Logo
আজঃ Monday ০৮ August ২০২২
শিরোনাম
রূপগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল সনদ ও জাতীয় পরিচয়পত্র বিতরণ কাউন্সিলর সামসুদ্দিন ভুইয়া সেন্টু ৬৫ নং ওয়ার্ডে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসুচীতে অংশগ্রহন করেন চান্দিনা থানায় আট কেজি গাঁজাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার নাসিরনগরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ নাসিরনগর বাজারে থানা সংলগ্ন আব্দুল্লাহ মার্কেটে দুই কাপড় দোকানে দুর্ধষ চুরি। ই প্রেস ক্লাব চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটির মতবিনিময় সম্পন্ন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৬ কেজি গাঁজাসহ হাইওয়ে পুলিশের হাতে আটক এক। সোনারগাঁয়ে পুলিশ সোর্স নাম করে ডাকাত শাহ আলমের কান্ড নিখোঁজ সংবাদ প্রধানমন্ত্রীর এপিএসের আত্মীয় পরিচয়ে বদলীর নামে ঘুষ বানিজ্য

মৌসুমী সর্দি-কাশি নাকি কোভিডে আক্রান্ত বুঝবেন যেভাবে

প্রকাশিত:Friday ০৫ August ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ২০জন দেখেছেন
Image

বর্ষায় এই রোদ আবার এই বৃষ্টি হওয়ার কারণে জ্বর, সর্দি-কাশিতে অনেকেই ভুগছেন। অন্যদিকে আবারও বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। তবে এখন সাধারণ সর্দি-কাশি নাকি করোনা সংক্রমণ হয়েছে তা অনেকেই টেরই পাচ্ছেন না।

কারণ মৌসুমী ফ্লুর সঙ্গে কোভিডের বেশ কিছু লক্ষণে মিল আছে। তাই সবারই সাধারণ ফ্লু ও কোভিডের লক্ষণের মধ্যে পার্থক্য জেনে রাখা প্রয়োজন।

কোভিড ও সিজনাল ফ্লু আলাদা করে বলা কঠিন কেন?

গলা ব্যাথা, নাক দিয়ে পানি পড়া, শরীরে ব্যথা ই্যত্যাদি এখন আর শুধু ফ্লুর উপসর্গ নয়। ওমিক্রন সংক্রমণের সঙ্গে কোভিডের লক্ষণগুলো নাটকীয়ভাবে পরিবর্তিত হয়েছে।

ডেল্টা তরঙ্গের সময়, উচ্চ জ্বর, ক্রমাগত কাশি, গন্ধ ও স্বাদের অনুভূতি নষ্ট হওয়ার মতো উপসর্গগুলো সবচেয়ে সাধারণ কোভিড উপসর্গগুলোর মধ্যে ছিল।

তবে করোনার ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের লক্ষণগুলো ডেল্টার তুলনায় অনেক হালকা। এটি সাধারণ সর্দি বা ফ্লুর মতো। আর এ কারণেই অনেকেই সাধারণ ফ্লু ভেবে ভুল করছেন।

এই দুইয়ের মধ্যে পার্থক্য কোথায়?

সার্স কোভ-২ ও ইনফ্লুয়েঞ্জা উভয়ই শ্বাসযন্ত্রের ভাইরাস, যা সংক্রামক। এটি ফুসফুস ও শ্বাস প্রশ্বাসকে প্রভাবিত করে। কোভিড বা ফ্লুতে সংক্রামিত রোগীরা জ্বর, কাশি, শরীরে ব্যথা, গলা ব্যথা, সর্দি, পেশি ব্যথা, মাথাব্যথা ও গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যা থেকে শুরু করে বিভিন্ন লক্ষণ বোধ করতে পারে।

মায়ো ক্লিনিক অনুসারে, কোভিড ১৯ ফ্লু থেকে বিভিন্ন জটিলতা সৃষ্টি করতে পারে। যেমন রক্ত জমাট বাঁধা ও শিশুদের মধ্যে মাল্টিসিস্টেম ইনফ্ল্যামেটরি সিন্ড্রোম।

