Logo
আজঃ Monday ২৭ June ২০২২
শিরোনাম

নৌকা পরাজিত স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান হলো তৃতীয় লিঙ্গের ঋতু!

প্রকাশিত:Sunday ২৮ November ২০২১ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৭৬জন দেখেছেন
ডেস্ক এডিটর

Image


 

 

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার ৬নম্বর ত্রিলোচনপুর ইউনিয়ন নির্বাচনে আনারস প্রতীকের তৃতীয় লিঙ্গের স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম ঋতু জয় লাভ করেছেন।

 

রবিবার ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বড় ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন নজরুল ইসলাম ঋতু। নির্বাচনে তিনি নৌকা প্রতীকের নজরুল ইসলাম ছানা ও হাতপাখা প্রতীকের মাহবুবুর রহমানকে পরাজিত করেছেন।

 

উপজেলা নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত ফলে জানা যায়, নজরুল ইসলাম ঋতু ৯ হাজার ৫৩৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকা প্রতীকের নজরুল ইসলাম ছানা পেয়েছেন ৪ হাজার ৪০৪ ভোট। বিজয়ী চেয়ারম্যান ঋতু উপজেলার ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নের দাদপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদেরের সন্তান।

 

জয়ের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া সাংবাদিকদের ঋতু বলেন, এ জয় ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নবাসীর। প্রতিটি মানুষের কাছে আমি ঋণী। কাজের মাধ্যমে মানুষের ঋণ শোধ করার চেষ্টা করব।

 

-খবর প্রতিদিন/ সি.বা 

নিউজ ট্যাগ: ইউনিয়ন নির্বাচন

আরও খবর



করোনায় আরও ৫৪০ মৃত্যু, শনাক্ত ৩ লাখ ২৩ হাজার

প্রকাশিত:Monday ১৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ২৫ June ২০২২ | ৬২জন দেখেছেন
Image

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে ৫৪০ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৩ লাখ ২৩ হাজার ৩৯৪ জন। এছাড়া একদিনে সুস্থ হয়েছেন ৩ লাখ ৮০ হাজার ৭৭৫ জন।

এ নিয়ে করোনায় বিশ্বে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৩ লাখ ৩১ হাজার ৪৩০ জনে। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৪ কোটি ৪ লাখ ৮৭ হাজার ৯৫০ জনে। এছাড়া করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৫১ কোটি ৫৬ লাখ ৭২ হাজার ৮৪৪ জন।

সোমবার (১৩ জুন) সকাল ৯টায় আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যানবিষয়ক ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশের তালিকার শীর্ষে থাকা যুক্তরাষ্ট্রে ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৬ হাজার ২৮৪ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে। একই সময়ে মারা গেছেন ১৯ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো আট কোটি ৭৩ লাখ ২১ হাজার ৭০৩ জনে। তাদের মধ্যে মারা গেছেন ১০ লাখ ৩৫ হাজার ৮৪৭ জন। এছাড়া সুস্থ হয়েছেন আট কোটি ৩১ লাখ ৫৯ হাজার ৭৯২ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি করোনা শনাক্ত হয়েছে ফ্রান্সে, ৭৯ হাজার ৩৯৭ জন। এ সময়ে সবেচেয়ে বেশি ১৬৩ জন মারা গেছে তাইওয়ানে।

এছাড়া ব্রাজিলে একদিনে মারা গেছেন ৪৩ জন, রাশিয়ায় ৬৫ জন এবং মেক্সিকোতে ৪২ জন।

এ সময়ে বাংলাদেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে কারো মৃত্যু হয়নি। তবে ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১০৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।


আরও খবর



বিশ্বে ফল উৎপাদন বৃদ্ধির হার বাংলাদেশে সর্বোচ্চ: কৃষিমন্ত্রী

প্রকাশিত:Monday ১৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
Image

বিশ্বে ফলের উৎপাদন বৃদ্ধির সর্বোচ্চ হারের রেকর্ড বাংলাদেশের বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক।

জাতীয় ফলমেলা উপলক্ষে সোমবার (১৩ জুন) সচিবালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ও দূরদর্শী নেতৃত্বে বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকারের সময়োপযোগী নীতি প্রণয়ন এবং তা যথাযথভাবে বাস্তবায়নের ফলে কৃষি উৎপাদন ও খাদ্য নিরাপত্তায় বাংলাদেশ অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করেছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ, আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ হ্রাস, জনসংখ্যার আধিক্য, জমিতে লবণাক্ততা ইত্যাদি চ্যালেঞ্জের মধ্যেও বাংলাদেশ আজ দানাদার খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

