Logo
আজঃ শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪
শিরোনাম

মার্কিন ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি যে কারণে ঢাকায়

প্রকাশিত:সোমবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪ | ২০১জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:নবম নিরাপত্তা সংলাপে বসবে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র। মঙ্গলবার (৫ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত এ সংলাপে যোগ দিতে ঢাকায় এসেছেন মার্কিন রাজনৈতিক-সামরিকবিষয়ক ব্যুরোর ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি মিরা রেজনিক।

সোমবার (৪ সেপ্টেম্বর) রেজনিকের ঢাকায় পৌঁছা‌নোর তথ‌্য এক টুইট বার্তায় নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছে ঢাকাস্থ মা‌র্কিন দূতাবাস।

টুই‌টে জানা‌নো হয়, যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক-সামরিক বিষয়ক ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি মিরা রেজনিককে স্বাগতম। তিনি যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক নিরাপত্তা সংলাপের জন্য ঢাকায় এসেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিনিধিদল আঞ্চলিক উন্নয়ন, মানবাধিকার, নিরাপত্তা সহায়তা এবং সন্ত্রাসবাদ দমন নিয়ে আলোচনা করবে।

এদিকে রোববার মা‌র্কিন দূতাবাস জানায়, নিরাপত্তা সংলাপ একটি বার্ষিক বেসামরিক আয়োজন, যেখানে আমাদের নিরাপত্তা সম্পর্কের সমস্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। উভয় পক্ষের প্রতিনিধিরা ইন্দো-প্যাসিফিক আঞ্চলিক সমস্যা, নিরাপত্তা ও মানবাধিকার, সামরিক সহযোগিতা, শান্তিরক্ষা, নিরাপত্তা সহায়তা এবং সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে আলোচনা কর‌বে। এ সংলাপ আমাদের দুই সরকারের মধ্যেকার সর্বাঙ্গীণ নিরাপত্তা সম্পর্কের একটি অংশ।

ঢাকার পক্ষে সংলা‌পে নেতৃত্ব দেওয়ার কথা র‌য়ে‌ছে পররাষ্ট্রস‌চিব মাসুদ বিন মো‌মে‌নের। অন‌্যদি‌কে, ওয়া‌শিয়ট‌নের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে থাকবেন দেশ‌টির রাজনৈতিক সামরিক বিষয়ক ব্যুরোর ডেপুটি অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি মিরা রেজনিক।

মা‌র্কিন দূতাবাস বল‌ছে, যুক্তরাষ্ট্র এবং বাংলাদেশের নিরাপত্তা বিষয়ক অংশীদারিত্ব অত্যন্ত শক্তিশালী এবং ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে আমাদের দুইটি দেশের স্বার্থ অভিন্ন। ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলকে মুক্ত, অবারিত, শান্তিপূর্ণ এবং সুরক্ষিত রাখার ক্ষেত্রে দেশ দুইটির দৃষ্টিভঙ্গি একই ধরনের। এ পারস্পরিক লক্ষ্যগুলো অর্জনে সারাবছর বিভিন্ন ধরনের সংলাপ আয়োজিত হয়।


