Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

নির্বাচন ঘিরে মাঠে নামল ৮০২ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৯৫জন দেখেছেন

Image

খবর প্রতিদিন ২৪ডেস্ক :দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আচরণ বিধিমালা নিশ্চিতে ৮০২ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে মাঠে নামিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। মঙ্গলবার (২৮ নভেম্বর) থেকে এসব নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে নেমেছেন। ইসির নির্বাচন পরিচালনা শাখার উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন।

আতিয়ার রহমান জানান, প্রতি উপজেলায় একজন করে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবেন। তবে ১৫টির বেশি ইউনিয়ন (পৌরসভাসহ) হলে উপজেলায় দুইজন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবেন। জেলা সদরের ‘এ’ ক্যাটাগরির পৌরসভায় একজন, তবে ৯ ওয়ার্ডের বেশি হলে দুইজন, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে ১১ জন, ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে ১৫ জন, চট্টগ্রাম সিটিতে ১০ জন, খুলনা সিটিতে ছয়জন, গাজীপুর সিটিতে চারজন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবেন। এ ছাড়া অন্যান্য সিটি করপোরেশনে তিনজন করে ম্যাজিস্ট্রেট মাঠে থাকবেন।

এর আগে, গত ২৩ নভেম্বর ইসির পক্ষ থেকে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো এক চিঠিতে ২৮ নভেম্বর থেকে ৪ জানুয়ারি পর্যন্ত ৩৯ দিনের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের মাঠে থাকতে বলা হয়। আচরণবিধি লঙ্ঘন বা পরিস্থিতির অবনতি হলে তারা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করবেন। ১৫টি পর্যন্ত ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত উপজেলায় একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েনের কথা বলা হয়েছে।

ইসির চিঠিতে কমবেশি ৮০২ জন ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের জন্য বলা হয়েছে। এতে প্রতিটি উপজেলায় একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের জন্য বলা হয়েছে। যেসব উপজেলায় ১৫টির বেশি ইউনিয়ন রয়েছে সেখানে দুজন ম্যাজিস্ট্রেট দিতে বলা হয়েছে।

চিঠিতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, স্থানীয় বাস্তবতা ও প্রয়োজনীয়তার নিরিখে বিভাগীয় কমিশনারের পরামর্শক্রমে জেলা প্রশাসকরা (ডিসি) উল্লিখিত ম্যাজিস্ট্রেটের সংখ্যার কমবেশি করতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচনের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ ৩০ নভেম্বর। মনোনয়নপত্র বাছাই হবে ১ থেকে ৪ ডিসেম্বর। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১৭ ডিসেম্বর। প্রতীক বরাদ্দ ১৮ ডিসেম্বর। আর ভোট হবে আগামী ৭ জানুয়ারি।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনা বৃহস্প‌তিবার জার্মা‌নি সফরে যাচ্ছেন

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:বৃহস্প‌তিবার (১৫ ফেব্রুয়া‌রি) মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সে যোগ দিতে জার্মা‌নি সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হা‌সিনা। টানা তৃতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর এটি তার প্রথম বিদেশ সফর।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী ১৬ থেকে ১৮ ফেব্রুয়ারি জার্মানির মিউনিখে অনুষ্ঠিতব্য মিউনিখ সিকিউরিটি সম্মেলনের ৬০তম আসরে অংশ নেবেন। আসন্ন সম্মেলনে অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ইস্যুতে বাংলাদেশের অবস্থা তুলে ধর‌বেন। তি‌নি জলবায়ু পরিবর্তন ইস্যুকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেবেন।

মিউ‌নি‌খ স‌ম্মেল‌নে যোগ দেওয়ার পাশাপা‌শি বেশ কয়েকজন সরকারপ্রধানসহ অন্যদের সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। এর মধ্যে জার্মানির চ্যান্সেলর ওলাফ শোলজ, ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী মেট ফ্রেডেরিকসেন ও নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটের সঙ্গে বৈঠক করবেন শেখ হা‌সিনা।

এছাড়া ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর এবং মেটা গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্সের প্রেসিডেন্ট নিক ক্লেগ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন।

