Logo
আজঃ Tuesday ২৮ June ২০২২
শিরোনাম
নাসিরনগরে বন্যার্তদের মাঝে ইসলামী ফ্রন্টের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ রাজধানীর মাতুয়াইলে পদ্মাসেতু উদ্ধোধন উপলক্ষে দোয়া মাহফিল রূপগঞ্জে ভূমি অফিসে চোর রূপগঞ্জে গৃহবধূর বাড়িতে হামলা ভাংচুর লুটপাট ॥ শ্লীলতাহানী নাসিরনগরে পুকুরের মালিকানা নিয়ে দু পক্ষের সংঘর্ষে মহিলাসহ আহত ৪ পদ্মা সেতু উদ্ভোধন উপলক্ষে শশী আক্তার শাহীনার নেতৃত্বে আনন্দ মিছিল করোনা শনাক্ত বেড়েছে, মৃত্যু ২ জনের র‍্যাব-১১ অভিমান চালিয়ে ৯৬ কেজি গাঁজা,১৩৪৬০ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাদক বিক্রেতাকে গ্রেফতার করেছে বন্যাকবলিত ভাটি অঞ্চল পরিদর্শন করেন এমপি সংগ্রাম পদ্মা সেতু উদ্বোধনে রূপগঞ্জে আনন্দ উৎসব সভা ॥ শোভাযাত্রা
মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনা

মাগুরায় সড়ক দুর্ঘটনায় সেনা সদস্যের মৃত্যু

প্রকাশিত:Sunday ১৫ May ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১০৮জন দেখেছেন
Image

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

মাগুরায় যাত্রীবাহী বাস ও ট্রাকের সংঘর্ষে মো. আবু হানিফ (৬০) নামে অবসরপ্রাপ্ত এক সেনাসদস্য নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন অন্তত ছয় জন।


রোববার (১৫ মে) সকালে মাগুরা-যশোর সড়কের শেখপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত আবু হানিফ যশোর জেলার পৌর এলাকার মোহাম্মদ আবদুল গনির ছেলে।


আহতদের উদ্ধার করে মাগুরা ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের বাড়ি যশোর ও সাতক্ষীরা জেলায়।


ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঢাকা থেকে যশোরগামী একটি যাত্রীবাহী পরিবহনের সঙ্গে মাগুরা মুখী একটি ট্রাকের সংঘর্ষ হয়। এ সময় ঘটনাস্থলেই ওই সেনা সদস্য নিহত হন।


এছাড়া ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয়দের সহায়তায় আহতদের উদ্ধার করে মাগুরা ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতাল নেওয়া হয়।


মাগুরা হাইওয়ে পুলিশের এসআই সেলিম জানান, দুর্ঘটনার পর বাস ও ট্রাকের ড্রাইভার-হেলপারদের পাওয়া যায়নি। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


আর নিহতের মানি ব্যাগে থাকা পরিচয়পত্রের মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্ত করা হয়েছে। মরদেহের আইনি প্রক্রিয়া শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



১০ মেডিকেল কলেজের ১৯ হোস্টেল নির্মাণে অসঙ্গতি

প্রকাশিত:Friday ১০ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

# একই এসির মূল্য দুই জায়গায় দুই রকম
# টিভির স্পেসিফিকেশন না দিয়েই প্রতিটির দাম ধরা হয়েছে ১ লাখ টাকা
# প্রকল্প প্রস্তাবনার সব পৃষ্ঠায় বাস্তবায়নকারী সংস্থার স্বাক্ষর ও সিল নেই
#কত বর্গফুটের ভবন হবে উল্লেখ থাকলেও কত তলাবিশিষ্ট হবে তা উল্লেখ নেই।

