Logo
আজঃ বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

মেডিকেল ভর্তিতে আসন বাড়লেও কমেছে লড়াই!

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৫ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৫৩জন দেখেছেন

Image
তালহা চৌধুরী রুদ্র।নিজস্ব প্রতিনিধি:২০২৩-২৪ শিক্ষাবর্ষে দেশের সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার আবেদন কার্যক্রম ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। এতে আবেদন পড়েছে এক লাখ চার হাজার ৪৪টি। সে হিসাবে আসনপ্রতি প্রায় ১৯ জনের মধ্যে লড়াই হবে।

বুধবার (২৪ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. মো. মহিউদ্দিন মাতুব্বর গণমাধ্যমকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।এদিকে,দেশের সরকারি মেডিকেলের আসন সংখ্যা গতবছর চার হাজার তিনশ পঞ্চাশটি থাকলেও এবার বৃদ্ধি করে তা করা হয়েছে ৫৩৮০ টিতে ৷

গতবছর, মেডিকেল ভর্তির জন্য মোট আবেদন পড়েছিলো এক লাখ ৩৮ হাজার। সে হিসেবে প্রায় ৩২ জন আসনপ্রতি লড়েছিলো ৷
এবছর আবেদন কেনো কম পড়লো সে প্রশ্নের জবাবে  মহিউদ্দিন মাতুব্বর বলেন, আবেদন কম পড়েছে এটা বলা যাবে না। সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজের মোট আসনসংখ্যা অনুযায়ী যথেষ্ট আবেদন পড়েছে। 

যাদের চান্স পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই তারা হয়ত আবেদন করেনি।তাছাড়া আবেদনের সময়সীমা শেষ হলেও টাকা জমার সময় রয়েছে তাই সংখ্যাটা আরো কিছু বাড়বে ৷

আরও খবর



ঝিনাইদহ-১ আসন:আব্দুল হাইয়ের এমপি পদ স্থগিতের বিরুদ্ধে আবেদন

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১৩১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:ঝিনাইদহ-১ আসনে নৌকার প্রার্থী আব্দুল হাইকে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী ঘোষণা করেছিল ইসি। সেই গেজেট স্থগিত করেছিলেন হাইকোর্ট। এবার হাইকোর্টের সেই স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আবেদন করা হয়েছে আপিল বিভাগে।

সোমবার (৫ জানুয়ারি) আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় বিজয়ী নৌকার প্রার্থী আব্দুল হাই এ আবেদন করেন। তার পক্ষের আইনজীবী হলেন অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা।

গত ১ ফেব্রুয়ারি ঝিনাইদহ-১ আসনের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল হাইকে বিজয়ী ঘোষণা করে ইসির গেজেট স্থগিত করেন হাইকোর্ট। দুই মাসের জন্য এই স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার (১ জানুয়ারি) বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামানের একক হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মজিবুর রহমান।

এর আগে ভোটগ্রহণ ও ভোট গণনায় অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগে ঝিনাইদহ-১ আসনের সংসদ সদস্য পদের গেজেট স্থগিত চেয়ে ইলেকশন পিটিশন দায়ের করেন ওই আসনের স্বতন্ত্র প্রার্থী নজরুল ইসলাম দুলাল। পরে ইসির ওই নির্বাচনি গেজেট স্থগিত করেন বিচারপতি আসাদুজ্জামানের কোর্ট।


আরও খবর



হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে আলু আমদানি শুরু

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ৯২জন দেখেছেন

Image

মাসুদুল হক রুবেল,হিলি (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে আলু আমদানি শুরু হয়েছে। এদিকে আমদানির খবরে দেশীয় আলু কেজি প্রতি ৫ টাকা কমেছে। দাম কমাতে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে সাধারণ ক্রেতাদের মাঝে।

আজ শনিবার দুপুর আড়াই টার দিকে ভারতী আলু বোঝাই ৩ টি ট্রাক বাংলাদেশের প্রবেশের মাধ্যমে আমদানি কার্যক্রম শুরু হয়।

