Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

পবিত্র কোরআন পোড়ানো নিষিদ্ধ করল ডেনমার্ক

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৮৭জন দেখেছেন

Image

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:পবিত্র কোরআন পোড়ানো নিষিদ্ধ করেছে ডেনমার্ক মুসলিম দেশগুলোর ক্ষোভের প্রেক্ষিতে। স্থানীয় সময় গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ ডিসেম্বর) দেশটির পার্লামেন্টে আইনটি পাস হয়।

নতুন আইনটি পাসের পর কেউ কোরআন পোড়ালে সেটি অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। এ জন্য অপরাধীকে সর্বোচ্চ দুই বছরের সাজার পাশাপাশি জরিমানাও গুনতে হবে।

আইনটি দণ্ডবিধির ১২ অধ্যায়ে অন্তর্ভুক্ত হবে, যা জাতীয় নিরাপত্তা রক্ষায় শক্তিশালী ভূমিকা পালন করবে বলেও আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

কোরআন পোড়ানো নিষিদ্ধের আইনটি পাসের আগে ডেনমার্কের পার্লামেন্টে ভোটাভুটি হয়। প্রতিন্দ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ভোটাভুটিতে ৯৪ জন সংসদ সদস্য আইনটির পক্ষে এবং ৭৭ জন বিপক্ষে ভোট দেন।

এ প্রসঙ্গে ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী মিতে ফ্রেডিরিকসেন বলেছেন, নতুন আইনে ধর্ম নিয়ে সমালোচনা অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

তবে আইন পাসের পর দেশটির কয়েকটি বিরোধীদল কোরআন পোড়ানো নিষিদ্ধ করাকে বাকস্বাধীনতার টুঁটি চেপে ধরা বলে অভিযোগ করেছে।

তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় সাবেক মন্ত্রী ইনগার স্টোইবার্গ বলেছেন, এই আইন মতপ্রকাশের স্বাধীনতা হরণ করবে।

প্রসঙ্গত, গত জানুয়ারিতে ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেনের একটি মসজিদের সামনে ও তুরস্কের দূতাবাসের সামনে পবিত্র কোরআন পোড়ানো হয়।

যার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন দেশটির কট্টর ডানপন্থী রাজনৈতিক দল হার্ড লাইনের নেতা রাসমুস পালুদান। এ ঘটনার পর মুসলিম দেশগুলো বাক্‌স্বাধীনতার নামে এমন বিদ্বেষমূলক আচরণ বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি করে।

:খবর আল-জাজিরার।


আরও খবর



ভারত থেকে রোজার আগে পেঁয়াজ-চিনি আসবে

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩৫জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু ,জানিয়েছেন রোজার আগে ভারত থেকে পেঁয়াজ ও চিনি এনে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে বিপণন করা হবে বলে ।

বুধবার (৩১ জানুয়ারি) দুপুরে সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

ভারতের বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা হয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভারতের নিষেধাজ্ঞা ছিল চিনি ও পেঁয়াজ কোনো পার্শ্ববর্তী দেশকে দেবে না। সেটা তারা শিথিল করেছে। আবেদনটা তারা সহানুভূতি নিয়ে দেখছে।

আশাবাদ ব্যক্ত করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রমজানের আগেই আমরা একটা ইতিবাচক সাড়া পাব। সেই চিনি ও পেঁয়াজ আমরা টিসিবির মাধ্যমে বিপণন করতে পারব।

তিনি বলেন, ২০ হাজার মেট্রিক টন পেঁয়াজ ও ৫০ হাজার মেট্রিক টন চিনি ভারত দিতে পারবে বলে জানিয়েছে। আমরা বলেছি, আমাদের চাহিদা আরেকটু বেশি। আমরা ৫০ হাজার টন পেঁয়াজ ও এক লাখ টন চিনি চেয়েছি। তারা বিষয়টি বিবেচনা করবেন। সামনে তাদের নির্বাচন, তাদের ভোক্তাদের কষ্ট দিয়ে তো আমাদের দেবে না। যতটুকু সহনীয়, ততটুকুই তারা দেবে।

পেঁয়াজ নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাজারে এই মুহূর্তে কাটা পেঁয়াজগুলো আছে। মূল পেঁয়াজটা উঠতে মাসখানেক সময় লাগবে। পুরোপুরি ফসল তোলা শেষ হবে এপ্রিলের মাঝামাঝিতে। আমরাও উদ্যোগ নিয়েছি, টিসিবির মাধ্যমে আমরা যেন বাইরে থেকে পেঁয়াজ এনে বিক্রি করতে পারি।