১০টি মেডিকেল কলেজ শিক্ষার্থীদের জন্য ১৯টি হোস্টেল নির্মাণ করতে চায় স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। এজন্য ১ হাজার ২১২ কোটি ৬৭ লাখ চাওয়া হয়েছে সরকারের কাছে। তবে এই টাকায় কত তলাবিশিষ্ট হোস্টেল নির্মাণ করা হবে, ভবন নির্মাণের মাধ্যমে প্রত্যেকটি মেডিকেল কলেজে কতজনের আবাসনের ব্যবস্থা হবে তা নির্দিষ্ট করা হয়নি। এছাড়া এসি, টিভি, আসবাবপত্রের দাম নিয়েও রয়েছে অসঙ্গতি। বিষয়গুলো নজরে এনে প্রশ্ন তুলেছে পরিকল্পনা কমিশনের আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো বিভাগ।

কমিশন বলছে, প্রস্তাবিত মেডিকেল কলেজগুলোতে কততলা ভিতবিশিষ্ট কয়টি হোস্টেল ভবন নির্মিত হবে, মেডিকেল কলেজগুলোতে কতজন ছাত্র-ছাত্রীর আবাসন সুবিধা রয়েছে এবং আবাসন চাহিদা কতজনের, প্রকল্পের আওতায় হোস্টেল ভবন নির্মাণের মাধ্যমে প্রত্যেকটি মেডিকেল কলেজে কতজনের আবাসনের ব্যবস্থা হবে- এসব তথ্য সুনির্দিষ্টভাবে জানাতে হবে।

আবার ছাত্রী হোস্টেলে আবাসন সংকটের তুলনামূলক চিত্র থেকে দেখা যায়, কিছু মেডিকেল কলেজ, যেমন- কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ, এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজে প্রয়োজনের তুলনায় অনেক বেশি আসনের প্রস্তাব করা হয়েছে। এসব নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে কমিশন।

jagonews24

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রস্তাবিত ওই প্রকল্প পর্যালোচনা করে আরও দেখা যায়, শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের ছাত্র হোস্টেলের জন্য একটি বোর্ডের মূল্য ৬ হাজার ২৫০ টাকা ধরা হয়েছে। ছাত্রী হোস্টেলের জন্য একই বোর্ডের মূল্য ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৮৫৫ টাকা। প্রকল্প পরিচালকের কার্যালয়ের জন্য প্রতিটি এসির (২ টন) মূল্য ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা ধরা হয়েছে। আবার হোস্টেল ভবনের জন্য ওই একই এসির মূল্য ধরা হয়েছে এক লাখ টাকা।

এসব নিয়ে আর্থ-সামাজিক অবকাঠামো বিভাগের মো. মাহবুবুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, একই টনের, একই মানের এসির দাম কখনো দুই ধরনের হতে পারে না। প্রকল্প পরিচালকের কার্যালয়ের জন্য এসির (২ টন) একক মূল্য ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা ধরা হলো। অথচ একই জিনিস হোস্টেলের জন্য দাম এক লাখ টাকা ধরা হলো। এটা হতে পারে না। এছাড়া আরও কিছু বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এসব ঠিক করে পরিকল্পনা কমিশনে পুনরায় প্রস্তাব করতে বলা হয়েছে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরকে।

তিনি আরও বলেন, শুধু এসি নয়। আমাদের চোখে আরও কিছু অসঙ্গতি ধরা পড়েছে। সবকিছু প্রকল্পে উল্লেখ করা হয়েছে। এসব বিষয় সংশোধন করলেই পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

একই ধরনের এসির দুই ধরনের দামের বিষয়ে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, পিইসির (প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি) সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এসির দাম ঠিক করে দেবো। পিইসির সব সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রকল্পটি পুনরায় ঠিক করে দেওয়া হবে।