পাবনা জেলার মেসার্স মুক্ত এন্টারপ্রাইজ নামের একটি আমদানিরকারক প্রতিষ্ঠান আলুগুলো আমদানির করছেন। ভারতীয় ৩টি গাড়িতে ৭৪ মেট্রিকটন আলু আমদানির হয়েছে। প্রতি মেট্রিক টন আলু আমদানি মূল্য ১৫৫ মার্কিন ডলার খরচ পড়েছে। হিলি স্থলবন্দরে হিলি স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগোনিরোধের কেন্দ্রর উপ-সহকারী কর্মকর্তা ইউসুফ আলী জানান, হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ৫২ জন আমদানিকারক প্রায় ৩২ হাজার মেট্রিক টন আলু আমদানির অনুমতি পেয়েছেন।

আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি জানান,ভারত থেকে এই বন্দর দিয়ে আলু আমদানির শুরু হয়েছে। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে থেকে আলুগুলো আমদানি করা হচ্ছে।

বাংলাদেশে সকল খরচ দিয়ে ২০ টাকা কেজির মধ্যে বিক্রয় করা হবে।এদিকে আলু আমদানির খবরে হিলির বাজারে কমতে শুরু করেছে দাম।কেজি প্রতি ৫ টাকা কমেছে। বর্তমানে বড় জাতের কাটিলাল আলু ৫ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা এবং ছোট জাতের লাল পাটনা আলু ৫ টাকা কমে বিক্রি হচ্ছে ৩৫ টাকা দরে।


আরও খবর



নাসিরনগরের কুখ্যাত মাদক সম্রাজ্ঞী হেনাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ

প্রকাশিত:রবিবার ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১০জন দেখেছেন

Image

আব্দুল হান্নান:ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার কুন্ডা ইউনিয়নের কাহেতুরা গ্রামের কুখ্যাত মাদক সম্রাজ্ঞী পলাশ খানের স্ত্রী হেনা বেগম(৪৫)কে গ্রেপ্তার করেছে নাসিরনগর থানা পুলিশ।নাসিরনগর থানা পুলিশের  এস আই রুপন নাথ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে  ভোর রাতে অভিযান পরিচালনা করে হেনাকে ইয়াবা সহ তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে।জানা গেছে হেনার বিরোদ্ধে থানা ও আদালতে একাদিক মামলা চলমান রয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগে জানা গেছে,হেনা তার মেয়ে হৃতু বেগম ও ছেলে নয়ন মিলে এলাকায় তৈরী করেছে মাদক আর চোরাই মোবাইল বেচাকেনার অভয়াশ্রম।তাদের যন্ত্রনায় এলাকার সাধারণ মানুষ অতিষ্ট।ধ্বংসের পথে যুব সমাজ।হেনা তার মেয়ে হৃতু ও ছেলে নয়নকে নিয়ে পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর টনক  নড়ে থানা পুলিশের।এ পর্যন্ত পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে বেশ কয়েকজন চোর,ডাকাত আর মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণের খবর পাওয়া গেছে।এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে থানা পুলিশ সুত্রে জানা গেছে।

-খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর

সন্দ্বীপ থানার ওসি কবীর পিপিএম পদকে ভূষিত

মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব হলেন ইমরুল কায়েস

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১২৩জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:প্রধানমন্ত্রীর উপপ্রেস সচিব হয়েছেন পদোন্নতি পেয়ে এম এম ইমরুল কায়েস। বুধবার (৩১ জানুয়ারি) এ নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে উপসচিব আব্দুল্লাহ আরিফ মোহাম্মদের সই করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে প্রথম সচিব পদে প্রেষণে নিয়োগের আদেশটি বাতিল করা হলো।

এর আগে, ২০১৭ সালের ২২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব হিসেবে নিয়োগ পান বাংলাদেশ বেতারের কর্মকর্তা এম. এম. ইমরুল কায়েস। বিসিএস ক্যাডারের এ কর্মকর্তা তার আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উপ-নিয়ন্ত্রক (মনিটরিং অফিসার) হিসেবে কর্মরত ছিলেন।


