Logo
আজঃ Wednesday ১০ August ২০২২
শিরোনাম
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে ২৪৩৫ লিটার চোরাই জ্বালানি তেলসহ আটক-২ নাসিরনগরে বঙ্গ মাতার জন্ম বার্ষিকি পালিত রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড

নারায়ণগঞ্জে ভাইয়ের লাঠির আঘাতে প্রাণ গেলো বোনের

প্রকাশিত:Saturday ১৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ৭৮জন দেখেছেন
Image

 

নারায়ণগঞ্জের বন্দর এলাকায় চাচাতো ভাই আব্দুল আউয়ালের লাঠির আঘাতে মাফি বেগম (৬০) নামে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে।

শুক্রবার (১৭ জুন) বিকেলে কলাগাছিয়া ইউনিয়নের আইচতলা কলাবাগ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মাফি বেগম কলাগাছিয়া ইউনিয়নের আইচতলা কলাবাগ এলাকার মৃত সৈয়দ আলীর মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, বিকেলে মাফি বেগম রিকশাযোগে কাঁঠাল নিয়ে তার মেয়ের বাড়িতে যাচ্ছিল। এসময় তার চাচাতো ভাই আব্দুল আউয়াল তার কাছে একটি কাঁঠাল আবদার করে বসে। এসময় মাফি তাকে একটি ছোট কাঁঠাল দেয়। ছোট কাঁঠাল দেওয়াকে কেন্দ্র করে তর্কের একপর্যায়ে হাতে লাঠি দিয়ে মাফিকে আঘাত করে আউয়াল। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

বন্দর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মহসীন জাগো নিউজকে বলেন, ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পেলে বিস্তারিত বলতে পারবো।


আরও খবর



আশুগঞ্জে তৃতীয়দিনের মতো চলছে ট্রাক ধর্মঘট, ধান বেচাকেনা বন্ধ

প্রকাশিত:Monday ০৮ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে টানা তৃতীয়দিনের মতো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে ট্রাক ধর্মঘট চলছে। এতে পরিবহন সংকটে আশুগঞ্জ মোকামে ধান বেচাকেনা বন্ধ হয়ে গেছে।

গত শনিবার থেকে ভাড়া বাড়ানোর দাবিতে পূর্বাঞ্চলের সবচেয়ে বড় এ মোকামে ধর্মঘট পালন করছেন ট্রাক মালিকরা। সোমবার (৮ আগস্ট) পর্যন্ত নিজেদের দাবিতে অনড় রয়েছেন তারা। এতে করে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন মোকামের প্রায় এক হাজার শ্রমিক।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সম্প্রতি ভারত থেকে চাল আমদানির ফলে আশুগঞ্জ ধানের মোকামে বেচাকেনা কমেছে প্রায় ৩০ শতাংশ। এরপর জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি মোকামে নতুন সংকট তৈরি করেছে। লোকসানের কারণ দেখিয়ে মোকাম থেকে ধান পরিবহন বন্ধ করে দিয়েছেন ট্রাক মালিকরা। প্রতি বস্তা ধান পরিবহনে আরও তিন টাকা ৬৫ পয়সা থেকে ছয় টাকা ৯০ পয়সা পর্যন্ত বাড়ানোর দাবিতে ধর্মঘট করছেন তারা।

সরেজমিনে দেখা যায়, ধর্মঘটের কারণে ধান পরিবহন বন্ধ থাকায় মোকামে বেচাকেনা বন্ধ রয়েছে। এতে করে দূর-দূরান্ত থেকে ধান নিয়ে আসা প্রায় দুইশতাধিক নৌকা আটকে আছে মেঘনা নদীর তীরের এই মোকামে। ধান নিয়ে আসা ব্যাপারীরা যেমন দুর্ভোগে পড়েছেন, তেমনি বেকার হয়ে পড়েছেন মোকামে খেটে খাওয়া শ্রমিকরা।

jagonews24

আশুগঞ্জ উপজেলা ট্রাক মালিক সমিতির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আশরাফ আলী জানান, বর্তমানে যে ট্রাক ভাড়া আছে তাতে এমনিতেই আমাদের লোকসান দিতে হয়। এখন জ্বালানি তেলের দর যে হারে বেড়েছে, তাতে ট্রাক চালানো দায় হয়ে পড়েছে। ট্রাক ভাড়া না বাড়ানো পর্যন্ত আমাদের ধর্মঘট অব্যাহত থাকবে।

