Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

নাসিরনগরের সর্বত্রই এখন মাদকের ভয়াল ছড়াছড়ি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ২৯৪জন দেখেছেন

Image

নাসিরনগর,ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধিঃব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার  ১৩টি ইউনিয়নের সর্বত্রই এখন চলছে মাদকের ভয়াল ছড়াছড়ি।আর এ সমস্ত মাদকের মধ্যে রয়েছে মরণনেশা,ইয়াবা,গাঁজা,ফেনসিডিল,হিরোইন চোলাই মদ আর ভারতীয় বিভিন্ন নেশাজাতীয় পানিয়।তবে সব চেয়ে বেশী ছড়াছড়ি হচ্ছে ইয়াবা,গাঁজা আর চোলাইমদের।আর এ সমস্ত নেশাজাতীয়দ্রব্য সেবন করে সবচেয়ে বেশী নষ্ট হচ্ছে বেকার,তরুণ আর  যুব সমাজ।

বাড়ছে চুরি,ডাকাতি সহ নানা অপরাধ প্রবণতা। উপজেলার ১৩টি  ইউনিয়নে গোপন অনুসন্ধান চালিয়ে জানা গেছে বেশ কয়েকজন বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীর নাম।নাসিরনগর উপজেলার সবচেয়ে বড় মাদকের হাট হচ্ছে ধরমন্ডলে।আর সেখানকার বড় বড় মাদক ব্যবসায়ীদের নাম কারো অজানা নয়।তাছাড়াও ধরমন্ডলে রয়েছে পেশাদার মহিলা চেইন চোর চক্রের একটি সক্রিয় সিন্ডকেট।যাদের অবাদ বিচরণ সারাদেশেই বলা চলে।

কুন্ডা ইউনিয়নে কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীদের মাঝে রয়েছে কাহেতুরা গ্রামের মাদক সম্রাজ্ঞী নামে খ্যাত হেনা বেগম,তার মেয়ে হৃতু বেগম,বেরুইন গ্রামের হুমায়ুন, জয়ধর কান্দি গ্রামের  সাহাদুদ আমিনের ছেলে ওয়াদুদ আমি সে কুন্ডা থেকে ইয়াবা নিয়ে মহিষবেড় গ্রামে বিক্রি করে।অন্যদিকে মহিষবেড় গ্রামের ফিরোজ আলীর ছেলে হিরাগাজী,মহিষবেড় মনপুর গ্রামের সায়েব মিয়ার ছেলে আওয়াল ইসলামা,জাহাদ মিয়ার ছেলে মন মিয়া সহ আরো অনেকেই।গোয়ালনগর ইউনিয়নের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ীদের মাঝে রয়েছে কদমতলী গ্রামের।

আনু মিয়ার ছেলে মোঃ বাচ্চু মিয়া সেখান্দর আলীর ছেলে মোঃ মস্তু মিয়া,নান্নু মিয়ার ছেলে মোঃ সাহিদ মিয়া,মস্তুু মিয়ার ছেলে মোঃ মোজাম্মেল হক মুজিবুর রহমানের ছেলে মোঃ রুবেল মোঃ আমির হোসেনের ছেলে সালাম মিয়া আনু মিয়ার ছেলে মোঃ ইছাক মিয়া কিনু মিয়ার ছেলে মোঃ কামরুল মৃত হাসান আলীর ছেলে এরশাদ মিয়া আনু মিয়ার ছেলে কাজল মিয়া মৃত আনোয়ার হোসেনের ছেলে মোঃ অহিদ মিয়া সহ আরো অনেকেই।অন্যান্য গুলোর বিষয়ে আরো অনুসন্ধান চলছে,চলবে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




কাগইল আলিম মাদ্রাসায় বিদায় উপলক্ষে ক্রেস্ট-সংবর্ধনা ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯০জন দেখেছেন

