Logo
আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

ন্যায্য মূল্য পাওয়ায় মহেশখালীর পানচাষীদের মাঝে আনন্দের বন্যা

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪০৬জন দেখেছেন

Image

মোঃআমান উল্লাহ, কক্সবাজার : কক্সবাজারের মহেশখালী দ্বীপের মিষ্টি পানে এখন সোনা ফলছে। মহেশখালীর মিষ্টি পান স্থানীয় ও দেশের সর্বত্র  মানুষের মাঝে স্থান  করে নিচ্ছে। ফলে মিষ্টি পান এক প্রকার এখন সোনার হরিণ। এছাড়া পান চাষিরা এক ঝুঁড়ি পান বিক্রি করে পাচ্ছেন লাখ টাকা। তাই পান চাষে জড়িয়ে পড়েছেন বিভিন্ন পেশার লোকজন।চট্টগ্রাম ও ঢাকায় এক বিরা বড় পান বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা পর্যন্ত। এতে মহেশখালীতে উৎপাদিত পানের চাহিদা দেশিয় বাজারে বেশি বলে জানালেন রপ্তানি কারকেরা। এই দিকে হঠাৎ মিষ্টি পানের দাম রেকর্ড পরিমান হওয়ায় চাষিদের মুখে হাসি ফুটেছে। এ সপ্তাহ ধরে পান বাজারে উৎপাদিত পানের দাম বেড়ে যাওয়ায় চাষীরা খুশি।

মহেশখালী উপজেলার বিভিন্ন বাজারে দুই সপ্তাহ আগে প্রতি বিরা পান বিক্রি হয়েছে ২০০ টাকা। তবে সপ্তাহ ধরে বেড়ে পানের দাম রেকর্ড হয়েছে। বর্তমানে মাঝারি ও বড় পান প্রতি বিরা পান বিক্রি হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৪০০ টাকায়। আর ছোট পান বিক্রি হচ্ছে ১৫০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত।জানা গেছে, কয়েক যুগ ধরে মহেশখালী উপজেলার বড় মহেশখালী, হোয়ানক, কালারমারছড়া, ছোট মহেশখালী ও শাপলাপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন পাহাড়ী ঢালু ও আবাদি কৃষি জমিতে পান চাষ করে আসছে স্থানীয় পান চাষীরা।পাহাড়ী এলাকায় পান চাষ দুই-তিন বছর স্থায়ী হলে ও কৃষি জমিতে পান চাষ টিকে মাত্র ৫ থেকে ৬ মাস। তবে কৃষি জমিতে পান চাষ সেপ্টেম্বর-নভেম্বর মাস থেকে শুরু হয়ে তা মে মাসে শেষ হয়। আর পাহাড়ি এলাকায় পান চাষ যে কোনো সময়ে করা যায় বলে জানিয়েছেন শাপলাপুরের পান চাষিরা।পানের বরজ থেকে পান তুলে নিয়ে চাষীরা স্থানীয় হাট বাজারে নিয়ে তা বিক্রি করছে। উপজেলার গোরকঘাটা, বড় মহেশখালী নতুন বাজার, হোয়ানক ইউনিয়নের টাইম বাজার, পানিরছড়া বাজার, কালারমারছড়া ইউনিয়নের কালারমারছড়া বাজার, জনতাবাজার ও শাপলাপুর বাজারে পানের বাজার বসে। সপ্তাহে দুই দিন এসব পান বাজারের পান বিক্রি হচ্ছে।পানের হাট কালারমারছড়া চালিয়াতলী বাজারে পান বেচা-কেনা করতে দুই শতাধিক চাষী পান বাজারে বেচাকেনা করতে নিয়ে আসে ।

আর ওই বাজারে  দেশের বিভিন্ন জায়গা  থেকে আসা পান ব্যবসায়ীরা চাষীদের কাছ থেকে পান ক্রয় করে থাকে ।পরে এসব পান ট্রাক ভর্তি করে ব্যবসায়ীরা চট্টগ্রাম’সহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় নিয়ে যায়। উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্যমতে, মহেশখালীর পাঁচ ইউনিয়নের পাহাড়ে ও বিলে ১ হাজার ৬০০ হেক্টর জমিতে পান চাষ হচ্ছে। এ পেশায় ৩৯ হাজার চাষির পাশাপাশি লক্ষাধিক মানুষ জড়িত।মহেশখালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম জানান, বিগত সময়ের চেয়ে এখন পানের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন পান চাষীরা। এতে ছোট-বড় মিলে হাটে এক বিরা পান ১৫০ টাকা থেকে শুরু করে ৪০০শ টাকার উপরে বিক্রি হচ্ছে। ফলে পান চাষীদের মাঝে আনন্দের বন্যা বয়ে যাচ্ছে।