অসুস্থতার সময়কালের পার্থক্য লক্ষ্য করুন

ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি) অনুসারে, কোভিড-১৯ এর ক্ষেত্রে, একজন ব্যক্তি করোনা সংক্রমণের ২-১৪ দিনের মধ্যে যে কোনো উপসর্গ অনুভব করতে পারেন। আর লক্ষণ শুরু হওয়ার ২-৩ দিন আগে ভাইরাস ছড়াতে শুরু করে আক্রান্ত ব্যক্তি।

অন্যদিকে ফ্লু সংক্রমণ ঘটলে আক্রান্ত ব্যক্তি ১-৪ দিনের মধ্যে যে কোনো উপসর্গ অনুভব করতে পারেন। ফ্লুতে আক্রান্ত বেশিরভাগ রোগীই লক্ষণগুলো প্রকাশের ১ দিন আগ থেকেই সংক্রমণ ছড়ায়। 8 দিন পরেও ভাইরাস ছড়াতে পারে আক্রান্ত ব্যক্তির মাধ্যমে।

কোভিড-১৯ এর ক্ষেত্রে মারাত্মক ঝুঁকি অনেক বেশি

সংক্রমণের হার ও তীব্রতার দিক দিয়ে ফ্লুর তুলনায় কোভিড ১৯ এ মারাত্মক ঝুঁকি হয়। মায়ো ক্লিনিকের তথ্যমতে, ইনফ্লুয়েঞ্জার তুলনায় কোভিডে ফুসফুস বেশি আঘাতপ্রাপ্ত হয়, ফলে রোগীদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থতা ও মৃত্যুর হারও ফ্লুর তুলনায় বেশি।

সিডিসির তথ্য অনুসারে, ফ্লুর তুলনায় কোভিড ১৯ কিছু মানুষের মধ্যে আরও গুরুতর অসুস্থতার কারণ হতে পারে। অনেকের ক্ষেত্রেই করোনার উপসর্গ প্রকাশ পেতে আরও বেশি সময় নিতে পারে, আবার অনেকেই দীর্ঘদিন ধরেও গুরুতর উপসর্গে ভুগতে পারে।

কোভিড ও ফ্লুর মধ্যে পার্থক্য করার সঠিক উপায় হলো কোভিড টেস্ট। দ্রুত ফলাফলের জন্য অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করতে পারেন অথবা আরটি পিসিআর পরীক্ষাও করতে পারবেন। যদিও এই টেস্টের রেজাল্ট পেতে একটু দেরি হয়, তবে এই টেস্টের মাধ্যমেই নির্ভরযোগ্য ফলাফল পেতে পারেন।

এখন জ্বর, সর্দি-কাশির লক্ষণ দেখলেই দুরত্ব বজায় রাখুন। প্রয়োজনে আইসোলেশনে থাকুন। বিশেষ করে শিশু ও বয়স্কদের কাছ থেকে দূরে থাকুন। এর পাশাপাশি কোভিড প্রতিরোধে নিয়মিত মাস্ক পরুন। সামাজিক দুরত্ব ও ব্যক্তিগত সুরক্ষা বজায় রাখুন।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া


আরও খবর



৪ লাখ ট্যাব ব্যবহারে দ্রুত সময়ে জনশুমারি প্রকাশ: এমএ মান্নান

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ০৮ August ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, চার লাখ ট্যাব ব্যবহার করে চার লাখ তরুণ-তরুণী সারাদেশ থেকে তথ্য সংগ্রহ করেছে। তাই দ্রুত সময়ের মধ্যে নির্ভুলভাবে জনশুমারির ফল প্রকাশ করতে পেরেছি।

বুধবার (২৭ জুলাই) নগরীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের আওতায় বিবিএস-এর মাধ্যমে বাস্তবায়িত প্রথম ‘ডিজিটাল জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২২’ এর প্রাথমিক প্রতিবেদন প্রকাশনা অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে এ তথ্য তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