Image

বগুড়া প্রতিনিধি:বৃহস্পতিবার বগুড়ার গাবতলী কাগইল নায়েব উল্ল্যা আলিম মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ আব্দুস ছাত্তার এর বিদায় এবং দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় উপলক্ষে  দোয়া অনুষ্ঠানে ক্রেস্ট ও সংবর্ধনা শেষে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করা হয়েছে। অত্র মাদ্রাসার সভাপতি আজমল হোসেন শীষ এর সভাপতিত্বে এবং অধ্যক্ষ মাওঃ আব্দুল মজিদের সার্বিক তত্ত¡াবধানে এতে বক্তব্য রাখেন কাগইল ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ মোল্লা, বিদায়ী উপাধ্যক্ষ আব্দুস ছাত্তার, গভর্নিং বর্ডির সদস্য আইযুব আলী, শাহজাহান আলী, আয়নুর নাহার, শহিদুল ইসলাম। এসময় উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবক আব্দুর রাজ্জাক শাহজাহান,  প্রভাষক আবু  জোবায়ের, রেজাউল করিম, শাহিনুর ইসলাম, মোহাম্মাদ আলী, রাফিউল ইসলামসহ শিক্ষক-কর্মচারী ও বিদায়ী শিক্ষার্থীবৃন্দ প্রমূখ। অত্র মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ আব্দুস ছাত্তার এর বিদায় উপলক্ষে ফুলেল সংবর্ধনা ও  ক্রেস্ট প্রদান এবং ২০২৪ইং সালের দাখিল পরীক্ষার্থীদের বিদায় উপলক্ষে শিক্ষা উপকরণ বিতরণ শেষে দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনায় দোয়া মাহফিলে মোনাজাত করা হয়।


আরও খবর



স্পার্ক ২০ প্রো+প্রি-অর্ডার করে উপভোগ করুন বাদশাহ’র লাইভ মিউজিক ফেস্ট

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:স্পার্ক ২০ প্রো+ স্মার্টফোন লঞ্চিং উপলক্ষে ঝাকঝমকপূর্ণ আয়োজনের মধ্য দিয়ে রাজধানীতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে টেকনো স্পার্ক ২০ সিরিজ মিউজিক ফেস্ট। মিউজিক ফেস্টের মূল আকর্ষণ হিসেবে থাকছেন বিখ্যাত ভারতীয় র‌্যাপার ও সংগীতশিল্পী বাদশা। ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি, এক্সপো জোন) আগামী ১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য টেকনো স্পার্ক ২০ সিরিজ মিউজিক ফেস্টে আরও থাকছেন ফুয়াদ অ্যান্ড ফ্রেন্ডস, প্রীতম হাসান, জেফার, ব্ল্যাক জ্যাং এবং সঞ্জয়।

মিউজিক ফেস্টে গ্লোবাল শীর্ষস্থানীয় স্মার্টফোন ব্র্যান্ড টেকনোর নতুন স্পার্ক ২০ প্রো+ মডেলের স্মার্টফোনটিও উন্মোচিত হবে। অসংখ্য গিফটসহ বহুল প্রত্যাশিত স্পার্ক ২০ প্রো+ স্মার্টফোনটির এখন প্রি- অর্ডার চলছে। আকর্ষণীয় এই স্মার্টফোনটি প্রি-বুকিং করলে পাওয়া যাবে টেকনোর একটি স্পেশাল গিফট বক্স। স্পেশাল গিফট বক্সে থাকছে টেকনো স্পার্ক ২০ সিরিজ মিউজিক ফেস্টের জন্য একটি কুপন, ১৮০ দিনের স্ক্রিন রিপ্লেসমেন্ট গ্যারান্টি কার্ড এবং একটি আকর্ষণীয় টি-শার্ট।

স্টাইলিশ এবং দুর্দান্ত স্পেকের কম্বিনিশনে ব্যবহারকারীদের জন্য আকর্ষীয় একটি চয়েজ হতে যাচ্ছে স্পার্ক ২০ প্রো+ স্মার্টফোনটি। বিশেষ করে তরুনদের ভার্সেটাইল ব্যবহার ও চাহিদা মাথায় রেখে তৈরি হয়েছে জনপ্রিয় স্পার্ক ২০ সিরিজের এই ফোনটি। এতে রয়েছে আকর্ষণীয় সব ফিচারস। ১২০ হার্জ রিফ্রেশ রেট যুক্ত ৬.৭৮ ইঞ্চির কার্ভড এমোলেড স্ক্রিন, প্রটেক্ট করার জন্য রয়েছে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৫ যা একই সাথে স্ক্রাচ প্রুফ এবং টেকসই।