আরও খবর



মির্জাপুরের আটিয়া মামুদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ৯৮জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিনিধি টাঙ্গাইল থেকে:টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার আনাইতারা ইউনিয়নে অবস্থিত আটিয়া মামুদপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবং বর্তমান ম্যানেজিং কমিটির বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।জানা যায়, ২০২১ সালে করোনাকালীন সময়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের বোর্ড কর্তৃক ফেরত দেওয়া টাকা স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ আব্দুর রাজ্জাক পরীক্ষার্থীদের ফেরত না দিয়ে নিজ একাউন্টে রেখে দেন। গত কয়েক মাস পূর্বে এ নিয়ে গণমাধ্যমে লেখালেখি হলে তিনি কিছু সংখ্যক পরীক্ষার্থীকে সেই টাকা ফেরত দেন।বিদ্যালয়ের শূন্য পদের জন্য একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। সেই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে বিদ্যালয়ের নাম সহ একাধিক বানান ভুল দেখা যায়। পরবর্তীতে বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিষয়টি প্রকাশ পেলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পুনরায় অনেকটা গোপনে দ্বিতীয়বার সংশোধিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন। আবেদনকারীদের দরখাস্ত যাচাই বাছাই এবং পরীক্ষা গ্রহণের পূর্বেই চারজন প্রার্থীর কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা অগ্রিম ঘুষ নেওয়ার খবর অত্র এলাকার মানুষের মুখে মুখে এখন ঘুরে বেড়াচ্ছে। ঘুষের টাকা ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে মামুদপুর বাজারে বাকবিতণ্ডার খবরও পাওয়া গেছে। অন্যদিকে বিদ্যালয়ের এক অভিভাবক সদস্য নজরুল ইসলামের ছোট ভাইকে বিদ্যালয়ের নিয়োগ দেওয়ার জন্য জমি বিক্রি করে টাকা দেন। নজরুল ইসলামের পিতা বিক্রয় করা সেই জমিতে গিয়ে হার্ট হাস্ট্রোক করে সেখানেই মারা যান। জমির শোকে মৃত্যুর খবর এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। এছাড়া বিদ্যালয়ে দাতা সদস্য নিয়োগেও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। প্রথমে ফাহমিদা আক্তার লিজু নামে একজনকে বিদ্যালয় এর নির্ধারিত ফি ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে দাতা সদস্য করা হয়। পরবর্তীতে গত ২২ জুন তারিখে পিছনের তারিখ অর্থাৎ ১জুন তারিখ সম্বলিত ৫০ হাজার টাকা ফি ধার্য করে পুনরায় দাতা সদস্য নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিটি একদিন অর্থাৎ ২৩ জুন নোটিশ বোর্ডে দেখা গেলেও ২৪ জুন সেটা তুলে ফেলা হয়। নিয়মানুসারে অভিভাবক ভোটার তালিকা, টি আর সদস্য তালিকা এবং দাতা সদস্যর চূড়ান্ত তালিকা নোটিশ বোর্ডে কমপক্ষে তিন কর্ম দিবস পর্যন্ত প্রদর্শনের বিধান থাকলেও বিদ্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সেটা না করে শুধুমাত্র অভিভাবক ভোটার তালিকা প্রকাশ করেন, পরে সেটাও ছিঁড়ে ফেলা হয়। এ বিষয়ে ফাহমিদা আক্তার লিজু'র সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, স্কুল কর্তৃপক্ষ আমার সাথে প্রতারণা করেছে; আমি এ বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নিব। বিদ্যালয়ের এই সকল অনিয়মের বিষয়ে মামুদপুর গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা এবং আনাই তারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবু হেনা মোস্তফা কামাল ময়নাল এর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঐ সমস্ত অনিয়মের বিষয়ে আমি নিজেও জানি, আমি খুব শীঘ্রই এলাকাবাসীদের সাথে আলোচনা করে পদক্ষেপ নিব। কারণ এটা আমাদের মামুদপুর গ্রামের একটি ঐতিহ্যবাহী স্কুল। আমি নিজেও এই স্কুলের ছাত্র; সামান্য কয়েকজন স্বার্থান্বেষী মানুষের কারণে এই বিদ্যালয়ের সম্মান বিনষ্ট হতে দিব না। এদের কারণেই ২০২৪ সালের এসএসসি পরীক্ষায় ৬৫ জন পরীক্ষার্থীদের মধ্যে মাত্র ৩৫ জন পাস করেছে, তার মধ্যে একজন মাত্র এ মাইনাস এ প্লাস একজনও নেই, যা খুবই দুঃখজনক। 


আরও খবর



প্রাক্তণ সেনা কল্যান সমিতি, ঝিনাইদহ জেলা শাখার উদ্যোগে কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রেস্ট বিতরণ

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ৯৭জন দেখেছেন

Image

কামরুজ্জামান ঝিনাইদহ প্রতিনিধি:কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠান-২০২৪ প্রাক্তণ সেনা কল্যান সমিতি, ঝিনাইদহ জেলা শাখার উদ্যোগে ঝিনাইদহ শহরের আরডি হল মিলনায়তনে শনিবার সকাল ১১ ঘটিকায় প্রাক্তন সেনা কল্যাণ সমিতির সভাপতি ওয়ারেন্ট অফিসার (অবঃ) তফিকুল ইসলাম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মোঃ মমিনুর রহমান, সহকারি পরিচালক, সমাজসেবা ঝিনাইদহ। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবা অফিস সদর কর্মকর্তা মোঃ আফাজ উদ্দিন। অনুষ্ঠান সঞ্চলনা করেন সার্জেন্ট (অবঃ) মোঃ শমশের আলী। বক্তব্য রাখেন ওয়ারেন্ট অফিসার (অবঃ) মোতাহার হোসেন, মোকাররম হোসেন, আমিরুল ইসলাম, রজব আলী প্রমুখ। প্রাক্তন সেনা কল্যাণ সমিতির সদস্যদের ছেলেমেয়েদের এস.এস.সি, এইচ.এস.সি তে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত এবং অনার্সে ১ম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ ও কোরআন প্রতিযোগিতায় ১ম স্থান অধিকারী ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে সংবর্ধনা স্মারক ক্রেস্ট সংগঠনের পক্ষে প্রধান অতিথি শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেওয়া হয়। 


