Logo
আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪
শিরোনাম

নবীনগরে নিখোঁজ সুমাইয়া আক্তার এসএসসি পরীক্ষায় পেলেন জিপিএ ৪.২৭

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ২৯৭জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর(ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি:ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে মেঘনা নদীতে গোসল করতে গিয়ে নিখোঁজ সুমাইয়া আক্তার এসএসসি পরীক্ষায় হাজী ছোট কলিম স্কুল এন্ড কলেজ মুলাইদ,মাওনা, শ্রীপুর, গাজীপুর থেকে জিপিএ ৪.২৭ পেয়েছে।

প্রায় ১৩ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো কোনো সন্ধান মিলেনি পরিবারের সদস্যদের চোখের পানি থামানো যাচ্ছে না। মেঘনা নদীর পাড়ে দিন রাত বসে তাকিয়ে আছে পরিবারের সদস্যরা সুমাইয়া আক্তার কে শেষ দেখা দেখতে।

উল্লেখ্য নবীনগর উপজেলার শ্যামগ্ৰাম ইউনিয়ন মানিকনগর বাজারের পশ্চিম পাশে মেঘনা নদীতে গোসল করতে নেমে সুমাইয়া আক্তার (১৬) নামে এক কিশোরী নিখোঁজ হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার দুপুরে উপজেলার নাছিরাবাদ গ্রামের হোরন ফকিরের বাড়ি সংলগ্ন মেঘনা নদীতে তলিয়ে যায় সে। সুমাইয়া শ্যামগ্রাম ইউনিয়নের শাহবাজপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার মেয়ে। সে এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছিল।

স্বজনরা জানায়,নবীনগর উপজেলার শাহবাজপুর গ্রামে সুমাইয়ার পৈত্রিক বাড়ি হলেও তার বাবা বাবুল মিয়া গাজীপুর জেলার শ্রীপুর থানার মাওনায় ব্যবসার করার কারণে গাজীপুরের মাওনায় বসবাস করতো,নাছিরাবাদ গ্রামে গত (০১ মে) বুধবার মামাতো বোনের বিয়েতে অংশ নিতে মামার বাড়ি এসেছিল সুমাইয়া।

গত (৩ মে)শুক্রবার দুপুরে মামাতো বোন রাকিবাকে নিয়ে নদীতে গোসল করতে যায় সে। এসময় নদীর পাড়ে বসে ছিল সুমাইয়া আক্তারের ছোট ভাই পানির স্রোতে দুজনেই তলিয়ে যেতে থাকলে  তাদের চিৎকারে পাশে থাকা বেদে সম্প্রদায়ের কয়েক জন ও স্থানীয়রা রাকিবাকে উদ্ধার করা হয়। তবে সুমাইয়া এর আগেই পানিতে তলিয়ে যায়।

গত (৩ মে)শুক্রবার খবর পেয়ে নবীনগর ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে গিয়ে ডুবুরী দলকে খবর দেয়। পরে চাঁদপুর থেকে ৫ সদস্যের একটি ডুবুরী দল এসে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিট থেকে ৭.৩০ মিনিট পর্যন্ত অভিযান চালালেও সুমাইয়ার কোন হদিস পাওয়া যায়নি।  পরদিন (৪ মে)শনিবার সকাল আটটার দিকে ডুবুরী দল অভিযান শুরু করে সন্ধ্যা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে সন্ধান মিলেনি পারে স্বজনদের বলেন আপনারা নৌকা দিয়ে নদীর আশেপাশে খোঁজ করার পরামর্শ দিয়েছেন।

নিখোঁজ সুমাইয়া আক্তারের মামা নবীনগর থানা প্রশাসন  ফায়ার সার্ভিসের ও ডুবুরী দলের সকল সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি আরো বলেন আমার ভাগ্নির জন্য দেশ বাসীর কাছে দোয়া চাই মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন যেন আমার পরিবারের সদস্যদের সুমাইয়া আক্তার কে শেষ দেখার সুযোগ করে দিন।

    -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



বাংলাদেশ ১০ উইকেটে জিতে হোয়াইটওয়াশ এড়াল

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১২৩জন দেখেছেন

Image

স্পোর্টস ডেস্ক:বাংলাদেশ ১০ উইকেটের দাপুটে জয় পেয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টোয়েন্টিতে। এ জয়ে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার হাত থেকেও বাঁচলো টাইগাররা।