এম এ মান্নান বলেন, সারাদেশ থেকে তথ্য সংগ্রহে চার লাখ ট্যাব ব্যবহার করা হয়েছে। এর মধ্যে মাত্র ৬৪টি ট্যাব নষ্ট হয়েছে। স্থানীয় শিক্ষিত তরুণ-তরুণীরা এ কাজ করেছেন। মাত্র এক সপ্তাহে এ ট্যাবের মাধ্যমে তথ্যসংগ্রহ করেছেন তারা।

বলেছিলাম এক মাসের মধ্যে এ তথ্য প্রকাশ করতে চাই। আমাদের পাঁচদিন বেশি সময় লেগেছে। আরেকটি কথা দিয়েছিলাম তথ্য গোপন রাখবো। এটা শুধু সরকারের কাছে থাকবে অন্য কোথাও প্রকাশ করা হবে না।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, আপনারা যাদের ভাসমান মনে করছেন, তারা অনেকেই ভাসমান নয়। কমলাপুর রেলস্টেশন কিংবা বিভিন্ন জায়গায় যারা থাকেন— তারা একটি বাড়ি কিংবা নির্দিষ্ট জায়গায় গিয়ে ঘুমান। তাই তাদের ভাসমান বলছি না।

জনশুমারির সময়ের নানা প্রতিকূলতার কথা তুলে ধরে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, একটি প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে যাচ্ছিলাম। করোনা ভাইরাস, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, উত্তরাঞ্চলের বন্যা।

তিনি বলেন, জনশুমারি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে গিয়েছি। তখনই যেটা বলেছি সকালে নিয়ে গেছি বিকেলে সেটা অনুমোদন দিয়ে দিয়েছে। এজন্য প্রধানমন্ত্রী এবং তার দফতরের সবাইকে ধন্যবাদ জানাই।

জনসংখ্যার তত্ত্ব তুলে ধরে তিনি বলেন, জনসংখ্যার হার বাড়বেও একটা সময় কমে যাবে। এটাই জনসংখ্যার থিওরি। বাংলাদেশের এক সময় থেকে অর্ধেকে নেমে আসবে। একটা সময় গিয় নির্ভরশীলতার হার বেশি থাকবে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন— স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন। প্রাথমিক প্রতিবেদন বিষয়ক উপস্থাপনা করেন প্রকল্প পরিচালক মো. দিলদার হোসেন।


আরও খবর



শিশুদের অস্কারখ্যাত কিডস্ক্রিন অ্যাওয়ার্ড জিতলো সিসিমপুর

প্রকাশিত:Thursday ২১ July ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ০৬ August ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

শিশুদের অস্কারখ্যাত, বিশ্বজুড়ে সমাদৃত কিডস্ক্রিন অ্যাওয়ার্ড জিতলো বাংলাদেশের শিশুদের জন্য নির্মিত জনপ্রিয় শিশুতোষ অনুষ্ঠান সিসিমপুর। বিশ্বের সেরা সব শিশুতোষ টিভি সিরিজকে পেছনে ফেলে সিসিমপুর তার ১৩তম সিজনের জন্য ‘বেস্ট মিক্সড মিডিয়া সিরিজ’ ক্যাটাগরিতে সেরার এই পুরস্কার লাভ করে।

২০ জুলাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে এক জমকালো আয়োজনের মাধ্যমে ১৪তম কিডস্ক্রিন অ্যাওয়ার্ডের পুরস্কার প্রদান করা হয়। নেটফ্লিক্স, কার্টুন নেটওয়ার্ক, বিবিসি, ওয়ার্নার ব্রাদার্স এনিমেশন, ফক্স মিডিয়া, নিকোলওডিয়েন, বাইজুস, পিবিএস কিডস, ড্রিম ওয়ার্কস এনিমেশনের মতো বিশ্বখ্যাত সব শিশুতোষ অনুষ্ঠান নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান এবারের প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।

কিডস্ক্রিন এওয়ার্ড বিশ্বজুড়ে শিশু ও পরিবারদের নিয়ে নির্মিত সেরা সিরিজ, এনিমেটেড ফিল্ম, লাইভ একশন প্রোগ্রামসহ নানা ক্যাটাগরিতে সেরা সব অনুষ্ঠানকে পুরস্কৃত করে থাকে।