তবে মোকামের ধান-চাল ব্যবসায়ীদের দাবি, ট্রাক মালিকদের সঙ্গে আলোচনা করেও কোনো সমঝোতা করা যায়নি। ট্রাক মালিকরা যে হারে ভাড়া দাবি করছেন, সেই অনুযায়ী ভাড়া বাড়ালে প্রভাব পড়বে চালের বাজারে। তখন চালের দাম অনেক বেড়ে যাবে।

আশুগঞ্জ উপজেলা অটোরাইসমিল মালিক সমিতির সদস্য হাসান ইমরান বলেন, ট্রাক মালিকদের সঙ্গে আলোচনা করে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি। কিন্তু ট্রাকের ভাড়া বাড়ালে এর প্রভাব পড়বে চালের বাজারে। কারণ পরিবহন খরচ বাড়লে ধানের দাম বেড়ে যাবে। তখন চালের বাজারে নতুন সংকট তৈরি হবে।

মেঘনা নদীর তীরে অবস্থিত আশুগঞ্জ ধানের মোকামে মৌসুমে দৈনিক অন্তত এক লাখ মণ ধান বেচাকেনা হয়। মূলত আশুগঞ্জের এ মোকামই জেলার আড়াইশো চালকলে ধানের যোগান দেয়। মোকামটিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ছাড়াও কিশোরগঞ্জ, নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ, সিলেট, হবিগঞ্জ ও মৌলভীবাজারের হাওর এলাকায় উৎপাদিত ধান আসে। এই উপজেলার চালকলগুলোতে উৎপাদিত চাল সরবরাহ হয় ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটের বিভিন্ন জেলায়। বর্তমানে এই মোকামে বিআর-২৯ ধানের মণ ১০৮০ থেকে ১১০০ টাকা। আর মোটা ধান বিক্রি হচ্ছে ৯১০-৯২০ টাকা মণ।


আরও খবর



বিদেশে পার্লারে কাজের কথা বলে নারী পাচার, আটক ৬

প্রকাশিত:Friday ০৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
Image

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে নারী পাচার চক্রের ছয় সদস্যকে আটক করেছে র‍্যাব-১১। এ সময় তাদের কাছ থেকে বেশ কয়েকটি মোবাইল, ডেবিট কার্ড ও টাকা রাখার ব্যাগ জব্দ করা হয়।

বৃহস্পতিবার (৪ আগস্ট) রাতে মিজমিজি বাতানপাড়া এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

আটকরা হলেন- ঝুমা আক্তার (২৮), শারমিন আক্তার (২৯), রিনা (৩৫), শাহজামাল (৪০), রাবেয়া আক্তার (২৭) ও কমলি খাতুন সিমা (৩২)।

jagonews24

শুক্রবার (৫ আগস্ট) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১১ এর অধিনায়ক তানভীর মাহমুদ পাশা বলেন, ‘ একদল মানবপাচারকারী সদস্য নারীকে বিউটি পার্লারে কাজ যোগাড় করে দেওয়ার কথা বলে যশোর বেনাপোল বর্ডারে নিয়ে যায়। এক পর্যায়ে তাকে পার্শ্ববর্তী দেশে কাঁটাতারের বেড়া অতিক্রম করে যাওয়ার জন্য বললে তিনি বুঝতে পারেন তাকে পাচার করা হচ্ছে। মেয়েটি যেতে রাজি না হলে পাচারকারীরা তাকে ব্যাপক মারধর করে। এক পর্যায়ে মেয়েটি কৌশলে পালিয়ে বাসে যশোর থেকে নারায়ণগঞ্জ আসে।

তানভীর মাহমুদ পাশা আরও বলেন, ভুক্তভোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে সিদ্ধিরগঞ্জে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে নারী পাচারকারী চক্রের সদস্যদের আটক কররা হযা। এ সময় আরও দুই নারীকেও উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাব জানায়, এ চক্র দীর্ঘদিন যাবত সহজ-সরল অভাবী নারীদের বিউটি পার্লারে কাজ দেওয়ার মতো উন্নত জীবনের প্রলোভন দেখিয়ে অবৈধভাবে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার করে আসছিল। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।