আরও খবর



মোংলা বন্দর সচল রাখতে ইনারবারে পুনরায় ড্রেজিং শুরু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮২জন দেখেছেন

Image

বাগেরহাট প্রতিনিধি:বাগেরহাটের মোংলা সমুদ্র বন্দর সচল রাখতে বন্দর চ্যানেলের ইনারবারে ড্রেজিং শুরু হয়েছে। সম্প্রতি চারটি কাটার সাকশন ড্রেজারের মাধ্যমে মোংলা বন্দর চ্যানেলের ইনার বারে ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু করা হয়েছে। মঙ্গলবার (০৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের জনসংযোগ বিভাগ থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানানো হয়।

এর আগে ২০২১ সালেও ইনারবারে ড্রেজিং শুরু হয়েছিল। ৩৫ শতাংশ কাজ শেষ হওয়ার পরে ড্রেজিং করা মাটি ফেলার জায়গা সংকটের কারণে ২০২২ সালে ড্রেজিং কার্যক্রম সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয় বন্দর কর্তৃপক্ষ। এখন ড্রেজিংয়ের মাটি ফেলার জায়গার ব্যবস্থা হওয়ায় পুনরায় ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু হয়েছে।  

প্রায় এক বছর ড্রেজিং বন্ধ থাকায় চ্যানেলের কিছু স্থানে পলি জমে পড়েছে। যার কারণে নিয়মিতভাবে ৮.৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ এ বন্দরে আসতে পারছিল না। ড্রেজিংয়ের ফলে পুনরায় আবারও সাড়ে ৯ থেকে ১০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ বন্দরে আসতে পারবে বলে দাবি বন্দর কর্তৃপক্ষের।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল শাহীন রহমান বলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে। যেকোনো উপায়ে মোংলা বন্দরকে সচল রাখা হবে। ইনার বারে চলমান ড্রেজিং প্রকল্পটি শেষ হলে ৯.৫ থেকে ১০ মিটার ড্রাফটের জাহাজ অনায়াসে মোংলা বন্দরে আসতে পারবে।  অধিক ড্রাফটের জাহাজ বন্দরে আগমনের ফলে মোংলা বন্দরের আয় বাড়ার পাশাপাশি সরকারি রাজস্ব আয়ও বাড়বে বলে জানান বন্দরের চেয়ারম্যান।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




উলিপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৭জন দেখেছেন

Image
কুড়িগ্রাম ব্যুরো চিফ:কুড়িগ্রামের উলিপুরে দুই দিনব্যাপী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহের সমাপনী অনুষ্ঠান উপজেলা পরিষদ চত্বরে  অনুষ্ঠিত হয়েছে l সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উলিপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম হোসেন মন্টু l

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আতাউর রহমান এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাপনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মুহাম্মদ মাহতাব হোসেন, উলিপুর এমএস স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মোঃ জাহাঙ্গীর আলম সরদার ও গুনাইগাছ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় এর ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ফিরোজ আলম l

এবারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জন্য ১৫ টি স্টল বরাদ্দ দেয়া হয় l
৮ম বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড প্রতিযোগিতায় সিনিয়র গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকার করে উলিপুর এমএস স্কুল এন্ড কলেজ এর শিক্ষার্থীরা এবং জুনিয়র গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকার করে এনএস আমিন রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এর শিক্ষার্থীরা l

কলেজ পর্যায়ে উলিপুর আদর্শ মহাবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ১ম স্থান অধিকার করে l 
এছাড়াও একক কুইজ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করায় বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রেস্ট প্রদান করা হয়েছে l 

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আইইউবি র শিক্ষার্থীদের নেতৃত্বে গতবারের ন্যায় এবারো সরস্বতীপূজার প্রস্তুতি

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৫জন দেখেছেন

Image
মারুফ সরকার, স্টাফ রিপোর্টার : সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব সরস্বতী পূজা আগামী সপ্তাহে। বিদ্যা, জ্ঞান, কলা ও শুদ্ধতার প্রতীক হিসেবে দেবী সরস্বতীর পূজা করেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। 

বাংলাদেশের প্রায় সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পূজা হলেও বেসরকারি ইউনিভার্সিটি ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীদের আসন্ন সরস্বতী পূজা আয়োজনের অনুমতি দেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে জানুয়ারির শেষদিকে পূজা আয়োজনের লিখিত অনুমতি চাওয়া হলেও গত সপ্তাহে তাদের অনুমতি না দেওয়ার বিষয়টি জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চর্চা করছে সর্বস্তরের জনগণ এবং ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