মন্ত্রী বলেন, একই সঙ্গে, বাংলাদেশ ফল উৎপাদনে বিশ্বে সফলতার উদাহরণ হয়ে উঠেছে। এ মুহূর্তে বিশ্বে ফলের উৎপাদন বৃদ্ধির সর্বোচ্চ হারের রেকর্ড বাংলাদেশের। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) হিসাবে বছরে সাড়ে ১১ শতাংশ হারে ফল উৎপাদন বাড়ছে।

‘কাঁঠাল উৎপাদনে বিশ্বে দ্বিতীয়, আমে সপ্তম, পেয়ারা উৎপাদনে অষ্টম, পেঁপেতে ১৪তম স্থানে আছে বাংলাদেশ। আর মৌসুমি ফল উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দেশের তালিকায় নাম লিখিয়েছে বাংলাদেশ। নিত্যনতুন ফল চাষের দিক থেকেও বাংলাদেশ সফলতা পেয়েছে। ২০ বছর আগে আম আর কাঁঠাল ছিল এই দেশের প্রধানফল। এখন বাংলাদেশে ৭২ প্রজাতির ফলের চাষ হচ্ছে, আগে হতো ৫৬ প্রজাতির৷’

এতে বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু দানাজাতীয় শস্য গ্রহণের পরিমাণ কমেছে জানিয়ে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, মাথাপিছু ফল গ্রহণের পরিমাণও বেড়েছে। এতে ফলের চাহিদা বেড়ে গেছে। ২০০৬ সালে মাথাপিছু ফল গ্রহণের হার ছিল ৫৫ গ্রাম যা বেড়ে ২০১৮ তে হয়েছে ৮৫ গ্রাম।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, ২০০৮-০৯ সালে দেশে ফলের উৎপাদন ছিল প্রায় এক কোটি টন। আর বর্তমানে ফলের উৎপাদন হচ্ছে প্রায় এক কোটি ২২ লাখ টন। বিগত ১২ বছরে ফলের উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি ২২ শতাংশ।


আরও খবর



দিল্লি যাচ্ছে সাইক্লিং দল

প্রকাশিত:Wednesday ১৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

৪১তম এশিয়ার ট্র্যাক সাইক্লিং চ্যাম্পিয়নশিপে অংশ নিতে বৃহস্পতিবার ভারত যাচ্ছে বাংলাদেশ সাইক্লিং দল। ১৮ থেকে ২২ জুন দেশটির রাজধানী দিল্লিতে অনুষ্ঠিত হবে এই প্রতিযোগিতা।

দলে ৮ জন সাইক্লিস্ট ও ৩ জন কর্মকর্তা রয়েছেন। কোচ হিসেবে যাচ্ছেন- বাংলাদেশ সাইক্লিং ফেডারেশনের সদস্য ওয়ালিদ হোসেন, ম্যানেজার ফেডারেশনের যুগ্ম সম্পাদক আমজাদ খান এবং দলনেতা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ তাহের উল আলম চৌধুরী।

৮ সাইক্লিস্ট হলেন- বিশ্বাস ফয়সাল হোসাইন, মুক্তাদুর আল হাসান, মো. হেলাল মিয়া, খন্দকার মাহবুব হোসেন, সমাপ্তী বিশ্বাস অর্থী, রিতা খাতুন, তিথী বিশ্বাস ও স্নিগ্ধা আক্তার।

অংশগ্রহণ শেষে বাংলাদেশ সাইক্লিং দল ২৩ জুন দেশে ফিরবে।


আরও খবর



একসময়ের খরস্রোতা আত্রাই এখন সরু নালা

প্রকাশিত:Friday ১৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ২৬ June ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

