Logo
আজঃ Friday ১৯ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে আবাসিকের অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন ডেমরায় প্যাকেজিং কারখানায় ভয়বহ অগ্নিকান্ড রূপগঞ্জে পুলিশের ভুয়া সাব-ইন্সপেক্টর গ্রেফতার রূপগঞ্জে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ ॥ সভা সরাইলে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ৭৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত। নারায়ণগঞ্জে পারিবারিক কলহে স্ত্রীকে পুতা দিয়ে আঘাত করে হত্যা,,স্বামী গ্রেপ্তার রূপগঞ্জ ইউএনও’র বিদায় সংবর্ধনা নাসিরনগরে স্বামীর পরকিয়ার,বলি ননদ ভাবীর বুলেটপানে আত্মহত্যা নাসিরনগরে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭ তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত ডেমরায় জাতীয় শোক দিবসের কর্মসুচি পালিত

ওমিক্রনের সংক্রমণে ভারতে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত নিয়মিত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ

প্রকাশিত:Friday ১০ December ২০২১ | হালনাগাদ:Friday ১৯ August ২০২২ | ৪৩৭জন দেখেছেন
Image

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ আশঙ্কায়  ভ্রমণে কড়াকড়ি আরোপ করেছে ভারত। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত নিয়মিত আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে দেশটি। 

এ ব্যাপারে গতকাল বৃহস্পতিবার একটি বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে দেশটির বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ ডিরেক্টরেট জেনারেল অব সিভিল এভিয়েশন (ডিজিসিএ)। 

হিন্দুস্তান টাইমসসহ অন্যান্য ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। খবরে বলা হয়েছে, যেসব দেশের সঙ্গে এয়ার বাবল চুক্তি রয়েছে সেসব দেশে ফ্লাইট চলবে। শুধু যাত্রীবাহী বিমানের ওপরই নতুন নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে। পণ্যবাহী আন্তর্জাতিক কার্গো ফ্লাইটগুলো চালু থাকবে।

ডিজিসিএসের দেয়া বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়েছে, ৩১ জানুয়ারির পর আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু হলেও সব রুটে নাও চলতে পারে ভারতীয় যাত্রীবাহী উড়োজাহাজগুলো। 

এর আগে ১৫ ডিসেম্বর থেকে চালু আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ডিজিসিএ। কিন্তু ওমিক্রন সংক্রমণের শঙ্কায় সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছে ভারত।

উল্লেখ্য, ভারতের সঙ্গে এয়ার বাবল চুক্তি রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ব্রিটেন, সংযুক্ত আরব আমিরশাহী, কেনিয়া, ভুটান, ফ্রান্স ও বাংলাদেশসহ আরো বেশ কয়েকটি দেশের।


আরও খবর



খোলা জায়গায় মলত্যাগে শীর্ষে রংপুর

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ১৬ August ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এখনো কিছু মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন কিংবা তাদের ল্যাট্রিন নেই। এদিক থেকে এগিয়ে রংপুর বিভাগ। অর্থাৎ, রংপুর বিভাগে ল্যাট্রিন নেই এমন মানুষের সংখ্যা বেশি। জনশুমারি ২০২২ এর প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য পাওয়া যায়।

বুধবার (২৭ জুলাই) রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) প্রথম ডিজিটাল ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২’-এর প্রাথমিক প্রতিবেদন প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এ ফলাফল জানানো হয়। সারাদেশে গত ১৫ জুন একযোগে শুরু হয় জনশুমারি ও গৃহগণনা কার্যক্রম। গত ২১ জুন জনশুমারি শেষ হওয়ার কথা থাকলেও উত্তর-পূর্বাঞ্চলের জেলায় বন্যা শুরু হওয়ায় এসব জেলায় শুমারি কার্যক্রম ২৮ জুন পর্যন্ত চলে।