ওই প্রকল্পের মোট প্রস্তাবিত ব্যয় ১ হাজার ২১২ কোটি ৬৭ লাখ ৪০ হাজার টাকা। জুলাই ২০২২ থেকে জুন ২০২৬ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করার পরিকল্পনা তুলে ধরা হয়েছে। সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। ১০টি মেডিকেল কলেজে ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত ১৯টি হোস্টেল নির্মাণ করা হবে বলে প্রস্তাবনায় বলা হয়েছে।

jagonews24

কততলা ভিতবিশিষ্ট কততলা ভবন নির্মাণ করা হবে তা নির্দিষ্ট না হলেও ১০টি ছাত্রী হোস্টেল এবং ৯টি ছাত্র হোস্টেল করা হবে বলে প্রকল্প প্রস্তাবনায় উল্লেখ করা হয়েছে। ১০টি হোস্টেলে ৪ হাজার ৪২৩ জন ছাত্রী এবং ৯টি ছাত্র হোস্টেলে ৪ হাজার ৫১২ জন ছাত্রের আবাসন ব্যবস্থা হবে।

হোস্টেল নির্মাণের ফলে মেডিকেল কলেজগুলোতে মোট কতজন ছাত্র-ছাত্রীর আবাসনের ব্যবস্থা হবে সে সংক্রান্ত সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য সংযোজন করা হয়নি বলে দাবি কমিশনের। প্রকল্পের আওতায় ভবন নির্মিত হবে বিধায় পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র গ্রহণের বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

কমিশন বলছে, প্রস্তাবিত বিভিন্ন যন্ত্রপাতির সুনির্দিষ্ট স্পেসিফিকেশনসহ উল্লেখ প্রয়োজন। প্রতিটি টিভির (৪৯ ইঞ্চি) একক মূল্য ধরা হয়েছে এক লাখ টাকা। কীসের ভিত্তিতে এই ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে তা জানতে চেয়েছে কমিশন। হোস্টেল ভবনগুলোর জন্য আসবাবপত্র খাতে ব্যয় প্রাক্কলনের ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ ভ্যাট অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এরও যৌক্তিকতা স্পষ্ট নয়। কারণ প্রকল্পের আওতায় মূল্য সংযোজন খাতে ১০ লাখ টাকার সংস্থান রাখা হয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশন জানায়, ডিপিপিতে (উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা) সব পৃষ্ঠায় বাস্তবায়নকারী সংস্থার স্বাক্ষর ও সিল নেই।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর জানিয়েছে, বর্তমানে বিদ্যমান ৩৭টি সরকারি মেডিকেল কলেজের মধ্যে ১৩টির আবাসিক ব্যবস্থা অত্যন্ত পুরোনো ও জরাজীর্ণ। এসব মেডিকেল কলেজে প্রতি বছর ছাত্রছাত্রীদের সংখ্যা বাড়লেও হোস্টেলে সিট সংখ্যা সে অনুপাতে বাড়েনি। ফলে পুরোনো ছাত্রাবাসগুলোতে প্রয়োজনীয় স্থান সংকুলান হচ্ছে না। এতে ছাত্রছাত্রীদের বসবাসের সমস্যা উত্তরোত্তর প্রকট হচ্ছে ।

jagonews24

ডিপিপি থেকে জানা যায়, প্রকল্পের আওতায় প্রস্তাবিত ১০টি মেডিকেল কলেজ বেছে নেওয়া হয়েছে। রংপুর মেডিকেল কলেজ, শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ, কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ, দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ, ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ, খুলনা মেডিকেল কলেজ ও রাজশাহী মেডিকেল কলেজে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে। বর্তমানে এসব মেডিকেল কলেজে ছাত্র ৭ হাজার ৫৩৯ এবং ছাত্রী ৭ হাজার ৭৫৬ জন। এসব মেডিকেলে ছাত্রদের জন্য ৪ হাজার ৩২০ এবং ছাত্রীদের জন্য বিদ্যমান আসন সংখ্যা মাত্র ৪ হাজার ৫৭৪টি।