প্রতি বছর বার বার আবেদন পত্র দিলেও আশানরূপ কোনো প্রতিকার না আসায়, গতবছর বিশ্ববিদ্যালয়ের চাপ অগ্রাহ্য করে শিক্ষার্থীরা একজোট হয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ৩০ বছর পরে ক্যাম্পাসের বাহিরে রমনা কালী মন্দিরে প্রথমবার পূজো করে। গতবছরের ন্যায় এবছর ক্যাম্পাসের অদূরে ভাটারায় সরস্বতীপূজার আয়োজন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সনাতনী শিক্ষার্থীরা। এই উপলক্ষ্যে ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ ২য় বারের মত জ্ঞান, বিবেক ও বিদ্যাময়ী মা সরস্বতী দেবীর পূজা অর্চনার মধ্য দিয়ে এক মহোৎসবের আয়োজন করতে যাচ্ছে।

সরস্বতীপূজা দুর্গাপূজার মতোই সর্বজনীন পূজা। দলমত-নির্বিশেষে শিশু-বৃদ্ধবনিতা সরস্বতীপূজায় অংশগ্রহণ করে। মায়ের কাছে বিদ্যা চাইতে সবাই জোড় হাত তুলে প্রণাম করে। মা তো বিদ্যার দেবী, তাই তাঁর কাছেই বিদ্যা চাইবে সবাই। বিদ্যা যদি না পাই, তবে তো পূর্ণাঙ্গ মানুষ হতে পারব না। একজন পরিপূর্ণ মানুষ হতে হলে বিদ্যার বিকল্প নেই। আচার-আচরণ, স্বভাব-প্রকৃতি সবকিছুই পরিপূর্ণতা পায় বিদ্যার গুণে। তাই বিদ্যার দেবীকে অঞ্জলির মাধ্যমে নিবেদন করে শিক্ষার্থীরা—তাদের মনস্কামনা যেন দেবী সরস্বতী পূরণ করেন, এই প্রার্থনাই পূজার মূলমন্ত্র।

সরস্বতীপূজা যে শুধু হিন্দুধর্মাবলম্বী শিক্ষার্থীদের নিয়েই হয় তা কিন্তু নয়, তাদের সঙ্গে ধর্মবর্ণ-নির্বিশেষে সব শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ থাকে এ পূজার আকর্ষণীয় দিক। পূজামণ্ডপে ছেলেমেয়েদের সুন্দর সাজে সজ্জিত হয়ে গান, আরতি, অঞ্জলি, প্রসাদ বিতরণ, রঙিন সাজে ধূপধূনা আর ফুল দিয়ে অঞ্জলি দিতে দেখা যায়। এ দৃশ্য দেখলে মন আনন্দে ভরে যায়, কে হিন্দু, কে মুসলমান, কেই-বা খ্রিষ্টান—বোঝা কঠিন। এ যেন এক মিলনমেলা। তখনই সত্যিকারভাবে ফুটে ওঠে সেই চিত্র—‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’।

পূজার দিনে সকলের কামনা থাকে, দেশটি যেন সত্যিকারভাবেই অসাম্প্রদায়িক চেতনায়, মুক্তিযুদ্ধের আলোকে সাংস্কৃতিক অঙ্গন ভরে থাকে বছরের সারাটা দিন। সরস্বতী দেবীর কাছে সকলের প্রার্থনা যেনো একটিই, ‘মাগো, তুমি বিদ্যা দাও সকলেরে’।

এই  মহোৎসবকে সাফল্যমন্ডিত করতে সকলের সবান্ধব উপস্থিতি ও সহযোগিতা কামনা করছে পূজো কমিটির সদস্যরা। তাদের চাওয়া, পূজা প্রাঙ্গণ মুখরিত যেনো হয়ে উঠে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের পদচারণায় এবং অন্যতম শক্তি হলো তাদের ক্যাম্পাসের অসাম্প্রদায়িক চেতনা। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন বাংলাদেশ এবং মমতাময়ী শেখ হাসিনা র নেতৃত্বে বাংলাদেশ যেখানে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলে সহযোগিতা করে, এটিই সকলের কামনা।

আরও খবর



ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে শেয়ারট্রিপের বিশেষ লাইফস্টাইল ক্যাম্পেইন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:[ঢাকা, ০৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪] ভালোবাসা দিবসকে সামনে রেখে আকর্ষণীয় ক্যাম্পেইনের ঘোষণা দিয়েছে অনলাইন ট্রাভেল প্ল্যাটফর্ম শেয়ারট্রিপ। ক্রেতাদের কেনাকাটার অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করতে লাইফস্টাইল ব্র্যান্ডগুলোর অংশীদারিত্বে ০৮-২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলবে এই ক্যাম্পেইন।