মিউনিখ সিকিউরিটি সম্মেলন মূলত সমকালীন ও ভবিষ্যৎ নিরাপত্তার স্বার্থে উচ্চ-পর্যায়ের নিয়মিত আলোচনার জন্য বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ফোরাম হিসেবে বিবেচিত। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধান, আন্তর্জাতিক সংস্থা ও এনজিও নেতারা, মিডিয়া, সুশীল সমাজ, সরকারি ও বেসরকারি খাতের শীর্ষস্থানীয় প্রতিনিধিরা এ সম্মেলনে অংশগ্রহণ করে থাকেন। এর আগে, ২০১৭ ও ২০১৯ সালে মিউনিখ সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী দেশে ফেরার পথে সংযুক্ত আরব আমিরাত সফর করার কথা রয়েছে।


আরও খবর



আধুনিক নওগাঁ-৬ আসন বিনির্মাণে কৃষি ভিত্তিক শিল্প প্রতিষ্ঠান চান এমপি সুমন

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৩জন দেখেছেন

Image

নাজমুল হক নাহিদ, আত্রাই (নওগঁ) প্রতিনিধি: উত্তরের খাদ্য ভান্ডার হিসেবে পরিচিত জেলা নওগাঁ। জেলার ধান উৎপাদনে প্রসিদ্ধ উপজেলা হচ্ছে আত্রাই ও রাণীনগর। এই দুই উপজেলা নিয়ে গঠিত নওগাঁ-৬ আসন। এই আসন থেকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিপুল ভোটে বিজয় লাভ করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন এ্যাড. ওমর ফারুক সুমন।

১৯৮৬সালে আত্রাই উপজেলা থেকে প্রথম এমপি নির্বাচিত হয়ে জাতীয় সংসদে ভাষণ প্রদান করেন বীরমুক্তিযোদ্ধা ওহিদুর রহমান। তারই ছেলে এ্যাড. ওমর ফারুক সুমন দীর্ঘ ৩৮বছর পর মহান জাতীয় সংসদে বক্তব্য রাখার সুযোগ পাওয়ায় প্রথমেই তিনি মহান আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া আদায় করেন। আর এই সুযোগ করে দেওয়ার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা ও আত্রাই-রাণীনগর উপজেলার ভোটারদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এমপি সুমন।

সম্প্রতি জাতীয় সংসদে রাষ্ট্রপতির ভাষণের ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর দেওয়া বক্তব্যের শুরুতে এমপি ওমর ফারুক সুমন ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, সম্মুখযোদ্ধা, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের শহীদ হওয়া সকল সদস্য, জাতীয় নেতা, বাংলাদেশ আ’লীগের সাবেক সম্পাদক উত্তরবঙ্গের কৃতিসন্তান মরহুম আব্দুল জলিল ও নিজ আসনের প্রয়াত সকল এমপিদের স্মরণ করেন। এছাড়া আজকে জাতীয় সংসদে আসার পথে যিনি পাথেয় হিসেবে পথচলার প্রেরণা ও শক্তি যুগিয়েছেন সেই মমতাময়ী মাকেও স্মরণ করেন সুমন।

এমপি সুমন সংসদে উপস্থিত সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে নিজের এলাকার জন্য বিভিন্ন দাবী তুলে ধরেন। এসময় তিনি প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন যে, রাণীনগর ও আত্রাই উপজেলার মধ্যদিয়ে ৫টি নদী বয়ে গেছে। ফলে প্রতিবছরই দেশের অন্য কোথাও বন্যা না হলেও দুই উপজেলার ১৬টি ইউপির মধ্যে ১২টি ইউনিয়নই বন্যায় কবলিত হয়। তাই বন্যার হাত থেকে এই আসনকে রক্ষার্থে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আধুনিক পরিকল্পনা মাধ্যমে কার্যকর ব্যবস্থা চান সুমন।

জেলার মধ্যে ৩টি রেলওয়ে স্টেশন রয়েছে যার দুটি স্টেশন আত্রাই আর একটি রাণীনগর উপজেলায় অবস্থিত। বর্তমানে এই রেলস্টেশনগুলোর করুন দশা। আত্রাই উপজেলার শাহাগোলা স্টেশনটি দীর্ঘদিন যাবত বন্ধ থাকার কারণে স্টেশনটি বর্তমানে গোচারণ ভ’মিতে পরিণত হয়েছে। এছাড়া আহসানগঞ্জ ও রাণীনগর স্টেশনেরও করুন দশা। এই তিনটি রেলস্টেশনের আধুনিকায়নের মাধ্যমে সচল করে ঢাকাগামী অধিকাংশ ট্রেনগুলোর বিরতির দাবী তুলে ধরেন এমপি সুমন।