আরও খবর



ইভটিজিংয়ে বাধা দেওয়ায় বন্ধুকে খুন করেন রাকিব

প্রকাশিত:Monday ২৫ July ২০২২ | হালনাগাদ:Wednesday ১০ August ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

ঢাকার কেরাণীগঞ্জের পূর্ব বন্দডাকপাড়ায় একই গলিতে থাকতেন দুই বন্ধু রাকিব (২০) ও সাগর (২২)। মাস তিনেক আগে বিয়ে করেন সাগর। রাকিব তার অন্য বখাটে বন্ধুদের নিয়ে গলিতে বিভিন্ন মেয়েসহ সাগরের স্ত্রীকেও নিয়মিত ইভটিজিং করতেন। এরপর রাকিবকে গলির মুখে আড্ডা না দিতে অনুরোধ করেন সাগর। তাতে কাজ না হওয়ায় পুলিশে অভিযোগ করার কথাও বলেন সাগর। এতে ক্ষিপ্ত হন রাকিব। সাগরকে শিক্ষা দিতে গত ১১ জুলাই দিবাগত রাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সাগরকে ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত করেন। পরে হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

সাগর হথ্যার ঘটনায় অভিযুক্ত রাকিবকে গ্রেফতারের পর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) এ তথ্য জানিয়েছে।

সোমবার (২৫ জুলাই) দুপুরে মালিবাগ সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির এলআইসি শাখার বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় সৃষ্ট দ্বন্দ্বের জেরে যুবক খুনের ঘটনা চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। এ ঘটনায় সিআইডি ছায়া তদন্ত শুরু করে। সংগৃহীত বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সংশ্লিষ্টতার ভিত্তিতে রাকিবকে গাজীপুরের টঙ্গি থেকে গ্রেফতার করা হয়। রাকিব কেরাণীগঞ্জ মডেল থানার পূর্ব বন্দডাকপাড়ার জব্বার ম্যানেজারের ছেলে।

জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, রাকিব ও নিহত সাগর একই এলাকার পাশাপাশি গলির বাসিন্দা। রাকিব তার অন্য বখাটে বন্ধুদের নিয়ে সাগরদের গলিতে দিন-রাত নিয়মিত আড্ডা দিতেন। বিভিন্ন মেয়েদের ইভটিজিংয়ের পাশাপাশি সাগরের নববিবাহিত স্ত্রীকেও ইভটিজিং করতেন রাকিবরা।

jagonews24

বিষয়টি সাগর জানার পর রাকিবকে সতর্ক করেন। গলির মুখে আড্ডা না দেওয়ার অনুরোধ করেন। তারা আড্ডা অব্যাহত রাখলে মহল্লার গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ থানা পুলিশে অভিযোগ করার কথা বলেন সাগর।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সাগরকে শিক্ষা দিতে ঈদের পরদিন পরিকল্পিতভাবে পূর্ব বন্দডাকপাড়া মেজবাহ উদ্দিনের বাড়ির ফাঁকা জায়গায় ঈদ উপলক্ষে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন রাকিব। অনুষ্ঠান শেষ জিনিসপত্র গোছানোর সময় রাত পৌনে ৩টার দিকে রাকিব ও তার অন্য সহযোগীরা সাগরসহ তার বন্ধুদের মারধর শুরু করেন। প্রাণে বাঁচার জন্য দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে জয় মিয়ার গলিতে সাগরের কোমরের বাম পাশে ছুরিকাঘাত করে ও কিল-ঘুষি, লাথি মেরে গুরুতর আহত করে পালিয়ে যান রাকিব।

পরে সাগরকে গুরুতর অবস্থায় প্রথমে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে ১২ জুলাই সন্ধ্যায় মারা যান সাগর।

ওই ঘটনায় নিহত সাগরের বাবা খোকন খান রাকিবকে প্রধান আসামি করে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতদের বিরুদ্ধে কেরাণীগঞ্জ মডেল থানায় মামলা করেন। এই ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।


