারতে হলো বাংলাদেশকে

প্রকাশিত:Tuesday ০২ August 2০২2 | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

শেষ ম্যাচে দলে যুক্ত হলেন ‘পঞ্চ পাণ্ডবে’র অন্যতম সদস্য মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ; কিন্তু তাতেও শেষ রক্ষা হলো না। জিম্বাবুয়ের কাছে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ ২-১ ব্যবধানে হারলো টাইগাররা।

আজ ২ আগস্ট, মঙ্গলবার হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত বাহিনীর ১০ রানের পরাজয়ে সত্যি হলো অনেকের সন্দেহ, সংশয়।

শীর্ষ তারকাদের ছাড়া কঠিন চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করতে পারবে সোহানের দল?’- এই শিরোনামে গত ২৭ জুলাই জাগো নিউজে প্রকাশিত হয়েছিল এক প্রতিবেদন। শিরোনামই বলে দিচ্ছে কী ছিল তার প্রতিপাদ্য বিষয়?

সে প্রতিবেদনেই একটা বিষয় পরিষ্কার ছিল। তাহলো- পাঁচ শীর্ষ ও জনপ্রিয় তারকাকে ছাড়াই এবার জিম্বাবুয়ের সঙ্গে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে টাইগাররা। এক যুগেরও বেশি সময় সব ফরম্যাটেই যারা ছিলেন টিম বাংলাদেশের প্রধান চালিকাশক্তি, তাদের ঘিরেই আবর্তিতত হতো সব কিছু।

বিশেষ করে সাকিব, তামিম, মুশফিক আর রিয়াদের অন্তত তিনজন ছাড়া ক্রিকেটের ছোট পরিসরে দল হয়েছে খুব কম। এবার তারা কেউ নেই। তাদের অনুপস্থিতিতে একঝাঁক তরুণ ও নবীন ক্রিকেটারে গড়া দল কী জিম্বাবুয়ের সঙ্গে পেরে উঠবে?

পাশাাপাশি আরও একটি প্রশ্ন ছিল কারো কারো মনে- এক বছর আগে দুই ম্যাচ জিতিয়ে সৌম্য সরকার যে সিরিজ সেরা হয়েছিলেন, এবার তার ভূমিকা কেউ নিতে পারবে কি না?

অনেকের মনেই সংশয় ছিল, সিনিয়র ও অভিজ্ঞ এবং অপরিহার্য্য সদস্যদের অনুপস্থিতিতে এসব তরুণরা কী পারবেন নিজেদের মেলে ধরে দলকে সাফল্যের বন্দরে পৌঁছে দিতে?

সে সংশয় সত্য বলেই প্রমাণ হলো। তরুণরা শেষ পর্যন্ত কুলিয়ে উঠতে পারলেন না জিম্বাবুয়ের সাথে। কেউ সৌম্য সরকারের ভূমিকাও নিতে পারেননি। সৌম্যর মত জোড়া অর্ধশতক উপহার দেয়া বহুদুরে, লিটন দাস ছাড়া আর কেউ একটি হাফ সেঞ্চুরিও হাঁকাতে পারেননি।

দিন শেষে টি-টোয়েন্টি হলো ব্যাটারদের খেলা। ব্যাটাররা জ্বলে উঠতে না পারলে সাফল্য পাওয়া কঠিন। এ সিরিজে একটি মাত্র ম্যাচ জেতানো ফিফটি এসেছে টাইগারদের ব্যাট থেকে। দ্বিতীয় ম্যাচে ৫৬ রান করেছিলেন লিটন দাস। এছাড়া ম্যাচ জয়ের মত আর কোনো ইনিংস উপহার দিতে পারেননি টাইগার ব্যাটাররা।

বোলিংয়ে পুরো সিরিজে একটিই ম্যাচ উইনিং পারফরমেন্স আছে। সেটা দ্বিতীয় ম্যাচে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের ‘ম্যাজিক্যাল বোলিং স্পেলটি (৪ ওভারে ২০ রানে ৫ উইকেট)।

আজ শেষ ম্যাচেও সব বাটাররা ব্যর্থ। ১৫৭ রানের মাঝারিমানের টার্গেট ছুঁতে গিয়েও লিটন দাস, পারভেজ হোসেন ইমন, নাজমুল হোসেন শান্ত, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, আফিফ হোসেন ধ্রুব, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, শেখ মাহদির কেউই দল জিতিয়ে বিজয়ীর বেশে সাজঘরে ফিরতে পারেননি।