উল্লেখ্য ২০১০ সালে বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস ট্রাস্ট পরিচালিত জরিপেও সিসিমপুর শিশুতোষ অনুষ্ঠান হিসেবে সেরা এবং সামগ্রিকভাবে তৃতীয় জনপ্রিয় অনুষ্ঠান নির্বাচিত হয়েছিল।

২০০৫ সাল থেকে প্রাক-প্রাথমিক শিশু বিকাশ কার্যক্রমের আওতায় ‘শিশুরা হয়ে উঠুক আরও সম্পন্ন, আরও সবল এবং আরও সদয়’ এই লক্ষ্য নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে সিসেমি স্ট্রিট-এর বাংলাদেশি সংস্করণ ‘সিসিমপুর’। শুরু থেকেই ‘ইউএসএআইডি বাংলাদেশ’-এর আর্থিক সহায়তায় নির্মিত হয়ে আসছে জনপ্রিয় এই শিশুতোষ সিরিজ। সিসিমপুর নির্মাণে সিসেমি ওয়ার্কশপ বাংলাদেশের প্রোডাকশন পার্টনার ধ্বনি-চিত্র লিমিটেড।

সম্মানজনক কিডস্ক্রিন অ্যাওয়ার্ড জয়লাভের খবরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে সিসিমপুরের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সিসেমি ওয়ার্কশপ বাংলাদেশ-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, ‘নিঃসন্দেহে এটি ভীষণ আনন্দের সংবাদ। কিডস্ক্রিন এওয়ার্ড বিশ্বব্যাপী শিশুদের অনুষ্ঠানের জন্য অত্যন্ত সম্মানজনক একটি পুরস্কার। বিশ্বের সেরা সেরা সব শিশুতোষ অনুষ্ঠানের সাথে পাল্লা দিয়ে আমাদের সিসিমপুর সবার সেরা হয়েছে। এটি অত্যন্ত গর্বের বিষয় যা আমাদের ভবিষ্যতের কাজকে দারুণভাবে অনুপ্রাণিত করবে।’

প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ের শিশুদের শিক্ষা এবং তাদের শৈশবকে ফলদায়ক, আনন্দময় ও মজাদার করতে ১৭ বছর যাবত সিসিমপুর কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে সিসেমি ওয়ার্কশপ বাংলাদেশ। আমি মনে করি এই সাফল্য শুধু আমাদের একার নয়। আমাদের নির্মাণ সহযোগী, সম্প্রচার সহযোগী, লেখক, আঁকিয়ে, পাপেটিয়ার, কলাকুশলী এবং আমাদের দেশের অগণিত শিশুরা এই সাফল্যের অংশীদার।


আরও খবর



বিহারে বজ্রপাতে ২০ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:Wednesday ২৭ July ২০২২ | হালনাগাদ:Thursday ০৪ August ২০২২ | ৩০জন দেখেছেন
Image

ভারতের বিহার রাজ্যের আট জেলায় গত ২৪ ঘণ্টায় বজ্রপাতে ২০ জনের মৃত্যু হয়েছে। রাজ্যের উত্তরাঞ্চলে বুধবার ও বৃহস্পতিবার আরও বজ্রপাতের বিষয়ে সতর্ক করেছে আবহাওয়া দপ্তর। খবর বিবিসির।

এমন পরিস্থিতিতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের নির্দেশনা মেনে চলার জন্য রাজ্যের সাধারণ মানুষকে আহ্বান জানিয়েছেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নিতিশ কুমার।

ভারতে প্রতি বছর বর্ষার মৌসুমে বজ্রপাতে শত শত মানুষ প্রাণ হারায়। এর পেছনে অন্যতম কারণ হচ্ছে প্রচুর মানুষ বাড়ির বাইরে কাজ করে। অনেক সময় বজ্রপাত আঘাত হানার আগে সেভাবে সতর্ক না থাকার কারণে তাদের জীবন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠছে।

বজ্রপাতে প্রাণহানির ঘটনায় প্রতি পরিবারকে ৪০ হাজার রুপি সহায়তা দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী নিতিশ কুমার। গত কয়েক বছরে ভারতে বজ্রপাতের ঘটনা অনেক বেড়ে গেছে।