শহরের সুবিধা গ্রামের প্রত্যন্ত মানুষদের মাঝে পৌছে দিতে আত্রাই উপজেলার সমসপাড়া, আটগ্রাম, আন্ধারকোঠা, রায়পুর, পাঁচুপুর, ইসলামগাথী ও রাণীনগর উপজেলার কুজাইল ঘাটে দ্রুত ব্রিজ নির্মাণের দাবী তুলে ধরেন। এছাড়া উন্নয়নের ১৫বছরেও দুই উপজেলার যে রাস্তাগুলো এখনোও কাঁচা রয়েছে সেগুলো দ্রুত পাঁকাকরনের দাবীও তুলে ধরেন এমপি সুমন।

দুই উপজেলায় অবস্থিত ৫০শয্যার হাসপাতালে কোন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নেই। নানা ধরনের চিকিৎসা সরঞ্জামেরও ঘাটতি রয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে হৃদরোগ, মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ ও জটিল কিডনী রোগে আক্রান্তদের ভালো মানের চিকিৎসা নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। ফলে ভুক্তভোগীদের ঢাকা ও ভারতের বিভিন্ন হাসপাতালে ছুটতে হচ্ছে। কিন্তু দূর-দূরান্তের হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার মতো আর্থিক সঙ্গতিও সবার নেই। তাছাড়া এসব রোগের চিকিৎসা গ্রহণে দেরি হলে রোগীর প্রাণহানির ঝুঁকি বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি ভালো মতো আরোগ্য লাভের সম্ভাবনা হ্রাস পায়। তাই প্রতিটি মানুষের দ্বারপ্রান্তে আধুনিক মানের চিকিৎসা সেবা পৌছে দেওয়ার জন্য বিশেষজ্ঞ ডাক্তার নিয়োগ ও ওটি চালুসহ আধুনিক মানের সেবা প্রদাণের জন্য সকল ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন সুমন।

রাণীনগর ও আত্রাই কৃষি নির্ভর এলাকা হওয়ায় জেলায় নেই শস্য ও ফল গবেষণা কেন্দ্র। তিনি তার নিজের এলাকায় শস্য গবেষণা ও দুই উপজেলায় হটিকালচার কেন্দ্র স্থাপনের জোর দাবী তুলে ধরেন। দুই উপজেলার উন্নয়নের ধারাকে আরো ত্বরাণি¦ত করতে তিনি দুটি পৌরসভা ঘোষণার দাবীও তুলে ধরেন। দুই উপজেলায় চিত্র বিনোদনের জন্য পার্ক ও আধুনিকমানের স্টেডিয়াম নির্মাণের দাবী তুলে ধরেন। ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের জন্য তিনি দুই উপজেলায় হাইটেক পার্ক নির্মাণের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেন।

এছাড়া কারিগরী শিক্ষার বিস্তারে দুই উপজেলায় দুটি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট নির্মাণ এবং যে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনও পর্যন্ত এমপিও ভুক্ত হয়নি সেগুলো এমপিও ভুক্ত করে এই আসনে শিক্ষার বিস্তারকে আরো প্রসারিত করতে শিক্ষা মন্ত্রীর প্রতি অনুরোধ জানান সুমন। এই আসনের বেকারদের কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে দুই উপজেলায় সরকারি ভাবে কৃষি ভিত্তিক শিল্প কারখানা স্থাপনে দ্রুত প্রধানমন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।


আরও খবর



নবীনগরে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৭৩জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধিঃব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার কাইতলা উত্তর ইউনিয়ন বার আউলিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রারাসার বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

 বুধবার সকাল ১১ থেকে দিনব্যাপ অত্র  মাদ্রারাসার মাঠে অত্র এলাকার মান্যবর ব্যাক্তিবর্গগণের উপস্থিতিতে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে এই বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা , আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান এক মনোরম পরিবেশ  অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