মূলতঃ ব্যাট হাতে ম্যাচ জেতানো ভূমিকা নিতে পারেননি কেউই। তার প্রমাণ তিন ম্যাচে একটি মাত্র ফিফটি। দ্বিতীয় ম্যাচে লিটন দাসের ৩৩ বলে ৫৬ রানের ঝড়ো ও আকর্ষণীয় ইনিংসটি ছাড়া আর একজন ব্যাটারও পুরো সিরিজে পঞ্চাশে পা রাখতে পারেননি।

একটি দলের ব্যাটারদের অবস্থা এমন হলে সেই দলের পক্ষে সিরিজ জেতা কঠিন হয়ে পড়ে। আজ শেষ দিনও কারো ব্যাট কথা বলেনি। সিনিয়রদের অনুপস্থিতিতে জুনিয়রদের কেউ হাল ধরতে পারেননি। এমনকি মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের কাছে যে প্রত্যাশা ছিল, সেটাও মেটাতে পারেননি তিনি। সুতরাং, ১৫৭ রানের টার্গেটও হয়ে থাকলো অধরা।


আরও খবর



বিএনপির সময় দিনে ১৩-১৪ ঘণ্টা লোডশেডিং ছিল: কাদের

প্রকাশিত:Tuesday ০২ August 2০২2 | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি নিয়ে বিএনপি অব্যাহতভাবে অপপ্রচার আর মিথ্যাচার করছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগে সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা সহজেই তাদের অতীত ভুলে যেতে চাইলেও জনগণ ঠিকই তা মনে রেখেছে। তাদের শাসনামলে দেশে দিনে ১৩-১৪ ঘণ্টা লোডশেডিং চলতো। তাদের সময়ে দেশ ছিল অন্ধকারে নিমজ্জিত।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ক্ষমতায় আসার জন্য তারা (বিএনপি) দেশের মূল্যবান খনিজ সম্পদ বিদেশি প্রভুদের হাতে তুলে দিয়েছিল। বিদ্যুৎ সরবরাহের নামে শুধুমাত্র খাম্বা স্থাপন করে জাতির সঙ্গে প্রতারণা করেছিল। বিকল্প ক্ষমতা কেন্দ্র হাওয়া ভবন আর খোয়াব ভবন আলোকিত রাখতে গিয়ে সারাদেশকে অন্ধকারে রেখেছিলো বিএনপি।

তিনি আরও বলেন, সেই অন্ধকারময় সময় পেছনে ফেলে শেখ হাসিনা দেশবাসীকে আলোকিত বাংলাদেশ উপহার দিয়েছেন। বিদ্যুতে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের পাশাপাশি আর্থ-সামাজিক সব ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব সাফল্যের স্মারক রেখেছেন।

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সেক্টরে শেখ হাসিনা সরকার সাফল্য দেখিয়েছে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন,
২০০৮ সালের ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ভূমিধস বিজয়ের মধ্য দিয়ে যখন আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হয় তখন দেশে মাথাপিছু বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল ২২০ কিলোওয়াট, যা বর্তমানে দাঁড়িয়েছে ৫৬০ কিলোওয়াটে। ২০০৯ সালের শুরুতে দেশে বিদ্যুৎ সুবিধার আওতাভুক্ত ছিল মোট জনসংখ্যার মাত্র ৪৭ শতাংশ। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ধারাবাহিকভাবে ক্ষমতায় থাকার কারণে দেশের শতভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় এসেছে।

বিদ্যুতখাতের দুর্নীতি নিয়ে যারা কথা বলেন, প্রকৃতপক্ষে তারাই দুর্নীতির পৃষ্ঠপোষক বলে উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের। বর্তমান সরকারের সুষ্ঠু নীতি ও সুদক্ষ ব্যবস্থাপনা না থাকলে বিদ্যুৎ উৎপাদন ২৫ হাজার ৫৬৬ মেগাওয়াটে উন্নীত করা সম্ভব হতো না বলে জানান তিনি।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ২০০৯ সালের শুরুতে বিদ্যুৎ উৎপাদন ছিল ৩ হাজার ২৬৭ মেগাওয়াট। বর্তমানে বিদ্যুৎ সরবরাহের ক্ষমতা ২৫ হাজার ৫৬৬ মেগাওয়াটে উন্নীত হয়েছে। শুধু তাই নয়, ২০০৯ সালের শুরুতে দেশে বিদ্যুৎ গ্রাহক সংখ্যা ছিল ১ কোটি ৮ লাখ। ২০২২ এর এপ্রিলে এসে গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি ২৭ লাখে।