আরও খবর



কৃষকের ব্যয় বাড়লো ৩৩০৪ কোটি টাকা

প্রকাশিত:Sunday ০৭ August ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

দেশের ৭৫ শতাংশ সেচ কার্যক্রম এখনো ডিজেলনির্ভর। কৃষিকাজে বছরে ৯ লাখ ৭২ হাজার টন ডিজেল ব্যবহার হয়। এতে কৃষকের খরচ হয় ৭ হাজার ৭৭৬ কোটি টাকা। নতুন করে প্রতি লিটার ডিজেলের দাম ৩৪ টাকা বাড়িয়েছে সরকার। তাতে এখন ব্যয় হবে ১১ হাজার ৮০ কোটি টাকা। অর্থাৎ ডিজেলের দাম বাড়ায় কৃষকের ব্যয় বাড়ছে ৩ হাজার ৩০৪ কোটি টাকা।

বিশ্লেষকরা বলছেন, দেশে বছরে জ্বালানি তেলের চাহিদা প্রায় ৬৫ লাখ টন। এর মধ্যে ৭৩ শতাংশই ডিজেল। পরিবহনের পরে সবচেয়ে বেশি ডিজেলের ব্যবহার হয় কৃষিখাতে। ডিজেলের দাম সাড়ে ৪২ শতাংশ বাড়ায় বড় প্রভাব পড়বে সার্বিক উৎপাদনে। ব্যয় বাড়ায় নেতিবাচক প্রভাব পড়বে কৃষকের মধ্যে। আরও ভঙ্গুর হবে খাদ্যনিরাপত্তা।

একই কথা বলছেন কৃষকরাও। নওগাঁ হোগলবাড়ির কৃষক সুধা মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রতি বিঘা জমিতে স্যালো মেশিনে পানির খরচ হয় প্রায় সাড়ে তিন হাজার টাকা। আগে একবার সেচ দেওয়ার জন্য ৩শ টাকা নিতো। শনিবার থেকে সেটা বিঘায় ৫শ টাকা হয়েছে। এখন খরচ হবে ৫ হাজারের বেশি।’

jagonews24

‘যে খরা যাচ্ছে, আমনের খরচ সবমিলে দ্বিগুণ। এর মধ্যে সার ও সেচ খরচ বেড়েছে। ডিজেলের জন্য ফসল মাড়াই খরচও বেশি হবে। বোরো মৌসুম পুরোপুরি সেচনির্ভর। সেজন্য আর বোরো ধান চাষ করা যাবে না। আমনেই লস হবে। সেচ কম লাগে এমন ফসল করার চিন্তা করছি।’

যশোরের কৃষক সুজাউল হক বলেন, ‘আমনের থেকে ইরি-বোরোতে সেচ লাগে অনেক বেশি। ডিজেলের দাম বাড়ায় সেচ ও মাড়াই খরচের জন্য অনেকে বোরো চাষ করবে না।’

চলতি মৌসুমে খরার কারণে এবছর সেচ খুব বেশি প্রয়োজন হচ্ছে। স্বাভাবিক সময়েও দেশের বরেন্দ্র এলাকায় তুলনামূলক সেচ বেশি লাগে। ওই এলাকার বেশ কয়েকজন কৃষক জানান, ডিপ টিউবওয়েল থেকে সেচ দিতে কৃষকের খরচ হতো বিঘাপ্রতি ১৬শ থেকে দুই হাজার টাকা। ডিজেলের দাম প্রথম দফায় বাড়িয়ে ৮০ টাকা নির্ধারণ করার পরে সে খরচ ২২শ টাকায় দাঁড়ায়। এখন নতুন করে সাড়ে ৪২ শতাংশ দাম বাড়ার ফলে খরচ পাঁচ হাজার টাকায় ঠেকবে। বোরোতে আরও বাড়বে।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন সংস্থার (বিএডিসি) হিসাবে, ৭৫ শতাংশ কৃষক বোরো মৌসুমে ডিজেলচালিত ইঞ্জিনের মাধ্যমে সেচ দেন। কৃষিখাতে গত বছর ডিজেলের চাহিদা ছিল ৯ লাখ ৭২ হাজার টন। এর মধ্যে প্রায় ৮ লাখ টন প্রয়োজন হয় বোরো মৌসুমে।