আজ শনিবার হিউস্টনে বাংলাদেশ সময় রাত ৯টায় ম্যাচটি শুরু হয়। যেখানে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন টাইগার অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত। প্রথমে ব্যাট করা যুক্তরাষ্ট্রকে ১০৪ রানে গুটিয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ। মোস্তাফিজুর রহমান একাই ৬ উইকেট নিয়েছেন। জবাবে তানজিদ হাসান ও সৌম্য সরকারের অন্যবদ্য ব্যাটিংয়ে বিনা উইকেটে ১১.৪ ওভারে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় সফরকারীরা।

১০৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে তানজিদের ফিফটি ও সৌম্যর ঝড়ো ব্যাটিংয়ে সহজ জয় পায় বাংলাদেশ। তানজিদ ৪২ বলে ৫টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৫৮ রান করে অপরাজিত থাকেন। সৌম্য ২৮ বলে ৪টি চার ও ২টি ছক্কায় ৪৩ রানের হার না মানা ইনিংস খেলেন।

এর আগে প্রথমে ব্যাট করা যুক্তরাষ্ট্র অবশ্য শুরুটা ভালো করে। ৫ ওভারে দুই ওপেনার শায়ান জাহাঙ্গির ও আন্ড্রিয়াস গোউস ৪৬ রান তোলেন। তবে এরপর মোস্তাফিজের তোপে আসা-যাওয়ার মিছিলে ব্যস্ত হয় স্বাগতিকরা। গোউস সর্বোচ্চ ১৫ বলে ২৭ রান করেন। ১৮ রান করে করেন শায়ান ও কোরে অ্যান্ডারসন।

বাংলাদেশ বোলারদের মধ্যে মোস্তাফিজ মাত্র ৪ ওভারে ১০ রানের বিনিময়ে ৬টি উইকেট নেন। একটি করে উইকেট পান তানজিম সাকিব, সাকিব আল হাসান ও রিশাদ হোসেন।

এর আগে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেটে হারার পর দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ৬ রানে হেরে যায় বাংলাদেশ।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




জিডিপি প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১০৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী জানিয়েছেন ২০২৪-২৫ অর্থবছরে ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে এবং মধ্যমেয়াদে তা বেড়ে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশে পৌঁছাবে বলে।

বৃহস্পতিবার (০৬ জুন) বিকেল ৩টায় জাতীয় সংসদে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে বাজেট উপস্থাপন বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী এমনটি জানান।

অর্থমন্ত্রী বলেন, চলতি ২০২৩-২৪ অর্থবছরে বাংলাদেশের গড় প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৬ দশমিক ৭১ শতাংশ, যা বিশ্বের সব দেশের মধ্যে অন্যতম সর্বোচ্চ। উচ্চ মূল্যস্ফীতির কারণে দেশের অর্থনীতি বর্তমানে কিছুটা চাপের সম্মুখীন হলেও প্রাজ্ঞ ও সঠিক নীতিকৌশল বাস্তবায়নের ফলে জিডিপি প্রবৃদ্ধির গতিধারা অব্যাহত রয়েছে।

মাহমুদ আলী বলেন, কোভিড-১৯ অতিমারির পূর্বের বছরে অর্থাৎ ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে রেকর্ড ৭ দশমিক ৮৮ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জিত হয়েছিল। রাশিয়া-ইউক্রেন সংকট এবং অন্যান্য বৈশ্বিক অস্থিরতার ফলে সৃষ্ট সব প্রতিকূলতা সত্ত্বেও বাংলাদেশ ২০২১-২২ অর্থবছরে ৭ দশমিক ১০ শতাংশ, ২০২২-২৩ অর্থবছরে ৫ দশমিক ৮ শতাংশ এবং ২০২৩-২৪ অর্থবছরে ৫ দশমিক ৮২ শতাংশ (সাময়িক) প্রবৃদ্ধি অর্জনে সক্ষম হয়েছে; যা আমাদের অর্থনীতির অন্তর্নিহিত শক্তির পরিচায়ক।

তিনি বলেন, জিডিপি প্রবৃদ্ধির এ গতি আগামীতে ধরে রাখার লক্ষ্যে কৃষি ও শিল্প খাতের উৎপাদন উৎসাহিত করতে যৌক্তিক সকল সহায়তা চলমান থাকবে। পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো প্রকল্পসমূহের যথাযথ বাস্তবায়ন এবং রপ্তানি ও প্রবাস আয় বৃদ্ধির লক্ষ্যে সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ কাঙ্কিত মাত্রায় জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়ক হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, আশা করছি আমাদের এ সকল প্রাজ্ঞ নীতিকৌশলের সুফল হিসেবে আগামী অর্থবছরে ৬ দশমিক ৭৫ শতাংশ জিডিপি প্রবৃদ্ধি অজিত হবে এবং মধ্য মেয়াদে তা বৃদ্ধি পেয়ে ৭ দশমিক ২৫ শতাংশে পৌছাবে।