এতে বলা হয়, দেশের মোট জনসংখ্যা এখন ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৬ জন। যেখানে ৮ কোটি ১৭ লাখ পুরুষ ও ৮ কোটি ৩৩ লাখ নারী। ১২ হাজার ৬২৯ জন তৃতীয় লিঙ্গ।

জনশুমারির তথ্য ঘেঁটে দেখা যায়, রংপুর বিভাগে শতকরা ৪ দশমিক ৩১ শতাংশ মানুষ খোলা জায়গায় মলত্যাগ করেন বা ল্যাট্রিন নেই। ফ্লাশ করে কিংবা পানি ঢেলে নিরাপদ নিষ্কাশন করেন ৪৩ দশমিক ৭৭ শতাংশ। এদিক থেকে ময়মনসিংহ ও বরিশালের চেয়ে এগিয়ে বিভাগটি।

অপরদিকে স্ল্যাবসহ পিট ল্যাট্টিন, ভেন্টিলেটেড ইমপ্রুভড ল্যাট্রিন বা কম্পোস্টিং ল্যাট্রিন ব্যবহার করেন ২৭ দশমিক ৪৫ শতাংশ। স্ল্যাব ছাড়া পিট ল্যাট্রিন বা উন্মুক্ত পিট ব্যবহার করেন ৪ দশমিক শূন্য ২১ শতাংশ। কাঁচা/খোলা/ঝুলন্ত ল্যাট্রিন অস্থায়ী বা স্থায়ীভাবে ব্যবহার করেন ৮ দশমিক শূন্য ৬৪ শতাংশ, এদিক থেকে সিলেটের চেয়ে উন্নত বিভাগটি।

প্রতিবেদন প্রকাশনা অনুষ্ঠানে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন। প্রাথমিক প্রতিবেদন বিষয়ক উপস্থাপনা করেন প্রকল্প পরিচালক মো. দিলদার হোসেন।


আরও খবর



বিয়ের প্রলোভনে গৃহবধূকে ধর্ষণ, অভিযুক্ত গ্রেফতার

প্রকাশিত:Sunday ০৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

দিনাজপুরের হিলিতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে উঠেছে। ওই ঘটনায় অভিযুক্ত আব্দুল হাই (৪২) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আব্দুল হাই হিলির জালালপুর গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে। তিনি তিন মেয়ে ও এক ছেলের জনক।

হাকিমপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সায়েম বলেন, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই গৃহবধূর সঙ্গে বেশ কিছুদিন ধরেই সখ্যতা গড়ে তোলেন আব্দুল হাই। বিষয়টি জানাজানি হলে তাদের দুজনের দূরত্ব সৃষ্টি হয়। তখন ওই গৃহবধূ স্বামীকে নিয়ে ঢাকায় চলে যান। পরে আবারও আব্দুল হাই ওই গৃহবধূকে বুঝিয়ে স্বামীসহ তাকে জালালপুরে নিয়ে আসেন। তাকে নিজের বাড়িতে রেখে একটি দোকান করে দেন। তার স্বামী একটি অটো চলায়। এরমধ্যে তাদের মধ্যে সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

বিষয়টি ওই গৃহবধূর স্বামী টের পেলে বিরোধের সৃষ্টি হয়। পরে আব্দুল হাই সে দোকান নিয়ে তাদের বাড়ি থেকে বের করে দেন। ওই গৃহবধূকে স্টেশন এলাকার একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে দেন আব্দুল হাই। শুক্রবার স্বামীর অনুপস্থিতে ওই বাড়িতে গিয়ে বিয়ের প্রলোভনে ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন আব্দুল হাই। এ ঘটনায় ওই রাতেই গৃহবধূ থানায় অভিযোগ দেন।

তিনি আরও জানান, মামলার পর আব্দুল হাইকে গ্রেফতার করা হয়। এ ঘটনায় আসামিকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য দিনাজপুর এম রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।


আরও খবর



তাইওয়ান ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র-চীনকে সংযমের আহ্বান বাংলাদেশের

প্রকাশিত:Thursday ০৪ August ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ১৮ August ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