আরও খবর

গাংনীতে বালাইনাশক ব্যবহারে উদাসিন কৃষকরা

শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




মেহেরপুর প্রেস ক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন সম্পন্ন সভাপতি মন্টু, মানিক সাধারণ সম্পাদক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১৩জন দেখেছেন

Image

মজনুর রহমান আকাশ,মেহেরপুর প্রতিনিধি:ঐতিহ্যবাহী মেহেরপুর প্রেস ক্লাবের দ্বিবার্ষিক নির্বাচন আজ সোমবার অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি পদে এসএ টিভি প্রতিনিধি ফজলুল হক মন্টু এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন আরটিভি প্রতিনিধি মাজেদুল হক মানিক । মেহেরপুর প্রেস ক্লাবের আহবায়ক মহসিন আলী আঙ্গুর, প্রেস ক্লাবের নির্বাচন কমিশনার নুরুল ইসলাম, নির্বাচন কমিশনার ডক্টর আলিবদ্দীন ও সাজাদুজ্জামান নির্বাচন পরিচালনার দায়িত্ব পালন করেন। ভোট গ্রহণ শেষে ফলাফল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

প্রেস ক্লাব দ্বি-বার্ষিকী নির্বাচনে ১৩ টি পদের মধ্যে সহ সভাপতির দুটি পদ ছাড়া বাকি পদগুলোতে একক প্রার্থী ছিলেন। সহ সভাপতি পদে মহসিন আলী (মাথাভাঙ্গা), ফারুক মল্লিক (ইনকিলাব) ও মেহের আমজাদ (বাংলাদেশ বার্তা) প্রতিদ্বন্দীতা করেন। ভোটের মাধ্যমে মহসিন আলী ও ফারুক মল্লিক বিজয়ী হন।

নির্বাহী পরিষদের নির্বাচিত অন্যান্য সদস্যরা হচ্ছেন- যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বেন ইয়ামিন মুক্ত (সময় টিভি) ও জিএফ মামুন লাকি (আকাশ খবর), অর্থ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম (বাংলাদেশের খবর), সাংগঠনিক সম্পাদক রাশেদুজ্জামান (চ্যানেল ২৪), দপ্তর সম্পাদক আবু সাঈদ (প্রথম আলো), নির্বাহী সদস্য উম্মে ফাতেমা রোজিনা (এটিএন নিউজ ও এটিএন বাংলা), নুহু বাঙ্গালী(দেশের কণ্ঠ), আসিফ ইকবাল (একাত্তর টিভি) ও মামুন বঙ্গবাসি (মুক্তখবর) ।গাংনী ও মুজিবনগর প্রেস ক্লাব নেতৃবৃন্দ ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ নির্বাচিতদেরকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।


আরও খবর



ড. ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুদক

প্রকাশিত:সোমবার ২৯ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১০৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) শ্রমিক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিলের ২৫ কোটি ২২ লাখ টাকা আত্মসাতে ।

সোমবার (২৯ জানুয়ারি) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত কমিশন বৈঠক থেকে চার্জশিট অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে বিষয়টি জানান সংস্থাটির সচিব মাহবুব হোসেন।

গত ৩০মে গ্রামীণ টেলিকমের শ্রমিক-কর্মচারীদের কল্যাণ তহবিলের ২৫ কোটি ২২ লাখ ৬ হাজার ৭৮০ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ড. মুহাম্মদ ইউনূসসহ ১৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে দুদক। সংস্থার উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার আসামিরা হলেন- গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস, ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. নাজমুল ইসলাম, পরিচালক ও সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আশরাফুল হাসান, পরিচালক পারভীন মাহমুদ, নাজনীন সুলতানা, মো. শাহজাহান, নূরজাহান বেগম ও পরিচালক এস. এম হাজ্জাতুল ইসলাম লতিফী।

এ ছাড়া, অ্যাডভোকেট মো. ইউসুফ আলী, অ্যাডভোকেট জাফরুল হাসান শরীফ, গ্রামীণ টেলিকম শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি মো. কামরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ মাহমুদ হাসান ও প্রতিনিধি মো. মাইনুল ইসলামকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, গ্রামীণ টেলিকমের চেয়ারম্যান ড. মুহাম্মদ ইউনূস, ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজমুল ইসলামসহ বোর্ডের সদস্যদের উপস্থিতিতে ২০২২ সালের ৯ মে অনুষ্ঠিত ১০৮তম বোর্ডের সিদ্ধান্ত মোতাবেক ঢাকা ব্যাংকের গুলশান শাখায় হিসাব খোলা হয়। গ্রামীণ টেলিকমের কর্মচারীদের পাওনা লভ্যাংশ বিতরণের জন্য গ্রামীণ টেলিকম শ্রমিক কর্মচারী ইউনিয়ন এবং গ্রামীণ টেলিকমের সঙ্গে সেটেলমেন্ট অ্যাগ্রিমেন্ট চুক্তি হয় ওই বছরের ২৭ এপ্রিল।