আরও খবর



রাজধানীর নয়াপল্টনে ভিওআইপি ব্যবসার সরঞ্জামসহ গ্রেপ্তার ১

প্রকাশিত:সোমবার ১০ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৭৬জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার সরঞ্জামসহ একজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব রাজধানীর নয়াপল্টনের একটি বহুতল ভবনের ফ্ল্যাট থেকে। এসময় ৩০ হাজারের অধিক অবৈধ সিমকার্ড ও বেশকিছু রাউটারসহ ভিওআইপি ব্যবসার কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের কম্পিউটার সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়।

সোমবার (১০ জুন) অভিযানের পর ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক।

তিনি জানান, এর মাধ্যমে ফাঁকি দেওয়া হতো বিপুল অংকের রাজস্ব।

অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার কার্যক্রম সম্পর্কে তথ্য পেয়ে সোমবার সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনের ৬৩ নম্বর বহুতল ভবনের একটি ফ্ল্যাটে অভিযান চালায় র‌্যাব-৩ এর একটি টিম। কয়েক ঘণ্টার অভিযানে উদ্ধার করা হয় ৩০ হাজারেরও বেশি অবৈধ মোবাইল সিমকার্ড ও বেশ কয়েকটি রাউটারসহ ভিওআইপি ব্যবসার কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটার সরঞ্জামাদি।

র‌্যাব জানায়, কয়েক বছর ধরে ভবনটি ভাড়া নিয়ে অবৈধভাবে দেশের বাইরের মোবাইল কল ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেশে পরিচালনা করতেন সাইফুল। এর মাধ্যমে সরকারের বিপুল অংকের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে সাইফুল প্রতি মাসে অবৈধভাবে আয় করতেন প্রায় পাঁচ লাখ টাকা। তাকে গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে উঠে আসে এসব তথ্য।

র‌্যাব-৩ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল ফিরোজ কবির জানান, কয়েক বছর আগে গুলিস্তানের পাতাল মার্কেটের মোবাইলের দোকানের এক কর্মচারীর কাছ থেকেই অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসার হাতেখড়ি সাইফুলের। বিভিন্ন সিমের দোকান থেকে গ্রাহকদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রতারণার মাধ্যমে এই সিমগুলো সংগ্রহ করা হত।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




বিএনপি সব কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করেছিল: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ১৩২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:২০০১ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত আমরা সরকারে ছিলাম না। ২০০১ সালে বিএনপি সরকার ক্ষমতায় এসে সব কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করে দেয়,বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমাদের দেশের মানুষ প্রাথমিক যে স্বাস্থ্য সেবা পাবে সেই সুযোগটা বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে আমাদের জনসংখ্যা এবং স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় স্থবিরতা নেমে আসে।

বুধবার (১৫ মে) হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ‘আইসিপিডি থার্টি গ্লোব্যাল ডায়ালগ অন ডেমোগ্রাফিক ডাইভার্সিটি অ্যান্ড সাসটেইনেবল ডেভলডমেন্ট’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯৬ সালে দীর্ঘ সংগ্রামের পর আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। আমরা দায়িত্ব নেওয়ার পর জাতির পিতার নেওয়া পদক্ষেপ অনুসরণ করে সকলের জন্য প্রাথমিক স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে নতুন জাতীয় স্বাস্থ্যনীতি প্রণয়ন করি। বিশেষ করে মা ও শিশুর স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করার জন্য, তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছানোর জন্য সারা দেশে ১৮ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন কাজ শুরু করি। সেই সময় জাতীয় পুষ্টি কর্মসূচি গ্রহণ করি। নারী উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নে আমরা বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করি। নারী শিক্ষা বিস্তার এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে তাদের অংশগ্রহণ করার ক্ষেত্রে ছিল আমাদের আন্তরিক প্রয়াস।