তাইওয়ান নিয়ে সম্প্রতি উত্তেজনায় জড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও চীন। এ ইস্যুতে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে সর্বোচ্চ সংযম অবলম্বনের আহ্বান জানিয়েছে ঢাকা।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, তাইওয়ান পরিস্থিতি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে বাংলাদেশ। এ ইস্যুতে উত্তেজনা বাড়তে পারে এবং এ অঞ্চলে ও এর বাইরে শান্তি-স্থিতিশীলতা নষ্ট করতে পারে এমন কোনো কর্মকাণ্ড থেকে উভয়পক্ষকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছে ঢাকা।

বিবৃতিতে ‘এক চীন’ নীতির প্রতি বাংলাদেশের দৃঢ় সমর্থনের কথা পুনর্ব্যক্ত করে বলা হয়, জাতিসংঘের সনদ অনুযায়ী এবং আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে মতপার্থক্য নিরসনের জন্য সংশ্লিষ্ট পক্ষগুলোকে আহ্বান জানাচ্ছে বাংলাদেশ।

চীনের চরম আপত্তি থাকা সত্ত্বেও যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির গত ২ আগস্ট তাইওয়ান সফরে যান। তার ওই সফর ঘিরেই ওয়াশিংটন-বেইজিং তুমুল উত্তেজনায় জড়িয়েছে।

তাইওয়ানের চারপাশে নজিরবিহীন সামরিক মহড়াও শুরু করেছে চীন। মহড়া চালাচ্ছে নৌ ও আকাশপথে। এদিকে তাইওয়ান জানিয়েছে, চীনের চলমান সামরিক মহড়া আন্তর্জাতিক আইনের স্পষ্ট লঙ্ঘন।


আরও খবর



সারের দাম বাড়ানো নিয়ে সংকট তৈরি করলে কঠোর শাস্তি: কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত:Thursday ০৪ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১৭ August ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

ইউরিয়া সারের দাম কেজিপ্রতি ছয় টাকা বাড়নোকে কেন্দ্র করে কেউ সংকট তৈরি করলে কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক। সারের দাম বাড়ানো নিয়ে বিএনপিসহ বাম দলগুলোর উদ্বেগ নির্লজ্জতার প্রমাণ বলেও মন্তব্য করেন মন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) সচিবালয়ে সারের দাম বৃদ্ধি, মজুতসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সারের দাম বাড়ার পরও কৃষকের উৎপাদন খরচ বাড়বে না দাবি করে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ইউরিয়ার দাম বৃদ্ধি ফসল উৎপাদনেও নেতিবাচক প্রভাবে পড়বে না।

তিনি বলেন, ইউরিয়া সারের ব্যবহার যৌক্তিক পর্যায়ে রাখতে এবং চলমান বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে আন্তর্জাতিক বাজারে সারের দাম অস্বাভাবিক বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশে ডিলার পর্যায়ে ইউরিয়া সারের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য প্রতি কেজি ১৪ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২০ টাকা এবং কৃষক পর্যায়ে প্রতি কেজি ১৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে ২২ টাকা পূর্ননির্ধারণ করেছে সরকার।

‘আন্তর্জাতিক বাজারে প্রতি কেজি ইউরিয়ার সারের বর্তমান দাম ৮১ টাকা। এর ফলে ৬ টাকা দাম বৃদ্ধির পরও সরকারকে প্রতি কেজিতে ৫৯ টাকা ভর্তুকি দিতে হবে। ২০০৫-০৬ অর্থবছরে প্রতি কেজি ইউরিয়া সারের ভর্তুকি ছিল মাত্র ১৫ টাকা।’

বর্তমানে দেশে সব ধরণের সারের পর্যাপ্ত মজুত আছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সারের দাম বৃদ্ধিকে কেন্দ্র করে দেশের কোথাও যাতে কেউ কৃত্রিম সংকট তৈরি করতে না পারে- সেই ব্যাপারে আমরা নিবিড়ভাবে মনিটর করছি। কৃত্রিম সংকট তৈরির মাধ্যমে দাম বেশি নিলে সংশ্লিষ্টদের কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হবে।’