এসময়, অত্র মাদ্রারাসার গভর্নিং বডির সভাপতি ফকির মোঃ কামাল উদ্দিন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন, স্পাইডার গ্রুপের এম ডি বিশিষ্ট শিল্পপতি ও সমাজ সেবক মোঃ রিপন মুন্সি। সাগত বক্তব্য রাখেন অত্র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মোহাম্মদ সফিকুল ইসলাম।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মোঃ জাহেদুল ইসলাম লিটন, ইউপি সদস্য মোঃ মমিন মুন্সি, ইউপি সদস্য মোঃ মুসা মিয়া, অত্র মাদ্রাসার গভর্নিং বডির সদস্য ও গ্রাম কমিটির সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম, অভিভাবক সদস্য মোঃ আবু হানিফ,অভিভাক সদস্য সৈয়দ খালেদ হোসেন, অভিভাবক সদস্য মোঃ আব্দুস সাত্তার, ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক রাজিব মিয়া, ছাত্রলীগ নেতা সজিব মিয়া প্রমুখ। 

অনুষ্ঠিত বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের প্রথম পুরুষ্কার সমূহ স্পন্সর করেন, সোশ্যাল ইসলামি ব্যাংক ব্রাহ্মণহাতা নারুই চকবাজার এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেট এর স্বত্বাধিকারী মোঃ আবু হানিফ ভূঁইয়া ।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ইমাম নিয়োগকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়!

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৮৮জন দেখেছেন

Image
সাব্বির খান, ইবি প্রতিনিধি:কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমাম নিয়োগকে কেন্দ্র উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে । সকাল ১১ টা থেকে দফায় দফায় উপাচার্যের সাথে দেখা করেন উপাচার্য বিরোধী শিক্ষক, কর্মকর্তা ও শাখা ছাত্রলীগের একাংশ। এ নিয়ে উপাচার্যের কার্যালয়ে আধা ঘন্টা বাকবিতন্ডতা করেন উপাচার্য বিরোধী শিক্ষক ও শাখা ছাত্রলীগের একাংশ। 

এসময় ছাত্রলীগের একাংশ কর্তৃক শিক্ষকদের লাঞ্চিত করার অভিযোগ উঠেছে। উপাচার্যের বিরুদ্ধে ইউজিসি কর্তৃক নিয়োগ বাণিজ্যর তদন্ত চলমান থাকার কারনে সংশ্লিষ্ট চেয়ারে বসার যোগ্যতা হারিয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে শিক্ষককেরা। শিক্ষকদের দাবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে ইউজিসি কর্তৃক গঠিত তদন্তের সুরাহা হওয়ার আগে কোন নিয়োগ বোর্ড করতে পারবে না বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। 

এসময় উপাচার্য বিরোধী শিক্ষকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শাপলা ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মণ, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. রবিউল হোসেন, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান, বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহবুবুল আরেফীনসহ প্রায় ৩০ জন শিক্ষক।

এ নিয়ে বঙ্গবন্ধু পরিষদ শিক্ষক ইউনিট এক বিবৃতিতে পাঠান গণমাধ্যমে। বিবৃতিতে বলা হয়, উপাচার্য ও শিক্ষকদের আলোচনা শুরুর কয়েক মিনিটের মধ্যেই উপাচার্যের অফিস কক্ষে ঢুকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে বহিরাগত ও বিশ্ববিদ্যালয়ের কিছু শিক্ষার্থীরা বলে অভিযোগ।

এদিকে পরে বিকাল তিনটায় উপাচার্যর বাংলোয় বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদের ইমাম নিয়োগ বোর্ড বসে। নিয়োগ বোর্ড থেকে কর্মকর্তা সমিতি চাকরী প্রার্থীদের বের করে দেন। তাৎক্ষণিক আবার প্রার্থীদের উপাচার্যর বাংলোয় নিয়ে আসেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এ নিয়ে বাংলো গেইটে উপাচার্য বিরোধী শিক্ষক, কর্মকর্তা এবং প্রশাসন পন্থী শিক্ষক ও শাখা ছাত্রলীগের একাংশ মুখোমুখি অবস্থান নেয়। প্রায় ২০ মিনিট অপেক্ষা করে প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাড়া না পেয়ে উপাচার্য বিরোধী শিক্ষক ও কর্মকর্তা সমিতি বাংলো গেইট ছেড়ে চলে যায়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মাহবুবুল আরেফীন বলেন, আমরা উপাচার্যের সাথে সাধারণ কিছু কথা বলতে গিয়েছিলাম। সেখানে উপাচার্যের সাথে কথা বলার এক পর্যায়ে হঠাৎ করে বহিরাগত অছাত্ররা কার্যালয়ে ডুকে পরে ও আমাদের চরমভাবে হেনস্তা করে। আমাদের একটিই দাবি উপাচার্যের বিরুদ্ধে গঠিত তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কোন নিয়োগ বোর্ড চলবে না। এছাড়া অছাত্রদের কর্তৃক শিক্ষকদের হেনস্তার বিচার করতে হবে।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন বলেন, 'যারা আজকের এই কাল্পনিক ঘটনা ঘটিয়েছে আমি মনে করি তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত হওয়া উচিৎ যারা জাতীয় প্রোগ্রামে তছনছ, কম্পিউটার এইসব বিষয় নিয়ে আপনারা তোহ জানেন , এসবের তদন্ত হওয়া উচিৎ। ভুতের মুখে রাম রাম।'