পাবনার সাঁথিয়া ও সুজানগর উপজেলার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত একসময়ের খরস্রোতা আত্রাই নদীর দুপাশ দখল করে অবৈধ স্থাপনা গড়ে তুলেছেন প্রভাবশালী ব্যবসায়ীরা। নদীর ওপর দিয়ে রাস্তা করে জনচলাচলের কথা বলে সেখানে কেউ কেউ করেছেন মার্কেট ও দোকানপাট। দখলে-দূষণে নদীটি একটি সরু নালায় পরিণত হয়েছে। নদীটি দখলমুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিন দেখা গেছে, সুজানগর উপজেলার আহাম্মদপুর ও সাঁথিয়া উপজেলার কাশীনাথপুরে নদীর দুপাড় দখল করেছেন প্রভাবশালীরা। পাড় থেকে ভরাট শুরু হলেও এখন তা নদীর মাঝ বরাবর পৌঁছে গেছে। এতে নদীটির প্রশস্ততা কমতে কমতে সরু নালায় পরিণত হয়েছে। এখন দেখলে কেউ বিশ্বাসই করবে না এখানে একটি নদী ছিল।

jagonews24

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কাশীনাথপুর পাবনার অন্যতম প্রধান বিপণি কেন্দ্র। এখানে জায়গার দাম অনেক বেশি হওয়ায় নদীতে দখলে নিতে মেতে উঠেছেন প্রভাবশালীরা। বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে কিছু বিএনপি নেতা ও জনপ্রতিনিধি মিলে নদীর পাড় দখল শুরু করেন। এ ধারা এখনো চলছে। এখন ক্ষমতাসীন দলের অনেকেই নদী দখলে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। অনেকে নদী ভরাট করে বহুতল মার্কেট ও বাড়ি নির্মাণ করে ভাড়াও দিয়েছেন।

কাশীনাথপুরের বাসিন্দা নায়েব আলী জানান, খুব সুক্ষ্ম কৌশলে নদীটি দখল কাজ করা হয়েছে। তিনি জানান, ২০০৪ সালের দিকে জনচলাচল সহজ করার কথা বলে স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধি সরকারি সহায়তায় নদীর ওপর একটি সেতু নির্মাণ করেন। এরপর তিনি সেতুর সংযোগ সড়কের কথা বলে নদীর ওপর দিয়ে রাস্তা নির্মাণ করেন। তারপর সে রাস্তার দুপাশ দিয়ে গড়ে তোলা হয় দোকানপাট ও মার্কেট।

jagonews24

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নদীর পাড় ঘিরে গড়ে ওঠা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের কয়েকজন মালিক জাগো নিউজকে বলেন, তারা শুধু দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করছেন, নদী দখলের বিষয়ে তারা কিছু জানেন না।

এলাকার বাসিন্দা ও ব্যবসায়ী মনির হোসেন ও শিক্ষক হাফিজুর রহমান বলেন, ‘দখলদারদের বিরুদ্ধে যদি এখনই কার্যকর আইনগত ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তাহলে আত্রাই নদী পাবনার ইতিহাস থেকে মুছে যাবে।’

jagonews24

কাশীনাথপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আত্রাই নদীর পাড়ে কাশীনাথপুর হাটের ৭৩ শতাংশ জায়গা দখল করে দোকানপাট নির্মাণ করা হয়েছে। তাদের হিসাবে এ পর্যন্ত প্রায় ৬০টি দোকান স্থাপন করা হয়েছে। তবে স্থানীয়রা জানান, অবৈধ দোকানপাটের সংখ্যা আরও অনেক বেশি।

কাশীনাথপুর নাগরিক কমিটির সভাপতি ডা. আমিরুল ইসলাম শানু জাগো নিউজকে বলেন, ‘দখল করে ও ময়লা-আবর্জনা ফেলে নদীটি মেরে ফেলা হয়েছে। পরিবেশ রক্ষায় অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করে নদীটি খনন এর প্রাণ ফিরিয়ে আনা দরকার।’

jagonews24

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) পাবনার সভাপতি আব্দুল করিম বলেন, ‘ছাত্রজীবনে আত্রাইকে দেখেছি ভরাট স্রোতাস্বিনী রূপে। আজ কিছু লোভী লোকের জন্য এর করুণ রূপ দেখে মর্মাহত হই।’