ফসলের জমিতে সুষম সার প্রয়োগ খুবই গুরুত্বপূর্ণ জানিয়ে কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ইউরিয়া সারের বর্তমান ব্যবহার কমপক্ষে ২০ শতাংশ কমিয়ে ইউরিয়ার ব্যবহার যৌক্তিক পর্যায়ে রাখতে পারি। এতে ফসল উৎপাদনে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না, বরং উৎপাদন আরও বৃদ্ধি পাবে। একই সঙ্গে কৃষকের খরচও কমবে। এটি করতে হলে আমাদের কৃষক ভাইসহ সবার সচেতনতা প্রয়োজন।’

ইউরিয়া সারের সুষম ব্যবহার করলে কৃষকের উৎপাদন খরচ বাড়বে না বলেও মন্তব্য করেন কৃষিমন্ত্রী।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আমরা লক্ষ্য করছি, সারের দাম বাড়ায় বিএনপিসহ কিছু বাম দল উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। বিএনপির সার নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ তাদের চরম নির্লজ্জতার প্রমাণ বলে আমি মনে করি। তারা বাস্তব অবস্থা বিবেচনা না করে সমালোচনা করছে। তারা সরকারের সমালোচনা করছে।’

‘বিএনপির শাসন আমলে সারসহ কৃষি উপকরণের চরম সংকট ছিল। বিএনপি তাদের সময়ে কৃষককে সার দিতে না পেরে পালিয়ে পালিয়ে বেড়িয়েছে। সারের জন্য বিএনপি সরকার ১৯৯৫ সালে ১৮ জন কৃষককে গুলি করে হত্যা করেছিলো।’

ইউরিয়া সারের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার কমানোও দাম বাড়ানোর অন্যতম উদ্দেশ্য জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ইউরিয়া সারের ব্যবহার হ্রাস ও ডিএপি সারের ব্যবহার বৃদ্ধিতে গুরুত্বারোপ করে যাচ্ছি। ডিএপি সার মাটির স্বাস্থ্য রক্ষায় ও মানসম্পন্ন ফসল উৎপাদনে কার্যকর এবং পরিবেশবান্ধব। ডিএপি সারে শতকরা ১৮ ভাগ নাইট্রোজেন বা ইউরিয়া সারের উপাদান রয়েছে। সেজন্য ডিএপির ব্যবহার বাড়িয়ে ইউরিয়া সারের অপ্রয়োজনীয় ও মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার কমিয়ে আনার জন্য সরকার ডিএপি সারের মূল্য প্রতি কেজি ৯০ টাকা থেকে কমিয়ে প্রথমে ২৫ টাকা (২০০৯ সালে), এবং পরে ২০১৯ সালে ২৫ টাকা থেকে কমিয়ে ১৬ টাকা করে কৃষকদের দিয়ে যাচ্ছে। এ উদ্যোগের ফলে বিগত কয়েক বছরে ডিএপি সারের ব্যবহার দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০১৯ সালে ডিএপি ব্যবহার হতো আট লাখ টন, বর্তমানে ব্যবহার হচ্ছে ১৬ লাখ টন।’

‘ডিএপি সারের ব্যবহার বাড়ার ফলে ইউরিয়া সারের ব্যবহার কমার কথা। কিন্তু বাস্তবে ইউরিয়া সারের ব্যবহার কমেনি, বরং বেড়েছে। ২০১৯ সালে ইউরিয়া ব্যবহার হতো ২৫ লাখ টন, বর্তমানে ব্যবহার হচ্ছে ২৬ লাখ ৫০ হাজার টন।’