প্রকল্পের আওতায় ২ লাখ ৪০ হাজার ৩৬৬ বর্গমিটার আবাসিক ভবনে ১ হাজার ৩৪ কোটি, ৮৯টি বৈদ্যুতিক সরঞ্জামাদি সংগ্রহে ১১৫ কোটি ২১ লাখ, ৩১ হাজার ১৩৯টি আসবাবপত্র সংগ্রহে ৩৪ কোটি ৮৫ লাখ টাকার প্রস্তাব করা হয়েছে। ৯ হাজার ৪৯০টি নানা সরঞ্জামাদি সংগ্রহে ১ কোটি ৭৬ লাখ, একটি জিপ কেনা বাবদ ৫৭ লাখ টাকার ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে।


আরও খবর



কোনো রাজনৈতিক দল একজন ডিসিকেও বিশ্বাস করে না: আকবর আলি খান

প্রকাশিত:Saturday ১৮ June ২০২২ | হালনাগাদ:Saturday ২৫ June ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা আকবর আলি খান বলেছেন, বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে অনেক কথা আছে। দেশে সিভিল সার্ভিসকে দুর্বল বানানো হয়েছে। কোনো রাজনৈতিক দল একজন ডিসিকেও বিশ্বাস করে না। বাংলাদেশের সিভিল সার্ভিসের লোকজন পক্ষপাতের বদনাম কিনে নিয়েছেন।

শনিবার (১৮ জুন) রাজধানীর কাকরাইলে অবস্থিত ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্সে সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) অষ্টম জাতীয় সম্মেলনে বক্তৃতাকালে এই মন্তব্য করেন তিনি।

ড. আকবর আলি খান বলেন, নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন করতে পারছে কি না, তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। পাশের দেশ ভারতে নির্বাচন নিয়ে এমন প্রশ্ন নেই। ভারতে যারা নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা হন, তারা প্রশাসনের কর্মকর্তা। বাংলাদেশে সিভিল সার্ভিস এখন এত দুর্বল করা হয়েছে, কোনো রাজনৈতিক দল ডিসিকে বিশ্বাস করে না।

ভারতের নির্বাচন ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, ভারতে দুই-তিন মাস ধরে নির্বাচন চলে। ব্যালট বাক্স থাকে ডিসির কাছে। বাংলাদেশে কি এমন একজন ডিসি পাওয়া যাবে, যার কাছে এক রাতের জন্য ব্যালট বাক্স রাখতে রাজি হবে? তারা পক্ষপাতের বদনাম কিনে নিয়েছেন। তাদের সে সাহসও নেই।

আকবর আলি খান বলেন, গণতন্ত্রের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত সুশীল সমাজ। সুশীল সমাজ গড়ে না উঠলে গণতন্ত্রের ভিত দুর্বল হয়। গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে সুশীল সমাজের কাজ জনগণের দৃষ্টি থেকে বিশ্লেষণ করা। সরকার বলছে, সুজন শুধু সরকারের সমালোচনা করে। সুজন যদি সরকারের প্রশংসা করে, তাহলে সমালোচনা করবে কে? সমালোচনা যারা করে, তারা বন্ধু, শত্রু নয়।

দেশের বিভিন্ন খাত সংস্কারে ১০ থেকে ১৫ বছর মেয়াদি উদ্যোগ প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

এ নিয়ে তিনি বলেন, আইনের শাসন, সুশাসন ও মেধার মূল্যায়ন করতে হবে। আগামী ৫০ বছরেও এসব সংস্কার হবে না, যদি দাবিগুলো জনগণের পক্ষ থেকে না করা হয়। জনগণই পারে রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে।

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আরেক উপদেষ্টা ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, যেকোনো শাসনব্যবস্থায় টেকসই দীর্ঘমেয়াদি অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রধান শর্ত শাসনকাঠামোর সর্বস্তরে কার্যকর জবাবদিহি নিশ্চিত করা। গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতেই জবাবদিহি নিশ্চিত করতে হবে। ইদানীং কেউ বলেন, আগে অর্থনৈতিক উন্নয়ন, পরে গণতন্ত্র, এটা কোনো কাজের কথা নয়।