আরও খবর



সকল জাতি গোষ্ঠী সম্প্রদায়ের সংস্কৃতির মধ্যে ঐক্যের বন্ধন গড়ে তুলতে চাই: প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | ১১৫জন দেখেছেন

Image
জসীম উদ্দিন জয়নাল,বিশেষ প্রতিনিধি:পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বদান্যতা, আন্তরিকতা, মানবতা বোধের কারণেই পার্বত্য চট্টগ্রামের নির্যাতিত, ক্ষুধার্ত ও পশ্চাদপদ মানুষকে উন্নয়নের মূল স্রোতধারার সাথে সম্পৃক্ত করার জন্যই পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয় গঠন করেছিলেন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, পার্বত্য মেলার মাধ্যমে দেশের সকল মানুষের মাঝে আমাদের পার্বত্য মানুষের কৃষ্টি, সংস্কৃতি, ঐতিহ্য তুলে ধরা। পাশাপাশি আমাদের আহার, আচার ব্যবহার সবকিছু তুলে ধরাই হলো মেলার মূল লক্ষ্য। তিনি বলেন, আমরা চাই, সকল জাতি গোষ্ঠী সম্প্রদায়ের মাঝে ঐক্যের বন্ধন সৃষ্টি করা।

রাজধানীর বেইলি রোডে শেখ হাসিনা পার্বত্য  চট্টগ্রাম ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্রের মাল্টিপারপাস হলে আয়োজিত পার্বত্য মেলা-২০২৪ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা, এমপি এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়ন ও পরিবীক্ষণ কমিটির আহ্বায়ক (মন্ত্রী পদমযাদা) আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপি।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার এমপি,  পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মশিউর রহমান এনডিসি, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান সুপ্রদীপ চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য গৌতম চাকমা, রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী বক্তব্য রাখেন। 

অন্যান্যের মধ্যে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মংসুইপ্রু চৌধুরী অপু, সাবেক মহিলা এমপি বাসন্তী চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. আমিনুল ইসলাম, অতিরিক্ত সচিব প্রদীপ কুমার মহোত্তম এনডিসি, যুগ্মসচিব মোঃ জাহাঙ্গীর আলম এনডিসি, যুগ্মসচিব মো. হুজুর আলী, যুগ্মসচিব সজল কান্তি বনিক, পার্বত্য চট্টগ্রাম হতে আগত অতিথিবৃন্দ, বিভিন্ন সংস্থা থেকে আগত অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আহ্বায়ক আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ আরো বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির আলোকে এ অঞ্চলের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়, পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ ও তিন পার্বত্য জেলা পরিষদ গঠন করেছে। সরকার এ অঞ্চলের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিদ্যুৎ, অবকাঠামো ও মোবাইল নেটওয়ার্কসহ সকল খাতের উন্নয়নে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। পার্বত্য জেলাসমূহের নৈসর্গিক সৌন্দর্য সমুন্নত রাখা ও পর্যটন শিল্পের প্রসারেও সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। সরকারের সময়োচিত উদ্যোগ গ্রহণের ফলে পার্বত্য জেলা সমূহ আজ কোন পিছিয়ে পড়া জনপদ নয়। দেশের সার্বিক অগ্রযাত্রায় এ অঞ্চলের জনগণ সম-অংশীদার। তিনি বলেন, তিন পার্বত্য জেলায় উৎপাদিত কৃষি পণ্য সামগ্রী, হস্তশিল্প, ঐতিহ্যবাহী কোমর তাতেঁ বোনা পণ্য, বিভিন্ন মৌসুমী ফল, ঐতিহ্যবাহী পার্বত্য খাবার যা মেলার আকর্ষণকে অধিকতর বাড়িয়ে তুলেছে। তিনি বলেন, পার্বত্য মেলার মাধ্যমে পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের  উৎপাদিত পণ্যসামগ্রীর প্রচার ও বিপণনের মাধ্যমে তাদের অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা এখানে তুলে ধরা হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সভাপতি পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা এমপি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, যোগ্য নেতৃত্ব আর ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলেই পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে দীর্ঘ দু’যুগ ধরে চলমান পাহাড়ি-বাঙালি ভ্রাতৃঘাতী রক্তক্ষয়ী সংঘাতের অবসান ঘটে। তিনি বলেন, পার্বত্য শান্তি চুক্তির ফসল হিসেবে বিগত ২৬ বছরে বৃহত্তর পার্বত্য অঞ্চলের ব্যাপক উন্নতি সাধিত হয়েছে। 