তিনি বলেন, ‘আত্রাই রক্ষায় আমরা বিভিন্ন সময়ে দাবি জানিয়ে আসছি। এখন সরকারি উদ্যোগ আশা করি। যারা জবরদখল করে আছেন তারা যে দলের বা মতেরই হোক তাদের অবিলম্বে উচ্ছেদ করা জরুরি।’

jagonews24

সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসএম জামাল আাহমেদ বলেন, বিষয়টি উপজেলা সমন্বয় সভা ও আইনশৃঙ্খলা সভায় উত্থাপন করা হবে। নদী দখলদারদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নদীটিকে যেন আবার সচল করা যায় সে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আত্রাই বাংলাদেশের একটি নদী যা পশ্চিম বাংলা ও বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চল দিয়ে প্রবাহিত। নদীটির মোট দৈর্ঘ্য প্রায় ২৪০ মাইল (৩৯০ কিলোমিটার)। এর সর্বোচ্চ গভীরতা ৯৯ ফুট (৩০ মিটার)।

অতীতে নদীটিকে ‘আত্রেই’ নামে ডাকা হতো এবং করতোয়া নদীর সঙ্গে এটির সংযোগ রয়েছে। এটা বরেন্দ্রভূমি অতিক্রম করে এবং চলন বিলের মধ্য দিয়ে পাবনায় প্রবাহিত।


আরও খবর



চলতি মাসে আরও ভ্যাট মেশিন বসানোর পরিকল্পনা এনবিআরের

প্রকাশিত:Sunday ০৫ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৬৬জন দেখেছেন
Image

চলতি জুন মাসে সারাদেশে আরও তিন হাজার দুইশটি ভ্যাট আদায়ের যন্ত্র বা ইলেকট্রনিক ফিসক্যাল মেশিন (ইএফডি) বসানোর পরিকল্পনা করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। পাশাপাশি তিন লাখ ইএফডি যন্ত্র বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (ভ্যাট নীতি) মইনুল খান।

রোববার (৫ জুন) এনবিআর সম্মেলন কক্ষে ইএফডি চালানের লটারির ড্র উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ তথ্য জানান। এনবিআর সদস্য (শুল্ক মূল্যায়ন ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্য) আব্দুল মান্নান শিকদার অনুষ্ঠানটির সভাপতিত্ব করেন।

ভ্যাট আদায়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করতে ২০১৯ সালের ২৫ আগস্ট ইএফডির উদ্বোধন করে রাজস্ব বোর্ড। প্রায় তিন হাজার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে বিনামূল্যে ইএফডি বসিয়েছে এনবিআর। ঢাকা ও চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের প্রথমে বিনামূল্যে যন্ত্রটি দেওয়া হলেও গত বছরের অক্টোবর থেকে তা কিনতে হচ্ছে। ক্রেতাদের এই মেশিন ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ জন্য প্রতি মাসেই ইএফডি চালানের ওপর লটারির ব্যবস্থা করছে এনবিআর।

প্রায় দেড় বছর ধরে লটারি হলেও বিজয়ী খুঁজে পায় না রাজস্ব বোর্ড। ২০২১ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি প্রথমবারের মতো ইএফডি চালানের লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়। এখন পর্যন্ত ৪ হাজার ৯৩৭টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ইএফডি বসিয়েছে এনবিআর।

রোববার ইএফডি চালানের ১৭তম লটারির ড্র অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে মোট ১০১ জন বিজয়ীর চালান নম্বর ঘোষণা করা হয়। মে মাসের ১ থেকে ৩০ তারিখ পর্যন্ত চালানের ওপর ভিত্তি করে এই লটারির ড্র অনুষ্ঠানটি আয়োজন করা হয়।

এনবিআর সদস্য মান্নান শিকদার বলেন, ইএফডি লটারিতে আমরা বিজয়ী সবাইকে পুরস্কার দিতে চাই। কিন্তু পুরস্কারের জন্য লোক পাচ্ছি না। এটাই আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ। আশা করি এটা সামনে আরও ভালো হবে। সবাইকে পুরস্কার দিতে পারবো।

ভ্যাট সদস্য মইনুল খান বলেন, ইএফডি মেশিন বসানোর পর থেকে আমরা আশান্বিত সাফল্য পাচ্ছি। গত মে মাসে ইএফডি মেশিনের মাধ্যমে ৩১০ কোটি টাকার রাজস্ব আদায় হয়েছে। যেখানে গত অর্থবছরের মে মাসে আদায় হয়েছিল ২০৩ কোটি টাকা। অর্থাৎ ১০৭ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আদায় হয়েছে।


আরও খবর