দেশের বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশ শিক্ষার মানোন্নয়নের বদলে পিছিয়ে যাচ্ছে। নৈতিক মূল্যবোধ, পারস্পরিক সহযোগিতার মতো সামাজিক পুঁজির ক্ষেত্রে উন্নতির বদলে পিছিয়ে যাওয়া হচ্ছে। সমাজে স্থানীয় রাজনৈতিক ও ধনাঢ্য শ্রেণির উত্থান হয়েছে, কিন্তু তাদের মধ্যে অনুসরণীয় বৈশিষ্ট্য দেখা যায় না। যুবসমাজের সামনে কোনো আদর্শ ব্যক্তিত্ব নেই। অনিয়ম, দুর্নীতি, পেশিশক্তির উত্থানে সামাজিক পুঁজির অবক্ষয় ঘটেছে।

সুজনের কেন্দ্রীয় সমন্বয়কারী দিলীপ কুমার সরকারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সুজনের সহ-সভাপতি হামিদা হোসেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন সুজনের সহ-সম্পাদক জাকির হোসেন, কোষাধ্যক্ষ সৈয়দ আবু নাসের বখতিয়ার আহমেদ, নির্বাহী সদস্য বিচারপতি আবদুল মতিন, আলী ইমাম মজুমদার, অধ্যাপক তোফায়েল আহমেদ, অধ্যাপক রোবায়েত ফেরদৌস, অধ্যাপক মুহাম্মদ সিকান্দার খান প্রমুখ।


আরও খবর



রিকশাচালক থেকে কোটিপতি: সেই এরশাদের জামিন শুনানি আজ

প্রকাশিত:Thursday ১৬ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

এবি ব্যাংক থেকে ভুয়া ওয়ার্ক অর্ডারের মাধ্যমে ১৭৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে করা মামলায় কারাগারে থাকা মো. এরশাদ আলীর জামিন শুনানি আজ বৃহস্পতিবার (১৬ জুন)।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজহারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এ শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

এরআগে এ বিষয়ে তিনি হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন। বুধবার (১৫ জুন) ওই জামিন আবেদন শুনানির জন্য তালিকায় ছিল। তবে এদিন শুনানি না হওয়ায় আজ বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করা হয়।

গত ১৭ মে এরশাদ আলীকে জামিন না দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। ওইদিন তাকে সরাসরি শাহবাগ থানায় সোপর্দ করা হয়। হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট একই বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

মামলার বিবরণ থেকে জানা যায়, রিকশাচালক থেকে হাজার কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া এরশাদ ব্রাদার্স করপোরেশনের মালিক এরশাদ আলীর বিরুদ্ধে ২০২০ সালের ৮ জুন মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তার মালিকানাধীন এরশাদ গ্রুপ ভুয়া ব্যাংক গ্যারান্টিতে এবি ব্যাংকের ১৭৬ কোটি টাকা আত্মসাৎ করে। এ অভিযোগে মামলা করে দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয় ঢাকা-১-এ উপসহকারী পরিচালক আবুল কালাম আজাদ। মামলায় এরশাদ গ্রুপের স্বত্বাধিকারী মো. এরশাদ আলীসহ ১৭ জনকে আসামি করা হয়।

এজাহারে বলা হয়, প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে অপরাধজনক বিশ্বাসভঙ্গ করে এরশাদ গ্রুপ স্বেচ্ছায়-সজ্ঞানে জাল ওয়ার্ক অর্ডার প্রস্তুত করে। তারা সাতটি ব্যাংক গ্যারান্টির মাধ্যমে ১৭৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে।