আরও খবর



দিনাজপুরে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু

প্রকাশিত:Saturday ০৬ August ২০২২ | হালনাগাদ:Sunday ০৭ August ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে স্যালোচালিত ইঞ্জিন (পাওয়ার টিলার) নিয়ে জমি চাষ করার সময় বজ্রপাতে রবিন সরেন (৩৮) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (৬ আগস্ট) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার গোলাপগঞ্জ ইউনিয়নের খটখটিয়া গ্রামের মাঠে এ ঘটনা ঘটে। রবিন সরেন ওই এলাকার বাবুরাম সরেনের ছেলে।

পরিবারের বরাত দিয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদুল কবির রাজু জাগো নিউজকে বলেন, সকালে স্যালোচালিত ইঞ্জিন পাওয়ার টিলার নিয়ে মাঠে জমি চাষ করছিলেন রবিন সরেন। এ সময় হঠাৎ বজ্রপাতে গুরুতর আহত হন তিনি। স্থানীয়রা বাড়িতে নেওয়ার আগেই তার মৃত্যু হয়।


আরও খবর



মেট্রোরেলের ৪ স্টেশন প্লাজায় থাকছে শিশুদের জন্য পার্ক

প্রকাশিত:Tuesday ১৯ July ২০২২ | হালনাগাদ:Friday ০৫ August ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
Image

‘উন্নত বিশ্বের মতো তৈরি করা হচ্ছে মেট্রোরেলের চার স্টেশন প্লাজা। প্রস্তুত লাল সবুজে রাঙানো মেট্রোরেলের আইকনিক স্টেশনও। জাপানের আদলে তৈরি হচ্ছে এসব স্টেশন। নান্দনিক এসব স্টেশনে থাকছে যাত্রীদের অত্যাধুনিক সব সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হবে। এছাড়া মেট্রোরেলে ভ্রমণের জন্য স্থায়ীভাবে পাস ব্যবহারকারীদের জন্য বিশেষ সুবিধা দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে কর্তৃপক্ষের। মেট্রোরেলের উত্তরা, আগারগাঁও, ফার্মগেট ও কমলাপুর স্টেশনে থাকছে এ ব্যবস্থা।’

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) মেট্রোরেল প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বাড়ানোর প্রসঙ্গ টেনে এ কথা বলেন পরিকল্পনা বিভাগের সচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী।

প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী বলেন, নানা কারণে প্রকল্পের ব্যয় ও সময় বাড়ছে। এর অন্যতম কারণ, চারটি স্টেশন প্লাজা করা হবে। এসব স্টেশন প্লাজায় শিশুদের জন্য বিনোদনের ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া যাত্রীদের জন্য স্টেশনগুলোতে থাকছে বিপণিবিতান, সময় কাটানোর জন্য হোটেল, রেস্টেুরেন্ট, কফিশপ ও বিনোদনকেন্দ্র। অসুস্থ এবং প্রতিবন্ধীদের ওঠা-নামার জন্য থাকছে লিফট, সঙ্গ এসকেলেটরও। মেট্রোরেলে ভ্রমণের জন্য থাকছে স্থায়ী ও অস্থায়ী দুই ধরনের র‌্যাপিড পাস।

মেট্রোরেলের ৪ স্টেশন প্লাজায় থাকছে শিশুদের জন্য পার্ক

এরআগে মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় মেট্রোরেল প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বাড়ানোসহ আট প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি এ সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। সভা শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

মেট্রোরেল প্রকল্পের সময় ও ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাবনা অনুযায়ী, প্রকল্পের মেয়াদ দেড় বছর ও ব্যয় ১১ হাজার ৪৮৭ কোটি টাকা বাড়ালো। একই সঙ্গে দৈর্ঘ্য বাড়বে ১ দশমিক ১৬ কিলোমিটার। মোট ব্যয় দাঁড়ায় ৩৩ হাজার ৪৭১ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। সর্বশেষ মেট্রোরেলের ব্যয় নির্ধারিত ছিল ২১ হাজার ৯৫৮ কোটি টাকা।


আরও খবর