তিনি বলেন, জাতির পিতার নিদের্শে ’৭৩-৭৮ সাল পর্যন্ত প্রথম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার ওপর সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করা হয়। তিনি একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ন্যাশনাল কাউন্সিল কমিশন গঠন করেন। জাতির পিতাকে হত্যা করার পরে এদেশে অগণতান্ত্রিক সরকার ক্ষমতায় আসে। এরপর সমস্ত অর্জনগুলো একে একে নষ্ট করে দেওয়া হয়। ২০০৯ সালে জনগণের বিপুল ভোটে নির্বাচিত হয়ে পুনরায় সরকার পরিচালনার দায়িত্বে আসার পর আমরা আইসিপিডি প্রোগ্রাম অব অ্যাকশনের ১৫টি মূলনীতি বাস্তবায়নে জাতীয় জনসংখ্যা নীতি ২০১২ প্রণয়ন করি।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, মাতৃ মৃত্যু ও নবজাতক মৃত্যুহার হ্রাস, মা ও নবজাতকের স্বাস্থ্যসেবা, শিশু ও কিশোর-কিশোরী প্রজনন স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা প্রদানে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করি। দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে বন্ধ হয়ে যাওয়া কমিউনিটি ক্লিনিক প্রকল্প আবারও চালু করি। বর্তমানে সারাদেশে সাড়ে ১৪ হাজারেরও বেশি কমিউনিটি ক্লিনিক চালু আছে। এগুলোর মাধ্যমে মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্যসেবাসহ ৩০টি অতি প্রয়োজনীয় ওষুধ বিনামূল্যে প্রদান করা হচ্ছে। এর মধ্যে প্রায় তিন হাজার ক্লিনিকে স্কিলড বার্থ অ্যাটেনডেন্স সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের অধীন ৩ হাজার ২৯০টি ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র বা পরিবার পরিকল্পনা ক্লিনিক হতে মা, শিশু ও বয়ঃসন্ধিকালীন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা সেবা প্রদান করা হচ্ছে। এর মধ্যে ২ হাজার ২০০টি কেন্দ্র থেকে সার্বক্ষণিক স্বাভাবিক প্রসব সেবা প্রদান করা হচ্ছে। প্রসূতি সেবা প্রদানের জন্য এসব কেন্দ্রে ৪ জন করে ধাত্রী নিয়োগের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ২০১০ সালে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আমি ৩০ হাজার ধাত্রী নিয়োগের অঙ্গীকার করেছিলাম। এর ধারাবাহিকতায় আগামী কয়েক বছরের মধ্যে ২০ হাজার ধাত্রী নিয়োগ করা সম্ভব হবে বলে আমি আশা করি। মাতৃ স্বাস্থ্য সেবায় জরুরি প্রসূতি সেবা নিশ্চিত করতে ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা চালু করা হয়েছে। ‘মা টেলিহেলথ সার্ভিস’-এর মাধ্যমে প্রসূতি মায়ের গর্ভকালীন ও প্রসব পরবর্তী সেবা প্রদানের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। মা ও শিশুর পুষ্টি চাহিদা পূরণ এবং শিশুর শারীরিক বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশের জন্য ‘মা ও শিশু সহায়তা কর্মসূচি’ বাস্তবায়নের মাধ্যমে ১৩ লাখ উপকারভোগীকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।


আরও খবর

মেট্রোরেল ঈদের দিন বন্ধ থাকবে

বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪




মাগুরা জেলা পরিষদের ৪৯ কোটি টাকার বাজেট ঘোষনা

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জুন ২০২৪ | ৪৫জন দেখেছেন

Image

স্টাফ রিপোর্টার মাগুরা থেকে:মাগুরা জেলা পরিষদের ২০২৪- ২৫ অর্থ বছরের ৪৯ কোটি ১৩ লাখ ২৫ হাজার ৭৭১  টাকার বাজেট ঘোষনা করা হয়েছে।  বাজেট অধিবেশনের সভাপতি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পঙ্কজ কুমার কুন্ডু এ বাজেট ঘোষনা  করেন। রবিবার দুপুরে জেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ বাজেট অধিবেশনে মাগুরা ২ আসনের সংসদ সদস্য এড, বীরেন শিকদার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। মাগুরা জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুন্সী রেজাউল হক, সৈয়দ শরিফুল ইসলাম, মাগুরা সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রানা আমীর ওসমান, মহম্মদপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দূল মান্নান, শালিখা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শ্যামল কুমার দে,  মাগুরা ১ আসনের সংসদ সদস্য সাকিব আল হাসান এর পিতা মাশরুর রেজা কুটিল, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান খোকন, পরিষদের সদস্য মন্ডলী বাজেট অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন। জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী সানিউল কাদের অধিবেশনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। প্রস্তাবিত বাজেটে উন্নয়ন ও সংস্থাপন ব্যায় ২৫ কোটি ৩৮ লাখ ৫০ হাজার ও মূলধনী ব্যায় ২৩ কোটি ৭৪ লাখ ৭৫ হাজির ৭৭১ টাকা মিলে  মোট ৪৯ কোটি ১৩ লাখ ২৫ হাজার ৭৭১ টাকার বাজেট ঘোষনা করা হয়।


আরও খবর