কোভিড পরিস্থিতি এবং ইউক্রেন-রাশিয়ার মধ্যে চলমান যুদ্ধের প্রভাবে বিশ্বব্যাপী সারের দাম অস্বাভাবিকভাবে বেড়েছে জানিয়ে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এখন ২০২০-২১ অর্থবছরের তুলনায় সারের দাম তিন থেকে চার গুণ বেশি। সারের দাম বেড়ে যাওয়ায় বর্তমানে ভর্তুকি দাঁড়িয়েছে প্রতি কেজি ইউরিয়া ৫৯ টাকা, টিএসপি ৮৬ টাকা, এমওপি ৯১ টাকা এবং ডিএপিতে ১০৭ টাকা।


আরও খবর



চলন্ত বাসে ছাত্রীর শ্লীলতাহানির চেষ্টা, চালক কারাগারে

প্রকাশিত:Saturday ৩০ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ১৫ August ২০২২ | ১৫জন দেখেছেন
Image

রাজধানীতে বিকাশ পরিবহনের চলন্ত বাসে এক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে গ্রেফতার চালক মো. মাহবুবুর রহমানকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

শনিবার (৩০ জুলাই) একদিনের রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে পাঠানোর আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। আবেদনের প্রেক্ষিত ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট নুরুল হুদা তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এরআগে বৃহস্পতিবার (২৮ জুলাই) তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে পাঁচদিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আজিমপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আছিবুজ্জামান আসিফ।

অন্যদিকে তার আইনজীবী নুরনবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে আবেদন করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দ মোস্তফা রেজা নুর তার একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত বুধবার রাজধানীর তুরাগ থানার বালুর মাঠ থেকে তাকে গ্রেফতার করে লালবাগ থানা পুলিশ।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ জুলাই ভুক্তভোগী ওই ছাত্রী রাত ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে ধানমন্ডি থেকে আজিমপুর যাওয়ার উদ্দেশ্যে বিকাশ পরিবহনের একটি বাসে ওঠেন। বাসে উঠে কানে হেডফোন দিয়ে গান শুনতে শুনতে একপর্যায়ে তিনি ঘুমিয়ে পড়েন। পরে রাত আনুমানিক ৯টা ১০ মিনিটের দিকে ভুক্তভোগী অনুভব করেন, তার শরীরে কেউ যেন হাত দিয়েছে। তাৎক্ষণিক তিনি তাকিয়ে দেখেন বাসে কোনো যাত্রী নেই এবং তার পাশের সিটে বাসটির হেলপার বসা।

তখন ওই ছাত্রী বিপদ আঁচ করতে পেরে বাসের হেলপারকে তার পাশ থেকে ধাক্কা দিয়ে সরানোর চেষ্টা করেন। তখন ভুক্তভোগী সিট থেকে দাঁড়িয়ে নামার চেষ্টা করলে হেলপার তাকে পেছন থেকে এক হাতে মুখ চেপে ধরেন। ওই ছাত্রী নিজেকে বাঁচানোর জন্য সর্বশক্তি দিয়ে হেলপারের কাছ থেকে ছুটে চালককে চিৎকার করে বাস থামাতে বলেন। কিন্তু চালক তখন বাস না থামিয়ে দ্রুতগতিতে ইডেন কলেজের সামনে দিয়ে আজিমপুরের দিকে যেতে থাকেন।

একপর্যায়ে আজিমপুর গার্লস স্কুলের কাছে বাসটি কিছুটা গতি কমালে ওই ছাত্রী লাফ দিয়ে বাস থেকে নেমে আত্মরক্ষা করেন। ভুক্তভোগী ছাত্রী ঘটনাটি ফেসবুকে শেয়ার করে একটি পোস্ট দেন। এরপর লালবাগ থানা পুলিশ প্রাথমিক অনুসন্ধান করে ভুক্তভোগীকে চিহ্নিত করে তথ্য সংগ্ৰহ করে।

তাৎক্ষণিক সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনা ও তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে বিকাশ পরিবহনের বাসটি শনাক্ত করা হয়। এ ঘটনায় রাজধানীর লালবাগ থানায় একটি মামলা হয়েছে।


আরও খবর