তথ্য বলছে, শুধু সেচের কারণে এখন কৃষির ব্যয় বাড়ছে ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ। এছাড়া যন্ত্রের মাধ্যমে মাড়াই খরচ বাড়বে একই হারে। সঙ্গে বাড়বে পরিবহন খরচও। অন্যদিকে গত সপ্তাহে ইউরিয়া সারের দাম বাড়ানোয় প্রতি বিঘা (বোরো ও আমন) আবাদে ইউরিয়া সারে খরচ বাড়ছে সাড়ে ৩৭ শতাংশ। বর্তমানে কৃষক বছরে ইউরিয়া সারে খরচ করে ৪ কোটি ১৬ লাখ টাকা, যা গিয়ে দাঁড়াবে ৫ কোটি ৭২ লাখ টাকায়।

jagonews24

এসব নিয়ে দুশ্চিন্তার কথা জানিয়ে জয়পুরহাট কালাই উপজেলার কৃষক সিদ্দিক মিয়া বলেন, এমন অবস্থায় চাষাবাদ ছেড়ে দেওয়া ছাড়া উপায় নেই। কারণ এসব খরচ বাড়লেও কৃষক নায্যমূল্য পাবে না। নিজের সম্পদ বেঁচে কৃষিকাজ করা সম্ভব নয়। কৃষি অর্থনীতিবিদ জাহাঙ্গীর আলম খান জাগো নিউজকে বলেন, ‘উৎপাদন খরচ বেড়ে গেলে অনেক কৃষক বাড়তি ব্যয়ে ফসল উৎপাদন করতে পারবেন না। ডিজেলের এ মূল্যবৃদ্ধি নিঃসন্দেহে উৎপাদন বৃদ্ধি ও খাদ্যনিরাত্তার জন্য হুমকি। খাদ্যের আমদানি আরও বাড়বে। যে ভর্তুকি কমাতে তেলের দাম বাড়ানো হলো সে অর্থ দিয়ে তখন চড়া দামে বিদেশ থেকে খাদ্য আমদানি করতে হবে।’

‘এবার আমন মৌসুমে বৃষ্টি কম থাকায় অনেকেই সেচের জন্য বাড়তি খরচ করছে। অন্যদিকে বোরো মৌসুমের প্রায় ৭৫ শতাংশ জমিতেই ডিজেলচালিত সেচপাম্প দিয়ে সেচ দেওয়া হয়। সেখানে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি একটা বড় সমস্যা করবে। সবচেয়ে বেশি চাল উৎপাদন হয় বোরোতে, এ চাষে অনীহা বাড়বে।’

তিনি বলেন, ‘খাদ্যের জোগান দিতে এখন যেখানে ১০-১৫ লাখ টন চাল আমদানি করি। তখন ২০-২৫ লাখ টন এনে খাওয়াতে হবে। সেখানে বাড়তি টাকা যাবে সরকারের। আর সাধারণ মানুষের খরচ বাড়ার চাপতো রয়েছেই।’

এ অর্থনীতিবিদ বলেন, ‘খাদ্য উৎপাদন ঠিক রাখা ও কৃষককে বাঁচাতে হলে এখন নগদ ভর্তুকি সহায়তা দেওয়া প্রয়োজন।’

এদিকে কৃষি মন্ত্রণালয়ের কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, এখনই কৃষকের ভর্তুকি দেওয়া-না দেওয়া নিয়ে কোনো আলোচনা নেই।

কৃষি সচিব সায়েদুর রহমান জাগো নিউকে বলেন, বোরো আবাদের জন্য হাতে সময় রয়েছে। প্রয়োজনে ভর্তুকির বিষয়টি প্রস্তাব করা হবে।

jagonews24

এদিকে সেচের পাশাপাশি পাওয়ার টিলারে হালচাষ, মাড়াই ও পরিবহনখাতসহ বিভিন্ন যান্ত্রিক খাতে ডিজেল ব্যবহৃত হয়। সেজন্য ডিজেলের চাহিদার পরিমাণ সেচকাজের চেয়ে কিছুটা কম। সুনির্দিষ্ট পরিসংখ্যান না থাকলেও মোট চাহিদার প্রায় ৩০-৩৫ শতাংশ ব্যয় হয় এ সেচকাজে।