আরও খবর



সৈয়দপুরে ফসলি জমির উর্বর মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭৯জন দেখেছেন

Image

সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:- নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ফসলি জমির উর্বর মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়।এতে কৃষি নির্ভর জমি গুলো পুকুর কিংবা ডোবায় পরিনত হয়ে চাষাবাদে ব্যাঘাত ঘটছে। স্হানীয় প্রশাসনে এ বিষয়ে  অভিযোগ দিয়ে ও প্রতিকার মিলছেনা বলে একাধিক কৃষকের অভিযোগ। 

অভিযোগে প্রকাশ,সৈয়দপুর উপজেলাটি ৫ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভা নিয়ে  গঠিত। ব্যবসা ও কৃষি খাতে এ উপজেলাটি দেশ জুড়ে পরিচিতি পেলেও বর্তমানে চাষাবাদে ধস নেমেছে শুরু মাত্র ফসলি জমির উর্বর মাটি ইটভাটায় যাওয়ার কারনে।

ভুক্তভুগীরা বলছেন,কামারপুকুর ইউনিয়নের তোফায়েলের মোড় এলাকার জয়নুল নামের এক ব্যাক্তি সরল শান্ত কৃষকদের লোভ দেখিয়ে কম দামে জমির উর্বর মাটি ক্রয় করে সেই মাটি চড়া দামে বিক্রি করছেন ইটভাটায়।একসময়ের লেবার শ্রেনীর এই মানুষ টি ফসলি জমির মাটি বিক্রি করে বর্তমানে ১০ ট্রাকটারের মালিক।এলাকা বাসী তার মাটি বিক্রির অভিযোগ উপজেলা প্রশাসনকে দেয়ার কথা বললেও কোন কর্নপাতই করেন না তিনি। ফসলি জমির মাটি খেকো জয়নুলের বিরুদ্ধে এখনই পদক্ষেপ না নিলে এ উপজেলায় তিন ফসলি জমিতে চাষাবাদ অর্ধেকে নেমে আসবে বলে জানান তারা। অন্য দিকে একই ইউনিয়নের সোহাগ নামের অপর এক ব্যাক্তি প্রায় প্রতিদিনই ১০/১২ টি ট্রাকটার লাগিয়ে কৃষকের জমির মাটি নিয়ে যাচ্ছে ইটভাটায়। কামার পুকুর ইউনিয়ন এর মাটি খেকো জয়নুল ও সোহাগের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্হা না নিলে সৈয়দপুর উপজেলায় তিন ফসলি জমিতে ফলন অর্ধেকে নেমে আসবে বলে শতাধিক কৃষক মতামত ব্যাক্ত করেন।

গত ৩০ জানুয়ারি সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ফসলি জমির উর্বর মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে মাটি খেকো জয়নুল ও সোহাগ।অথচ গত ২/৩ বছর আগেও ওইসব জমিতে ফলন ফলেছে বছরে তিন ফসল। গোলা ভর্তি করা ধান,আর আগাম৷ সবজি চাষাবাদ করে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে। 

জানা যায়, মাটি খেকো জয়নুল ও সোহাগের মাথায় হাত রয়েছে অবৈধ ক'জন ইটভাটা মালিকের।যার ফলে অসহায় অনেক কৃষকদের একপ্রকার হুমকির মধ্যে কমদামে ফসলি জমির মাটি নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ইটভাটায়। জয়নুল ও সোহাগ সহ ইটভাটার মালিকরা অর্থ ও বিত্তশালী হওয়ায় প্রতিবাদ করতে কেউ সাহস পাচ্ছেন না। 

জানতে চাইলে জয়নুল ও সোহাগ জানান, কামার পুকুর ইউনিয়ন এর অনেকেই মাটির ব্যবসা করেন।অন্যরা মাটি বিক্রি করলে দোষ হয়না কিন্তু আমরা বিক্রি করলে দোষ কিসের। একই ইউনিয়নের টোকাই সেলিম নামের এক যুবক উপজেলা প্রশাসনের সাথে থেকে প্রায় সব ইউনিয়নের মাটি নিয়ে আবাসন প্রকল্পো ভরাটের নামে অনত্র মাটি বিক্রি করে লাখ লাখ টাকার মালিক হলেও তার বিরুদ্ধে কেউই কোন অভিযোগ করেন না।