এরশাদ আলী ছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হলেন— এবি ব্যাংকের ইসলামী ব্যাংকিং শাখার সাবেক ব্যবস্থাপক এ বি এম আবদুস সাত্তার, সাবেক এসভিপি রিলেশনশিপ ম্যানেজার ইসলামী ব্যাংকিং শাখা আবদুর রহিম, আনিসুর রহমান, একই শাখার ভিপি শহিদুল ইসলাম, এভিপি রুহুল আমিন, এবি ব্যাংকের সাবেক এমডি মসিউর রহমান, শামীম আহমেদ চৌধুরী, ইভিপি ও হেড অব সিআরএম ওয়াসিক আফরোজী, মুফতি মুস্তাফিজুর রহমান (স্বপন), সাবেক এসইভিপি সালমা আক্তার, সাবেক এভিপি এমারত হোসেন ফকির, সাবেক প্রিন্সিপাল অফিসার তৌহিদুল ইসলাম, এসভিপি শামীম-এ-মোরশেদ, ভিপি খন্দকার রাশেদ আনোয়ার, এভিপি সিরাজুল ইসলাম ও সাবেক ভিপি ও ক্রেডিট কমিটির সদস্য মাহফুজ-উল-ইসলাম।

আইনজীবীরা জানান, এবি ব্যাংক লিমিটেড, ইসলামী ব্যাংক কাকরাইল শাখা থেকে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের ঠিকাদার সিনোহাইড্রো করপোরেশন লিমিটেড এবং চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেডের নাম করে ছয়টি ভুয়া ও জাল ওয়ার্ক অর্ডারের মাধ্যমে এবং সাত ব্যাংক গ্যারান্টির মাধ্যমে ১০ লাখ মোট ১৭৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় মো. এরশাদ আলী আগাম জামিন নিতে আসলে হাইকোর্ট জামিন না দিয়ে তাকে সরাসরি শাহবাগ থানায় সোপর্দ করেন।


আরও খবর



সার্ভিসেস কাবাডি লিগে সেনা ও নৌবাহিনী শীর্ষে

প্রকাশিত:Monday ২৭ June ২০২২ | হালনাগাদ:Tuesday ২৮ June ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
Image

একদিন আগেই বাংলাদেশ পুলিশ দলের বিপক্ষে দুর্দান্ত লড়াই করে ৩৪-৩৩ পয়েন্টে হেরেছিল বাংলাদেশ বিমানবাহিনী। চলমান সার্ভিসেস কাবাডি লিগের সবচেয়ে জম্পেশ ম্যাচও ছিল সেটি।

সেই বিমানবাহিনকে পরের বিকেলেই দেখা গেল অন্যরকম। সর্বশেষ আসরের চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ নৌবাহিনীর বিপক্ষে তারা তেমন প্রতিদ্বন্দ্বিতাই গড়তে পারেনি।

ম্যাচটি সহজেই জিতে নিয়েছে সর্বশেষ আসরের চ্যাম্পিয়ন নৌবাহিনী। তারা ৩৪-২১ পয়েন্টে হারিয়েছে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীকে। এটি বাংলাদেশ নৌবাহিনীর টানা তৃতীয় জয়। যে জয়ে সেনাবাহিনীর সাথে যুগ্মভাবে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেলো বাংলাদেশ নৌ বাহিনী।

তুহিন তরফদার, আরদুজ্জামান মুন্সীদের দল প্রথমার্ধে এগিয়ে ছিল ১৮-৮ পয়েন্টে। পরের ম্যাচে দাপটের সাথে খেলে ফায়ার সার্ভিসকে ৬২-১৯ পয়েন্টে হারিয়ে চলতি লিগের সবচেয়ে বড় জয় তুলে নিয়েছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। আসরে বাংলাদেশ গেমস চ্যাম্পিয়নদের এটি প্রথম জয়। জয়ী দল প্রথমার্ধে এগিয়ে ছিল ৩১-৮ পয়েন্টে।

মঙ্গলবার সেনাবাহিনী-বিজিবি ও নৌবাহিনী-পুলিশ মুখোমুখি হবে। দুটি ম্যাচই সরাসরি সম্প্রচার করা হবে বাংলাদেশ কাবাডি ফেডারেশনের ফেসবুক পেজে।


আরও খবর



বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ হারানোর শীর্ষে এক্সিম ব্যাংক

প্রকাশিত:Friday ০৩ June ২০২২ | হালনাগাদ:Monday ২৭ June ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
Image