আরও খবর



একনেকে সাড়ে ৫ হাজার কোটি টাকার ১১ প্রকল্প অনুমোদন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ জুলাই 2০২4 | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ১৩০জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) ঢাকা অঞ্চলের কৃষি উন্নয়নসহ ১১ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। এগুলো বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৫ হাজার ৪৫৯ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। এরমধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ৫ হাজার ২১৪ কোটি ৩৪ লাখ টাকা , বৈদেশিক ঋণ সহতায় থেকে ১৪০ কোটি ৪৪ লাখ টাকা এবং বাস্তবায়নকারী সংস্থা থেকে ১০৫ কোটি টাকা ব্যয় করা হবে।

মঙ্গলবার (২ জুলাই) রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইনি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনা।

একনেকে অনুমোদিত প্রকল্প গুলো হচ্ছে- ঢাকা অঞ্চলের কৃষির উন্নয়ন প্রকল্প। বরগুনা ও মুন্সীগঞ্জ জেলার গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প। রায়পুরা ১২০ মেগাওয়াট এসি পিক গ্রিড টাইড সোলার পাওয়ার প্ল্যান্টের জন্য ভূমি অধিগ্রহণ প্রকল্প। বিসিক মুদ্রণ শিল্প নগরী (২য় সংশোধিত) প্রকল্প। কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্র কিশোরগঞ্জ, জয়পুরহাট ও চট্টগ্রাম স্থাপন প্রকল্প। ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন (প্রথম সংশোধিত) প্রকল্প। কুমিল্লা-সালদা ও কসবা (সৈয়দাবাদ) সড়কে (এন১১৪) জাতীয় মহাসড়ক মানে উন্নীত করা প্রকল্প। নগরাঞ্চলের ভবন সুরক্ষা প্রকল্প। বুড়িগঙ্গা, শীতলক্ষ্যা, তুরাগ ও বালু নদীর তীর ভূমিতে পিলার স্থাপন, তীররক্ষা, ওয়াকওয়ে ও জেটিসহ আনুষঙ্গিক অবকাঠামো নির্মাণ (দ্বিতীয় পর্যায়) (দ্বিতীয় সংশোধিত) প্রকল্প। দেশের বিভিন্ন স্থানে বাংলাদেশ পুলিশের থানার প্রশাসনিক কাম ব্যারাক ভবন নির্মাণ প্রকল্প।

পরিকল্পনামন্ত্রী মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুস সালাম এবং পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী শহীদুজ্জমান সরকার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

তিনি বলেন, একটি একনেক বা মন্ত্রী পরিষদ বৈঠক হওয়া মানে এক ধাপ এগিয়ে যাওয়া নয়, এই বৈঠক হওয়া মানে একটি লম্ফ। এ অর্থবছর অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার শেষ বছর। সামনে আমরা এলডিসিতে উত্তরণ করছি। একনেকে প্রকল্প পাশ হওয়ার মধ্যদিয়ে প্রকল্প বাস্তববায়ন পর্যায়ে গেলে উন্নয়নকে আমরা এগিয়ে নিতে পারবো। আমরা উন্নয়নকে এগিয়ে নিতেই কাজ করে যাচ্ছি।

পরিকল্পনামন্ত্রী আরও জানান, প্রেক্ষিত পরিকল্পনা ৪১ এর বাস্তবায়ন বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া সদ্য সমাপ্ত ২০২৩-২৪ অর্থবছরের শেষ সময়ে যেসব প্রকল্পের অনুকূলে অর্থ বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে সেই টাকা কীভাবে খরচ হয়েছে সেটি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।


আরও খবর



নবীনগরে রাস্তার দুপাশ দখল করে গড়ে ওঠা কয়েক শতাদিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | ১২৯জন দেখেছেন

Image

মোহাম্মদ হেদায়েতুল্লাহ  নবীনগর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া)প্রতিনিধি:-ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজারের নবীনগর টু কোম্পানীগঞ্জ সড়কের দুপাশে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের জায়গা দখল করে গড়ে ওঠা কয়েক শতাদিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়েছে। আজ সোমবার (১৫ জুলাই) সকাল ৯ টা থেকে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়। প্রথমে স্থানীয় অবৈধ দখলদারদের বাধায় উচ্ছেদ অভিযান কিছুটা ব্যাহত হলেও পুলিশের জোড়ালো ভূকিকায় কিছুক্ষণ পর থেকে শক্তিশালী ভেকু দিয়ে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয় বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানসহ প্রায় তিন শতাধিক অবৈধ স্থাপনা। এতে টানা সাত ঘণ্টার অভিযানে রাস্তার দুপাশ দখল করে গড়ে ওঠা কয়েক শতাদিক অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করে দখলমুক্ত হয়।