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, 'আমি বিন্দুমাত্র কোন দুর্নীতির সঙ্গে যুক্ত নেই। আমার বিরুদ্ধে এসব উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে হয়রানি করা হচ্ছে। এছাড়া শিক্ষকদের সাথে শিক্ষার্থীরা যা করেছে, তা অনাকাঙ্ক্ষিত।  আমি ওইসব শিক্ষার্থীদের চিনিও না। দুর্নীতির সঙ্গে আমার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই। ক্লিয়ার বলছি আমি কোন দুর্নীতি করিনি। নিয়োগ বোর্ড যা হয়েছে সব দুর্নীতিমুক্ত।'

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ভোলায় খাল দখল, অনুমতি ছাড়াই ইটের ভাটা নির্মাণ: প্রশাসন নির্বিকার

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯১জন দেখেছেন

Image

শরীফ হোসাইন ভোলা (বিশেষ) প্রতিনিধি :সরকার যখন নীতিমালার মধ্য দিয়ে ইটভাটাগুলোকে নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নিয়েছেন ঠিক তখন কিছু অসাধু ব্যক্তি জেলা প্রশাসনের অনুমতি ছাড়াই ইট তৈরী করে দে-ধারছে ব্যবসা করছেন। একদিকে যেমন নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ, অন্যদিকে সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব। খাল দখল এবং অনুমতি ছাড়াই ইটের ভাটা নির্মাণ করে ইট পোড়াচ্ছে সিকদার ব্রিকস। ভোলা সদর উপজেলার দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

সূত্রে জানা যায়, ভোলা সদর উপজেলার দক্ষিণ দিঘলদী বাঘমারা ব্রীজের দক্ষিণ দিকে নুরু মেম্বারের বাড়ীর পিছনে তেঁতুলিয়ার শাখা নদী কালির দোন খাল ভরাট করে সিকদার ব্রিকস নামে একটি ইটভাটা করেন স্থানীয় মোঃ আলী আকবর। যার দাগ নং-৮৯৪/৮৯৫, মৌজা-লালপুর, দক্ষিণ বালিয়া, দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়ন, ভোলা। গেল বছরের ডিসেম্বরে জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি দরখাস্ত জমা দিয়েই শুরু করে খাল দখল ও ইট তৈরী। অথচ জেলা প্রশাসন এখন পর্যন্ত ওই ইটভাটাকে কোন অনুমোদন দেয়নি।