বড় ধরনের ঊর্ধ্বমুখীতার মধ্য দিয়ে গেলো সপ্তাহ পার করেছে দেশের শেয়ারবাজারে। সপ্তাহজুড়ে লেনদেন হওয়া পাঁচ কার্যদিবসেই ঊর্ধ্বমুখী ছিল শেয়ারবাজার। এমন ঊর্ধ্বমুখী বাজারেও বিপরীত চিত্র ছিল এক্সিম ব্যাংকের।

বিনিয়োগকারীদের বড় অংশ কোম্পানিটির শেয়ার কিনতে আগ্রহী না হওয়ায় ব্যাংকটির শেয়ার দাম কমে গেছে। বিনিয়োগকারীদের আগ্রহ হারানোর কারণে গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) দাম কমার শীর্ষ স্থানটি দখল করেছে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার।

গেলো সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার দাম কমেছে ৭ দশমিক ৪৪ শতাংশ। টাকার অঙ্কে প্রতিটি শেয়ারের দাম কমেছে ৯০ পয়সা। সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে কোম্পানিটির শেয়ার দাম দাঁড়িয়েছে ১১ টাকা ২০ পয়সা, যা আগের সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে ছিল ১২ টাকা ১০ পয়সা।

শেয়ারের এমন দাম কমা কোম্পানিটি গত ১২ মে চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ওই প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, গত বছরের তুলনায় কোম্পানিটির মুনাফা বেড়ে পাঁচ গুণ হয়েছে। চলতি বছরের জানুয়ারি-মার্চ এই তিন মাসে ব্যাংকটি শেয়ারপ্রতি মুনাফা করেছে ২৫ পয়সা, আগের বছরের একই সময়ে শেয়ারপ্রতি মুনাফা হয়েছিল মাত্র ৫ পয়সা।

ব্যাংকটির লভ্যাংশের তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, সর্বশেষ ২০২১ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত বছরের জন্য বিনিয়োগকারীদের ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। তার আগে ২০২০ সালে সাড়ে ৭ শতাংশ নগদ ও আড়াই শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ দেয়। এছাড়া ২০১৯ ও ২০১৮ সালে ১০ শতাংশ নগদ এবং ২০১৭ সালে সাড়ে ১২ শতাংশ নগদ এবং ২০১৬ সালে ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয় প্রতিষ্ঠানটি।

এদিকে, দাম কমে যাওয়ায় বিনিয়োগকারীদের একটি অংশ কোম্পানিটির শেয়ার কিনতে আগ্রহী হননি। ফলে সপ্তাহজুড়ে কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩ কোটি ৩৯ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। এতে প্রতি কার্যদিবসে গড়ে লেনদেন হয়েছে ৬৭ লাখ ৯৪ হাজার টাকা।

এক্সিম ব্যাংকের পরেই গত সপ্তাহে দাম কমার তালিকায় ছিল এসজেআইবিএল মুদারাবা পার্পেচুয়াল বন্ড। সপ্তাহজুড়ে এই এই বন্ডটির দাম কমেছে ৫ দশমিক ৬৯ শতাংশ। ৪ দশমিক ৭০ শতাংশ দাম কামার মাধ্যমে পরের স্থানে রয়েছে এস আলম কোল্ড রোল্ড স্টিল।

এছাড়া গত সপ্তাহে দাম কমার শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় থাকা- বিকন ফার্মাসিউটিক্যালসের ৩ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ, শাহজিবাজার পাওয়ারের ২ দশমিক ৯২ শতাংশ, সোনালী পেপারের ২ দশমিক ৩৩ শতাংশ, ক্রাউন সিমেন্টের ২ দশমিক ২১ শতাংশ, আইবিবিএল মুদারাপা পার্পেচুয়াল বন্ডের ২ দশমিক ১২ শতাংশ, বিচ হ্যাচারির ২ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ এবং পূবালী ব্যাংক পার্পেচুয়াল বন্ডের ২ শতাংশ দাম কমেছে।


আরও খবর