মহামারি ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বিশ্বকে থমকে দিয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বিশ্ববাজারে জ্বালানির মূল্য অতিমাত্রায় বৃদ্ধি পাওয়ায় পৃথিবীর উন্নত দেশগুলোও হিমশিম খাচ্ছে। এরই মধ্যে অনেক দেশ বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ী নীতি গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার আশঙ্কা কাটাতে আগাম ব্যবস্থা হিসেবে বাংলাদেশকেও কিছু সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হয়েছে। এর অংশ হিসেবে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সাশ্রয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এবং বিদ্যুৎ সরবরাহে রেশনিং করা হচ্ছে। যা একটি সাময়িক পদক্ষেপ।


আরও খবর



খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে আটকে রাখা হয়েছে: শামা ওবায়েদ

প্রকাশিত:Sunday ৩১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শামা ওবায়েদ বলেছেন, ১৯৭১ সাল থেকে এখন পর্যন্ত যখন গণতন্ত্র হুমকিতে পড়েছে তখনই বিএনপি এগিয়ে এসেছে। খালেদা জিয়া স্বৈরাচার এরশাদ সরকারের বিরুদ্ধে ৯ বছর মাঠে থেকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে এনেছেন। আজ সে নেত্রীকে অন্যায়ভাবে আটকে রাখা হয়েছে।

রোববার (৩১ জুলাই) বিকেলে রাজবাড়ী জেলা বিএনপি আয়োজিত লোডশেডিং ও জ্বালানি খাতে অব‌্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

jagonews24

শামা ওবায়েদ বলেন, ২০০৬ সালের ১৬ টাকার চাল এখন ৭০ টাকা। বিদ্যুতে এখন হাজার হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি। এর ভর্তুকি দিচ্ছেন সাধারণ মানুষ। শেখ হাসিনার উন্নয়ন হারিকেন, এ উন্নয়ন আমরা চাই না।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট লিয়াকত আলীর সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সেলিমুজ্জামান সেলিম, জেলা বিএনপির সদস‌্য সচিব অ্যাডভোকেট কামরুল আলম, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান লিখন, ছাত্রদলের আহ্বায়ক আরিফুল ইসলাম রোমান প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


আরও খবর



মিষ্টিতে মরা মাছি, দইয়ে তেলাপোকার দৌড়াদৌড়ি

প্রকাশিত:Tuesday ১৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রামের অভিজাত ও জনপ্রিয় মিষ্টান্ন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান ফুলকলির কারখানায় অভিযান চালিয়েছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দুপুর ১টার দিকে এ অভিযান চালানো হয়।

অভিযানে অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা কারখানার ভেতর তৈরিকৃত মিষ্টিতে মরা মাছি এবং দইয়ে তেলাপোকার দৌড়াদৌড়ি দেখতে পান। পাশাপাশি কারখানার অভ্যন্তরে অপরিচ্ছন্নতা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাদ্য তৈরির অভিযোগে ফুলকলিকে দেড় লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর চট্টগ্রামের বিভাগীয় উপ-পরিচালক মোহাম্মদ ফয়েজ উল্যাহ।

jagonews24

তিনি বলেন, মঙ্গলবার দুপুরে বাকলিয়ায় ফুলকলির কারখানায় অভিযান চালানো হয়। অভিযানের সময় দেখা গেছে, তাদের মিষ্টিতে মরা মাছি, সরবরাহের জন্য রাখা দইয়ে তেলাপোকা হাঁটছে, দৌড়াচ্ছে। তাছাড়া অপরিচ্ছন্ন ফ্লোরে মুরগি কাটছেন কারখানার শ্রমিকরা।

মোহাম্মদ ফয়েজ উল্যাহ বলেন, নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার তৈরি ও মজুতের অপরাধে তাদের এক লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি সতর্ক করা হয়েছে। ভবিষ্যতে এদের অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া গেলে আরও কঠোর আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে।


আরও খবর