পাশাপাশি কার্ভড এমোলেড স্ক্রিন ব্যবহারকারীদের দেবে চমৎকার ভিউইং অভিজ্ঞতা। আকর্ষণীয় ও ক্রিস্টাল ক্লিয়ার ছবি তোলা ও ভালো মানের ভিডিও ধারণের জন্য ফোনটিতে ১০৮ মেগাপিক্সেলের আল্ট্রা সেনসিং সেন্সর সমৃদ্ধ মেইন ক্যামেরা।

শ্রোতাদের মুগ্ধ করার সব উপকরণ থাকছে এই টেকনো স্পার্ক ২০ সিরিজ মিউজিক ফেস্টে। সুরের মোহে শ্রোতাদের মুগ্ধ করে রাখার চমকপ্রদ সব আয়োজন থাকছে এতে। টেকনো স্পার্ক ২০ সিরিজ মিউজিক ফেস্টের টিকিট এখন কিনতে পাওয়া যাচ্ছে।

টিকিট সম্পর্কে অনুসন্ধান এবং ক্রয় করতে ভিজিট করুন : টেকনো বাংলাদেশের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজেঃ www.facebook.com/TECNOMobileBangladesh


আরও খবর

ধ্রুব মিউজিক স্টেশনের ৭ম বর্ষপূর্তি

শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪




নির্বাচনে জনগণ ও গণতন্ত্রের জয় হয়েছে: সংসদে রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩৭জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন অবাধ-সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের আয়োজনকে যুগান্তকারী ঘটনা।

তিনি বলেন, জনগণের রায় মেনে নিয়ে গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত রাখাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। দেশের গণতন্ত্রের জন্য দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে আয়োজন অত্যন্ত যুগান্তকারী ঘটনা, যা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ব্যাপক প্রশংসিত হয়েছে। আমার দৃঢ় বিশ্বাস দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয় হয়েছে দেশের জনগণের, জয় হয়েছে গণতন্ত্রের।

মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে দেওয়া ভাষণের শুরুতে এসব কথা বলেন রাষ্ট্রপতি। এসময় তিনি অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সম্পন্ন করায় নির্বাচন কমিশনসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

রাষ্ট্রপতি বলেন, নির্বাচন ঘিরে একটি মহল সহিংসতা ও সংঘাত সৃষ্টি করে গণতন্ত্রের শান্ত-স্নিগ্ধ যাত্রাপথে বাধা সৃষ্টির অপচেষ্টা চালিয়েছিল। তাদের গণতন্ত্র বিরোধী ও সহিংস কর্মকাণ্ড সাময়িকভাবে জনগণকে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে রাখলেও ভোটারদের ভোটদান থেকে বিরত রাখতে পারেনি। সাধারণ মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত ও সক্রিয় অংশগ্রহণের জন্যই সরকার ও নির্বাচন কমিশনের সব পদক্ষেপ সার্থক হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচন বর্জনকারী দলগুলো সম্পূর্ণ স্বাধীনভাবে তাদের রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করেছে। আমি আশা করি, ভবিষ্যতে দেশের রাজনৈতিক দলগুলো সহিংসতা ও নৈরাজ্যের পথ পরিহার করে সাংবিধানিক অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং জনগণ ও গণতন্ত্রের কল্যাণে অহিংস পন্থায় গঠনমূলক কর্মসূচি পালন করবে। সরকারও এক্ষেত্রে সংযত আচরণ করবে- এটাই সবার প্রত্যাশা।