উচ্ছেদ অভিযানে নেতৃত্ব দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর ফরহাদ শামীম। উচ্ছেদ অভিযানে আরো উপস্থিত ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মীর নিজাম উদ্দিন, উপজেলার সহকারী কমিশনা ভূমি আবু মোছা, নবীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মাহাবুবুর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মাহমুদা আক্তার শিউলী, ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল আউয়াল রবি সহ প্রায় শতাদিক পুলিশ সদস্য।


এসময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর ফরহাদ শামীম জানান, দোকানগুলো সরকারি জমিতে অবৈধভাবে নির্মাণ করা হয়েছিল। পূর্বে ব্যবসায়ীদের একাধিকবার নোটিশ ও মাইকিং করে এসব অবৈধ দখলদারদের নিজ উদ্যোগে স্থাপনা সরিয়ে নেওয়ার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হলেও সেটি মানা হয়নি। ফলে বিধি অনুযায়ী এসব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হয়। তিনি ভবিষ্যতে এ ধরণের ঘটনা পুনরাবৃত্তি না হওয়ার জন্য স্থানীয়দের সচেতন থাকার আহ্বান জানান।


এব্যাপারে জেলা সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মীর নিজাম উদ্দিন জানান, আগামীতে এই বাজারের মধ্য দিয়ে ফোরলেনের রাস্তা নির্মাণ করা হবে। ফলে আমাদের জায়গাগুলো দখলমুক্ত করা প্রয়োজন হয়ে পড়ায় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশেক্রমে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে।


জানা যায়, এই বাজারটি কেবল একটি ঐতিহাসিক স্থান ছিল না, বরং এটি উপজেলার কয়েক হাজার পরিবারের জীবিকার প্রধান উৎস ছিল। এই বাজার উচ্ছেদের ফলে কয়েক হাজার ব্যবসায়ী ও কর্মী বেকার হয়ে পড়েছে। এতে করে স্থানীয় অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা করছেন অনেকেই। ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের অভিযোগ তাদের পূর্ব নোটিশ দেওয়া হয়নি। বিকল্প পুনর্বাসনের ব্যবস্থা না করে আচমকা এ অভিযানে তাদের যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা পূরণ হওয়ার নয়।

   -খবর প্রতিদিন/ সি.ব


আরও খবর



মিরপুর-১০ গোলচত্বর রণক্ষেত্র

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৯ জুলাই ২০২৪ | ৪২জন দেখেছেন

Image

নিজস্ব প্রতিবেদক:আজ বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার পর থেকে রাজধানীর মিরপুরে ১০ নম্বর গোলচত্বর এলাকায় আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ও পাল্টাপাল্টি ধাওয়া চলছে। সংঘর্ষে প্রায় ২০-৩০ জন শিক্ষার্থী আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

আজ বেলা ১১টার দিকে শিক্ষার্থীরা গোলচত্বরে জড়ো হন। আন্দোলনকারীরা ধাওয়া দিয়ে পুলিশকে মিরপুর থানার দিকে নিয়ে যায়। আবার পুলিশ ধাওয়া দিয়ে আন্দোলনকারীদের মিরপুর ১০ নম্বরের দিকে নিয়ে যায়। তখন পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার শেল ছোড়ে। জবাবে পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়ে আন্দোলনকারীরা। তখন বিভিন্ন সড়কে টায়ারে জ্বালিয়ে আগুন দেওয়াসহ অন্তত পাঁচটি মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়া হয়। বর্তমানে পুরো এলাকা রণক্ষেত্রে রূপ নিয়েছে। 

এর আগে, মিরপুর ১০ নম্বরে অবস্থান নেয় আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। ছাত্রদের তাড়া খেয়ে তারা সেখান থেকে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়।

উল্লেখ্য, চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলনে ছাত্রলীগের হামলা, সাধারণ শিক্ষার্থীদের হত্যা এবং ঢাবি প্রশাসনের নির্দেশে শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের নির্বিচার হামলার প্রতিবাদে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘোষণা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন। গতকাল বুধবার রাতে সংগঠনের অন্যতম সমন্বয়ক আসিফ মাহমুদ তার ফেসবুক পোস্টে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।


আরও খবর