এদিকে একই জায়গায় ২০১৭ সালে বাবা-মায়ের দোয়া নামে একটি ইটভাটা তৈরী করেন স্থানীয় মিঠু মাতাব্বর। কিন্তু বৈধ কাগজপত্র এবং খাল ভরাট করাতে তৎকালীন এডিএম আব্দুল হালিম জরিমানা করে ব্রিকস ফিল্ডটি বন্ধ করে দেন। তার ৬ বছর পর একই জায়গায় একই ভাবে মোঃ আলী আকবর সিকদার ব্রিকস নামে ইটভাটা করেন। এ যেন পুরনো বোতলে নতুন মোড়ক।
এলাকাবাসী জানান, তেঁতুলিয়ার শাখা নদী কালির দোন দিয়ে খেয়াঘাট হয়ে খোরশেদ খা ঘাট, খায়ের হাট, শান্তির হাট, নাছির হাওলাদার ঘাট, ভেলুমিয়া বাজার, ধুলিয়া, কালাইয়া, কবাই হয়ে কালিশ্বর যাতায়াত করা হতো। আমাদের স্থানীয়দের যেমন উপকার হতো, তেমনি হাজার হাজার মানুষেরও উপকার হতো। আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য, কৃষি, মাছ সম্পদসহ হাজার হাজার লোক এই নদী দিয়ে জীবন-যাত্রা নির্বাহ করতো। খালটি এক সময়ে ছিল ১৮০ফিট। কিন্তু বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ব্যক্তি খালটিকে ভরাট করে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করেছে এবং বর্তমানেও করছে। যার কারণে খালটি এখন মৃত প্রায়। নদীটির শাখা খালটি ভরাট করে ইটভাটা করাতে আমাদের জীবনের চাকা বন্ধ হওয়ার উপক্রম। তেমনি পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট হচ্ছে।

স্থানীয় হারুন অর রশিদ জানান, সিকদার ইটভাটার মালিক আলী হোসেন খুব ক্ষমতাবান। কথায় কাথায় তিনি প্রশাসনের ভয় দেখান। সে কতবড় ক্ষমতাবান খাল দখলও করলো, আবার ইটভাটাও করলো। সে আবার বটতলা বালিয়া খালের পাশে শত শত মন লাকড়ি স্টক করে সেখান থেকে রাতের আধারে অল্প অল্প করে লাকড়ি নিয়ে ইটভাটায় পোড়ান।বিনা অনুমতিতে কিভাবে ইটভাটা তৈরী ও ইট পোড়াচ্ছেন এমন প্রশ্ন করা হলে সিকদার ব্রিসক এর মালিক আলী আকবর বলেন, আমি সকল ঘাট ম্যানেজ করেই করছি। খাল ভরাট করে ইটভাটা নির্মাণের বিষয় জানতে চাইলে তিনি উত্তেজিত হয়ে বলেন, আপনি যা পারেন তা লিখেন। আপনাদের মত সাংবাদিক হিসাব করার মত আমার সময় নেই। আপনি চেয়ারম্যান-কে জিগান, আমি কি করছি।
সিকদার ব্রিসক এর ইটভাটার ব্যাপারে স্থানীয় চেয়ারম্যান ইফতারুল হাসান স্বপন ঢাকায় থাকায় তার বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। তবে স্থানীয় নুরু মেম্বারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এখানে ৪-৫ বছর আগে একটি ইটভাটা ছিল, তা সরকার বন্ধ করে দিয়েছে। এখন আবার খাল দখল করে পুনরায় ইটভাটা দিয়েছে। পরিষদে এটা নিয়ে আলাপ হয়েছে, চেয়ারম্যান সাহেব ঢাকা; তিনি দেশে আসলে সিকদার ব্রিকসের মালিককে ডেকে বিয়ষটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে।

পরিবেশ অধিদপ্তর সহকারী পরিচালক তোতা মিয়া জানান, ৫-৬ বছরের আগের ইটভাটার পরিবেশের অনুমতি-টি-ই সে পুনরায় নবায়ন করেছে। বর্তমানে খাল ভরাট করে নতুন ভাবে ইটভাটা করলো এটা দেখেও আপনি কিভাবে নবায়ন করলেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি কোন সদুত্তোর দিতে পারেন নি।স্থানীয় প্রশাসন (চেয়ারম্যান) এবং জেলা প্রশাসনের অদক্ষতার কারণেই এসব ইটভাটা অবৈধভাবে ইট তৈরী করেন এবং নদী দখল করে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করে বলে মন্তব্য করেন ভোলা পরিবেশবাদী আন্দোলনের নেতা মোবাশ্বির উল্লাহ চৌধুরী।
বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসক মোঃ আরিফুজ্জামানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সূত্রে জানা যায়, ভোলা জেলায় ইটভাটা ১১৫টি। যার মধ্যে ৮০টি বৈধ, সিকদার ব্রিকস সহ ৩৫টি অবৈধ। সুপ্রিয় পাঠক অবৈধ ইটভাটা নিয়ে আমাদের অনুসন্ধান চলছে। জেলার প্রত্যেকটি অবৈধ ইটভাটার তথ্য আপনাদের কাছে তুলে ধরবো।


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