২০০১ সালের নির্বাচন পরবর্তী দেশে যে নৃশংস সহিংসতা হয়েছিল তাকে ‘বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি কলঙ্কজনক অধ্যায়’ বলে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, এর মাধ্যমে আমাদের হাজার বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্যকে ভূলুণ্ঠিত করা হয়েছিল। কিন্তু ২০০৮ সালের নির্বাচনসহ পরবর্তীতে অনুষ্ঠিত সকল নির্বাচনে সহিংসতার পুনরাবৃত্তি থেকে মুক্তি পেয়েছি।

এ সময় রাষ্ট্রপতি ১৯৭৫-এর ১৫ই আগস্টের বর্বর হত্যাকাণ্ড ইতিহাসে সবচেয়ে বেদনাদায়ক অধ্যায় উল্লেখ করে নিহত বঙ্গবন্ধু পরিবারের আত্মার মাগফিরাত ও শান্তি কামনা করেন।


আরও খবর



'হিমেল অপহরণে মূল পরিকল্পনায় ছিলেন সামিদুল"

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:হিমেল অপহরণের ঘটনায় মূল পরিকল্পনায় ছিলেন তার ব্যক্তিগত গাড়িচালক সামিদুল, বলেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর মিন্টো রোডে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, রাজধানীর উত্তরা থেকে শেরপুর যাওয়ার পথে অপহরণ হন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হাসিবুর রহমান হিমেল। দীর্ঘ একমাস তাকে আটকে রেখে নির্যাতন ও হত্যার হুমকি দিয়ে কয়েক কোটি টাকা মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টা করে আসছিল একটি চক্র। সর্বশেষ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় সুনামগঞ্জের তাহিপুরের দুর্গম পাহাড় থেকে উদ্ধার করা হয় হিমেলকে। গ্রেপ্তার করা হয় অপহরণ চক্রের মূলহোতাসহ ১২ জনকে। এ অপহরণের ঘটনায় তদন্তে নেমে গোয়েন্দা পুলিশ জানতে পারে এ অপহরণের মূল পরিকল্পনায় ছিলেন ব্যক্তিগত গাড়ি চালক সামিদুল। এমনকি বিভিন্ন অপহরণ চক্রের সঙ্গে গাড়ি চালকদের যোগসূত্রও পাওয়া গেছে।

তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিমেল অপহরণের ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) লালবাগ বিভাগ তদন্ত করছিল। এ মামলার তদন্তে ব্যক্তিগত গাড়িচালক গ্রেপ্তার করা হয়। এ চালকই অপহরণের মূলহোতা। চালক ছামিদুল ইসলাম যখন গাড়ি চালাতেন তখন তার ভেতরে লোভ জাগে; তার স্যারের মতো নিজের একটি গাড়ি থাকবে। ছামিদুল প্রথমে তুরাগ এলাকার হানিফ বাবুর্চী নামের এক সাইটের ইঞ্জিনিয়ারের সঙ্গে আলোচনা করেন। এরপর পরবর্তী আলোচনা হয় ময়মনসিংহের দোবাউরা থানার ইউপি চেয়ারম্যান মামুনের সঙ্গে। একাধিকবার চেয়ারম্যান। হিমেলকে অপহরণ করে তার বাসায় রাখার পরিকল্পনা করা হয়। পরবর্তীতে হিমেলকে যখন অপহরণ করে তার বাসায় নেওয়া হয় কিন্তু টাকা পেতে দেরি হওয়ায় মামুন গাড়ি দিয়ে সীমান্ত এলাকায় হিমেলকে পাঠানো হয়। গাড়িতে করে হিমেলকে বর্ডারের একটি পাহাড়ে নিয়ে যাওয়া হয়। তখন সামিদুল ও মালেক, মোবারক, মানিককে নিয়ে চলে যায়। তখন থেকেই হিমেলের ওপর নির্যাতন শুরু হয়। পরবর্তীতে ডিবি লালবাগ বিভাগ কাজ শুরু করে।