বিএডিসির তথ্য আরও বলছে, দেশে মোট কৃষকের সংখ্যা প্রায় ১ কোটি ৯৭ লাখ ৭৯ হাজার। এর মধ্যে সেচযন্ত্রের আওতায় ১ কোটি ৯৬ লাখ ৪৬ হাজার ৬৪০ জন। শুধু ডিজেল সেচভুক্ত ১ কোটি ২৩ লাখ কৃষক রয়েছেন। বাকিরা বিদ্যুৎচালিত সেচভুক্ত। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) তথ্য অনুযায়ী, প্রতিবিঘা জমিতে চাষাবাদের জন্য ২০ লিটার ডিজেল প্রয়োজন। লিটারপ্রতি ৩৪ টাকা ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধিতে এবছর কৃষকের বিঘাপ্রতি প্রায় ৫শ টাকা অতিরিক্ত খরচ হবে।


আরও খবর



মনপুরায় ৩ মেগাওয়াট হাইব্রিড বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে চুক্তি

প্রকাশিত:Monday ২৫ July ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ০৯ August ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

ভোলার মনপুরা দ্বীপের জন্য তিন মেগাওয়াট সোলার-ব্যাটারি-ডিজেল সম্বলিত হাইব্রিড বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে চুক্তি সই হয়েছে।

সোমবার (২৫ জুলাই) বিদ্যুৎ ভবনে এ চুক্তি হয়। ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড (ওজোপাডিকো) ও ওয়েস্টার্ন মনপুরা সোলার পাওয়ার লিমিটেডের (ডব্লিউএমএসপিএল) সঙ্গে এ চুক্তি সই হয়।

এতে ইমপ্লিমেন্টেশন অ্যাগ্রিমেন্টের (আইএ) জন্য বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষে যুগ্মসচিব নিরোদ চন্দ্র মন্ডল ও পাওয়ার পার্চেজ অ্যাগ্রিমেন্টের (পিপিএ) পক্ষে ওজোপাডিকোর সচিব আলমগীর কবির এবং ডব্লিউএমএসপিএলের পক্ষে প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বশির আহমেদ চুক্তিতে সই করেন।

এসময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিদ্যুৎ সচিব মো. হাবিবুর রহমান বলেন, আগামী দিনের জ্বালানি হলো নবায়ণযোগ্য জ্বালানি। নবায়ণযোগ্য জ্বালানির প্রসারে সরকার নানাভাবে সহযোগিতা করছে। ট্রানজিশন টু গ্রিন এনার্জির প্রতি সরকারের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নেও নবায়ণযোগ্য জ্বালানির প্রসারকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। মনপুরার এ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি অনেকদিক থেকেই অন্যরকম। সোলারের সঙ্গে ব্যাটারি এবং ডিজেল থাকবে। তবে কোনো অবস্থায় ডিজেল থেকে ১০ শতাংশের বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাবে না।

বিদ্যুৎ সচিব আরও বলেন, নবায়ণযোগ্য জ্বালানি থেকে আরও বিদ্যুৎ পেলে বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে সহজ হতো। এ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ওই এলাকার জনগণ গ্রিডের মানসম্পন্ন বিদ্যুৎ পাবে।

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে বলা হয়, ২০ বৎসর মেয়াদি এ বিদ্যুৎকেন্দ্র হতে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ হাজার কিলোওয়াট আওয়ার বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে। মনপুরা দ্বীপের ২০ হাজার ৪৮৩ জন গ্রাহক বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) নির্ধারিত রেটে বিদ্যুৎ সুবিধা পাবে। ফলে ওই দ্বীপে কর্মসংস্থান সৃষ্টি, শিল্পায়ন, পর্যটনশিল্পের বিকাশসহ জনগণের জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন ঘটবে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান, ওজোপাডিকোর চেয়ারম্যান সেলিম আবেদ, টেকসই ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (স্রেডা) সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, ওজোপাডিকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার আজহারুল ইসলাম ও প্রকল্প পরিচালক মো. মতিউর রহমান বক্তব্য দেন।


আরও খবর