জুতা, পোশাক, রেস্তোরাঁ, গ্যাজেট ও মোবাইল অ্যাক্সেসরিজের শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ডগুলোর সহায়তায় ভালোবাসা দিবসের কেনাকাটায় আলাদা বিশেষত্ব যোগ করতে চায় শেয়ারট্রিপ। ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণকারী ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে জুতা ক্যাটাগরিতে বাটা, এপেক্স, লা মোড; পোশাক ও ফ্যাশনে আড়ং, ফ্যাব্রিলাইফ, গরুর ঘাস এবং গ্যাজেট ও মোবাইল অ্যাক্সেসরিজের মধ্যে মোশন ভিউ, ওয়ানপ্লাস, স্যামসাং ও শাওমি রয়েছে।

শেয়ারট্রিপ অ্যাপের শপ অপশন থেকে কেনাকাটা করে ৬,০০০ টাকা পর্যন্ত ট্রাভেল ভাউচার পাওয়ার সুযোগ এই ক্যাম্পেইনকে আরও বেশি আকর্ষণীয় করে তুলেছে। ক্যাম্পেইন চলাকালীন শেয়ারট্রিপ শপ থেকে কেনাকাটায় থাকছে বাটা

গিফট ভাউচারে ৩০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়; অ্যাপেক্স গিফট ভাউচারে ২৫ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়; বে গিফট ভাউচারে ২৫ শতাংশ ছাড়; লা মোড গিফট ভাউচারে ১৫ শতাংশ ছাড়; আড়ং অনলাইন গিফট কার্ডে ১০ শতাংশ ছাড়; ফ্যাব্রিলাইফ-এ ১২ শতাংশ ছাড়; ক্রোকোডাইল গিফট ভাউচারে ১৫ শতাংশ ছাড়; গরুর ঘাসে ২০ শতাংশ ছাড়; এবং কালারকিউ লাইফস্টাইলে ২৫

শতাংশ ছাড়। যারা ইলেকট্রনিক্স কিনতে ইচ্ছুক তাদের জন্য সকল ইলেকট্রনিক্স পণ্যে রয়েছে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়সহ শাওমিতে ৬০০ টাকা পর্যন্ত ছাড়; স্যামসাংয়ে ৭০০০ টাকা পর্যন্ত ছাড়; মোশন ভিউতে ২০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়;

এবং ওয়ান প্লাসে ৪৫০০ টাকা পর্যন্ত ছাড়৷ শেয়ারট্রিপ ভাউচার থেকে কেনাকাটার ক্ষেত্রে শেয়ারট্রিপ ব্যবহারকারীরা আরও উপভোগ করতে পারবেন বার্গার ল্যাবে ১৭ শতাংশ ছাড়ের গিফট ভাউচার; চা টাইমে ১৫ শতাংশ ছাড়ের গিফট ভাউচার; ওয়াফেল টাইমে ১৫ শতাংশ ছাড়ের গিফট ভাউচার; লেকশোরে ১৫ শতাংশ ছাড়ের গিফট ভাউচার; এবং টুম-এ ২০

শতাংশ ছাড়ের গিফট ভাউচার। কেনাকাটার অভিজ্ঞতা উন্নত করার পাশাপাশি ভবিষ্যত ভ্রমণের পথকে সুগম করাই এই ক্যাম্পেইনের লক্ষ্য।এই ক্যাম্পেইন পছন্দের মানুষের জন্য সেরা উপহার ক্রয় বা বিশেষ কিছু করার জন্য দুর্দান্ত সুযোগ, সাথে থাকছে পরবর্তী ভ্রমণের জন্য রিওয়ার্ড। স্টাইলিশ জুতা বা কোনো ট্রেন্ডি পোশাক, আধুনিক গ্যাজেট বা প্রিয়জনকে সাথে নিয়ে কোনো রেস্তোরাঁয় রোমান্টিক ডিনার; শেয়ারট্রিপ আপনার ভালোবাসা দিবসকে স্মরণীয় করে রাখতে প্রস্তুত।

তাই, এবারের ভালোবাসা দিবসে শেয়ারট্রিপের লাইফস্টাইল ক্যাম্পেইনে যোগ দিন আর আপনার কেনাকাটার অভিজ্ঞতায় যোগ করুন নতুন মাত্রা। মানসম্মত পণ্য কেনার সাথে সাথে আকর্ষণীয় রিওয়ার্ড অর্জন এবং পরবর্তী ভ্রমণের পরিকল্পনা করার এটাই সুযোগ।


আরও খবর

"নোবেলের ম্যাজিক শুধু প্রতারণা"

মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24

ভালোবাসার দিন আজ

বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