হারুন অর রশীদ আরও বলেন, পরবর্তীতে ডিবি লালবাগ শরীয়তপুরের চর অঞ্চল থেকে মাসুদকে গ্রেপ্তার করা হয়। মাসুদের মাধ্যমে বিভিন্ন তথ্য নিয়ে ময়মনসিংহের দোবাউরা, নেত্রেকোনা, দূর্গাপুর এরপর তাহিরপুরের টাঙ্গুয়ার হাওরে সোর্স নিয়োগ করা হয়। এ সোর্সের মাধ্যমে ডিবি জানতে পারে এ গ্রুপ শুধু অপহরণ করে না, তারা চোরা চালানের সঙ্গেও জড়িত। তারা গরু, চিনিসহ বিভিন্ন পণ্য চোরাচালানের সঙ্গে জড়িত। অপহরণের পর ভুক্তভোগীকে নির্যাতন করা হয়। যার ছবি ও ভিডিও পাঠানো হতো হিমেলের মায়ের কাছে। সর্বশেষ তারা ৩০ লাখ টাকা দাবি করেছিল। কিন্তু এর মধ্যে ডিবির চারোদিক থেকে সাঁড়াশি অভিযানের কারণে তারা পেরে উঠতে পারেনি। এ সময়ে অপহরণকারীদেরও টাকা শেষ হয়ে যায়। কারণ, ওপারের মেঘালয় পুলিশ, এপারের আমাদের তৎপরতার কারণে এক মাস পাহাড়ে থাকায় টাকা শেষ হয়ে যায়। এ সময়ে তারা টাকার যোগান দিতে গরু চুরি করে বিক্রি করে এরপর সেই টাকা দিয়ে পাহাড়ে অবস্থান করত। পরে আমরা খবর পেলাম অপহরণকারীরা টাঙ্গুয়ার হাওরে আবারও অন্য একটি পরিকল্পনা নিয়ে এসেছে। পরে টাঙ্গুয়ার হাওরের একটি নৌকা থেকে হিমেলের গাড়ি চালক সামিদুল, ১৭ মামলার আসামি মালেকসহ চারজনকে গ্রেপ্তার কার হয়। এ অভিযানে র‌্যাবও সহযোগিতা করে।

তিনি আরও বলেন, গ্রেপ্তারের পর ডিবি তথ্য পায় এ অপহরণের মূল পরিকল্পনা করা হয় তুরাগ থানা এলাকায় বসে। এরপর দোবাউরায় ইউপি চেয়ারম্যানের বাসায় বসে পরিকল্পনার দ্বিতীয় পর্ব ঠিক করা হয়। এ ঘটনায় মামুন ও হানিফ এ ঘটনায় নিজেদের দায় স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। আমাদের কাছে তারা স্বীকার করেছে যে, তারা একাধিক অপহরণের ঘটনা ঘটিয়েছে। ভুক্তভোগীরা নানা কারণে তাদের টাকা দিয়েছে। কিন্তু এ ঘটনায় ডিবি পুলিশ নিয়মিত মোবাইল ট্রাকিংসহ বিভিন্ন ভাবে কাজ করে গেছে। পাশাপাশি মেঘালয় পুলিশের তৎপরতার কারণে তারা যে দুই তিন কোটি টাকা আদায়ের পরিকল্পনা করেছিল সেটি নিতে তারা ব্যর্থ হয় এবং আমরা ভুক্তভোগীকে উদ্ধার করি।


আরও খবর



পত্নীতলায় সিধুয়া স্কুলের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৭২জন দেখেছেন

Image
পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি:পত্নীতলায় উপজেলার সিধুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মঙ্গলবার ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারী বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণী এবং সন্ধ্যায় মনোঙ্গ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিদ্যালয়টির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সুভাষ চন্দ্র সাহা এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাটিন্দর ইউপি চেয়ারম্যান সুলতান মাহমুদ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্বদেশ কুমার মন্ডল। অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রুবেল হোসেন, সাবেক পৌর কাউন্সিলর মিল্টন উদ্দিন।  এ সময় উপস্থিত ছিলেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ, অভিভাবকবৃন্দ, সুধীজন প্রমুখ।

সন্ধ্যায় মনোঙ্গ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্বদেশ কুমার মন্ডলের বিদ্যালয় হতে আগামী ১৫ই ফেব্রুয়ারি অবসর গ্রহণ উপলক্ষে তাকে বিদায় সম্বর্ধনা জানানো হয়।

আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