সভাপতির বক্তব্যে পার্বত্য প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, পার্বত্য অঞ্চলের বিভিন্ন সম্প্রদায় আছেন যারা সংস্কৃতিমনস্ক সৃজনশীল কাজের প্রতি অনুরাগী। এই মেলার মাধ্যমে পার্বত্য অঞ্চলের মানুষের সংস্কৃতি, কৃষ্টি, ইতিহাস, ঐতিহ্য, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার চিত্র ফুটে ওঠেছে। প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, এ বসন্তে বিরাজ করুক সকলের মধ্যে আন্তরিকতা ও সহমর্মিতা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত দক্ষতার সাথে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির আলোকে উন্নয়ন কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়নের ফলেই পাহাড়ে আজ শান্তি বিরাজমান। মানুষ নিরাপদে চলাচল করতে পারছে। তিনি সকলকে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তোলার লক্ষ্যে দেশের উন্নয়ন কাজে অংশ নেয়ার আহ্বান জানান।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে আধুনিক কৃষি প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রায় সকল প্রকার ফল ও অন্যান্য ফসলাদি প্রচুর পরিমাণে উৎপাদিত হচ্ছে। পার্বত্য এলাকা এখন পরিণত হয়েছে সম্পদের ভান্ডারে। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ়তা ও সাহসী উদ্যোগের কারণেই ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক শান্তি চুক্তি সম্পাদন করা সম্ভব হয়েছিল। ঐতিহাসিক এ চুক্তি সম্পাদনের মধ্য দিয়ে পাহাড়ি অঞ্চলে দীর্ঘ দুই যুগের সংঘাতময় পরিস্থিতির অবসান ঘটে। এর পর থেকেই পার্বত্য অঞ্চলে শান্তি অব্যাহতভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম এখন আর পিছিয়ে পড়া জনপদ নয়। পার্বত্য অঞ্চলে এখন উন্নয়নের জোয়ার বইছে।

এর আগে প্রধান অতিথি আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ ফিতা কেটে, পায়রা ও বেলুন ওড়িয়ে অনুষ্ঠানের উদবোধন করেন। তিনি পরে অতিথিদের নিয়ে মেলার স্টলসমূহ ঘুরে দেখেন এবং স্টলের কর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেন।

শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রাম ঐতিহ্য সংরক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্রে আগামি ১৪-১৭ ফেব্রুয়ারি চারদিনব্যাপী পার্বত্য মেলা চলবে। মেলা প্রতিদিন সকাল ০৯টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। পার্বত্য তিন জেলার ২৭৫ জন শিল্পীর ঐতিহ্যবাহী পরিবেশনায় প্রতিদিন সন্ধ্যা ৬ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার আয়োজন করা হয়েছে। চারদিনব্যাপী এ পার্বত্য মেলায় ৯৭ টি স্টল বরাদ্দ রয়েছে। মেলার স্টলে তিন পার্বত্য জেলায় উৎপাদিত কৃষি পণ্য সামগ্রী, হস্তশিল্প, ঐতিহ্যবাহী কোমর তাঁতে বোনা পণ্য, ঐতিহ্যবাহী পার্বত্য খাবার দ্রব্য প্রদর্শন ও বিক্রয় চলছে।

আরও খবর