এবিষয়ে কামার পুকুর ইউনিয়ন এর চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বলেন,উপজেলা প্রশাসন কঠোর হলেই ফসলি জমির মাটি কেটে কেউই বিক্রি করতে পারবেন না।উপজেলা প্রশাসনের কঠোরতা নেই বলেই তি ফসলি জমির উর্বর মাটি চলে যাচ্ছে বিভিন্ন ইটভাটায়। ফলে আবাদ কমে এসেছে অর্ধেকে।
এ বিষয়ে উপজেলার সহকারী কমিশনার( ভুমি) আমিনুল ইসলাম বলেন কৃষকরা অভিযোগ দিলে অবশ্যই কঠোর ব্যবস্হা নেয়া হবে।

আরও খবর



শিশু আয়ানের মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে নতুন কমিটি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৬১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:তদন্তে নতুন কমিটি গঠন করে দিয়েছেন হাইকোর্ট,রাজধানীর বাড্ডার সাতারকুলের ইউনাইটেড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে শিশু আয়ান আহমেদের মৃত্যুর ঘটনা ।

আদালত বলেছেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কমিটির রিপোর্ট আমাদের মনঃপূত হয়নি। আমরা ৫ সদস্যের নতুন কমিটি করে দিচ্ছি।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম ও বিচারপতি মো. আতাবুল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

কমিটিতে তিনজন চিকিৎসক, দুইজন সিভিল সোসাইটির ব্যক্তি ও একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপককে রাখা হয়েছে। কমিটি এক মাসের মধ্যে আয়ানের মৃত্যুর পুরো ঘটনা তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করবে।

প্রসঙ্গত, ৩১ ডিসেম্বর বাড্ডা মাদানী অ্যাভিনিউয়ের ইউনাইটেড মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে শিশু আয়ানকে খতনা করাতে নিয়ে আসেন তার বাবা শামীম আহমেদ। সেখানে তাকে অস্ত্রোপচার পূর্ববর্তী এনেসথেসিয়া দেওয়া হয়। তবে ৭ জানুয়ারি দিবাগত রাত ১১টা ২০ মিনিটে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ শিশুটিকে মৃত ঘোষণা করে। এ হাসপাতালের পিআইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিল শিশু আয়ান।

জানা যায়, শিশুটিকে এনেসথেসিয়া প্রয়োগ করেন ডা. সাব্বির আহমেদ। আর সার্জারি করেছেন ডা. মেহজাবীন।


আরও খবর



বাগেরহাটে ছুরিকাঘাতে চাচাকে হত্যার ঘটনায় ভাতিজা গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৪২জন দেখেছেন

Image

বাগেরহাট প্রতিনিধি:বাগেরহাটের মোল্লাহাটে সুপারি চুরিকে কেন্দ্র কেন্দ্র করে ছুরিকাঘাতে জামিল সরদারকে হত্যার দায়ে ভাতিজা রইচ সরদার (২২)কে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড এ্যকাশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকালে মোল্লাহাট উপজেলার কুলিয়া ঘাতবিলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে রইচকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-৬ এর সদস্যরা। আইনি প্রক্রিয়া শেষ রইচকে মোল্লাহাট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার রইচ সরদার মোল্লাহাট উপজেলার জয়ডিহি দাঁড়িয়াঘাটা ইসরাইল সরদারের ছেলে।

নিহত নিহত জামিল সরদার মোল্লাহাট উপজেলার জয়ডিহি দাঁড়িয়াঘাটা গ্রামের সাহেব সরদারের ছেলে।

গত ২০ ফেব্রুয়ারি সকালে সুপারি চুরিকে কেন্দ্র করে বাক বিতন্ডার জেরে জামিল সরদারকে ছুরিকাঘাত করে হত্যা করেন ভাতিজা রইচ সরদার। পরে জামিল সরদারের ভাই দেলোয়ার সরদার বাদী হয়ে রইচ ও রইচের বাবাসহ তিনজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।মামলার অন্য দুই আসামী রইচের বাবা ও মাকে গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু হয়েছে।

মোল্লাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম আশরাফুল আলম বলেন, সুপারি চুরিকে কেন্দ্র জামিল সরদার হত্যা মামলার প্রধান আসামী রইচ সরদারকে গ্রেপ্তার হয়েছে। অন্য দুই আসামীকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।


আরও খবর